ফ্লোরিডায় আঘাত হেনেছে হারিকেন ‘ইয়ান’, ব্যাপক ক্ষতির শঙ্কা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা উপকূলে আঘাত হেনেছে শক্তিশালী হারিকেন ‘ইয়ান’। তীব্র বাতাস, ভারী বৃষ্টিপাত এবং সমুদ্রের বিধ্বংসী ঢেউ নিয়ে বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) প্রবল ঘূর্ণিঝড়টি ফ্লোরিডার উপসাগরীয় উপকূলে আঘাত হানে। এতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, হারিকেন ইয়ান সাম্প্রতিক বছরগুলোতে যুক্তরাষ্ট্রে আঘাত হানা শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়গুলোর অন্যতম। স্থানীয় সময় বিকেল ৩টার দিকে ক্যাটাগরি-৪ ঘূর্ণিঝড়টি কায়ো কোস্টা দ্বীপের কাছে আঘাত হানে।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় হারিকেন সেন্টার (এনএইচসি) জানিয়েছে, উপকূলে আঘাত হানার সময় ক্যাটাগরি-৪ ঘূর্ণিঝড়ের বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ২৪০ কিলোমিটার (১৫০ মাইল) ছিল ।

ঝড়ের তীব্রতার দিক থেকে ক্যাটাগরি-৫ হারিকেনের চেয়ে ইয়ানের গতিবেগ সামান্য কম। সবচেয়ে মারাত্মক পাঁচ মাত্রার হারিকেনের বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ধরা হয় ১৫৭ মাইল। ইয়ান উপকূলে আঘাত করার পর দুর্বল হবে বলে আশা করেছিল এনএইচসি।

ফ্লোরিডার গভর্নর রন ডিসান্টিস বলেন, প্রাণঘাতী ঘূর্ণিঝড় ইয়ানের প্রভাবে উপকূলের কিছু এলাকা ১২ ফুট পর্যন্ত জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হয়েছে। সারাসোটাসহ কয়েকটি কাউন্টির লোকজনের অন্য কোথাও যাওয়া নিরাপদ হবে না বলে সতর্ক করেছেন এবং তাদেরকে রাস্তা থেকে দূরে থাকার পাশাপাশি ঘরের ভেতরে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে ব্যাপক বজ্রবৃষ্টি ও সম্ভাব্য টর্নেডোর বিষয়ে সতর্ক করা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টি মূল ভূখণ্ডের দিকে আরও এগোলে মধ্য ফ্লোরিডায় দুই ফুট পর্যন্ত বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

রুশ অভিযানে ১৩ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত: জেলেনস্কির উপদেষ্টা

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইউক্রেনে রাশিয়ার অভিযান শুরুর পর এ পর্যন্ত প্রায় ১৩ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছেন।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির উপদেষ্টা মাইখাইলো পোডোলিয়াক এ তথ্য জানিয়েছেন। যুদ্ধে নিজেদের পক্ষে নিহত সেনাদের সংখ্যা নিয়ে বিরল স্বীকারোক্তি এটি। খবর বিবিসির।

মাইখাইলো পোডোলিয়াক বলেন, যুদ্ধে ১০ হাজার থেকে ১৩ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছে। তবে তার এই দাবি দেশটির সামরিক বাহিনী দ্বারা নিশ্চিত করা হয়নি।

গত জুন মাসে তিনি বলেছিলেন, প্রতিদিন ১০০ থেকে ২০০ ইউক্রেনীয় সেনা মারা যাচ্ছে।

গত মাসে সিনিয়র মার্কিন জেনারেল মার্ক মিলি বলেছিলেন, যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় ১ লাখ রাশিয়ান এবং ১ লাখ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত বা আহত হয়েছে।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) এক ভিডিও ভাষণে ইইউ কমিশনের প্রধান উরসুলা ভন ডার লেইন বলেছেন, যুদ্ধে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছে। যদিও ইইউ কমিশনের একজন মুখপাত্র পরে স্পষ্ট করে বলেন এই তথ্য ভুল ছিল।

