গ্যাসের মহাসংকট আরও বাড়তে পারে!



সেরাজুল ইসলাম সিরাজ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
গ্যাসের মহাসংকট আরও বাড়তে পারে!

গ্যাসের মহাসংকট আরও বাড়তে পারে!

  • Font increase
  • Font Decrease

গ্যাস সংকট নিয়ে জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা অনেক আগে থেকেই সতর্ক করে আসছিলেন। তাদের কথা কানেই নেয় নি জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ। আমদানিমুখী নীতি পরিহার না করলে পরিস্থিতি আরও অবনতির শঙ্কা করা হচ্ছে।

গ্যাস সংকটের কারণে কয়েকদিন ধরেই সারাদেশে ব্যাপক লোডশেডিং করা হচ্ছে। বিদ্যুতে যেখানে ২২’শ এমএমসিএফডির মতো চাহিদা, ৪ জুলাই মাত্র ৮৭৯ এমএমসিএফডি সরবরাহ করা হয়েছে। গ্যাস সংকট হলে তেলের যোগান বাড়ানোর রেওয়াজ পুরনো, সেই তেলের বাজারও দিনদিন নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে। যে কারণে আপাতত লোডশেডিংকেই অবলম্বন মনে করছে বাংলাদেশ।

আন্তর্জাতিক জালানি বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলী খন্দকার সালেক সূফী বার্তা২৪.কমকে বলেছেন, আজকের এই সংকটের মুলে রয়েছে তেল-গ্যাস অনুসন্ধ্যানে কয়েক দশকের স্থবিরতা। যার পুঞ্জিভূত ফল আজকের এই মহাসংকট। যদি যথাযথভাবে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান ও উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করা যেতো তাহলে আজকে এই সংকট হতো না। আমি মনে করি পরিস্থিতি আরও জটিল হতে পারে। সবচেয়ে বড় গ্যাস ফিল্ড বিবিয়ানার রিজার্ভ কমে আসছে এখানে যে কোন সময় উৎপাদনে ধ্বস নামতে পারে। আমরা কয়েক বছর ধরেই বলে আসছি, কিন্তু কানেই নেওয়া হয় নি। তেল-গ্যাস অনুসন্ধানের চেয়ে আমদানিতে বেশি মনযোগ দেখা গেছে।

তিনি আরও বলেন, পেট্রোবাংলার মতো স্পেশালাইজড প্রতিষ্ঠানের শীর্ষপদে এবং বাপেক্সের মতো গুরুত্বপুর্ণ প্রতিষ্ঠানে যদি ননটেকনিক্যাল লোকদের বসিয়ে রাখা হয়। তার ফল বুঝতে জ্যোতিষি হতে হয় না। সরকারের উচিত হবে নন টেকনিক্যাল লোকদের সরিয়ে এখনই তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে বিশেষ কর্মসূচি শুরু করা। না হলে বড় ধরনের বিপরর‌্যয় নেমে আসতে পারে।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ বদরুল ইমাম বলেন, আমরা পথ হারিয়ে ফেলেছি। এখনই সঠিক পথে না গেলে বিপদ আরও বাড়বে। এখন আর স্বাভাবিক কর্মসূচি দিয়ে কাজ হবে না। বিশেষ ঝটিকা কর্মসূচি পরিচালনা করা দরকার। কিছু ওয়ার্কওভার করতে পারলে অল্প সময়ে উৎপাদন বৃদ্ধি করা সম্ভব।

বদরুল ইমাম সম্প্রতি অনুষ্ঠিত গ্যাসের দাম বৃদ্ধির গণশুনানিতে অংশ নিয়ে বলেন, দেশীয় গ্যাস ফিল্ডগুলোর উপর একটি সমীক্ষা পরিচালনা করে আন্তর্জাতিক কোম্পানি স্লামবার্জার। ২০১১ সালে দাখিলকৃত রিপোর্টে বলা হয় বিদ্যমান গ্যাস ফিল্ডগুলোর সংস্কার করে ৪০০ থেকে ৮০০ এমএমসিএফডি গ্যাস উৎপাদন বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। এতে খরচ হতে পারে সর্বোচ্চ ১২৫ মিলিয়ন ইউএস ডলার। ১১ বছর পেরিয়ে গেলেও সেই রিপোর্ট রয়ে গেছে অন্ধকারে।

