ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্নপত্র ফাঁস ও আমাদের দায়ভার



মাহফুজুর রহমান মানিক
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ হিসেবেই নয় বরং নানা কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় জাতির আশা-আকাঙ্খার প্রতীক হিসেবে দাঁড়িয়ে আছে। জ্ঞানচর্চার বাইরেও ইতিহাস, ঐতিহ্য ও অন্যায়ের প্রতিবাদের কেন্দ্র হিসেবে এ বিশ্ববিদ্যালয়টি যেভাবে ভূমিকা পালন করে আসছে তাতে দেশের মানুষের স্বপ্ন জড়িয়ে আছে এর সঙ্গে। প্রাচ্যের অক্সফোর্ড হিসেবে খ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়টিতে যখনই খারাপ কিছু ঘটে আমরা ব্যথিত হই।  নানাদিক থেকেই অতীতের সঙ্গে তুলনা করে অনেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘অবনতি’ দেখেন। সেটা ধরেও বলা যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরর গৌরব, গরিমা, ঐতিহ্য, দাপট এখনও অটুট, অক্ষুণ্ন। তবে সম্প্রতি তাতে চির ধরেছে সে মন্তব্য করাও অমূলক নয়।

সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়টির ঘ ইউনিটের ভর্তির পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনা তারই প্রকৃষ্ট উদাহরণ। প্রশ্ন ফাঁসের কারণে যে বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিবাদের প্রতীক তার বিরুদ্ধেই প্রতিবাদ হয়েছে, এখনও হচ্ছে। প্রতিবাদের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন’স কমিটির সভায় আবারও ঘ ইউনিটের পরীক্ষার সিদ্ধান্ত  হয়। কিন্তু জটিলতা এখনও কাটেনি, কারণ যতটুটু জানা যাচ্ছে, আগের পরীক্ষায় পাসকৃত কেবল ১৮ হাজার শিক্ষার্থীরই পরীক্ষা নেওয়ার কথা বলা হচ্ছে, তাতে বাদ পড়বে ৫৭ হাজার শিক্ষার্থী। তবে ঘটনা যা-ই ঘটুক ডিন কমিটির এ সিদ্ধান্তে এটাই স্পষ্ট যে, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রশ্ন ফাঁস স্বীকার করেছে এবং আমলে নিয়েছে।

স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন ফাঁসের প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা দাঁড়িয়েছেন। এটা খুবই লজ্জার, যখন আমরা দেখলাম ১২ অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের ঘটনার পরেও ফল প্রকাশ করা হয়। প্রথমে পরীক্ষার ফলাফল স্থগিত, তদন্ত কমিটি গঠনসহ কয়েকজন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। কিন্তু পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছুটিতেই ফল ঘোষণা করা হয়। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। তিনি জানান, এবার ৯ টা ১৭ মিনিটে ফাঁস হয়েছে; ক্রমান্বয়ে ক্লোজ ফ্রেমে নিয়ে আসবেন।

ফল ঘোষণার সিদ্ধান্ত কেউ মেনে নিতে পারেনি। সবাই দাবি করেছিলো- ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ও ঘোষিত ফল বাতিল করতে হবে, প্রশ্নফাঁসে জড়িতদের গ্রেফতার ও বিচার এবং ‘ঘ’ ইউনিটের পরীক্ষায় দায়িত্বরত সংশ্লিষ্টদের পদত্যাগ করতে হবে।

প্রথমে প্রতিবাদে কান দেননি প্রশাসন। এটা অত্যন্ত আশ্চর্যের বিষয় যে প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ স্বীকার করেও কীভাবে তার ফল ঘোষণা করা হলো। নিয়মানুযায়ী নতুন করে তারিখ ঘোষণা করে পরীক্ষা নেওয়া-ই তো ছিলো স্বাভাবিক বিষয়। অথচ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন প্রথম দিকে স্বাভাবিক পথে হাটলেন না। ফল ঘোষণা অযৌক্তিক, অস্বাভাবিক, নৈতিকতা বিরোধী ছিলো। প্রকাশিত ফলে বিস্ময়করভাবে আমরা দেখলাম এমন একজন প্রথম হলেন, যিনি গ ইউনিটে ফেল করেছিলেন কিন্তু বাংলায় তিনি ৩০ এর মধ্যে পুরো ৩০ পেয়েছেন!

এর মধ্যে সোমবার আবার ‘নিবিড় তদন্ত কমিটি’ গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ক্ষোভ-বিক্ষোভ আন্দোলনের মধ্যে কমিটি ঘোষণা করা হয়। অথচ সবার দাবি ছিলো নতুন করে পরীক্ষা নেওয়ার। বলার বিষয় হলো, এই সেই কমিটি গত বছরও যখন ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ উঠে তখন এদের নিয়েই তদন্ত কমিটি করা হয়েছিল। তাদের সেই তদন্তের প্রতিবেদন এক বছরেও আলোর মুখ দেখেনি। আমরা জানি না ‘নিবিড়’ তদন্তের এ কমিটি কতটা ‘নির্জীব’ থেকে আবার একটা বছর পার করে দিবেন। এর মধ্যে আবার নতুন করে উত্তীর্ণ ১৮ হাজার শিক্ষার্থীর পুনরায় পরীক্ষা নেওয়ার ঘোষণা এলো।

আমরা ভুলিনি গত বছর যে সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের আন্দোলন হয়েছে, এ বছর ঠিক একই সময়ে একই আন্দোলন হচ্ছে! ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এ কলঙ্ক কি চলতেই থাকবে? এরকম মারাত্মক অভিযোগেও আমরা বেদনার সঙ্গে লক্ষ্য করি, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দায়সারা গোছের কাজ করেন। নামকাওয়াস্তে লোক দেখানো কমিটি করেন। প্রশাসনের মনে রাখা উচিত, মানুষের টাকায় চলা পাবিলক বিশ্ববিদ্যালয়কে ১৬ কোটি মানুষের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।

 আমাদের মনে আছে, ২০১০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইআর) ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে আইইআরের স্বতন্ত্র ভর্তি পদ্ধতি বাতিল করা হয়। এর পরিবর্তে ‘খ’ ও ‘ঘ’ ইউনিটের পরীক্ষার মাধ্যমে ইনস্টিটিউটের ভর্তি নেওয়া হয়। উল্লেখ্য ইনস্টিটিউট হিসেবে আইবিএ স্বতন্ত্র পরীক্ষা নেয়।  আইইআরেও অনার্স ভর্তি পরীক্ষায় ১০টি বিষয় হতে পরীক্ষা হতো। সে পরীক্ষা পদ্ধতি আইইআরের জন্য স্বতন্ত্র হলেও প্রশ্ন ফাঁসের অজুহাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্ধান্তে তা খ ও ঘ ইউনিটের সঙ্গে একীভূত করা হয়। আইইআরের আন্দোলনের পরও স্বতন্ত্র পদ্ধতি আর ফেরেনি। তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত হিসেবে হয়তো ছিলো উত্তম সিদ্ধান্ত। বিষয়টি বলার কারণ হলো, তখন প্রশাসন যেরূপ তৎপর ছিলো, এখন যেন তা অনুপস্থিত।

