করোনা মহামারি, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও অর্থনীতির গতি



ড. মাহফুজ পারভেজ
করোনা মহামারি, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও অর্থনীতির গতি

করোনা মহামারি, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও অর্থনীতির গতি

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাকালের চীনা অর্থনৈতিক মন্দার লক্ষণীয় বিষয় হলো দেশটির ব্যবসায় সঙ্কুচিত পরিসর, বহু দেশই চেষ্টা করছে সেই জায়গা নিতে। 'ইকোনমিক হাব' নামে উত্থিত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বৈশ্বিক মহামারি করোনার বহুবিধ প্রভাবের মধ্যে এখন ক্রমেই দৃশ্যমান হচ্ছে মন্দার চিত্র। এরই সঙ্গে আর্থিক পরিস্থিতিকে পাল্লা দিয়ে করোনার দোলাচলে ত্রস্ত চীন। এমতাবস্থায়, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া তথা বৃহত্তর ইন্দোপ্যাসিফিক অঞ্চলের সামরিক ও নিরাপত্তাগত মেরুকরণকে ছাপিয়ে সামনে চলে আসছে অর্থনৈতিক প্রপঞ্চসমূহ এবং এর বহুমাত্রিক পালাবদলের দৃশ্যপট। জনস্বাস্থ্যের মতোই মহামারিকালে আর্থিক রূপান্তরের চিত্রও এতে স্পষ্ট হয়েছে।

একটি আন্তর্জাতিক সমীক্ষক সংস্থার হিসাবে, নববর্ষের জমায়েতের কারণে চীনে করোনায় দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা ৩৬ হাজার ছুঁতে পারে। সংস্থাটির হিসাবে কোভিডের কারণে চীনে এখন পর্যন্ত ৬ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। যদিও সরকারি তরফে বলা হচ্ছে নিয়ন্ত্রণে এসেছে কোভিড পরিস্থিতি, তথাপি চীনে এখনও চোখ রাঙাচ্ছে করোনাভাইরাস। দেশটির এক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মিডিয়াকে জানিয়েছেন, ১৩ জানুয়ারি থেকে ১৯ জানুয়ারির মধ্যে সে দেশে ১৩ হাজার মানুষ কোভিড আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন। ওই অফিসার আরও জানিয়েছেন যে, শূন্য কোভিড নীতি তুলে নেওয়ার পর সে দেশের ৮০ শতাংশ মানুষ কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন।

চীনের ‘ডিজ়িজ কনট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনে’র তরফে চলতি সপ্তাহের শুরুতে একটি বিবৃতি প্রকাশ করে জানানো হয়েছে, ১৩ হাজার জনের মধ্যে ৬৮১ জন সরাসরি কোভিড আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন। বাকি ১১ হাজার ৯৭৭ জনও কোভিড আক্রান্ত হয়েছিলেন, তবে তাঁদের অন্যান্য শারীরিক সমস্যা ছিল। অবশ্য বাড়িতে নিভৃতবাসে থাকা নাগরিকদের কত জন মারা গিয়েছেন, সে সম্পর্কে কিছু বলা হয়নি এই বিবৃতিতে।

চীনে বর্তমানে চান্দ্র নববর্ষ উপলক্ষে উৎসব উদ্‌যাপন চলছে। কঠোর কোভিড নীতি উঠে যাওয়ায় দীর্ঘ দিন পরে দেশের নানা শহরে হইহুল্লোড়ে মেতেছে জনতা। এ অবস্থায় নতুন করে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা করছে বেজিং প্রশাসন।

একটি নিরপেক্ষ সমীক্ষক সংস্থার হিসাবে, চাইনিজ নববর্ষের হুল্লোড় এবং জমায়েতের কারণে সে দেশে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা ৩৬ হাজার হতে পারে। ওই সমীক্ষক সংস্থাটির হিসাব বলছে কোভিড নীতি শিথিল করার পর চীনে ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত প্রায় ৬ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে, পশ্চিমি মিডিয়াগুলোর একাংশের দাবি, চীন যদি প্রথম থেকে কোভিডে আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যা প্রকাশ্যে আনত, তবে হয়তো সম্ভাব্য এই বিপর্যয় এড়ানো যেত। পশ্চিমা দেশের কোনও কোনও নেতা চীনের 'কোভিড নীতি' এবং 'রক্ষণশীল মনোভাব' সম্পর্কে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়ে আসছেন। তারা মনে করছেন, মহামারির আঘাত ও প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে প্রকৃত তথ্য ও পরিসংখ্যান প্রকাশের ক্ষেত্রে চীনের 'গড়িমসি কৌশল' বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে এবং অপরাপর দেশের প্রস্তুতি গ্রহণকে 'বিভ্রান্ত' ও 'বিলম্বিত' করেছে।

করোনা মহামারির নেতিবাচক প্রভাব চীনের সামাজিক জীবনের পাশাপাশি অর্থনৈতিক ক্ষেত্রকেও নাড়া দিয়েছে, যার প্রভাব পড়েছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়। বিশ্বঅর্থনীতির শীর্ষস্থান অধিকারের প্রত্যাশায় যে চীনের গতি ছিল অব্যাহত ও তেজি, সেখানে থেকে সাম্প্রতিক কালে বহু দেশই তাদের উৎপাদন কেন্দ্র সরিয়ে নিচ্ছে। পূর্ব এশিয়ার বিনিয়োগ অর্থনীতিতে যে ফাঁকা জায়গা তৈরি হচ্ছে, তা পূরণ করতে নানা ফন্দিফিকির কষছে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পরাশক্তিগুলো, বিশেষত চীনের পার্শ্ববর্তী দেশসমূহ।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বিগত এক দশক জুড়ে ক্রমান্বয়ে এগিয়ে চলার পর বস্তুত করোনার ধাক্কায় চীনের অর্থনীতিতে মন্দা দেখা দিয়েছে। এই পরিস্থিতির পিছনে আরও কাজ করছে চীনের বাইরে অবস্থিত কারখানা এবং জোগান ব্যবস্থার দিকে উৎপাদন তথা অর্থনীতির অভিমুখ ঘুরে যাওয়ার ঘটনা। ফলে সাম্প্রতিক চার দশক ধরে উৎপাদন এবং বাণিজ্যে চীনের সাফল্য, যা তাকে ‘বিশ্বের কারখানা’ বলে পরিচিত করেছে, তা থেকে এক নতুন হাওয়ার ঘূর্ণিতে পৃথিবীর যাবতীয় কর্পোরেট পরিচালকদের নজর একেবারে উল্টো দিকে ঘুরে যাওয়ার বিষয়টি চীনের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা ও দৃঢ়তার প্রতিষ্ঠিত ধারণার সঙ্গে একেবারেই মানানসই নয়। তা সত্ত্বেও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এই যে, চীন ব্যতীত অন্য প্রতিযোগী দেশগুলোর শিল্পনীতিতেও কিছু বদল ঘটেছে, যা বিভিন্ন সংস্থাকে চীনের বিকল্প নিয়ে নতুন করে ভাবতে বাধ্য করছে।

পরিস্থিতির প্রাথমিক প্রতিক্রিয়ায় চীন থেকে জাপানের সংস্থাগুলোকে তাদের উৎপাদন কেন্দ্রগুলো দেশে ফিরিয়ে আনতে অর্থ বিনিয়োগ করছে টোকিও প্রশাসন। গত গ্রীষ্মে জাপান এক নতুন অর্থনৈতিক নিরাপত্তা আইন পাশ করেছে যার দ্বারা ১৪টি ক্ষেত্রকে একটি সামাজিক পরিকাঠামোর অঙ্গীভূত করা সম্ভব হয়েছে। তদ্রূপ,  দক্ষিণ কোরিয়া এবং তাইওয়ান তুলনামূলক ভাবে ‘রি-শোরিং’ বা 'দেশের বাইরে চলে যাওয়া কোনও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডকে দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া' শুরু করেছে।

এসব নীতিগত পরিবর্তনের মূল লক্ষ্য হলো, চীন থেকে তাদের ব্যবসাকে গুটিয়ে আনা। সুতরাং, এশিয়ার সব থেকে বেশি শিল্পায়িত ৩টি দেশ তাদের সংস্থাগুলোকে চীন থেকে দেশের মাটিতে কিংবা সুবিধাজনক দেশে ফিরে আসতে ইনসেন্টিভ দিচ্ছে। এর প্রভাব হবে সুদূরপ্রসারী এবং বিশ্বের ও আঞ্চলিক অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে তাৎপর্যবাহী।

জাপানের নীতিগত পরিবর্তনের নিরিখে দৃশ্যমান হয়েছে যে, 'রি-শোরিং’-এর জন্য টোকিওর বাজেট বেড়ে ২৫০ কোটি আমেরিকান ডলার হয়েছে। কমবেশি আড়াইশো জাপানি সংস্থা গত কয়েক বছরে চীন ছেড়ে চলে গিয়েছে। আর এই চীন-ত্যাগের ইস্যুকে ইউরোপের ব্রেক্সিটের অনুসরণে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় নামকরণ করা হয়েছে ‘চেক্সিট’। লক্ষণীয় বিষয় হলো সবগুলো সংস্থা যে চীন ছেড়ে সব সময় জাপানে ফিরে যাচ্ছে, তা-ও নয়। বরং ওই ভূগোলের অন্যসব আশেপাশের দেশেই তারা আস্তানা গাড়ছে। অর্থনৈতিক এই পরিবর্তমান গতিশীলতা চীনকে কেন্দ্র করে চলমান আর্থিক ধারাকে বহুলাংশে শ্লথ করবে।