যদিও সম্প্রতি ওয়ার্কওভারের মধ্যেমে গ্যাসের উৎপাদন বাড়ানোর কার‌্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এরই মধ্যে কিছু কিছু সাফল্যও এসেছে। কিন্তু এতোদিন কেনো করা গেলো সেই প্রশ্নের উত্তর মিলছেনা কারও কাছেই।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. ইজাজ হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেছেন, হঠাৎ করে যদি সত্যি সত্যি কয়েকটা কূপ বন্ধ হয়ে যায়, সত্যি একটা জটিল সমস্যার মধ্যে পড়বো। তখন আমাদের তেল ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বেশি চালাতে হবে, গ্যাস ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বসিয়ে রাখতে হবে, রেশনিং করতে হবে। তখন একটি জটিল অংক তৈরি হবে। আমরা একটি অত্যন্ত শোচনীয় জায়গায় অবস্থান করছি। কপাল ভাল হলে ২০২৭-২০২৮ পর‌্যন্ত গ্যাস পাওয়া যাবে। আর খারাপ হলে দু্’এক বছরেই মধ্যেই সমস্যা দেখা দিতে পারে।

তিনি আরও বলেন, ২০২২ সালে বিবিয়ানা ড্রাই (গ্যাস শেষ) হবে এটাতো অংক করে বলা হয়েছে, এটা সবাই জানে। বিবিয়ানাতে আর বেশি গ্যাস থাকার কথা না। কতটা রিজার্ভ ছিল আর কতটা উত্তোলন করা হয়েছে সে হিসেব করলেইতো ফল বের হয়। তিতাস গ্যাস ফিল্ড অনেক আগেই শেষ হয়ে যাওয়ার কথা, ওখানে আমরা বুঝে শুনে কাজটি করছি। বিবিয়ানাতো বিদেশিদের হাতে তাদেরতো যতো বেশি উৎপাদন ততো লাভ। অতিরিক্ত উৎপাদন করে বাখরাবাদের কুপগুলোকে নষ্ট করা হয়েছে।

পেট্রোবাংলা সুত্র জানিয়েছে, রাষ্ট্রীয় কোম্পানি বাপেক্স ও সিলেট গ্যাস ফিল্ডের গ্যাসের প্রতি ঘনমিটারের গড় ক্রয়মূল্য পড়ছে ১.২৬ টাকা, বহুজাতিক কোম্পানি শেভরন থেকে ২.৮৯ টাকা, তাল্লো থেকে ৩.১০ টাকা করে দরে কেনা হচ্ছে। অন্যদিকে এলএনজির ক্রয়মূল্য ৩৬.৬৯ টাকা অন্যান্য চার্জ দিয়ে ৫০.৩৮ টাকা পড়ছে।

বর্তমানের চাহিদাই গ্যাস সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না, প্রতিদিনেই রেশনিং করতে হচ্ছে, তারপরও ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। সংকট সামাল দিতে গিয়ে অনেক গ্যাস ফিল্ড থেকে অত্যন্ত ঝূঁকিপুর্ণভাবে বাড়তি গ্যাস উৎপাদনের পথ বেছে নিয়েছে। দেশীয় গ্যাস ফিল্ডগুলোর উৎপাদন দিনে দিনে কমে যাচ্ছে। সিলেট গ্যাস ফিল্ডের উৎপাদন ক্ষমতা অর্ধেকে নেমে এসেছে। আগে ১৪৯ এমএমসিএফডি উৎপাদন ক্ষমতা থাকলেও কমবেশি ৮৬ এমএমসিএফডি গ্যাস উত্তোলন হচ্ছে। এক সময় বাংলাদেশ সবগুলো গ্যাস ফিল্ড থেকে ২৭০০ এমএমসিএফডি পর‌্যন্ত উৎপাদন করেছে। ৪ এপ্রিল উৎপাদন করেছে মাত্র ২৩’শ এমএমসিএফডি। ২০২৩ সাল নাগাদ গ্যাস উৎপাদনে বড় ধরণের ধ্বংস নামতে পারে বলে শঙ্কা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশে ২৮টি গ্যাস ফিল্ড আবিষ্কৃত হয়েছে। এসব ফিল্ডে প্রমাণিত মজুদের পরিমাণ ২১ দশমিক ৪ টিসিএফ, আরও ৬ টিসিএফ রয়েছে সম্ভাব্য মজুদ ধারণা করা হয়। এরমধ্যে প্রায় সাড়ে ১৮ টিসিএফ উত্তোলন করা হয়েছে। সে হিসেবে প্রমাণিত মজুদ অবশিষ্ট রয়েছে মাত্র ৩ টিসিএফ, আর সম্ভাব্য মজুদ রয়েছে আরও ৭ টিএসএফ’র মতো। প্রতি বছর প্রায় ১ টিসিএফ’র মতো গ্যাস উত্তোলিত হচ্ছে এতে প্রমাণিত মজুদ ২০২৪ সালে শেষ হয়ে যাওয়ার কথা। অন্যদিকে দ্রুত শিল্পায়ন ও ঘরে ঘরে বিদ্যুতের কারণে গ্যাসের চাহিদাও প্রতি বছর বেড়ে যাচ্ছে।

