পথশিশু বিশ্বকাপ খেলতে কাতার আসছে বাংলাদেশি ১০ শিশু



তাইফুর রহমান, বার্তা২৪.কম, কাতার
পথশিশু বিশ্বকাপ খেলতে কাতার আসছে বাংলাদেশি ১০ শিশু

পথশিশু বিশ্বকাপ খেলতে কাতার আসছে বাংলাদেশি ১০ শিশু

  • Font increase
  • Font Decrease

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারে মেয়ে পথশিশুদের নিয়ে আয়োজিত ফুটবল খেলতে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারর আসছে বাংলাদেশের সুবিধা বঞ্চিত একদল নারী পথ শিশু।

কেএফসি'র পৃষ্ঠাপোষকতায় আগামী ৮ থেকে ১৫ অক্টোবর কাতারের দোহায় পথশিশু বিশ্বকাপে ১০ জন সুবিধাবঞ্চিত মেয়েদের একটি দল নিয়ে যাচ্ছে বেসরকারি একটি সংস্থা লিডো।

এর আগে কেএফসির গুলশান শাখায় দলটির কাছে জার্সি হস্তান্তর করে ট্রান্সকম ফুডস লিমিটেডের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান। এ সময় দোহায় পথশিশু বিশ্বকাপে অংশ নিতে যাওয়া ১০ নারী পথশিশু, কোচ ও অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় ট্রান্সকম ফুডসের কর্মকর্তারা বলেন, অনুপ্রেরণা এবং আত্মবিশ্বাসই পারে সফল হওয়ার পথে এগিয়ে নিয়ে যেতে। বাংলাদেশ থেকে যাত্রার শুরু থেকেই কেএফসি আলোকবর্তিকা হাতে সমাজে আশার আলো ছড়াতে যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাচ্ছে। সমাজের সুবিধাবঞ্চিত বাচ্চাদের জন্য কিছু করতে পেরে আমরা খুবই  আনন্দিত। আগামীতেউ পথশিশুদের জন্য আরো অনেক কিছু করার প্রত্যয় নিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।

এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ট্রান্সকম ফুডস ও কেএফসির শীর্ষ কর্মকর্তারা।

উল্লেখ্য, গোটা বিশ্বের মনোযোগ এখন কাতারের দোহায়। এবার বিশ্বকাপ ফুটবলের আসর বসছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশে। বিশ্বকাপ ফুটবল শুরুর আগে দোহায় অনুষ্ঠিত হবে এই বিশ্বকাপ। ২৬ দেশ নিয়ে দোহায় অনুষ্ঠিত হবে পথ শিশুদের বিশ্বকাপ আর সেই বিশ্বকাপে বাংলাদেশের নারী পথ শিশুরা অংশগ্রহণ করবেন ।

ই-পাসপোর্ট জটিলতায় স্পেনে ৬০০ প্রবাসীর বৈধ হওয়া অনিশ্চিত!



কবির আল মাহমুদ, স্পেন
ই-পাসপোর্ট জটিলতায় স্পেনে ৬০০ প্রবাসীর বৈধ হওয়া অনিশ্চিত!

ই-পাসপোর্ট জটিলতায় স্পেনে ৬০০ প্রবাসীর বৈধ হওয়া অনিশ্চিত!

  • Font increase
  • Font Decrease

 

স্পেনে মাদ্রিদস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম চালু না হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন ৬ শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশি। ই-পাসপোর্ট নবায়ন না হওয়ায় বৈধ হওয়ার সুযোগ অনিশ্চিত হয়ে পরা ৬শত প্রবাসীদের সমস্যা সমাধানে স্পেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