আমরা বলছি, অন্ধ হলে প্রলয় বন্ধ থাকে না। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনও তা নিশ্চয়ই জানেন। প্রশাসন যেভাবে গোঁজামিল দিয়ে একের পর এক সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন তা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর খারাপ প্রভাব ফেলছে। প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে যারা যেভাবেই প্রশ্ন ফাঁসের কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত তাদের খুঁজে বের করে শাস্তির আওতায় আনা জরুরি। দায়ী ব্যক্তি যত প্রভাবশালী, ক্ষমতাবান কিংবা পদস্থই হোন না কেন তাকে রেহাই দেওয়া যাবে না। একইসঙ্গে নতুন করে পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা চাই। সে পরীক্ষা অবশ্যই বিনা ফিতে নিতে হবে এবং তাতে প্রথম পরীক্ষায় অংশ নেওয়া পুরো ৭৫ হাজার শিক্ষার্থীকেই সুযোগ দেয়া একটি যৌক্তিক দাবি। কঠোর সিদ্ধান্ত গ্রহণের মাধ্যমে হয়তো কিছুটা হলেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চির ধরা গৌরব, গরিমা, ঐতিহ্য বাঁচানো যাবে। না হলে বর্তমান প্রশাসনকে আজীবন এই কেলেঙ্কারির বোঝা বইতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধাবী ও যোগ্যদের জায়গা নিশ্চিত করুন; ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম পুনরুদ্ধার করুন।

মাহফুজুর রহমান মানিক: সাংবাদিক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী।

 

সোনায় অযৌক্তিক ভ্যাটে বিদেশমুখী ক্রেতা



রিপুনুল হাসান
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

পুত্র-সন্তানের বিয়ের সময় উপহার দেওয়ার জন্য ডায়মন্ড ও গোল্ডের অর্নামেন্ট কেনার জন্য প্রতি বছর বাংলাদেশের বিপুল সংখ্যক বিত্তবান ও সম্পদশালী ভারতে যান। সেখান থেকে নতুন নতুন ডিজাইনের পাশাপাশি সাশ্রয়ী দামে সব গহনা কিনে আনেন। শুধু ভারতেই যান না। বাংলাদেশিরা সোনার গহনা কিনতে দুবাই, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া যান। আর প্রবাসীরা যে দেশে থাকেন সেখান থেকে দেশে ফেরার সময় সোনার সোনার গহনা নিয়ে আসেন। প্রতি বছর সোনার গহনা রফতানি করে বিপুল অংকের বৈদেশিক মুদ্রা আয় করে ভারত। তারপরও তারা দেশের ভোক্তার প্রতি বাড়তি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। কোন ভাবেই ভারতীয় ক্রেতারা সোনার গহনা ও ডায়মন্ড কিনতে বিদেশ না যায়। জুয়েলারী ব্যবসার ক্ষেত্রে সোনা, সোনার অলংকার, রূপা বা রূপার অলংকার বিক্রির ক্ষেত্রে আরোপিত ভ্যাট হার ৩ শতাংশ। ভারতের সোনার বাজার এবং অর্থনীতির তুলনায় আমাদের দেশে বিক্রি ও ক্রেতার পরিমাণ বেশি না। তারপরও আমাদের ভ্যাটের হার ৫ শতাংশ। ক্রেতারা বলছেন, ৫ শতাংশ ভ্যাট অযৌক্তিক। প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে তুলনা করলে এটা আমাদের জন্য বেশি।

ভোক্তাদের বিদেশমুখী বন্ধ করতে হলে প্রতিযোগীতামুলক ভ্যাটের হার নির্ধারণ করতে হবে। প্রতিবেশি দেশটির এত বড় বাজার হওয়ার পর ক্রেতাদের জন্য ভ্যাট মাত্র ৩ শতাংশ। বিশ্ববাজারে বাংলাদেশকে প্রতিযোগিতায় সক্ষম করতে জুয়েলারি খাতে আরোপিত শুল্ককর ও ভ্যাট হার কমানো এবং আর্থিক প্রণোদনা প্রদান করতে হবে। এতে যেমন সরকারের বৈদেশিক আয় আসবে। তেমনি বাড়বে রাজস্ব আয়। বিপুল পরিমানে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের আরেকটি খাত তৈরি হবে। বর্তমানে জুয়েলারী ব্যবসার ক্ষেত্রে সোনা, সোনার অলংকার, রূপা বা রূপার অলংকার বিক্রির ক্ষেত্রে আরোপিত ভ্যাট হার ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৩ শতাংশ করা হোক। বর্তমানে মূল্যস্ফীতি এবং ডলারের বিনিময় মূল্যের কারণে ১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম বা প্রতি এক ভরি ২২ ক্যারেট সোনার মূল্য ৯৯ হাজার ১৪৪ টাকা। এরসঙ্গে নূন্যতম মজুরি ৩ হাজার ৪৯৯ টাকা। তারসঙ্গে নির্ধারিত ৫ শতাংশ হারে বা ৫ হাজার ১৩২ টাকা ভ্যাট যুক্ত হলে, মোট মূল্য হয় ১ লাখ ৭ হাজার ৭৭৫ টাকা। বাংলাদেশে প্রতি ভরিতে ভ্যাট দিতে হয় ৫ হাজার ১৩২ টাকা। অন্যদিকে ভারতে সমপরিমান সোনার অলঙ্কার কিনতে ৩ শতাংশ হারে বা ২ হাজার ৭৯১ টাকা ভ্যাট দিতে হয়। যার প্রভাব স্বর্ণালংকার ক্রয় ও বিক্রয়ের ক্ষেত্রে সু¯পষ্ট বিদ্যমান। অথচ বাংলাদেশের অলংকার শিল্পের অপার সম্ভাবনা আছে। ভ্যাট আহরণে আগামী দিনে সরকারের একটি বড় খাত হতে পারে জুয়েলারী শিল্প। এক্ষেত্রে ক্রেতাদের কাছে সহনীয় আকারে ভ্যাট নির্ধারণ করা জরুরি। বাজুস মনে করে সোনা একটি মূল্যবান ও ¯পর্শকাতর ধাতু হওয়ায় মোট বিক্রয়ের উপর ভ্যাট হার ৫ শতাংশের পরিবর্তে ৩ শতাংশে নামিয়ে আনা দরকার। এতে সরকারের রাজস্ব আয়ের পরিমান আরও বাড়বে।

ভ্যাট হার নির্ধারণের ক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে- বাংলাদেশের ক্রেতারা যেন বিদেশ ভ্রমণে গিয়ে অলংকার ক্রয়ে নিরুৎসাহিত হয়। এখানে উল্লেখ্য যে, বিভিন্ন সময়ে উচ্চবিত্তদের একটা বড় অংশই বিদেশে গিয়ে অলংকার ক্রয় করে থাকেন। যার অন্যতম কারণ আন্তর্জাতিক বাজারের সাথে আমাদের স্থানীয় বাজারের সাথে দামের পার্থক্য। যার কারণে যাদের সামর্থ্য থাকে একসাথে বেশী পরিমাণে সোনা ক্রয় করার, তারা বিদেশ ভ্রমণে গিয়ে বা আত্মীয় স্বজনের মাধ্যমে ব্যাগেজ রুলের অপব্যবহার করে দেশে সোনা আনছেন। এতে একদিকে যেমন দেশের অর্থ বিদেশে চলে যাচ্ছে, অন্যদিকে সরকার প্রত্যাশিত রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আবার দেশে যারা কেনাকাটা করেন অধিকাংশ ক্ষেত্রে উচ্চ করহারের কারণে ভ্যাট প্রদানে অনীহা প্রকাশ করে থাকেন। এতে ব্যবসায়ীরা বিপাকে পড়েন। আবার জুয়েলারি পণ্য রফতানি সম্ভব হচ্ছে না।

