Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

সাধারণ বিমা করপোরেশনে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বিমা

সাধারণ বিমা করপোরেশনে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বিমা
ছবি: সংগৃহীত
মাহফুজুল ইসলাম
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

প্রথমবারের মত সাধারণ বিমা করপোরেশনের সঙ্গে ঝুঁকি কমাতে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর ‘ইন অরবিট’ (কক্ষ পথ) বিমা করছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। এই বিমার প্রিমিয়াম ধরা হয়েছে ৬ লাখ ৮১ হাজার ৩১৮ দশমিক ১৯ ইউরো, যা বাংলাদেশি দেশি টাকায় ৬ কোটি ৪৭ লাখ ২৫ হাজার ২২৮ দশমিক ৫ টাকা। সাধারণ বিমা করপোরেশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বছরের ১১ জুলাই থেকে ২০২০ সালের ১০ জুলাই পর্যন্ত এক বছরের জন্য ফ্রান্সের কোম্পানি থ্যালাস অ্যালেনিয়াকে বাদ দিয়ে দেশি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে করা হচ্ছে। এতে দেশের সম্পদ দেশেই থাকছে বলে মনে করেন বিমা সংশ্লিষ্টরা।

সূত্র মতে, ১০ জুলাই ২০১৯ তারিখ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বিমা চুক্তি শেষ। আর ১১ জুলাই থেকে সেই বিমা সাধারণ বিমা করপোরেশনের সঙ্গে চুক্তি বন্ধ হয়েছে। আগামী এক বছরের জন্য বিটিআরসিকে বিমা বাবদ ৬ লাখ ৮১ হাজার ৩১৮ দশমিক ১৯ ইউরো। এর মধ্যে শুধু প্রিমিয়াম বাবদ দিতে হবে ৫ লাখ ৯২ হাজার ৪৫০ দশমিক ৬০ ইউরো। যা টাকার অংকে ৫ কোটি ৬২ লাখ ৮২ হাজার ৮০৭ টাকা। তার সঙ্গে ভ্যাট দিতে হবে ৮৮ হাজার ৮৯৭ দশমিক ৫৯ ইউরো, যা টাকার অংকে ৮৪ লাখ ৪২ হাজার ৪১১ টাকা।

সার্বিক বিষয়ে সাধারণ বিমা করপোরেশনের ডেপুাটি জেনারেল ম্যানেজার (পুনঃবিমা) জাকির হোসেন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, অনেক চেষ্টার পর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বিমা সাধারণ বিমা করপোরেশের সঙ্গে হচ্ছে। দেশের সম্পদ দেশে রাখতেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তাতে দেশের বিমার প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থা বাড়বে। সাধারণ বিমা করপোরেশেনে দেশি বিমা কোম্পানির পাশাপাশি বিদেশি কোম্পানিগুলো বিমাগুলো বিমা করতে উৎসাহিত হবে।

তিনি বলেন, বিটিআরসি দায়িত্বে থাকা পরিচালক রিয়াজ-উল-কাদেরও আমাদের অনেক সহযোগিতা করেছেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে প্রথম স্যাটেলাইট নিয়ে কাজ শুরু হয় ২০০৭ সালে। সে সময় মহাকাশের ১০২ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশে কক্ষপথ বরাদ্দ চেয়ে জাতিসংঘের অধীন সংস্থা আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নে (আইটিইউ) আবেদন করে বাংলাদেশ। কিন্তু বাংলাদেশের ওই আবেদনের ওপর ২০টি দেশ আপত্তি জানায়।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ নির্মাণ চুক্তি: ২০১৫ সালের ১১ নভেম্বর ফ্রান্সের থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেসের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ নির্মাণের চুক্তি স্বাক্ষর করে বাংলাদেশ।

অর্থায়ন: বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট খরচ হচ্ছে ২ হাজার ৭৬৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে ১ হাজার ৩৫৮ কোটি টাকা ঋণ হিসেবে দিচ্ছে বহুজাতিক ব্যাংক এইচএসবিসি।

নির্মাণ: বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটটি নির্মাণ করেছে ‘থ্যালাস অ্যালেনিয়া’ নামের প্রতিষ্ঠানটি। স্যাটেলাইটের কাঠামো তৈরি, উৎক্ষেপণ, ভূমি ও মহাকাশের নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা, ভূ-স্তরে দুটি স্টেশন পরিচালনার দায়িত্ব এ প্রতিষ্ঠানটির।