স্পেনসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ই-পাসপোর্ট নবায়ন জটিলতা এবং বয়স সংশোধনকে কেন্দ্র করে ঘনীভূত হতে থাকা সমস্যার প্রেক্ষিতে বাংলাদেশী মানবাধিকার সংগঠন ভালিয়েন্তে বাংলার উদ্যোগে গত বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে দেশটির রাজধানী মাদ্রিদে বাংলাদেশ দূতাবাসের হলরুমে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় দূতালয় প্রধান এটিএম আব্দুর রউফ মণ্ডল,প্রথম কউন্সিলর(শ্রম) মুতাসিমুল ইসলাম,পলিটিক্যাল কউন্সিলর দীন মোহাম্মদ ইমাদুল হকসহ দূতাবাসের সকল কর্মকর্তার পাশাপাশি স্পেনের বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বাংলাদেশিদের পাসপোর্ট সমস্যা, দূতাবাসে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম চালু, বয়সের গড়মিল, রি-ইস্যু পাসপোর্ট প্রবাসীরা দ্রুত পায় এবং যাদের বয়সের গড়মিল রয়েছে সকলকে সংশোধনের সুযোগ দেওয়ার দাবি জানান।

 বিশেষ করে তথ্য সংশোধন জটিলতায় পাসপোর্ট না পাওয়ার বিষয়টি তারা রাষ্ট্রদূতের নিকট ব্যক্ত করেন এবং ই-পাসপোর্ট নবায়ন না হওয়ায় ৬শত প্রবাসীদের বৈধ হওয়ার সুযোগ অনিশ্চিতসহ পাসপোর্ট না পাওয়ায় সৃষ্ট অভিবাসন জটিলতা তুলে ধরেন। পাসপোর্ট প্রদানকে কেন্দ্র করে দেশে একটি সংঘবদ্ধ ও সক্রিয় দালালচক্রের প্রতারণার কথাও ভুক্তভোগী প্রবাসীগণ রাষ্ট্রদূতকে অবহিত করেন এবং তা প্রতিকারের লক্ষ্যে পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানান।

এসময় রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ উপস্থিত প্রত্যেক ভুক্তভোগীসহ প্রবাসী নেতৃবৃন্দের কথা মনোযোগ সহকারে শোনেন এবং পাসপোর্ট প্রদান প্রক্রিয়ায় দূতাবাসের আইনী সীমাবদ্ধতা পূনর্ব্যক্ত করেন। রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, প্রবাসীদের পাসপোর্ট সমস্যার কথা দূতাবাস নিয়মিতভাবে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে অবহিত করে। রাষ্ট্রদূত তাদের ভোগান্তির কথা সরকারের যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট পুনরায় তুলে ধরবেন বলে আশ্বাস দেন। স্পেনস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত অনিয়মের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স বাস্তবায়ন করে  প্রবাসবান্ধব সরকারের সুফল সাধারণ প্রবাসীদের মাঝে পৌঁছে দিতে প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলেও রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ প্রবাসীদের আশ্বাস দেন।

ভালিয়েন্তে বাংলার সভাপতি মোঃ ফজলে এলাহীর উপস্থাপনায় মতবিনিময় সভায় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ইন স্পেনের সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি আলামীন মিয়া,সাবেক সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান সুন্দর,গ্রেটার ঢাকা অ্যাসোসিয়েশন ইন স্পেনের সাধারণ সম্পাদক মিল্টন ভূঁইয়া কচি, বিক্রমপুর মুন্সিগঞ্জ অ্যাসোসিয়েশন ইন স্পেনের সভাপতি মাহবুবুর রহমান ঝন্টু, নারায়ণগঞ্জ জেলা অ্যাসোসিয়েশন ইন স্পেনের সভাপতি এক্রামুজ্জামান কিরণ, ঢাকা জেলা অ্যাসোসিয়েশন ইন স্পেনের সাধারণ সম্পাদক এম এইচ মাসুদুর রহমান, গ্রেটার সিলেট অ্যাসোসিয়েশনের আব্দুল কায়ূম মাসুক, এইচ এম দবির তালুকদার, সাইফুল মুন্সী ইকবাল, কমিউনিটি নেতা আব্দুল মজিদ সুজনসহ স্পেনের বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সমাজকর্মী এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক গণমাধ্যমের প্রতিনিধিবৃন্দ তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করেন এবং পাসপোর্ট এর সমস্যা নিরসনে দূতাবাসের স্বতঃপ্রণোদিত প্রবাসীবান্ধব উদ্যোগে পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দেন।

অনুষ্ঠানে প্রবাসীরা দূতাবাসের নানান ইতিবাচক উদ্যোগের প্রশংসার পাশাপাশি কয়েকটি নীতিবাচক কর্মকান্ডের সমালোচনা ও করেন।

;

বাংলাদেশে আসতে পারে কাতারের ৯৭৪ স্টেডিয়াম!



