স্থায়ী ক্যাম্পাসে যেতে ২৩ বিশ্ববিদ্যালয়কে ফের চিঠি দিচ্ছে ইউজিসি



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের ২৩ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে স্থায়ী ক্যাম্পাসে স্থানান্তরের সময় ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বৃদ্ধি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। এ সময়ের মধ্যে নিজস্ব ক্যাম্পাসে না গেলে শিক্ষার্থী ভর্তিসহ অস্থায়ী ক্যাম্পাসের সব কার্যক্রম অবৈধ বলে বিবেচিত হবে। পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। চলতি সপ্তাহের মধ্যেই এসব বিশ্ববিদ্যালয়েকে চিঠি দেবে ইউজিসি।

ইউজিসি সূত্রে জানা গেছে, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুযায়ী ১২ বছর পূর্ণ হলেও এখনও দেশের ২৩টি বিশ্ববিদ্যালয় পুরোপুরিভাবে স্থায়ী ক্যাম্পাসে স্থানান্তর হয়নি। কেউ আংশিকভাবে কেউবা নির্মাণাধীন কাজ দেখিয়ে বছরের পর বছর আউটার ক্যাম্পাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বিগত সময়ে নানাভাবে আলটিমেটাম দিলেও এখনো তারা প্রধান ক্যাম্পাসে যায়নি। সে কারণে ইউজিসি থেকে এসব বিশ্ববিদ্যালয়কে শোকজ করা হয়েছে। অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ই শোকজের জবাবে নতুন করে আরও সময় বাড়ানোর অনুরোধ জানায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছে। এই সময়ের পর ২০২৩ সালের ১ জানুয়ারি থেকে স্থায়ী ক্যাম্পাস ছাড়া অস্থায়ী সব ভবনে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম অবৈধ করে বিবেচিত হবে। সেখানে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করে দেওয়া হবে। এ নির্দেশনা অমান্য করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হলো-রাজধানী বনানীর সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটি, ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটি, মোহাম্মদপুরে দি পিপল’স ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, গুলশানের মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়, মোহাম্মদপুরে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি, মোহাম্মদপুর সাতমসজিদ রোডে ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অলটারনেটিভ, ধানমন্ডিতে স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি, ধানমন্ডির কলাবাগানে স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, শান্ত মরিয়ম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজির লালমাটিয়া ও উত্তরায় অস্থায়ী ক্যাম্পাস, রাজারবাগে দি মিলেনিয়াম ইউনিভার্সিটি, গুলশানে প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটি, বনানীতে ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়া, উত্তরা মডেল টাউনে উত্তরা ইউনিভার্সিটি, পান্থপথে ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, বনানীতে প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটি, একই এলাকায় রয়েল ইউনিভার্সিটি অব ঢাকা, ধানমন্ডিতে ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ ও শ্যামলীর আশা ইউনিভার্সিটি রয়েছে।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক ইউজিজির এক শীর্ষ কর্মরোকর্তবা জানান, গতকাল রোববার এ সিদ্ধান্ত এবিষয়ে ইউজিসি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পাশাপাশি বিষয়গুরোকে অনুমোদন ও দেয়া হয়েছে। দু একদিনের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের চিঠি দিয়ে জানয়ে দেয়া হবে।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, অবশিষ্ট ৫১টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৬টি স্থায়ী ক্যাম্পাসে কার্যক্রম শুরু করেছে। বাকিদের মধ্যে কেউ কেউ আংশিক ক্যাম্পাস নির্মাণ করেছে। জমি কিনেছে কিছু প্রতিষ্ঠান। আবার কিছু বিশ্ববিদ্যালয় কোনো ধরনের পদক্ষেপই নেয়নি।

   

বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বিধিমালা সংশোধনের দাবি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম, ঢাকা
কিন্ডারগার্টেন নিবন্ধন নীতিমালা শিথিলের দাবিতে মানববন্ধন। ছবি : সংগৃহীত

কিন্ডারগার্টেন নিবন্ধন নীতিমালা শিথিলের দাবিতে মানববন্ধন। ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিভাগের প্রণীত ‘বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বিধিমালা ২০২৩’ সংশোধনের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ কিন্ডারগার্টেন স্কুল অ্যান্ড কলেজ অ্যাসোসিয়েশন।

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে রবিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) কিন্ডারগার্টেন নিবন্ধন নীতিমালা শিথিল করার দাবিতে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে সংগঠনটির নেতারা বলেন, ‘বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় প্রাক-প্রাথমিক থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত প্রায় ৪ কোটি শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত। এর মধ্যে প্রায় আড়াই কোটি শিক্ষার্থী বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পড়ছে। বিশেষ করে ৫৩ হাজার কিন্ডারগার্টেন প্রায় ৮ লাখ শিক্ষক এবং প্রায় ৪০ লাখ পরিবার এ সেক্টরের উপর নির্ভরশীল। এই সেক্টরের পড়াশোনার মান যেমন ঈর্ষণীয়, তেমনি শিক্ষা উদ্যোক্তার মাধ্যমে বেকারত্ব নিরসনেও গুরুত্বপূর্ণ বূমিকা রাখছে। তাই আমরা বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বিধিমালা ২০২৩ সংশোধনের দাবি জানাচ্ছি।’