সরকারের প্রাথমিক হিসাবে বাংলাদেশের সোনার বার্ষিক চাহিদা প্রায় ৪০ টন। তবে প্রকৃত চাহিদা নিরুপণে সরকারের সমীক্ষা প্রয়োজন। বৈধভাবে সোনার চাহিদা পূরণ করার ক্ষেত্রে বড় বাঁধা কাঁচামালের উচ্চ মূল্য, অতিরিক্ত উৎপাদন ব্যয়, শিল্প সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতির উচ্চ আমদানি শুল্ক। বর্তমানে জুয়েলারি শিল্পের প্রায় সকল ধরণের পণ্য ও যন্ত্রপাতির আমদানি শুল্ক ৩০ থেকে ৬০ শতাংশ। যা স্থানীয় অন্যান্য শিল্পে আরোপিত শুল্কের চেয়ে অনেক বেশি। এতে বিনিয়োগ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। পাশাপাশি ৫ শতাংশ হারে উচ্চ ভ্যাট হার ও অতিরিক্ত উৎপাদন খরচের কারণে ভোক্তা পর্যায়ে আন্তর্জাতিক বাজারের চেয়ে দামের পার্থক্য হচ্ছে। এতে ক্রেতা হারাচ্ছেন জুয়েলারি ব্যবসায়ীরা। আর সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন ছোট ছোট জুয়েলারী ব্যবসায়ী।

বাংলাদেশের মহান স্থাপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা নির্মাণে ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০৪১ সফল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বাজুসের প্রেসিডেন্ট জনাব সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে আমরা বদ্ধ পরিকর। আগামী দিনে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে জাগরণ তুলবে চায় জুয়েলারি শিল্প। বর্তমানে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ্যভাবে জুয়েলারি শিল্পে আনুমানিক ৪৪ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান রয়েছে। আগামীতে এই শিল্পে এক কোটি মানুষের কর্মসংস্থান সম্ভব। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে জুয়েলারি শিল্পে ভ্যালু এডিশন করে সোনার অলঙ্কার রফতানি সম্ভব। দুবাই যেমন সোনার ব্যবসার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে, তেমনি বাংলাদেশেও এই সম্ভাবনা রয়েছে। সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন ছিলো জাতির পিতার। এই স্বপ্ন বাস্তবায়নে জুয়েলারি শিল্পে ৩ শতাংশ ভ্যাট ও করমুক্ত সুবিধা চাই। সত্যিকারের সোনার বাংলাদেশ গড়তে জুয়েলারি শিল্পে সকল সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাই।

লেখক: রিপুনুল হাসান, ভাইস-প্রেসিডেন্ট-বাজুস

;

কেবিন ক্রু দিবস: কেবিন ক্রু পেশায় এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশিরাও



মো. কামরুল ইসলাম
ছবি; বার্তা২৪.কম

ছবি; বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

কেবিন সার্ভিস যেকোনো এয়ারলাইন্সের একটি অতীব গুরুত্বপূর্ণ ডিপার্টমেন্ট। যারা প্রতিদিন বিমান যাত্রীদেরকে সরাসরি সেবা দেয়ার সুযোগ পেয়ে থাকে। একটি এয়ারলাইন্স কোম্পানী যে সেবামূলক প্রতিষ্ঠান তার পূর্ণাঙ্গ রূপ দিতে সহায়তা করে কেবিন ক্রুরা। প্রতিদিন একটি হাসপাতাল কিংবা অন্যান্য সেবামূলক যেকোনো প্রতিষ্ঠান থেকেও সংখ্যার হিসেবে এয়ারলাইন্স ক্রুরা বেশী যাত্রীদের সেবা দিয়ে থাকে। তাদের মনোভাবটাই থাকে এয়ারলাইন্সের যাত্রীসংখ্যা বৃদ্ধির পিছনে তাদের সেবাই প্রধান ভূমিকা পালন করে থাকে।

দেশ-বিদেশ ভ্রমণ, আজন্ম লালিত স্বপ্নের জাল বুনে থাকে অনেক স্মার্ট-শিক্ষিত নারীরা। যাঁরা আকাশছোঁয়ার স্বপ্ন দেখেন, পাখির মতো আকাশে উড়ে বেড়াতে চান, সারা বিশ্বকে খুব কাছ থেকে দেখতে চান, তাঁদের জন্য কেবিন ক্রুর চাকরি অনেকটা সোনার হরিণের মতো। সারা বিশ্বের প্রত্যেকটি এয়ারলাইন্সের কেবিন ক্রু বা এয়ার হোস্টেজ পদটির অধিকাংশই বরাদ্দ আছে উপরোক্ত গুনাবলীর নারীদের জন্য।

বাংলাদেশের সরকারি-বেসরকারি এয়ারলাইন্সের কেবিন ক্রু পদে সবাই বাংলাদেশি এবং অনেক বিদেশি এয়ারলাইন্সও বাংলাদেশি কেবিন ক্রু নিয়োগ দিয়ে যাচ্ছে। এর পিছনে রয়েছে বিশেষ কারণ বাঙালিরা জাতি হিসেবে খুবই অতিথি পরায়ন। এর পিছনে নারীদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কেবিন ক্রুদের এয়ারলাইন্সে চুক্তিবদ্ধ হতে হয়। পরবর্তী সময়ে তা পুন:চুক্তি করার সুযোগ আছে।

প্রত্যেক এয়ারলাইন্সের গন্তব্য বিশ্বের সব বড় বড় শহরে। আকাশ কন্যার চাকরির সুবাদে সব বড় বড় শহর, চিত্তাকর্ষক সব আধুনিক বিমান বন্দর দেখা হয়ে যায়। স্বল্প সময়ের জন্য শহর দেখারও সুযোগ থাকে অনেক সময়। শুধু চোখের কিংবা মনের তৃপ্তি নয়, এখানে আর্থিক স্বচ্ছলতাও একটা বড় ব্যাপার। নির্দিষ্ট বেতনের বাহিরে যত বেশী আকাশ ভ্রমণ তত বেশী উপার্জন। সত্যিই বিচিত্র। প্রতিটি ফ্লাইটে শতাধিক যাত্রীকে সেবা প্রদান আর কোন প্রফেশনে আদৌ সম্ভব নয়। সংখ্যার বিচারে প্রতিমাসে হাজার হাজার যাত্রীকে সেবা দেয়া কোন হাসপাতালেও সম্ভব নয়। প্রতি ফ্লাইটে কত বিচিত্র রকম মানুষের সাথে পরিচয় হয়। যা তার জ্ঞান ভান্ডারকেও করে সমৃদ্ধি।


