পদ্মা সেতু: শেখ হাসিনার সাহসিকতার ‘সোনার ফসল’

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার



সোহেল মিয়া, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
পদ্মা সেতু: শেখ হাসিনার সাহসিকতার ‘সোনার ফসল’

পদ্মা সেতু: শেখ হাসিনার সাহসিকতার ‘সোনার ফসল’

  • Font increase
  • Font Decrease

একদিকে খরস্রোতা পদ্মা আগ্রাসী আচরণ। অন্যদিকে আত্মবিশ্বাসে চির ধরার মতো নানা সমালোচনা-কটুবাক্য, মিথ্যাচার। আর এসবের উপর দাঁড়িয়ে একটি আত্মবিশ্বাসী কণ্ঠের দৃঢ় স্বর ‘নিজস্ব অর্থেই আমরা পদ্মা সেতু নির্মাণ করব’। সেই দৃঢ় প্রতিজ্ঞায় প্রমত্তা পদ্মায় লেখা হলো সাহসিকতা মহাকাব্য- নির্মাণ হলো স্বপ্নের পদ্মা সেতু। আর এই সাহসিকতা ধারক, স্বপ্নের বাহক তিনি একজনই- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কেউ বলেছিল প্রমত্তা পদ্মায় সেতু সম্ভব নয়। কারো চেষ্টা ছিল পদ্মা সেতু যেন আওয়ামী লীগের শাসনামলে না হয়। এরপর কত গুজব সৃষ্টি, ষড়যন্ত্র হলো। কিন্তু শেখ হাসিনার চ্যালেঞ্জ এবং সাহসী ঘোষণায় কোন কিছুই পদ্মা সেতু নির্মাণে বাধা হতে পারেনি। এখন শুধু সরকার বা কোন দল নয়- পুরো দেশ, গোটা জাতির গর্বের বিষয় পদ্মা সেতু।


আসলে সমালোচনাকারী ও ষড়যন্ত্রকারী বুঝতে পারেনি বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আত্মবিশ্বাস পাহাড় সমান। ঠুনকো সমালোচনা করে শেখ হাসিনাকে দমিয়ে রাখা সম্ভব নয়। শত বাধা-বিপত্তি আর প্রতিকূলতার মুখোমুখি হয়েও দৃঢ় সাহসিকতার সাথে নিজেকে অটল রেখেছিলেন পদ্মা সেতু নির্মাণে। সব কিছু ভেদ করে এখন বিজয়ের হাতছানি দিচ্ছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু। বিশ্বকে জানান দেওয়া হচ্ছে বাঙলির সক্ষমতা ও সমার্থ্যের কথা। বাঙালি জাতি মাথা নত করার নয় সেটা আবারও পদ্মা সেতু নির্মাণের মাধ্যমে প্রমাণ করে দিলেন দেশরত্ন শেখ হাসিনা।

দুর্নীতি চেষ্টার ভিত্তিহীন অভিযোগ এনে বিশ্বব্যাংকের মুখ ফিরিয়ে নেওয়া, রাজনৈতিক মতভেদ, গুজব, প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ নানা প্রতিবন্ধকতা জয় করে প্রমত্তা পদ্মার বুকে এখন মাথা উচুঁ করে সগৌরবে দাঁড়িয়ে রয়েছে দেশের ইতিহাসের দীর্ঘতম সেতু। সক্ষমতার এই সেতু বলে দেয় শেখ হাসিনা যোগ্য পিতার যোগ্য কন্যা। পদ্মা সেতু শেখ হাসিনার অসীম সাহসের সোনালী ফসল। আর বাঙালির আত্মসম্মান আর আত্মগৌরবের প্রতীক। পদ্মা সেতু বাংলাদেশের হার না মানার গল্প। বাঙালির আত্মগৌরবের এই সেতু দিয়ে যান চলাচল করতে আর মাত্র দুই দিন।

 


৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটারের দীর্ঘ এই পদ্মা সেতু নির্মাণ করে শেখ হাসিনা তার সম্মান ও জনপ্রিয়তা বহুগুণে বাড়িয়েছেন। সেতুর উদ্বোধনকে ঘিরে এখন দেশে চলছে আনন্দের বন্যা। দেশ জুড়ে চলছে উৎসব। কারো সন্তান হলে নাম রাখছেন পদ্মা সেতু। এমনকি উদ্বোধনের উৎসবকে ঘিরে অনেকে বিয়েও সেরে নিচ্ছেন।

এদিকে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে খুবই জমকালো। সারা দেশের মানুষ যাতে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেখতে পারেন সেজন্য দেশের প্রতিটি জেলায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেখানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

১২ জুন (রোববার) সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, পদ্মা সেতু বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার অসীম সাহসের সোনালী ফসল। শেখ হাসিনা এই সেতু নির্মাণ করে বিশ্বকে জানিয়ে দিলেন বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ কখনো দুর্নীতি করে না। এই সেতু আমাদের সামর্থ্য ও সক্ষমতার সেতু। এই সেতু একদিকে সম্মান ও মর্যাদার প্রতীক, অন্যদিকে আমাদের যে অপমান করা হয়েছে তার প্রতিশোধের সেতু।

পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে গিয়ে শেখ হাসিনা একটি গোষ্ঠীর শত্রুতে পরিণত হয়েছিলেন। এ প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, এ সেতুর জন্য শুধু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেই নয়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গোটা পরিবারকে টার্গেট করা হয়েছিল। কিন্তু শত্রুদের সেই টার্গেট বিফলে গিয়েছে। ওরা বুঝেছে বঙ্গবন্ধুর পরিবার কখনো অন্যায়ের সাথে আপোষ করে না। আর দুর্নীতির তো  কোন প্রশ্নই আসে না।


তবে পদ্মা সেতু নির্মাণে শেখ হাসিনা শুধু সমালোচনা সহ্য করতে হয়নি, লড়তে হয়েছে দেশের আর্থিক অবস্থা ও পদ্মার আগ্রাসী মনোভাবের সঙ্গেও। এটি নির্মাণে দু’টো বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয়েছে। প্রথম চ্যালেঞ্জ দেশের অভ্যন্তরীণ সম্পদ থেকে পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য অর্থ সংগ্রহ করা। এ লক্ষ্যে জাতীয় বাজেটে সম্পদ বৃদ্ধির জন্য করারোপ এবং অনেক নতুন খাতকে ভ্যাটের আওতাভুক্ত করা হয়। এক্ষেত্রে সরকারকে বিশেষভাবে বিবেচনা রাখতে হয়েছে যাতে শিল্পায়ন বাধাগ্রস্ত না হয়।

আগামী ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মহেন্দ্রক্ষণ। ওই দিন সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর দ্বার উন্মোচন করবেন। ৬.১৫ কিমির এই সেতুর মোট নির্মাণ ব্যয় ৩০ হাজার ১৯৩.৩৯ কোটি টাকা। এসব খরচের মধ্যে রয়েছে সেতুর অবকাঠামো নির্মাণ, নদীশাসন, সংযোগ সড়ক নির্মাণ, তিনটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের জন্য ব্যয় অধিগ্রহণকৃত ৯১৮ হেক্টর ভূমির মূল্য পরিশোধ, ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন, পরিবেশ সংরক্ষণ এবং সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা। বাংলাদেশ সরকারের অর্থ বিভাগ- সেতু ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সেতু বিভাগকে বার্ষিক ১% সুদে ৩৫ বছরে পরিশোধের শর্তে ২৯ হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা ঋণ প্রদান করে।

পদ্মা সেতু নির্মাণে গোটা পৃথিবীতে বাংলাদেশের মর্যাদা বৃদ্ধি পেয়েছে নিঃসন্দেহে। বাংলাদেশকে এখন আর অবহেলা, তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করার সুযোগ নেই। তেমনি শেখ হাসিনার রাষ্ট্রনায়কোচিত প্রজ্ঞা, দেশপ্রেম, সততা এবং সিদ্ধান্তগ্রহণ ও বাস্তবায়নে পারঙ্গমতার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করছে বিশ্ববাসী। সেই সঙ্গে পদ্মা সেতু নির্মাণে দেশের উন্নয়নের নতুন দিগন্ত উন্মোচন হচ্ছে বলেও ধারণা করছেন অর্থনীতিবিদরা।  

