রসায়নে নোবেল পেলেন তিন বিজ্ঞানী



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
রসায়নে নোবেল পেলেন তিন বিজ্ঞানী

রসায়নে নোবেল পেলেন তিন বিজ্ঞানী

  • Font increase
  • Font Decrease

ক্লিক কেমিস্ট্রি অ্যান্ড বায়োঅর্থগোনাল কেমিস্ট্রির উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখায় ২০২২ সালে রসায়নশাস্ত্রে নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র ও ডেনমার্কের ৩ বিজ্ঞানী।

বুধবার (৫ অক্টোবর) নোবেল কমিটি বাংলাদেশ সময় বিকাল ৩টা ৪৫ মিনিটের দিকে ২০২২ সালের বিজয়ী হিসেবে তাদের নাম ঘোষণা করে।

রসায়নে নোবেল বিজয়ী বিজ্ঞানীরা হলেন, যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক ক্যারোলিন আর বারতোজ্জি, ডেনমার্কেরর ইউনিভার্সিটি অব কোপেন হেগেনের অধ্যাপক মর্টেন মেলডাল ও যুক্তরাষ্ট্রের স্ক্রিপস রিসার্সের গবেষক কে ব্যারি শার্পলেস।  

নোবেল কমিটি বলেছে, বেল ইনেকুয়ালিটির পরীক্ষায় পাওয়া প্রমাণ ও কোয়ান্টাম অ্যান্টেঙ্গেলমেন্ট গবেষণায় তাৎপর্যপূর্ণ অবদানের জন্য ২০২২ সালে পদার্থবিজ্ঞানে তাদের এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

গত সোমবার (৩ অক্টোবর) চিকিৎসাস্ত্রে নোবেল বিজয়ীর নাম ঘোষণার মধ্যদিয়ে এর আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়। 

নিউইয়র্কে ঘরের ভেতরও চলছে ড্রোনে নজরদারি!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
নিউইয়র্কে ঘরের ভেতরও চলছে ড্রোনে নজরদারি!

নিউইয়র্কে ঘরের ভেতরও চলছে ড্রোনে নজরদারি!

  • Font increase
  • Font Decrease

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে সাধারণ মানুষের ঘরের ভেতরও ডিজিটাল নজরদারি বা গুপ্তচরবৃত্তি চালাচ্ছেন সিটি পুলিশের ড্রোন। নিউইয়র্ক সিটির পাঁচটি বৃহত্তম পৌরসভায় ড্রোনগুলো নজরদারি চালাচ্ছে।

নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টসহ আরও কয়েকটি এজেন্সি এসব কর্মসূচি কার্যকর করছে ড্রোনের মাধ্যমে। ইতিমধ্যেই নিউইয়র্ক সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়ন এই গুপ্তচরবৃত্তিকে সাধারণ মানুষের প্রাইভেসিতে আঘাত বলে উল্লেখ করেছেন।

জানা যায়, রাস্তায় চলাচলসহ সাইড ওয়াকে দাঁড়িয়ে কথা বলা, ওপেন স্পেসে সমাবেশসহ এপার্টমেন্ট বিল্ডিংয়ের জানালা দিয়েও বায়োমেট্রিক সারভাইল্যান্স প্রযুক্তির মাধ্যমে ফেশিয়াল রিকগনিশন, গেইট বা চলাফেরা রিকগনিশন, ইমোশন রিকগনিশন অথবা আচরণ রিকগনিশন করা হচ্ছে।

সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়নের বরাত দিয়ে গণমাধ্যম লিখছে, বর্তমানে কমপক্ষে ৩৩টি সরকারি মালিকানাধীন ড্রোন প্রায় নিউ ইয়র্ক সিটির আকাশে খুব নিচু দিয়ে উড়ে যাচ্ছে। এইসব ড্রোনের মধ্যে ১৯টি নিউ ইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টের। পুলিশের এই ডিজিটাল গুপ্তচরবৃত্তিকে নিউ ইয়র্ক সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়ন কোনো নিয়মতান্ত্রিক রেগুলেশন খুঁজে পায়নি। বরং তা সাধারণ মানুষের প্রাইভেসিতে আঘাত হানছে বলে অভিযোগ করেছে।

বিশেষ করে এপার্টমেন্টের পাশ দিয়ে উড়ে জানালা দিয়ে ভিতর দেখাকে তারা মেনে নিতে পারছে না। তাছাড়া রাস্তায় চলাফেরাতেও আর মানুষের স্বাধীনতা থাকছে না বলে উল্লেখ করেছে।

সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়নের গবেষণায় বলা হয়েছে, এইসব ড্রোন উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন এবং মিলিটারি গ্রেডের টেকনোলজি। তাদের গবেষণায় উঠে এসেছে নিউ ইয়র্ক স্টেটের বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি ৫৩০টি ড্রোনের রেজিস্ট্রেশন করেছে। এর মধ্যে ৩২৭টি ব্যবহার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী প্রতিষ্ঠান।