জাপানের সংবাদমাধ্যম ‘আসাহি শিমবুন’-এর একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী গত বছর ১৩৫টি সংস্থা চীন ছেড়ে অন্য দেশে তাদের উৎপাদন কেন্দ্র তৈরি করেছে। এই সব সংস্থা মূলত সেমিকন্ডাক্টর, মোটরগাড়ি, বিভিন্ন যন্ত্রপাতি এবং পোশাক নির্মাতা। সোনি তার স্মার্টফোন উৎপাদনের একাংশকে থাইল্যান্ডে নিয়ে গিয়েছে। লক্ষণীয়, এই স্থানান্তরণের ফলে ২০২১ নাগাদ সেখানে উল্লেখযোগ্য রকমের বিদেশি বিনিয়োগ ঘটেছে। আরও লক্ষ করার বিষয় এই যে, বিনিয়োগকারীদের একটি অংশ কিন্তু চীনেরই বিভিন্ন সংস্থা।

দক্ষিণ কোরিয়ার সংস্থাগুলোও যে শুধুমাত্র ‘ফ্রেন্ড-শোরিং’ বা বন্ধুরাষ্ট্র বা যে সব দেশ পরস্পরের সঙ্গে বিভিন্ন চুক্তির দ্বারা আবদ্ধ, সেখানে যন্ত্রাংশ তৈরির বরাত দেওয়া বা সরবরাহের পরিধিকে সেই সব দেশের মধ্যে আবদ্ধ রাখার নীতি করছে, এমন নয়। যেমন, স্যামসাং ভিয়েতনামে আগ্রহ প্রকাশ করেছে সে দেশ গুগলকে তার পিক্সেল ফোন বানাতে। অ্যাপলকে তার ম্যাকবুক এবং আইফোন উৎপাদনে এবং এমনকি নাইকি ও অ্যাডিডাসকেও বিনিয়োগে আকৃষ্ট করেছে।

এমনকি, চীন থেকে বত্রিশটি প্রকল্প সরিয়ে নিয়ে গিয়ে মালয়েশিয়া লাভবান হয়েছে। আমেরিকান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের তরফে এশিয়ার শিল্প-দানবদের চেয়ে বেশি ইনসেন্টিভ দেওয়ার ঘোষণার উত্তরে হুন্ডাই পাল্টা ঘোষণা করেছে যে, তারা জর্জিয়ায় একটি বৈদ্যুতিক গাড়ি এবং ব্যাটারি কারখানা গড়ে তুলবে। পাশাপাশি, হোন্ডার সঙ্গে যৌথ ভাবে এলজি ওহায়োতে একটি নতুন ব্যাটারি কারখানার উদ্যোগ নিয়েছে। ফলে এসব পরিবর্তনের ফল আমেরিকানদের জন্য আশাবাদী হওয়ার মতো পরিস্থিতির জন্ম দিচ্ছে, তা বলা চলে না।

পক্ষান্তরে চীন এসব ব্যাপারে আগ্রাসী আচরণ দেখাতে অবশ্যই বাকি রাখেনি। তারা তৈরি করেছে এক দ্বিমুখী ভিসা নিষিদ্ধকরণ, যা জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়াকে আঘাত করেছে এবং যা থেকে রাজনীতির আঙিনাতেও উদ্বেগও তৈরি হয়েছে। কোরিয়ায় লোত্তে-র খুচরো ব্যবসার পরিকাঠামো, সুইডেনের এরিকসন, অস্ট্রেলিয়ার সুরা-নির্মাতারা, তাইওয়ানের আনারস চাষিরা এবং লিথুয়ানিয়ার সকলেই চীনা ড্রাগনের আগুনে নিশ্বাসের উত্তাপ পেয়েছে।

স্বাভাবিক ভাবেই, বিশ্ববাণিজ্য মহল সার্বিক অর্থে চীনে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে রাজনৈতিক ঝুঁকি দেখতে পেয়েছে, সে দেশে বিভিন্ন রকমের বৈষম্য, ক্রমাগত বাড়তে থাকা উৎপাদন ব্যয়, যেমন, ভিয়েতনামে অদক্ষ শ্রমিকের মজুরি চীনের থেকে ৬০ শতাংশ কম, পরিবেশ সংক্রান্ত কঠোর নিয়মকানুন, কোভিড সংক্রমণ এবং অবশ্যই বার বার বিঘ্নিত সরবরাহ ব্যবস্থার সম্পর্কে শুনেছে। শুধু দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোই নয়, বরং ইউরোপের একটি সমীক্ষা থেকে দেখা যাচ্ছে যে, মহাদেশটির ২৩ শতাংশ সংস্থা চীন থেকে সরে আসার কথা ভাবছে।

আপাতত এসব নেতিবাচক কারণগুলো কিন্তু চীনকে উৎপাদন কেন্দ্র বা বাজার হিসেবে খাটো করে দেখাচ্ছে না। ২০২২ সালে নানা বিঘ্নের পরও চীনে প্রত্যক্ষ বিনিয়োগের পরিমাণ কার্যত বেড়েছে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, জার্মানির বিএএসএফ তার কর্মকাণ্ড চীনে ফিরিয়ে আনছে। ‘ফিন্যান্সিয়াল টাইমস’ চীনের আর্থিক শক্তিতে কোনধরনের ধ্বস হয়েছে বলে মানতে নারাজ। তাদের সাম্প্রতিক অনেকগুলো প্রতিবেদন চীনের ক্ষেত্রে নানা সঙ্কুলতার কথা উল্লেখ করলেও দেশটির সার্বিক আর্থিক পরিস্থিতি সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য করেনি। বরং, কী উপায়ে অ্যাপলের উৎপাদন পদ্ধতি চীনের পরিবেশের সঙ্গে অঙ্গাঙ্গী ভাবে যুক্ত, তা ফলাও করে প্রচার করেছে।

এ সব সত্ত্বেও বলা যায়, পরিবর্তনের হাওয়া কিন্তু বইছেই। সিএনবিসি এক সরবরাহ ব্যবস্থা সংক্রান্ত ‘হিট ম্যাপ’ (ডেটা প্রদর্শনকারী পদ্ধতি বিশেষ)-এ দেখাচ্ছে যে, চীন ক্রমে ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া, বাংলাদেশ, ভারত এবং তাইওয়ানকে হারাতে চলেছে।

সুতরাং, বিশ্বায়নের দিনগুলোতে করোনাকালে যত পরিহাসই করা হয়ে থাকুক না কেন, জাতীয় শিল্পনীতির পুনরুজ্জীবন এক বাস্তব ঘটনা, যা কার্যত জাতীয় নিরাপত্তা, সরবরাহ-শৃঙ্খলা এবং রাজনৈতিক উদ্বেগের দ্বারা চালিত হয়। এবং এই সমস্ত কিছুই একত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। গত সেপ্টেম্বরে চীন নিজেই এক বিস্তারিত জাতীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থার কথা ঘোষণা করেছিল, যার বিস্তারিত বিবরণ প্রকাশ না করেই। যার নাম দেওয়া হয়েছিল ‘সমস্ত কিছুরই নিরাপত্তা বিধান’। এর মানে হলো পরিবর্তন আঁচ করেছে খোদ চীন এবং প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিয়েও তারা ভাবছে।

চীনের পরিস্থিতি ফায়দা তুলতে মুখিয়ে আছে বৈশ্বিক প্রতিদ্বন্দ্বী আমেরিকা ও আঞ্চলিক প্রতিযোগী ভারত। ভারতের সাম্প্রতিক উৎপাদন বিষয়ক ইনসেন্টিভ, পুঁজির ক্ষেত্রে ভর্তুকি প্রদান ইত্যদি নীতির উপর জোর দেওয়ার ব্যাপার কিন্তু বিশেষ ভাবে চীন তথা পুর্ব এশিয়া এবং ব্যাপকার্থে বিশ্বের প্রবণতার সঙ্গে সামঞ্জস্য বিধানের প্রত্যাশার নিবিড় সম্পর্ক রাখে। যদিও ভারত ২০২১ সালের জাতিসংঘের বৈদেশিক বিনিয়োগ-তালিকায় সপ্তম স্থানে রয়েছে এবং চীনের বিকল্প হিসাবে তাকে বিশ্বের বৃহৎ সংস্থাগুলো বিবেচনা করেনা, তথাপি আর্থিক ক্ষেত্রে নিজেকে এগিয়ে নেওয়ার ভারতীয় তৎপরতা থেমে নেয়। দেখছে না। ভারতীয় বিশেষজ্ঞরা পুর্ব এশিয়ার সঙ্গে আরও বেশি মাত্রায় বাণিজ্য সম্পর্ক তৈরি, শুল্কনীতির শিথিলায়ন, শ্রমক্ষমতার গুণগত মানের উন্নয়ন ইত্যাদির মাধ্যমে প্রতিযোগিতায় যোগ্য হয়ে উঠার তাগিদ দিচ্ছেন। এরই মাঝে বহু পূর্ব এশীয় ও বৈশ্বিক অর্থনৈতিক শক্তিসম্পদ দেশগুলো প্রয়োজনীয় সক্ষমতা অর্জনের পথে সামনের পরিস্থিতিতে সুবিধাজনক অবস্থান হাসিলের লক্ষ্যে চলতে শুরু করেছে।

ড. মাহফুজ পারভেজ, প্রফেসর, রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়; অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম

যাত্রীরাই ইউএস-বাংলার এক একজন ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর



মো. কামরুল ইসলাম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

এশিয়ার আকাশ দাপিয়ে বেড়ানো বাংলার গর্ব ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সকে শুনতে হয় না ‘নয়টার প্লেন কয়টায় যাবে’। শুনতে হয় না যাত্রীদের কাছ থেকে ‘ফ্লাইট কি অন-টাইম’? শুনতে হয় না ‘আপনাদের প্লেন পৌছানোর পর লাগেজ পেতে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হয়’? এই প্রশ্নগুলো না শুনতে পারাই ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট পরিচালনার স্বার্থকতা।

সুনামের সাথে দশ বছর ধরে আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করে আসছে ইউএস-বাংলা। ঢাকা থেকে যশোর রুটে ২০১৪ সালের ১৭ জুলাই যাত্রা শুরু করার পর আজ অবধি শতকরা ৯০ ভাগের অধিক ফ্লাইটই অন-টাইম। আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট চালুর পর থেকেই ফ্লাইট গন্তব্যে পৌঁছানোর ১৫ মিনিটের মধ্যে লাগেজ ডেলিভারী এক অনন্য উদাহরন। বাংলাদেশে অভ্যন্তরীণ রুটে প্রথমবারের মতো ইউএস-বাংলা ব্র্যান্ডনিউ এয়ারক্রাফট দিয়ে ফ্লাইট পরিচালনা করছে।

বৈশ্বিক এভিয়েশনের মানচিত্রে উপরোক্ত প্রশ্নগুলো শুনলে মনে হয় দেশের এভিয়েশনের কি করুন দশাই না ছিলো এয়ারলাইন্সগুলোর। প্রশ্নগুলোর সত্যতা কতটুকু বাস্তব হলেই স্বাধীনতার ৫১ বছর পরও দিনের পর দিন যাত্রীদের মনে বাসা বেঁধে আছে। প্রশ্নগুলোর সত্যতা প্রমান করার প্রয়োজনীয়তাবোধ করেনি ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। একটি যাত্রীবান্ধব এয়ারলাইন্স হিসেবে নানা পরিকল্পনা আর বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে ইউএস-বাংলা।

বাংলাদেশের প্রাইভেট এয়ারলাইন্সকে পর্যালোচনা করলে দেখা যায় নানাবিধ সমস্যাকে সঙ্গী করেই বাংলাদেশ এভিয়েশনে অগ্রসর হতে চেয়েছে। অবকাঠামোগত সমস্যা, আর্থিক অস্বচ্ছলতা, পরিবহননীতির অস্বামঞ্জস্যতা, জাতীয় বিমান সংস্থার সাথে লেবেল প্লেয়িং ফিল্ড না থাকা, বিভিন্ন ধরনের অতিরিক্ত অ্যারোনোটিক্যাল ও নন-অ্যারোনোটিক্যাল চার্জ।

এছাড়া বিশ্ব মার্কেটের সাথে জেট ফুয়েল প্রাইসের প্রার্থক্য, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট চলাচলের ক্ষেত্রে দ্বিমূখী নীতি, এয়ারক্রাফট কিংবা এয়ারক্রাফট পার্টসের অতিরিক্ত কাস্টমস্ ডিউটি নির্ধারন, যা বাংলাদেশ এভিয়েশনে প্রাইভেট এয়ারলাইন্স এর এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে প্রধান অন্তরায় বলেই প্রতীয়মান।

নানাবিধ অস্বামঞ্জস্যতা থাকার পরও ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স বাংলার আকাশে তথা বিশ্বের আকাশে উদীয়মান সূর্য হয়ে একবিংশ শতাব্দীতে আবির্ভূত হয়েছে। মাত্র দশ বছর সময়ে বিশাল জনগোষ্টির বাংলাদেশের আকাশ পরিবহনের যাত্রীরা পূর্ণ আস্থা রেখেছে ইউএস-বাংলার উপর। দু’টি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ এয়ারক্রাফট নিয়ে যাত্রা শুরু করা ইউএস-বাংলায় এখন ৮টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০, ৮টি এটিআর৭২-৬০০ এয়ারক্রাফটসহ মোট উনিশটি এয়ারক্রাফট রয়েছে বিমান বহরে।

ইউএস-বাংলার ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুনের স্বপ্নযাত্রার স্বপ্ন যেন আকাশ সমান, স্বপ্নের বিস্তৃতি আর বাস্তবায়ন চলছে সমান্তরালে। দেশের এভিয়েশনকে নিয়ে যেতে চান সুউচ্চ মর্যাদায়। আজ ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স প্রতিযোগিতা করছে এমিরেটস, কাতার এয়ারওয়েজ, সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স, মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্স, থাই এয়ারওয়েজ, ওমান এয়ার এর মতো বিশ্ববিখ্যাত এয়ারলাইন্সগুলোর সাথে।

স্বল্পতম সময়ে ইউএস-বাংলা বাংলাদেশী যাত্রীদের সেবা দেয়ার মানসে দুবাই, শারজাহ, মাস্কাট, দোহা, সিঙ্গাপুর, কুয়ালালামপুর, ব্যাংকক, গুয়াংজু, মালে, চেন্নাই ও কলকাতা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। আগামী মে –জুনে ইউএস-বাংলা দু’টি ৪৩৯ সিটের এয়ারবাস ৩৩০ এয়ারক্রাফট বিমান বহরে যোগ করার পরিকল্পনা নিয়েছে। যা দিয়ে এশিয়ার অন্যতম গন্তব্য আর বাংলাদেশী যাত্রীদের আকর্ষণ সৌদি আরবের জেদ্দা রুটে ফ্লাইট পরিচালনার পরিকল্পনা করছে ইউএস-বাংলা।

ইউএস-বাংলা এয়ারলা্ইন্সে ২৫০০ এর অধিক কর্মকর্তা, কর্মচারী রয়েছে। যাদের অক্লান্ত পরিশ্রম আর ব্যবস্থাপনা পরিষদের সুচিন্তিত দিক নির্দেশনা এবং যাত্রীদের আস্থা ইউএস-বাংলাকে এগিয়ে নিতে সহায়তা করছে।

ইউএস-বাংলা পরিবারের সকল সদস্য আর যাত্রীরাই এক একজন ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর। যাত্রীদের আস্থাই ইউএস-বাংলার অগ্রযাত্রার মূল পাথেয়।

লেখক: মো. কামরুল ইসলাম, মহাব্যবস্থাপক-জনসংযোগ, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স

;

ফলস এলার্ম ও অগ্নিকাণ্ড প্রতিরোধ মহড়া



প্রফেসর ড. মো: ফখরুল ইসলাম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বসন্তের ‘হানামি’বা চেরিফুল ফোঁটার মৌসুমে ছুটির দিনে বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরে বেশ মজা করা হয়েছিল। রাতে আরেক অনুষ্ঠানে যেতে হবে। সারাদিন লম্বা ড্রাইভ করে চেরি বাগান ঘুরে ঘুরে বহুদূরের ওপেন লেকে মাছ ধরে সবাই ক্লান্ত। মাছের বারবিকিউ রাতের খাবারের একটি মেন্যু। কিন্তু বাইরে হঠাৎ ঝির ঝির বৃষ্টি ও ঠান্ডা বাতাস বইতে শুরু করলে ক্যাম্পাসের চেরিতলার স্পট পরিত্যাগ করে সবাই আমাদের ডর্মের দ্বিতীয় তলার হলঘরে গিয়ে উঠলাম। সেখানে ফ্রি চুলায় রান্নাসহ সব ব্যবস্থা ছিল।

সবাই খুব ব্যস্ত হয়ে রান্না-বান্নার কাজে মনোযোগ দিয়েছিল। বিদেশের ওসব পার্টিতে কারো বাবুগিরি করা চলে না। সবাই খুশীমনে সবকাজে অংশ নেয়ার নিয়ম। রান্না শেষে খাবার সাজানো হয়েছে। এমন সময় ডর্মের ‘ফায়ার এলার্ম’ বেজে উঠলো। বেশ কর্কশ স্বরে একবার, দুইবার নয়- তিনবার বাজতে লাগলো। উপরের তলায় কোথাও আগুন লেগেছে এই ভেবে সবাই অতি দ্রুত হলঘর থেকে বের হয়ে বাইরের পার্কিং লটে চলে গিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে কিছুক্ষণ পর জানা গেল আমাদের ভবনে আগুন লাগেনি। আমাদের মাছ বারবিকিউ করার চারকোলের অতিরিক্ত ধোঁয়ায় এক্সজস্টর চালু করে না দেয়ায় বদ্ধ কিচেনের ‘ফায়ার এক্সটিংগুইশার’ মেশিন আগুনের ধোঁয়া আঁচ করে গোটা ভবনে জরুরি এলার্ম বাজিয়ে সবাইকে আগুনের সতর্কবার্তা পৌঁছে দিয়েছে। সবাই জরুরি নির্গমণ পথ অনুসরণ করে নিরাপদে নিচে চলে গেছে।