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

আলম ও রহিম হত্যা, ভোলায় বিএনপির বিক্ষোভ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ভোলা
আলম ও রহিম হত্যা, ভোলায় বিএনপির বিক্ষোভ

আলম ও রহিম হত্যা, ভোলায় বিএনপির বিক্ষোভ

  • Font increase
  • Font Decrease

ভোলা জেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম নবী আলমগীর বলেছেন, শোকের মাস আগস্ট এলেই বিএনপি মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে আওয়ামী লীগের এ বক্তব্য একেবারে অসত্য। বরং শোকের মাসে আওয়ামী লীগ সরকারের পুলিশ বিএনপি'র ২ জন নেতাকে হত্যা করে আমাদেরকে শোকের সাগরে ভাসিয়েছে। আমরা আওয়ামী লীগের এ ধরনের আচরণ থেকে রক্ষা পেতে চাই। শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করতে চাই। তিনি আরো বলেন, আমরা তো এ সরকারের পতনের আন্দোলন করিনি। আমরা জনস্বার্থে তেল গ্যাসের দাম কমানোর দাবিতে সমাবেশ করেছিলাম। সেই নিরীহ সমাবেশে মানুষের উপর পুলিশের গুলি দুটি তাজা প্রাণ এর মৃত্যু, আমরা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারিনা। ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের কোনো ঘটনা না ঘটে সেজন্য তিনি আওয়ামী লীগ এবং পুলিশকে আরও নমনীয় ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান।

আলহাজ্ব গোলাম নবী আলমগীর বলেন, পুলিশ যেহেতু আমাদের দুই জন নেতাকে হত্যা করেছে এবং আমরা থানায় মামলা করতে গিয়েছি। পুলিশ আমাদের মামলা নেয়নি। পুলিশ যখন আসামি তখন আমরা কোনভাবেই পুলিশের কাছ থেকে সঠিক বিচার পাবো না। এজন্য তিনি বিচার বিভাগকে সুষ্ঠু বিচার উপহার দেয়ার জন্য অনুরোধ জানান।

আলহাজ্ব গোলাম নবী আলমগীর বলেন, রাজনীতি করলেই মিথ্যা কথা বলতে হয় না। মানুষকে হত্যা করতে হয়না। সত্য বলে, হত্যা না করে কিভাবে রাজনীতি করতে হয় তা আমাদের প্রিয় নেতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এবং মোশারেফ হোসেন শাজাহান আমাদের কে শিখিয়ে গেছেন। এসময় তিনি আওয়ামী লীগের ভোলার নেতাদেরকে মোশারেফ হোসেন শাজাহানের কাছ থেকে শিক্ষা নিয়ে সাধারণ মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করার আহ্বান জানান।

আলহাজ্ব গোলাম নবী আলমগীর আজ শুক্রবার (১২ আগষ্ট) সকালে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে ছাত্রদল নেতা নুরে আলম ও স্বেচ্ছাসেবক দল কর্মী আব্দুর রহিমের হত্যা এবং তেল-গ্যাস জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে আয়োজিত এক বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

বিএনপি কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ, জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক হুমায়ুন কবির সোপান , জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক, জেলা বিএনপি'র যুগ্ন সম্পাদক তরিকুল ইসলাম কায়েদ, ভোলা সদর থানা বিএনপির সদস্য সচিব হেলাল উদ্দীন , জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জামিল হোসেন ওয়াদুদ।

এসময় মহাজনপট্টি এলাকায় বিএনপি নেতা তরিকুল ইসলাম কায়েদ, মো. ফারুক সিকদার ও মো. জাকির হোসেন সবুজসহ বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা বিভিন্ন স্লোগানে স্লোগানে কয়েকটি খণ্ড মিছিল বের করে।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

বাসচাপায় আগুন, পুড়ে ছাই মোটরসাইকেল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
বাসচাপায় আগুন, পুড়ে ছাই বাইক