সাবলীল বাচনভঙ্গী। নজরকাড়া সৌন্দর্য্য। স্বাভাবিক গড় উচ্চতার চেয়ে একটু বেশী। কেবিন ক্রু হওয়ার জন্য যোগ্যতা হিসেবে ন্যূনতম এইচএসসি বা এ লেভেল কিংবা সমমানের হতে হয়। সাধারনত বয়স ১৮ থেকে ২৫ বছর এর মধ্যে হতে হবে। মেয়েদের জন্য কমপক্ষে ৫ ফুট ২ ইঞ্চি এবং ছেলেদের জন্য ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি উচ্চতা থাকতে হয়, আর ওজন উচ্চতার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে হবে। চোখের মাপ-৬/৬ (চশমা বা কন্টাক্ট লেন্স গ্রহণযোগ্য নয়)। হাতে কোনো কাটা দাগ কিংবা শরীরে কোনো ট্যাট্টু থাকতে পারবে না, যা সহজে দেখা যায়। সাঁতার জানা আবশ্যক। কোনও কারণে বিমান যদি পানিতে অবতরণ করতে হয় সেজন্য বিমানবালাদের কমপক্ষে ২০ মিটার সাঁতার কাটার সক্ষমতা থাকতে হয়। ইংরেজি ও বাংলায় কথা বলা ও লেখায় দক্ষ হতে হবে, অন্য ভাষা জানা অতিরিক্ত যোগ্যতা হিসেবে দেখা হয়। সাধারণত বিভিন্ন এয়ারলাইন্স কেবিন ক্রুর জন্য অবিবাহিতদের অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে।

বর্তমানে এয়ার হোস্টেজ বা কেবিন ক্রু পেশা স্মার্ট ও সম্মানজনক হওয়ায় প্রতিনিয়ত প্রবল ইচ্ছাশক্তি, আত্মবিশ্বাস ও ঝুঁকি গ্রহণের দৃঢ় মানসিকতা নিয়ে এয়ারলাইন্সগুলোতে ভিড় করছে তরুণ-তরুণীরা। তা ছাড়া এ পেশায় আছে অ্যাডভেঞ্চার, গ্ল্যামার ও উচ্চ আয়ের পন্থা। তাই দিন দিন ক্যারিয়ার হিসেবে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে এ পেশা। সঙ্গে সঙ্গে তরুণদের মাঝে পেশাটি হয়ে উঠেছে প্রতিযোগিতামূলক।

দীর্ঘ প্রস্তুতি না থাকলেও কিছু প্রশিক্ষণ কোর্স করে দেশী ও বিদেশি এয়ারলাইন্সগুলোতে চাকরির সুযোগ নেওয়া যায়। সাফল্যের সঙ্গে এ ক্যারিয়ারে যুক্ত হচ্ছেন প্রতিনিয়ত বাংলাদেশের তরুণ-তরুণীরা। বর্তমানে কেবিন ক্রু প্রশিক্ষণের জন্য কিছু একাডেমী আছে যেখানে প্রাথমিক ধারনা দিয়ে থাকে। এর মধ্যে এভিয়েশন কলেজ অব ইউনাইটেড, বাংলাদেশ বিমান ট্রেনিং ইন্সটিটিউট, জবস এ-ওয়ান উল্লেখযোগ্য। বাংলাদেশে এখন প্রতি বছর বিভিন্ন এয়ারলাইন্সে উল্লেখযোগ্য পরিমান কেবিন ক্রু নিয়োগ প্রদান করতে হয়। কারন একটাই বেসরকারি এয়ারলাইন্সের অগ্রগতি।

স্মার্টনেস ও ভালো ইংরেজি বলার দক্ষতা আপনাকে এগিয়ে রাখবে এয়ার হোস্টেজ বা কেবিন ক্রু হওয়ার প্রতিযোগিতায়। কেবিন ক্রু বা এয়ার হোস্টেজ হতে চাইলে অধিক সুন্দর বা সুন্দরী হতে হবে- এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। যোগ্যতাই হল আসল কথা। যেকোন ধর্মের ছেলে মেয়েরা আবেদন করতে পারবে। প্রার্থীকে পরিচ্ছন্ন রুচি, মিষ্টি হাসি, অনেকক্ষণ এককভাবে কাজ করার ক্ষমতা, বিরক্তিকর পরিস্থিতে স্বাভাবিক থাকা, উপস্থিত বুদ্ধিজ্ঞান, ধৈর্য্য ও সহনশীলতা, বিপদে সাবলিল মানসিকতা ও সবার সাথে আন্তরিকতার সাথে মিশতে পারার ক্ষমতা এ চাকরিতে সফলতা এনে দেবে। আমাদের দেশের শত শত ছেলেমেয়ে প্রতিদিন উড়ে চলেছে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে।

আন্তর্জাতিক এয়ারলাইন্সগুলো কেবিন ক্রুদের বিভিন্ন দেশের বিলাসবহুল হোটেলগুলোয় থাকার ব্যবস্থা করে থাকে, যেখানে থাকা এবং খাওয়া সম্পূর্ণ ফ্রি। শুধু একজন ক্রু'র নিজের জন্যই নয়, তার পরিবারের সদস্যদের জন্যও আছে নানা ধরনের সুবিধা। পরিবারসহ বিভিন্ন দেশে ট্যুর করার সুযোগ হরহামেশাই পাওয়া যায় এই পেশায়।

বিশ্বের বেশিরভাগ এয়ারলাইনসের কেবিন ক্রু সদস্যদের মধ্যে মেয়েদের সংখ্যাই বেশি। যাত্রীদের খাবার পরিবেশন ছাড়াও তাদের নির্দিষ্ট আসন খুঁজে পেতে সহায়তা করা, ওভারহেডে মালপত্র ওঠানামায় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া, যাত্রীদের কেউ অসুস্থ হলে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা প্রদান করার মতো অনেক দায়িত্ব পালন করেন তারা। সব মিলিয়ে ফ্লাইটের অভ্যন্তরে বিমান উড্ডয়ন ও অবতরণের সময় যাত্রীদের নিরাপদে রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকে তাদের।

কেবিন ক্রুদের মাথার চুল অবশ্যই কাঁধের ওপর পর্যন্ত ছোট রাখা আবশ্যক। চুল লম্বা হলেও সেভাবে সাজিয়ে রাখতে হবে। আর চুলের রঙ হতে হবে স্বাভাবিক। প্রত্যেক ক্রুর হাত ও পায়ের নখ ছোট রাখা বাধ্যতামূলক। অনেক বিদেশি এয়ারলাইন্সে কেবিন ক্রুদের সুন্দর পা থাকাও বাধ্যতামূলক।

আপনার পরিচিত কিংবা আপনার বন্ধুই হয়তো কোন না কোন এয়ারলাইন্সের কেবিন ক্রু তার কাছ থেকেও বাস্তবতা উপলব্ধি করতে পারেন, জেনে নিতে পারেন অনেক কিছু। উপরোক্ত গুনাবলী আর অদম্য ইচ্ছা থাকলেই সুদূর পরাহত নয়, আপনিও হয়ে যেতে পারেন কোন এয়ারলাইন্সের আকাশ কন্যা।