কয়েক বছর ধরেই গ্যাস সংকটের কথা উঠলেই আমদানির কথা বলে আসছে পেট্রোবাংলা। আমদানিকে যেভাবে সামনে আনা হয়েছে বাস্তবতা মোটেই অনুকূলে নয়। অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে এফএসআরইউ (ফ্লোটিং স্টোরেজ রি-গ্যাসিফিকেশন ইউনিট) ১ হাজার এমএমসিএফডি এলএনজি আমদানি করার সক্ষমতা অর্জণ করেছে। এই এলএনজি আমদানির পরিকল্পনা ছিল ২০১৪ সালে। বাস্তবায়ন হতে আর ৫ বছর বেশি সময় লেগে যায়, ২০১৮ সালের আগস্টে প্রথম ইউনিট ৫০০ এমএমসিএফডি আনতে সক্ষম হয়। দ্বিতীয় ইউনিট এসেছে ২০১৯ সালের এপ্রিলে। সাগর উত্তাল হলেই সরবরাহে বিঘ্ন ঘটে। এলএনজি আমদানি বাড়াতে মাতারবাড়িতে ১ হাজার এমএমসিএফডি ক্ষমতা সম্পন্ন ল্যান্ডবেজড এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ২০২৪ সালের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার কথা। এখনও টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ করা যায় নি। অন্যদিকে মাতারবাড়িতে ও পায়রাতে পৃথক দু’টি এফএসআরইউ স্থাপনের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে, সেগুলোও এখন কাগজে সীমাবদ্ধ। চুক্তির পর ১৮ মাসের অধিক সময় প্রয়োজন পড়বে।

অর্থাৎ ঘাটতি বেড়ে গেলেও বাড়তি এলএনজি আমদানির ‍পথ প্রায় বন্ধ। এরসঙ্গে রয়েছে অস্থিতিশীল আন্তর্জাতিক বাজার দরের ইস্যু। যার ফল আমরা হাড়ে হাড়ে টেরপেতে শুরু করেছি।

বাংলাদেশ ভূখণ্ডে স্বাধীনতার পর মাত্র ৬৮টি অনুসন্ধান কূপ খনন করা হয়েছে, ত্রিপুরা তার স্বল্প আয়তনে কূপ খনন করেছে ১৬০ টি। ত্রিপুরা ১৬০টি কূপ খনন করে মাত্র ১১টি গ্যাস ফিল্ড আবিষ্কার করেছে। বাংলাদেশ গত ১১০ বছরে মাত্র ৯৫টি কূপ খননের মাধ্যমে ২৮টি গ্যাসক্ষেত্র আবিস্কার হয়েছে। বাংলাদেশের সফলতার হার উচ্চ হলেও এখন তিমিরেই রয়ে গেছে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান। ১৯৯৫ সালের জ্বালানি নীতিমালায় বছরে ৪টি অনুসন্ধান কূপ খননের কথা বলা হলেও কোনো সরকারেই তা মেনে চলেনি। বিশাল সমুদ্রসীমা অর্জণ করলেও সেখানে কোনো কাজ করা যায় নি। সাগরে পিএসসি (উৎপাদন বন্টন চুক্তি) আহ্বান করা হলে আগ্রহ দেখাচ্ছেনা বিদেশি কোম্পানিগুলো।

কোম্পানিগুলোর অভিযোগ ইতোপুর্বে সাগরে পরিচালিত সিচমিক সার্ভের তথ্য পেট্রোবাংলা তালাবদ্ধ করে রেখেছে। এগুলো না দেখতে পেলে খালি খালি কেউ জলে টাকা ঢালতে আসবে না। অতীতে এই তথ্য কেনার জন্য উন্মুক্ত থাকলেও এখন রহস্যজনক কারণে তালাবদ্ধ করা হয়েছে। আর পেট্রোবাংলার কর্তাদের অনুযোগ হচ্ছে পর‌্যাপ্ত তথ্য না থাকায় বিদেশি কোম্পানিগুলো আসতে চাইছে না। যদিও পেট্রোবাংলার এই মতের সঙ্গে অনেকেই একমত নন। তারা হিসেব করে দেখিয়ে দিয়েছেন প্রতিবেশি ভারত ও মায়ানমারের চেয়ে অনেক বেশি তথ্য রয়েছে বাংলাদেশের হাতে।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা মনে করেন বঙ্গবন্ধু সরকার ছাড়া আরও কোনো সরকারেই এই দিকে যথেষ্ট মনযোগ দিতে ব্যর্থ হয়েছে। গ্যাসের ঘাটতি মোকাবেলায় আরেকটি ভালো উপায় হতে পারতো দেশীয় কয়লার বিশাল মজুদ।কিন্তু সেই ট্রেন মিস করেছে বাংলাদেশ।