কেনা হয় কক্ষপথ: স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ এবং তা কক্ষপথে রাখার জন্য রাশিয়ার ইন্টারস্পুটনিকের কাছ থেকে কক্ষপথ (অরবিটাল স্লট) কেনা হয়। মহাকাশে এই কক্ষপথের অবস্থান ১১৯ দশমিক ১ পূর্ব দ্রাঘিমাংশে। ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে সম্পাদিত চুক্তির ভিত্তিতে প্রায় ২১৯ কোটি টাকায় ১৫ বছরের জন্য এই কক্ষপথ কেনা হয়।

জিও-স্টেশনারি স্যাটেলাইট: ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’ কৃত্রিম উপগ্রহটি একটি জিও-স্টেশনারি স্যাটেলাইট বা ভূস্থির উপগ্রহ। এতে মোট ৪০টি ট্রান্সপন্ডার থাকবে। এর মধ্যে ২০টি ট্রান্সপন্ডার বাংলাদেশের ব্যবহারের জন্য রাখা হবে। বাকি ২০টি বিদেশি কোনো প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রির জন্য।

বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট কোম্পানি: মহাকাশে উৎক্ষেপণের পর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ পরিচালনার জন্য ‘বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড’ নামে একটি কোম্পানি গঠন করা হয়েছে।

উৎক্ষেপণকারী প্রতিষ্ঠান ও উৎক্ষেপণকারী রকেট: বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ নির্মাণ করে এ বছরের ৩০ মার্চ একটি বিশেষ উড়োজাহাজে উৎক্ষেপণকারী প্রতিষ্ঠানের কাছে পৌঁছে দেয় থ্যালাম অ্যালেনিয়া স্পেস। মার্কিন রকেট নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্স এই স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করবে। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরালে কেনেডি স্পেস সেন্টারে স্পেসএক্সের লঞ্চ প্যাড থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ নিয়ে উড়বে ‘ফ্যালকন নাইন’ রকেট।

বাংলাদেশে গ্রাউন্ড স্টেশন: বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের পর এর নিয়ন্ত্রণ নিতে গাজীপুরের তেলীপাড়া ও রাঙামাটির বেতবুনিয়ায় গ্রাউন্ড স্টেশন প্রস্তুত করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

বিনিয়োগকারীদের পুঁজি নেই আরও ৮ হাজার কোটি টাকা

বিনিয়োগকারীদের পুঁজি নেই আরও ৮ হাজার কোটি টাকা
ছবি: সংগৃহীত

বেশির ভাগ দিন দরপতনের মধ্য দিয়ে নতুন আরও এক সপ্তাহ পার করল দেশের পুঁজিবাজার। আলোচিত সপ্তাহে (১৪ জুলাই থেকে ১৮ জুলাই) তিন দিন সূচকের উত্থান আর দু’দিন পতন হয়েছে।

ফলে দুই পুঁজিবাজারেই সূচক লেনদেন ও বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে। আর তাতে নতুন করে বিনিয়োগকারীদের পুঁজি অর্থাৎ বাজার মূলধনও কমেছে প্রায় আট হাজার কোটি টাকা।

এর মধ্যে প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বিনিয়োগকারীদের পুঁজি কমেছে চার হাজার ৩২৭ কোটি ৪৩ লাখ আট হাজার ৫৩১ টাকা। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) বিনিয়োগকারীদের মূলধন কমেছে তিন হাজার ৬১৬ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

এর আগের সপ্তাহের টানা পাঁচ দিন সূচক পতনের মধ্য দিয়ে লেনদেন হয়েছিল। সেই সময় বিনিয়োগকারীদের মূলধন কমেছিল সাড়ে ২১ হাজার কোটি টাকা।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পুঁজিবাজার ভালো হবে, বিনিয়োগকারীদের এ প্রত্যাশার ছিটেফোঁটাও পূরণ হচ্ছে না। বরং ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাজেট পাসের পর থেকে আবার নগদ লভ্যাংশ দেওয়ার পরিবর্তে কোম্পানিগুলো আগামীতে ‘নো ডিভিডেন্ট’ ঘোষণা করবে—এমন গুজব ও ব্যাংক এবং আর্থিক খাতের দূরাবস্থার খবরে হতাশা বিরাজ করছে পুঁজিবাজারে।

