সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য এবার ৫০ হাজার বই বিতরণ করেছে বিকাশ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য এবার ৫০ হাজার বই বিতরণ করেছে বিকাশ

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য এবার ৫০ হাজার বই বিতরণ করেছে বিকাশ

  • Font increase
  • Font Decrease

সুবিধাবঞ্চিত শিশু-কিশোরদের পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে এ বছর দেশজুড়ে ৭৪টি স্কুল এবং ব্যক্তি উদ্যোগের লাইব্রেরিতে ৫০ হাজার বই বিতরণ করেছে বিকাশ। বইগুলোর একটি অংশ বিকাশের উদ্যোগে একুশে বইমেলায় আসা পাঠক-লেখক-দর্শনার্থীদের কাছ থেকে এবং সুপারশপ আগোরা ও মীনা বাজার, কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান, মিডিয়া হাউজ, সকল বিকাশ কাস্টমার কেয়ার, কাস্টমার সেন্টার ও বিকাশের অফিসগুলো থেকে সংগৃহীত হয়। এর সঙ্গে বিকাশের পক্ষ থেকে আরো বই যুক্ত করে মোট এই ৫০ হাজার বই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত শিশু-কিশোরদেরকে বিতরণ করা হয়।

নির্ভয় ফাউন্ডেশন, অদম্য ১৯, চারুলতা, আলোর দিশারী, ইগনাইট ফাউন্ডেশন, আলোর ধারা স্কুল, ড্রিম স্কুল, আলোর ভুবন গ্রন্থাগার, খিলগাও পাঠশালা, সবার পাঠশালা, হাতে খড়ি ফাউন্ডেশন, তাকওয়া ফাউন্ডেশন, ষ্টেশন পাঠাগার, হেল্প স্কুল ও অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশন পরিচালিত সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের স্কুলসহ আরো কিছু প্রতিষ্ঠানে বইগুলো বিতরণ করা হয়।

২০২০ সাল থেকেই বাংলা একাডেমির বইমেলায় আসা পাঠক-লেখক-দর্শনার্থীদের নিয়ে এই কার্যক্রমকে গতিশীল করতে বই সংগ্রহ করে বিতরণ শুরু করে বিকাশ। এই নিয়ে, গত তিন বছরে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য মোট ৭২,৫০০ বই দিলো বিকাশ।

সব ধরনের বই পড়তে পারার আনন্দ নিয়ে শিশুপল্লী স্কুলের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র শোয়েব বলেন, “বই আমার কাছে সব। সায়েন্স ফিকশন, নভেল আমার পছন্দের হলেও বিকাশ সব ধরণের বই দিয়েছে। এসব দেশী বিদেশী বই আমাদেরকে পড়াশোনার বাইরেও আরো অনেক কিছু জানার সুযোগ করে দিচ্ছে।”

ঢাকার হাইকেয়ার স্কুলের প্রিন্সিপাল (ভারপ্রাপ্ত) রওশন আরা বেগম বলেন, “বইগুলো আমাদের বাচ্চাদের বুদ্ধি বিকাশে সহায়তা করবে। সেই সাথে তাদের কল্পনাশক্তি বাড়বে এবং তারা নিজেরাও লেখালেখি ও গল্প বলায় অনুপ্রাণিত হবে।”

অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা আহমেদ ইমতিয়াজ জামি বলেন, “তিন বছর ধরে সুবিধাবঞ্চিত শিশু-কিশোরদের জন্য বই সংগ্রহ ও বিতরণ করে আসছি। এ বছর আমরা দেশের আটটি বিভাগের স্কুল ও লাইব্রেরিতে বই বিতরণ করেছি। এই প্রোগ্রাম আমরা আগামীতেও অব্যাহত রাখার চেষ্টা করবো।”

বিকাশের চিফ মার্কেটিং অফিসার মীর নওবত আলী বলেন, “বিকাশ সবসময়ই সৃজনশীল, মেধা-বিকাশ উদ্যোগের সাথে সম্পৃক্ত থাকার চেষ্টা করে। ভবিষ্যতেও সমাজের পিছিয়ে পড়া শিশু কিশোররা যাতে সব ধরণের বই পড়ে নিজেদেরকে বিকশিত করতে পারে, সেই চেষ্টা অব্যাহত রাখবে বিকাশ।”

