Barta24

মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

রিজার্ভ চুরি মামলার আপডেট সংসদে

রিজার্ভ চুরি মামলার আপডেট সংসদে
সংসদে অর্থমন্ত্রী, ছবি: সংগৃহীত
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
ঢাকা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি যাওয়ার ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের পক্ষে মামলা করেছে দেশটির একটি আইনি প্রতিষ্ঠান। এ বিষয়ে যখনই কোন আপডেট তথ্য পাওয়া যাবে তখনই স্পিকারের মাধ্যমে সংসদকে অবহিত করবেন বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল।

মঙ্গলবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে ৩০০ বিধিতে এ সংক্রান্ত বিবৃতি দেন অর্থমন্ত্রী।

অর্থমন্ত্রী বলেন, 'বাংলাদেশের ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা রিজার্ভটি যুক্তরাষ্ট্রে নিউইয়র্কে অবস্থিত ফেডারেল ব্যাংক অব নিউইয়র্কে সংরক্ষণ করা হয়। পৃথিবীর প্রায় সকল দেশের রিজার্ভই এখানে সংরক্ষিত থাকে। দুঃখজনক হলেও সত্য যে ২০১৬ সালে জানুয়ারিতে হ্যাকিং এর মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ব্যাংকে সংরক্ষিত আমাদের বৈদেশিক মুদ্রা রিজার্ভের একটি অংশ শ্রীলঙ্কা ও ফিলিপাইনে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে পাচার করা হয়। তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহারের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক হ্যাকাররা ৭০টি ভুয়া অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে ৯৫১ মিলিয়ন ইউএস ডলার পাচারের চেষ্টা করা হয়। এর মধ্যে ৫টি মিথ্যা চেক এর মাধ্যমে ১০১ মিলিয়ন ডলার ট্রান্সফার করার পর নিউইয়র্কের ফেডারেল ব্যাংকের সন্দিহান হয়ে বাকি পেমেন্টগুলো করতে পারেননি।'

মুস্তাফা কামাল বলেন, 'রিজার্ভ চুরির বিষয়টি নজরে আসার সাথে সাথে আমাদের সরকার চুরি হয়ে যাওয়া অর্থ উদ্ধার, চুরি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান চিহ্নিতকরণ ও ভবিষ্যৎ চুরি রোধে সম্ভাব্য সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করে। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. ফরাস উদ্দিনের নেতৃত্বে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটি দ্রুত সরকারের নিকট একটি রিপোর্ট পেশ করেন। পাশাপাশি সিআিইডিকে অধিকতর তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়। সিআইডি’র তদন্ত এখনো চলমান আছে।'

মন্ত্রী আরও বলেন, 'ফৌজদারি কার্যকরে যেন কোন প্রভাব না সেজন্য রিপোর্টটি এখনো প্রকাশ করা হয়নি। রিজার্ভ চুরির বিষয়টি আন্তর্জাতিক অপরাধ এবং বিদেশি একাধিক প্রতিষ্ঠান জড়িত আছে। বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধে ইউএস এর এফবিআই এবং ফিলিপাইন সরকার তদন্তে নামে। এরই ধারাবাহিকতায় শ্রীলঙ্কা থেকে ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার তাৎক্ষণিকভাবে উদ্ধার করা হয় এবং ফিলিপাইন থেকে ১৪ দশমিক ৬৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ফেরত আনা হয়েছে। বাকি ৬৬ দশমিক ৩৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার উদ্ধারে এখনো কার্যক্রম চলান আছে।'

এফবিআই নিজ দেশের হ্যাকারদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, 'ফিলিপাইনে এন্ট্রি মানিলন্ডারিং কাউন্সিল মানিলন্ডারিং এ জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা করে। এখান থেকে আমরা পর্যাপ্ত প্রমাণাদি পেয়েছি এবং প্রমাণাদিসহ ২০১৮ সালের জুন মাসে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে মামলা করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক একটি আইনি প্রতিষ্ঠান ‘কোজেন অব অনারকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। যারা গত জানুয়ারি মাসে যুক্তরাষ্ট্রে আমাদের পক্ষে মামলা দায়ের করেছে। এখানে উল্লেখ্য যে নির্দিষ্ট সময়ে মাঝে আমরা মামলাটি দায়ের করতে পেরেছি। চুরি যাওয়া রিজার্ভ অর্থ উদ্ধারের কাজ এখনো চলমান আছে। এ বিষয়ে যখনই কোন অগ্রগতি হবে এই সংসদকে অবহিত করব।'

