Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

শসা খেতে হবে খোসাসহ!

শসা খেতে হবে খোসাসহ!
শসা।
ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
লাইফস্টাইল


  • Font increase
  • Font Decrease

শসাকে বলা হয়ে থাকে সবচেয়ে স্বাস্থ্য সম্মত খাদ্য উপাদান। শসার উপকারিতা সম্পর্কে কমবেশি সবার ধারণা থাকলেও, অনেকেই জানেন না শসার খোসার উপকারিতা সম্পর্কে। ভ্রান্ত ধারণার বশবর্তী হয়ে অনেকেই ভাবেন শসার খোসা ক্ষতিকর। যে কারণে সালাদ কিংবা রান্নায় ব্যবহারের আগে শসার খোসা ফেলে দেন।

অথচ বাস্তব চিত্র একেবারেই উল্টো। শসার মতোই দারুণ স্বাস্থ্যকর ও উপকারী শসার খোসাও। তাইতো শসা খেতে হবে খোসাসহ। আজকের ফিচার থেকে জেনে নিন শসার খোসার চমৎকার কিছু উপকারিতা।  

কোষ্ঠকাঠিন্য ও পেটের সমস্যা কমায়

বিব্রতকর এই সমস্যার ক্ষেত্রে ত্রাতা হিসেবে কাজ করবে খোসাসহ শসা। শসার খোসাতে রয়েছে অদ্রবণীয় আঁশ (Insoluble Fiber). অন্যদিকে শসার ভেতরের নরম অংশে থাকে দ্রবণীয় আঁশ (Soluble Fiber). উভয় প্রকৃতির আঁশ মলকে নরম করতে ও কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা কমাতে চমৎকার কার্যকরি।

প্রতিদিন একটি খোসাসহ শসা দূরে রাখে চোখের সমস্যা

দারুণ এই বিষয়টি সম্পর্কে খুব কম মানুষই অবগত। শসার খোসা হলো ভিটামিন-এ’র (বেটা-ক্যারটিন) উৎস। চোখের স্বাস্থ্য ও দৃষ্টিশক্তির জন্য ভিটামিন-এ ভীষণ জরুরি। তবে শসার খোসা ফেলে দিলে ভিটামিন-এ আর অবশিষ্ট থাকে না।

আরো পড়ুন: সুস্বাস্থ্যের জন্য আঁশযুক্ত এই খাবারগুলো খেতে হবে প্রতিদিন

কমাবে বাড়তি মেদ ও চর্বি

হুটহাট হতচ্ছাড়া ক্ষুধাভাব খুব জ্বালায়। এই সময় অস্বাস্থ্যকর কোন খাবার খাওয়ার পরিবর্তে কয়েক টুকরা খোসাসহ শসা খেয়ে ফেলতে হবে। খোসাসহ শসায় কোন ক্যালরি নেই বললেই চলে (১.২ গ্রাম ক্যালরি)। ক্যালরি কম হলেও ক্ষুধার প্রকোপ কমাতে শসা বেশ কার্যকর। তাই ক্ষুধা পেলেই নিশ্চিন্তে খেয়ে নিতে হবে ছোট একটি খোসাসহ শসা।

ত্বকে বয়সের ছাপ পড়া রোধে কাজ করে

ত্বকের জন্য অ্যাসকরবিক অ্যাসিড (ভিটামিন-সি) অনন্য। ক্ষতিকর অক্সিডেটিভ ড্যামেজ থেকে ত্বককে রক্ষা করতে এবং ত্বকে বয়সের ছাপ পড়া প্রতিরোধে যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এছাড়াও কোলাজেন উৎপাদনে অনুঘটক হিসেবে কাজ করে অ্যাসকরবিক অ্যাসিড। শসাতে নয়, শসার খোসায় প্রচুর পরিমাণে উপকারী এই উপাদান বিদ্যমান থাকে। তাই খোসাসহ শসা খেলে ত্বকের বয়সের ছাপকে দূরে রাখা সম্ভব হবে।

আরো পড়ুন: প্রিয় আমের চমকপ্রদ কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা

ভিটামিন-কে’র অন্যতম উৎস

রক্ত জমাট বাঁধতে ভিটামিন-কে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান। যা পাওয়া যাবে খোসাসহ শসাতে। এছাড়াও ভিটামিন-কে হাড়ের পুষ্টিতে, মগজের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে ও নির্দিষ্ট ধরণের কিছু ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে থাকে।

ইনসমনিয়ার সমস্যা কমাতে সহায়তে করে

শসার খোসায় রয়েছে অতি পরিচিত ও উপকারী মিনারেল- ম্যাগনেসিয়াম। ইনসমনিয়ার সমস্যা, মাইগ্রেনের ব্যাথা, পেশীর টান ও হজমের সমস্যা কমাতে ম্যাগনেসিয়াম দারুণ প্রয়োজনীয় একটি মিনারেল।