জ্বালানি বিভাগের যখন বেহাল অবস্থা, তখন বিদ্যুৎ বিভাগ নতুন নতুন গ্যাস ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বাস্তবায়ন করে চলেছে। ২০১৬ সালের রিভাইস মাস্টারপ্লান অনুযায়ী ২০২২ সালে ১১৮৮ মেগাওয়াট নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্র যুক্ত হওয়ার কথা।

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের সদস্য (গ্যাস) মকবুল ই ইলাহী চৌধুরী বলেন, আমরা এখন যেভাবে আমদানি নির্ভরতার দিকে যাচ্ছি ২০৩০ সালে ২৫-৩০ বিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে জ্বালানি আমদানিতে। ফরেন রিজার্ভের সিংহভাগ যদি জ্বালানি ব্যয় করি তাহলে উন্নত দেশে যাওয়া কঠিন হয়ে পড়বে। দেশে গ্যাসের সম্ভাবনা নেই যাদের এই দর্শনে বিশ্বাস রয়েছে, তারা দয়া করে রাস্তাটা ছেড়ে দেন। জরুরি ভিত্তিতে দেশীয় গ্যাস ফিল্ডগুলোর সংস্কার করে উৎপাদন বৃদ্ধি করা উচিত। এখন সমস্যা হচ্ছে বঙ্গবন্ধু ৩দিনে যে সিদ্ধান্ত দিতেন, সেটি এখন ৩ মাসেও হয় না।

ডলার সংকট: ৬ ব্যাংকের ট্রেজারি প্রধানকে অপসারণের নির্দেশ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চলমান ডলার সংকটের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ছয় ব্যাংকের ট্রেজারি প্রধানকে অপসারণের নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

পাঁচটি দেশি ও একটি বিদেশি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর সোমবার (৮ আগস্ট) এ সংক্রান্ত একটি চিঠি পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম।

তিনি বলেন, অবৈধভাবে খোলা বাজারে যারা ডলারের ব্যবসা করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এখন পর্যন্ত পাঁচটি মানি এক্সচেঞ্জের লাইসেন্স স্থগিত করা হয়েছে। পাশাপা‌শি ৪৫টি‌কে কারণ দর্শানো নোটিশ দেওয়া হয়েছে। শোকজের পাশাপাশি আরও নয়টি প্রতিষ্ঠানকে সিলগালা করা হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানগুলো লাইসেন্স না নিয়েই ব্যবসা করে আসছিল।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক কর্মকর্তা জানান, বর্তমানে ব্যাংকের মতো খোলাবাজারেও ডলারের সংকট দেখা দিয়েছে, চাহিদা অনুযায়ী পর্যাপ্ত ডলার নেই। প্রবাসী আয় কমেছে, বিদেশি পর্যটকও কম আসছেন। এসব কারণে বাজারে ডলারের সরবরাহ কমে গেছে।

এদিকে সোমবার ডলারের বিপরীতে টাকার মান আরও কমেছে। বাংলাদেশ ব্যাংক সোমবার (০৮ আগস্ট) মার্কিন ডলারের দাম ৩০ পয়সা বাড়িয়ে ৯৫ টাকা নির্ধারণ করেছে। আগে যা ছিল ৯৪ টাকা ৭০ পয়সা। এছাড়া খোলাবাজারে ডলারের দাম উঠেছে ১১৫ টাকা, যা এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ দাম।

;

টাকার মান আরও কমল, প্রতি ডলার এখন ৯৫ টাকা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ডলারের বিপরীতে টাকার মান আরও কমলো। বাংলাদেশ ব্যাংক সোমবার (০৮ আগস্ট) মার্কিন ডলারের দাম ৩০ পয়সা বাড়িয়ে ৯৫ টাকা নির্ধারণ করেছে। আগে যা ছিল ৯৪ টাকা ৭০ পয়সা।

এদিকে খোলা বাজারে টাকার দরপতন হয়েছে আরও ব্যাপকভাবে। একদিনের ব্যবধানে আজ ডলারের দাম প্রায় সাড়ে ৩ টাকা বেড়েছে। আজ প্রতি ডলার বিক্রি হয়েছে ১১৫ টাকা ৫০ পয়সা দরে। গতকালও খোলা বাজারে ডলার বিক্রি হয়েছে ১১২ টাকায়।

জানা যায়, এ নিয়ে গত তিন মাসের মধ্যে ১৯ দফা বাড়ানো হয়েছে ডলারের দাম। এ সময়ে টাকার মান কমেছে ৮ টাকা ৫০ পয়সা। এর আগে গত ২৯ মে দেশে ডলারের এক রেট ৮৯ টাকা বেঁধে দিয়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। কিন্তু, পরবর্তীতে এই রেট উঠিয়ে দিয়ে ডলারের দর বাজারের ওপর ছেড়ে দেওয়া হয়। বাজারের ওপর ছেড়ে দেওয়ার পরই দু-এক দিন পরপরই বাড়ছে ডলারের দাম।

এবিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, সোমবার ৯৫ টাকা দরে ব্যাংকগুলোর কাছে ডলার বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এই দামে আজ রিজার্ভ থেকে ১৩ কোটি ৯০ লাখ ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের এই দামকে বলা হয় আন্তব্যাংক দর।

;

বাংলাদেশে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান এখনও তিমিরেই



সেরাজুল ইসলাম সিরাজ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের তেল-গ্যাস অনুসন্ধান এখনও তিমিরেই রয়ে গেছে। বঙ্গবন্ধু সরকার ছাড়া সব সরকারেই যথাযথ মনোযোগ দিতে ব্যর্থ, যার সামগ্রিক ফল আজকের জ্বালানি সংকট বলে মনে করেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা।

বঙ্গবন্ধু সরকার তার সাড়ে ৩ বছরে সময়ে ৯টি কূপ খনন করেছিলেন। এর মধ্যে অফসোরে (সাগরে) ৭টি, মূল ভূ-খণ্ডে ছিল ২টি। ১৯৭৫ সালে এই ৯ আগস্ট ৫টি গ্যাস ক্ষেত্র (তিতাস, বাখরাবাদ, হবিগঞ্জ, রশিদপুর ও কৈলাশটিলা) নামমাত্র মূলে বিদেশি কোম্পানির কাছ থেকে কিনে নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। যার মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছিলো মাত্র ৪.৫ মিলিয়ন পাউন্ড। যার ওপর ভিত্তি করেই এখন দাঁড়িয়ে আছে বাংলাদেশের জ্বালানি খাত।

পেট্রোবাংলা সূত্র জানিয়েছে ওই ৫ গ্যাস ফিল্ড থেকে জুন ২০২২ পর‌্যন্ত ১০.১২ ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন করা হয়েছে। এসব ফিল্ডে আরও ৫.৪৬ টিসিএফ গ্যাস মজুদ আছে বলে ধারণা করা হয়। যার বাজার মূল্য ১ লাখ ৪৯ হাজার ৮৯০ কোটি টাকা। বঙ্গবন্ধু সরকারের পরের ৩৬ বছরে অনুসন্ধান কূপ খনন করা হয়েছে মাত্র ১২টি। ২০০১ থেকে ২০০৮ পর‌্যন্ত মাত্র ২টি কূপ খনন করেছিল বিএনপি ও তত্বাবধায়ক সরকার।

গ্যাস সেক্টরে উন্নয়নের দিক থেকে বঙ্গবন্ধু সরকারের পরেই রযেছে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার। তারা বঙ্গবন্ধু সরকারকে ছুঁতে না পারলেও অন্যদের চেয়ে অনেক এগিয়ে রয়েছে। অনুসন্ধান কূপ খননের পাশাপাশি রিগ ক্রয়, বাপেক্সকে ঢেলে সাজানোসহ নানা রকম কর্মযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছে। স্বাধীনতার ৫০ বছরে ৪১টি কূপের মধ্যে বর্তমান সরকারের ১৩ বছরে প্রায় অর্ধেক অর্থাৎ ১৯টি কূপ খনন কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

বাংলাদেশ ভু-খণ্ডে স্বাধীনতার পর মাত্র ৪১টি অনুসন্ধান কূপ খনন করা হয়েছে। প্রতিবেশী ত্রিপুরা রাজ্যে ছোট্ট আয়তনে কূপ খনন করেছে ১৬০টি। তারা ১৬০টি কূপ খনন করে মাত্র ১১টি গ্যাস ফিল্ড আবিষ্কার করেছে, এরমধ্যে ৭টি থেকে উৎপাদন করছে। বাংলাদেশ সীমানায় ১১১ বছরে (প্রথম কূপ খনন ১৯১০ সালে) ৯৬টি কূপ খননের মাধ্যমে ২৮টি গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার হয়েছে। এর বাইরে রয়েছে মোবারকপুর ও কশবার মতো কয়েকটি ফিল্ড। যেগুলোতে গ্যাসের আঁধার পেলেও বাণিজ্যিকভাবে উত্তোলনযোগ্য নয় বলে ঘোষণা করা হয় নি।

সঙ্গত কারণেই বাংলাদেশে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান কার্যক্রম এখনও প্রাথমিক ধাপেই রয়েছে বলে মনে করেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা। বিশেষ করে গভীর সমুদ্র এবং দেশের পশ্চিমাঞ্চল থেকে গেছে এখনও হিসেবের বাইরে। সাগরে আমাদের পাশের সীমানা থেকে মায়ানমার গ্যাস উত্তোলন করছে, অন্যদিকে পশ্চিমাঞ্চলের পাশে অশোকনগরে তেল আবিষ্কার করেছে ভারত। এতে করে এতোদিন যারা দেশের পশ্চিমাঞ্চলে (রংপুর, রাজশাহী এবং খুলনা অঞ্চল) গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা নেই মনে করতেন তারাও এখন নড়েচড়ে বসেছেন।

বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল অনেকটাই অবহেলিত থেকে গেছে। আশির দশকে নটোরের সিংড়ার পর বর্তমান সরকার পাবনার মোবারকপুরে কূপ খনন করেছে। এখানে সম্ভাবনা দেখলেও আরও বিষদ বিশ্লেষণের প্রয়োজনীয়তা দেখছে সংশ্লিষ্টরা। ভোলা নর্থগ্যাস ফিল্ড ও মোবারকপুরের মাঝামাঝি শরীয়তপুরে নতুন কূপ খননের উদ্যোগ নিয়েছে বাপেক্স। বাংলাদেশ প্রতি ৫ হাজার বর্গ কিলোমিটারের একটি করে কূপ খননের লক্ষ্যে কাজ করছে, আমেরিকা প্রতি ১৪ বর্গকিলোমিটারের ১টি এবং ভারত ১৮.৬ বর্গকিলোমিটারের ১টি কূপ খনন মানদণ্ড বিবেচনা করা হয়। শুধুমাত্র অনুসন্ধান কার‌্যক্রমের ঢিলেমির কারণে দেশকে চরম মাসুল দিতে হচ্ছে।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, দীর্ঘদিনের পুঞ্জিভূত স্থবিরতা দেশকে চরম সংকটের মধ্যে ঠেলে দিয়েছে। বর্তমান সরকার আন্তরিক হলেও অতীতের ব্যর্থতায় তাদের ভূগতে হচ্ছে। গ্যাস সংকট সামাল দিতে গিয়ে বিদেশ থেকে উচ্চদরে এলএনজি আমদানি করতে হচ্ছে। যার ফল এখন ভুগতে শুরু করেছে বাংলাদেশ। প্রয়োজন জরুরি ভিত্তিতে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান বাড়ানো।

যদি বাংলাদেশে প্রচুর গ্যাস প্রাপ্তির সম্ভাবনা দেখছে সংশ্লিষ্টরা। ১৯৮৬ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত ৯টি আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে তেল-গ্যাস সম্পদের সম্ভাবনা নিরূপনে কাজ করে। কিছু সংস্থা সারাদেশে এবং কিছু সংস্থা বিশেষ এলাকায় অনুসন্ধান কার্যক্রম পরিচালনা করে। ২০০১ সালে ইউনাইটেড স্টেটস জিওলজিক্যাল সার্ভে (ইউএসজিএস) ও পেট্রোবাংলা, হাইড্রোকার্বন ইউনিট ও নরওয়েজিয়ান পেট্রোলিয়াম ডাইরেক্টরেট সমীক্ষা পরিচালনা করে। ইউএসজিএস-পেট্রোবাংলার প্রতিবেদনে সর্বনিম্ন ৮ দশমিক ৪, গড় ৩২ দশমিক ১ ও সর্বোচ্চ ৬৫ দশমিক ৭ টিসিএফ (ট্রিলিয়ন কিউবিক ঘনফুট) গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা ব্যক্ত করা হয়েছে। অপরদিকে হাইড্রোকার্বন ইউনিট ও নরওয়েজিয়ান পেট্রোলিয়াম ডাইরেক্টরেট সর্বনিম্ন ১৯, গড় ৪২ ও সর্বোচ্চ ৬৪ টিসিএফ গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা ব্যক্ত করেছে।

বিইআরসির সদস্য মকবুল-ই এলাহী চৌধুরী বার্তা২৪.কমকে বলেন ‘১৯৯৫ সালের জাতীয় জ্বালানি নীতিমালা ফলো করলে আজকে এই সংকট হতো না। ‘ওই নীতিমালায় প্রতি বছরে মোট ৪টি করে অনুসন্ধান কূপ খনন করার কথা থাকলে কোনো সরকারেই তা মেনে চলেনি। তেল-গ্যাস প্রাপ্তির সম্ভাবনা, সফলতা ও অনুসন্ধানস্তর বিবেচনায় এ কথা নিশ্চিত করে বলা যায়, এদেশে ব্যাপক ভিত্তিতে অনুসন্ধান করা হলে তেল-গ্যাস প্রাপ্তির আরও যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে।’

