কম খরচে মাছের ভাসমান খাদ্য তৈরির যন্ত্র  উদ্ভাবন শেকৃবি গবেষকের



শেকৃবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
কম খরচে মাছের ভাসমান খাদ্য তৈরির যন্ত্র  উদ্ভাবন শেকৃবি গবেষকের

কম খরচে মাছের ভাসমান খাদ্য তৈরির যন্ত্র  উদ্ভাবন শেকৃবি গবেষকের

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রচলিত বাজারদরের চেয়ে ৩০ শতাংশ কম খরচে মাছের ভাসমান খাদ্য উৎপাদনের যন্ত্র তৈরি করেছেন রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মো মাসুদ রানা।

প্রাণিজ আমিষের অন্যতম প্রধান উৎস মাছ। প্রায় ৬০ শতাংশ প্রাণিজ আমিষ আসে মৎস্য খাত থেকে। কর্মসংস্থান, বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন এবং পুষ্টি সরবরাহে মাছের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, লাভজনক মাছ চাষের জন্য  অন্যতম প্রধান শর্ত মানসম্মত খাবার। মাছ চাষে ৭০ শতাংশের বেশি খরচ হয় খাবার সরবরাহে।

খামারি নিজেই কাচামাল সংগ্রহ করে কম খরচে মাছের খাদ্য তৈরি করতে পারবে সম্প্রতি এমন যন্ত্র 'সাউ ফিড মিল-১' উদ্ভাবন করা হয়েছে রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে।

মাছ চাষের খাবারের খরচ কমানোর পাশাপাশি খামারিরা যেন নিজের খামারের প্রয়োজনীয় খাদ্য নিজে উৎপাদন করতে পারে সে লক্ষ্যকে সামনে রেখে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ, একোয়াকালচার এন্ড মেরিন সায়েন্স অনুষদের ফিশিং এন্ড পোস্ট হারভেস্ট টেকনোলজী বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও বিভাগীয় চেয়ারম্যান মো. মাসুদ রানা সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তি ব্যবহার করে মাছের খাদ্য তৈরির মেশিন সাউ ফিড মিল-১ উদ্ভাবন করেছেন।

মেশিনটি তৈরি করতে মোট সময় লেগেছে এক বছর ছয় মাস ও মেশিনটি তৈরিতে খরচ হয় বার লক্ষ টাকা। সাউ ফিড মিল-১ এর উদ্ভাবক মাসুদ রানা বলেন, 'মাছ চাষিদের খাবারের সরবরাহ ও খরচ কমাতে মেশিনটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। নিরাপদ মাছ উৎপাদনের জন্য প্রয়োজন নিরাপদ মৎস্য খাদ্য। যেহেতু খামারি মাছের খাদ্যের কাঁচামাল সংগ্রহ করে নিজেই খাদ্য উৎপাদন করবে সেক্ষেত্রে খাদ্য যেমন নিরাপদ হবে তেমনি ঐ খাদ্য প্রয়োগ করে উপাদিত মাছও নিরাপদ হবে।'

উদ্ভাবিত মেশিনটির বিশেষত্ব সম্পর্কে মাসুদ রানা বলেন, 'একই মেশিন দিয়ে খামারি মাছের ভাসমান ও ডুবন্ত উভয় প্রকার খাদ্য তৈরি করতে পারবে। পাশাপাশি মেশিনটি দিয়ে ০.৫ মিলি থেকে ৫ মিলি আকারের সকল প্রজাতির মাছ ও চিংড়ির খাদ্য তৈরি করা যাবে।

মেশিনটিতে এডভান্সড মিলিং টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে ফলে এটি একটানা ১০-১২ ঘন্টা খাদ্য উৎপাদন করতে পারবে। এর মাধ্যমে ঘন্টায় ৭০-৮০ কেজি খাবার উৎপাদন করা সম্ভব ও প্রতি কেজি খাদ্য উৎপাদনে খরচ হবে ৩৮-৪০ টাকা যা বর্তমান বাজারে প্রতি কেজি ফিড মিল ৫৮-৬০ টাকায় ক্রয় করতে হয়। ফলে প্রতিকেজি খাবারে ২০ টাকা খরচ কমবে।'

উদ্ভাবিত মেশিনটি দিয়ে মাছের খাদ্যের পাশাপাশি হাঁস, মুরগী, কবুতরসহ অন্যান্য যেকোনো পাখির খাদ্য তৈরি করা সম্ভব যা মৎস্য সেক্টরের পাশাপাশি পোলট্রি শিল্পে এক অপার সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিবে বলে জানিয়েছেন মেশিনটির উদ্ভাবক।

শেকৃবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শহীদুর রশীদ ভূঁইয়া বলেন, 'এই প্রযুক্তি উদ্ভাবনের মাধ্যমে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে বিভিন্ন ফিস ইন্ডাস্ট্রির একটি লিংক তৈরি হলো। শিক্ষকদের মেধা দিয়ে গবেষণা করতে হবে। কৃষি বিজ্ঞানকে দেশের অগ্রযাত্রায় সহযাত্রী হিসেবে কাজে লাগাতে হবে।'

