জুঁই



তানিম কবির
অলঙ্করণ: আনিসুজ্জামান সোহেল

অলঙ্করণ: আনিসুজ্জামান সোহেল

  • Font increase
  • Font Decrease

দশ বছর আগের চুক্তি অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ে নির্ধারিত স্থানে আমি পৌঁছাই ঠিকই, তবে তা কোনোভাবেই এ ব্যাপারে নিশ্চিত হয়ে নয় যে, সত্যিই জুঁইও সেখানে, এমনকি আমার আগে থেকেই উপস্থিত থাকবে। আর, আবারও সত্যিই ওকে আমি দেখতে পাব। বরং এরকম যে হতে পারে, অন্তত পাঁচ বছর ধরে সেই সম্ভাবনাটাকে নাকচ করতে করতেই আমি বড় হচ্ছিলাম। ফলে বিমানবন্দর রেলস্টেশনের ওভারব্রিজের নির্ধারিত কোনায় ওকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে মুহূর্তের জন্য থমকে দাঁড়াল আমার বড় হতে থাকা।

জুঁইয়ের সঙ্গে আমার পরিচয় ২০০৫ সালে। হঠাৎই একদম হুট করে। তখন কত বয়স আমার, সবেমাত্র কলেজে যাই, সতের, বা তারও কম? অবশ্য জুঁই বয়সে আমার বড় ছিল, তিন বছরের। ফোনে পরিচয়। লং ডিস্টেন্স রিলেশনশিপ। হুট করে একগাদা মোবাইলফোন কোম্পানি এসে পাড়া-মহল্লার ছাদেই, কলেজ যাবার রাস্তার মোড়েই ঘটতে পারত প্রেমগুলোকে বেশ একটা জাতীয় মানের রাত জেগে কথা বলা প্রেমে রূপান্তর করে দিল তো? বলতে গেলে পরিবর্তিত বা নবগঠিত ওই সংস্কৃতির প্রথম জেনারেশনের প্রেমিক-প্রেমিকা ছিলাম আমরা। ডিজুস টু ডিজুস দুই টাকায় সারারাত কথা বলার একটা অফার ছাড়ে গ্রামীণফোন। মূলত ওই সময়ই একটা ফালতু নাম্বার পাজলিং থেকে জুঁইয়ের সঙ্গে আমার প্রেম হয়ে যায়।

আমরা তখন সারারাত জেগে ফোনে কথা বলতাম। এমনও হয়েছে, ভোর হয়ে গেছে জন্য এখন আর সারাক্ষণ ফোনে ‘লাইনে’ থাকতে পারব না ভেবে শেষরাত থেকেই আমাদের কান্নাকাটি শুরু হয়ে গেছে। এতই রাতজাগা প্রেমিক-প্রেমিকা ছিলাম আমরা। সত্যি বলতে, আমাদের তুলনা ছিল না। আমার, এবং জুঁইয়েরও, পরিচিত এমন একজন কেউ ছিল না, যে অন্তত আমাদের সিকি পরিমাণ প্রেমও ওইসময় করতে পারত। আমরা জানতাম যে, আমরাই সেরা।

তবে আমরা কেউ কাউকে দেখিনি কখনো। শুধু কথা বলে প্রেম করি। একদিন তাই ভয় হলো, মনে হলো, আমাকে দেখে যদি ওর পছন্দ না হয়। কিংবা আমারই যদি পছন্দ না হয় ওকে! কিন্তু মুহূর্তের মধ্যে জিভ কামড়ে আমি অনুতপ্ত হই। ছিঃ এ আমি কী ভাবছি। জুঁই দেখতে যেমনই হোক না কেন, ও তো জুঁই। আমি ওকে কখনোই ছেড়ে যেতে পারি না, কারণ সেটা সম্ভব নয়। কিন্তু আমাদের একবার দেখা তো হোক? দুজনেই রাজি। আমি আমার আশঙ্কার বিষয়ে ওকে বললাম, ‘আমি তো দেখতে অতো ভালো না, তোমার যদি পছন্দ না হয়!’ তুড়ি মেরে আশঙ্কাটাকে উড়িয়ে দেয় জুঁই। উল্টো ওকে এরকম অগভীর আর চেহারা দেখে প্রেমে পড়া টাইপ থার্ডক্লাস ভাবার কারণে রাগ করে ওই রাতে আর কথাই বলল না আমার সাথে।

এমনিতে কথা না হওয়া রাত, ওই সময় আমার জন্য ভয়াবহ যন্ত্রণার বিষয় ছিল। কিন্তু ওকে ‘চেহারা দেখে প্রেমে পড়া’দের কাতারে ফেলবার শাস্তি হিসেবে পাওয়া ওই কথা না বলা রাতটা আমার জন্য বলতে গেলে স্বর্গসম ছিল। বরং আমি চাইছিলাম, এ রাগ আরো দীর্ঘ, আরো গাঢ় হোক। কেননা তাতেই আমার নিরাপত্তার বোধটা আরো বলিষ্ঠ হয়।

পরদিন গর্ব করে ক্লাসের বন্ধুদের, জুঁইয়ের এমন উদার মন-মানসিকতার গল্প শোনাতে গিয়ে এক ব্যাখ্যাতীত বিবমিষায় আক্রান্ত হই। গল্প শুনে মোস্তফা বলে, “দেখ গিয়ে পাতিলের কালির মতো কালো আর কঙ্কালসাড় হাড়গোরসর্বস্ব এক পেত্নী হবে সে। তার তো একটা পেনিস হলেই হয়। ফলে নিজের উদারতার বাড়াবাড়ি প্রদর্শন করে সে আসলে তাকে দেখার পর তোর উদারতাটাকে কনফার্ম করতে চাইছে।” উপস্থিত বাকিরা হোঃ হোঃ করে হেসে উঠল। এত বিশ্রী লাগল দৃশ্যটা যে আমি উঠে এলাম। বেরিয়ে বারান্দা দিয়ে হেঁটে আসছি যখন, জানালা দিয়ে শুনতে পেলাম জিকু বলছে, “এ জীবনে আমি জুঁই নামের কাউকে সুন্দরী হতে দেখিনি। সবগুলোকেই দেখেছি দুঃস্বপ্নের মতো ভয়ঙ্কর হতে।” আর এতেও অন্যরা সশব্দে হেসে উঠল। আমি দৌড়ে পালালাম। জুঁইকে এমন বাজারী আলোচনার বিষয় করে দেওয়ায় খুব রাগ হলো নিজের ওপর। দোষটা তো আমারই।

কিন্তু যা হলো, সে রাতেই ভয়ঙ্করদর্শন এক জুঁইকে স্বপ্ন দেখলাম। ড্রাকুলা মার্কা দাঁত, নোংরা চুল আর আশি বছরের কোনো ডাইনি বুড়ির এক বিকট প্রতিকৃতি। এটাই ছিল স্বপ্নের জুঁই, আমি থরোথরো ভয়ে যার খসখসে হাত ধরে পার্কে হেঁটে বেড়াচ্ছি। লাফ দিয়ে ঘুম ভাঙে আমার। মনে পড়ে, মাইগ্রেনের ব্যথার জন্য জুঁই রাত দুটোর দিকেই শুয়ে পড়েছিল। এক মুহূর্তের জন্য আমার মনে হলো, ভোরের স্বপ্ন কি সত্যি হয়? মুহূর্তেই আবার মনে হলো, এ কথা ভাবছি কেন! তার মানে সত্যি হলে, অর্থাৎ জুঁই দেখতে সত্যিই ওরকম হলে আমার তবে আপত্তি? এই তবে ভেতরকার আমি! নিজের ভেতর ঘাপটি মেরে থাকা সবচেয়ে গোড়ার দিকের আমার স্বরূপ তবে এই! প্রতিটা রক্ত কণিকায় আত্মধিক্কারের তীব্র আলোড়ন আমাকে পাগল করে ছাড়ল। নিজেকে শাস্তি দিতে ছুরি দিয়ে আমি হাত কাটতে লাগলাম। কিন্তু কিছুই টের পেলাম না। কেননা, কী করে আমার এত সাহস হয় যে, এমনকি ভয়ঙ্কর দেখতে হলেও জুঁইকে আমি ফিরিয়ে দেবার কথা ভাবি!

ঢাকায় গেলাম। আমাদের দেখা হলো। একটা ভোরের ট্রেন আমাকে বিমানবন্দর স্টেশনে নামিয়ে দিল। আর তরতর সিঁড়ি ভেঙে আমি উঠে গেলাম ওভারব্রিজে। কেননা ওখানে নির্ধারিত একটা কোনে দাঁড়িয়ে জুঁই দাঁত মাজছে। এটাই ওকে চিনবার কোড। সারারাত আমরা ‘লাইনে’ই ছিলাম। আমি ট্রেন থেকে আর জুঁই ওর বাসা থেকে। ভোর পাঁচটায় ফোন রেখে ও চেঞ্জ করল। আর আবার কথা বলতে বলতে বেরিয়ে পড়ল বাসা থেকে। ও যখন সিএনজিতে উঠল, আমার ট্রেন তখন ঘোড়াশাল ব্রিজ পার হচ্ছে। কিন্তু ওভারব্রিজের ওপর দাঁড়িয়ে এ কাকে আমি দাঁত মাজতে দেখছি! পরী বললেও ভুল হবে। পরীর চেয়েও পরী দেখতে ও। হা হয়ে গেলাম। ঠোঁটের কোণে মোস্তফা জিকুদের জন্য একটা তাচ্ছিল্যের হাসি না চাইতেও ফুটে উঠল। আর নিজের জন্য হলো করুণা। এই তো, ট্রেন থেকে নামার ঠিক আগেও বাথরুমে ঢুকে নিজের চেহারার মুখোমুখি হলাম। একে কি চেহারা বলা যায় কিনা কে বলবে! আর এই বেহেশতী হুর, বলা চলে, বিভ্রান্ত হয়ে আমার মতো এক চামারের জন্য এখানে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছে। একবার ভাবলাম, আমাকে চিনতে পারার তো কোনো কোড নেই, পালিয়ে যাব নাকি! কিন্তু হতবিহ্বল দাঁড়িয়ে পড়া আমার কাছে এসে জুঁই-ই প্রথম কথাটা বলল, “দাঁত মাজবে?”