উল্লেখ্য নিউ ইয়র্ক সিটিতে কোনো প্রাইভেট এবং কমার্শিয়াল ড্রোন ব্যবহার বা অপারেশন নিষিদ্ধ। তবে নিউ জার্সিতে সম্প্রতি যে ৫০০টি ড্রোন ব্যক্তিগত ও কমার্শিয়াল ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হয়েছে, তা এতই উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন যে হাডসন নদীর নিউ জার্সি তীর থেকে তা ম্যানহ্যাটানকে পর্যবেক্ষণ করতে পারে। এইসব ড্রোন মাঝে মাঝে হাডসন-নদী পার হয়ে নিউ ইয়র্কের সীমান্তেও ঢুকে পড়ে।

সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়ন বলছে, ড্রোনের মাধ্যমে পাওয়া বায়োমেট্রিক তথ্য যদি ভুলও হয়, তবু এনওয়াইপিডির সদস্যরা তা বিশ্বাস করে এবং উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে গ্রেফতার করে। সম্প্রতি নিউ ইয়র্ক সিটিতে অপরাধ বহুলাংশে বেড়ে যাওয়ায় মেয়র এরিক এডামস উচ্চ অপরাধপ্রবণ এলাকার বিভিন্ন ভবনের ছাদ থেকে ড্রোনের মাধ্যমে গুপ্তচরবৃত্তির অনুমতি দেয়ার খবরটি ফাঁস করে দেয় নিউ ইয়র্ক পোস্ট।

নিউ ইয়র্ক সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়ন এই গবেষণার প্রেক্ষিতে এনওয়াইপিডির কাছ থেকে তাদের ড্রোনের সারভাইল্যান্সে ধরা পড়া তথ্যসমূহ পাবলিক রেকর্ড হিসাবে প্রকাশের অনুরোধ জানিয়েছে।

সিভিল লিার্টিজ ইউনিয়নের কর্মকর্তারা স্টেট আইনপ্রণেতাদের অনুরোধ জানিয়েছেন, তারা যেন এই মর্মে বিল পাশ করে যে ড্রোনের মাধ্যমে কোনো প্রতিবাদ সভায় গুপ্তচরবৃত্তি করা যাবে না। সেই সঙ্গে যে কোনো ড্রোন-সার্চের আগে যেন তারা আদালতের ওয়ারেন্ট নিয়ে নেয়। এবং ফেশিয়াল রিকগনিশন সফটওয়্যার ব্যবহার নিষিদ্ধ করে।

;

রাশিয়ার তেল ব্যারেল প্রতি ৬০ ডলার নির্ধারণ করল ইইউ ও জি-৭



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
রাশিয়ার তেল ব্যারেল প্রতি ৬০ ডলার নির্ধারণ করল ইইউ ও জি-৭

রাশিয়ার তেল ব্যারেল প্রতি ৬০ ডলার নির্ধারণ করল ইইউ ও জি-৭

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্বের শীর্ষ সাত অর্থনীতির দেশের জোট জি-৭, অস্ট্রেলিয়া ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়ার তেলের দাম কমিয়ে ৬০ ডলার করতে ঐকমত্যে পৌঁছেছে। স্থানীয় সময় শুক্রবার তারা এই ঐকমত্যে পৌঁছেছে।

 রোববার (৪ ডিসেম্বর) ইইউ-এর আইনি জার্নালে এ বিষয়ে বিস্তারিত প্রকাশিত হওয়ার কথা রয়েছে। শনিবার আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদন বলা হয়, জি-৭ এবং অস্ট্রেলিয়া এক যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছে- রাশিয়ার সমুদ্রজাত তেলের জন্য নির্ধারিত এই নতুন দাম আগামী ৫ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হবে।

দেশগুলো আরো জানিয়েছে, তারা অনুমান করছে যে রাশিয়ার জ্বালানি তেলের মূল্যের এই সংশোধনের ফলে পরিবর্তনের আগে পুরোনো দামে শেষ হওয়া লেনদেনগুলো অন্তর্ভুক্ত থাকবে না।

এই জোটের বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, ‘মূল্য হ্রাস কার্যকর করতে এই জোট ভবিষ্যতেও আরো কার্যকর পদক্ষেপ নেবে।’ তবে ভবিষ্যতে কী ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হতে পারে সেই বিষয়ে কোনো বিস্তারিত তথ্য দেয়া হয়নি বিবৃতিতে।’

এর আগে, ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) দেশগুলোর সরকার রাশিয়ার সমুদ্রজাত জ্বালানি তেল কেনার বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছে। ইইউ প্রতি ব্যারেলের বিপরীতে রাশিয়াকে ৬০ ডলার করে পরিশোধ করবে।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা বলেছেন, এই চুক্তি নজিরবিহীন এবং রাশিয়ার যুদ্ধের বিরোধিতার ক্ষেত্রে জোটের সংকল্পকেই তুলে ধরেছে।