তখন মনে হয়েছিল- কত সেন্সেটিভ ওদের ‘ফায়ার এক্সটিংগুইশার’মেশিন! একটু বেশিমাত্রার ধোঁয়ার সন্ধান পেলে আর রক্ষা নেই। সেটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে এলার্ম দিয়ে সবাইকে সতর্ক করে দেয়। এই মেশিন জাপানের সব ভবনের সবঘরেই লাগানো থাকে। শুধু দাউ দাউ আগুন নয়, ধোঁয়ার সূত্রপাত হলেই সেগুলো বেজে উঠে সবাইকে সতর্ক করে দেয়। যাহোক, যারা সেবছর নতুন গিয়েছিল আমাদের ক্যাম্পাসে তারা এলার্ম শুনে অনেকটা ভয় পেয়েছিল। আমরা যারা পুরনো বাসিন্দা ছিলাম তারা এরকম ফায়ার এলার্ম অনেকবার শুনেছি। যেগুলো ছিল সতর্কতামূলক মহড়া মাত্র। পরে সে রাতে আমাদের পার্টি ঠিকমতোই শেষ হয়েছিল।

গত ১৯ ফেব্রুয়ারি ঢাকার গুলশানের এক আধুনিক বহুতল আবাসিক ভবনের ৭ম তলায় আগুনের সূত্রপাত হয়। সে আগুন উপরের দিকে ছড়িয়ে গেলে ১২ তলা থেকে দুজন লাফিয়ে নিচে পড়লে মারা যান। ঐ অগ্নিকাণ্ডে শিশুসহ ২২ জন আহত হয়।

জানা গেছে, সেই ভবনটিতে আধুনিক অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা ছিল। জরুরি নির্গমণ পথ ছিল। ‘ফায়ার এলার্ম’ দেবার মতো ওদের ‘ফায়ার এক্সটিংগুইশার’মেশিন প্রতিটি ফ্লোরে লাগানো ছিল। তবে অনেকে ফায়ার এলার্ম শোনেননি। যারা শুনেছিল তারা ভেবেছে সেটা ছিল ‘ফলস্ ফায়ার এলার্ম’! অথবা রাস্তা দিয়ে অ্যম্বুলেন্স জরুরি এলার্ম বাজিয়ে সব সময় যাতায়ত করে। সেরকম কিছু একটার শব্দ হতে পারে। তাই তারা এলার্মের গা করেননি। আর এরকম একটি আধুনিক ভবন যেখানে কেন্দ্রীয় শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা রয়েছে সেখানে অগ্ন্কিান্ডের সময় বাইরে না বেরিয়ে ঘরের ভিতর বসে থাকই ভাল!

অর্থ্যাৎ, আধুনিক যন্ত্রপাতি লাগানো হলেও সেগুলোর ব্যবহার বিধি সম্পর্কে সচেতনতামূলক জ্ঞান তাদের সবার মধ্যে ছিল না। তাইতো একজন বাবুর্চি ও একজন গৃহকর্মী জরুরি নির্গমণ পথ দিয়ে বের হবার চেষ্টা না করে আতঙ্কে ১২ তলার বেলকুনি থেকে নিচে লাফিয়ে পড়ে মারা গেছেন।

আমাদের দেশে অগ্নিকাণ্ডের প্রতি মানুষের ভয় বেড়েছে। কিন্তু সচেতনতা বাড়েনি। পুরাতন বড় বড় ভবনে এত আধুনিক মানের ফায়ার ‘ফায়ার এলার্ম’ দেবার মতো যন্ত্রপাতি বসানো না হলেও অধূনা এব্যাপারে সচেতনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কারণ, বিল্ডিং কোডের মধ্যে ‘ফায়ার এলার্ম’ দেবার প্রয়োজনীয় যথপোযুক্ত ব্যবস্থা রাখার আইনী বিধান রয়েছে। এটা অমান্য করলে ভবন মালিকের শাস্তি অবধারিত।

তবে বিল্ডিং কোডের এথিকস্ মেনে আংশিক কাজ করে পুরো কাজের জন্য সনদ তুলে নিয়ে ঘরে রাখলেই মানুষ ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি ঠেকানো কঠিন। তাই আন্তরিকতার সাথে প্রতিটি ভবনে বিল্ডিং কোডের এথিকস শতভাগ মেনে আধুনিক ফায়ার নিরাপত্তাব্যবস্থা চালু রাখা প্রয়োজন।

পাশাপাশি এলার্ম বাজলো আর আমি শুনেও ঘুমিয়ে থাকলাম সেট করা হলে বিপদ অনিবার্য। অনেক অলস ব্যক্তি জরুরি কাজের জন্য ঘড়িতে জেগে ওঠার সময় এলার্ম দিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। এলার্ম ঠিকসময় বেজে উঠলে রাগ করে ঘড়িকে থাপ্পর দিয়ে এলার্ম বন্ধ করে দিয়ে পুনরায় ঘুমিয়ে যেতে দেখা যায়। এর পরিণতি সম্পর্কে তারা মোটেও ভাবেন না। এমন বদঅভ্যাস থাকলে ঘড়িতে এলার্ম দিয়ে না ঘুমানোই শ্রেয়।

যেটা ঘটতে শোনা গেছে গুলশানের বাড়ির বাসিন্দাদের মুখ থেকে। তাদের কেউ কেউ বলেছেন, অগ্নিকাণ্ডের জরুরি ফায়ার এলার্ম শুনেছেন কিন্তু সেটাকে তারা ‘ফলস এলার্ম’ ভেবেছেন। তাই ভবনের বাইরে যেতে চাননি। এরূপ বিপদের সময় এটা শুধু নিতান্ত অবহেলাই নয়- চরম হেঁয়ালীপনার নামান্তর। এরকম হেঁয়ালীপনা নিজের ও পরিবারের সদস্যদের মৃত্যু ডেকে আনতে পারে।

তাই এই অবস্থা নিরসনের জন্য প্রয়োজন ঘন ঘন সতর্কতামূলক মহড়ার আয়োজন করা। আমাদের দেশে যে হারে সুউচ্চ ভবন তৈরি হচ্ছে এবং যেভাবে মানুষ বহুতল ভবনে বসবাস করতে আগ্রহী হয়ে পড়েছে সেই হারে ফায়ার নিরাপত্তা ব্যবস্থা বিকশিত হয়নি।

আজকাল বহুতল ভবনে ফায়ার প্রতিরোধী স্প্রে, ফায়ার প্রতিরোধী গ্যাস সিলিন্ডার, পানির পাইপ, মুখোশ, পোশাক ইত্যাদি সংরক্ষণ করতে দেখা যায়। অনেক অফিসের বিভিন্ন তলার কোণায় কোণায় এসব নিরাপত্তা সরঞ্জাম সাজানো থাকে।

কিন্তু কথা হলো সেগুলো শুধু সাজিয়ে রাখার জিনিস নয়। কারণ, মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেলে বা বেশি পুরনো হয়ে গেলে সেগুলো অকার্যকরী হয়ে পড়ে। সেজন্য প্রতি তিন বা ছয় মাস পর পর সেসব জিনিষ ব্যবহার উপযোগী আছে কি-না তা পরীক্ষা করার জন্য জরুরি মহড়ার আয়োজন কার উচিত। বিপদের সময় সেগুলো ঠিকমতো সেবা দেয় না। আবার অনেকেই সেসব নিরাপত্তা সামগ্রীর ব্যবহার করতে জানেন না। এসব জিনিষের মেয়াদ পার হলে সেগুলো ফেলে দিয়ে নতুন নিরাপত্তা কিট্স কেনা উচিত।

এজন্য প্রতিটি ভবনে অফিসে, কারখানায় বাধ্যতামূলক বাজেট রাখার নির্দেশনা বস্তবায়ন করা উচিত। উঁচু অফিস, হোটেল, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল ও বসত ঘরের প্রতিটি কক্ষে কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণে ‘ফায়ার এক্সটিংগুইশার’ মেশিন লাগানো বাধ্যতামূলক করা প্রয়োজন। যারা একটু ধোঁয়া পেলেই জরুরি সংকেত দিবে।

এছাড়া হাসপাতাল, তেলের ডিপো, পাম্প, গুদাম, বাজার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বাজার এমনকি পল্লী অঞ্চলের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলোতে নিয়মিত অগ্নিনির্বাপণ মহড়া গ্রহণ করে মানুষকে অগ্নিকাণ্ডের ভয়াবহতা থেকে সচেতন করার পদক্ষেপ হাতে নেয়া উচিত।

সেসব মহড়ায় বাড়ির বা অফিসের ছোট-বড় সবার অংশগ্রহণ আবশ্যিক করা উচিত। কারণ প্রশিক্ষণ নেয়া থাকলে বিপদের সময় একটি শিশুও অনেক মূল্যবান জান-মাল রক্ষায় বড় ভূমিকা রাখতে পারে।

আমাদের দেশে প্রতিটি বিপর্যয় ঘটে যাবার পর তদন্ত কমিটি গঠিত হয়, বোর্ডসভা করা হয়। কিন্তু যেসব ঘটনা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব সেগুলো নিয়ে পূর্বপরিকল্পনা মাফিক দায়িত্ব পালন বা কাজ সুসম্পন্ন করা হয় কি-না তা নিয়ে কেউ মাথা ঘামায় না। তাই প্রতিটি কাজের জবাবদিহিতা বাড়ানো এবং অত্যাধুনিক সরঞ্জাম সংগ্রহ করে অগ্নিকাণ্ডের প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে জোরদার করতে ও পুরনো নিরাপত্তা সরঞ্জাম পরখ করতে ঘন ঘন অগ্নি-নির্বাপণ মহড়ার আয়োজন করা খুব জরুরি।

*লেখক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের প্রফেসর ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সাবেক ডীন। E-mail: [email protected]

;