একবারের জন্য মনে হলো, যাক! আমি দেখতে অন্তত আমারই মতো তাহলে। নয়তো জুঁই আমাকে চিনতে পারল কিভাবে? ওভারব্রিজে আরো তো মানুষজন ছিল। আমার বয়সীই আরো দুয়েকজন ছিল, নিজের চোখে দেখা। নিশ্চয়ই এমন হয়নি যে, সেকেন্ড কিংবা থার্ড অফারে ও সত্যিকারের আমাকে খুঁজে পেয়েছে! সেরকম হলে আমার দেখা আমার বয়সীগুলোর কারো মুখে ঠিকই টুথপেস্টের ফেনা লেগে থাকত। যেমন আমি ওর মাজতে থাকা ফেনাসুদ্ধই ব্রাশটা নিজের মুখে পুরে নিলাম। ও বলল, “ওয়াক থু!” পরবর্তী এক বছর নিয়মিত আমি কোলগেট টুথপেস্টটাই ব্যবহার করতাম, ওর মুখের ফেনার স্মৃতি জাগিয়ে রাখার জন্য।

ও বলল, “জেগে থাকতে সমস্যা হবে না? সারারাত তো একটুও ঘুমাওনি।” কী জানি, ভাবিনি এ বিষয়ে। সাধারণ অর্থে তো সমস্যা একটু হবারই কথা। কিন্তু সঙ্গে জুঁই থাকা সত্ত্বেও এটা নিশ্চয়ই ভালো দেখাবে না যে, পাশেই নাক ডেকে আমি ঘুমাচ্ছি! জুঁই বলল, “চলো কোথাও গিয়ে দু-মুহূর্ত একটু ঘুমাই।” স্বপ্নের মতো লাগল কথাটা। বিশেষত ‘দু-মুহূর্ত’ ঘুমানোর ব্যাপারটা। অবশ্য ওর মধ্যে আগে থেকেই ব্যাপারটা ছিল, খানিকটা কবি কবি ভাব! এই তো সেদিন আকাশে একটু মেঘ করল বলে মেসেজ পাঠিয়েছিল ‘আজকে আমার মেঘলা দিন, আজকে আমার একলা দিন।’ বুঝলাম ওই ঔদাসীন্যই এখানে দু-মুহূর্তের ঘুম হিসেবে হাজির হয়েছে। বললাম, “আমার তো চেনা কেউ নেই ঢাকায়। কোথায় ঘুমাব? আর তুমিই বা কোথাও আমাকে নিয়ে ঘুমাতে যাবে কী করে!” দু-মুহূর্ত ভেবে ও বলল, “চলো আমরা একটা ইয়োলো ক্যাব ভাড়া করে ফেলি, তারপর ক্যাবের ভেতর ঘুমাই।” আইডিয়া খারাপ না। নয়টা দশটার দিকে জেগে উঠে ফ্রেশ একটা দিন শুরু করা যাবে। ভাবলাম আমি।

অচেনা ঢাকা শহরের ব্যস্ততম এলাকাগুলোয়, কখনো জ্যামে আটকে, কখনো ফাঁকা রাস্তার দ্রুতটানে, টানা সাতদিন এক নাগাড়ে হালচষে ক্লান্ত মহিষের মতো গায়ের জোরে আমি ঘুমালাম। ঠিকই সেই ওর পাশে বসে! কিন্তু ফাঁকে ফাঁকে সেই ঘুমও ভাঙল। চোখ খুলে, কিছুই বুঝে উঠতে না পারা দৃষ্টিতে ক্যাবের জানালা দিয়ে আড়াআড়িভাবে কত যে সাইনবোর্ড চোখে পড়ল। একবার দেখলাম আজাদ প্রোডাক্টসের সাইনবোর্ড। এরা কী কারণে যেন বিখ্যাত? ভাবতে ভাবতে আবার ঘুমিয়ে পড়লাম। দেখলাম তোতা পাখি কাঁধে নিয়ে একটা লোক হেঁটে যাচ্ছে। ক্যাবল লাইনের জঞ্জালে কাকেদের পুরনো হাগু। জুঁইও ঘুমাচ্ছে আমার পাশে। আমাদের দূরে কোথাও পৌঁছে দিতে বলা হয়েছে। পৌঁছে ড্রাইভার আমাদের ডেকে দেবে। দূরে কোথাও পৌঁছাতে সত্যিই অনেক দেরি হয় আমাদের।

শহরের প্রায় আরেকটা কোনো প্রান্তে, নাকি শহর ছাড়িয়ে, কোথায়, তা আমার মনে নেই। এরমধ্যে আমরা প্রায় তিন ঘণ্টার কাছাকাছি সময় ধরে ঘুমিয়েছি। ভাবলে এখনো অবাক লাগে, এর আগে যে আমার কোনো যোগ্যতাই ছিল না, কোনো একটা এমনকি মাঝারি মানের সুন্দরী মেয়ের সঙ্গে বসেও কথা বলবার, সেখানে পরীরও পরীর মতো একটা মেয়ের পাশে আধশোয়া হয়ে, বিশ্রীভাবে হা করে আমি ঘুমাতে পারলাম কী করে। কিন্তু আজ বুঝি, ক্লান্তিই সেই মহান মনোযোগের যথার্থ দাবিদার, যার দাবি না মেটালে আদতে আর কোনো দাবিই মেটানো সম্ভব হয় না। ‘আজকে বুঝি’র ভারিক্কি চালটার ব্যাপারে একটু ব্যাখা দেওয়া প্রয়োজন, জানানো প্রয়োজন, সেদিনের সেই বেকার ও নির্ভার লোকটা, আমার মধ্যে কোথাও আজ আর বেঁচে নেই। পারিবারিক দারিদ্র্য আর বাস্তবতার অনিবার্য ঘাঁয়ে লোকটার গলিত অবয়বটিও এখন বাষ্পাতীত। গত চার বছর ধরে একটা পত্রিকা অফিসে কম্পোজিটরের চাকরি করি আমি। টোলারবাগে সরকারি কোয়ার্টারগুলোর একটায় ছোট একটা রুম ভাড়া করে থাকি। সে যাই হোক, নিজের দরিদ্রতার বর্ণনা দেওয়া আমার উদ্দেশ্য নয়। মোটকথা আগের মতো নিশ্চিন্ত নির্ভার জীবনটা আর নেই।

আমরা যেখানে গেলাম, দেখতে অনেকটা গ্রামের মতো। ব্যস্ততম দালানগুলোর ফাঁক ফোকর দিয়েও পেছনের ধানক্ষেত উঁকি দিচ্ছে। আমরা একটা ধানক্ষেতের মধ্যদিয়ে ঢুকে মুহূর্তের মধ্যেই আরো অসংখ্য ধানক্ষেত পার হতে থাকি। সিনেমার দৃশ্যের মতো জুঁই আমাকে টেনে নিয়ে যায়। যেন এক গোপন সংকেত মান্য করে করে একটা আঁল থেকে পরবর্তী দুটো আঁলের একটাকে বাছাই করতে করতে এগোয় ও। যেন একেবারে শেষে, সবচেয়ে অবাক করে দেওয়ার মতো ঘটনাটা ঘটবে। আর হলোও তাই, একমাঠ সমান ঝকঝকে মেঝের একটা ধানের কলে গিয়ে আমরা উঠলাম। এখানে ওখানে টুকরো টুকরো মেঘের মতো শুকোতে দেওয়া ধান।

জুঁই জানাল, সেদ্ধ ধানের গন্ধ ওর খুব পছন্দ। আমার মনে হলো, এ পছন্দের কথা তো ফোনে কখনো বলেনি আগে! কিন্তু আবার ভাবলাম, হয়তো সব পছন্দের কথা ফোনে বলতে হয় না। জুঁই যেমন কবি স্বভাবের, এমন আলাদা কোনো সিদ্ধান্তও যদি সত্যিই ওর থেকে থাকে, মোটেই অবাক হব না।

সারাটাদিন আমরা সেদ্ধ ধানের গন্ধ শুঁকে শুঁকে কাটিয়ে দিলাম। আর যা মনে পড়ে, ধানের কলের পাশেই একটা পুকুর ছিল, আর কবুতরের বিষ্ঠায় ভরে থাকা একটা ঘাট। কবুতরগুলোকে ধানের কলের সবটা জুড়েই সহাস্যে চলাফেরা করতে দেখা যাচ্ছিল। দুপুরে ধানের কলের ম্যানেজার তার অফিসরুমে ডেকে নিয়ে আমাদের ডিমের সালুন দিয়ে ভাত খাওয়াল। তারপর বিস্তীর্ণ মেঝের ছায়া ঢাকা একটা অংশে গিয়ে বসবার পর জুঁই বলল, দুপুরের পর নাকি কবুতর এমনভাবে ডাকে, যাতে করে মানুষের ঘুম পায়। ও বলার কারণেই কিনা কে জানে, কবুতরগুলোর নিরবচ্ছিন্ন বাক্ক্-বাকুম্ম শব্দে সত্যিই একটা ধান ভাঙানোর হাত-মেশিনের কাছে গিয়ে আমি ঘুমিয়ে পড়লাম। একদমই ঘুমিয়ে পড়বার মুহূর্তে মেশিনটাকে আমি সাব্যস্ত করলাম ‘ঘুরন্ত কোলবালিশ’ বলে।

যখন উঠলাম, পরিপূর্ণ বিকেল। টের পেলাম এবং স্বচক্ষেও দেখলাম যে, আমার মাথার নিচে জুঁইয়ের কোল। ঈষদুষ্ণ, খুব পুরনো নয় একটা রঙের গন্ধভরা ওর কোলটাকে আমার এক টুকরো মাতৃগর্ভের মতো লাগল।

কিন্তু এবার ফিরতে হবে। সন্ধ্যার পর আমার ট্রেন। দুটো বাসে চড়ে আমাদের ফিরতে হলো। প্রথম ফাঁকা বাসটার একদম পেছনের কোনায় বসে জীবনে প্রথম কাউকে ঠোঁটচুমু খেলাম। সমস্ত শরীর, পরিস্থিতির তুলনায় অপর্যাপ্ত পুষ্টির কারণে ঠাঁ ঠাঁ করে কাঁপল। জীবনে প্রথম যখন কারো জিভ চাটছি, নুন ছিটানো কাঁচা ঝিনুকের স্বাদে আলোড়িত হচ্ছে মগজ। ফলে চুমুর স্মৃতি ফিরিয়ে আনতেও পরবর্তীতে নুন ছিটানো কাঁচা ঝিনুক খেতে হয়, তবে, ব্যাপারটা চূড়ান্ত রকমের হতাশাজনক, অর্থাৎ চুমুর স্মৃতির তাতে কানাকড়িও ফিরে আসে না। মনে পড়ছে ‘ছবির দেশে কবিতার দেশে’ বইয়ে মার্গারেটকেসহ বা ছাড়া সুনীলের কাঁচা ঝিনুক খাওয়ার বর্ণনা। আমরা আরো পাগল হয়ে উঠি এবং একপর্যায়ে অন্য যাত্রীদের আপত্তি সাপেক্ষে অসামাজিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকার অভিযোগে মাঝপথে আমাদের বাস থেকে নামিয়ে দেওয়া হয়। দ্বিতীয় বাসের প্রয়োজন পড়ে মূলত এ কারণে। নেমে দেখি সূর্য ডুবছে। তারপর হাইওয়ের অল্প দূরে একটা গির্জা পেয়ে ওটায় ঢুকে পড়ি। আর দুজনে মিলে অসহ্য সব চুমু খাই।