উল্লেখ্য, বিকাশ সব সময়ই বইয়ের সঙ্গে থেকেছে। আগামী প্রজন্মের মাঝে বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে দেশের দায়িত্বশীল কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান হিসেবে ২০১৪ সাল থেকে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের বই পড়া কর্মসূচির সাথে যুক্ত আছে। এ পর্যন্ত সারাদেশের ২৯০০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ২,৫৩,৬০০ বই দিয়েছে বিকাশ যা সরাসরি ২৬ লাখ শিক্ষার্থীকে বই পড়ার সুযোগ দিয়েছে। এছাড়া মুজিব শতবর্ষ উদযাপন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষ্যে স্কুলের শিক্ষার্থীদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত করতে সারাদেশে বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যমের ৫০০টি স্কুলে ২০ হাজার কপি গ্রাফিক নভেল ‘মুজিব’ বিতরণ করেছে যা প্রায় আড়াই লাখ শিক্ষার্থীর মাঝে পৌঁছে গিয়েছে। বই কিনতে উৎসাহিত করতে গত আট বছর ধরে বইমেলা উপলক্ষ্যে বই কেনায় ক্যাশব্যাকও দিয়ে আসছে বিকাশ। পাশাপাশি বাঙালি জাতির প্রাণের উৎসব অমর একুশে বইমেলায় বিকাশ গত চার বছর ধরে মূল পৃষ্ঠপোষক হিসেবে বাংলা একাডেমির সাথে কাজ করে আসছে।

‘রমজানে পণ্যের দাম না কমলেও যৌক্তিক মূল্য নির্ধারণ হবে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন রমজান মাসে পণ্যের দাম না কমলেও যৌক্তিক মূল্য নির্ধারণ করা হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তিনি আরও জানান, যৌক্তিক মূল্যে পণ্য সরবরাহ নিশ্চিত করতে সমন্বয় কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে সচিবালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

চিনির দাম এখনো কেন নিয়ন্ত্রণে আসছে না জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, চিনি নিয়ে কিছুটা অসুবিধা হয়েছে। আমাদের কাগজপত্র বলে প্রচুর পরিমাণে চিনি পাইপলাইনে অথবা দেশে আছে। আমরা চেষ্টা করছি, ভোক্তা অধিকার বিভিন্ন জায়গায় হানা দিচ্ছে, জরিমানা করছে। আমরা চিন্তা করছি, দরকার পড়লে যদি জেলে পাঠানো ব্যবস্থা করা যায়, কারাগারে পাঠানোর স্কোপ থাকে, আমরা করবো। আমার ধারণা, দাম যেটা বেশি আছে সেটা কমে আসবে। আজকেও কথা হয়েছে।

আরেক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রাতারাতি সব কিছু বদলে দেয়া যাবে না। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেশি। যে দাম এসেছিল, সেটা বিবেচনায় নিয়ে লোকসান করে কেউ বিক্রি করবে না। পণ্য সরবরাহ যাতে ঠিক থাকে সেটা নিয়ে আমরা কাজ করছি। রমজান মাসকে সামনে রেখে বাংলাদেশ ব্যাংক আগামী ২-৩ দিনের মধ্যে এলসির (আমদানি ঋণপত্র) বিষয়ে পরিষ্কার নির্দেশনা দেবে। রমজান মাসে দাম কমে যাবে তা বলছি না, অন্তত যৌক্তিক মূল্য যেটা হওয়া উচিত আজকের বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে সেই হিসাবটা মাথায় রেখে যেন সরবরাহ ঠিক মতো পাওয়া যায়।

মজুতকারীদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হবে কি না জানতে চাইলে টিপু মুনশি বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর আছে, তারা দেখছে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান আছে। আমরা আমাদের সাধ্য মতো চেষ্টা করছি।

কিছু সমস্যা আছে সেটা অস্বীকার করতে পারি না। যারা চিনি উৎপাদন করে তাদের নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহ দরকার। গ্যাস সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেলে তারা উৎপাদন করতে পারবে না, সেখানে সমস্যা রয়েছে। আমরা সবাই জানি, কোথাও না কোথাও, কিছু না কিছু সমস্যা আমাদের রয়েছে। এ সব কিছুকে আরও ভালো করে দেখার জন্য একটি সমন্বয় কমিটি আমরা শিগগির করবো।