এতো দারুণ স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে জানার পর খোসাসহ শসা  খাওয়ার পরিকল্পনা করা স্বাভাবিক। তবে খেয়াল রাখতে হবে, খাওয়ার পূর্বে শসাকে অবশ্যই এক ঘণ্টা লবণ-পানির মিশ্রনে ডুবিয়ে রাখতে হবে। এতে শসার খোসায় লেগে থাকা জীবাণু, রাসায়নিক ও ফরমালিন দূর হয়ে যাবে।

আপনার মতামত লিখুন :

ডেঙ্গুতে উপকারী ড্রাগন ফ্রুট

ডেঙ্গুতে উপকারী ড্রাগন ফ্রুট
ড্রাগন ফ্রুট, ছবি: সংগৃহীত

বেশ অদ্ভুত চেহারার লালচে রঙের ফল পাওয়া যাচ্ছে ছোট-বড় প্রায় সব ফলের বাজারেই।

অপরিচিত ফল দেখে দেখে আগ্রহী ক্রেতারা এগিয়ে এসে জানতে চাইছেন ফলের নাম। সে ফলের নাম ড্রাগন ফ্রুট। নাম যেমন দশাসই, দামটাও তেমন। ফলের আকারের উপর নির্ভর করে এক কেজি ড্রাগন ফ্রুটের দাম হাঁকা হচ্ছে ৩০০-৫০০ টাকা পর্যন্ত। দাম চড়া হলেও, ভিন্ন কিছুর স্বাদ পরখ করতে অনেকেই কিনে নিচ্ছেন ভিনদেশি এই ফল।

কী এই ড্রাগন ফ্রুট?

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/20/1563601159269.jpg

ফলটি ভিনদেশি হলেও, আমাদের দেশে দারুণ ফলন হয়েছে ফলটির। বড় বড় এলাকার বাগানে তো বটেই, ছাদে কিংবা বড় বারান্দাতেও ক্যাকটাস প্রজাতির গাছ থেকে চমৎকার ফল পাওয়া যাচ্ছে। এ কারণেই বাজার ঘুরে দেখা যাচ্ছে এর সহজলভ্যতা।

হালকা মিষ্টি, লাল ও সাদা বর্ণের এ ফলটির আদি নিবাস হলো দক্ষিণ আমেরিকা, মেক্সিকোতে। পরবর্তীতে ক্যাম্বোডিয়া, থাইল্যান্ড তাইওয়ান, ভিয়েতনাম, ফিলিপাইনসহ বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পরে ড্রাগন ফ্রুট।

ড্রাগন ফ্রুটের স্বাস্থ্য উপকারিতা

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/20/1563601209659.jpg

বেশ কয়েক ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ ১০০ গ্রাম ওজনের ৬০ ক্যালোরি সমৃদ্ধ বড় একটি ড্রাগ্রন ফ্রুট থেকে পাওয়া যাবে প্রোটিন, আয়রন, কার্যোহাইড্রেট, দ্রবণীয় আঁশ, ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম, ভিটামিন-সি ও চিনি। উপকারী পুষ্টি গুণাগুণ সমৃদ্ধ এই ফলটি তাই সুস্বাস্থ্যের জন্যে নানাভাবে অবদান রাখে। কয়েকটি আজকের ফিচারে তুলে ধরা হলো।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে

ফলে থাকা উচ্চমাত্রার ভিটামিন-সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। গবেষণার তথ্য জানাচ্ছে, লাল ও সাদা উভয় ড্রাগন ফ্রুটেই রয়েছে পলিফেনল ও ফ্ল্যাভনয়েড, যা ফ্রি রেডিক্যাল থেকে রক্ষা করে।

ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের জন্য উপকারী

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ ড্রাগন ফ্রুট রক্তে হিমোগ্লোবিন ও প্লেটলেটের সংখ্যা বৃদ্ধিতে অবদান রাখে এবং ফলের ভিটামিন-সি জ্বরকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে কাজ করে। পাশাপাশি এতে থাকা আয়রন, ফসফরাস, লাইকোপেন, ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের দ্রুত সেরে উঠতে সাহায্য করবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/20/1563601227181.jpg

খাদ্য পরিপাকে সাহায্য করে

ফুড ক্যামিস্ট্রিতে প্রকাশিত একটি গবেষণার তথ্য সুপারিশ করছে, ড্রাগন ফ্রুটে থাকে পর্যাপ্ত পরিমাণ Oligosaccharides, যা পাকস্থলিস্থ উপকারী ব্যাকটেরিয়া ল্যাকটোব্যাসিলি (Lactobacilli) ও বাইফিডোব্যাকটেরিয়া (Bifidobacteria) জন্মাতে সাহায্য করে। এছাড়া এই ফলে থাকা পর্যাপ্ত পরিমাণ আঁশ বাওয়েল মুভমেন্টকে নির্বিঘ্ন রাখতে এবং খাদ্য ভালোভাবে পরিপাক হতে কাজ করে।