যখন ট্রেন ছাড়ল, আমার জানালা ঘেঁষে প্লাটফর্ম ধরে হাঁটতে হাঁটতে কথাটা ও বলল। “যদি আর খোঁজ না থাকে, ঠিক দশ বছর পর এই তারিখে এই স্টেশনের ওভারব্রিজে থেকো, বিকেল পাঁচটায়।” সত্যি বলতে, তখন পর্যন্ত বাক্যটাকে যে আবার আমাকে সাজিয়ে মনে করতে হবে কখনো, বুঝতেই পারিনি। উল্টো বোকার মতো হাসি হাসি মুখে হাত নাড়তে থাকি। বলতে গেলে, তার কিছুক্ষণ পর থেকেই দশ বছরের জন্য ও হারিয়ে গেল। ট্রেন যখন টঙ্গী স্টেশন পার হচ্ছে তখনই ফেরার কিছু পেল কিনা জানতে ওকে কল দেই, আর নাম্বার বন্ধ পাই।

অবশ্য তাতেই যে আমি বুঝে ফেলি, অন্তত দশ বছরের জন্য ও হারিয়ে গেছে, তা নয়। প্রথমত ভাবি, হয়তো ফোনের চার্জ শেষ। আর সেটা স্বাভাবিকও ছিল, কারণ সারারাত কথা বলার পর দিনে আর ফোন চার্জে দেওয়ার সুযোগ হয়নি। এ ধারণা আরো মজবুত হয়, যখন ঘণ্টাখানেকের মধ্যে আমার নিজের ফোনটাও বন্ধ হয়ে গেল।

এরপর ট্রেনের মধ্যে, জানালায় মাথা এলিয়ে সারাটা পথ আমি একটা খামচে থাকা ঘুমের সঙ্গে লেপ্টে রইলাম। পরবর্তী দুয়েকদিনেও যখন ফোনটা আর অন হলো না, তখন, জানালার পাশে প্লাটফর্মে হাঁটতে হাঁটতে ওর বলা, প্রায় ভুলে যাওয়া কথাটা মনে পড়ল। যেন অনেক ঘুমের নিচে চাপা পড়ে ছিল কথাটা। কিন্তু তাই বলে এরকম ছেলেমানুষি একটা কথাকে ও সত্যিই বাস্তবায়িত করতে চাইবে, এটাই বা মেনে নিই কী করে! তার মানে ব্যাপারটা কী দাঁড়াল? আমি আর কিছুই ভাবতে পারলাম না।

মোস্তফা বলল, ওর আসলে আমাকে পছন্দই হয়নি, সরাসরি কথাটা বলতে না পেরে এখন ফোন অফ রেখে বুঝিয়ে দিচ্ছে। কিন্তু তাহলে বাসের মধ্যে, হাইওয়ের পাশের গির্জায় আমাদের যে মুহূর্তগুলি, ওগুলোর কী ব্যাখ্যা? জিকু বলল, ঢাকায় ওরকম পার্টি নাকি অনেক আছে। মূলত বেশ্যা, মাঝেমাঝে একটু রিলেশনশিপের ওম লাগে, এরকম আরো অনেকের কথাই নাকি সে জানে। ঘুষি মেরে আমি জিকুর নাক ফাটিয়ে দিলাম। বুঝতে পারিনি, এতটা রক্তারক্তি হবে। সবাই ওকে ধারেকাছের কোনো একটা ফার্মেসিতে নিয়ে গেল। আমি আগ বাড়িয়ে ওর বাসায় চলে গেলাম, বাসায় গিয়ে ওর মাকে বলে আসলাম, “এটা কী করে সম্ভব যে, আপনার ছেলে ঢাকার অনেক বেশ্যাদের সম্পর্কে হুবহু অনেক কিছুই জানে!” বলেই বেরিয়ে এসে রিকশা ভাড়া করে শহরের বাইরের একটা মাঠে নিয়ে নিজেকে শুইয়ে দিলাম।

আসলে ওই সময়টায়, পরবর্তী একটা বছর পর্যন্ত, কখন কোথায় আমি জেগে ছিলাম বা ঘুমাচ্ছিলাম, তার কোনো হিসেব আমার কাছে ছিল না। আমাদের প্রেম ছিল মাস কয়েকের, তাই সবাই ভেবেছিল, পরবর্তী মাস কয়েকেই ব্যাপারটা চুকে যাবে। কিন্তু আমি সবার সংঘবদ্ধ ধারণাকে বৃদ্ধাঙ্গুল প্রদর্শন করে এক জুঁইয়ের ব্যাপারেই নিজেকে আরো আরো পাগল করে তুললাম। আর উঠতে বসতে, কিছুতেই নিজেকে ক্ষমা করতে পারলাম না এজন্য যে, একজন অন্তত কোনো বন্ধুবান্ধব অথবা পরিচিত কারো ফোন নাম্বারও কখনো আমি চাইনি জুঁইয়ের কাছে! আমি শুধু জানতাম ও ঢাকায় মাটিকাটা নামের একটা জায়গায় থাকে। মা-বাবা আর একটা বোনসহ ও থাকে, ও বলেছিল।

কোন একটা প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে যেন পড়ত। আশ্চর্য যে, ইউনিভার্সিটির নামটাও কখনো জিজ্ঞেস করা হয়নি। জুঁইয়ের সম্পর্কে আমার বাহ্যিক জানাশোনা যে এত কম, আমি নিশ্চিত, ও হারিয়ে যাওয়ার আগেই কখনো যদি এটা আমি টের পেতাম, তখনও এ নিয়ে আমাকে লজ্জিত হতে হতো।

ছয় মাস পর আবারও একটা রাতের ট্রেনে চেপে আমি ঢাকায় চলে যাই। আগেরই মতো খুব ভোরে বিমানবন্দর রেলস্টেশনে নেমে, দৌড়ে গিয়ে ওভারব্রিজে উঠে আগেরবারের মতো ওকে আর কোথাও না পেয়ে চিৎকার চেঁচামেচি করে আমি কাঁদতে থাকি। চারপাশে লোক জমে যায়। জিজ্ঞেস করে, আমার সমস্যা কী। আমি কিছুই না বলে দৌড়ে পালাই, আর স্টেশনের বাইরে গিয়ে একটা ইয়োলো ক্যাব দাঁড় করিয়ে ড্রাইভারকে জিজ্ঞেস করি, এখান থেকে এখন রওনা দিলে তিনঘণ্টা পর ঢাকার অন্য কোন কোন প্রান্তে গিয়ে পৌঁছানো সম্ভব? ড্রাইভার ক্যাবের গতি বাড়িয়ে দেয়। দিনভর মাটিকাটা এলাকায় ঘুরে বেড়াই। বিকেলে খেতে বসে মাটিকাটারই একটা খাবার হোটেলের ক্যাবিনে ঘুমিয়ে পড়ি। কেউ ডিস্টার্ব করে না। যখন জেগে উঠি, রাত হয়ে গেছে। বের হয়ে সিএনজি নিয়ে আবার স্টেশন এবং সেখান থেকে আবার ট্রেন।


বার্তা২৪.কম-এর শিল্প-সাহিত্য বিভাগে লেখা পাঠানোর ঠিকানা
[email protected]


প্রথম এক বছরের মধ্যে কয়েকবার আত্মহত্যার চেষ্টা করে ব্যর্থ হলাম। সবচেয়ে বড় কথা, এক পর্যায়ে বুঝতে পারলাম যে, ব্যাপারটা আমার দ্বারা কিছুতেই সম্ভব নয় ঘটানো। আর তাতেও নিজের ওপর বিরক্তি বাড়ে। আমি তো জানতাম, কখনো জুঁই না থাকলে, আমিও আর বাঁচব না। কিন্তু সত্যিই যখন নেই, মরতে গিয়েও মরতে পারা যাচ্ছে না। এ সময় মোস্তফার একটা একদমই হাসিচ্ছলে বলা কথাকে আমি আকড়ে ধরি। ও বলেছিল, “আরে মরবিই যদি, দশ বছর পর ওইদিন ওভারব্রিজে যাবে কে, আমি? গিয়ে বলব, বহু আগে, অন্তত নয় বছর আগেই তুই মরে ভূত?” তাই তো। দশ বছর পর তো ও থাকবে। একই তারিখ, বিকেল পাঁচটায়। কিন্তু এত দীর্ঘ অপেক্ষার ভার নিয়ে কিভাবে একজন মানুষ তার স্বাভাবিক জীবন যাপন চালিয়ে যেতে পারে, যে জীবনের প্রতিটা ফাঁক ফোকরেই আসলে ওই এক অপেক্ষাই নাক গলিয়ে থাকে!

এত আয়োজন সত্ত্বেও পরবর্তী একবছরে জুঁইকে আমি পুরোপুরি ভুলে যাই। এই ভুলতে পারার পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান রাখে, বাবার মৃত্যু। আর সেই সূত্রে হঠাৎই আমার একটু তাড়াহুড়ো করে বড় হয়ে যাওয়া। এরমধ্যে নতুন আরেকটা প্রেমও হয় আমার। একই শহরের, সংস্কৃতিকর্মী টাইপের একটা মেয়ের সঙ্গে। বাংলা বর্ষবরণ, রবীন্দ্র-নজরুল জন্মজয়ন্তীর মতো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানগুলোয় একক ও দলীয়ভাবে গান গাইত। নাম, শোভা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার মেয়ে। বাবার চাকরির সুবাদে আমাদের শহরে থাকত। সত্যি বলতে, এ প্রেমটাও খুব জমে যায়। আর একপর্যায়ে তো এমনও মনে হয় যে, কোথাকার কোন জুঁইয়ের জন্য কিনা মরতে বসেছিলাম!