পাশাপাশি সুশাসনের অভাবে বাজারে পুঁজিবাজারে দরপতন অব্যাহত রয়েছে বলেও অভিযোগ বিনিয়োগকারীদের। এছাড়াও গ্রামীণফোনের দেনা-পাওনা নিয়ে বিটিআরসির সঙ্গে দ্বন্দ্ব এবং পিপলস লিজিং কোম্পানির অবসায়ন ঘোষণায় নতুন করে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা ও তারল্য সঙ্কট তৈরি হয়েছে। পুঁজি ফিরে পাওয়ার পরিবর্তে নতুন করে পৌনে ২৭ লাখ বিনিয়োগকারীদের প্রায় আট হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

ফলে নতুন করে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে। নতুন করে সৃষ্ট দরপতনের ফলে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের হাহাকার বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই তারা দরপতনের প্রতিবাদে সপ্তাহ জুড়ে মতিঝিলের রাস্তায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর দফতরে ১৫ দফার একটি স্মারকলিপিও দিয়েছে।

বিদায়ী সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের সপ্তাহের চেয়ে ৯১ পয়েন্ট কমে পাঁচ হাজার ১৩০ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএস-৩০ সূচক ২৮ পয়েন্ট কমে এক হাজার ৮২৯ পয়েন্ট এবং ডিএসইএস সূচক কমে ১৮ পয়েন্ট কমে এক হাজার ১৭৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে ৬৬ কোম্পানির শেয়ারের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে, কমেছে ২৭৩টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৫টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ৬০টির, কমেছে ২৮১টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৩ কোম্পানির শেয়ারের দাম।

সূচক ও বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম কমার পাশাপাশি বিদায়ী সপ্তাহের চেয়ে লেনদেন ৪৬৭ কোটি টাকা কমেছে। গত সপ্তাহে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে এক হাজার ৬৩৬ কোটি ৭৭ লাখ ২৮ হাজার ৭৯৬ টাকা। এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল দুই হাজার ১১২ কোটি ৮৭ লাখ ৫৪ হাজার ৩৮ টাকা।

সিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৬৯টির, কমেছে ২৩৪টির, আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১১ কোম্পানির শেয়ারের দাম। তাতে সিএসইর প্রধান সূচক ২৪৮ পয়েন্ট কমে ১৫ হাজার ৭২৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর তাতে গত সপ্তাহে লেনদেন হয়েছে ৮৯ কোটি ৪৭ লাখ ১৫ হাজার ৯৫২ টাকা।

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না বিমা কোম্পানি

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না বিমা কোম্পানি
ছবি: সংগৃহীত

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না সাধারণ বিমা কোম্পানিগুলো।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) নন-লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির চেয়ারম্যান ও মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তরা বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের বৈঠকে (আইডিআরএ) অঙ্গীকার করেছেন।

আইডিআরএ চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান পাটোয়ারির সভাপতিত্বে বৈঠকে আইডিআরএ’র সদস্য, পরিচালক এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্সে অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট শেখ কবির হোসেনসহ কোম্পানির চেয়ারম্যান, এমডি এবং মুখ্য নির্বাহীরা ১৫ শতাংশের অধিক কমিশন বন্ধে দৃঢ় প্রত্যয় এবং কর্তপক্ষের সার্কুলারের সাথে পূর্ণ সমর্থন ব্যক্ত করেছেন।

সভায় শেখ কবির হোসেন আইডিআরএ’র নির্দেশনা যথাযথভাবে বাস্তবায়নের জন্য বিমা কোম্পানিগুলোর চেয়ারম্যান ও নির্বাহীদের আন্তরিকতা প্রদর্শনে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘এখন থেকে কোনো নন-লাইফ বিমাকারী ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন প্রদান করে ব্যবসা করবে না।’

সভায় আইডিআরএ চেয়ারম্যান বলেন, ‘সকলের এ কার‌্যকর এবং সম্মিলিত উদ্যোগের ফলে বিমা শৃঙ্খলা ও সুষ্ঠুবাজার ব্যবস্থা গড়ে উঠবে।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র