রাজাকার পূত্র হাবিব মুক্তিযোদ্ধা পূত্র রুহেলের পিএস!



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
রাজাকার পূত্র হাবিব মুক্তিযোদ্ধা পূত্র রুহেলের পিএস!

রাজাকার পূত্র হাবিব মুক্তিযোদ্ধা পূত্র রুহেলের পিএস!

  • Font increase
  • Font Decrease

আবুল হাসনাত ওরফে হাবিব খান। যার পিতা ছিলেন রাজাকার, তিনিও পিতার আদর্শের উত্তরসূরী। ছাত্র জীবনে জামায়াতের অংঙ্গসংগঠন শিবিরের রাজনীতিতেও জড়িত ছিলেন। স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকার পিতার ছেলে সেই হাবিব এখন ভোল পাল্টিয়ে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতার ব্যক্তিগত সহকারী (পিএস)।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের পুত্র মাহবুবুর রহমান রুহেলের রাজনীতির বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শক ও পিএস হিসেবে কাজ করছেন হাবিব খান। রুহেলের হাত ধরেই হাবিবের গায়ে এখন মুজিবকোট। সাবেক শিবিরের এ নেতা এখন বনে গেছেন পাক্কা আওয়ামী লীগারে।

জানা গেছে, হাবিব খানের বাবা আব্দুল হান্নান ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম বিরোধিতাকারী হিসেবে তালিকাভুক্ত রাজাকার। মিরসরাইয়ের ১৩ মায়ানী ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার কর্তৃক তৈরি করা রাজাকারের তালিকায়ও নাম রয়েছে তার। স্থানীয়রাসহ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মিরসরাইয়ের ১৩ মায়ানী ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার আমিনুজ্জামান এবং চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমানসহ আরো কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা।

বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ থেকে বিজ্ঞপ্তি

আব্দুল হান্নান যে রাজাকার ছিলেন তা নিয়ে মিরসরাইয়ের ১৩ মায়ানী ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার আমিনুজ্জামান বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ থেকে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন।

আমিনুজ্জামান বলেন, মৃত আজিজুর রহমানের ছেলে আব্দুল হান্নান ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী হিসেবে তালিকাভুক্ত রাজাকার। আব্দুল হান্নানের পরিবারের একাধিক সদস্য মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিলেন। যুদ্ধের সময় অভিযুক্ত হান্নান পাকহানাদার বাহিনীকে মুক্তিযোদ্ধাদের ঘর বাড়ি চিনিয়ে দিতে সহায়তা করতেন। পরে তার দেখানো ঘর-বাড়িগুলো পাকবাহিনী আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিতো।

আব্দুল হান্নান সম্পর্কে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান বলেন, স্থানীয় সবাই জানে আব্দুল হান্নান রাজাকার ছিলেন। শুধু তিনিই নন পরিবারের কাজল নামে আব্দুল হান্নানের এক ভাতিজাও পাকহানাদার বাহিনীর সাথে যুক্ত থেকে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিলেন।

আব্দুল হান্নান স্বাধীনতা বিরোধী সক্রিয় লোক ছিলেন জানিয়ে ৭ নং ওয়ার্ডের মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন বলেন, উনি দেশ বিরোধী ছিলেন বলেই রাজাকারের তালিকায় তার নাম এসেছে। তাদের পরিবারের আরও একজন স্বাধীনতা বিরোধী লোক আছেন তার নাম কাজল। তিনি সার্ভেয়ারের কাজ করেন। সম্পর্কে তিনি আব্দুল হান্নানের ভাতিজা ।

আব্দুল হান্নানের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা সম্পর্কে জানতে চাইলে উত্তরজেলা ছাত্রলীগ নেতা তানভির হোসেন চৌধুরী তপু বলেন, যেহেতু হাবিব খান আমাদের আপকামিং লিডারের পিএস সেহেতু এই সম্পর্কে আমার কিছু বলা উচিত না। তবে আপনি যেটা প্রশ্ন করেছেন সেটা আমিও জানি। শুধু আমি নই, স্থানীয়রা সাবাই জানে।

তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করে আব্দুল হান্নান। তিনি বলেন, এসব মিথ্যা। এই ধরনের কোনো কাজের সাথে আমি কোনো দিন সম্পৃক্ত ছিলাম না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রাজাকার আব্দুল হান্নানের ৬ সন্তানের মধ্যে ৫ মেয়ে ১ ছেলে আবুল হাসনাত। তিনি ২০০৮-১২ শিক্ষাবর্ষে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন। সে সময়ে তিনি শিবিরের সক্রিয় নেতা ছিলেন। লোকমুখে শোনা যায়, আবুল হাসনাত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বাইতুল মাল সম্পাদক ও স্থানীয় ওয়ার্ড জামায়াতের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন।

পরবতীর্তে নিজের নাম আবুল হাসনাত পরিবর্তন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হাবিব খান হিসেবে পরিচিত হতে শুরু করেন। নাম বদল করে স্থানীয় ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের কর্মকাণ্ডে নিজেকে যুক্ত করে নজর কাড়েন ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের পুত্র মাহবুবুর রহমান রুহেলের। এক সময় রুহেলের একান্ত সহচর হয়ে ওঠেন রাজাকারপুত্র হাবিব, ভাগিয়ে নেন রুহেলের পিএস পদও।

এদিকে হাবিব খানের বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসবের কোনো সত্যতা নেই। যারা বলছেন আমার বাবা রাজাকার ছিলেন তাদের তথ্য প্রমাণ দিতে বলেন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন সময়ে অন্যকোনো রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ত থাকার কথাও অস্বীকার করেন হাবিব খান।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মাহবুবুর রহমান রুহেলের পিএস হিসেবে রাজাকার পুত্র হাবিবের পরিচিতি দেওয়া বা নিয়োগের বিষয়টি স্থানীয়ভাবে সমালোচিত হলেও নেতার ইমেজের কথা চিন্তা করে প্রকাশ্যে কথা বলতে নারাজ তারা।

হাবিব খানের বাবা আব্দুল হান্নান রাজাকার ছিলেন এমন অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মাহবুবুর রহমান রুহেল বলেন, অসম্ভব! এরকম কিছু হওয়ার কথা না। বিষয়টি আমার জানা নেই, আপনারা আবার চেক করে দেখেন।

স্থানীয় কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হান্নানের রাজাকার হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এমন তথ্য মাহাবুবুর রহমান রুহেলকে জানানো হলে তিনি বলেন, এমন কিছু হলে আমার কাছে তথ্য আসার কথা। আচ্ছা আমি ব্যাপারটি দেখছি।

আরও ৮ কলম বের হলো সেই মোতালেবের পেট থেকে



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
আরও ৮ কলম বের হলো সেই মোতালেবের পেট থেকে

আরও ৮ কলম বের হলো সেই মোতালেবের পেট থেকে

  • Font increase
  • Font Decrease

কোন প্রকার অস্ত্রোপচার ছাড়া আরও ৮টি কলম বের করা হলো মানসিক রোগী আব্দুল মোতালেবের পেট থেকে।

সোমবার (২৯ মে) দুপুরে সিরাজগঞ্জ শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এন্ডোস্কোপির মাধ্যমে কলমগুলো বের করেন চিকিৎসকরা। এ নিয়ে দু-দফায় অস্ত্রোপচার ছাড়া মোট ২৩টি কলম বের করা হলো।

এর আগে, গত বৃহস্পতিবার (২৫ মে) ওই রোগীর পেট থেকে ১৫টি কলম বের করেছেন চিকিৎসকরা। মেডিকেল সাইন্সের ইতিহাসে বিনা অস্ত্রোপচারে রোগীর পেট থেকে এতগুলো কলম বের করার ঘটনা এটিই প্রথম বলে দাবি চিকিৎসকদের।