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাপানের কার্যকরী সহায়তা



ব্রিঃ জেঃ (অবঃ) হাসান মোঃ শামসুদ্দীন
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনে সেনা অভিযান শুরুর পর সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। বর্তমানে প্রায় ১২ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্যাম্পে অবস্থান করছে। জাপান সরকার ২০১৭ সালে এই সংকট শুরুর পর পরই রোহিঙ্গাদের জন্য মানবিক সহায়তা হিসাবে ৪মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করে। একই বছর রোহিঙ্গা শিশু, নারী এবং ঝুঁকিপূর্ণ স্থানীয়দের জরুরি মানবিক সহায়তার জন্য জাপান১৫.৭ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছিল। সংকটের প্রথম ৬ মাসে অতি প্রয়োজনীয় এই সহায়তা পাওয়ায় ইউনিসেফ তাদের কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করতে পেরেছিল এবং এজন্য সংস্থাটি জাপান সরকার ও জনগণের কাছে সেসময় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছিল। ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তারো কোনো মিয়ানমারকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদেরকে দ্রুত ফিরিয়ে নিতে অনুরোধ জানায় ।জাপান সে সময় মিয়ানমার সরকারকে রোহিঙ্গা পুনর্বাসনে জন্য ৩০ লাখ মার্কিন ডলার বরাদ্দ দেয়। রাখাইন রাজ্যে শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠার জন্য কফি আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নে জাপান মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে সহায়তা প্রদানে প্রস্তুত। জাপান সরকার এবং জনগণ রোহিঙ্গাদের প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদানের পাশাপাশি নিরাপদ, স্বেচ্ছায় এবং মর্যাদাপূর্ণভাবে মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করার জন্য কাজ করে যাবে। ২০১৯ সালে জাপান রোহিঙ্গা এবং স্থানীয় জনগণের জন্য মানবিক সহায়তা হিসেবে ৯৯.২মিলিয়ন ডলার দিয়েছিল।

জাপান সরকার সঙ্কট সমাধানে সবসময় বাংলাদেশের পাশে আছে এবং জাপান বিশ্বাস করে যে রোহিঙ্গাদের রাখাইনে দ্রুত, নিরাপদ, মর্যাদাপূর্ণ এবং স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসনের মাধ্যমেই এই সংকটের সমাধান সম্ভব হবে। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের জন্য রাখাইন রাজ্যে অনুকূল পরিস্থিতি তৈরি করা মিয়ানমারের জন্য অপরিহার্য। জাপান রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমার সরকারকে ‘আরও জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণ করার আহ্বান জানায় এবং এই সনসজা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত জাপান সরকার মিয়ানমারকে এই অনুরোধ জানিয়ে যাবে। ২০১৯ সালে, জাপান রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিয়েছিল এবং দুই দেশের মধ্যে সংলাপ অব্যাহত রাখার কথা জানিয়েছিল। জাপান রোহিঙ্গা সমস্যার দ্রুত সমাধান চায় তাদের দীর্ঘস্থায়ি অবস্থান উদ্বেগজনক বলে মনে করে। জাপান বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে চলমান আলোচনায় সহায়তা করতে আগ্রহী যাতে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন ত্বরান্বিত হয়।

জাপানের সঙ্গে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার উভয় দেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে। জাপান এই দুই দেশের সঙ্গে সম্পর্ককে গুরুত্ব দিয়ে থাকে। জাপান উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারকে এই সমস্যা সমাধানে সহযোগিতা করতে আগ্রহী। উভয় দেশে জাপানের ব্যাপক বিনিয়োগ রয়েছে। ৩১০টি জাপানি কোম্পানি বাংলাদেশের উন্নয়নে সহায়তা দিয়ে করছে। দায়বদ্ধতা ও নৈতিকতাবোধ থেকে জাপান রোহিঙ্গা সমস্যার শুরু থেকে নীরবে কাজ করে যাচ্ছে এবং এর সমাধানের জন্য তৎপর রয়েছে। বাংলাদেশে কর্মরত জাপানের রাষ্ট্রদূতগণ বিভিন্ন সময়ে বহুবার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছে। জাপানিরা ব্যক্তি, সাংগাঠনিক ও সরকারি ইত্যাদি নানা পর্যায়ে সমস্যাটির একটি স্থায়ী ও টেকসই সমাধান খুঁজে বের করতে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। জাপানের জনগণ, নানা সংগঠন ও জাপান সরকার অবিরত নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী ও সেবা দিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোর সহায়তা চলমান রেখেছে। কূটনৈতিকভাবে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব, প্রত্যাবাসনও বাস্তু সমস্যা সমাধানকল্পে জাপান সরকার মিয়ানমার সরকার, আসিয়ান ও জি-৭ ইত্যাদি নানা আন্তর্জাতিক সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রাখছে। জাপান প্রলম্বিত রোহিঙ্গা সমস্যার একটি টেকসই সমাধান চায় এবং এ বিষয়ে বাংলাদেশকে যেকোন ধরনের সহায়তা দিতে প্রস্তুত রয়েছে।

রোহিঙ্গাদের ব্যাপক উপস্থিতি কক্সবাজারের স্থানীয় জনগণের জন্য সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান অত্যন্ত জরুরি বলে মনে করে জাপান। ‘অবাধ ও মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক’ বাস্তবায়ন করা গেলে এই অঞ্চলে শান্তি, স্থিতিশীলতা ও সমৃদ্ধি অর্জনে সহায়ক হবে। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাপান বাংলাদেশের পাশে থাকবে এবং মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসনের জন্য কাজ করে যাবে।

২০২২ সালের ২২ নভেম্বর, ভাসানচরে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের সহায়তার জন্য জাপান ও জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপি) মধ্যে ৩.৭ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি হয়েছে। ভাসানচরে আশ্রয় নেওয়া বিভিন্ন বয়সী নারীদের নিরাপত্তা এবং কিশোর ও যুবকদের ক্ষমতায়নের জন্য এই অর্থ ব্যয় করা হবে। জাপানের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তাকেই শুনসুকে জানিয়েছে যে রোহিঙ্গাদের টেকসই প্রত্যাবাসন নিশ্চিতে মিয়ানমারে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য অপেক্ষা করতে হবে। বর্তমানে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের জন্য একটি বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে, ক্যাম্পে নতুন শিশুর জন্মের ফলে তাদের সংখ্যা বাড়ছে। রোহিঙ্গাদের অনেকেই মাদক ও অস্ত্র পাচারের সাথে জড়িত।

গত পাঁচ বছরে কোনো রোহিঙ্গাই দেশে ফিরে যেতে পারেননি। প্রত্যাবাসন চেষ্টা বারবার ব্যর্থ হলেও সরকার উন্নত দেশগুলোকে বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদেরকে তৃতীয় কোনো দেশে স্থানান্তরের আহ্বান জানিয়ে আসছে। জাপান কিছু রোহিঙ্গাকে সেদেশে পুনর্বাসনের কথা ভাবছে বলে জানিয়েছে জাপানের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি। জাপান ২০২২ সালে বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গা ও স্থানীয় সম্প্রদায়ের জন্য ২ কোটি ৭৮ লাখ মার্কিন ডলার দিয়েছে, ২০২১ সালে এই বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ৫০ লাখ মার্কিন ডলার। জাপান, কক্সবাজার ও ভাসানচরে রোহিঙ্গা শিবিরের ভেতরে রোহিঙ্গাদের জীবনযাত্রার সংকট নিরসনের যথাসাধ্য চেষ্টা করছে।

রাখাইনের পরিস্থিতি নিরাপদ না হওয়াতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সম্ভব হচ্ছে না। জাপানের ‘বিশেষ প্রতিনিধি’ নিপ্পন ফাউন্ডেশন ও সাসাকাওয়া পিস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যানইউহেই সাসাকাওয়ার মধ্যস্থতায় রাখাইনে ২০২২ সালের জুলাই থেকে মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও আরাকান আর্মির মধ্যে শুরু হওয়া যুদ্ধ বন্ধে রাজি হয় মিয়ানমার সেনাবাহিনী, এরপর যুদ্ধরত দুইপক্ষ যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দেয়। এর ফলে রাখাইন অঞ্চলে এখন আপাত শান্তি বিরাজ করছে। ইউহেই সাসাকাওয়া মিয়ানমার সরকার ও সেখানকার বিভিন্ন অঞ্চলের সশস্ত্র আন্দোলনকারীদের মধ্যে ‘জাতীয় ঐক্যের’ লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।২০১৯ সালেও সাসাকাওয়ার মাধ্যমেআরাকানে যুদ্ধবিরতি হয়েছিল।২০২০ সালে জাপান সরকার তাকে মিয়ামারে নির্বাচন পর্যবেক্ষক দলের প্রধান করে পাঠায়।সে সময় এনএলডির সঙ্গে আরাকান আর্মির সম্পর্কের টানাপোড়েন চলছিল, তবে সাসাকাওয়ার মধ্যস্থতায় আরাকানে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হয়। এতে বোঝা যায় যে রাখাইনের রাজনৈতিক অঙ্গনে এবং মিয়ানমার সেনাবাহিনীর কাছে সাসাকাওয়ার গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। রাখাইন রাজ্যের পরিস্থিতি স্থিতিশীল করতে জাপান বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে সহযোগিতা অব্যাহত রেখে মিয়ানমারের রাজনৈতিক পরিস্থিতির উন্নতির জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাবে বলে জানিয়েছে।