শোভা একদিন জানতে চাইল, এখনো আমি জুঁইকে মনে রেখেছি কিনা। চমকে উঠি প্রশ্ন শুনে। আর জানতে চেয়েছিলাম বিষয়টা ও জানল কিভাবে। বলল, এ ব্যাপারে জানে না, এমন লোক নাকি খুব কমই আছে। ব্যাপারটাকে একটা ফালতু প্রসঙ্গ হিসেবে আখ্যায়িত করে আমি শোভার হাত ধরি। ওকেসহ রিকশায় শহর ঘুরে বেড়াই। সন্ধ্যার পর চুমুও খাই। এভাবে বছর খানেকের মধ্যে আমরাই আমাদের সবচেয়ে মেইনস্ট্রিম প্রেমিক-প্রেমিকা হয়ে উঠি। ফলে দীর্ঘস্থায়ীভাবে চাপা পড়ে যায় একদিনের জুঁই।

বছর খানেকের শোভাও অবশ্য অনিবার্যভাবেই একদিন নিজের বিয়ের কথা জানিয়ে যায়। আর খুব অনুরোধ করে, এ ব্যাপারে আমি যেন কোনো পাগলামি না করি। আসলে সব মিলে আমি খানিকটা ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম, তাই শোভার এমন প্রতারণার জবাবে আমি প্রায় কিছুই করলাম না। শুধু মাসখানেকের জন্য দূরসম্পর্কের এক খালার বাড়িতে, অন্য আরেকটা শহরে গিয়ে ঘাপটি মেরে পড়ে থাকলাম।

তারপর বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রকমভাবে ছিলাম। লেখাপড়ার পাঠ চুকিয়ে গত চার বছর ধরে ঢাকায়। এরমধ্যে জুঁইয়ের কথা খুব একটা আর মনে পড়েনি। আবার একেবারেই যে পড়েনি, তাও নয়। কিন্তু আমি ধরে নিয়েছিলাম, জুঁইয়ের ব্যাপারে জিকুর করা মন্তব্যটাই হয়তো ঠিক। মনে হয়েছে, হয়তো এমন হয়ে থাকবে, বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে, প্রেম করিয়ে মফস্বল থেকে কাউকে ঢাকায় নিয়ে আনতে পারা না-পারা বিষয়ে ধরা কোনো বাজির অংশ ছিলাম আমি। অবশ্য সেসব নিয়েও আলাদা কোনো দুঃখের অনুভূতি এতদিনের ব্যবধানে আমার মধ্যে আর অবশিষ্ট ছিল না।

তবে একদমই অভ্যেসবশত এ দশ বছরের পুরোটা সময় জুড়েই ওর নাম্বারে আমি মাঝেমাঝেই ডায়াল করে গেছি। কিন্তু তা কোনোভাবেই ওকে ফিরে পেতে চেয়ে নয়, বা এমনকি আবার কোনো যোগাযোগ প্রতিষ্ঠা হোক, সেই আকাঙ্ক্ষা থেকেও নয়। আগাগোড়াই অভ্যেসবশত। এমনও হয়েছে, দিনের পর দিন আমি ওই নাম্বারে ডায়াল করেছি, অন্তত এই ব্যাপারেও সতর্ক না থেকে যে, মূলত এ নাম্বারটা কার। আর সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো, এরমধ্যে আমি ভুলেই গিয়েছিলাম দশ বছর পর, কোন মাসের ঠিক কত তারিখে আবার আমাদের দেখা হবার কথা! মোটকথা এটা একটা পরিত্যাক্ত প্রসঙ্গ হিসেবে জীবনের কোনো এক কোনে পড়ে ছিল।

তবু চুক্তি অনুযায়ী দশ বছর পরের নির্ধারিত দিনে আমি যে ওভারব্রিজে এসে হাজির হতে পারি, এটা সম্ভব হয় শুধু এ কারণে যে, ঠিক একদিন আগেই লন্ডন থেকে ফোন করে মোস্তফা আমাকে, কালকে ওভারব্রিজে যাচ্ছি কিনা জিজ্ঞেস করে। ওকে অবশ্য বিশ্বাস করানো যায়নি, নিজে আমি তারিখটার কথা ভুলে গিয়েছিলাম। কিন্তু বেশ অবাকই হতে হলো, এতদিন ধরে তারিখটা ওর মনে রেখে দেওয়ার ঘটনায়। এমনকি তারপরও বিকেল পাঁচটায় বিমানবন্দর স্টেশনের ওভারব্রিজে আমি যাব কিনা, সে ব্যাপারে নিশ্চিত ছিলাম না। কিন্তু বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যাখ্যাতীত একধরনের কৌতূহল আমাকে গ্রাস করে ফেলল। বিকেল তিনটার দিকে জরুরি ছুটি নিয়ে অফিস থেকে বেরিয়ে পড়ি। আর জ্যামেধরা শহরের এক মাথা থেকে রওনা দিয়ে আরেক মাথার বিমানবন্দর স্টেশনে পৌঁছাতে সোয়া পাঁচটা বেজে যায়। ওভারব্রিজে উঠে, দশ বছর আগেকার সেদিনের মতোই জুঁইকে আমি দেখতে পাই আবার। ওই যে বললাম, হঠাৎই থমকে দাঁড়ায় আমার বড় হতে থাকা? আসলেই ব্যাপারটা তাই। জুঁই এগিয়ে এসে বলল, “এখন বোধহয় এ শহরেই থাকো?” আমি কী বলব ভেবে পেলাম না। ওকে ঘিরে সেই আবেগ, সেই উত্তেজনা তো আর নেই, উল্টো দশ বছর পর ওর এমন উপস্থিতি খানিকটা ভূতুড়েই ঠেকল।

যতটা সম্ভব স্বাভাবিকভাবে আমি বললাম, “তুমি তো একটুও বদলাওনি! ঊনিশ বছরের তুমিই রয়ে গেছো।” ও হাসল, বলল, “আমি তো একই রকম থেকে যাই!” আমিও হাসলাম, কবি স্বভাবটা আর গেল না ওর। ওকে বলি, “আমি জানি, তুমি কারো সঙ্গে বাজি ধরেছিলে।”

“যেমন?” জানতে চায় ও। সব ওকে খুলে বলি, ওর জন্য আমার প্রথম এক বছরের পাগলপ্রায় দশার কথা, ছয় মাস পর ঢাকায় এসে ওকে খুঁজে বেড়ানোর কথা, ওকে নিয়ে জিকুর মন্তব্য, আর এক পর্যায়ে ওই মন্তব্যেই নিজের বিশ্বাস স্থাপনের কথা। সব শুনে বিস্ময়করভাবে ও কাঁদতে শুরু করল। বুঝলাম আমার করুণ দশা শুনেই এ কান্না। সুতরাং ঔদার্যে আমি হৈ হৈ করে উঠি, “আরে! কাঁদছো কেন? ওসব ফিলিংস এখন তো আর নেই। কত আগের কথা সেসব!” আর এও জানাই যে, মোস্তফা ফোন না করলে আমার যে আজকে আসাই হতো না।

“বরং এবার বলো, কী ধরনের বাজি ছিল সেটা, এখন কোথায় আছো, বিয়ে করেছো?” জানতে চাই আমি। হতভম্ব মুখে ও আমার দিকে তাকিয়ে থাকে। একবার নিজেকেই শুনিয়ে বলে, “তার মানে”... তার মানে? কী তার মানে? “তারমানে তুমি আমাকে আর ভালোবাসো না? চাও না এখন আর?” সত্যি না রসিকতা বোঝার চেষ্টা করি। বুঝতে না পেরে বলি, “মানে এটা কী ধরনের রসিকতা হচ্ছে, তুমি নিশ্চয়ই বলবে না যে, সত্যিই তুমি আমার সঙ্গে সম্পর্কের পরবর্তী অধ্যায় কাটাতে এখানে এসে হাজির হয়েছো? দশ বছর পর!” জুঁই কাঁদল, সে কান্না থামাতেও পারল। বলল, “আমি তো সত্যিই তোমার কাছেই এসেছি। তুমি আমাকে নিয়ে যাবে না?” দিশেহারা হয়ে আমি ওর দুই বাহু ধরে ঝাঁকি দিয়ে জিজ্ঞেস করলাম, “কোথায় ছিলে এতদিন!”

“নিয়ে যাবে না তোমার সঙ্গে?” বারবার একই কথা জানতে চায় ও। আমার মধ্যে কী হলো, বলে বোঝানো যাবে না। হঠাৎ করে না চাইতেই, আরো ভালোভাবে বললে, চাওয়া যে যেতে পারে, সেই ধারণারও অনেক দূরে থেকেই সব পেয়ে যাওয়ার যে আনন্দ আর উত্তেজনা, আমার মধ্যে তার সবটা এসে ভর করল। একেবারে পাগল হয়ে গেলাম আমি। প্রকাশ্যে, ব্যস্ত স্টেশনে চড় থাপ্পড় দিতে দিতে ওকে আমি চুমু খেতে লাগলাম।

সে রাতেই বিয়ে করতে আমরা কাজী অফিসে যাই। কিন্তু রেজিস্ট্রি খাতায় পিতা-মাতার নাম, স্থায়ী ঠিকানা ইত্যাদি লিখবার প্রসঙ্গ যখন আসলো, জুঁই বলল ও এসব তথ্য দিতে চায় না। কেন, জানতে চাই না। কাজীকে বলে দুটো ফেইক নাম আর একটা ফেইক স্থায়ী ঠিকানা সেখানে বসানোর ব্যবস্থা হয়। আর জাতীয় পরিচয়পত্র কিংবা পাসপোর্ট কোনোটাই ওর না থাকায় সে ব্যাপারটা ম্যানেজ করতে ভালো অংকের ঘুষ দিতে হয় কাজীকে। ঢাকায় বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মেসে থাকাকালে বন্ধুত্ব হওয়া রুমমেটদের ডেকে এনে কাউকে উকিলবাপ, কাউকে সাক্ষী ইত্যাদি বানিয়ে আমাদের বিয়ে হয়। হুট করে ভয়াবহ রকমের সুখী হয়ে, সুখানুভূতির ব্যাপারটাই আমার অবশ হয়ে গেল। সবকিছু যে এতটা স্বপ্নের মতো আসলেই হয়ে উঠতে পারে কারো জীবনে, বহু বইপত্র পড়েও আগে এ ব্যাপারে জানতে পারিনি। অবিশ্বাস্য মনে হচ্ছিল সবকিছু।

কিন্তু জগত্ সংসারের কিছু কমন প্রশ্ন এসে আমার মাথায়ও গুঁতো দিল, যেমন, জুঁই এ দশ বছর কোথায় ছিল, কিভাবে, কাদের সঙ্গে ছিল, এরকম নানা প্রশ্ন। কিন্তু আবার নিজেই সিদ্ধান্ত নিলাম, যতদিন না নিজে থেকে ও কিছু বলবে, আমিও এ ব্যাপারে কিছুই ওকে জিজ্ঞেস করব না।

করলামও না। এমনকি, ওভারব্রিজে এসে দাঁড়ানোর আগেই ও কোন এলাকা থেকে বেরিয়ে এসেছে, ওর ওই মা-বাবা আর বোন তারা কোথায় থাকে এখন, বিয়ের খবরটা তাদের দেওয়া উচিত কিনা, কিংবা কেনই বা রেজিস্ট্রি খাতায় বাবা মায়ের ফেইক নাম দিতে হলো, এসব কোনো ব্যাপারেই কিছুই ওকে জিজ্ঞেস করলাম না। যেন ও যদি একটা ধূমকেতুও হয়ে থাকে, আর ওর কাজ যদি হয় দশ বছর পর পর পৃথিবীতে এসে দুয়েক মাস আমার সঙ্গে সময় কাটিয়ে যাওয়া, তাতেও আমার কোনো আপত্তি নেই। আর কী অবাক, কত কিছু নিয়েই আমাদের কথা হলো, কতখানেই আমরা বেড়াতে গেলাম, কিন্তু কোনোভাবেই নিজে থেকে জুঁই ওর নিজের অতীত, বা শেষ দশ বছরের জীবন যাপন সম্পর্কে কিছুই বলল না। নিজের কাছেই একদিন অস্বাভাবিক লাগল বিষয়টা, তার কারণ হয়তো এই যে, ততদিনে বিয়ের প্রায় দুই মাস পেরিয়ে গেছে।

“আবার কবে উধাও হচ্ছো?” আপাত অন্যমনস্ক ভঙ্গিতে, কিন্তু এ প্রশ্নে ওর চেহারার স্বল্পতম পরিবর্তনটুকুও আমাকে বুঝে নিতে হবে, আগে থেকেই ঠিক করে রাখা এমন পরিকল্পনায়, ড্রেসিং টেবিলের আয়নায় প্রতিবিম্বিত ওর দিকে তাকিয়ে প্রশ্নটা করি। ও হাসে, নিঃশব্দে। প্রতিবিম্বিত চেহারার ব্যাপারে অসচেতন বলেই কি? “বললে না?” আবারও জানতে চাই। এবার ও সশব্দে হাসে। যেন খুব ছেলেমানুষি কোনো প্রশ্ন। বলল, “কেন, যে কোনো মুহূর্তেই তো!”