আব্দুল মোতালেব নামে ওই রোগী একজন মানসিক প্রতিবন্ধী। তিনি বেলকুচি উপজেলার খুকনি আটার দাগ গ্রামের বাসিন্দা। মোতালেব ৪-৫ বছর ধরে বিভিন্ন সময়ে এসব কলম আস্ত গিলে খেয়েছেন বলে চিকিৎসকদের ধারণা।

শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের প্রধান ডা. জাহিদুল ইসলাম জানান, সোমবার প্রায় এক ঘণ্টারও বেশি সময় এন্ডোস্কপির মাধ্যমে আরও ৮টি কলম বের করা হয়েছে। তার পেটে আর কলম নেই। বর্তমানে রোগী সুস্থ আছেন।

তিনি বলেন, দীর্ঘদিন পেটে ব্যথায় ভুগতে থাকা মোতালেবের রোগ ডায়াগনসিস করা যাচ্ছিল না। আমাদের এখানে ভর্তি হওয়ার পর এন্ডোস্কপি করে পাকস্থলীতে অনেকগুলো কলম দেখতে পাই। ঝুঁকিপূর্ণ হলেও আমরা কলমগুলো বের করার সিদ্ধান্ত নিই। এখানে রক্তক্ষরণের শঙ্কা ছিল, ইনজুরি হওয়ার ভয় ছিল। বৃহস্পতিবার তিন ঘণ্টাব্যাপী এন্ডোস্কপির মাধ্যমে একটি করে ধরে ধরে ১৫টি কলম বের করা হয়। ভেতরে আরও বেশ কয়েকটি কলম থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হই। আজ সোমবার আবারও এন্ডোস্কপি করে ৮টি কলম বের করা হয়। মেডিকেল সাইন্সের ইতিহাসে পেটের মধ্যে এতগুলো কলম বের করার ঘটনা এটিই প্রথম। সম্ভবত আমরাই প্রথম এই সাফল্যের কাজটি করতে পেরেছি।

মোতালেবের মা লাইলী বেগম বলেন, এক বছর ধরে তার ছেলের পেটের ব্যথা। বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা করেও সুস্থ হয়নি। ১৫ দিন আগে সমস্যা আরও বেশি হয়। খেতে পারে না, বমি করে। এ কারণে তাকে এই হাসপাতালে আনা হয়। এখানে আসার পর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে পেটের মধ্য থেকে কলম বের করেন ডাক্তাররা।

তিনি আরও বলেন, ১২ বছর ধরে তার ছেলে মানসিক রোগী। মানসিক ডাক্তারও দেখানো হয়েছে। কলমগুলো অজ্ঞান অবস্থায় খেয়েছে সে।

শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক সাইফুল ফেরদৌস মোহাম্মদ খায়রুল আতাতুর্ক বলেন, আমাদের এখানে উন্নতমানের অত্যাধুনিক সব মেশিন রয়েছে। আটটি এন্ডোস্কপি মেশিন আছে যার সবগুলো অত্যাধুনিক। প্রতি বিভাগে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি রয়েছে যেগুলো চালু আছে অথবা অল্প দিনের মধ্যেই চালু হবে। উত্তরাঞ্চলের জনগণের জন্য আশার কেন্দ্র হবে এই হাসপাতালটি।

;

মধ্যরাতে হুমকি দিয়ে ভোরে খুন, প্রধান আসামিসহ গ্রেফতার ৪



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রস্রাব করতে বাধা দেওয়ায় চট্টগ্রামের পাহাড়তলিতে কথা কাটাকাটির পর হুমকি দিয়ে এক যুবককে খুনের ঘটনায় প্রধান আসামিসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

সোমবার (২৯ মে) রাঙামাটি জেলার কোতোয়ালি থানাধীন একটি আবাসিক হোটেল থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- প্রধান আসামি আবু তাহের রাজীব (২৩) ও তার সহযোগী দেলোয়ার হোসেন জয় (২৭), রায়হান সজীব (২২) এবং আবুল হাসনাত রানা (৩০)।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-৭ এর জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক (গণমাধ্যম) নুরুল আবছার।