বাংলাদেশে নবনিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইওয়ামা কিমিনোরি রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে জাপানের কার্যক্রম অব্যাহত রাখার কথা পুনর্ব্যক্ত করেছে।২০১৭ সালের পর থেকে, আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং এনজিওগুলোর মাধ্যমে কক্সবাজারের পাশাপাশি ভাসান চরে বিভিন্ন সহযোগিতামূলক কার্যক্রমে ১৭৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি সহায়তা দিয়েছে জাপান। এর মধ্যে খাদ্য, স্বাস্থ্যসেবা, পানি স্যানিটেশন স্বাস্থ্যবিধি (ওয়াশ), আশ্রয়, সুরক্ষা এবং লিঙ্গভিত্তিক সহায়তা রয়েছে।বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের প্রয়োজনীয় সুরক্ষা ও মানবিক সহায়তা অব্যাহত রাখতে জাপান সরকার ও ইউএনএইচসিআরের মধ্যে ২২ ফেব্রুয়ারি ৪.৫ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি সই হয়েছে। এ সহায়তা কক্সবাজার ও ভাসানচরের রোহিঙ্গাদের দক্ষতা উন্নয়ন কার্যক্রম বাড়বে এর ফলে রোহিঙ্গারা ক্রমহ্রাসমান মানবিক সহায়তার ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে সক্ষম হবে। এর পাশাপাশি স্থানীয় সম্প্রদায়ের ঝুঁকিতে থাকা নারীরা বিভিন্ন কারুশিল্প তৈরির প্রশিক্ষণ ও নতুন আয়ের সুযোগ পাবে। ভাসানচরে জাপানের এই সহায়তায় ইউএনএইচসিআর রোহিঙ্গাদের শিক্ষা ও জীবিকামূলক কার্যক্রম সম্প্রসারণে কাজ করবে। জাপান সরকার ইউএনএইচসিআর ও বাংলাদেশে জাতিসংঘের অন্য সংস্থা ও এনজিওগুলোকে এ পর্যন্ত ২০৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি সহায়তা দিয়েছে।

বাংলাদেশের কক্সবাজার ও ভাসান চরে রোহিঙ্গা ও আশ্রয়দাতা জনগোষ্ঠীর জীবনযাত্রার উন্নয়ন এবং আশ্রয়কেন্দ্রের উন্নয়নে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থায় (আইওএম) ৫.৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাপান সরকার। জাপান রোহিঙ্গা ও স্থানীয় সম্প্রদায়ের জন্য উন্নত জীবনযাত্রা নিশ্চিত করতে আইওএমসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে সহযোগিতা করবে। জাপান সরকারের অব্যাহত সহায়তা আইওএমকে বাংলাদেশের কক্সবাজার এবং ভাসান চরের রোহিঙ্গা ও স্থানীয় সম্প্রদায়কে জীবন রক্ষাকারী সহায়তা দিতে সাহায্য করবে। এই সহায়তা আরও ভালো বসতি, সুরক্ষা এবং জীবিকার সুযোগ প্রদান নিশ্চিত করবে। সাইট ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড সাইট ডেভেলপমেন্ট (এসএমএসডি) প্রকল্পের মাধ্যমে ভাসান চরের রোহিঙ্গাদের জীবনযাত্রার অবস্থার উন্নয়ন হবে এবং উন্নত জীবিকার সুযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে রোহিঙ্গা নারী ও যুবকদের আত্মনির্ভরশীল করবে। জাপান আইওএম ও অন্যান্য জাতিসংঘের সংস্থাগুলোর পাশাপাশি বাংলাদেশে এনজিওগুলোতে ২০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি সহায়তা করেছে। জাপান রাখাইনের আর্থ সামাজিক পরিস্থিতি উন্নয়নে কফি আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নে সহায়তা করতে পারে। এর ফলে দারিদ্র পীড়িত রাখাইনের জনগণের জীবনমান উন্নত হবে এবং ফলশ্রুতিতে রাখাইনে বসবাসকারী রোহিঙ্গা ও রাখাইনদের মধ্যে চলমান বৈষম্যে কমে দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে সম্পর্কের উন্নয়ন হবে।জাপানের নিপ্পন ফাউন্ডেশন রাখাইনে সাফল্যের সাথে মানবিক পরিস্থিতি মোকাবেলায় ভুমিকা রেখেছে। চিন ও রাখাইনদের কাছে এই সংস্থাটি এবং এর চেয়ারম্যানের জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। এই পরিস্থিতি কাজে লাগিয়ে তারা রোহিঙ্গা ও রাখাইনদের মধ্যে সম্প্রীতির বন্ধন তৈরি করে চলমান পরিস্থিতির উন্নয়নে অবদান রাখতে পারে।রাখাইনে উপযুক্ত কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা গেলে চলমান অস্থিতিশীল পরিস্থিতির উন্নয়ন সম্ভব। এই লক্ষ্যে বাংলাদেশের ক্যাম্পে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদেরকে আত্মকর্মসংস্থানের প্রশিক্ষণ দিলে তারা ফিরে গিয়ে রাখাইনের উন্নয়নেও ভুমিকা রাখতে পারবে।

রোহিঙ্গা সমস্যা দীর্ঘয়িত হলে কক্সবাজারের ক্যাম্পগুলোর ক্রম অবনতিশীল পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে জাপান রোহিঙ্গাদের ভাসান চরে স্থানান্তরে বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তা করতে পারে।

আরও বেশি সংখ্যক রোহিঙ্গা ভাসান চরে স্থানান্তরের লক্ষ্যে জাপান ও আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো একত্রে নতুন অবকাঠামো নির্মাণের মাধ্যমে কক্সবাজারের ক্যাম্পগুলোর উপর থেকে চাপ কমিয়ে নিরাপত্তা পরিস্থিতির উন্নয়নে ভুমিকা রাখতে পারে। রোহিঙ্গা সংকটের ষষ্ঠ বছরে চলছে, চলমান বৈশ্বিক সমস্যার কারনে এই নিপীড়িত জনগোষ্ঠীঅনিশ্চিত ভবিষ্যতের মুখোমুখি, তাই জাপানের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় রোহিঙ্গাদের জন্য প্রয়োজনীয় সহায়তা অব্যাহত রাখা উচিত। এ যাবতকাল জাপানের গৃহীত কার্যক্রম প্রশংসনীয় এবং ভবিষ্যতে জাপানের সক্রিয় অংশগ্রহণে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানের পথে এগিয়ে যাবে এটাই প্রত্যাশা।

লেখক: ব্রিঃ জেঃ (অবঃ) হাসান মোঃ শামসুদ্দীন, এনডিসি, এএফডব্লিউসি, পিএসসি, এম ফিল, মিয়ানমার ও রোহিঙ্গা বিষয়ক গবেষক।

;

বিরিয়ানি বিতর্ক ও মাংস সমাচার



আনোয়ার হোসেইন মঞ্জু
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সম্প্রতি ঢাকার একটি নামিদামি রেস্টুরেন্টে কুকুর-বিড়ালের মাংস সহযোগে বিরিয়ানি তৈরির অভিযোগ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মোটামুটি একটি আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। বরং বলা যায় আলোড়নের চেয়ে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ ও রসিকতা অধিক। কুকুর-বিড়াল, এমনকি ছাগল নিয়ে আমার দুর্বলতা রয়েছে। কুকুর-বিড়ালের মাংস কেউ খেতে পারে তা কল্পনাও করতে পারতাম না, যদি না যথেষ্ট পরিণত বয়সে জানতে পারতাম যে পৃথিবীর অনেক দেশে কুকুরের মাংস ভক্ষণ করা হয়।

কুকুরভুক দেশগুলোতে বাঘ-ভালুক-বানরের মতো জন্তুর মাংস এবং সাপ, কুমির, গিরগিটির মতো সরীসৃপের মাংসও খাওয়া হয়। কোনো কোনো প্রাণী, বিশেষ করে ডোরাকাটা বাঘের অস্থিচূর্ণ, কুমিরসহ বিভিন্ন প্রাণির লিঙ্গ ও অণ্ডকোষ দিয়ে তৈরি স্যুপ যৌন উত্তেজক দাওয়াই হিসেবে সেবন করা হয়। যারা কৌতুহলি হয়েও হংকং, হ্যানয় ও ব্যাংককের মাংসের বাজারে অথবা এসব শহরের কোনো কোনো এলাকায় বিশেষ রেস্টুরেন্টের সামনেও গিয়ে থাকেন, তারা কুমির, বাঘ ও সাপের লিঙ্গ ও অণ্ডকোষ দিয়ে তৈরি স্যুপের বিজ্ঞাপন দর্শন করেছেন এবং পর্যটক বা খদ্দের আকৃষ্ট করার জন্যে রেস্টুরেন্টের লোকদেরও কোরাস শুনতে পেয়েছেন, ‘সেক্স স্ত্রং (স্ট্রং), সেক্স স্ত্রং।’

আমার শৈশব-কৈশোর কুকুর-বিড়াল ও ছাগল ছাড়া কাটেনি। গাছপালায় ঢাকা আমাদের শহরের বাড়িতে গৃহপালিত প্রায় সকল প্রাণি, বাছুরসহ একটি গাভি, ছাগল, কুকুর, বিড়াল, হাঁস, মুরগি, কবুতর তো ছিলই, ঘুঘু, ময়না, টিয়াও ছিল। এমনকি ঘরের দরজার ঠিক সামনে একটি ডালিম গাছে প্রতিবছর একটি টুনটুনি বাসা করতো, সেটির দীর্ঘ ঠোঁট বাসার বাইরে বের হয়ে থাকত এবং আমার সেই টুনটুনির এক হাত দূরে দরজা দিয়ে ঘরে প্রবেশ ও নির্গমণের সময়ও টুনটুনি ভয়ে উড়ে যেত না। বাচ্চা ফোটানোর পর কোনো একসময় বড় হয়ে উড়ে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত টুনটুনি পরিবার আমাদের পরিবারের সদস্যের মতই থাকত। পরের বছর আবার একজোড়া টুনটুনি সেই পুরোনো বাসায় ফিরে আসত, বাসা ঝড়ে পড়ে গেলে তারা একই জায়গায় নতুন বাসা বানিয়ে সংসার সাজিয়ে বসত।

