প্রাচীন ইতিহাস ও প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের বিশাল সংগ্রহশালা চবি জাদুঘর



মুহাম্মাদ মুনতাজ আলী, চবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সবুজের চাদরে মোড়ানো ঘন বৃক্ষরাজি ও পাহাড় ঘেরা সুবিশাল আয়তনের এক নৈসর্গিক ক্যাম্পাস চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি)। সকাল হতেই শুরু হয় শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও গবেষকদের আনাগোনা। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এই ক্যাম্পাসে জ্ঞানপিপাসু শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জন্য নতুন মাত্রা যোগ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের জাদুঘর। দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে একমাত্র জাদুঘর এটি। যেখানে রয়েছে প্রাচীন ইতিহাস- ঐতিহ্য ও প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের বিশাল সংগ্রহশালা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটের তথ্য মতে বাংলাদেশের ইতিহাস, প্রত্নতত্ত্ব এবং শিল্প ঐতিহ্য সম্পর্কে জানতে ও উৎসাহিত করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগ কর্তৃক জাদুঘরটির আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যক্রম শুরু হয়েছিল ১৪ জুন ১৯৭৩ সালে। যদিও এর আগে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দিন তথা ২৬ নভেম্বর ১৯৬৬ সালে শুরু হয় জাদুঘর চালুর প্রক্রিয়া।

সর্বমোট পাঁচবার স্থান পরিবর্তন করার পর ১০ আগস্ট ১৯৯২ সালে স্থায়ী প্রদর্শনীর জন্য পাহাড়ের কোলঘেঁষে চবি কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের পাশে ছোট্ট টিলার ওপর দ্বিতল একটি ভবনে জাদুঘরের বর্তমান অবস্থান। এর আগে প্রাথমিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানববিদ্যা অনুষদ ভবনের দ্বিতীয় তলায় একটি কক্ষে ক্ষুদ্র পরিসরে জাদুঘরের যাত্রা শুরু হয়। পরবর্তীকালে কিছুদিন উক্ত ভবনের নিচতলার দুইটি কক্ষে পূর্বের চেয়ে বড় পরিসরে কিছু সময় জাদুঘরের কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছিল। এরপর চট্টগ্রাম শহরের মৌলানা মোহাম্মদ আলী সড়কে অবস্থিত চট্টগ্রাম কলাভবনে (বর্তমানে জেলা শিল্পকলা একাডেমি) স্বল্প পরিসরে এই জাদুঘর পরিচালিত হয় এবং এরপর পুনরায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের চতৃর্থ তলায় জাদুঘরটি স্থানান্তরিত হয়।

ভবনটির নিচতলায় রয়েছে গবেষণা কেন্দ্র, আলোকচিত্র স্টুডিও, কনজারভেশন ল্যাবরেটরি, একটি অস্থায়ী প্রদর্শনী ও সেমিনার কক্ষ, একটি ডকুমেন্টেশন ও গবেষণা কেন্দ্র, জাদুঘরের স্টোর ‍রুম, অফিস কক্ষসমূহ এবং আব্দুল করিম সাহিত্য বিশারদ কোষ গ্রন্থাগার। জাদুঘর ভবনটির দ্বিতীয় তলা পাঁচটি গ্যালারিতে বিভক্তি।

প্রাগৈতিহাসিক ও প্রত্নতত্ত্ব গ্যালারি

চবি জাদুঘর শুরুর দিক থেকেই প্রাগৈতিহাসিক প্রত্নতত্ত্ব সংগ্রহের বিষয়ে সচেতন ভূমিকা রাখে। চট্টগ্রাম মহানগরীর নাসিরাবাদ পাহাড় হতে প্রাপ্ত টারশিয়ারি যুগের একটি মাছের ফসিল উপহার হিসেবে পায় বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘর। আর এটিই সংগ্রহশালার সর্বপ্রাচীন নিদর্শন হিসেবে বিবেচিত। এই অঞ্চলের প্রাকৃতিক ইতিহাস অধ্যয়ন ও গবেষণায় এটির রয়েছে অসামান্য অবদান। এই গ্যালারিতে আরও রয়েছে প্রায় ২০ হাজার বছরের পুরনো কাঠের ফসিল, কুমিল্লার কোটবাড়ি থেকে পাওয়া সপ্তম শতাব্দীর ল্যাম্পস্ট্যাণ্ড, সোমপুর বিহার ও কোটবাড়ির পোড়া মাটির ফলক, ধাতুচিত্র, অলংকৃত ইট, কাদা মাটির মূর্তি ইত্যাদি।

