নির্বাচনে জোট গঠনের বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
জিএম কাদের

জিএম কাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, নির্বাচনে জোট গঠনের এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। আমাদের নির্বাচনে যাওয়া না যাওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এটার ওপর আমাদের ভবিষ্যৎ রাজনীতির অস্তিত্ব নির্ভর করছে। তাই তৃণমূল থেকে দলের উচ্চপর্যায়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সোমবার (৩ অক্টোবর) দুপুরে রংপুর সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা বলেন।

জিএম কাদের বলেন, যেজন্য আওয়ামী লীগ সরকারকে সমর্থন দেওয়া হয়েছিল তার বাস্তব প্রতিফলন ঘটেনি। এ সরকার ক্ষমতায় এসে যা করছে তা বিএনপির চেয়ে এক ডিগ্রি বেশি। আমরা এর পরিবর্তন চাই।

বিএনপির সঙ্গে আওয়ামী লীগের নীতিগত পার্থক্য থাকলেও তাদের কর্মকাণ্ড এক উল্লেখ করে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, দেশের মানুষ সামাজিক নিরাপত্তা চায়। দেশের মানুষ খুন-ধর্ষণ-লুটপাট থেকে উদ্ধার চায়। আমরা আমাদের নিজস্ব রাজনীতি এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। দেশের মানুষের সুস্থ রাজনীতি উপহার দিতে চাই।

দেশের সার্বিক পরিস্থিতি অত্যন্ত নাজুক উল্লেখ করে জিএম কাদের বলেন, দেশে রাজনৈতিক পরিস্থিতি অস্থিতিশীল। সামনে নির্বাচন। কিন্তু আমরা এখন পর্যন্ত কিছুই বুঝতে পারছি না। নির্বাচনে সব দল অংশ নেবে কি না, নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হবে কি না তা বুঝতে পারছি না।’

জাতীয় পার্টিতে ভাঙনের বিষয়ে জিএম কাদের বলেন, একটা দলে থাকলে অনেকেই নির্বাচন করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। এরমধ্য থেকে আমরা একজনকে বেছে নেই। রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে।’
এসময় আসন্ন রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে রংপুরে জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী বর্তমান মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলে ঘোষণা দেন তিনি।

পাঁচ দিনের সফরে ঢাকা থেকে দুপুর ১২টায় সৈয়দপুর বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান জিএম কাদের। পড়ে সড়কপথে রংপুর সার্কিট হাউজে পৌঁছালে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান নেতাকর্মীরা।

এ সময় জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, রংপুর জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল মাসুদ নান্টু, সদস্য সচিব আব্দুর রাজ্জাক, মহানগর জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক এসএম ইয়াসীরসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

পরে নেতাকর্মীদের নিয়ে দর্শনায় পল্লীনিবাসে জাতীয় পার্টির প্রয়াত চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের কবর জিয়ারত করেন তিনি। এরপর বিকেলে জেলা জাতীয় পার্টি কার্যালয়ে নেতকর্মীদের সাথে মতবিনিময় শেষে রংপুর নগরীর বিভিন্ন পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করবেন।

লক্ষ্মীপুরে যুবলীগের শীতবস্ত্র বিতরণ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, লক্ষ্মীপুর
লক্ষ্মীপুরে যুবলীগের শীতবস্ত্র বিতরণ

লক্ষ্মীপুরে যুবলীগের শীতবস্ত্র বিতরণ

  • Font increase
  • Font Decrease

শেখ ফজলুল হক মণির ৮৪তম জন্মদিন উপলক্ষে লক্ষ্মীপুরে এতিম ও দুস্থ ৫'শ মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছে যুবলীগ।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে শহরের ক্বারি ওছিম উদ্দিন এবতেদায়ী মাদ্রাসা ও এতিম খানা মাঠে অসহায়-দুস্থ শীতবস্ত্র দেয় জেলা যুবলীগের সাবেক যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক বায়েজিদ ভুঁইয়া। পরে কোরআন খতম, দোয়া মাহফিল ও তবারক বিতরণ করা হয়।
যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ, সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের নির্দেশে ৩ দিনব্যাপী এই কর্মসূচি হাতে নিয়েছে এ যুবলীগ নেতা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- সদর থানা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক রেজাউল করিম জেনি, যুবলীগ নেতা সোহাগ পাটওয়ারী, গোফরান বাবু, সদর থানা ছাত্রলীগের আহবায়ক রুবেল আহমেদ রাজু, যুবলীগ নেতা দিপু মাহমুদ, রাজুসহ অনেকে।