আমি যখন ক্লাস এইটে পড়ি, তখন দীর্ঘ ঝোলানো কানসহ আমার একটি ছাগল ছিল, যাকে তখন রামছাগল বলা হতো। সেটিকে কখনো বেঁধে রাখা হয়নি। ছাগলটির বয়স যখন মোটামুটি এক বছর, হঠাৎ একদিন সেটি মাটিতে পড়ে পা ছুঁড়তে শুরু করল। আমার মা কাঁচা হলুদ ছেঁচে পানির সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ালেন, কপালের লোম চেছে হলুদ ও লাল মরিচ পেস্ট করে প্রলেপ দিলেন, কিন্তু অবস্থার উন্নতি হলো না। আব্বা কৃষি বিভাগে কাজ করতেন, তিনি সেটিকে দ্রুত পশু হাসপাতালে নিয়ে যেতে বললেন, আমি অপর একজনকে সঙ্গে নিয়ে ছাগলকে কোলের ওপর শুইয়ে মাইল খানেক দূরে পশু হাসপাতালে নিয়ে যাই। পশু চিকিৎসক নেড়েচেড়ে ছাগল পরীক্ষা করেন। ইঞ্জেকশন দেন। আমার প্রিয় ছাগলটি হাসপাতালেই মরে গেল। আমি চোখের পানি ফেলতে ফেলতে মৃত ছাগলকে কোলে নিয়ে ফিরে আসি। বাড়ি এসে ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদি। সেদিন আমার অংক পরীক্ষা ছিল। আমার ছাগল নেই, পরীক্ষা দিয়ে কী হবে! আম্মা, আব্বা আমার কান্না থামাতে চেষ্টা করেন, আমি আরো কাঁদি। অনেক কষ্টে তারা আমার কান্না থামিয়ে পরীক্ষা দিতে পাঠান।

পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরার পর আমার বোন আমার হাতে একটি কাগজ ধরিয়ে দেয়। আমি ঝাপসা চোখে কাগজের লেখাগুলো পাঠ করি: ‘ছাগলের মৃত্যুতে শোকসভা।’ আমি পরীক্ষা দিতে যাওয়ার পর আমার ভাইবোনেরা শোকসভা করেছে, আমার কান্নাকাটির কথা বর্ণনা করেছে এবং ছাগলের আত্মার শান্তি কামনা করেছে। তাদের কাছে ব্যাপারটি রসিকতা হলেও ছাগলের মৃত্যুশোক আমি দীর্ঘদিন পর্যন্ত কাটিয়ে উঠতে পারিনি।

পাকিস্তানি সৈন্যদের আগমন আশঙ্কায় ১৯৭১ সালের এপ্রিলের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে লোকজন শহর ছাড়তে শুরু করে। বড় ধরনের সংকট অনুমান করে মাস খানেক আগে থেকেই আমাদের পোষা প্রাণীগুলোর বিধিব্যবস্থা করার কাজ শুরু হয়েছিল। হাস-মুরগিগুলো প্রতিদিন জবাই করে খাওয়া হচ্ছিল। ময়না, টিয়া খাঁচামুক্ত করে দেওয়া হলো। কবুতরগুলোকে ছেড়ে দেওয়া হলো ওদের অদৃষ্টের ওপর। গাভি ও বাছুরকে হাটিয়ে ও দু’তিনটা বিড়ালকে চটের থলেতে ভরে গ্রামের বাড়িতে নেয়া হলো।

কিন্তু আমাদের কুকরটিকে শহরের বাড়ি থেকে ছয় মাইল দূরে গ্রামের বাড়িতে নেয়া কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছিল। আমি আস্তে আস্তে সাইকেল চালিয়ে যাই, কুকুর পেছন পেছন আসে। বাংলাদেশে ওয়ারিশসহ ও বেওয়ারিশ কুকুরের অভাব নেই, আগেও ছিল না। রাস্তার পাশে যেখানেই বাড়িঘর আছে, নতুন কুকুর নিয়ে সেসব এলাকা অতিক্রম করা অনেকটা দুঃসাধ্য। পাড়ার সকল কুকুর অপরিচিত কুকুরকে তাড়া করে। এই কুকুরের পালের হাত থেকে রক্ষা পেতে আমার কুকুর প্রথমে আমার কাছে সহায়তার আশা করে, আমার অসহায়ত্ব দেখে কুকুর মাঠের দিকে দৌড় দিয়ে আত্মরক্ষা করে। পাড়া অতিক্রম করার পর কুকুর আবার আমার সঙ্গে মিলিত হয়। পাড়া এড়িয়ে খোলা মাঠের ভেতর দিয়ে কুকুর নিয়ে যাই। তবুও পাঁচ-ছটি স্থানে আমার কুকুর তাড়া খায় এবং শেষ পর্যন্ত সেটিকে নিয়ে বাড়ি পৌঁছি। গ্রামের বাড়িতেও একটি কুকুর ছিল, সেটির সঙ্গে বন্ধুত্ব হতেও শহুরে কুকুরের কয়েকদিন লেগে যায়।

শহরের বাড়িতে যে ছাগলটি ছিল, সেটি তখন গর্ভবতী। একেবারে এডভান্সড স্টেজ বা যখন তখন অবস্থা। ভালোভাবে নড়াচড়াও করতে পারে না। কোনো উপায়েই ছাগলটিকে গ্রামের বাড়িতে নেয়া সম্ভব ছিল না। এবার ছাগলের জন্যে আম্মা কাঁদেন, কী আছে সেটির ভাগ্যে! সিদ্ধান্ত হলো, ছাগলের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে কাঁঠালের পাতা, শেওড়া পাতা, ডালের ভূষি এবং যথেষ্ট পরিমাণে পানি রেখে ছাগলটি যে ঘরে থাকত, সেই ঘরের দরজা খোলা রেখে সেটির গলায় বাঁধা রশি কেটে দেওয়া হবে। বাকিটা ওপরওয়ালার হাতে। তখন শিয়ালের প্রচুর উৎপাত ছিল। অতএব ছাগলের ভবিষ্যৎ মোটামুটি নির্ধারিত। আমরা ছাগলের জন্যে আল্লাহর দরবারে মোনাজাত করি, আম্মা দোয়া দরুদ পড়ে ছাগলের গায়ে ফুঁ দেন। অসহায় ছাগলটিকে ভাগ্যের ওপর ছেড়ে ঝাপসা নয়নে আমরা বাড়ি ত্যাগ করি। মে মাসে শেষ দিকে পরিস্থিতি একটু স্থিতিশীল হলে শহরের বাড়িতে এসে আমরা ছাগলটিকে আর দেখিনি। ছাগলটির জন্যে এখনো মর্মবেদনা ভোগ করি।

এসব প্রাণির মাংস মানুষ খায় কীভাবে?

আমি বিশ্বাস করি না যে সুলতান’স ডাইন কুকুর-বিড়ালের মাংস দিয়ে বিরিয়ানি বানিয়েছিল। কারো যদি অপকর্ম করার ইচ্ছা থাকে, তাহলেই তার পক্ষে এ ধরনের কর্ম করা সম্ভব। তবে সাধারণত তাও ঘটে না। ১৯৭৭ সালের প্রথমদিকে ঢাকার ফুলবাড়িয়ায় ‘হোটেল আল হায়াত’ নামে এক হোটেলে এক ব্যক্তি খেতে বসে মাছের তরকারিতে মানুষের হাতের একটি আঙুল পায়। এ নিয়ে তুলকালাম কাণ্ড। রেস্টুরেন্ট বন্ধ হয়ে যায়, মালিককে গ্রেফতার করা হয়। তদন্তে প্রমাণিত হয়, আঙুলটি বোয়াল মাছের পেটে ছিল। মাছ কাঁটাবাছা করার পর্যায়েও কারো চোখে ধরা পড়েনি এবং সেটি গ্রাহকের পাতে চলে গেছে। ২০০১ সালে আরিচা ঘাটের একটি বাঁশচাটাইয়ের বেড়া দিয়ে বানানো এক হোটেলে খাওয়া শেষে হোটেলের পেছনে হাত ধুঁতে গিয়ে জবাই করা অবস্থায় একটি কুকুর দেখে। এ নিয়ে মহা শোরগোল। হোটেল মালিক পুলিশের কাছে স্বীকার করেন, আসলেই তিনি দীর্ঘদিন যাবত মানুষকে কুকুরের মাংস খাওয়াচ্ছিলেন। এ নিয়ে আমরা মানিকগঞ্জবাসী আমার প্রিয় সুমন ভাইয়ার সঙ্গে রসিকতা করতাম, যে তার বাড়িতে দাওয়াত দিলে অন্তত মাংস খাওয়া যাবে না।