নেতারা আরো বলেন, বাংলাদেশে প্রায় ৫৩ হাজারের বেশি ব্যক্তি মালিকানাধীন কিন্ডারগার্টেন ও সমমনা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। যে প্রতিষ্ঠানগুলো শুধু শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সামান্য বেতন নিয়ে ভাড়া বাড়িতে পরিচালিত হচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিভাগ প্রণীত 'বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বিধিমালা ২০২৩-এর নতুন সংশোধনীর কথা গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেখা যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ কিন্ডারগার্টেন স্কুল অ্যান্ড কলেজ অ্যাসোসিয়েশনের দাবিগুলো হলো, কিন্ডারগার্টেন প্রতিষ্ঠানগুলো কিন্ডারগার্টেন স্কুল নামে নিবন্ধন করা, শিক্ষক নিয়োগবিধি শিথিল করা অথবা শিক্ষকদের বেতন সরকারি তহবিল থেকে প্রদান করা এবং কিন্ডারগার্টেন স্কুল নীতিমালা প্রণয়নে কিন্ডারগার্টেন স্কুলের প্রতিনিধি রাখা।

বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল অ্যান্ড কলেজ অ্যাসোসিয়েশনের আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম খন্দকারের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন কিন্ডারগার্টেন ও সমমনা স্কুল রক্ষা জাতীয় কমিটির সাবেক প্রধান সমন্বয়কারী মোহাম্মদ আব্দুল অদুদ, বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল অ্যান্ড কলেজ অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব জি এম জাহাঙ্গীর কবির রানা প্রমুখ।

;

দেশব্যাপী বিজ্ঞান জাদুঘরের বিজ্ঞান শিক্ষা কর্মসূচি জোরদার



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
দেশব্যাপী বিজ্ঞান জাদুঘরের বিজ্ঞান শিক্ষা কর্মসূচি জোরদার

দেশব্যাপী বিজ্ঞান জাদুঘরের বিজ্ঞান শিক্ষা কর্মসূচি জোরদার

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের উদ্যোগে ব্যাপকভাবে ভ্রাম্যমাণ বিজ্ঞান শিক্ষার আয়োজন করা হয়েছে। ওই কর্মসূচির আওতায় ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট গার্লস পাবলিক স্কুল এণ্ড কলেজে প্রায় ৪ হাজার শিক্ষার্থীর উপস্থিতিতে বিজ্ঞান জাদুঘরের বিজ্ঞান শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

এতে সংস্থার ৪ টি আধুনিক বৈজ্ঞানিক উপকরণ সমৃদ্ধ মিউজিয়াম বাস অংশগ্রহণ করে। এর আগে গত ৩ আগস্ট মর্নিং গ্লোরি স্কুল এন্ড কলেজ, সেনা পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ, ৪ ও ৫ আগস্ট বগুড়া পুণ্ড্র ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি, ৬ আগস্ট সাভার ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ২৭ আগস্ট বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, ৩০ আগস্ট শেরেবাংলা নগর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রায় ৮ হাজার শিক্ষার্থীর উপস্থিতি ভ্রাম্যমাণ বিজ্ঞান শিক্ষা কার্যক্রম ও টেলিস্কোপ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।

এ প্রসঙ্গে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের মহাপরিচালক মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী বলেন, ‘দেশব্যাপী এ বিজ্ঞান শিক্ষা কর্মসূচি ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করছে। পুঁথিগত জ্ঞানের সমান্তরালে বিজ্ঞান জাদুঘরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা শিক্ষার্থীদের কাছে বিজ্ঞানকে শিক্ষণীয় ও আকর্ষণীয়ভাবে উপভোগ্য করে তুলছে, যা তরুণ প্রজন্মের মধ্যে বিজ্ঞান শিক্ষার প্রতি ক্রমাগত আকর্ষণ সৃষ্টি করছে। সারাদেশ থেকে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাদুঘরের এ ভ্রাম্যমাণ কার্যক্রমে সম্পৃক্ত হচ্ছে। সম্প্রতি প্রায় ৮ হাজার শিক্ষার্থী এ কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেছে। ভবিষ্যতে বিজ্ঞান জনপ্রিয়তা বৃদ্ধিতে জাদুঘর কর্তৃপক্ষ এ কর্মসূচি সম্প্রসারণ করবে।’

;

হাতের লেখায় সেলিব্রেটি স্কুলছাত্রী



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
হাতের লেখা তাকে সেলিব্রিটি বানিয়েছে