প্রাচীন ভাস্কর্য গ্যালারি

ভাস্কর্য গ্যালারিতে সংরক্ষিত বিভিন্ন ভাস্কর্যসমূহ গৌরবময় অতীতের কথা মনে করিয়ে দেয় দর্শনার্থীদের। ব্রাক্ষ্মণ্য ও বৌদ্ধ প্রতিকৃতিগুলো থেকে সহজেই তৎকালীন সময়ের বিশ্বাস, রীতিনীতি, সংস্কৃতি এবং অলংকার সম্পর্কে একটি ধারণা পাওয়া যায়। এ সংগ্রহশালার সবচেয়ে মূল্যবান বস্তু হিসেবে বিবেচিত হয় দুষ্প্রাপ্য ৫২টি কষ্ঠিপাথরের মূর্তি। রয়েছে ২৮টি ব্রোঞ্জ ভাস্কর্য এবং ধাতু নির্মিত কিছু ভাস্কর্য যার অধিকাংশই পাল আমলের (৮০০-১২০০খ্রিষ্টাব্দ)। গুপ্ত সাম্রাজ্যের (৩২০-৫৫০খ্রিষ্টাব্দ) একটি সূর্য মূর্তি রয়েছে এ জাদুঘরে। আরও রয়েছে বৈষ্ণব, শিব, সুরিয়া, শাক্ত এবং গাণপত্য পৌরাণিক চরিত্রসমূহের মূর্তি এবং ভাস্কর্য। এছাড়া রয়েছে চট্টগ্রামের মিরসরাই থেকে প্রাপ্ত নবম শতকের সেণ্ড পাথরের ভাস্কর্যের গরুড় রাধা বিষ্ণুর একটি প্রাচীনতম নিদর্শন।

প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের বিশাল সংগ্রহশালা চবি জাদুঘর

ইসলামিক শিল্প গ্যালারি

এ গ্যালারিতে সংরক্ষিত সামগ্রীগুলো মুসলিম সভ্যতার তৎকালীন সময়ের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক অবস্থার একটি চিত্র ফুটিয়ে তোলে দর্শনার্থীদের সামনে। এ গ্যালারিতে রয়েছে হাতে লেখা কুরআন শরীফ, শিলালিপি, কারুকাজ মসজিদের দেয়ালের খণ্ডিত অংশ, নকশে সুলেমানি, ১২০৯ সালের আলমগীর নামা, ফার্সি ভাষার গুলিস্তা, ১২২৯-৩৬ সালের হাতে লেখা ফার্সি কাবিননামা, ১০৬১ হিজরীতে লেখা মেপতাহুস সালাত। সম্রাট শাহজাহানের কামান, মুঘল আমলের ঢাল-তলোয়ার, উমাইয়া এবং সুলতানি আমলের স্বর্ণ ও রৌপ্য মুদ্রা এ সংগ্রহশালাকে দান করেছে অনন্য উচ্চতা।

লোকশিল্প গ্যালারি

আবহমান বাংলার ইতিহাস ও ঐতিহ্যের এক অনন্য সংগ্রহশালার নাম চবি জাদুঘর। কালের গর্ভে হারিয়ে যাওয়া পালকি, গ্রামোফোন, শীতল পাটি, হাতে তৈরি চরকা, তাঁত ইত্যাদি দেখতে পাওয়া যাবে এ গ্যালারিতে। তবে বাঘের মাথা, প্রথম যুগের সিরামিক সামগ্রী, রাজকীয় লাঠির মাথা, হাজার বছর আগেকার মানুষের ব্যবহৃত অলংকার দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করে বেশি।