;

কেরানীগঞ্জ খোলামোড়ায় স্বপ্ন’র নতুন আউটলেট



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
কেরানীগঞ্জ খোলামোড়ায় স্বপ্ন’র নতুন আউটলেট

কেরানীগঞ্জ খোলামোড়ায় স্বপ্ন’র নতুন আউটলেট

  • Font increase
  • Font Decrease

কেরানীগঞ্জ খোলামোড়ায় নতুন আউটলেট চালু করল দেশের অন্যতম রিটেইল চেইন শপ ‘স্বপ্ন’। ৩০ নভেম্বর বিকেল ৪টায় কেরানীগঞ্জ খোলামোড়ায় নতুন এই আউটলেটের উদ্বোধন করা হয়।

এ সময় স্বপ্ন'র হেড অব বিজনেস এক্সপ্যানশন মো: শামসুজ্জামান, প্রধান অতিথি হিসেবে সমাজসেবিকা আয়েশা আখতার রুমা, বিশেষ অতিথি মোঃ এরশাদ মিয়া, রাজারবাগ, ডিএমপি, অফিসার ইনচার্জ , কেরানীগঞ্জ মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ মামুনুর রশিদ মামুন, পাকিজা গ্রুপের প্রধান ডিজাইনার মনোয়ার হোসেন খান উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া স্বপ্ন ফ্রাঞ্চাইজি শেখ মোঃ কামরুল আলম টুটুল, ফ্যাশন ডিজাইনার,বেক্সিমকো এবং শেখ মনিরুল আলম শামিম উপস্থিত ছিলেন।

স্বপ্নর নির্বাহী পরিচালক সাব্বির হাসান নাসির বলেন, স্বপ্ন এখন দেশের ৪৩ টি জেলায়। কেরানিগঞ্জ খোলামোড়ায় অনেক দিন ধরেই আমরা একটি অত্যাধুনিক আউটলেট করার পরিকল্পনা করছিলাম। এখানে আমাদের সেবার পরিসর আরও বিস্তৃত হবে। আশা করছি, স্বাস্থ্যসম্মত ও নিরাপদ পরিবেশে গ্রাহকরা স্বপ্নর এই আউটলেটে নিয়মিত বাজার করবেন।

স্বপ্নর অপারেশনস ডিরেক্টর আবু নাছের জানান, নতুন এই আউটলেটে থাকছে মাসব্যাপী নানা অফার এবং হোম ডেলিভারি সেবা।

;

ইসলামী ব্যাংকের ও.আর. নিজাম রোড শাখা স্থানান্তর



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ইসলামী ব্যাংকের ও.আর. নিজাম রোড শাখা স্থানান্তর

ইসলামী ব্যাংকের ও.আর. নিজাম রোড শাখা স্থানান্তর

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর ও.আর. নিজাম রোড শাখার নতুন ঠিকানা স্যানমার টাওয়ার-১, ৫৯১৪/সি সিডিএ এভিনিউ, পূর্ব নাসিরাবাদ রোড, চট্টগ্রামে স্থানান্তর করা হয়েছে।

৩ ডিসেম্বর ২০২২ ব্যাংকের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ও সিইও মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা প্রধান অতিথি হিসেবে নতুন স্থানে শাখার উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ব্যাংকের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মিফতাহ উদ্দিন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জোন প্রধান মিয়া মোহাঃ বরকত উল্লাহ এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ২৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর লায়ন মোহাম্মদ ইলিয়াস। চট্টগ্রাম উত্তর জোনপ্রধান মোহাম্মদ নুরুল হোসাইনের সভাপতিত্বে গ্রাহক ও শুভানুধ্যায়ীদের মধ্যে বক্তব্য দেন প্রাক্তন জেলা সেশন জজ মোঃ জসিম উদ্দিন, চট্টগ্রাম ইন্সটিটিউট অব অ্যাপ্লাইড হেলথ সাইন্সের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শফিউল হাসান, চট্টগ্রামের পার্কভিউ হাসপাতাল প্রা. লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. এ টি এম রেজাউল করিম, ওয়েল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সিরাজুল ইসলাম কমু। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন শাখা ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আসিফুল হক চৌধুরী। এতে শাখার কর্মকর্তা, গ্রাহক ও শুভানুধ্যায়ীগণ উপস্থিত ছিলেন।