তাইফুর রহমান তুষার, বার্তা২৪.কম, কাতার
কাতারের ৯৭৪ স্টেডিয়াম

কাতারের ৯৭৪ স্টেডিয়াম

  • Font increase
  • Font Decrease

মধ্যপ্রাচ্যের দেশে প্রথমবারের মতো আয়োজন হচ্ছে ফুটবল বিশ্বকাপের মহোৎসব। আয়োজক দেশ কাতার ইতিমধ্যে সাড়া ফেলেছে বিশ্বব্যাপী।

কাতারে বিশ্বকাপ ফুটবলের খেলা হচ্ছে আটটি স্টেডিয়ামে। এর মধ্যে একটি স্টেডিয়ামের নাম সবার নজর কেড়েছে। স্টেডিয়ামের নাম নাইন সেভেন ফোর। কিন্তু কেন এমন নাম দেওয়া হলো? এই স্টেডিয়াম নিয়ে ফুটবল দর্শকের যেন কৌতূহলের শেষ নেই।

কেন স্টেডিয়ামের নাম করা হলো নাইন সেভেন ফোর? কারণ ব্যতিক্রমী এই স্টেডিয়াম তৈরি হয়েছে কন্টেইনার দিয়ে। ৯৭৪টা কন্টেইনার দিয়ে তৈরি করা হয়েছে স্টেডিয়ামটি। যেগুলো খেলা শেষে অনায়াসে খুলে ফেলা যাবে। তুলে নেওয়া যাবে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে। কাতারের আয়োজক কমিটি ঘোষণা করেছে খেলা শেষে স্টেডিয়ামটি ফুটবল খেলায় অনুন্নত দেশকে উপহার হিসেবে দেয়া হবে।

এরইমধ্যে বিশ্বকাপের স্মৃতিবিজড়িত এই স্টেডিয়াম বাংলাদেশে আনার পরিকল্পনার কথা শোনা যাচ্ছে। যা নিয়ে অনেক আলোচনাও হয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমে এসেছে। কাতারে অবস্থান করছেন বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ এবং বাফুফের সহসভাপতি আতাউর রহমান মানিক।

তারা সেখানে একটি সভায় এটি নিয়ে আলোচনা তুলেছেন। স্টেডিয়াম খুলে ফেলা হলে সেটি কোথায় নিয়ে যাওয়া হবে, কী কাজে লাগানো হবে? বাংলাদেশ বলছে, তারা নাইন সেভেন ফোর স্টেডিয়ামটি বাংলাদেশে আনতে চায়।

কাতারে সংবাদমাধ্যমকে বাফুফের সম্পাদক সোহাগ জানিয়েছেন, ঢাকায় ফিরে কাতার দূতাবাসের সঙ্গে তারা কথা বলবেন, স্টেডিয়ামটি বাংলাদেশে নেয়ার আগ্রহ প্রকাশ করছে।

;

আরব আমিরাতের জাতীয় দিবস উপলক্ষে ৪ দিনের ছুটি ঘোষণা



তোফায়েল আহমেদ (পাপ্পু),  দুবাই করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সংযুক্ত আরব আমিরাতের ৫১তম জাতীয় দিবস উপলক্ষে ৪ দিনের সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। স্মৃতি দিবসের জন্য আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত সকল অফিস-আদালত বন্ধ থাকবে। ৫ ডিসেম্বর সোমবার থেকে আবার কার্যক্রম শুরু হবে। আরব আমিরাতের স্থানীয় গণমাধ্যম খালিজ টাইমস এ এ-তথ্য জানানো হয়।