ইউক্রেনীয় টিভি চ্যানেল ২৪-এর সঙ্গে কথা বলার সময় পোডোলিয়াক বলেন, কিয়েভ নিহতের সংখ্যা নিয়ে এই তথ্য জানিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নিহত বেসামরিক মানুষের সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে। বিবিসি নিউজ জুনের মাঝামাঝি পর্যন্ত প্রায় ৩৬০০ বেসামরিক মৃত্যুর শনাক্ত করেছে। সংখ্যাটা এখন অনেক বেশি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

;

পরমাণু অস্ত্রের মজুদ বাড়াচ্ছে চীন, দাবি যুক্তরাষ্ট্রের



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চীন পরমাণু অস্ত্রের মজুদ বাড়াচ্ছে বলে দাবি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বুধবার (৩০ নভেম্বর) মার্কিন কংগ্রেসে পেশ করা একটি রিপোর্টে এমনই দাবি করেছে দেশটির প্রতিরক্ষা দফতর।

পেন্টাগনের শীর্ষ কর্মকর্তাদের দাবি, গত বছর থেকে চীন নিজেদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আরও জোরদার করার পরিকল্পনা নিয়েছে। ওই রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির দখলে আপাতত চারশোর বেশি পরমাণু অস্ত্র রয়েছে। নিজেদের পরমাণু অস্ত্রের ভান্ডার এভাবে বাড়াতে থাকলে ২০৩৫ সালের মধ্যে চীনের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় অন্তত দেড় হাজার পরমাণু অস্ত্র থাকবে। যা বর্তমান সংখ্যার প্রায় তিন গুণ।

ওই একই রিপোর্টে আরও দাবি করা হয়েছে, ভারতের সঙ্গে তাদের সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্র যাতে নাক না গলায় তা নিয়ে হোয়াইট হাউসের কর্মকর্তাদের হুঁশিয়ারি দিয়ে রেখেছিল বেইজিং।

প্রতি বছরই মার্কিন কংগ্রেসে চীনের প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত একটি রিপোর্ট পেশ করে পেন্টাগন। সেখানেই বলা হয়েছে, ২০২০ সালেই নিজেদের পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচি নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত নেয় বেইজিং। সেই মতো গত বছর থেকে তাদের অস্ত্র কর্মসূচির ছবিটা পাল্টে যায়।

পেন্টাগনের দাবি, বর্তমান দক্ষিণ চীন সাগরে পিপলস লিবারেশন আর্মি যে ধরনের ডুবোজাহাজ ব্যবহার করেছে, তা দেখেই তাদের এই ধারণা আরও দৃঢ় হয়েছে। সেই সঙ্গেই নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পেন্টাগনের এক শীর্ষ কর্মকর্তার দাবি, চীনের এই সিদ্ধান্তের পিছনে একটা বড় কারণ হল, তাদের তাইওয়ানের বিরুদ্ধে আগ্রাসন নীতি।

যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, বেইজিং বরাবরই গোটা বিশ্বকে বলে এসেছে যে নিজেদের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যার বেশি পরমাণু অস্ত্র তারা বানাবে না। অথচ গত বছর থেকে তাদের অস্ত্র ভান্ডারে বিপুল সংখ্যক পরমাণু অস্ত্র যোগ হতে শুরু করেছে। পেন্টাগনের দাবি, এই সংখ্যাটা আদৌ চমকে দেওয়ার মতো নয়। কারণ গত বছরই তাদের প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছিল যে, আগামী ১০-১২ বছরের মধ্যে চীন অন্তত এক হাজার পরমাণু অস্ত্র নিজেদের দখলে রাখতে চলেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের রিপোর্ট নিয়ে চীনের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি অবশ্য। তবে পেন্টাগনের মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল প্যাট রাইডারের বক্তব্য, গোটা বিষয়টি নিয়ে চীনের অস্বচ্ছতাই তাদের উদ্বেগের মূল কারণ। তার কথায়, চিন্তার বিষয় হল, চীন যত বেশি পরমাণু অস্ত্রের বিস্তার ঘটাবে, দক্ষিণ চীন সাগরের মতো অতি স্পর্শকাতর এলাকায় স্থিতিশীলতা তত কমবে। এ নিয়ে অস্বচ্ছ তথ্যও আমাদের উদ্বেগের বড় কারণ।