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, বর্তমানে ইসলামী ব্যাংকের আমানত ১ লাখ ৫২ হাজার কোটি টাকা এবং বিনিয়োগ ১ লাখ ৩৮ হাজার কোটি টাকা। দেশের অধিকাংশ বৃহৎ শিল্প গ্রুপসহ তৈরি পোশাক শিল্প, হাউস বিল্ডিং, পরিবহন সেক্টর, শিল্প কারখানা, কৃষি উন্নয়নসহ বিভিন্ন সেক্টরে ইসলামী ব্যাংক বিনিয়োগ করেছে। এর মাধ্যমে প্রায় ৮৫ লাখ লোকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে পল্লী উন্নয়ন কর্মসূচির মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরীকরণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে ইসলামী ব্যাংক। সারা দেশে প্রায় ৩০ হাজার গ্রামের ১৬ লক্ষ প্রান্তিক মানুষের মাঝে এ ব্যাংকের মাধ্যমে ক্ষুদ্র বিনিয়োগ কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে।

তিনি বলেন, দেশের এক তৃতীয়াংশ রেমিট্যান্স আহরণের মাধ্যমে এ ব্যাংক দেশের রিজার্ভ বৃদ্ধিতে অবদান রাখছে। এছাড়া আমদানি ও রফতানি বাণিজ্যে শীর্ষে অবস্থান করছে ইসলামী ব্যাংক। সম্প্রতি দ্য এশিয়ান ব্যাংকার কর্তৃক ২০২২ সালে বাংলাদেশের সবচেয়ে শক্তিশালী ব্যাংক হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে ইসলামী ব্যাংক। তিনি সম্প্রতি বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইসলামী ব্যাংকের বিষয়ে নেতিবাচক প্রচারণায় বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য গ্রাহকদের অনুরোধ জানান।

;

সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের ‘প্রবাসী গ্রাহক সেবা পক্ষ- ২০২২’ এর উদ্বোধন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের ‘প্রবাসী গ্রাহক সেবা পক্ষ- ২০২২’ এর উদ্বোধন

সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের ‘প্রবাসী গ্রাহক সেবা পক্ষ- ২০২২’ এর উদ্বোধন

  • Font increase
  • Font Decrease

‘থাকবো ভালো, রাখব ভালো দেশ, বৈধ পথে প্রবাসী আয়, গড়ব বাংলাদেশ’ শ্লোগানকে সামনে রেখে আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস উপলক্ষে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক ১৫ দিনব্যাপী “প্রবাসী গ্রাহক সেবা পক্ষ- ২০২২” কর্মসূচি শুরু করেছে।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে প্রধান অতিথি হিসেবে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. মোঃ মাহবুব উল আলম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী জাফর আলম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন চিফ রেমিট্যান্স কর্মকর্তা মোঃ মোশাররফ হোসাইন।

এ সময় ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু রেজা মোঃ ইয়াহিয়া, উপ ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ সামছুল হক ও মোহাম্মদ ফোরকানুল্লাহ, মানবসম্পদ বিভাগের প্রধান কাজী ওবায়দুল আল-ফারুক, আন্তর্জাতিক বিভাগের প্রধান মোঃ আকমল হোসাইন, ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের বিভাগীয় প্রধানগণসহ ঊর্ধ্বতন নির্বাহীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন ব্যাংকের বিভিন্ন অঞ্চলের আঞ্চলিক প্রধান, সকল শাখার ব্যবস্থাপক ও উপশাখার ইনচার্জবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে বক্তারা দ্রুত ও নিরাপদে প্রিয়জনের কাছে রেমিট্যান্স পৌঁছাতে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের উপর আস্থা রাখতে রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের প্রতি আহ্বান জানান। তাঁরা বলেন, সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক বৈধপথে দেশে রেমিট্যান্স আনতে সকলকে উদ্বুদ্ধ করছে ও আকর্ষণীয় সুযোগ সুবিধা প্রদান করছে।

;