আজ ৩১ মে আন্তর্জাতিক কেবিন ক্রু দিবস। কানাডা ইউনিয়নের উদ্যোগে ২০১৫ সালে বিশ্বে প্রথম কেবিন ক্রু দিবস পালন করা হয়। প্রথম ৪৮০ জন কেবিন ক্রু নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে দিবসটি উদযাপন করা হয়।

কেবিন ক্রু দিবসে বিশ্বের সকল কেবিন ক্রুদের আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। আপনাদের সেবায় হয়ে উঠুক বিশ্বের আকাশ পরিবহন অনন্য, যেখানে প্রতি পরতে পরতে বিছিয়ে থাকুক শান্তির পরশ।

লেখক: মোঃ কামরুল ইসলাম, মহাব্যবস্থাপক-জনসংযোগ, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স।

;

বয়স্কদের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ কমে যাওয়ার কারণ ও পুনরুদ্ধারের উপায়



মো. বজলুর রশিদ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সমাজতাত্ত্বিক দৃষ্টিকোণ থেকে বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন একটি নির্দিষ্ট সমাজের সাংস্কৃতিক প্রতীক এবং সামাজিক নিয়ম দ্বারা বোঝা যায়। বিভিন্ন সমাজ প্রায়শই বয়স্ক ব্যক্তিদের তাদের বয়স এবং জীবনের অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করে আচরণ সংক্রান্ত নিয়ম এবং প্রত্যাশা স্থাপন করে।

অনেক সমাজের বয়স-ভিত্তিক শ্রেণিবিন্যাস রয়েছে যা ব্যক্তিদের বয়সের ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন ভূমিকা, অধিকার এবং দায়িত্ব প্রদান করে। বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রায়ই বিশেষ মর্যাদা এবং কর্তৃত্ব দেওয়া হয়, কারণ তারা সময়ের সাথে সাথে জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করে বলে দেখা হয়।

প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধাকে আন্তঃপ্রজন্মীয় সংহতির প্রকাশ হিসেবেও দেখা যেতে পারে, যেখানে তরুণ প্রজন্ম বয়স্ক ব্যক্তিদের অবদানকে স্বীকার করে এবং মূল্য দেয়। এই সংহতির অনুভূতি সামাজিক সংহতিকে শক্তিশালী করে এবং একটি সম্প্রদায়ের মধ্যে ধারাবাহিকতা এবং স্থিতিশীলতার ধারণা জাগায়।

প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধার ধারণা বিভিন্ন সংস্কৃতি এবং সমাজে পরিবর্তিত হতে পারে। কিছু সংস্কৃতি ধার্মিকতা, পিতামাতা এবং গুরুজনদের প্রতি দৃঢ় শ্রদ্ধা এবং আনুগত্যের ওপর জোর দেয়। অন্যান্য সংস্কৃতিতে বয়স্ক ব্যক্তিদের কাছ থেকে পরামর্শ এবং নির্দেশনা চাওয়ার মাধ্যমে বা সিদ্ধান্ত গ্রহণে তাদের জড়িত করে সম্মান প্রকাশ করে থাকে।

এটি লক্ষ্য করা গুরুত্বপূর্ণ যে বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রতি সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধা সময়ের সাথে পরিবর্তিত হতে পারে। শিল্পায়ন, নগরায়ন, বিশ্বায়ন এবং পারিবারিক কাঠামোর পরিবর্তন, আন্তঃপ্রজন্মীয় সম্পর্কের গতিশীলতা, ইত্যাদি প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধার প্রকাশকে প্রভাবিত করতে পারে।

যদিও প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধা সাধারণত একটি ইতিবাচক সামাজিক মূল্য হিসেবে বিবেচিত হয়, তবে এটি স্বীকার করা অপরিহার্য যে ক্ষমতার গতিশীলতা, আর্থিক অসমতা এবং সাংস্কৃতিক পক্ষপাতগুলি এই দৃষ্টিকোণকে প্রভাবিত করতে পারে। সমাজবিজ্ঞানীরা এই বিষয়গুলি অধ্যয়ন করেন এবং নির্দিষ্ট সাংস্কৃতিক, সামাজিক এবং ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধা কীভাবে প্রকাশ পায় তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে থাকেন।

বিভিন্ন সময় বলা হয়ে থাকে যে আমাদের দেশে প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ কমে যাচ্ছে। বাংলাদেশে বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধাবোধ কমে যাওয়ার পেছনে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক এবং অর্থনৈতিক কারণকে দায়ী করা যেতে পারে। অন্যান্য অনেক দেশের মতো বাংলাদেশেও সাম্প্রতিক দশকে দ্রুত আধুনিকায়ন ও পশ্চিমাকরণ হয়েছে। এই পরিবর্তনগুলি প্রবীণদের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গিসহ প্রথাগত মূল্যবোধ এবং নিয়মের পরিবর্তন ঘটাতে সহায়ক হয়েছে। পশ্চিমা সাংস্কৃতিক প্রভাব, যা ব্যক্তি স্বাতন্ত্র্যবাদ এবং যুব-কেন্দ্রিক মূল্যবোধকে অগ্রাধিকার দেয় তা প্রবীণদের সম্মান করার অনুভূত গুরুত্ব হ্রাসে অবদান রাখতে পারে।

ঐতিহ্যবাহী বর্ধিত পারিবারিক কাঠামো যেখানে বেশ কয়েকটি প্রজন্ম একসাথে বসবাস করে এবং যেখানে প্রবীণরা অত্যন্ত শ্রদ্ধাশীল- এই ধরনের পরিবারের বিলুপ্তি তাদের মধ্যে দৈনন্দিন মিথস্ক্রিয়া হ্রাস করতে পারে, সম্ভাব্য আন্তঃপ্রজন্মের বন্ধন এবং সম্মানের সুযোগগুলি হ্রাস করতে পারে। একক পরিবারে বাবা-মা ছাড়া শিশুরা আর কোনো সদসস্যের সংস্পর্শে আসতে পারেনা। এ কারণে তাদের মধ্যে ব্যক্তি স্বাতন্ত্র্যবাদ বৃদ্ধি পায় এবং সমাজের অন্যান্য প্রবীণ সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ শেখার জায়গা সংকুচিত হয়।

দ্রুত নগরায়ন এবং বিশ্বায়ন জীবনধারা এবং সামাজিক মিথস্ক্রিয়ায় উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন এনেছে। শহুরে এলাকায় প্রায়ই একটি দ্রুতগতির, প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশ থাকে যা প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধার ঐতিহ্যগত মূল্যবোধের চেয়ে ব্যক্তিগত সাফল্য এবং অর্জনকে অগ্রাধিকার দিতে পারে।

অর্থনৈতিক চাপ এবং আর্থিক সীমাবদ্ধতাও আন্তঃপ্রজন্মের সম্পর্ককে প্রভাবিত করতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে, পরিবারের অল্পবয়সী সদস্যরা বড়দের যত্ন এবং সমর্থনের চেয়ে তাদের নিজস্ব অর্থনৈতিক চাহিদাকে অগ্রাধিকার দিতে পারে, যার ফলে প্রবীণদের সম্মান করার অনুভূত গুরুত্ব হ্রাস পায়।