;

স্পেনে ইউক্রেনের দূতাবাসে লেটার বোমা বিস্ফোরণ



কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে
স্পেনে ইউক্রেনের দূতাবাসে লেটার বোমা বিস্ফোরণ

স্পেনে ইউক্রেনের দূতাবাসে লেটার বোমা বিস্ফোরণ

  • Font increase
  • Font Decrease

স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে ইউক্রেন দূতাবাসে কূটনৈতিক প্রতিনিধিদের সদর দফতরে লেটার বোমা বিস্ফোরণে একজন আহত হয়েছে।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে ইউক্রেন দূতাবাসে এঘটনা ঘটে। স্প্যানিশ পুলিশ বিস্ফোরণের ঘটনা তদন্ত করছে বলে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

ইউক্রেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওলেগ নিকোলেনকো বলেছেন, মাদ্রিদে ইউক্রেনের দূতাবাসে মেইল বিতরণের অংশ হিসেবে একটি খাম পায়। একজন নিরাপত্তা প্রহরী খামটি চেক করার সময় সেটি বিস্ফোরিত হয়।

তিনি হালকা আঘাত পেয়েছেন, হাসপাতালে ভর্তি আছেন এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সহায়তা পাচ্ছেন।

স্পেনের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বলেছে, আহত কর্মী কোন সাহায্য ছাড়াই একটি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গিয়েছিলেন। পরে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রো কুলেবা সব ইউক্রেনীয় দূতাবাসের নিরাপত্তা দ্রুত জোরদার করার নির্দেশ দিয়েছেন এবং স্পেনকে বিস্ফোরণের ঘটনার তদন্ত করতে বলেছেন।

;

আফগানিস্তানে স্কুলে বোমা হামলায় নিহত অন্তত ১৫



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় সামাঙ্গান প্রদেশে একটি ধর্মীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বোমা বিস্ফোরণে অন্তত ১৫ জন নিহত হয়েছে। স্থানীয় কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এ খবর দিয়েছে আল জাজিরা।

প্রাদেশিক মুখপাত্র এমদাদুল্লাহ মুহাজির বলেছেন, বুধবার (৩০ নভেম্বর) সামাঙ্গনের রাজধানী আইবাকের একটি স্কুলে বিস্ফোরণে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।

তবে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো গোষ্ঠী এই হামলার দায় স্বীকার করেনি।

রাজধানী কাবুল থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার (১৩০ মাইল) উত্তরে আইবাকের একজন চিকিৎসক বলেছেন, নিহতদের বেশিরভাগই যুবক।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি এএফপিকে বলেন, তারা সবাই শিশু ও সাধারণ মানুষ।

খবরে বলা হয়, আফগানিস্তানের সামাঙ্গন প্রদেশের ওই মাদরাসায় বুধবার বেলা ১২টা ৪৫ মিনিটের দিকে বোমা ফাটে। তীব্র বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে চার দিক। তালেবানের পক্ষ থেকে ১০ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। আহত হয়েছেন অন্তত ২০ জন।

শহরের একেবারে প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত জহিদা মাদরাসায় হামলাটি হয়েছে। সেখানে তখন প্রার্থনা সেরে সবে উঠছিলেন ছাত্র এবং শিক্ষকেরা। কাবুলের এক চিকিৎসক জানিয়েছেন, মৃতদের অধিকাংশই শিশু এবং সাধারণ মানুষ।

;