সমকালীন শিল্পকলা গ্যালারি

বাংলাদেশের খ্যাতিমান প্রায় সব শিল্পীর চিত্রকর্ম যারা অবলোকন করতে চান তাদের জন্যই এ গ্যালারি আদর্শ একটি মাধ্যম। এ গ্যালারিতে স্থান পেয়েছে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন, এস এম সুলতান, মর্তুজা বশীর, রশীদ চৌধুরী, নিতুন কুণ্ডু ও হাশেম খানের মতো শিল্পীদের নানা চিত্রকর্ম এবং সৈয়দ আবদুল্লাহ খালিদের ভাস্কর্য।

তবে ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম এই জাদুঘরের ব্যাপারে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি বার্তা২৪.কমকে জানান, জাদুঘরে অনেক ম্যাটেরিয়ালস আছে যেগুলো নিয়ে এমফিল, পিএইচডি করা যায়। কিন্তু আব্দুল করিম স্যারের পর আর কেউ এটা নিয়ে কাজ করেনি। যা খুব হতাশার ব্যাপার। জাদুঘর কোন অফিস না কিন্তু এটা বর্তমানে অফিস হয়ে গেছে। আজ পর্যন্ত এই জাদুঘর থেকে একটা গবেষণাপত্র বের করতে পারেনি। একটা মিউজিয়ামের প্রাণ হচ্ছে ক্যাটালগ কিন্তু আজ পর্যন্ত তারা একটা ক্যাটালগ বের করতে পারেনি।

তিনি আরও বলেন, মার্কিন ইতিহাসবিদ রিচার্ড ইটনসহ পৃথিবীর অনেক বিখ্যাত ব্যক্তি এখান থেকে তথ্য নিয়ে গবেষণা করেছেন অথচ এটা এখন অবহেলিত হয়ে পড়ে আছে। গবেষণাপত্র ও জার্নাল বের না করলে শিক্ষার্থীরা এমফিল, পিএইচডি কিভাবে করবে?

শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদে জাবিতে মশাল মিছিল



জাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: জাবিতে মশাল মিছিল

ছবি: জাবিতে মশাল মিছিল

  • Font increase
  • Font Decrease

সারাদেশে কোটা সংস্কারের ১ দফা দাবিতে চলমান 'বাংলা ব্লকেড' কর্মসূচিতে আন্দোলনরত বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপর হামলা ও জড়িতদের চিহ্নিত করে বিচারের দাবিতে মশাল মিছিল ও সমাবেশ করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা৷ এছাড়া মিছিলে বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনকারীদের সাথে সমর্থন জানিয়ে সাভারের বিভিন্ন কলেজের শিক্ষার্থীরা যোগ দেন৷

শুক্রবার (১২ জুলাই) রাত পৌনে ৮টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে বসে 'বৈষম্য বিরোধী ছাত্র আন্দোলন' -এর ব্যানারে একটি মশাল মিছিল বের করে ছাত্রদের হল হয়ে নতুন রেজিস্ট্রার ভবন, চৌরঙ্গী দিয়ে ছাত্রী হল হয়ে পুনরায় শহীদ মিনারে এসে রাত সোয়া ৯টায় এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়৷

এসময় মশাল মিছিলে শিক্ষার্থীরা- ‘কুবি/চবি/শেকৃবিতে হামলা কেন, প্রশাসন জবাব দে’, ‘পুলিশ/হামলা/মামলা করে আন্দোলন, বন্ধ করা যাবে না-যাবে না’, '৭১ এর বাংলায় বৈষম্যের ঠাঁই নাই', '১৮ এর হাতিয়ার গর্জে উঠো আরেকবার', 'জেগেছে রে জেগেছে, ছাত্রসমাজ জেগেছে', লেগেছে রে লেগেছে, রক্তে আগুন লোগেছে', ‘সংবিধানের মূলকথা, সুযোগের সমতা’,'মুক্তিযুদ্ধের মূলকথা, সুযোগের সমতা’, ‘সারা বাংলায় খবর দে, কোটা প্রথার কবর দে’, ‘দালালি না রাজপথ, রাজপথ রাজপথ’, ‘কোটা না মেধা, মেধা মেধা’, 'আঠারোর হাতিয়ার, গর্জে উঠুক আরেকবার’, ‘মুক্তিযুদ্ধের বাংলায়, বৈষম্যের ঠাঁই নাই’ ইত্যাদি কোটা সংস্কারপন্থী স্লোগান দেন।