শিক্ষার বর্ধিত প্রবেশাধিকার এবং বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গির প্রসার ঐতিহ্যগত বিশ্বাস এবং মূল্যবোধকে চ্যালেঞ্জ করতে পারে। প্রযুক্তির কল্যাণে বিভিন্ন ধারণা এবং দর্শনের সংস্পর্শে আসা তরুণ প্রজন্ম প্রবীণদের সম্মান করাসহ প্রচলিত নিয়মগুলিকে প্রশ্ন বা চ্যালেঞ্জ করতে পারে।

এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে যদিও কিছু দিক থেকে প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধা হ্রাস পেতে পারে, বাংলাদেশে অনেক ব্যক্তি এবং সম্প্রদায় এখনও তাদের প্রবীণদের সম্মান করার গুরুত্বকে মূল্য দেয় এবং অগ্রাধিকার দেয়। সামাজিক পরিবর্তনগুলি জটিল এবং বহুমুখী এবং এই ঘটনাটি ব্যাপকভাবে বোঝার জন্য বাংলাদেশি সমাজের মধ্যে নির্দিষ্ট প্রেক্ষাপট এবং ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা বিবেচনা করা অপরিহার্য।

বাংলাদেশে বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রতি সম্মান প্রর্দশনের বিষয়টি পুনরুদ্ধারের জন্য একটি বহুমুখী পদ্ধতির প্রয়োজন যাতে ব্যক্তি, পরিবার, সম্প্রদায় এবং সরকারসহ বিভিন্ন স্টেকহোল্ডার জড়িত থাকবে। এখানে কিছু কৌশল রয়েছে যা প্রবীণদের প্রতি সম্মান বৃদ্ধিতে অবদান রাখতে পারে।

প্রবীণদের সম্মান করার মূল্য এবং গুরুত্ব তুলে ধরে শিক্ষা এবং সচেতনতামূলক প্রচারনা চালানো। এটি সরকারি ঘোষণা, স্কুল পাঠ্যক্রম, কমিউনিটি প্রোগ্রাম এবং গণমাধ্যমের মাধ্যমে করা যেতে পারে। লক্ষ্য হল বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রতি সন্মানবোধ জানানোর উপলব্ধির অনুভূতি জাগানো।

আন্তঃপ্রজন্মমূলক প্রোগ্রাম এবং ক্রিয়াকলাপগুলিকে উৎসাহিত করা যা তরুণ এবং বয়স্ক প্রজন্মকে একত্রিত করে। যেখানে মেন্টরশিপ প্রোগ্রাম, সম্প্রদায় পরিষেবা উদ্যোগ, বা সাংস্কৃতিক বিনিময় অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। এই প্রোগ্রামগুলি তরুণ প্রজন্মের প্রবীণদের কাছ থেকে শিখতে এবং পারস্পরিক শ্রদ্ধা ও বোঝাপড়া বিকাশের অনুমতি দেয়।

পরিবার এবং সম্প্রদায়কে প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধার সংস্কৃতি গড়ে তুলতে উৎসাহিত করা। এটি আন্তঃপ্রজন্মগত সম্পর্কের গুরুত্বের ওপর জোর দিয়ে, প্রজন্মের মধ্যে যোগাযোগের প্রচার এবং সক্রিয় শ্রবণ এবং পরিবার ও সম্প্রদায়ের মধ্যে বয়স্ক ব্যক্তিদের জন্য সহায়তা ব্যবস্থা প্রদান করে অর্জন করা যেতে পারে।

বয়স্ক ব্যক্তিদের অধিকার এবং কল্যাণ রক্ষা করে এমন নীতি এবং আইন তৈরি করা। এতে বয়স্কদের সামাজিক নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্যসেবা বিধান এবং আন্তঃপ্রজন্মমূলক কর্মসূচির জন্য সমর্থন অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। একটি ব্যাপক আইনি কাঠামো এমন একটি পরিবেশ তৈরি করতে সাহায্য করতে পারে যা বয়স্ক ব্যক্তিদের মূল্যায়ন করে এবং সম্মান করে।

প্রবীণদের অবদান এবং জ্ঞানকে তুলে ধরে সাংস্কৃতিক উদযাপন এবং ঐতিহ্যের প্রচার করা। এতে উৎসব, গল্প বলার সেশন এবং স্বীকৃতি অনুষ্ঠান অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। বয়স্ক ব্যক্তিদের সাংস্কৃতিক তাৎপর্য প্রদর্শন করা তাদের মূল্যবোধকে শক্তিশালী করে এবং তাদের প্রতি শ্রদ্ধা বাড়ায়।

বয়স্ক ব্যক্তিদের জন্য পর্যাপ্ত সামাজিক পরিষেবা, স্বাস্থ্যসেবা এবং সহায়তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা। এতে স্বাস্থ্যসেবা সুবিধা, প্রবীণ-বান্ধব অবকাঠামো, এবং তাদের প্রয়োজনগুলিকে সমাধান করার জন্য সামাজিক কর্মসূচি অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবে। বয়স্ক ব্যক্তিদের ব্যবহারিক চাহিদা পূরণ করা ও তাদের প্রতি যত্ন ও শ্রদ্ধা প্রদর্শন করার জন্য সকলকে উৎসাহিত করা।

গণমাধ্যমে বয়স্ক ব্যক্তিদের ইতিবাচক এবং সম্মানজনক প্রতিনিধিত্বকে উৎসাহিত করা। গণমাধ্যম সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং উপলব্ধি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। গণমাধ্যমে এমন সব বিষয় প্রচার করা যা বয়স্ক ব্যক্তিদের সমাজে মূল্যবান অবদানকারী হিসাবে চিত্রিত করে এবং নেতিবাচক ধারণাগুলিকে চ্যালেঞ্জ করে।

এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রতি সম্মান পুনরুদ্ধার করা একটি দীর্ঘমেয়াদি প্রক্রিয়া যার জন্য সমাজের সকল সদস্যের সম্মিলিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন। বয়স্ক ব্যক্তিদের জ্ঞান এবং অবদানকে মূল্যায়ন করে এবং সম্মান করে এমন একটি পরিবেশ তৈরি করার জন্য সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি, সাংস্কৃতিক অনুশীলন এবং নীতির পরিবর্তন প্রয়োজন।

মো. বজলুর রশিদ: সহকারী অধ্যাপক, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, তেজগাঁও কলেজ, ঢাকা।

;

দারিদ্র্যসূচক কমেছে ভিখারি কমেনি



প্রফেসর ড. মো: ফখরুল ইসলাম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সম্প্রতি বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিসিএস)-এর এক জরিপ রিপোর্টে বলা হয়েছে দেশে দারিদ্র কমেছে, শিক্ষার হার বেড়েছে, দেশের সার্বিক উন্নয়নসূচকের অনেকটা অগ্রগতি লক্ষ্যণীয় হয়ে উঠেছে।

গত ১৭ এপ্রিল ২০২৩ বিবিএস-এর বাংলাদেশ স্যাম্পল ভাইটাল ষ্টাটিস্টিকস-২০২১ এর ফল প্রকাশিত হয়। সেখানে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ছয়মাস কমেছে। পুরুষের গড় আয়ু ৭০.৬ এবং নারীর গড় আয়ু ৭৪.৪ বছর। এই প্রথম বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু কমলো।

