ছাত্র ফ্রন্টের সমাবেশ ও নতুন কমিটি পরিচিতি



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

শিক্ষার অধিকার আদায়ের সংগ্রাম ও ফ্যাসিবাদী দুঃশাসনের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার দাবিতে ছাত্র ফ্রন্টের ছাত্র সমাবেশ-মিছিল ও কমিটি পরিচিতি অনুষ্ঠিত হয়।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলা পাদদেশে শিক্ষা দিবসের ছাত্র সমাবেশ-মিছিল ও কমিটি পরিচিতি অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনের সভাপতি মুক্তা বাড়ৈ এর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা রাখেন বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ এর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কমরেড বজলুর রশীদ ফিরোজ। আরও বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবু সাঈদ খান, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী সাধারণ সম্পাদক রাজেকুজ্জামান রতন।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, স্বাধীনতার ৫২ বছর পরও এই রাষ্ট্র তার ঘোষিত অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করতে পারেনি। সবার জন্য শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করার বদলে টাকা যার শিক্ষা-স্বাস্থ্য তার এই নীতিতে পরিচালিত হয়েছে দেশ। শিক্ষার সংকট বহুগুণে বেড়েছে। তাই বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়ে আইয়ুব সরকারের যে শিক্ষা সংকোচন নীতি এদেশের ছাত্রসমাজ প্রতিহত করেছিল, তারই ‘প্রেতাত্মা’ সওয়ার হয়েছে স্বাধীন দেশের শাসকশ্রেণির উপর। ৬২’র শিক্ষা আন্দোলনের চেতনাকে পদদলিত করা হয়েছে। শরীফ কমিশন প্রণীত শিক্ষানীতি আর স্বাধীনতাত্তোর দেশে প্রণীত সবকটি শিক্ষানীতির অন্তর্গত মৌলচরিত্র এক ও অভিন্ন। নতুন মোড়কে হাজির করা হয়েছে শিক্ষার বাণিজ্যিক দৃষ্টিভঙ্গি। সর্বজনীন বিজ্ঞানভিত্তিক সেক্যুলার বৈষম্যহীন একই ধারার গণতান্ত্রিক শিক্ষার দাবি উপেক্ষিত। শিক্ষার প্রধান ধারাই এখন বেসরকারি ধারা। বর্তমানে দেশের মোট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৯৫ ভাগই বেসরকারি। শিক্ষার মর্মবস্তুকে ধ্বংস করে সিলেবাসে যুক্ত করা হয়েছে সাম্প্রদায়িক ধ্যান-ধারনা। জাতীয় বাজেটে শিক্ষাখাতে বরাদ্দ কমছে প্রতিবছর। এ বছর শিক্ষাখাতে মোট বাজেটের মাত্র ১১.৫৭ শতাংশ বরাদ্দ করা হয়েছে যা দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বনিম্ন। শিক্ষার্থীদের গিনিপিগ বানিয়ে প্রতিনিয়ত চলছে নানান পরীক্ষা-নীরিক্ষা। সম্প্রতি ‘জাতীয় শিক্ষাক্রম ২০২০’ এর প্রয়োগ শুরু হয়েছে। কারিকুলামে বিজ্ঞান শিক্ষাকে সংকুচিত করা হয়েছে, শিক্ষাকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে কারিগরিকরণের দিকে। পাঠদান ও পরীক্ষাপদ্ধতিতে যে পরিবর্তন আনা হয়েছে তা চমকপ্রদ হলেও অবকাঠামোসহ শিক্ষাব্যবস্থার খোলনলচে বদল ব্যতীত এটির প্রয়োগ নতুন করে শুধু জটিলতাই তৈরি করবে। নতুন পদ্ধতির সাপেক্ষে দক্ষ শিক্ষক গড়ে তোলার জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও অর্থ বরাদ্দ করা হয়নি। বছরের শুরুতে ভুলে ভরা নিম্ন মানের পাঠ্যপুস্তক তুলে দেয়া হয়েছে শিক্ষার্থীদের হাতে। এ যেন শিক্ষা আর শিক্ষার্থীদের প্রতি শাসকশ্রেণির নির্মম পরিহাস। প্রতিটি শিক্ষা উপকরণের দাম ঊর্ধ্বমুখী। তার সাথে যুক্ত আছে বর্ধিত বেতন ফি। এই ক্রমবর্ধমান শিক্ষা ব্যয়ের ফলে সৃষ্ট আর্থিক সংকটে ঝরে পড়ছে দেশের বিশাল অংশের শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে সরকারের অনুগামী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা হয়েছে। উচ্চশিক্ষা কমিশন গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসনের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠোকার আয়োজন চলছে।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলিতে বজায় আছে সরকারি ছাত্র সংগঠনের সন্ত্রাস-দখলদারিত্ব। শিক্ষার্থীদের জোরপূর্বক ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের কর্মসূচিতে নেয়া হচ্ছে। কেউ ভিন্ন মত পোষণ করলে গেস্টরুমে নির্যাতন, মারধোর, হল থেকে বের করে দেয়া সারাদেশের নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। তার সাথে যুক্ত আছে প্রশাসনিক স্বৈরতন্ত্র। ন্যূনতম গণতান্ত্রিক চর্চা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এখন আর পরিলক্ষিত হয় না। দীর্ঘদিন ধরে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদগুলোর নির্বাচন হয় না। শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণ, শিক্ষা সংকোচন, ক্যাম্পাসের গণতান্ত্রিক পরিবেশ বিনষ্টকরণসহ শিক্ষার উপর শাসকশ্রেণির সর্বগ্রাসী আক্রমণ অব্যাহত রয়েছে।