নিয়ন্ত্রণে রাখে ডায়বেটিস

নিয়মিত পরিমিত পরিমাণ ড্রাগন ফ্রুট গ্রহণে রক্তে চিনির মাত্রা নিয়ন্ত্রিত থাকবে। এতে করে টাইপ-২ ডায়বেটিস দেখা দেওয়ার সম্ভাবনাও কমে যাবে। ২০১৭ সালের একটি গবেষণা জানাচ্ছে, যারা ড্রাগন ফ্রুট নিয়মিত গ্রহণ করেছেন তাদের রক্তে প্রি-ডায়বেটিক লক্ষণসমূহ তুলনামূলক কম দেখা গেছে যারা গ্রহণ করেননি তাদের চেয়ে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/20/1563601240569.jpg

সুস্থ রাখে চোখ

ড্রাগন ফ্রুট সাইটোক্রোম পিফোর৫০ (Cytochrome P450) নামক প্রোটিন তৈরি করে মানবশরীরে। যা আমাদের যকৃততে পাওয়া যায়। এই প্রোটিনের সাথে কঞ্জেনিটাল গ্লুকোমার সম্পর্ক রয়েছে। ফুড ক্যাম্রিস্ট্রি জার্নালে প্রকাশিত তথ্য জানাচ্ছে, এতে থাকা বেটা-ক্যারোটিন চোখকে ক্ষতিকর ফ্রি রেডিক্যাল থেকে রক্ষার্থেও কাজ করে।

হাড় ও দাঁত শক্ত করে

অন্যান্য যেকোন ফলের চাইতে ড্রাগন ফ্রুটে অনেক বেশি পরিমাণ ক্যালসিয়াম রয়েছে। যে কারণে নিয়মিত ড্রাগন ফ্রুট গ্রহণে হাড় ও দাঁত শক্ত ও সুস্থ থাকে।

আরও পড়ুন: মৌসুমি ফল জামের সাত উপকারিতা

আরও পড়ুন: যেভাবে মশা দূরে থাকবে আপনার কাছ থেকে!

চার উপাদানে খেজুর গুড়ের আইসক্রিম

চার উপাদানে খেজুর গুড়ের আইসক্রিম
খেজুর গুড়ের আইসক্রিম, ছবি: সংগৃহীত

খেজুর গুড়ের পায়েস নিশ্চয় খাওয়া হয়েছে, কিন্তু খেজুর গুড়ে তৈরি আইসক্রিম কি খাওয়া হয়েছে কখনো?

চিনির মিষ্টি নয়, গুড়ের মিষ্টিতে তৈরি এই আইসক্রিমে পাওয়া যাবে একেবারেই ভিন্ন ঘরানার অচেনা স্বাদ।

বাইরের তাপমাত্রা বাড়তে থাকলে আইসক্রিম খাওয়ার ইচ্ছাটাও তাড়া দিতে থাকে। এই সুযোগে ঘরে বসে ফ্রেশ দুধ ও গুড় দিয়ে তৈরি করে নিন অচেনা স্বাদের মিষ্টান্ন খেজুর গুড়ের আইসক্রিম।

খেজুর গুড়ের আইসক্রিম তৈরিতে যা লাগবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563538258867.JPG

১. দুই কাপ ক্রিম।

২. এক কাপ দুধ।

৩. চারটি ডিমের কুসুম।

৪. আধা কাপ খেজুর গুড়।

খেজুর গুড়ের আইসক্রিম যেভাবে তৈরি করতে হবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563538280218.JPG

১. একটি পাত্রে ভালোভাবে ডিমের কুসুমগুলো ফেটিয়ে নিতে হবে।

২. ভিন্ন একটি সসপ্যানে ক্রিম ও দুধ একসাথে মিশিয়ে জ্বাল দিয়ে বলক আনতে হবে।

৩. গরম দুধ ও ক্রিমের মিশ্রণের এক-চতুর্থাংশ ডিমের কুসুমে দিয়ে পুনরায় ভালোভাবে হুইস্ক করতে হবে তথা ফেটিয়ে নিতে হবে।

৪. এবারে ডিমের মিশ্রণটি সস্প্যানে দিয়ে পুনরায় জ্বাল দিতে হবে এবং গুড় মেশাতে হবে। সকল উপাদান ভালোভাবে মিশে গেলে কাস্টার্ডের মতো ঘন মিশ্রণ তৈরি হবে।

৫. মিশ্রণ ঘন হয়ে আসলে কিছুক্ষণ নেড়েচেড়ে কাঁচের পাত্রে ঢেলে ঠাণ্ডা করতে হবে। ঠাণ্ডা হয়ে এলে পাত্রের মুখ বন্ধ করে ডিপ ফ্রিজে সারারাতের জন্য রেখে দিতে হবে।

পরদিন সকালে নাশতার সাথে উপভোগ করুন খেজুর গুড়ের আইসক্রিম।

আরও পড়ুন: দশ মিনিটে বাদামের স্বাদে কুলফি মালাই

আরও পড়ুন: গরমে স্বস্তি আনবে তিন ভিন্ন স্বাদের কোল্ড কফি

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র