আরেক সংবাদে বলা হয়েছে, সরকারী চাকরী করেন মিরপুরের এমন একজন বাসিন্দা জীবনে প্রথমবার মেট্রোরেলে উঠে ‘উন্নয়ন অনুভব করা যাচ্ছে’ বলে নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেছেন। বিষয়গুলো বিভিন্ন সংবাদে জেনে খুব খুশি লাগে।

কিন্তু একই টিভিতে আরেক সংবাদে যখন একজন ভিখারি আক্ষেপ করেন যে আগে রেল স্টেশনে ভিক্ষা করতাম, ট্রেনে চড়ে হাত পাতলেই ভিক্ষা পেতাম এখন সেই উপায় নেই। আগে ইন্টারসিটি ট্রেনে চড়ে ঈদের সময় ভিক্ষা করতে করতে বাড়ি চলে যেতাম। এখন সে উপায় নেই। লোকাল ট্রেনে এত মানুষ যে ভেতরে ঢোকা যায় না। কোনরকমে উঠতে পারলে ভিক্ষার জন্য এদিক সেদিক নড়াচড়া করার উপায় নেই। আগের মতো আমার আয়-রোজগার নাই। বাসা-বাড়িতে ভিক্ষার জন্য গেলে ভেতরে ঢোকার উপায় নাই। দারোয়ান তাড়িয়ে দেয় অথবা তালাচাবি দেখে ফিরে আসতে হয়। দোকানে ভিক্ষার জন্য হাত পাতলে একটা খুচরা পয়সা দেয়। সারাদিন যা পাই তা দিয়ে জীবন চালানো দায়।

আধুনিক যুগে যাদের স্থায়ী আয় আছে, সঞ্চয় আছে এবং ব্যাংক ঋণ পাবার যোগ্যতা আছে তারা বেশি বেশি উঁচু বাড়ি বানাচ্ছেন বা কিনছেন। সেগুলো ভাড়া দিচ্ছেন নতুবা ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করছেন। তাপর সেগুলোতে নিরাপত্তার জন্য সিকিউরিটি গার্ড নিয়োগ দিয়ে তাদের হাতে একবোঝা চাবিসহ নতুন মডেলের তালা কিনে দিয়ে স্বস্থি খুঁজে পাচ্ছেন। সুসজ্জিত গেইট, ডিজিটাল তালাচাবি, সিসি ক্যামেরা, কুকুর, দারোয়ান ইত্যাদি মিলে ভিখারি তাড়ানোর মহোৎসব গড়ে উঠেছে বহুতল ভবনের শহুরে মানুষদের জীবনে। এটাই এখন বিত্তশালীদের বৈভব পাহারা দেয়া সংস্কৃতির অন্যতম অনুষঙ্গ।

অর্থ্যাৎ, যাদের স্থায়ী আয় করার যোগ্যতা আছে তাদের নিকট উন্নয়ন অনুভবটা সুখকর। কিন্তু যারা ভাসমান, ভিখারি, বেকার অথবা উচ্চশিক্ষিত হয়েও বহুবছর ধরে একটি চাকুরীর জন্য পথে পথে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তাদের প্রকৃত অবস্থা নিয়ে কোন ভাবনার অবকাশ নেই তাদের মধ্যে।

অথচ, এরা ধনাঢ্য পরিবার যাদের ৯৯% মুসলমান। যারা এতসব নিরাপত্তার আয়োজন সম্পন্ন করে আকাশচুম্বি অট্টালিকা, বাগানবাড়ি, সুইমিংপুল, হাল-ফ্যশনের বিলাসবহুল গাড়ি, দেশে বিদেশে বিপুল অঙ্কের অর্থ লগ্নি ও সঞ্চয় নিয়ে কালাতিপাত করেছেন তারা ঈমানদার দাবী করেন। তাদের অনেকে নিয়মিত নামায আদায় করেন রোজা রাখেন, আরো নানা ইবাদত করেন। কিন্তু মিসকিনকে দান-খয়রাত ও সঠিকভাবে সরকারী কর প্রদানের বেলায় দারুণ কিপ্টেমি করতে দ্বিধা করেন না। অথচ. তারা ‘সাচ্চা মুসলিম’ অভিধায় নিজেকে শুনতে বেশ ভালবাসেন।

এসব বিত্তশালীদের সীমাহীন আয় ও পথে ঘুর বেড়ানো ভিখারির আয় সম্মিলন করে গড় করে গোটা দেশের মাথাপিছু আয় নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। তাই অর্থনীতিবিদগণ অনেকেই কোন অসম আয়ের দেশের দেশের জনগণের মাথাপিছু গড় আয় বৃদ্ধিকে শুভঙ্করের ফাঁকি ও এক ধরণের প্রতারণা বলে মনে করেন।

তাই এসব দেশের দামী মার্কেটের কেনাকাটা বা অভিজাত রেষ্টুরেন্টের আলো-আঁধারিতে বসে বঙ্গবাজরের টিনশেডের সামান্য জায়গায় হাজার হাজার ঘুপচি দোকানঘর পুড়ে অঙ্গার হয়ে যাবার পর প্রকৃত দোকানদারদের সংখ্যার তালিকা ও দাবীর সংগে হিসেব মিলাতে হিমশিম খেতে হয়। কারণ, দরিদ্র, অতিদরিদ্র, হকার, টোকাই, দিনমজুর, উন্মাদ, ভাসমান পতিতা, পথশিশু, ভিখারি ইত্যাদি জনগোষ্ঠীর সঠিক হিসেবে বড় গড়মিল লক্ষ্যণীয়।

আরেকটি বিশেষ বিষয় হলো মুসলমানদের জন্য যাকাত প্রদানের বাধ্যবাধকতাকে উপেক্ষা করা। অনেক মুসলিম যাকাত প্রদানের বেলায় বেশ উদাসীন। মহান আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, ‘নিশ্চয়ই ধনীদের সম্পদে দরিদ্রদের অধিকার রয়েছে।’

রাজা রেখে যেমন দেহ-মনকে পবিত্র করা হয়, যাকাত দিয়ে তেমনি সম্পদকে পবিত্র করা হয়। মহাগ্রন্থ পবিত্র আল-কোরআনে বলা হয়েছে-“ অবশ্যই সফলকাম হয়েছে মুমিনগণ, যারা নিজেদের নামাজে বিনয়-নম্র হয়েছে, যারা অনর্থক (অন্যায়) কাজ থেকে বিরত হয়েছে, আর যারা যাকাত দানে সক্রিয় হয়েছে”(সুরা মুমিনুন, ১-৪)। অন্যত্র বলা হয়েছে- “ আর যারা সোনা ও রূপা জমা করে রাখে এবং সেগুলো আল্লাহর পথে খরচ করে না, তাদেরকে মর্মন্তÍদ শাস্তির সংবাদ দিন”(সুরা তওবা ৩৪ আয়াতংশ)।