আন্তর্জাতিক জ্বালানি বিশেষজ্ঞ এনার্জি এন্ড পাওয়ারের কন্ট্রিবিউটিং এডিটর খন্দকার সালেক সুফী বার্তা২৪.কমকে বলেন, বাংলাদেশের সম্ভাবনা নিয়ে কারো কোনো দ্বিমত নেই। এখানে মাত্র ৯৬টি কূপ খনন করা খুবই হতাশারা। আমরা সহজ প্রাপ্তির বিষয়গুলো অর্জণ করেছি, কিন্তু এখন জটিল বিষয়গুলোর দিকে যেতে হবে। পশ্চিমবঙ্গ একই ধরণের কাঠামো তারা ১৫০টি ওয়েল করেছে। ঘুরে দাঁড়াতে হলে বড় ধরণের ঝাঁকুনি দিতে হবে।

সমুদ্রসীমা জয়ের মাধ্যমে সাগরে বিশাল অঞ্চলে বাংলাদেশের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমাদের পাশের ব্লকগুলো থেকে মায়ানমার বিপুল পরিমাণ গ্যাস উত্তোলন করছে। আর বাংলাদেশ অনেকটা হাত গুটিয়ে বসে রয়েছে। আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করলেও তেমন সাড়া মিলছে না। এর দু’টি কারণ রয়েছে একটি হচ্ছে গ্যাসের দাম কম, আর ডাটার অভাব। বলা হচ্ছে আমাদের হাতে পর‌্যাপ্ত ডাটা নেই কারণে বহুজাতিক কোম্পানি আগ্রহি হচ্ছে না। মাল্টিক্লেইন সার্ভে করার পর পর‌্যাপ্ত ডাটা সামনে এলে অনেকে আগ্রহী হবেন।

গ্যাসের দামের বিষয়ে একমত হলেও ডাটার অভাব মানতে নারাজ জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা। তারা মনে করছে আমাদের কাছে যে ডাটা রয়েছে তাতেই অনেকে আগ্রহী হতেন। কিন্তু সেসব ডাটা পেট্রোবাংলা সিলড করে রেখেছে। বিদেশি কম্পানি কেনার কিংবা দেখার কোনো সুযোগ নেই।

আন্তর্জাতিক জ্বালানি বিশেষজ্ঞ খন্দকার সালেক সূফী বলেছেন, পর‌্যাপ্ত ডাটা নেই, আমি এই কথা মানি না। ১৯৭৪ সালে যে কোম্পানিগুলো এসেছিল তারা এসে ডাটা রেখে গেছে।

বাংলাদেশে আবিষ্কৃত ২৮টি গ্যাস ফিল্ডে প্রমাণিত ও সম্ভাব্য মিলে উত্তোলনযোগ্য গ্যাস বিবেচনা করা হয় ২৮.৬ টিসিএফ। ২০২২ সালের জুন পর‌্যন্ত ১৯.৫৩ টিসিএফ গ্যাস উত্তোলন করা হয়েছে। অবশিষ্ট মজুদ ধরা হয় মাত্র ৯ টিসিএফ। এক সময় ২৭০০ এমএমসিএফডি গ্যাস উত্তোলন করা হলেও  এখন  ২৪০০ এমএমসিএফডির নিচে নেমে এসেছে। উৎপাদন কমে যাচ্ছে পুরাতন কূপগুলোতে আরও কমতে পারে। অন্যদিকে ৩ থেকে ৪ বছরে মধ্যে  এলএনজি আমদানি বৃদ্ধির সুযোগ নেই। প্রাইমারী ফুয়েল এখন বড় চ্যালেঞ্জ।

বাপেক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আলী বার্তা২৪.কমকে বলেছেন, আমরা ২০২৩ সালের মধ্যে ২০২ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়েছি। এরমধ্যে ৫টি অনুসন্ধান ‍কূপ, ৪টি উন্নয়ন কূপ ও ৬টি ওয়ার্কওভার কূপ হাতে নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ২০২৫ সালের মধ্যে ৪৬টি কূপ খননের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে দৈনিক ৬১৮ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বার্তা২৪.কমকে বলেছেন, অতীতের সরকারগুলোর সামগ্রিক অবহেলার কারণে আজকের এই সংকট। আমরা কাটিয়ে উঠতে অনেক কার‌্যক্রম হাতে নিয়েছি। এতদিন সব ঠিকঠাকেই ছিল। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সারা বিশ্বেই অস্বাভাবিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে। স্পর্ট মার্কেটে দাম বেড়ে যাওয়ায় সাময়িক ভাবে আমদানি বন্ধ। দাম কমলে আমদানি হবে, তখন আবার স্বাভাবিক অবস্থায় আসবে। অন্যদিকে দেশীয় তেল-গ্যাস অনুসন্ধ্যানেও জোর দেওয়া হয়েছে।