“হুঁম, আমারও তাই ধারণা।” বলি আমি। জুঁই বলল, “আচ্ছা তুমি কি আমার অতীত, এ দশ বছর কোথায় ছিলাম, এসব জানতে চাচ্ছো? ভাবছো খুব অন্ধকার কোনো জগতে আমি ছিলাম কিনা?” এবার আমিই লজ্জিত হই। বলি, “অন্ধকার জগতের কথা ভাবিনি।” কিছু ভাবল ও। আর বলল, “ধরো অন্ধকার জগতেই যদি ছিলাম, ভালোবাসবে না আর, অপেক্ষা করবে না?” আমার আশঙ্কার অ্যাঙ্গেলগুলো ও বুঝে ফেলছে, আর তাই খানিকটা ঝাঁকি দিয়ে নিজেকে ফেরানোর মতো করে আমি বলি, “বাদ দাও এসব। যেখানে ইচ্ছে সেখানে ছিলে, এখন আমার সঙ্গে আছো, এটাই যথেষ্ট।” মজা করতে চেয়েই মূলত, যোগ করি, “আবার হারিয়ে গেলে কোথায় খুঁজব?” ও হেসে বলল, “কেন, বিমানবন্দর স্টেশনের ওভারব্রিজ!” আর এ জবাবে দুজনেরই খুব হাসি তামাশা পায়।

তবু ও আবার চলে যাবে এ আশঙ্কাটাকে আমি তাড়াতে পারি না। করুণ চোখে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ওর দিকে তাকিয়ে থাকি, ও চোখ নামিয়ে নেয় না, আবার কিছু জিজ্ঞেসও করে না। এভাবে দিনের পর দিন চলতে থাকার একপর্যায়ে আমি টের পাই ওর সঙ্গে আমার সম্পর্কটা ঠিক আর স্বাভাবিক নয়। নিজেদের মধ্যে গল্প করারও কোনো বিষয় আমরা খুঁজে পাই না। জুঁই যেহেতু ওর অতীত বা গত দশ বছরের জীবনের ব্যাপারে একেবারেই মুখ খোলে না। ফলে ও যা বলে ওঠে মাঝেমাঝে, তাও এই গত চার মাসের বিবাহিত জীবন আর দশবছর আগে ফোনে বলা আমাদের কথাবার্তা এবং ওই দফার শেষদিনের বেড়াতে যাওয়ার স্মৃতিচারণার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে।

এমনকি ওর থুতনিতে বছর কয়েকের পুরনো একটা কাটা দাগ দেখেও এটা জানার উপায় থাকে না, কিভাবে এমনটা হয়েছিল বা ও যখন শাকিরার ওয়াকা ওয়াকা গানটা গুনগুন করে কখনো, জিজ্ঞেস করা হয় না ওই বছরের বিশ্বকাপের সময় কোথায় ও ছিল। আমি বলি, “গানটা খুব ভালো ছিল, ওই বিশ্বকাপের সময়ই আমি ঢাকায় চলে আসি।” ও উৎসাহিত হয়, বলে, “বিশ্বকাপ চলার সময়, নাকি শেষ হয়ে যাওয়ার পর?” বলি, “চলার সময়। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচের দিন।” জুঁই হাসে, ইনফর্মড হওয়ার ভদ্র ও মাপা হাসি। কিন্তু নিজের বিশ্বকাপের ব্যাপারে নীরব থাকে।

সে রাতে শাকিরাকে স্বপ্ন দেখি। সেদ্ধ ধানের স্যাম্পল নিয়ে শাকিরা আমার অফিসে আসে। আর নিজেকে দশ বছর আগের ওই ধানের কলের বর্তমান ম্যানেজার দাবি করে ওয়াকা ওয়াকা বলতে বলতে একটা দুইটা করে ধান ছিটাতে থাকে। রেগে গিয়ে বলি, ‘ফাইজলামি করো! আমি জানি তুমি কে।’ শাকিরা হাসে। বলে, “সবাই যা জানে তুমিও তাই জানো কেন?” আমি দাবি করি, “সবাই যা জানে আমি তা জানি না, আমি অন্যকিছু জানি।” জিজ্ঞেস করে, “কী জানো তুমি?” বলি, “তুমি শোভা, দুই পয়সার রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী”, এবং আমি ইংরেজিতেও বলি, “ইউ আর নট শাকিরা।” ঘুষি দিয়ে আমি নকল শাকিরার নাক ভেঙে দিই। আর স্বপ্নের মধ্যেই একটা রিকশা ঠিক করে আমি শোভাদের বাসায় গিয়ে শোভার মাকে বলি, “এটা কী করে সম্ভব যে দুই পয়সার দলীয়সংগীত শিল্পী নিজেকে শাকিরা বলে দাবি করে!”

পরদিন জুঁই আমাকে জিজ্ঞেস করে, “শোভা কে গো?” আমি ভালো করে ওর দিকে তাকাই। বলি, “তুমি এ দশ বছর কলকাতায় ছিলে?” চমকে ওঠে ও। কিন্তু আবার হাসে, বলে, “আমার তো পাসপোর্টই নেই।”
“সে তো আমাকে ওরকম জানানো হয়েছে বলে নেই, বাস্তবে থাকতে পারে না?” ঠান্ডা মাথায় বলার ভঙ্গিতে বলি। মুহূর্তেই কালো মেঘের মতো হয়ে যায় ও, নাটকীয়ভাবে পানি বেরোয় ওর চোখ দিয়ে। “তুমি আমাকে বিশ্বাস করো না” কাঁদতে কাঁদতে বলে। আমি বোঝাতে পারি না, এখানে বিশ্বাস বা অবিশ্বাসের কিছু নেই। বিশ্বাস কিংবা এমনকি অবিশ্বাস করতে গেলেও ন্যূনতম ইনফর্মেশন থাকা লাগে, অর্থাৎ ব্যাপারটিকে তো থাকতে হবে, যেটাকে বিশ্বাস করব, অথবা করব না। “তোমার তো কোনো ব্যাপারই নেই!”

তারপর নিয়ম করে প্রায় প্রতিরাতে আমি শোভাকে স্বপ্ন দেখতে শুরু করলাম। হঠাৎ শোভাকে স্বপ্ন দেখতে শুরু করার কোনো ব্যাখ্যা আমি নিজেকে দিতে পারলাম না। শুধু টের পেলাম, জেগে ওঠার পরও ওই রেশ থেকে যায়। জুঁইয়ের সঙ্গে সম্পর্কটা পুরোপুরি ফর্মাল হয়ে ওঠে। প্রয়োজনের অতিরিক্ত কোনো কথাই আর হয় না আমাদের। বরং, জুঁইয়ের চলে যাওয়ার আশঙ্কাটাকেই কেমন যেন সম্ভাবনার মতো লাগতে শুরু করে। মনে হয়, ও এখনো যাচ্ছে না কেন? দশ বছরের জন্য ওর কি কোথাও যাওয়ার নেই আর! যেন এবার আমি শোভার ব্যাপারে একান্তে কিছু ভাববার অবসর চাই। শোভার চলে যাওয়ায় না-জাগা বিরহটাকে জাগিয়ে দেখতে চাই ওটা কেমন। যেন আমি নিশ্চিত হতে চাই, যে কখনো ফিরে আসবে বলেনি, তার চলে যাওয়া বা তার না থাকাই বেশি দামি ছিল কিনা।

অল্প সময়ের মধ্যেই এই চাওয়া এত তীব্র হলো, আর সেইসূত্রে আমার বদলে যেতে থাকাও এত স্পষ্ট হলো যে, আমি নিশ্চিত, ঘাবড়ে গিয়ে জুঁই এখন ওর অতীত এবং গত দশ বছরের সব ঘটনা আমাকে খুলে বলতে রাজি। কিংবা যে কোনো কারণেই হোক, রাজি। বিভিন্নভাবে সে এটা বোঝায় আমাকে। বোঝায় যে, আগ বাড়িয়ে প্রসঙ্গটা ও একা একা তুলতে পারবে না সত্যি, তবে আমি যদি তুলি, ও বলবে। কিন্তু কী অদ্ভুত, প্রেম বলি, থাকা বলি, কী নাটকীয়তা, বা নিদেনপক্ষে স্বাভাবিক কৌতূহল, কোনো অ্যাঙ্গেল থেকেই প্রসঙ্গটা আমি আর তুলতে পারি না। যেন এবার উল্টো আমিই হারিয়ে গেছি ওর থেকে, আর তা, কোথায় আবার আমাকে খুঁজে পাওয়া যাবে, না বলেই।

   

মহাশূন্যে যাবে জাপানের তৈরি কাঠের স্যাটেলাইট



বিজ্ঞান ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মহাশূন্যে উৎক্ষেপণের জন্য কাঠের স্যাটেলাইট তৈরি করেছেন জাপানের বিজ্ঞানীরা। এটি স্পেসএক্স থেকে মহাশূন্যে উৎক্ষেপণ করা হবে বলে জানিয়েছেন তারা।

বুধবার (২৯ মে) ইয়েমেনের বার্তাসংস্থা সাবা এ বিষয়ে একটি খবর প্রকাশ করেছে।

খবরে জানানো হয়, জাপানের কিয়েটো বিশ্ববিদ্যালয় ও সুমিটোমো ফরেস্ট্রি ফাউন্ডেশন বিশেষজ্ঞেরা ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত চার বছরের চেষ্টায় এই স্যাটেলাটটি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন।