মশাল মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বঙ্গবন্ধু তুলনামূলক সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী আব্দুর রশিদ জিতুর সঞ্চালনায় শিক্ষার্থীরা বলেন, আমরা কোনো অন্যায্য দাবি আদায়ের জন্য দাঁড়াইনি৷ তবুও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আমাদের সহযোদ্ধা ভাই-বোনদেরকে আঘাত করা হয়েছে। আমরা এর যথাযথ বিচার দাবি করছি৷ আমরা আমাদের এক দফা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত পড়ার টেবিলে ফিরে যাব না।

এসময় সমাবেশে ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আলিফ মাহমুদ বলেন, শিক্ষার্থীরা সরকারি চাকরিতে সকল ধরনের অযৌক্তিক কোটা বাতিলের দাবিতে রাজপথে আন্দোলন করছে।এই আন্দোলন কোনো বিচ্ছিন্ন আন্দোলন নয়৷ আমাদের যৌক্তিক ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনে পুলিশ হামলা করেছে। আমরা হামলাকারীদের দ্রুত শনাক্ত করে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসার দাবি জানাই।

তিনি আরও বলেন, আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই হামলা-মামলা করে আমাদের আন্দোলনকে থামানো যাবে না। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা এই যৌক্তিক আন্দোলন চালিয়ে যাবে। পুলিশ আমাদের দমন করতে চেয়েছিল কিন্তু পারেনি। শুধু পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য ন্যূনতম কোটা রেখে সংসদে অবিলম্বে আইন পাশ না করা পর্যন্ত আমরা রাজপথ ছাড়বো না।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষার্থী তৌহিদ মোহাম্মদ সিয়াম বলেন, গতকালকের কর্মসূচিতে বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রীয় গুণ্ডা বাহিনীর হামলার নিন্দার প্রতিবাদে আমাদের এই মশাল মিছিল। আমাদের যে ভাইদের ধরে নেওয়া হয়েছে তাদেরকে অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে। অন্যথায় এর ফল সরকারকে ভোগ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদেরকে শুরু থেকেই কোটা বিরোধী হিসেবে প্রচার করা হচ্ছে, কিন্তু আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই আমরা চাই কোটার সংস্কার। যৌক্তিক সংস্কার করে সংসদে আইন পাশ করতে হবে। সরকারের কাছে আহ্বান আমাদের দাবি মেনে নিন এবং দ্রুত পড়ার টেবিলে ফিরে যেতে দিন।

'বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন' -এর জাবি শাখার সদস্য সচিব মাহফুজুল ইসলাম মেঘ বলেন, আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, আমাদের রক্তের বিনিময়ে হলেও আমরা দাবি আদায় করে নিব। আমাদের যে ভাইদের রক্ত ঝরেছে তার বিচার করতে হবে। একজনকে আঘাত করা হলে লাখোজন দাঁড়াবে। আন্দোলনকারী ভাইরা আমরা আমাদের সফলতার দ্বারপ্রান্তে। আপনাদের নিরাশ হওয়ার সুযোগ নেই।

প্রসঙ্গত, এছাড়া গত ৭ জুলাই থেকে সরকারি চাকরির সকল গ্রেডে অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক কোটা বাতিল করে সংবিধানে উল্লিখিত অনগ্রসর গোষ্ঠী ও বিশেষ চাহিদাসম্পন্নদের জন্য কোটাকে ন্যায্যতার ভিত্তিতে ৫ শতাংশে এনে সংসদে আইন পাশ করে কোটা পদ্ধতিকে সংস্কারের এক দফা দাবিতে আন্দোলন করে আসছে শিক্ষার্থীরা৷