আপনার মতামত লিখুন :

প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বন্ধের পরিকল্পনা নেই

প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বন্ধের পরিকল্পনা নেই
সংসদ অধিবেশন ও গণশিক্ষামন্ত্রী জাকির হোসেন

প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী জাকির হোসেন বলেছেন, ২০০৯ সাল থেকে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু হয়। এখন পর্যন্ত অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে ও স্বচ্ছতার সঙ্গে এই পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। তাই আপাতত এই পরীক্ষা বন্ধ করার কোন পরিকল্পনা নেই।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) বিকেলে একাদশ জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনে ঢাকা-২০ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য বেনজীর আহমেদের প্রশ্নের লিখিত জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষাকে অধিকতর যুগোপযোগী করে আয়োজনের লক্ষ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন একটি বোর্ড গঠনের বিষয় চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি ৪) এর ডিপিপি-তে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ৫ বছর মেয়াদী উন্নয়ন কমূসূচির ডিপিপি মোতাবেক ৩য় বছরে অর্থাৎ ২০২০-২০২১ অর্থবছরে তা বাস্তবায়নের পরিকল্পনা রয়েছে।

গণশিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার প্রাথমিক শিক্ষাকে ঢেলে সাজানোর লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। এসব পদক্ষেপের মধ্যে প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণি চালু করে শিক্ষক নিয়োগ করা হয়েছে ও অধিকতর যোগ্যতা সম্পন্ন শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার লক্ষ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা ২০১৯ জারি করা হয়েছে।

মো. হাবিবুর রহমানের প্রশ্নের জবাবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বলেন, রিচিং আউট-অব-স্কুল চিলড্রেন (রস্ক) ফেইজ-২ প্রকল্পের আওতায় বর্তমানে ৫৮টি উপজেলায় ঝড়েপড়া শিশুদের নিয়ে ১৯১৬টি শিখন কেন্দ্রে ৩৬৮৭২ জন শিক্ষার্থী এবং ১০টি সিটি কর্পোরশেনে ৩২৫টি কম্পাউন্ডে ১৫১৮টি শিখন কেন্দ্রের মাধ্যমে ৩৯৭৩২ জন বস্তিবাসী শিশুকে প্রাথমিক শিক্ষার আওতায় আনা হয়েছে।

বেগম খোদেজা নাসরিন আক্তার হোসেনের প্রশ্নের জবাবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রাথমিক পর্যায়ে শিশুদের শিক্ষাজীবন থেকে ঝড়েপড়া রোধে স্কুল বা শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের পরিবেশ দৃষ্টিনন্দন করা হয়েছে। পড়ার উপযোগী পরিবেশ আরো আকর্ষণীয় করে শিশুদের বিনোদন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলা হচ্ছে। এ লক্ষ্যে মন্ত্রণালয় নিরলস কাজ করে যাচ্ছে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মো. জাকির হোসেন বলেন, শিক্ষার জন্য খাদ্য কর্মসূচি ১৯৯৩ সাল থেকে ২০০২ পর্যন্ত চালু ছিল। সমগ্র বাংলাদেশে প্রাথমিক শিক্ষার জন্য উপবৃত্তি প্রকল্প চালু করায় শিক্ষার জন্য খাদ্য কর্মসূচি প্রকল্প বন্ধ হয়ে যায়।

মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী বলেন, বিদ্যালয়বিহীন গ্রামে নতুন করে বিদ্যালয় স্থাপন করার জন্য সারাদেশে ১০০০টি নতুন বিদ্যালয় স্থাপনের কার্যক্রম গ্রহণের পরিকল্পনা রয়েছে।

‘ডিসেম্বরের মধ্যে কালুরঘাট ব্রিজের সৎগতি না হলে সংসদ থেকে বের হয়ে যাব’

‘ডিসেম্বরের মধ্যে কালুরঘাট ব্রিজের সৎগতি না হলে সংসদ থেকে বের হয়ে যাব’
ছবি: সংগৃহীত

জাতীয় সংসদ ভবন থেকে: আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে চট্টগ্রামে কালুরঘাট ব্রিজের সৎগতি (কাজের সুরাহা) না হলে সংসদ থেকে বের হয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ওই এলাকার সংসদ সদস্য জাসদের কার্যকরী সভাপতি মঈন উদ্দীন খান বাদল।