ছাত্র সমাবেশ শেষে আগামীর ছাত্র আন্দোলনে নেতৃত্ব দানকারী হিসাবে মুক্তা বাড়ৈকে সভাপতি ও রায়হান উদ্দিনকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৮ সদস্যের ২০তম নতুন কমিটিকে পরিচয় করিয়ে দেন বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড বজলুর রশীদ ফিরোজ।

নতুন কমিটির তালিকা, সভাপতি-মুক্তা বাড়ৈ, সহ-সভাপতি-সুস্মিতা মরিয়ম, সাধারণ সম্পাদক-রায়হান উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক-সুহাইল আহমেদ শুভ, দপ্তর সম্পাদক-অনিক কুমার দাস, অর্থ সম্পাদক-সুলতানা আক্তার, প্রচার ও প্রকাশনাসম্পাদক-হারুনু-অর-রশিদ, আন্তর্জাতিক সম্পাদক-রিনা মুর্মু, স্কুল সম্পাদক-বিশ্বজিৎ নন্দী।

সদস্য-যুগেশ ত্রিপুরা, ধনঞ্জয় বর্মণ, লাবনী সুলতানা, আনারুল ইসলাম, বিজয় শিকদার, ঋজু লক্ষ্মী অবরোধ, রিদম শাহরিয়ার, খালেদা আক্তার, মিরাজ উদ্দিন। 

উল্লেখ্য, নতুন কমিটি ছাত্র সমাবেশে আগামী দিনের শিক্ষার অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে পাশাপাশি সমাজ পরিবর্তনের পরিপূরক ছাত্র আন্দোলন গড়ে তোলার অঙ্গিকার ব্যক্ত করেন।

 

   

দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ও এতিম মাদরাসা শিক্ষার্থীদের বই উপহার দিলো ছাত্রলীগ



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, এতিম ও অসহায় মাদরাসা শিক্ষার্থীদের বাংলাদেশ ছাত্রলীগের আয়োজনে বইমেলা পরিদর্শন ও বই উপহার দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বইমেলার বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গনে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের স্টল 'মাতৃভূমি'র সামনে বিকাল ৪ টায় এ চিত্র দেখা যায়।