র‌্যাব জানায়, গত ২৭ মে দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে অজ্ঞাতনামা একব্যক্তি নগরীর নয়াবাজার এলাকার একটি কারখানার গেইটের সামনে প্রস্রাব করলে কারখানার নৈশপ্রহরী খুন হওয়া মো. আজাদের ভাই মফিজ লোকটিকে বাধা দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই ব্যক্তি নৈশপ্রহরী মফিজকে বলে, এটা সরকারি জায়গা তুই বাধা দেওয়ার কে’ এই বলে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে আসামি আবু তাহের রাজীব, ওসমান, আবুল হাসানসহ অজ্ঞাতনামা কয়েকজন মিলে ঘটনাস্থলে এসে বিবাদে জড়ায়। বড় ভাইয়ের সাথে কথা কাটাকাটির শব্দ শুনে আজাদ ঘটনাস্থলে গেলে তার সাথেও কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ধাক্কাধাক্কি হয়। পরে আসামিরা আজাদকে হুমকি দিয়ে চলে যায়।

ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর ২৮ মে ভোর পৌনে ৫টার দিকে আজাদ নাস্তার জন্য দোকানে যেতে বের হলে পথিমধ্যে পাহাড়তলির নয়াবাজার এলাকায় পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আসামিরা তাকে একা পেয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে এলোপাথাড়িভাবে পেটে, পিঠে ও শরীরের বিভিন্ন অংশে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় আজাদকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় ওই দিন নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে ৪ জনের নাম উল্লেখ্য করে অজ্ঞাতনামা আরও ৩/৪ জনকে আসামি করে পাহাড়তলি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর হতে আসামিরা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিকট হতে গ্রেফতার এড়াতে এলাকা ছেড়ে আত্মগোপনে চলে যায়।

এদিকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে গুরুতর জখম হওয়া আজাদ তার ভাতিজা তারেকুর রহমারে কাছে আক্রমণকারীদের নাম বলেন।

র‌্যাব-৭ এর জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক (গণমাধ্যম) নুরুল আবছার বলেন, আসামিদের গোয়েন্দা নজরদারি এবং ছায়াতদন্তের মাধ্যমে মামলার আসামিরা রাঙামাটি জেলার কোতোয়ালি থানাধীন একটি আবাসিক হোটেলে অবস্থান করছে বলে তথ্য পাই। অভিযান করে ওই হোটেল থেকে প্রধান আসামি আবু তাহের রাজীব ও সহযোগী দেলোয়ার হোসেন জয়, রায়হান সজীবকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে তাদের দেওয়া তথ্যমতে নগরীর কদমতলী বাসস্ট্যান্ড থেকে আসামি আবুল হাসনাতকেও গ্রেফতার করা হয়।

পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গ্রেফতার আসামিদের সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

;

সংসদ অধিবেশন উপলক্ষে ডিএমপির নিষেধাজ্ঞা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বুধবার (১ জুন) থেকে একাদশ জাতীয় সংসদের ২৩তম এবং ২০২৩ সালের বাজেট অধিবেশন শুরু হতে যাচ্ছে। এই অধিবেশন নির্বিঘ্নে চলাচল নিশ্চিতকরণে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

সোমবার (২৯ মে) ডিএমপি কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

আদেশে মঙ্গলবার (৩০ মে) রাত ১২টা থেকে সকল প্রকার অস্ত্রশস্ত্র, বিস্ফোরক দ্রব্য, অন্যান্য ক্ষতিকারক ও দূষণীয় দ্রব্য বহন নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়াও যে কোন প্রকার সমাবেশ, মিছিল, শোভাযাত্রা ও বিক্ষোভ প্রদর্শন ইত্যাদি নিষেধ করা হয়েছে।