বুধবার কিয়োটো বিশ্ববিদ্যালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, বিজ্ঞানীরা ৪ বছরের কঠোর পরিশ্রম করে কাঠের তৈরি স্যাটেলাইটটি তৈরি করেছেন। এই স্যাটেলাইটের নামকরণ করা হয়েছে, ‘লিগনোস্যাট’ (LignoSat)। এটি পৃথিবীর সর্বপ্রথম কাঠের তৈরি স্যাটেলাইট। পরিবেশের কথা চিন্তা করে এই স্যাটেলাইটটি তৈরি করা হয়েছে। এটি যখন তার অভিযান শেষ করে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশ করবে, তখন এটি সম্পূর্ণভাবে পুড়ে যাবে।

বিজ্ঞানীরা বলেছেন, ‘লিগনোস্যাট’ স্যাটেলাইটির আকৃতি ১০ সেন্টিমিটার। এটির পুরুত্ব ৪ থেকে ৫.৫ মিলিমিটার। তবে এটির ভেতরের স্তর হবে অ্যালুমিনিয়াম দিয়ে তৈরি এবং এর ভেতরে একটি সোলার প্যানেল থাকবে। সবমিলিয়ে এটার ওজন হবে মাত্র এক কেজি। এই স্যাটেলাইট সম্পূর্ণ সনাতনী জাপানি পদ্ধতিতে কাঠ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। এতে কোনো ধরনের ‘অ্যাডহেসিভ’ (আঠা) ব্যবহার করা হয়নি।

জাপানি বিজ্ঞানীরা আশা করছেন, ‘লিগনোস্যাট’ স্যাটেলাইটটি স্পেসএক্স থেকে এ বছরই উৎক্ষেপণ করা হবে। তারা আরো জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে এটি পৃথিবীর বাইরে পরীক্ষামূলকভাবে উড়াল সম্প্ন্ন করেছে। স্যাটেলাইটটি কী কাজে ব্যবহার করা হবে, তা অবশ্য জানানো হয়নি।

;

১২৫তম জন্মবর্ষ

মুক্তির অন্বেষী নজরুল



ড. মাহফুজ পারভেজ
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নজরুল জীবনের ‘আর্তি ও বেদনা’র সম্যক পরিচয় পেতে হলে সেকালের মুসলিম সমাজের সামাজিক ও পারিবারিক জীবনের কিছু আলোচনা আবশ্যক হয়ে পড়ে। নজরুলের আবির্ভাবকালে মুসলমানদের সামাজিক আবহাওয়া এমনই জীর্ণ ও গণ্ডিবদ্ধ ছিল যে, কোনো শিল্পীরই সেই আবহাওয়াতে আত্মবিকাশ ও আত্মপ্রসার সম্ভব ছিল না। জীবনের প্রথমদিকে তাই কামাল পাশা প্রমুখ ইতিহাসখ্যাত বীর মুসলিমেরা নজরুল-মানসকে আচ্ছন্ন করেছিল।

কিন্তু অচিরেই তিনি বাঙালির জাগরণের পথিকৃতে রূপান্তরিত হন। বাংলার জাগরণ গ্রন্থে ‘বুদ্ধির মুক্তি আন্দোলন’-এর অগ্রণীজন কাজী আবদুল ওদুদ জানাচ্ছেন, ‘নজরুলের অভ্যুদয়ের পরে ঢাকায় একটি সাহিত্যিক গোষ্ঠীর অভ্যুদয় হয়; তাঁদের মন্ত্র ছিল ‘বুদ্ধির মুক্তি’ এবং যারা ‘মুসলিম সাহিত্য সমাজ’ প্রতিষ্ঠা করে বুদ্ধির মুক্তি ঘটাতে চেয়েছিলেন এবং বাঙালি মুসলমানের চেতনার জগতে নাড়া দিলে সচেষ্ট হয়েছিলেন।’

চরম দারিদ্র্যের মাঝে থেকেও জীবনের জয়গান গেয়েছেন কবি নজরুল, ছবি- সংগৃহীত

উল্লেখ্য, ১৯ জানুয়ারি ১৯২৬ সালে ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় অধ্যাপক ও ছাত্রের মিলিত প্রয়াসে ‘মুসলিম সাহিত্য সমাজ’ নামে একটি সংগঠনের জন্ম হয়। সংগঠনটির সঙ্গে ‘সাহিত্য’ শব্দটি যুক্ত থাকলেও এটি গতানুগতিক ও মামুলি কোনো সাহিত্য সংগঠন ছিল না। ‘সাহিত্য’ শব্দটিকে বৃহত্তর পরিসর ও অর্থে গ্রহণ করেছিলেন উদ্যোক্তারা। ফলে, তাঁদের কাছে সাহিত্যচর্চা ছিল জীবনচর্চার নামান্তর। এই সংগঠনের অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল মুক্তবুদ্ধির চর্চা করা। নিজেদের কর্মকাণ্ডকে তাঁরা অভিহিত করেছিলেন ‘বুদ্ধির মুক্তি আন্দোলন’ নামে।

‘মুসলিম সাহিত্য সমাজ’-প্রতিষ্ঠার পরের বছরেই (১৯২৭) সংগঠনের বার্ষিক মুখপত্র হিসেবে সাময়িকী ‘শিখা’ প্রকাশ করে, যে কারণে এদের ‘শিখা গোষ্ঠী‘ নামেও অভিহিত করা হয়।

শিখা প্রকাশিত হয়েছিল পাঁচ বছর (১৯২৭-১৯৩১)। বাঙালি মুসলমানের বিভিন্ন সমস্যা তথা শিক্ষা, সাহিত্য, স্বাস্থ্য, অর্থনীতি, দর্শন, চিন্তা ইত্যাদি নিয়ে জ্ঞানদীপ্ত আলোচনা করেছেন এই সমাজের লেখকগণ। ‘বুদ্ধির মুক্তি ও কবি নজরুলকে মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ’ বলে বর্ণনা করা হয়েছে।

বুদ্ধির মুক্তি, মানব মুক্তি, সমাজের মুক্তি তথা মানুষের শির উচ্চতর করার বাণী উৎকীর্ণ করেছিলেন নজরুল। গেয়েছিলেন মানবতার জয়গান। অসাম্প্রদায়িকতা ও সাম্যের গানে মুখরিত ছিল তাঁর জীবন ও কর্ম। মানুষের চেয়ে বড় কিছু ছিল না তাঁর কাছে। অন্যায়ের বিরুদ্ধে চির বিদ্রোহী ছিলেন তিনি। জগতের বঞ্চিত, ভাগ্য বিড়ম্বিত, স্বাধীনতাহীন বন্দিদের জাগ্রত করার মন্ত্র উচ্চারণ করেছিলেন নজরুল। মানবতার জয়গান গেয়ে লিখেছিলেন-'গাহি সাম্যের গান/মানুষের চেয়ে বড় কিছু নাই, নহে কিছু মহীয়ান্ …’।

মানুষ আর মানুষের হৃদয়কে সবকিছুর ঊর্ধ্বে রেখে তিনি উচ্চারণ করেছিলেন- ‘এই হৃদয়ের চেয়ে বড় কোনো মন্দির-কাবা নাই’। আবার তাঁর কলম থেকেই বেরিয়ে এসেছিল বজ্রনির্ঘোষ আহ্বান- ‘জাগো অনশন-বন্দি, ওঠ রে যত জগতের বঞ্চিত ভাগ্যহত’।

শুধু যে কবিতাই লিখেছেন তা তো নয়। তিনি এমন অনেক প্রবন্ধও রচনা করেছেন। নজরুলের দেশপ্রীতি, দেশের মানুষের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা আজও অনুপ্রাণিত করে। তিনি ছিলেন জাতি-ধর্ম-সম্প্রদায়ের ঊর্ধ্বে।

সাম্য ও মানুষের কবি ছিলেন কবি নজরুল ইসলাম, ছবি- সংগৃহীত

‘সাম্য, সম্প্রীতির কবি নজরুল তাঁর হৃদয়মাধুর্য দিয়ে সব শ্রেণিবৈম্য দূর করতে চেয়েছিলেন। তাঁর কাছে জাত–ধর্ম ছিল হৃদয়ের প্রেমধর্ম; যে প্রেম মানুষের কল্যাণে উৎসারিত হয়ে ওঠে। শুধু লেখনীর দ্বারা নয়, নিজের জীবনের সবরকম ঝুঁকি নিয়ে ঐক্যের আশায় আশাবাদী ছিলেন নজরুল।

তাঁর ব্যক্তিজীবনে এই ভাবনার প্রয়োগ করেছিলেন তাঁর বিবাহের ক্ষেত্রে, পুত্রদের ক্ষেত্রেও। তাঁর পরিবারের সব সদস্য এবং আপামর বাঙালি এই সত্য নিত্য উপলব্ধি করেন।

১২৫তম জন্মবর্ষে বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের চৈতন্য মুক্তির অন্বেষী। তাঁর গান, কবিতা, গল্প, উপন্যাস, নাটক তথা সুবিশাল সাহিত্যকর্ম বর্তমান পরিস্থিতিতে শুধু প্রাসঙ্গিকই নয়, নানা কারণে তাৎপর্যবাহী।

কেননা, বৈশ্বিক মহামারি করোনার প্রখর প্রতাপে ত্রস্ত এবং যুদ্ধ ও আগ্রাসনে জর্জরিত পৃথিবীতে থেমে নেই অন্যায়, অবিচার, হামলা, নির্যাতন।

ইউক্রেন, ফিলিস্তিন থেকে মিয়ানমার হয়ে দক্ষিণ এশিয়া পর্যন্ত পৃথিবীময় শোষণ, নির্যাতন, হত্যা, রক্তপাতে ক্ষত-বিক্ষত-রক্তাক্ত করোনা-বিপর্যস্ত পৃথিবী আর মানুষ এখন অবর্ণনীয় দুর্দশা ও দুর্বিপাকে বিপন্ন।

এমতাবস্থায় অনাচারের বিরুদ্ধে চিরবিদ্রোহী নজরুলের মানব অধিকারের রণহুঙ্কার বড়ই প্রাসঙ্গিক ও প্রয়োজনীয়। কারণ, বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের মহীরুহ-তুল্য কাজী নজরুল ইসলাম প্রেম, বিদ্রোহ, মুক্তি ও মানবতার মহান সাধক।

১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ জ্যৈষ্ঠ অবিভক্ত বৃটিশ-বাংলার সর্বপশ্চিম প্রান্তের বর্ধমান জেলার চুরুলিয়ায় জন্ম নেন কাজী নজরুল ইসলাম আর ১৩৮৩ বঙ্গাব্দে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে (সাবেক পিজি হাসপাতাল) শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

বাংলাদেশের এবং বিশ্বব্যাপী বাংলাভাষীদের শ্রদ্ধায় ও ভালোবাসায় কবিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়, যেমনটি তিনি নিজেই বলেছিলেন, ‘মসজিদেরই পাশে আমায় কবর দিও ভাই।'

