Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

ঘুষ না দেওয়ায় তিন লাখ টাকার ডিম রাস্তায় ফেলে দিলো পুলিশ!

ঘুষ না দেওয়ায় তিন লাখ টাকার ডিম রাস্তায় ফেলে দিলো পুলিশ!
ঘুষ না দেওয়ায় প্রায় তিন লাখ টাকার ডিম রাস্তায় ফেলে দিয়েছে পুলিশ, অভিযোগ ট্রাক চালকের, ছবি: সংগৃহীত
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
নাটোর


  • Font increase
  • Font Decrease

নাটোরের বড়াইগ্রামে ঘুষ না দেওয়ায় রশি কেটে পিকআপে থাকা পৌনে তিন লাখ টাকার ডিম রাস্তায় ফেলে দিয়েছে বনপাড়া হাইওয়ে থানা পুলিশ। এতে প্রায় সব ডিম ভেঙে নষ্ট হয়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) ভোরে বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কের আগ্রান সুতিরপাড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এতে ডিমের মালিক বিপ্লব কুমার সাহার পথে বসার উপক্রম হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা জানায়, বৃহস্পতিবার ভোররাতে একটি পিকআপ (ঢাকা মেট্টো ন- ১৭-৩৭৮০) ৩৫ হাজার একশ’ ডিম নিয়ে সিরাজগঞ্জের কামারখদ থেকে নাটোরে যাচ্ছিল। পথে বড়াইগ্রাম উপজেলার আগ্রান সূতিরপাড় এলাকায় পিকআপটির চাকা পাংচার হয়ে গেলে সেটি পাশের ফিডার রোডে নেমে যায়। খবর পেয়ে বনপাড়া হাইওয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে আসে। এ সময় পুলিশ সদস্যরা পিকআপ উদ্ধারের জন্য রেকার ভাড়াসহ ২০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করে। চালক এতে রাজি না হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশ সদস্যরা পিকআপে ডিমের খাঁচি বাঁধার রশি চাকু দিয়ে কেটে দেয়। এতে ডিমের খাঁচি রাস্তায় পড়ে অধিকাংশ ভেঙে নষ্ট হয়ে যায়।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, স্থানীয় মানুষ রাস্তায় পড়ে থাকা ভাঙাচোরা ডিম কুড়িয়ে নিচ্ছেন। রাস্তাজুড়ে ভাঙা ডিমের হলুদ কুসুম ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে। ট্রাকের চালক-হেলপার ভাঙা ডিম ফেলে প্লাস্টিকের খাঁচাগুলা সংগ্রহ করছেন। রাস্তায় যত্রতত্র কেটে ফেলা রশিগুলা পড়ে রয়েছে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় পুকুরের পাহারাদার শহীদুল ইসলাম ও আতাহার আলী জানান, চালক-হেলপার বারবার নিষেধ করা স্বত্ত্বেও পুলিশ পিকআপের রশিগুলা কেটে দিয়েছে। রশি না কাটলে ডিমগুলা নষ্ট হতো না। পুলিশ ডিমসহ পিকআপটি রেকারে করে থানায় নিয়ে গেলে এমনকি ক্ষতি হতো।

পিকআপের চালক সিরাজগঞ্জ সদরের মজনু মিয়া জানান, গাড়ির চাকা পাংচার হয়ে ফিডার রাস্তায় নেমে গেলেও কোনো ডিম পড়েনি। পুলিশের দাবি মতো ঘুষ না দেওয়ায় তারা রাগে ডিম বাঁধার রশিগুলো কেটে দেওয়ায় সব ডিম রাস্তায় পড়ে যায়।

ডিমের মালিক সিরাজগঞ্জের কামারখদ উপজেলার জামতৈল গ্রামের মেসার্স প্রীতিমণি এটারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী বিপ্লব কুমার সাহা বলেন, আমি চালকের মোবাইল দিয়ে কর্তব্যরত পুলিশ অফিসারের সঙ্গে কথা বলছি এবং রশি না কাটার জন্য হাতপায়ে ধরে অনুরোধ করেছি। তারা আমার কোনো কথাই শুনেনি।

বনপাড়া হাইওয় থানার ওসি আলিম হাসান শিকদার রশি কেটে ডিম ফেলে দেওয়ার বিষয়টি সঠিক নয় দাবী করে জানান, পিকআপটি কাত হয়ে ডিম পড়ে নষ্ট হয়ে গেছে। এ সময় রশিগুলার কাটা টুকরা রাস্তায় পড়ে থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেগুলো রেকারের লোকেরা কাটতে পারে।

আপনার মতামত লিখুন :