'বাংলা ব্লকেড' কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) কোটা সংস্কারের ১ দফা দাবিতে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও শেরে-বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের বাধা প্রদানসহ হামলা ও মামলা করা হয়েছে৷ এ ঘটনায় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে আহত হয়েছেন অনেকেই৷

;

বৃষ্টি উপেক্ষা করে বাকৃবিতে বিক্ষোভ



বাকৃবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকার বাইরে বিভিন্ন স্থানে বৃহস্পতিবার শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি অভিযানের প্রতিবাদে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করেছে।

শুক্রবার (১২ জুলাই) বিকাল সাড়ে ৫টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনের সামনে ওই সমাবেশের আয়োজন করেন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের মিছিলটি বাকৃবির কে.আর মার্কেটসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ঘুরে শহীদ মতিউল-কাদের স্মৃতিসম্ভের সামনে অবস্থান নেয়।

এসময় শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন স্লোগান দিতে দেখা যায়। 'আমার ভাই আহত কেন? প্রশাসন জবার চাই। নায্য আন্দোলনে হামলা কেন? প্রশাসন জবাব চাই। হামলা করে আন্দোলন,বন্ধ করা যাবে না' সহ বিভিন্ন স্লোগান দেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা তাদের এক দফা দাবি আদায়ে অনড় রয়েছেন বলে জানান। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলেও শিক্ষার্থীরা।

এ সময় বাকৃবির জব্বারের মোড়ে শিক্ষার্থীরা অবস্থান নেয়ায় প্রায় ১ ঘণ্টা বন্ধ থাকে ময়মনসিংহ-গফরগাঁও আঞ্চলিক যোগাযোগ।

;

শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের হামলা

কুবিতে বিক্ষোভ মিছিল, প্রক্টরের পদত্যাগ দাবি



কুবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: কুবিতে বিক্ষোভ মিছিল/বার্তা২৪.কম

ছবি: কুবিতে বিক্ষোভ মিছিল/বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সকল চাকরির সকল গ্রেডে ও সকল প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় বৈষম্যমূলক কোটা নিরসনের দাবিতে ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচির অংশ হিসেবে পঞ্চম দিনের মত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করতে গিয়ে বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) পুলিশি হামলার শিকার হন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

এই হামলার সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিলের পাশাপাশি প্রশাসনিক অদক্ষতার কারনে প্রক্টরের পদত্যাগ দাবি করেন তারা।

শুক্রবার (১২ জুলাই) বিকাল সাড়ে চারটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বাংলো হয়ে আনসার ক্যাম্প ঘুরে গোল চত্বরে এসে শেষ হয়।

মিছিল আনসার ক্যাম্প পৌঁছালে শিক্ষার্থীরা সেখানে এক যোগে জাতীয় সংগীত গায় এবং পুলিশি হামলার শিকার আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ্যে এক মিনিট নীরবতা পালন করে। নীরবতা পালন শেষে শিক্ষার্থীরা আনসার ক্যাম্প মোড়কে 'ছাত্র আন্দোলন চত্বর' ঘোষণা করা হয়। এরপর চত্বরটিতে আন্দোলনের সংবাদ সংগ্রহকালে আহত দৈনিক প্রতিদিনের বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাভেদ রায়হান ও অন্যান্য শিক্ষার্থীরা মিলে নামফলক লাগান।

এরপর এই চত্বরের স্মৃতিস্বরূপ দুইটি গাছ লাগান শিক্ষার্থীরা। এরপর শিক্ষার্থীরা সদ্য নাম দেয়া 'ছাত্র আন্দোলন চত্বরে বক্তব্য রাখেন। তারা সেখানে এই হামলায় জড়িতদের বিচার চান এবং সেদিনের ঘটনায় প্রক্টরিয়াল বডির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেন। এছাড়া ৪৮ ঘন্টার মধ্যে তার পদত্যাগও চান আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। এরপর তারা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করে গোলচত্বরে স্লোগান দিতে থাকেন।