বায়েজিদ ভুইয়া বলেন, বর্তমান যুবলীগের অন্যতম লক্ষ্য রাষ্ট্রের মানবিক ধারাকে গতিশীল করতে নেতৃত্ব দেওয়া এবং ষড়যন্ত্রকারী ও প্রতিবিপ্লবীদের প্রতিহত করে মানুষের সুখে-দুঃখে সহমর্মী হওয়া। এ লক্ষ্যে যুবলীগ এরই মধ্যে অনেক মানবিক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে ‘মানবিক যুবলীগ’-এ পরিণত হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে আমরা তৃণমূল নেতাকর্মীরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে লক্ষ্মীপুরে তিন দিনের নানা আয়োজন করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এছাড়া শহরের আমজাদ পাটওয়ারী উচ্চ বিদ্যালয়ে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান,আলোচনা সভা ও বই বিতরন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে শতাধিক শিক্ষার্থী ও শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

;

১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপি পাকিস্তানিদের মতোই আত্মসমর্পণ করবে: তথ্যমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপি পাকিস্তানিদের মতোই আত্মসমর্পণ করবে: তথ্যমন্ত্রী

১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপি পাকিস্তানিদের মতোই আত্মসমর্পণ করবে: তথ্যমন্ত্রী

  • Font increase
  • Font Decrease

 

১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপি পাকিস্তানিদের মতোই আত্মসমর্পণ করবে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, বিজয়ের মাস ডিসেম্বরের ১৬ তারিখ ঢাকায় পাকিস্তানিরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে, তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে আত্মসমর্পণ করেছিল। আর এই ১০ তারিখেও বিএনপি ও অগ্নিসন্ত্রাসীরা ঢাকার বুকে আত্মসমর্পণ করবে, যেইভাবে পাকিস্তানিরা আত্মসমর্পণ করেছিল।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একাত্তর সালের ৭ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যান থেকেই স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন। সেই জন্য এই ময়দান বিএনপির পছন্দ না। তারা ঢাকা শহরে গন্ডগোল করতে চায়।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রামের পলোগ্রাউন্ডে চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের প্রাক্কালে দেয়া বক্তৃতায় তথ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী সভায় সভাপতিত্ব করেন।

ড. হাছান বলেন, আজকে সমগ্র চট্টগ্রাম শহরে মানুষের ঢেউ জেগেছে। সমুদ্রপাড়ের চট্টগ্রামের সাথে যেন জনতার ঢেউ একাকার হয়ে গেছে। আর পলোগ্রাউন্ডে রঙবেরঙের বর্ণিল ছটা যেন আজকে রংধনুর ছটায় পরিণত হয়েছে। এই জনসভায় যত না মানুষ তার চেয়ে আট-দশগুণ, লক্ষ লক্ষ মানুষ সভাস্থলের বাইরে অবস্থান করছে।

তিনি বলেন, গত ১৪ বছরে বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার যাদুকরী নেতৃত্বে এই চট্টগ্রাম বদলে গেছে। ক'দিন পরেই আমাদের নেত্রী দক্ষিণ এশিয়ায় নদীর তলদেশে প্রথম রোড টানেল উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে তিনি ভৌত কাজের সমাপ্তি ঘোষণা করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে চট্টগ্রামের উন্নয়ন তুলে ধরে তথ্যমন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রাম আজকে বদলে গেছে। 'বে টার্মিনাল' করে চট্টগ্রাম বন্দরের দ্বিগুণ আরেকটি বন্দর নির্মিত হতে যাচ্ছে। কুতুবদিয়ায় গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ হয়ে গেছে। কদিন আগে প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন চট্টগ্রামে মেট্রোরেল হবে, পাতাল দিয়ে রেল চলবে। গত ১৪ বছরে লক্ষ কোটি টাকার বেশি উন্নয়ন কর্মকান্ড এই চট্টগ্রামে হয়েছে। আগামী কিছুদিনের মধ্যে আরো লক্ষ কোটি টাকার উন্নয়ন এই চট্টগ্রামে হবে। সীতাকুণ্ড-মিরসরাই নিয়ে বঙ্গবন্ধু শিল্পনগর ও অর্থনৈতিক অঞ্চল হতে যাচ্ছে, সেটি আরেকটি চট্টগ্রাম শহর হতে যাচ্ছে।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, চট্টগ্রাম বদলে গেছে, বাংলাদেশ বদলে গেছে। আজকে খালি পায়ে মানুষ দেখা যায়না, ছেঁড়া কাপড় পড়া মানুষ দেখা যায় না। আকাশ থেকেও কুঁড়েঘর খুঁজে পাওয়া যায় না। এটি কোন যাদুর কারণে হয়নি, জননেত্রী শেখ হাসিনার যাদুকরী নেতৃত্বের কারণে হয়েছে। বিএনপি আর তার দোসরদের এগুলো ভালো লাগে না।