না.গঞ্জে আ.লীগ নেত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

না.গঞ্জে আ.লীগ নেত্রীকে কুপিয়ে হত্যা
বিউটি আক্তার কুট্টি। ছবি: সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার পশ্চিমগাঁও এলাকায় আওয়ামী লীগ নেত্রী ও কায়েতপাড়া ইউনিয়নের সংরক্ষিত ইউপি সদস্য বিউটি আক্তার কুট্টিকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

বুধবার (২৬ জুন) সকালে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বিউটি উপজেলার পশ্চিমগাঁও এলাকার মৃত হাসান মুহুরীর স্ত্রী। এছাড়া কায়েতপাড়া ইউনিয়নের ৭, ৮, ৯নং ওয়ার্ডের নারী ইউপি সদস্য ছিলেন তিনি।

জানা গেছে, সকালে বিউটি পশ্চিমগাঁও এলাকা দিয়ে হাঁটছিলেন। হঠাৎ তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে দুর্বৃত্তরা। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বৃষ্টি নেই আষাঢ়েও, বিপাকে পাট চাষিরা

বৃষ্টি নেই আষাঢ়েও, বিপাকে পাট চাষিরা
পানির অভাবে শুকিয়ে যাচ্ছে পাটগাছের মূল/ছবি: বার্তা২৪.কম

ধার-দেনা করে অন্যের জমি বর্গা নিয়ে পাট বুনেছিলাম (চাষ)। পাটের আবাদ ভালো হলে দাম ভালো পাব, অন্যের দেনা মিটিয়ে লাভ হবে এই আশায়। এখন বৃষ্টি না হওয়ায় পাটের আগা (মূল) শুকিয়ে যাচ্ছে, পাট গাছ বড় হচ্ছে না। আষাঢ় মাসের  ১০ দিন পার হলেও দেখা মিলছে না বৃষ্টির। এখন পাট নিয়ে মহাচিন্তায় আছি। কথাগুলো বলছিলেন সদর উপজেলার সিমানন্দপুর গ্রামের পাটচাষি ইশারত শেখ।

জানা গেছে, নড়াইলে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে পাটের আবাদ হলেও হাসি নেই কৃষকদের মুখে। পাট চাষ এখন কৃষকের গলার ফাঁস হয়ে দেখা দিয়েছে। জমিতে পানি না থাকায় মাটি ফেটে চৌচির হয়ে যাচ্ছে। হতাশ হয়ে পড়ছেন পাট চাষিরা। বেশি জমিতে পাটের আবাদ হলেও উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হওয়া নিয়ে সংশয়ে রয়েছে খোদ কৃষি বিভাগ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/26/1561525094563.jpg

সদর উপজেলার ফেদি গ্রামের তরিকুল ইসলাম বলেন, গত বছর পাটের দাম ভালো পাওয়ায় এ বছর আরও বেশি জমিতে পাটের আবাদ করা হয়েছে। কিন্তু এখন জমিতে পানির খুব প্রয়োজন হলেও বৃষ্টি হচ্ছে না। বৃষ্টি না হওয়ার কারণে পাটের আগা শুকিয়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

লোহাগড়া উপজেলার পদ্মবিলা গ্রামের রতন বিশ্বাস বলেন, আষাঢ়-শ্রাবণ মাস বৃষ্টির সময় হলেও এ বছর বৃষ্টি হচ্ছে না। বৃষ্টির পানি না পাওয়ার কারণে পাট বড় হচ্ছে না। পাট যতটুকু বড় হয়েছে কেটে যে জাগ (পানিতে পচানো) দেব সে পানিও খাল-বিলে নেই।

কালিয়া উপজেলার পুরুলিয়া এলাকার আবির হোসেন বলেন, আষাঢ় মাষেও বৃষ্টি হচ্ছে না এমন অবস্থা আর কয়েকদিন চলতে থাকলে জমিতেই পাটগাছ শুকিয়ে নষ্ট হয়ে যাবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/26/1561525112220.jpg

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক চিন্ময় রায় বলেন, বিগত সময়ে পাটের নায্য মূল্য পাওয়ায় কৃষকরা পাট চাষে আগ্রহী হয়েছে। চলতি মৌসুমে জেলায় পাট আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২০ হাজার ৬১০ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে ২০ হাজার ৯৫০ হেক্টর জমিতে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩৪০ হেক্টর বেশি জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, পাটের জমিতে পানি না পাওয়ায় পাটগাছ ঠিকমত বৃদ্ধি পাচ্ছে না। এই মুহূর্তে পাটের জমিতে পানির খুবই প্রয়োজন। পানি না পেলে পাটের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা করছেন এই কৃষিবিদ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র