উল্লেখ্য, কবি কাজী নজরুল ইসলামের মৃত্যুর পর তাঁর কবরস্থানের স্থান নির্ধারণ নিয়ে নানাজন নানামত দিতে থাকেন। এ অবস্থায় স্থাননির্ধারণী সভায় রফিকুল ইসলাম প্রস্তাব করেন নজরুল তাঁর এক গনে লিখেছেন-

‘মসজিদেরই পাশে আমার কবর দিও ভাই/ যেন গোরের থেকে মুয়াজ্জিনের আজান শুনতে পাই’॥

সুতরাং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদ প্রাঙ্গণে তাঁর কবর হোক। তাঁর এ প্রস্তাব সভায় গৃহীত হলো। পরবর্তীকালে এ কবর পাকা ও সৌন্দর্যমণ্ডিত করার ক্ষেত্রেও তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কবি নজরুলকে ভারত থেকে ঢাকায় নিয়ে আসেন, ছবি- সংগৃহীত

‘বিদ্রোহী কবি’ কাজী নজরুল ইসলামের গান ও কবিতা যুগে যুগে বাঙালির জীবনযুদ্ধ ও স্বাধীনতা সংগ্রামে প্রেরণার উৎস হয়ে কাজ করেছে। তাঁর বিখ্যাত কবিতাগুলির একটি 'বিদ্রোহী', যা স্পর্শ করেছে রচনার শতবর্ষের ঐতিহাসিক মাইলফলক।

কবিতাটি প্রথম প্রকাশিত হয়, ১৯২২ সালের ৬ জানুয়ারি ‘বিজলী’ পত্রিকায়। এরপর কবিতাটি মাসিক ‘প্রবাসী (মাঘ ১৩২৮), মাসিক ‘সাধনা (বৈশাখ ১৩২৯) ও ‘ধূমকেতু’তে (২২ আগস্ট, ১৯২২) ছাপা হয়।

বলা বাহুল্য, অসম্ভব পাঠকপ্রিয়তার কারণেই কবিতাটিকে বিভিন্ন পত্রিকা বিভিন্ন সময়ে উপস্থাপিত করেছিল। ‘বিদ্রোহী’ প্রকাশিত হওয়া মাত্রই ব্যাপক জাগরণ সৃষ্টি করে। দৃপ্ত বিদ্রোহী মানসিকতা এবং অসাধারণ শব্দবিন্যাস ও ছন্দের জন্য আজও বাঙালি মানসে কবিতাটি ও রচয়িতা কবি নজরুল ‘চির উন্নত শির’ রূপে বিরাজমান।

পুরো বাংলা ভাষা বলয়ে অন্যায়ের বিরুদ্ধে এমন শাণিত প্রতিবাদ তুলনাহীন। বিদ্রোহীর শতবর্ষকে ‘জাগরণের শতবর্ষ’ রূপে উদযাপন করা হয়, বাংলা ভাষাভাষী পরিমণ্ডলে আর ১২৫তম জন্মবর্ষে মুক্তির অন্বেষী নজরুলকে শ্রদ্ধায়, ভালোবাসায় স্মরণ করে সমগ্র বাঙালি জাতি!

 ড. মাহফুজ পারভেজ: অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম

;

শ্রীপুরের কাওরাইদে নজরুল উৎসব শনিবার



ডেস্ক রিপোর্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ কালি নারায়ণ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ‘ভাগ হয়নিকো নজরুল’ শীর্ষক নজরুল উৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে শনিবার। ঢাকাস্থ ভারতীয় হাই কমিশনের ইন্দিরা গান্ধী কালচারাল সেন্টারের আয়োজনে এবং নেতাজী সুভাষ-কাজী নজরুল স্যোশাল অ্যান্ড কালচারাল ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট এর সহযোগিতায় এই উৎসবে সেমিনার, আবৃত্তি ও সঙ্গীতানুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে জাতীয় কবির বর্ণাঢ্য জীবন ও সাহিত্যকে তুলে ধরা হবে।

নেতাজী সুভাষ-কাজী নজরুল স্যোশাল অ্যান্ড কালচারাল ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট এর অন্যতম ট্রাস্টি আনোয়ার হোসেন পাহাড়ী বীরপ্রতীক জানান, আয়োজনের শুরুতে শনিবার দুপুর ২টায় সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন ইতিহাসবিদ অধ্যাপক ড. সুনীল কান্তি দে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত বিভাগের শিক্ষক ড. সাইম রানা, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মিল্টন বিশ্বাস ও ছায়ানট (কলকাতা)’র সভাপতি সোমঋতা মল্লিক।

তিনি আরও জানান, বিকেলে আয়োজনে নজরুলের জাগরণী কবিতা ও গান পরিবেশন করবেন দেশের বরেণ্য শিল্পীরা। আবৃত্তি করবেন-টিটো মুন্সী ও সীমা ইসলাম। নজরুল সঙ্গীত পরিবেশন করবেন শিল্পী ফেরদৌস আরা, সালাউদ্দিন আহমেদসহ অনেকে। সমাপনী পর্বে প্রধান অতিথি থাকবেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী ডা. দীপু মনি। ইমেরিটাস অধ্যাপক ও সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমানের সভাপতিত্বে সমাপনী অনুষ্ঠানে থাকবেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার।

‘দেশের প্রান্তিক পর্যায়ে নজরুল চর্চা বেগবান করতে এই উৎসব আয়োজন করা হয়েছে। এবছর কবি নজরুলের ১২৫তম জন্মবর্ষ। এই বছরটি নজরুলচর্চার জন্য খুবই সবিশেষ। উৎসবে দুই দেশের বিশিষ্ট লেখক ও গবেষকদের লেখা নিয়ে প্রকাশিত হচ্ছে সাময়িকী। সাম্য, মানবতা ও জাগরণের যে বাণী কবি সৃষ্টি করে গেছেন, সমকালীন ক্ষয়িষ্ণু সমাজের জন্য তা আলোকবর্তিকা। প্রত্যন্ত অঞ্চলে নজরুলের এই আলোকবর্তিকা ছড়িয়ে দিতেই আমাদের এই প্রচেষ্টা’-বলেন আনোয়ার হোসেন পাহাড়ী বীরপ্রতীক। 

;

শিশু নজরুল



এ এফ এম হায়াতুল্লাহ
কাজী নজরুল ইসলাম। ছবিটি বাংলা একাডেমি প্রকাশিত নজরুল রচনাবলী থেকে সংগৃহীত

কাজী নজরুল ইসলাম। ছবিটি বাংলা একাডেমি প্রকাশিত নজরুল রচনাবলী থেকে সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের নিকটতম প্রতিবেশী দেশ ভারত। এটি বাংলাদেশের তুলনায় আয়তনের দিক দিয়ে বহুগুণ বড় একটি দেশ। বহুজাতির বহু মানুষের বাস সে দেশে। ঐ দেশ অনেকগুলো প্রদেশে বিভক্ত। এই প্রদেশগুলোকে বাংলা ভাষায় রাজ্য বলে অভিহিত করা হয়। এই ভারতবর্ষের দক্ষিণ-পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত তদানীন্তন বাংলা প্রদেশের পূর্বাঞ্চল আজ স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। আর পশ্চিমাঞ্চল ‘পশ্চিম বঙ্গ’ নামে ভারতের অন্তর্গত রয়ে গেছে।

এই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বর্ধমান জেলার অধীন আসানসোল মহকুমার অন্তর্গত জামুরিয়া থানার অন্তর্ভুক্ত চুরুলিয়া গ্রামে ১৮৯৯ খ্রিস্টাব্দের ২৫ মে এবং ১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ই জ্যৈষ্ঠ তারিখে জন্মলাভের পর একটি শিশুর কাজী নজরুল ইসলাম নাম রাখেন যে পিতা তার নাম কাজী ফকির আহমদ। আর যে মায়ের কোলে তিনি জন্মান তার নাম জাহেদা খাতুন। এই শিশুটির জন্মের আগে এই পিতামাতার আর-ও ৪ জন সন্তান জন্মের সময়ই মারা গিয়েছিল। শুধু তাদের প্রথম সন্তান কাজী সাহেবজানের বয়স তখন ১০ বছর। অর্থাৎ কাজী নজরুলের সর্বজ্যেষ্ঠ বড় ভাই শিশু কাজী নজরুলের চাইতে ১০ বছরের বড় ছিলেন। নজরুলের পর তার আর-ও একজন ভাই ও বোনের জন্ম হয়েছিল। ভাইটির নাম ছিল কাজী আলী হোসেন এবং বোনটির নাম ছিল উম্মে কুলসুম।

শিশু নজরুলের পিতা কাজী ফকির আহমদ বই-পুস্তক পড়তে পারতেন। তিনি স্থানীয় মসজিদ ও মাজারের সেবা করতেন। রাজ্য শাসকগণ কর্তৃক বিচারকাজে নিয়োজিত ব্যক্তিগণ অর্থাৎ বিচারকগণ উন্নত চরিত্রের অধিকারী হতেন। মুসলমান সমাজ থেকে বিচারকাজে নিয়োজিত ব্যক্তিদের কাজী বলা হত। মুসলমান সমাজে কাজীগণ অত্যন্ত সম্মানিত ব্যক্তি হিসেবে গণ্য হতেন। নজরুল ইসলাম এইরূপ সম্মানিত পরিবারে জন্মপ্রাপ্ত এক শিশু। তাই জন্মের পর ক্রমশ বেড়ে উঠার পর্যায়ে তিনি পারিবারিকসূত্রেই ভাল-মন্দের পার্থক্য করার এবং হিংসা-বিদ্বেষমুক্ত হয়ে সকলকে সমভাবে ভালবাসার গুণাবলি অর্জন করেন।

মানবজাতির ইতিহাসে যে-সমস্ত মহাপুরুষ বিশ্বজোড়া খ্যাতি অর্জন করেছেন তাদের অধিকাংশই শৈশব থেকে নানারূপ দুঃখ-কষ্টে পতিত হয়ে সেগুলো জয় করে মহত্ত্ব অর্জন করেছেন। তাদের কেউই একদিনে বড় হয়ে যাননি কিংবা বেড়ে-ও উঠেন নি। পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মহাপুরুষ হযরত মুহাম্মদ (সঃ) জন্মানোর আগেই পিতাকে হারিয়েছিলেন। মাত্র ছয় বছর বয়সে হারিয়েছিলেন জন্মদাত্রী মাকেও। নজরুল তার পিতাকে হারান নয় বছর বয়সে ১৯০৮ সালে। পিতা তাকে গ্রামের মক্তবে পড়াশোনা করতে পাঠিয়েছিলেন। তখনকার দিনে পড়াশোনা করার জন্যে সরকারি ব্যবস্থা ছিলনা। বাংলাদেশের তখন জন্ম হয়নি।