;

বিএনপির ১০ ডিসেম্বর খুব প্রিয় তারিখ: প্রধানমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, আগামী ১০ ডিসেম্বর বিএনপি নাকি ঢাকা দখল করবে, সরকারকে উৎখাত করবে। ১০ ডিসেম্বর বিএনপির খুব প্রিয় একটা তারিখ। ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আমাদের মুক্তি বাহিনী ও মিত্র বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল। আত্মসমর্পণের আগে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বুদ্ধিজীবী হত্যা শুরু করে। ১০ ডিসেম্বর ইত্তেফাকের সাংবাদিক সিরাজ উদ্দিন হোসেনকে তুলে নিয়ে যায়। এ রকম বহু জনকে তারা তুলে নিয়ে যায়। এই ১০ ডিসেম্মবর থেকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বুদ্ধিজীবী হত্যা শুরু করেছিল। বাংলাদেশে আত্মসমর্পণ করতে হবে জেনে, এই দেশ যেন সামনে এগিয়ে চলতে না পারে সে কথা মাথায় রেখেই তারা এ ঘটনা ঘটায়।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) বিকেলে চট্টগ্রামের পোলো গ্রাউন্ডে আয়োজিত জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে বলতে হয়, সেই ১০ ডিসেম্বর বিএনপির খুব প্রিয় একটা তারিখ। বোধ হয় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর পদলেহনের দোসর ছিল বলেই ১০ ডিসেম্বর তারা ঢাকা শহর নাকি দখল করবে। আর আওয়ামী লীগ সরকারকে উৎখাত করবে। আমি তাদের বলে দিতে চাই, খালেদা জিয়া ৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি জনগণের ভোট চুরি করে ক্ষমতায় এসেছিল। আর ভোট চুরি করে ক্ষমতায় এসেছিল বলেই তাকে বাংলাদেশের মানুষ মেনে নেয়নি। সারা বাংলাদেশ ফুঁসে উঠেছিল। জনতার মঞ্চ করেছিলাম আমরা। খালেদা জিয়া বাধ্য হয়েছিল পদত্যাগ করতে। দেড় মাসও যায়নি, খালেদা জিয়া পদত্যাগে বাধ্য হয়েছিল। সে কথা বিএনপির মনে রাখা উচিত। জনগণের ভোট যদি কেউ চুরি করে বাংলাদেশের মানুষ তা মেনে নেয় না। ওরা তা ভুলে গেছে।

তিনি বলেন, ওরা ভোটে যেতে চায় না। জিয়াউর রহমান যেমন জাতির পিতাকে হত্যা করে, সংবিধান লঙ্ঘন করে, সেনা আইন লঙ্ঘন করে ক্ষমতা দখল করেছিল। ওদের ধারণা ওই ভাবেই তারা ক্ষমতায় যাবে। গণতান্ত্রিক ধারা তারা পছন্দ করে না। আজকে গণতান্ত্রিক ধারা আছে বলেই তো বাংলাদেশের উন্নয়ন হয়েছে। দীর্ঘ দিন গণতান্ত্রিক আছে বলেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আজকে আপনাদের কাছে এই বিজয়ের মাসে আমি উপহার নিয়ে এসেছি। কিছুক্ষণ আগে ২৯টি প্রকল্পের উদ্বোধন, ৬টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেছি। বিজয়ের মাসে চট্টলাবাসীর জন্য আমার উপহার।

;

যুবদল সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন আটক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
যুবদল সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন আটক

যুবদল সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন আটক

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপির রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশ থেকে ফেরার পথে জাতীয়তাবাদী যুবদলের সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিনকে (টুকু) আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) রাতে রাজধানীর আমিন বাজার এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিএনপি। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে যুবদল সভাপতির আটকের বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার বলেন, সুলতান সালাউদ্দিনের সঙ্গে থাকা তার একান্ত সহকারী মোখলেসুর রহমান, যুবদলের সহসভাপতি নুরুল ইসলাম ও ছাত্রদলের সাবেক সহসভাপতি জাভেদ হাসানকে আটক করেছে পুলিশ।

যুবদল সভাপতিকে আটকের নিন্দা জানিয়ে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, বিএনপির ১০ ডিসেম্বরের গণসমাবেশ কেন্দ্র করে সরকার অত্যাচার চালাচ্ছে। অবিচার এমন পর্যায়ে চলে গেছে, এর থেকে মুক্ত করতে প্রয়োজন গণ–অভ্যুত্থান।

;