জানা যায় সংযুক্ত আরব আমিরাত আনুষ্ঠানিকভাবে ৩০ নভেম্বর দেশের শহীদদের উদযাপন এবং তাদের দান ও ত্যাগ স্বীকার করার জন্য বার্ষিক স্মরণ দিবস পালন করে। দিনটি সালেম সুহাইল বিন খামিসের শাহাদাতের তারিখের সাথে মিলে যায়, যিনি তার জাতীয় দায়িত্ব পালনের সময় ৩০ নভেম্বর, ১৯৭১ সালে মারা যান।

এদিকে ৫১ তম জাতীয় দিবসের আয়োজক কমিটি দ্বারা একটি "মহাকাব্য" অফিসিয়াল শো একত্রিত করা হচ্ছে, এবং যারা সংযুক্ত আরব আমিরাতকে বাড়িতে ডাকে তারা ৩ থেকে ১১ ডিসেম্বর আবুধাবি জাতীয় প্রদর্শনী কেন্দ্রে (অফহবপ) উতসবের অংশ হতে পারে।

অনুষ্ঠানটি ২ ডিসেম্বর সংযুক্ত আরব আমিরাতের জাতীয় দিবসের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট এবং সমস্থ স্থানীয় টিভি চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। “নয় দিন ধরে উদযাপনের ফলে আরও বেশি লোক শো’তে অংশ নিতে পারবে। ৫১তম জাতীয় দিবস উদযাপনের আয়োজক কমিটির যোগাযোগ টিমের মারিয়াম আলমেরাইখি বলেছেন, লোকেরা আমাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট এবং সমস্ত স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেলে ২  ডিসেম্বর সরাসরি সম্প্রচার দেখতে পারে।

;

নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদযাপন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদযাপন

নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদযাপন

  • Font increase
  • Font Decrease

৫২ তম সশস্ত্র বাহিনী দিবস পালিত হয়েছে নিউ ইয়র্কস্থ জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে। স্থানীয় সময় সোমবার (২১ নভেম্বর) দিবসটি উপলক্ষ্যে এক অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এই অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের ডিপার্টমেন্ট অব অপারেশনাল সাপোর্টের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল অতুল খারে, ডিপার্টমেন্ট অব সেইফটি এন্ড সিকিউরিটিজের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল গিলেস মিশউড, জাতিসংঘের মিলিটারি এডভাইজর জেনারেল বিরামে ডিওপসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতগণ (স্থায়ী প্রতিনিধি), ও সামরিক উপদেষ্টাগণ (মিলিটারি এডভাইজর) অংশগ্রহণ করেন। 

অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের ডিফেন্স এডভাইজর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাদেকুজ্জামান আগত অতিথিদের স্বাগত জানিয়ে বক্তব্য রাখেন। এরপর উপস্থিত অতিথিদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য দেন জাতিসংঘ নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ আব্দুল মুহিত। পরবর্তীতে স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত আগত অতিথিদের নিয়ে কেক কাটেন এবং সকলকে নৈশভোজে আমন্ত্রণ জানান।

এসময় সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষ্যে প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়। জাতিসংঘ নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ আব্দুল মুহিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তাঁর বক্তব্য শুরু করেন। তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধের ত্রিশ লক্ষ শহীদ এবং দুই লক্ষেরও বেশী নির্যাতিত নারীর প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে বলেন তাঁদের সংগ্রাম ও আত্মত্যাগের কারণেই আমরা পেয়েছি স্বাধীন, সার্বভৌম বাংলাদেশ। এসময় তিনি ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণার মাধ্যমে শুরু হওয়া মহান মুক্তিযুদ্ধে নবগঠিত সশস্ত্র বাহিনীর গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে সশস্ত্র বাহিনীর অবদান এবং সর্বোপরি দেশের অভ্যন্তরে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা ও নানাবিধ উন্নয়ন কার্যক্রমে সশস্ত্র বাহিনীর অংশগ্রহণের উপর আলোকপাত করেন।

অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিবর্গ শীর্ষ শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশ হিসবে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশ যে অবদান রেখে যাচ্ছে তার ভূয়সী প্রশংসা করেন। এসময় তাঁরা সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণের জন্য ধন্যবাদ জানান।

;