মদিনাতুল উলূম প্রতিবন্ধী এতিমখানা মাদরাসা থেকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের আয়োজনে একদল দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ও এতিম মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের বইমেলা পরিদর্শন ও বই উপহার দেওয়া হয়। ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে এ সময় দায়িত্বে ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির মাদরাসা শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক জহিরুল ইসলাম।

জহিরুল ইসলাম এ ব্যাপারে বার্তা ২৪.কমকে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় গত শীতে আমি এই মদিনাতুল উলূম প্রতিবন্ধী এতিমখানা মাদরাসায় শীত বস্ত্র বিতরণ করতে এসেছিলাম। আমি তখন একটি ব্যাপার দেখে মুগ্ধ হয়েছিলাম। আমি দেখলাম তারা হাত দিয়ে স্পর্শ করে পড়তে পারে। তখনই আমার ইচ্ছা জাগে তাদেরকে একদিন বইমেলায় নিয়ে এসে বই উপহার দেব এবং মেলা পরিদর্শন করাবো। আমার মনে হলো যে তাদেরকে যদি পবিত্র কুরআনের পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস এর ব্যাপারে পড়ার ব্যবস্থা করে দিতে পারি তাহলে খুবই ভালো হয়। তাই তাদেরকে আজকে আমি ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে অসমাপ্ত আত্মজীবনী, একাত্তরের ডায়েরি এবং আমার বন্ধু রাশেদসহ বেশকিছু গল্পের বই উপহার দিয়েছি।

মদিনাতুল উলূম প্রতিবন্ধী এতিমখানা মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ হারুনুর রশীদ বার্তা ২৪.কমকে বলেন, আমরা প্রায় ৫০ জন মাদরাসা থেকে এসেছি। ছাত্র, শিক্ষক এবং কর্মচারী সবাই বইমেলায় এসেছি। ছাত্রলীগের এই আয়োজনে আমরা এবং বিশেষ করে শিক্ষার্থীরা অনেক আনন্দিত।

;

জবিতে ফ্যাকাল্টি ডেভেলপমেন্ট ফর হায়ার এডুকেশন শীর্ষক কর্মশালা 



জবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) 'ফ্যাকাল্টি ডেভেলপমেন্ট ফর হায়ার এডুকেশন ইন জগন্নাথ ইউনিভার্সিটি' শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা আয়োজন করেছে ইনস্টিটিউশনাল কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স সেল (আইকিউএসি)।

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের টিচার লাউঞ্জে এ কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয়।

আইকিউএসি, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক অধ্যাপক ড. আইন-উল হুদার সভাপতিত্বে কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো. হুমায়ুন কবীর চৌধুরী।

এসময় স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন আইকিউএসি'র অতিরিক্ত পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. সরোয়ার আলম এবং মডারেটর হিসেবে ছিলেন সংস্থাটির অতিরিক্ত পরিচালক ড. মো. রফিকুল ইসলাম।

কর্মশালায় টেকনিক্যাল সেশনে 'ফ্যাকাল্টি ডেভেলপমেন্ট ফর হায়ার এডুকেশন ইন জগন্নাথ ইউনিভার্সিটি' শীর্ষক উপস্থাপনা করেন সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটির সিএসই বিভাগের চেয়ারম্যান ও সংস্থাটির অতিরিক্ত পরিচালক শাহনাজ পারভিন।

কর্মশালায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও প্রভাষকবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

;

জাবিতে ভর্তি পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন, আটক ১



জাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ২০২৩-২০২৪ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষায় 'ডি' ইউনিটের ছাত্রদের পরীক্ষা চলাকালীন মোবাইলে গুগল করে উত্তর প্রদানের সময় একজনকে আটক করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। অসদুপায় অবলম্বনকারী ঐ ছাত্রের নাম সাজ্জাদ হোসেন মিরাজ।