আশির দশকের মাঝামাঝি সময়ে কোরিয়ান ঠিকাদার আমাদের এলাকায় শেরপুর-জামালপুর সড়ক নির্মাণ করে। কোরিয়ার বেশ কিছু ইঞ্জিনিয়ার, টেকনিশিয়ান এ প্রকল্পে কাজ করছিল। তারা নাকি রাস্তা থেকে লাওয়ারিশ কুকুর ধরে সেটির মাংস খেত। এলাকার লোকজন এটা জানার পর তাদের কাছে পাঁচশো, হাজার টাকায় কুকুর বিক্রি করত। এ নিয়ে ঝামেলাও হয়েছিল ইতর কিসিমের লোকজন অনেকে পোষা কুকুর ধরেও কোরিয়ানদের কাছে বিক্রি করত। অভিযোগ প্রশাসন পর্যন্ত গড়ায়। প্রশাসন তাদের ওপর আদেশ জারি করে যে প্রকল্প চলাকালে তারা আর কুকুর খেতে পারবে না।

আমার শ্যালক সংখ্যা মাশাআল্লাহ অনেক। তাদের একজন খুরশিদ আলম বেশ ক’বছর দক্ষিণ কোরিয়ায় ছিল। সে ফিরে আসার পর জানতে চেয়েছি, সে কুকুরের মাংস খেয়েছে কিনা। সে ‘হ্যাঁ’, ‘না’ কিছু বলে না ।পরিবেশ বিষয়ক আমাদের একটা এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম ছিল, কম্বোডিয়ার দুটি ছেলে ঢাকায় আমাদের সঙ্গে কাজ করছিল। প্রথম দফা বিনিময়ে নকশি নামে আমাদের এক মেয়ে কর্মীকে কম্বোডিয়ায় পাঠানো হয়। দুই সপ্তাহের মধ্যে মেয়েটি দেশে ফিরে আসে। কম্বোডিয়ার সে কেনাকাটা করতে গিয়ে বাজারে জ্যান্ত সাপ বিক্রি করতে দেখেছে, রেস্টুরেন্টে খেতে গিয়ে সাপ দিয়ে তৈরি ফ্রাই, স্ট্যু, স্যুপ ইত্যাদি দেখেছে। এসব দেখে নাকি তার নাড়িভূড়ি বের হয়ে আসার উপক্রম। তাকে বলা হলো, ফিরে আসা চলবে না। টিকেটের মূল্যসহ অন্যান্য খরচ ফেরত দিতে হবে। টাকা ফেরত দেওয়ার পরিবর্তে সে নিজের টাকায় টিকেট কিনে আবার কম্বোডিয়ায় যায়। এক বছর পর ফিরে আসলে নকশির কাছে জানতে চাই, শেষ পর্যন্ত সে সাপ খেয়েছে কিনা। নকশি উৎসাহে উত্তর দেয়, ‘খেয়েছি স্যার, পাঁচটা। খেতে খারাপ লাগে না। বাইম মাছের মতো।’

‘যস্মিন দেশে যদাচার’ বলে একটি কথা আছে। বাংলাদেশে কুকুর-বিড়ালের মাংস ভক্ষণ আইনত নিষিদ্ধ কিনা, আমার জানা নেই। ধর্মীয়ভাবে নিষিদ্ধ, সামাজিকভাবে অগ্রহণযোগ্য। এসব বিধিনিষেধ মান্য না করারও লোক যথেষ্ট। হরিণের গোশত খাওয়া আইনত নিষিদ্ধ এটি সংরক্ষিত প্রাণীর শ্রেণিতে গণ্য বলে। কিন্তু মানুষ চুরি করে হরিণ শিকার করে এবং জবাই করে মাংস খায়। মদ সাধারণভাবে নিষিদ্ধ, মেডিকেল গ্রাউন্ডে মদ পান করার সুযোগ আছে। কিন্তু যারা পান করতে আগ্রহী তারা অনুমোদন ও অনুমোদন ছাড়াও পান করে। বাংলাদেশের রাষ্ট্রায়ত্ত্ব খাতের অনেক চিনি কারখানায় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মদ তৈরি ও রফতানি হয়। ঘুষ খাওয়া ধর্মীয়ভাবে ও আইনগতভাবে অন্যায়, মানুষ ঘুষ খায়। পরনারী সংসর্গ পাপ, আইনগর্হিত, সুযোগ পেলেই লোকজন তা করে। অতএব, কেউ যদি কুকুর-বিড়াল খেতে চায়, আইনে বাধা না থাকলে তারা খেতেই পারে। তবে যারা বিক্রি করবেন, তাদের বলা উচিত তারা গ্রাহকে কি পরিবেশন করছেন।

বিশ্বে কি পরিমাণ কুকুর মাংস খাওয়ার উদ্দেশ্যে নিধন করা হয়, তা জানলে চোখ কপালে উঠবে। বার্ষিক কমবেশি ৩০ মিলিয়ন বা তিন কোটি। চীনারা বছরে প্রায় ৪০ কোটি বিড়াল খায়। প্রায় দুই কোটি কুকুর শুধু চীনারাই খায়। ৫০ লাখ কুকুর খায় ভিয়েতনামীরা, ২০ লাখ দক্ষিণ কোরীয়রা, ১০ লাখ ইন্দোনেশিয়া, যুক্তরাষ্ট্রের হ্ওায়াই ও ফিলিপাইনসের লোকজনও কুকুর খায় এবং প্রায় এক লাখ কুকুরের মাংস থাই, লাওস ও কম্বোডিয়া আমদানি করে। আফ্রিকার কমবেশি ২০টি দেশের কুকুরের মাংস খাওয়ার প্রচলন রয়েছে, তার মধ্যে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ ছোট দেশ বারকিনা ফাসোতেও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কুকুর খাওয়ার উদ্দেশ্যে হত্যা করা হয়। উত্তর ভারতের নাগাল্যাণ্ডবাসীরাও কুকুর খেতে অভ্যস্ত। এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে তাইওয়ান সর্বপ্রথম কুকুর ও বিড়ালের মাংস খাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

কুকুরখোর প্রতিটি জাতি অতীতে যেমনই থাকুক, বর্তমানে সমৃদ্ধ জাতি। একসময় তাদের অবস্থাও পঞ্চাশের দশকের বাংলাদেশের মতো দীনহীন অবস্থা ছিল। কিন্তু ষাটের দশকের মধ্যেই দেশগুলো ঘুরে দাঁড়ায়, যখন বাংলাদেশ বা সাবেক পূর্ব পাকিস্তানে খাদ্যাভাব ছিল সাংবাৎসরিক ব্যাপার। ওই দেশগুলোর লোকজন কুকুর খেয়েই তরক্কি করেছে কিনা তা গবেষণার বিষয়। মরহুম সাংবাদিক গিয়াস কামাল চৌধুরী রসিয়ে রসিয়ে গল্প বলতে উস্তাদ ছিলেন। তিনি বরিশালের লতিকুল্লাহ নামে এক নেতার ভাষণ শোনাতেন, বরিশালবাসীর উদ্দেশ্যে ওই অঞ্চলের টানে লতিকুল্লাহ’র বক্তৃতা নাকি এমন ছিল: ‘চীন জাগিল, কোরিয়া জাগিল, মালয়েশিয়া জাগিল, সিঙ্গাপুর জাগিল, ইন্দোনেশিয়া জাগিল, আপনারা কি জাগিবেন আপনাদের গুয়ার ভেতর দিয়া বাঁশ গেলে?’ লতিকুল্লাহ সাহেব জানতেন না যে চীনসহ ও দূরপ্রাচ্যের দেশগুলোর উন্নয়ন সাধনের পেছনে কুকুরের মাংস খাওয়ার কোনো যোগসূত্র আছে কিনা।

ইতিহাস ঘেঁটে দেখা যায়, আমেরিকান সিভিল ওয়ারের সময় আমেরিকান সেনাবাহিনী ও কনফেডারেট বাহিনীকে খাদ্যাভাব দেখা দিলে তারা প্রথমে ঘোড়া, এরপর গাধা এবং সবশেষে কুকুরের মাংসের ওপর জীবন ধারণ করেছে। বাংলাদেশে কুকুর খাওয়া না হলেও কুকুরের দংশন থেকে মানুষকে রক্ষা করার জন্য কুকুর নিধন করা হয় এবং ঢাকা সিটি করপোরেশন বছরে প্রায় ৩০ হাজার লাওয়ারিশ কুকুর নিধন করে। কুকুরখোরদের জন্য এটা দুঃসংবাদ!

ভারতে কুকুর নিধন নিষিদ্ধ। কারণ, হিন্দু ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী কুকুর ভগবান ভৈরবের অবতার। হিন্দুবাদে ত্রিমূর্তির (ব্রক্ষ্মা, বিষ্ণু ও মহেশ্বর) অবতার ভগবান দাত্তাতরায়ার সঙ্গে কুকুরের যুগসূত্র রয়েছে। এই ভগবান সবসময় চারটি কুকুরকে অনুসরণ করেন, যা প্রতীকীভাবে চার বেদ এর প্রতিনিধিত্ব করে। তবে কুকুরের বংশবৃদ্ধি রোধ করার জন্যে তারা পুরুষ কুকুর ধরে ধরে নিবীর্যকরণ কর্মসূচি কার্যকর করে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের রিপোর্ট অনুযায়ী গুজরাটের সুরাট শহরে দৈনিক প্রায় ১০০ কুকুরকে নিবীর্য করা হয়।

আনোয়ার হোসেইন মঞ্জু, আমেরিকা প্রবাসী সিনিয়র সাংবাদিক, বিশিষ্ট অনুবাদক।

;