ইডেন ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ইডেন ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা

ইডেন ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌসীকে রুম থেকে টেনেহিঁচড়ে বের করে নির্যাতনের অভিযোগে ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না জেসমিন রিভা ও সাধারণ সম্পাদক মোছা. রাজিয়া সুলতানাসহ আটজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- ইডেন কলেজের নুজহাত ফারিয়া রোকসানা, নূরজাহান, আয়েশা ইসলাম মিম, আনিকা তাবাসুম স্বর্ণা ,ঋতু আক্তার ও কামরুন নাহার জ্যোতি। মামলাটি লালবাগ থানাকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের সহসভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌসীকে রুম থেকে টেনে-হিঁচড়ে বের করে নির্যাতনের অভিযোগে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মোস্তফা রেজা নুরের আদালতে এ মামলাটি করেন তিনি।বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে রাজধানীর লালবাগ থানাকে তদন্ত করে আগামী ২৩ অক্টোবর প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন আদালত।

বাদীপক্ষের আইনজীবী নূর-ই আলম জানান, মামলায় আরও ২৫-৩০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

জানা গেছে, ইডেন ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সিট বাণিজ্যসহ নানান বিষয়ে গণমাধ্যমে কথা বলেন ছাত্রলীগ নেত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসী।

অনিয়ম নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলায় শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাতে জান্নাতুলকে তার হলের কক্ষ থেকে টেনে-হিঁচড়ে বের করে আনেন কলেজ ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী। পরে সভাপতি তামান্না ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানার সামনে নির্যাতন করা হয়।

;

ঢাবিতে ছাত্রদলের ওপর ছাত্রলীগের হামলা, আহত ৭



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ঢাবিতে ছাত্রদলের ওপর ছাত্রলীগের হামলা, আহত ৭

ঢাবিতে ছাত্রদলের ওপর ছাত্রলীগের হামলা, আহত ৭

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ছাত্রদলের উপর ছাত্রলীগের হামলার ঘটনায় অন্তত ৭ জন আহত হয়েছেন। হামলার মুখে পিছু হটে ঢাবি ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের গণতন্ত্র ও মুক্তি তোরণের প্রবেশমুখে এ হামলা ঘটে। জানা যায়, সাম্প্রতিক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রদলের নতুন কমিটি ঘোষণার হয়, সে উপলক্ষে আজ উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান সঙ্গে দেখা করা কথা ছিল নব্য গঠিত ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, নীলক্ষেত মোড় হয়ে স্যার এফ রহমান হল সংলগ্ন গণতন্ত্র ও মুক্তি তোরণের মূল ফটক হয়ে ক্যাম্পাসে প্রবেশের চেষ্টা করে ছাত্রদল। এসময় লাঠি-সোঁটা দিয়ে তাঁদের উপর হামলা চালায়। হামলায় স্যার এ এফ রহমান হল ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াজুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মুনেম শাহরিয়ার মুনকে নেতৃত্ব দিতে দেখা যায়।

হামলায় ঢাবি ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম গুরুতর আহত হয়েছেন বলে ছাত্রদলের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, রোববার (১১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখার নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়।

;

চিরকুট লিখে রাবি ছাত্রীর আত্মহত্যা, সুষ্ঠু তদন্তের দাবি



রাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
ছন্দা রায়

ছন্দা রায়

  • Font increase
  • Font Decrease

চিরকুট লিখে আত্মহত্যা করেছেন ছন্দা রায় নামের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অর্থনীতি বিভাগের এক ছাত্রী। গতকাল সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর মুগদা থানার মানিক নগর এলাকায় ভাড়া বাসা থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানিয়েছে ছন্দার বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ছন্দার বাড়ি ঠাকুরগাঁও জেলায়। তিনি রাবির অর্থনীতি বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। তার স্বামীর নাম উত্তম কুমার। তার নিজের বাসা দিনাজপুরে। তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের উপ-পরিচালক হিসেবে কর্মরত। স্বামীর সঙ্গে ঢাকার মুগদায় ভাড়া বাসায় থাকতেন ছন্দা।

এ বিষয়ে ছন্দার সহপাঠী অনিক জানান, আমরা ছন্দার পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি তিন মাস আগে ছন্দার বিয়ে হয়। স্বামীর চাকরি সূত্রে ছন্দা স্বামীর সঙ্গে ঢাকায় থাকতো। ছন্দার স্বামীর ভাষ্যমতে, গতকাল সোমবার দুপুর থেকে বিকেলের মধ্যবর্তী সময়ে নিজ কক্ষের ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে ছন্দা। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ছন্দার পরিবার জানিয়েছে, মৃত্যুর পূর্বে ছন্দা একটি সুইসাইট নোট লিখে গেছে। তাতে লিখা আছে- ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়’ এবং ছন্দার হাতের লেখার সঙ্গে সেই লেখার মিল রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুগদা থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) নবেন্দ্র কুমার বলেন, প্রাথমিকভাবে আমরা এই মৃত্যুর ঘটনাটিকে আত্মহত্যা বলে বিবেচনা করছি। আমরা মরদেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছি। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে এই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। আর এ ঘটনায় নিহতের পারিবার কাউকে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করেনি। তবে একটি অপমৃত্যুর মামলা করেছে। মামলা নথিভুক্ত হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে ছন্দার এই ‘আত্মহত্যা’র ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে এই দাবিতে মানববন্ধন করেন তারা।