এই পুরোটা সময় আন্দোলনকারীরা 'লড়াই লড়াই চাই, লড়াই করে বাঁচতে চাই, আমার সোনার বাংলায়, বৈষ্যমের ঠাই নাই, লেগেছে রে লেগেছে, রক্তে আগুন লেগেছে, একাত্তরের হাতিয়ার, গর্জে উঠুক আরেকবার, সারা বাংলা খবর দে, কোটা প্রথার কবর দে ইত্যাদি বলে স্লোগান দেন।

এ ব্যাপারে আন্দোলনকারীদের মধ্যে অন্যতম আইন বিভাগের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ সাকিব হোসাইন বলেন, "আমাদের এ আন্দোলন যৌক্তিক ছিল, আমরা বিশ্বরোডের দিকে যাচ্ছিলাম অবরোধ করতে। তখন আমাদের ওপর হামলা করা হয়, লাঠিচার্জ করা হয় এবং টিয়ারশেল নিক্ষেপ করা হয়। আজকে আমরা দেখিয়ে দিবো শিক্ষার্থীরা কী করতে পারে। আমরা এই আন্দোলন আরো জোরদার করবো।"

উল্লেখ্য, গতকাল (১১ জুলাই) বিকাল তিনটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন আনসার ক্যাম্পের সামনে শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠি চার্জ করে পুলিশ। এর জবাবে শিক্ষার্থীরাও ইট-পাথর নিক্ষেপ করেন। পরবর্তীতে পুলিশ কাঁদুনে গ্যাস, টিয়ারশেল, ফাঁকা গুলি ছুড়েন। ফলে তিন সাংবাদিক সহ অন্তত ২০ জন শিক্ষার্থী আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরবর্তীতে বিকাল ৪টা ৪৫ মিনিট থেকে রাত ১০টা ৪৭ মিনিট পর্যন্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে শিক্ষার্থীরা৷

;

শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে শেকৃবিতে বিক্ষোভ মিছিল



শেকৃবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: শেকৃবিতে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে শিক্ষার্থীরা

ছবি: শেকৃবিতে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে শিক্ষার্থীরা

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার এবং শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) শিক্ষার্থীরা। এসময় দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলে জানান তারা। এদিন গত কয়েকদিনের চেয়ে বিপুল পরিমাণ শিক্ষার্থী আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন।

শুক্রবার (১২ জুলাই) বেলা ৫টায় লাইব্রেরি থেকে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি ক্যাম্পাসের ২য় গেট হয়ে বিভিন্ন মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে। এসময় শিক্ষার্থীরা পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সংযোগ সড়ক, আগারগাঁও, শিশুমেলা, কলেজগেট হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সয়েল মোড়ে অবস্থান নেন। এ সময় ভুয়া ভুয়া স্লোগান দিতে থাকেন শিক্ষার্থীরা।

এসময় 'জেগেছে রে জেগেছে, ছাত্রসমাজ জেগেছে; লেগেছে রে লেগেছে, রক্তে আগুন লেগেছে; শেকৃবিতে হামলা কেন, জবাব চাই, জবাব চাই; টোকাই দিয়ে হামলা কেন, জবাব চাই জবাব চাই; গুণ্ডা দিয়ে হামলা কেন, জবাব চাই-জবাব চাই; আমার ভাইয়ের রক্ত, বৃথা যেতে দিবো না ইত্যাদি স্লোগান দিতে থাকে।

বৈষম্যবিরোধী আন্দোলনের একজন শিক্ষার্থী বলেন, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা, লাঠিচার্জ করার প্রতিবাদে আজ আমাদের এই বিক্ষোভ মিছিল। তবে কোটা প্রথার বিরুদ্ধে আমাদের অবরোধ, বাংলা ব্লকেড কর্মসূচি অব্যহত থাকবে। আমরা আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত রাজপথ ছাড়ছি না। একইসাথে শিক্ষার্থীদের উপর যারা হামলা ও আক্রমণ করেছে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি।

;