বাসচাপায় আগুন, পুড়ে ছাই বাইক

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজশাহীতে বাসচাপায় একটি মোটরসাইকেলে আগুন লেগে গেছে। এতে মোটরসাইকেলটি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। শুক্রবার (১২ আগস্ট) বেলা ১১টার দিকে নগরীর শিরোইল এলাকায় শুভ পেট্রল পাম্পের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনায় অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচেছেন মোটরসাইকেল চালক রানাউল ইসলাম (৪৫)। তিনি নগরীর পদ্মা আবাসিক হজের মোড় এলাকার বাসিন্দা। বাসের ধাক্কায় রানাউল পায়ে এবং কোমরে গুরুতর আঘাত পেয়েছেন। দুর্ঘটনার পর স্থানীয়রা তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রানাউল ইসলাম বাইক নিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন। এ সময় একটি যাত্রীবাহী বাস তাকে ধাক্কা দিলে রানাউল লাফ দিয়ে রাস্তার পাশে চলে যান। আর বাইকটিকে টেনে কিছুটা সামনে নিয়ে যায় যাত্রীবাহী বাস। এতে বাইকে আগুন লেগে যায়।

বাইকটি পুড়ে যাবার পর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে বাইকের আগুন নেভান এবং বাইকটি রাস্তা থেকে সরান। এর আগে স্থানীয়রা আহত ব্যক্তিকে হাসপাতালে নিয়ে যান।

নগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ব্যক্তি মামলা করলে তা নেওয়া হবে। এরপর এ বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

রাজধানীতে এটিএম বুথে ঢুকে ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর উত্তরায় এটিএম বুথে ঢুকে টাকা উত্তোলনের সময় এক ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে।

নিহত ব্যবসায়ীর নাম শরিফ উল্লাহ (৪৪)। তিনি টঙ্গী এলাকায় টাইলসের ব্যবসা করতেন।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) ভোররাত ১২টা ৪৫ মিনিটে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন।

ওসি জানান, আজ ভোররাত ১২টা ৪৫ মিনিটে শরিফ উত্তরার ডাচ বাংলা ব্যাংকের বুথে টাকা তুলতে যায়। সেসময় অভিযুক্ত হত্যাকারী আবদুস সামাদ (৩৮) বুথে ঢুকে শরিফের টাকা কেড়ে নিতে চায়। শরিফ বাধা দিলে সামাদ তাকে ছুরিকাঘাত করে। এরপর শরিফের চিৎকারে বুথের নিরাপত্তাকর্মী ও স্থানীয়রা এগিয়ে এসে ছিনতাইকারী সামাদকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করে এবং শরিফকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক শরিফকে মৃত ঘোষণা করেন।

ময়নাতদন্তের জন্য নিহতের মরদেহ শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান ওসি।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

বনানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় অটোরিকশাচালক নিহত



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকার বনানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় এক সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালক নিহত হয়েছেন। নিহত চালকের নাম শহিদুল ইসলাম (৫০)।

এই ঘটনায় আহত হয়েছেন ওই অটোরিকশার যাত্রী মালতি রানী (৪৫) এবং তার ছেলে বিশ্বজিৎ (৩০)। তারা বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সোয়া ২টার দিকে বনানী আর্মি স্টেডিয়াম সংলগ্ন সড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে। পরে চালকসহ আহত ৩ জনকে পুলিশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসে। সেখানে রাত ৩টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক চালক শহিদুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

বনানী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জুবাইদুল ইসলাম যাত্রীদের বরাত দিয়ে জানান, তারা এয়াপোর্ট থেকে অটোরিকশা নিয়ে ফার্মগেটের দিকে যাচ্ছিলেন। দ্রুতগতিতে চলছিল যানটি। আর্মি স্টেডিয়ামের সামনে আসলে পেছন থেকে কিছু একটা অটোরিকশাটিকে ধাক্কা দিলে তা ফুটপাতে গিয়ে পড়ে।

নিহত শহিদুলের বাড়ি যশোর সদর উপজেলার নূরপুর গ্রামে। তার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেলের মর্গে রাখা হয়েছে।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;