সূরা আদ্ব দোহায় বলা হয়েছে, ‘ওয়া আম্মাচ্ছায়েলা ফালা তানহার’অর্থ্যাৎ, ‘ভিখারিকে ধমক দিও না।’ (সূরা ৯৩: আয়াত ৯)। সূরা আল হুমাজাহ্-য় বলা হয়েছে- ‘আল্লাজি জামাআমালাওঁ ওয়াদ্দাদাহ্’ দুর্ভাগ্য এমন সেই ব্যক্তিদের জন্য, ‘যারা সম্পদ জমা করে ও বার বার গণনা করে। (সূরা ১০৪: আয়াত ২)।’

অনেকে দোজখের আগুনের লেলিহান শিখা থেকে বাঁচার জন্য পবিত্র রমজানের রোজা রাখে। অথচ, অনেক মুসলমান ধনাঢ্য ব্যক্তিরাই ঘুস, দুর্নীতি ও সুদের মধ্যে বাঁচতে ভালবাসে। তাদের দুয়ারে তৃষ্ণার্ত ভূখা-নাঙ্গা ভিখারি বা সাহয্যপ্রার্থী দেখলেই রেগে উঠে, তাড়িয়ে দেয়। অচিরেই লেলিহান শিখাযুক্ত আগুনের করাল গ্রাসের কথা সেসব সম্পদ জমাকারীদের মধ্যে কোন বোধদয় জাগ্রত করে না।

একদিকে ধর্মীয় দিকে বিরাট ফাঁকি, অন্যদিকে তথ্যবিভ্রাট ও প্রকাশিত তথ্যের পরিসাংখ্যিক ও বৈজ্ঞানিক দুর্বলতা আমাদের দেশের গবেষণার জন্য একটি বড় লুপহোল। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিসিএস)-এর জরিপের তথ্য-উপাত্ত নিয়ে সন্তুষ্ট নয় সরকারী-সেরকারী সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান । তাদের অভিযোগ চাহিদামতো বিবিএস-এর তথ্য পাওয়া যায় না। তারপরও বিভিন্ন সূত্রে যা পাওয়া যায় সেসব প্রদত্ত তথ্যের উপর অস্তুষ্ট ৫৯% উত্তরদাতা।

পরিকল্পনা উপমন্ত্রী বলেছেন, “তাঁর প্রশ্ন, উত্তরদাতার সংখ্যা নির্বাচন নিয়ে। তিনি বলেন, ভুটানের মতো সাড়ে সাত লাখ জনগোষ্ঠীর দেশে এই ধরনের জরিপে উত্তরদাতার সংখ্যা ৯৬০। বাংলাদেশ সাড়ে ১৭ কোটি জনগোষ্ঠীর দেশ হয়েও উত্তরদাতা নেওয়া হয়েছে মাত্র ৬০৯ জন। এর ব্যাখ্যা আমরা কীভাবে দেব?”

তাঁর এই প্রশ্ন তোলার প্রেক্ষাপটে বিবিএসের মহাপরিচালক মহোদয় বলেন, ‘মাননীয় মন্ত্রী ঠিকই বলেছেন। মূল প্রশ্ন হলো, এই স্যাম্পল সাইজ পুরো জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করছে কি না। যদি পেশাভিত্তিক সংখ্যা পাওয়া যেত, তাহলে অংশগ্রহণভিত্তিক স্যাম্পল পাওয়া যেত। ভবিষ্যতে এসব ঠিকঠাক করে জরিপ করা হবে। প্রথমবার বলে ভুলত্রুটি রয়ে গেছে।’

বিবিএস-এর জরিপ অনুযায়ী, ‘উত্তরদাতাদের সবচেয়ে বেশি অসন্তুষ্ট জাতীয় আয় শাখার তথ্য-উপাত্ত নিয়ে। আলোচিত পাঁচটি অসন্তুষ্টির সব কটিতেই অর্ধেক উত্তরদাতা এই শাখার তথ্য–উপাত্তে সন্তুষ্ট হতে পারেননি। বৈদেশিক বাণিজ্যসংক্রান্ত পরিসংখ্যান তথা তথ্য–উপাত্ত নিয়ে অর্ধেক উত্তরদাতা সন্তুষ্ট নন। স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাতের তথ্য–উপাত্তেও একই অবস্থা।’

অর্থ্যাৎ, বিবিএস-এর এই জরিপের তথ্য নিয়ে গণমানুষের চুলচেরা বিশ্লেষণের পূবেই কর্তৃপক্ষ নিজেরাই দোদূল্যমানতা প্রকাশ করেছেন। সমসাময়িক দেশের নিম্ন আয়ের মানুষের ক্রয়ক্ষমতা হারানো, বেকারত্ম, ভিক্ষুকদের বিপুলসংখ্যায় দ্বারে দ্বারে ঘুরে হাত পাতা ইত্যাদি পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে যা বলা যায় বাস্তবতা ও বিবিএস প্রকাশিত সেমিনারে কর্তৃপক্ষের জরিপ ফলাফলের তথ্যের মধ্যে অনেক ফাঁরাক।

এছাড়া গবেষণার জন্য যাচিত হলে পর্যাপ্ত তথ্য-–উপাত্ত দেওয়া হয় না; তথ্য-–উপাত্ত পুরোনো; প্রয়োজনীয় তথ্য থাকে না; আরও তথ্যের প্রয়োজন, তথ্যের উপস্থাপনা ব্যবহারযোগ্য নয় ইত্যাদি নানা অভিযোগ তো আছেই।
জনগণ সেটাই দেখেন, যা সংবাদ হয়ে প্রতিদিন তাদের চোখের সামনে ভেসে আসে। তার সাথে দরজার সামনে, রাস্তায়, বাজারে বা বাস্তবে কি পরিমাণ মিল বা অমিল সেটার সাথে জনগন তুলনা করেন।

অন্যান্য যা কিছু অর্জন থাক না কেন, বাজার দরের ক্রমাগত উল্লম্ফন ও ক্রয়ক্ষমতা হারানোর হতাশা এবং দান, ভিক্ষা, সাহায্য ইত্যাদি প্রাপ্তির আশায় অগণিত দরিদ্র, অসহায় ভিখারিদের সারিবদ্ধ চলাফেরা, মলিন চেহারার দলবল নিয়ে দরজায় কড়া নাড়া ইত্যাদির মধ্যে বিস্তর শুভঙ্করের ফাঁকি বিদ্যমান। তাই দারিদ্রসূচক খাতা-কলমে কমে গেছে কিন্তু বাস্তবতায় কবে কমবে সেটা সেমিনারে আশ্বাস দিতে পারলে হয়তো সেগুলোও আজকের লেখায় ফুটে ওঠানো যেত। কিন্তু সেটা সুদূর পরাহত মনে হচ্ছে। উন্নয়ন হলে বৈষম্য বাড়ে-এটা ভ্রান্ত ধারণা। কারণ, সুষম উন্নয়ন হলে মানুষে-মানুষে আয় ব্যয়ের বৈষম্য বাড়ে না। সামান্য যে প্রবৃদ্ধি হচ্ছে তাতে স্বল্প ও মধ্যম আয়ের মানুষ সুবিধা বঞ্চিত হচ্ছে।

সুতরাং বাস্তবতার নিরীখে বলা যায়, দারিদ্র্যসূচক কমেছে কিন্তু ভিখারি কমেনি বরং বেড়েছে।

*লেখক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের প্রফেসর ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সাবেক ডীন। E-mail: [email protected]

 

;