১৯৭৫ সালে ৯ আগস্ট ৫টি গ্যাস ফিল্ড কিনে নেওয়াকে এ খাতের টার্নিং পয়েন্ট বিবেচনা করা হয়। যার কারণে এখনও স্বল্পদামে গ্যাস সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে। ঐতিহাসিক ওই ক্ষণকে স্মরণীয় করে রাখতে ২০১০ সালে ৯ আগস্টকে ‘জাতীয় জ্বালানি নিরাপত্তা দিবস’ হিসেবে পালন করা হচ্ছে। এ বছরও  সেমিনারসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

;

উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হলে জ্বালানির বহুমুখী ব্যবহার জরুরি



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ভার্চুয়াল সেমিনার

ভার্চুয়াল সেমিনার

  • Font increase
  • Font Decrease

নিজস্ব গ্যাস ও কয়লা অনুসন্ধান উত্তোলন এবং আরও পরমাণু বিদ্যুৎ-কেন্দ্রের কথা বিবেচনা নিতে হবে। বাংলাদেশের উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হলে জ্বালানি জোগানের সকল উৎসকে বিবেচনায় নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

রোববার (৭ আগস্ট) বাংলাদেশ এনার্জি সোসাইটি’র (বিইএস) আয়োজিত ‘বাংলাদেশে টেকসই জ্বালানি নিরাপত্তা, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভিশন’ শীর্ষক ভার্চুয়াল সেমিনারে এমন অভিমত উঠে আসে।

বক্তারা বলেন, নতুন নতুন প্রযুক্তি সামনে চলে আসছে। বিশেষ করে পরমাণু বিদ্যুতের ছোট মড্যুলার রিয়েক্টর (এসএমআর) সিস্টেম ব্যবহারের কথাও ভাবা যেতে পারে। প্রাথমিক জ্বালানি ও বিদ্যুৎ উৎপাদনের সকল বিকল্প উৎস নিয়ে কাজ করতে হবে। একক জ্বালানির ওপর নির্ভরশীলতা বুদ্ধিমানের কাজ হতে পারে না।

প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু তার দূরদৃষ্টি ও সাহসিকতা দিয়ে দেশের উন্নয়নে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। তার সেই ভিশনের ধারাবাহিকতায় বর্তমান জ্বালানি চাহিদা পূরণে আমরা দেশব্যাপী সোলার এনার্জি বা সৌরশক্তিকে কাজে লাগাতে পারলে অন্যান্য জ্বালানির ওপর থেকে নির্ভরতা কমবে। একইসাথে দেশবাসীকে জ্বালানি ব্যবহারে সাশ্রয়ী ও সচেতন হতে হবে। আমাদের বর্তমান চাহিদা পূরণের পাশাপাশি ভবিষ্যতের কথা বিচেবনা করে নীতিমালা নির্ধারণ ও পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

সামিট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আজিজ খান বলেন, বাংলাদেশ বিভিন্ন ক্ষেত্রে স্বনির্ভর হতে সক্ষম হলেও জ্বালানি খাতে আমরা এখনও পিছিয়ে আছি। তবে যুগোপযোগী পলিসি নির্ধারণ, স্থানীয় বিনিয়োগ এবং সরকারি খাত ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা জ্বালানি চাহিদা, সরবরাহ পূরণে সক্ষম হতে পারবো।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. ম.তামিম বলেন, বাংলাদেশ তেল ও গ্যাস আমদানিকারক একটি দেশ এবং আমাদের মোট জ্বালানির বড় একটি অংশ তেলভিত্তিক। পূর্ববর্তী সময়ে আমরা শুধু তেলের ক্ষেত্রে ভর্তুকি প্রদান করতাম, তবে গ্যাস ও বিদ্যুতের ক্ষেত্রে তা দিতে হতো না। কিন্তু এখন সেই পরিস্থিতি অনেকটা পাল্টে গেছে। তাই এখন যথাযথ নীতি নির্ধারণের মাধ্যমে সরকারের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

বিইএস’র সভাপতি ও সাবেক মুখ্য সচিব মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, চলমান রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও চাহিদা অনুযায়ী জ্বালানি আমদানিতে ব্যর্থ হচ্ছে। অন্যদিকে, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে আমাদের খনিজ সম্পদও ক্ষতির সম্মুখীন। তাই আমাদের যথাসম্ভব জ্বালানির ব্যবহারে সাশ্রয়ী হতে হবে এবং বিকল্প সমাধানগুলো কাজে লাগাতে হবে।

এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার ম্যাগাজিনের সম্পাদক মোল্লাহ আমজাদ হোসেনের সঞ্চালনায় প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি কনসাল্টেন্ট ইঞ্জি. খন্দকার আবদুস সালেক (সুফি)। আলোচনায় অংশ নেন একাত্তর টেলিভিশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোজাম্মেল বাবু , বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) সাবেক সদস্য এবং বাংলাদেশ এনার্জি সোসাইটি’র (বিইএস) সাধারণ সম্পাদক মো. মিজানুর রহমান প্রমুখ।

;