ইইউয়ের বর্তমান সভাপতি দেশ চেক রিপাবলিকের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, পোল্যান্ডের অনুমোদনের পর তারা চুক্তিটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে সবুজ সংকেত দিতে ইইয়ের ২৭ দেশের সবার জন্য একটি লিখিত প্রক্রিয়া চালু করেছে।

এদিকে, রাশিয়ার নিম্নকক্ষের পররাষ্ট্র বিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান লিওনিড স্লুটস্কি রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা তাসকে বলেছেন, ব্লকটি তার নিজস্ব জ্বালানি নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ফেলছে।

এটি চলমান বাজারের আইনও লঙ্ঘন করছে বলেও দাবি করেন তিনি।

;

কাবুলে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূতকে গুলি করে হত্যাচেষ্টা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আফগানিস্তানে নিযুক্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত (হেড অব মিশন) উবায়দুর রহমান নিজামনিকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়েছে। এসময় তিনি অল্পের জন্য বেঁচে যান।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) জানিয়েছে, মিশন প্রধান উবায়দুর রহমান নিজামনি রাজধানী কাবুলে অবস্থিত দূতাবাস প্রাঙ্গণে হাঁটতে বের হলে তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। তার সঙ্গে ছিলেন ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষী। রাষ্ট্রদূতকে রক্ষা করতে গিয়ে ওই নিরাপত্তারক্ষী নিজের বুক পেতে তিনটি গুলি নেন। তিনি এখন হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

এঘটনায় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরীফ টুইটারে লিখেছেন, কাবুলে পাকিস্তানের হেড অব মিশনের ওপর নৃশংসভাবে হত্যা প্রচেষ্টার তীব্র নিন্দা করছি।

তিনি আরও লিখেন, হামলাকারী পাকিস্তানি কূটনীতিকের ক্ষতি করতে ব্যর্থ হয়েছিল, তবে তার নিরাপত্তারক্ষী গুলিতে আহত হয়েছেন।

নিরাপত্তারক্ষীর অবস্থা সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে কিছু জানা যায়নি।

আমি অবিলম্বে এই জঘন্য কাজের অপরাধীদের বিরুদ্ধে তদন্ত ও ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি করছি, বলেন পাক প্রধানমন্ত্রী।

দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছে, এক ব্যক্তি বাড়ির আড়াল থেকে এসে কিছু বুঝে উঠার আগেই গুলি চালাতে শুরু করে। তিনি বলেন, রাষ্ট্রদূত এবং অন্য কর্মীরা নিরাপদ, তবে আমরা সতর্কতা হিসেবে দূতাবাস ভবনের বাইরে যাচ্ছি না।

;

রুশ অভিযানে ১৩ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত: জেলেনস্কির উপদেষ্টা

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইউক্রেনে রাশিয়ার অভিযান শুরুর পর এ পর্যন্ত প্রায় ১৩ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছেন।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির উপদেষ্টা মাইখাইলো পোডোলিয়াক এ তথ্য জানিয়েছেন। যুদ্ধে নিজেদের পক্ষে নিহত সেনাদের সংখ্যা নিয়ে বিরল স্বীকারোক্তি এটি। খবর বিবিসির।

মাইখাইলো পোডোলিয়াক বলেন, যুদ্ধে ১০ হাজার থেকে ১৩ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছে। তবে তার এই দাবি দেশটির সামরিক বাহিনী দ্বারা নিশ্চিত করা হয়নি।

গত জুন মাসে তিনি বলেছিলেন, প্রতিদিন ১০০ থেকে ২০০ ইউক্রেনীয় সেনা মারা যাচ্ছে।

গত মাসে সিনিয়র মার্কিন জেনারেল মার্ক মিলি বলেছিলেন, যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় ১ লাখ রাশিয়ান এবং ১ লাখ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত বা আহত হয়েছে।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) এক ভিডিও ভাষণে ইইউ কমিশনের প্রধান উরসুলা ভন ডার লেইন বলেছেন, যুদ্ধে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছে। যদিও ইইউ কমিশনের একজন মুখপাত্র পরে স্পষ্ট করে বলেন এই তথ্য ভুল ছিল।

ইউক্রেনীয় টিভি চ্যানেল ২৪-এর সঙ্গে কথা বলার সময় পোডোলিয়াক বলেন, কিয়েভ নিহতের সংখ্যা নিয়ে এই তথ্য জানিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নিহত বেসামরিক মানুষের সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে। বিবিসি নিউজ জুনের মাঝামাঝি পর্যন্ত প্রায় ৩৬০০ বেসামরিক মৃত্যুর শনাক্ত করেছে। সংখ্যাটা এখন অনেক বেশি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

;