Alexa

প্রযুক্তি ব্যবহারের অপরিহার্য কিছু নিয়মনীতি

প্রযুক্তি ব্যবহারের অপরিহার্য কিছু নিয়মনীতি

ছবি: সংগৃহীত

প্রতিদিনের কাজে প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়েই চলেছে।

অফিস থেকে বাসার কাজ- সবকিছুতেই আমরা এখন প্রযুক্তি নির্ভর। প্রযুক্তি ছাড়া আমাদের দৈনন্দিনের যোগাযোগ করাও সম্ভব নয়।

প্রযুক্তির সহজলভ্যতা ও নির্ভরতা আমাদের প্রযুক্তির প্রতি আসক্তিতে পরিণত হয়েছে। এই আসক্তির কারণে অনেকাংশেই আমরা প্রযুক্তি ব্যবহারের আদব-কায়দা হারাতে বসেছি।

জেনে নেওয়া যাক এমন কিছু নিয়ম, যা প্রতিদিনের প্রযুক্তির ব্যবহার ও প্রযুক্তিগত কাজের ক্ষেত্রে মেনে চলা প্রয়োজনীয়।

১. ই-মেইলে কিছু লিখলে তার শেষে ‘Thanks’ লিখতে হয়। অপরদিকের মেইল গ্রহীতা যদি মনে করেন, ব্যপারটি অনুসরণ করা প্রয়োজন। তবে তিনি আপনাকে জানিয়ে দিবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/02/1551505124959.jpg

২. ওয়েটিং রুম, চেক আউট লাইন, রেস্টুরেন্ট, ট্রেন বা বাথরুমের স্টলে মোবাইল ফোন ব্যবহার না করাই শ্রেয়। যখন আপনাকে কেউ সাহায্য করতে চাইবে কিন্তু আপনি তাকে গুরুত্ব না দিয়ে মোবাইল ফোনে ব্যস্ত থাকবেন তখন ব্যাপারটি বেশ বিরক্তিকর। তাই কেউ আপনাকে কোন কাজে সাহায্য করতে চাইলে, মোবাইল ফোন ব্যবহার না করে উক্ত ব্যক্তি বা কাজের দিকে পূর্ণ মনোযোগ দিতে হবে।

৩. যখন কোন ব্যক্তির সাথে কথা বলবেন বা কোন কারো সাথে দেখা করবেন, তখন বারবার মোবাইল ফোন না দেখাই ভালো। যদি কেউ আপনার সাথে মোবাইল বা সোশ্যাল মিডিয়াতে যোগাযোগ করার চেষ্টা, তবে আপনি আপনার সময় সুযোগ মতো রেসপন্স করতে পারবেন। মোবাইলের নোটিফিকেশন থেকেই সব আপডেট পাওয়া যাবে।

৪. কারো সাথে ম্যাসেজের মাধ্যমে কথা বলার আগে জেনে নিন, তার হাতে পর্যাপ্ত সময় আছে কিনা বা তিনি এই মুহূর্তে আপনার কাঙ্ক্ষিত বিষয়ে কথা বলার মত মানসিকতায় আছেন কিনা। নতুবা আপনাদের কথোপকথনটি খুবই বোরিং ও অসফল হতে পারে।

৫. টুইটারে কারো সাথে কথোপকথন চালিয়ে যেতে Direct Message (DM) বা ই-মেইল ব্যবহার করুন। টুইটে বারবার ‘@’ চিহ্ন ব্যবহার করে কথোপকথন না চালানোই ভালো। এতে করে অন্য ব্যবহারকারীরা বিরক্ত বোধ করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/02/1551505234630.jpg

৬. যেকোন ওয়াইফাই ব্যবহারের আগে জেনে নিন সেটি নিরাপদ কিনা। নয়তো সামান্য ওয়াইফাই ব্যবহার করতে গিয়ে আপনি জড়িয়ে যেতে পারেন যেকোন বড় সমস্যায়।

৭. ই-মেইল পাঠানোর আগে অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। ই-মেইলে অযথা কোন রঙিন লেখা, ক্লিপ আর্ট, ইমোজি যোগ করা উচিত নয়। মেইলে বড় ফাইল যোগ করা এবং সঠিকভাবে মেইল ফরোয়ার্ড করার দিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

৮. ই-মেইলের মাধ্যমে কাউকে কোন উপলক্ষ্য তথা- বিয়ে, জন্মদিন বা কোন অনুষ্ঠানের দাওয়াত দিতে চাইলে মেইলের শেষে ‘Thank you Note’ দেওয়া যাবে। তবে সেক্ষেত্রে মেইল টি শুধু মাত্র একজনকেই পাঠাতে হবে। সিসি (CC) তে কাউকে রেখে মেইলটি পাঠানো যাবে না।

আরো পড়ুন: পেটের মেদ কমাতে উপকারী ৬ ব্যায়াম

আরো পড়ুন: ফল খাওয়ার সঠিক সময় কোনটি?

আপনার মতামত লিখুন :