যেসব এলাকায় এই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে– ময়মনসিংহ রোডের মহাখালী ক্রসিং থেকে পুরাতন বিমান বন্দর হয়ে বাংলামটর ক্রসিং পর্যন্ত, বাংলামটর লিংক রোডের পশ্চিম প্রান্ত থেকে হোটেল সোনারগাঁও রোডের সার্ক ফোয়ারা পর্যন্ত, পান্থপথের পূর্ব প্রান্ত থেকে গ্রীন রোডের সংযোগস্থল হয়ে ফার্মগেট পর্যন্ত, মিরপুর রোডের শ্যামলী মোড় থেকে ধানমন্ডি-১৬ (পুরাতন-২৭) নং সড়কের সংযোগস্থল, রোকেয়া সরণির সংযোগস্থল থেকে পুরাতন ৯ম ডিভিশন (উড়োজাহাজ) ক্রসিং হয়ে বিজয় সরণির পর্যটন ক্রসিং, ইন্দিরা রোডের পূর্ব প্রান্ত থেকে মানিক মিয়া এভিনিউয়ের পশ্চিম প্রান্ত, জাতীয় সংসদ ভবনের সংরক্ষিত এলাকা এবং এ সীমানার মধ্যে অবস্থিত সমুদয় রাস্তা ও গলিপথ।

একাদশ জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ আদেশ বলবৎ থাকবে।

;

প্রয়োজনে সংসদ নির্বাচনে আরও কঠোর হবে ইসি: রাশেদা সুলতানা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পরিবেশ-পরিস্থিতি ডিমান্ড করলে নির্বাচন কমিশন (ইসি) আরও কঠোর হবে বলে মন্তব্য করেছেন সংস্থাটির কমিশনার রাশেদা সুলতানা।

সোমবার (২৯ মে) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নিজের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

রাশেদা সুলতানা বলেন, যদি পরিবেশ-পরিস্থিতি ডিমান্ড করে আরও কঠোর হতে, তাহলে আমরা আরও কঠোর হব। পরিবেশ পরিস্থিতি যদি বলে এভাবে চললেই হবে, তাহলে আমরা এভাবেই চলব। এটা পরিবেশ-পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে।

তিনি বলেন, আমাদের একটাই ইচ্ছা ‘সুষ্ঠু, সুন্দর, অবাধ ও নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন। যে নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারবে, জনগণ বলতে পারবে- আমার ভোটটা আমি দিয়েছি।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে রাশেদা সুলতানা বলেন, জনগণ তাদের রায় দেবেন। আমরা সব সময় চেয়েছি, এখনো চেয়েছি, ভবিষ্যতে চাইব- আমাদের ইলেকশন যতগুলো আমরা করব, সব যেন সুষ্ঠু হয়। মানুষ এসে যেন ভোট দিয়ে চলে যেতে পারে। এটাই আসলে আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য। শুধু সিটি করপোরেশন ইলেকশন কেন? যে কয়টা বাকি আছে ও জাতীয় নির্বাচন- আমরা এই নীতিতে থাকব। এটাই আমরা করব৷’

সিটি নির্বাচনগুলো অনেকটা একপাক্ষিক বলা হচ্ছে- এমন নির্বাচনে তৃপ্তি কতটুকু, জানতে চাইলে রাশেদা সুলতানা বলেন, তৃপ্তি-অতৃপ্তি প্রকাশের তেমন কোনো বিষয়.. নেই আমাদের। কেননা নির্বাচনে কেউ আসবে, কেউ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে, কেউ করবে না, এটা সম্পূর্ণ তাদের ব্যাপার। যিনি প্রার্থী হতে চান বা চান না এটা সম্পূর্ণ নিজস্ব বিষয়। নির্বাচন কমিশনের কাউকে তো আনার সুযোগ ওভাবে নেই। এলে অবশ্যই আমরা ভালো একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন পাব। এলে আনন্দ পাব বেশি। না এলেও ইলেকশনগুলো করতে হবে। কারণ আইনি বাধ্যবাধকতা আছে।

জাতীয় নির্বাচনে ভোটকক্ষে সিসি ক্যামেরা ব্যবহারের বিষয় তিনি বলেন, এখনো এনিয়ে বসা হয়নি।

;