বিশেষ ভঙ্গিমায় হাবিলদার নজরুল

নজরুলের জন্মভূমি বাংলা প্রদেশ ভারতবর্ষের একটি রাজ্য যা ছিল বিদেশী ব্রিটিশ শাসনাধীন তথা পরাধীন। ব্রিটিশ শাসকরা এদেশের সাধারণ মানুষ তথা প্রজাদের শিক্ষার ব্যবস্থা করেনি। কারণ শিক্ষার মাধ্যমে মানুষ সচেতন হয়ে উঠে-তাদের আত্মসম্মানবোধ জাগ্রত হয়-তারা পরাধীন থাকতে চায় না-স্বাধীনতার প্রত্যাশী হয়। বিদেশী শাসক ব্রিটিশরা সাধারণ মানুষের জন্য শিক্ষা উন্মুক্ত না করায় জনসাধারণ সম্মিলিতভাবে কিছু কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপন করত। সেই প্রতিষ্ঠানে প্রধানত মাতৃভাষা ও ধর্মীয় শিক্ষা প্রদান করা হত। এইসব প্রতিষ্ঠান মক্তব নামে পরিচিত হত। এগুলো পরিচালনার ব্যয় অর্থাৎ শিক্ষকদের বেতন মক্তব প্রতিষ্ঠারাই দান, সাহায্য ও অনুদান সংগ্রহ করার মাধ্যমে নির্বাহ করতেন। গ্রামীণ একটি মক্তবে নজরুলের পাঠগ্রহণ শুরু। তিনি ছিলেন অসাধারণ মেধাবী। তাঁর স্মৃতিশক্তি ছিল প্রখর।

একবার কিছু শোনে ও দেখেই তিনি তা মনে রাখতে পারতেন। কিন্তু শিশুসুলভ সকল প্রকার চঞ্চলতা-ও তাঁর ছিল। পিতৃবিয়োগের পর সেই চঞ্চলতার যেন ছেদ পড়ল। তার মেধাগুণে তিনি হয়ে উঠলেন শিক্ষকের অনুপস্থিতিতে সেই মক্তবেরই শিক্ষক। একজন শিশু শিক্ষক। এক শিশু পড়াতে লাগলেন অন্য শিশুকে। উদ্দেশ্য নিজের অর্জিত জ্ঞান ও বিদ্যা অন্যের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া। নিজেকে অন্যের মধ্যে বিলিয়ে দেয়া। কিছু দেয়ার মাধ্যমে আনন্দ লাভ-যে আনন্দ মহৎ।

তার ভেতরে ছিল এক ভবঘুরে মন। মক্তব ছেড়ে ভর্তি হলেন উচ্চ বিদ্যালয়ে-মাথরুন নবীন চন্দ্র ইনস্টিটিউশনে। স্থিত হলেন না সেখানে। গ্রামীণ নিসর্গ, প্রকৃতি, ঋতুচক্র যেমন তার মনকে প্রভাবিত করে, অজানাকে জানার এবং অচেনাকে চেনার নিরন্তর কৌতূহল-ও তাকে আন্দোলিত করে। ঘরছাড়া স্বভাবের এই শিশু অন্য সকল মানুষের জীবন ও সংগ্রামের রহস্যের প্রতি আকৃষ্ট হয়। ঘর তাকে বাঁধতে পারে না। বিশাল আকাশকেই তার মনে হয় তার মাথার ওপরে খাঁচার মত উপুড় হয়ে তাকে আটকে রেখেছে। তাই তিনি মনে মনে ‘ভূলোক, গোলোক ও দ্যুলোক’ ছাড়াতে চাইতেন কেবলÑনিজেকে মুক্ত করতে চাইতেন। মনের আহ্বানে সাড়া দিতেন, গান শোনাতেন, শুনে শুনে গাইতেন।

তারই পরিক্রমায় গ্রামীণ লোক-নাট্য ‘লেটো’ গানের দলে যোগ দিলেন। সেখানেও তার দলপতি উস্তাদ শেখ চকোর গোদা ও বাসুদেব তাকে সেরাদের ‘সেরা’ বলে স্বীকৃতি দিলেন। তিনি শুধু লেটোর দলে গানই গাইলেন না। গানের পালা রচনা করলেন। ‘ মেঘনাদ বধ’, ‘হাতেম তাই’ ‘চাষার সঙ’, ‘আকবর বাদশা’ প্রভৃতি পালা রচনা করতে যেয়ে হিন্দু পুরাণ রামায়ণ, মহাভারত, গীতা, বেদ যেমন পড়লেন, তেমনি পড়লেন কোরান-হাদিস, ইতিহাস-কাব্য প্রভৃতি। মক্তব-বিদ্যালয় ছেড়ে হয়ে গেলেন প্রকৃতির ছাত্র।

কিন্তু আগুন যে ছাই চাপা থাকে না। প্রতিভার আগুনের শিখা দেখে ফেললেন পুলিশের এক দারোগা, যিনি নিজেও কাজী বংশের সন্তান, রফিজুল্লাহ। চাকরি করেন আসানসোলে। কিন্তু তার জন্মস্থান ময়মনসিংহ জেলা। নি:সন্তান রফিজুল্লাহ মায়ায় পড়ে গেলেন শিশু নজরুলের। নিয়ে এলেন জন্মস্থান ময়মনসিংহে। ভ্রাতুষ্পুত্রের সাথে ভর্তি করে দিলেন দরিরামপুর হাই স্কুলে। কেমন ছিলেন তিনি এখানে ? জন্মভিটা চুরুলিয়া থেকে কয়েকশত কিলোমিটার দূরে-মাতৃআঁচল ছিন্ন পিতৃহীন শিশু! সহপাঠীরা কেউ লিখে রাখেন নি।

১৯১১ সনে ময়মনসিংহে আনীত হয়ে থাকলে পেরিয়ে গেছে একশত তের বছর। সহপাঠীদের কেউ বেঁচেও নেই। কিন্তু বেঁচে আছে নানারূপ গল্প ও কল্পনা। বড় বড় মানুষদের নিয়ে এমনই হয়। তাদেরকে কেন্দ্র করে অনেক কাহিনী তৈরী করা হয়। মানুষ জীবনের গল্প শুনতে ভালবাসে। তাই জীবন নিয়ে গল্প তৈরী হয় কিন্তু তা জীবনের অংশ না-ও হতে পারে। কেউ বলেন নজরুল ময়মনসিংহের ত্রিশালে এক বছর ছিলেন, কেউ বলেন দেড় বছর, কেউবা দু’বছর। প্রথমে ছিলেন কাজী রফিজুল্লাহ’র বাড়ি। এরপরে ছিলেন ত্রিশালের নামাপাড়ায় বিচুতিয়া বেপারির বাড়ি। এই দু’বাড়িতে থাকা নিয়ে অবশ্য কোন বিতর্ক নেই। কিন্তু তর্ক আছে তার প্রস্থান নিয়ে।

কেউ বলেন তিনি স্কুল-শিক্ষকের কাছে সুবিচার না পেয়ে, কেউ বলেন অভিমান করে চলে গিয়েছিলেন। তবে তিনি কাউকে না বলেই চলে গিয়েছিলেন এটাই প্রতিষ্ঠিত মত। কিন্তু গেলেন কোথায় ? সেই জন্মস্থানে। তবে এবার চুরুলিয়া থেকে বেশ দূরে রাণীগঞ্জের শিহাড়সোল সরকারি স্কুলে সরকারি বৃত্তি নিয়ে ভর্তি হলেন অষ্টম শ্রেণিতে। ১৯১৫ সন। পড়াশোনা করলেন ১৯১৭ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত। দশম শ্রেণি পর্যন্ত একটানা। নজরুলের চঞ্চলমতি, ঘরছাড়া ও ভবঘুরে স্বভাবের জন্যে যেন বেমানান। প্রতিটি ক্লাসে প্রথম হলেন।

মেধাবী বলেই নিয়মিত মাসিক ৭ টাকা বৃত্তি পেতেন। ঐ সময়ের হিসাবে মাসিক ৭ টাকা অনেক টাকা। মাসিক ৩ থেকে ৪ টাকায় সকল প্রকার থাকা-খাওয়ার ব্যয় মিটিয়ে অনায়সে চলা যেত। দশম শ্রেণির নির্বাচনী পরীক্ষা উত্তীর্ণ হয়ে এন্ট্রান্স বা মাধ্যমিক পরীক্ষায় বসার কথা। সে প্রস্তুতি চলছে। নিচ্ছেন-ও। হঠাৎ ব্রিটিশ শাসকদল কর্তৃক যুদ্ধযাত্রার ডাক। কিন্তু প্রলোভন দেখানো হলো যে ব্রিটিশরা প্রথম বিশ্বযুদ্ধে জিততে পারলে ভারতবর্ষকে মুক্ত করে দিয়ে যাবে। জন্মাবধি স্বাধীনতা ও মুক্তি-প্রত্যাশীর হৃদয়ে নাড়া দিল। তিনি সাড়া দেবেন কিনা দোদুল্যমান। কিন্তু কপট ব্রিটিশ জাতি বাঙালিকে উত্তোজিত করার নিমিত্ত অপবাদ ছড়ালো যে বাঙালিরা ভীরু।

পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ঢাকার কবিভবনে নজরুল

তারা লড়তে, সংগ্রাম করতে, যুদ্ধে যেতে ভয় পায়। স্বল্পকাল পরের (১৯১৭ সালের মাত্র চার বছর পর লিখিত হয়েছিল ‘বিদ্রোহী’ কবিতা ১৯২১ সনে) বিদ্রোহী কবির রক্ত ক্ষোভে নেচে উঠলো। কে রুখে তার মুক্তির আকাক্সক্ষা! বাঙালি সেনাদের নিয়ে গঠিত ৪৯ নং বাঙালি পল্টনে নাম লিখিয়ে বাস্তব যুদ্ধযাত্রা করলেন। গন্তব্য করাচি। ১৯১৭-১৯১৯ সাল অব্দি কঠোর সৈনিক জীবন। সুকঠিন নিয়ম-শৃঙ্খলার মধ্যেই সাধারণ সৈনিক থেকে হাবিলদার পর্যায়ে উন্নীত হওয়ার পাশাপাশি আরবি-ফার্সি সাহিত্যে অধ্যয়নসহ সঙ্গীতে ব্যুৎপত্তি অর্জনের জন্য মহাকালের এক অবিস্মরণীয় কবি-শিল্পী হিসেবে নিজেকে নির্মাণের ক্ষেত্রে করাচির জীবনই ছিল এক সাজঘর। যুদ্ধযাত্রার পূর্ব পর্যন্ত নজরুল শিশু। কিন্তু যুদ্ধফেরত নজরুল এক পরিপূর্ণ তরুণ ও চিরকালীন শিল্পী-যার মন ও মানস শিশুর মত আজীবন নিষ্পাপ।

লেখক: নির্বাহী পরিচালক, কবি নজরুল ইনস্টিটিউট 

;