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) 'ডি' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার দ্বিতীয় শিফটে সকাল ১০টা ২৫ মিনিটে পরীক্ষা চলাকালীন নিয়ম বহির্ভূত অসদুপায় অবলম্বন করে সাজ্জাদ হোসেন মিরাজ নামের এক ছাত্র। তার বাড়ি লক্ষীপুর জেলায়।

এ সময় পরীক্ষার হলে দায়িত্বরত শিক্ষক অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলাম জানান, সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের দ্বিতীয় তলায় ২৮২ নম্বর কক্ষে পরীক্ষার শুরুতে সবাইকে মোবাইল ফোন সামনে রেখে যাওয়ার কথা বললেও, ঐ ছাত্রের কাছে কোনো মোবাইল ফোন নেই বলে অস্বীকার করেন। এরপর পরীক্ষা শুরু হলে ঐ ছাত্র প্রবেশপত্রের নিচে মোবাইল রেখে গুগলে সার্চ করে উত্তর লিখছিলেন। বিষয়টি দায়িত্বরত শিক্ষকের নজরে আসলে তার খাতা নিয়ে তাকে প্রক্টোরিয়াল টিমের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এ বিষয়ে প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসায় ঐ ছাত্র অপরাধ স্বীকার করেছেন। ইতোমধ্যে আমরা ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট ঢাকার আশুলিয়া সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আশরাফুর রহমানকে জানিয়েছি। পরীক্ষা শেষে ভ্রাম্যমাণ আদালত তার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবেন।

এছাড়াও একই ইউনিটে ৪র্থ শিফটের এক পরীক্ষার্থী দ্বিতীয় শিফটে গণিত ও পরিসংখ্যান বিভাগে পরীক্ষা দিতে যাওয়ায় তার পরীক্ষা বাতিল ঘোষণা করা হয়।

;

জাবিতে চলছে 'ডি' ইউনিটে ভর্তিচ্ছু ছাত্রদের পরীক্ষা



জাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ২০২৩-২০২৪ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) ভর্তি পরীক্ষার চতুর্থ দিন 'ডি' ইউনিটের অধীনে জীববিজ্ঞান অনুষদে ভর্তিচ্ছু ছাত্রদের পরীক্ষা চলমান। এর আগে গতকাল একই ইউনিটে ছাত্রীদের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) 'ডি' ইউনিটের ভর্তি পরিক্ষা প্রথম শিফটে সকাল ৯টা হতে শুরু হয়েছে এবং ৪র্থ শিফটে বেলা ২ টা ৫০ মিনিটে শেষ হবে।

'ডি' ইউনিটে ছাত্রদের আসন সংখ্যা ১৫৫টি এবং ছাত্রীদের আসন সংখ্যা ১৫৫টি। সর্বমোট ৩১০টি আসনের বিপরীতে আবেদনকারীর সংখ্যা ছাত্র ৩২ হাজার ৯৫ জন এবং ছাত্রী ৩৭ হাজার ৩২১ জন। সে হিসেবে ছাত্রদের প্রতি আসনের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ২৪১ জন। অন্যদিকে ছাত্রীদের প্রতি আসনের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন ২০৮ জন ভর্তিচ্ছু।

এর আগে, সকালের দ্বিতীয় শিফটে নতুন কলা ভবনে ভর্তি পরীক্ষা পরিদর্শনে আসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. নূরুল আলম। এ সময় উপাচার্যের সাথে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হক, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক মোহাম্মদ মোস্তফা ফিরোজ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক রাশেদা আখতার, সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক বশির আহমেদ, রেজিস্ট্রার মো. আবু হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ায় উপাচার্য সন্তোষ প্রকাশ করেন।

এছাড়া আগামীকাল (২৯ ফেব্রুয়ারি) ‘বি’ ইউনিট (সমাজবিজ্ঞান অনুষদ ও আইন অনুষদ), আইবিএ-জেইউ এবং ‘ই’ ইউনিট (বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ)-এর ভর্তি পরীক্ষার মধ্যে দিয়ে ভর্তি পরীক্ষা শেষ হবে।

;