তিনি বলেছেন, আমি শুধু বকাউল্লা, আর গরীবুল্লা, মাঝে মাঝে ফ্যাঁ ফ্যাঁ করি। আর সুপারিশ মোতাবেক বাহ, বেশ, বেশ করি।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) বিকেলে একাদশ জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এভাবেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এর আগে বিকেল ৩টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে দিনের কার্যসূচি শুরু হয়।

মঈন উদ্দীন খান বাদল নিজের শিক্ষকের একটা গল্প শুনিয়ে সংসদকে বলেন, আমার শিক্ষক আমাকে বলছেন, তোমার কালুরঘাট সেতুর কি হইল। আমি বলছি চেষ্টা করছি। কয় মিয়া তুমি আর কী চেষ্টা করবা। তোমার অবস্থা হইল তুমি হইলা বকা উল্লাহ, তুমি বইকা যাবা। শোনা উল্লারা শুইনা যাবে করিমুল্লারা কইরা যাবে, আর খানে উল্লারা খাইয়া যাবে। আর গরীবুল্লারা চর্তুদিকে ফ্যাঁ ফ্যাঁ কইরা তাকাবে রাজা রানীর কথা আসলে বেশ বেশ করবে। এখন তুমি কোনটা? বলছি স্যার প্রথমটা তো হইছি। বকা উল্লা বলতে পারবে। বকা ছাড়া কাজ নাই। গত ১০ বছরের দেখেছি বকা ছাড়া লাভ নাই। আরেকটা হয়েছি গরীবুল্লাও বটে। এদিকে সেদিক ফ্যাঁ ফ্যাঁ করি। মাঝে মাঝে সুপারিশ মোতাবেক বাহ বেশ বেশ করি।

তিনি বলেন, এই প্রকল্পে চারবার ফিজিবিলিটি স্টাডি হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার এসএমবিসি ফিজিবিলিটি স্ট্যাডি করেছে তাইওয়ানের ‘ওইকন’ করেছে বাংলাদেশের এইচ কনসালটেন্ট করেছে। এটা শেষ হওয়ার পর দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে কথা হয়েছে। এই প্রজেক্টের প্রস্তাবিত ব্যয় ধরা হয়েছিল ১১৬৩ কোটি টাকা। তারমধ্যে থেকে জিওবি ফান্ড থেকে ৩৭৯ কোটি টাকা, বাকি পুরা টাকা দিচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া। ৪০ বছরের টার্নেল করা হবে। তার সুদ ০.০১ শতাংশ। এত কিছুর পরও হয় না। হাজার হাজার কোটি টাকার প্রকল্প পাস হচ্ছে, হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন হচ্ছে। আমি বকা উল্লা কী বলব, আমাকে সেটার উত্তর দিতে হবে। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে কালুরঘাট ব্রিজের সৎগতি না হলে এই সংসদ থেকে বের হয়ে যাব। এই রকম অপমান মেনে নেওয়া যায় না।

সরকারি বিভিন্ন প্রকল্পের ব্যয় বাড়ানোয় সমালোচনা করে বলেন, এটা কি তামাশার দেশ পাইছেন। ২০ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প সেটা বেড়ে ১ লাখ কোটি টাকা করার প্রস্তাব করা হয়। কি কারণে? কেন, কী কারণে? যারা প্রজেক্ট বানায় তাদের ধরে এনে পিটানো উচিৎ!

স্বাধীনতার ঘোষক বিতর্কে জিয়াউর রহমানের অবস্থান সম্পর্কে বলেন, আমি প্রথম ব্যক্তি ২৬ মার্চ জিয়াউর রহমানকে বোয়ালখালি মাঠ থেকে রিসিভ করেছিলাম। জিয়াউর রহমান ২৬ মার্চ পুরো দিন বোয়ালখালি ছিলেন, সারাদিন বোয়ালখালী ছিলেন, কেউ যদি প্রমাণ করতে পারে জিয়াউর রহমান ২৬ মার্চ কর্ণফুলি অতিক্রম করেছে, তাহলে আমি সংসদ থেকে চলে যাব। এই সমস্ত জায়গা গুলোতে মিথ্যাচার করার দরকার নাই। তিনি গেছেন, তিনি পড়েছেন ২৭ তারিখ। 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র