হাতের লেখা তাকে সেলিব্রিটি বানিয়েছে

  • Font increase
  • Font Decrease

সেলিব্রিটি হওয়ার জন্য কত জন কত কিছুই না করেন। সেখানে সেলিব্রিটি হতে নয় পড়াশোনায় ভাল রেজাল্টের তাগিদেই নিজের হাতের লেখা সুন্দর করার অভ্যাস গড়ে তোলেন এক স্কুলছাত্রী। আর তার এ হাতের লেখায় তাকে সেলিব্রিটি বানিয়ে দিয়েছে।

প্রত্যেক মানুষের হাতের লেখার স্টাইল আলাদা। কেউ খুব সুন্দর করে গুছিয়ে লিখতে পারেন। কারও আবার লিখতে গিয়ে লেখা জড়িয়ে যায়, উঁচু-নিচু কিংবা লাইন এঁকে বেঁকে যায়। সুন্দর হাতের লেখার জন্য শিক্ষকদেরও প্রশংসা পাওয়া যায়।

শুধু হাতের লেখা দিয়েই সেলিব্রিটি হয়েছেন নেপালের এক স্কুলছাত্রী প্রকৃতি মাল্য। এই হাতের লেখা দেখলে মনে হয় যেন কম্পিউটারে টাইপ করা। তার হাতের লেখাই নেপালে সবচেয়ে সুন্দর হাতের লেখা হিসেবে বিবেচিত হয়েছে।

বর্তমানে প্রকৃতির বয়স ১৬ বছর। তার বয়স যখন ১৪ বছর সে সময়ই তা অসাধারণ হাতের লেখার জন্য স্যোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হন। তার অসাধারণ হাতের লেখা দেখে মুগ্ধ হয় গোটা বিশ্ব। সে তখন নেপালের সৈনিক ওয়াসিয়া মহাবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী।

সেসময় তার একটি হাতের লেখা স্যোশাল মিডিয়ায় দিলে তা মুহূর্তে ভাইরাল হয়ে যায়। গোটা বিশ্বের নেটিজেনরা পোস্ট দেখে লাইক, কমেন্ট করতে থাকেন। রাতারাতি জনপ্রিয় হয়ে যান প্রকৃতি ও তার হাতের লেখা। প্রকৃতির হাতের লেখা সকলের সামনে আসার পরে হাতের লেখা বিশেষজ্ঞরাও রীতিমতো বিস্মিত।

প্রকৃতি মাল্যের হাতের লেখা দেখে বিশেষজ্ঞরা বলেন, তার প্রত্যেকটি লেখার মাঝখানের ফাঁকা জায়গা গুলো প্রত্যেকটি সমান। তার লেখা প্রায় নিখুঁত। আর তাই তার এই লেখা শুধু নেপাল নয় হয়তো সারা বিশ্বে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে সেরা লেখা।

প্রকৃতির হাতের লেখাকে স্বীকৃতি দিয়েছেন নেপাল সরকার। বলা হয়েছে, নেপালের সেরা হস্তাক্ষর এটি। নেপাল সশস্ত্র বাহিনীও তাকে পুরস্কৃত করেছে। সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে তিনি এখন সকলের কাছে সেলিব্রিটি।

;

১৮ জন প্রধান শিক্ষককে নোটিশ মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার



স্টাফ করেসপনডেন্ট, বার্তা২৪.কম, টাঙ্গাইল
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে ৫০তম গ্রীষ্মকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগীতা প্রস্তুতিমূলক সভায় অংশ না নেওয়ায় ১৮টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও দাখিল মাদরাসার সুপারকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। 

মঙ্গলবার (২৯ আগস্ট) দুপুরে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, ৫০তম গ্রীস্মকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগীতা উপলক্ষে গত ২৪ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে প্রস্তুতিমূলক সভার আয়োজন করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোছাঃ নার্গিস আক্তার। সভায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ বেলাল হোসেন। সভায় উপজেলার মাধ্যমিক ও দাখিল মাদরাসার ১৮ জন প্রধান শিক্ষক ও সুপারগণ কোনো কারণ ছাড়াই অনুপস্থিত ছিলেন। 

এ বিষয়টি নিয়ে সভায় উপস্থিত অতিথিবৃন্দ ও অন্যান্য প্রধান শিক্ষক এবং সুপারদের মাঝে নানা আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে গত রবিবার (২৭ আগস্ট) সভায় অনুপস্থিত ১৮ জন প্রধান শিক্ষক/সুপার উপস্থিত না থাকার মর্মে ব্যাখা চেয়ে ৭ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান।

নোটিশে আরও বলা হয়, ৭ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোতে না পারলে বা সন্তোষজনক জবাব না পেলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বিভাগীয় ঊধ্বর্তন কর্মকর্তাদের কাছে সুপারিশ করা হবে। কারণ দর্শানো নোটিশের বিষয়ে জানতে চাইলে একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক ও সুপার নানা অজুহাতে এড়িয়ে যায়।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, গত ২৪ আগস্ট ৫০তম গ্রীষ্মকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগীতা (খেলাধুলা) প্রস্তুতি সভায় যেসকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক ও সুপার উপস্থিত ছিলেন না, তাদেরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। নোটিশের সন্তোষজনক জবাব না পেলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

;