মানববন্ধনে অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী জাবেদুল ইসলামের সঞ্চালনায় একই বিভাগের শিক্ষার্থী রাজীব সরকার বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ে গত পাঁচ বছরে উনাকে সদা হাস্যোজ্জ্বল এবং বন্ধুসুলভ মানুষ হিসেবে দেখেছি। একজন বন্ধুসুলভ মানুষ খুব সহজে এমন একটি সিদ্ধান্ত নিতে যাওয়ার কথা না। আমরা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছিনা যে তিনি আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। হয়ত এটার পেছনে সামাজিক কোনো নিগ্রহ কিংবা পারিবারিক কোনো

নির্যাতনের কারণে এটা তিনি করতে পারেন। জানি তাকে আমরা আর ফিরে পাবো না, কিন্তু আমরা চাই ছন্দা রায়ের মতো আর কোনো বোন এমন মৃত্যুর শিকার না হোক এবং এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক।

ছন্দা রায়ের সহপাঠী আয়রিন আক্তার বলেন, কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছিনা যে ছন্দা আর আমাদের মাঝে নেই। ও এমন কাজ করার মতো মেয়ে না। আরেক সহপাঠী আরিফা আক্তার মিলি বলেন, নিশ্চয়ই ছন্দার মনে কোনো মানসিক কষ্ট ছিলো। আর ও হয়ত কারও সঙ্গে সেটা শেয়ারও করতে পারে নি। এজন্যই আমরা চাচ্ছি এ ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত হোক।

বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন খান বলেন, ছন্দার আত্মহত্যার বিষয়টি আমরা কিছুতেই মেনে নিতে পারছিনা। সে অনেক নম্র, ভদ্র এবং মেধাবী শিক্ষার্থী ছিল। সে একজন প্রাপ্তবয়ষ্ক মেয়ে। কাজেই আমরা এটাকে আত্মহত্যা বলতে পারিনা। নিশ্চয়ই এর পিছনে অনেক গভীরতম বিষয় লুকিয়ে আছে। আমরা চাই এর সুষ্ঠু তদন্ত হোক এবং যারা এর পিছনে জড়িত তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি আমরা আশা করছি।

মানববন্ধনে বিভাগটির শতাধিক শিক্ষক-শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

;

উত্তপ্ত ইডেন: কলেজ কর্তৃপক্ষের চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
উত্তপ্ত ইডেন: কলেজ কর্তৃপক্ষের চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন

উত্তপ্ত ইডেন: কলেজ কর্তৃপক্ষের চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর ইডেন মহিলা কলেজর ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ ও বিশৃঙ্খলা অবস্থার প্রেক্ষিতে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক সুপ্রিয়া ভট্টাচার্য।

সুপ্রিয়া ভট্টাচার্য বলেন, কলেজে সংঘর্ষের কারণ জানতে ঘটনার পরপরই কলেজ প্রশাসনের পক্ষ থেকে চার সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

তবে তদন্ত কমিটিতে কারা রয়েছেন বা কত সময়ের মধ্যে তারা প্রতিবেদন জমা দেবেন এ বিষয়ে গণমাধ্যমে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

সুপ্রিয়া ভট্টাচার্য আরও বলেন, বর্তমানে কলেজের পরিস্থিতি সম্পূর্ণ শান্ত এবং সুন্দর রয়েছে। শিক্ষার্থীরা নির্বিঘ্নে চলাচল করছেন। এই শান্ত পরিবেশ বজায় রাখার জন্য সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে। বিশেষ করে গণমাধ্যমে যারা রয়েছেন তাদের সহযোগিতা করতে হবে।

প্রসঙ্গত, গেল শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাতে ইডেন মহিলা কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌস নির্যাতনের অভিযোগ এনে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি তামান্না জেসমিন রিভা, সম্পাদক রাজিয়া সুলতানা এবং তাদের অনুসারীদের বিরুদ্ধে।

রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) উদ্ভূত পরিস্থিতি সংবাদ সম্মেলনে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রিভা ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানা আসলে সংবাদ সম্মেলনের এক পর্যায়ে দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, ধাওয়া-পালটা ধাওয়া বাঁধে। এরপর থেকে দুই গ্রুপের মুখোমুখি অবস্থানে উত্তপ্ত পরিস্থিতি তৈরি হয়। এসব ঘটনার প্রেক্ষিতে কলেজ ছাত্রলীগের সব সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য।

;