Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

‘বিশ্বরঙ’ এর শাড়ি উৎসব-২০১৯

‘বিশ্বরঙ’ এর শাড়ি উৎসব-২০১৯
ছবি: বিশ্বরঙ
লাইফস্টাইল ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ সহ ভারতীয় উপমহাদেশের একটি অংশ নারীদের ঐতিহ্যবাহী ও নিত্যনৈমিত্তিক পরিধেয় পোশাক হলো ‘শাড়ি’। এই পোশাকের রয়েছে নান্দনিক সৌন্দর্য এবং ঐতিহ্যগত ইতিহাস। বিভিন্ন অনুষ্ঠানাদিতে শাড়িকে নারীদের মূল পোশাক হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

বর্তমান সময়ে আকাশ সংস্কৃতির কারনে ঐতিহ্যবাহী নিত্যনৈমিত্তিক পরিধেয় পোশাক ‘শাড়ি’ হারিয়ে ফেলেছে তার প্রাচীন ঐতিহ্যকে। আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্যকে সুরক্ষার তাগিদেই বাংলাদেশের বিশিষ্ট ফ্যাশন ডিজাইনার বিপ্লব সাহার উদ্যোগে, চট্রগ্রামের 'কালার্স অফ লাইফ' এবং 'ড্রিমার ওমেন্স'-এর আয়োজনে বাংলাদেশে এই প্রথম ‘বিশ্বরঙ শাড়ি উৎসব’-এর আয়োজন করা হয়েছে ২৮ থেকে ৩০ মার্চ পর্যন্ত চট্টগ্রামের হোটেল আগ্রাবাদে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/07/1549528766946.jpg

এই আয়োজন উপলক্ষে গত ০৪/০২/২০১৯ চট্রগ্রাম প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট ফ্যাশন ডিজাইনার ও বিশ্বরঙ এর কর্ণধার বিপ্লব সাহা, সভাপতিত্ব করেন সাকিলা গাফফার প্রেসিডেন্ট ‘কালার্স অফ লাইফ’, আনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন - ইলিয়াস রিপন।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- রোহী মোস্তফা, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও চিটাগং ওমেন্স চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রিজ, চৌধুরী ফরিদ, জয়েন্ট সেক্রেটারি, চিটাগং প্রেসক্লাব, ফ্যাশন ডিজাইনার রওশন আরা, ফ্যাশন ডিজাইনার সুলতানা নুরজাহান রোজী, বঙ্গবন্ধু গবেষক অধ্যাপক ডঃ মাসুম চৌধুরী, মুস্তারা মোরশেদ স্মৃতি ডিরেক্টর চিটাগং ওমেন্স চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রিজ।

আপনার মতামত লিখুন :

যেভাবে মশা দূরে থাকবে আপনার কাছ থেকে!

যেভাবে মশা দূরে থাকবে আপনার কাছ থেকে!
নিয়ম জেনে রাখলে মশাকে দূরে রাখা সম্ভব হবে সহজেই, ছবি: সংগৃহীত

বেড়েছে মশার প্রকোপ, সাথে বেড়েছে ভয়ানক ডেঙ্গুর প্রতাপ।

প্রতিদিনই বৃদ্ধি পাচ্ছে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। ফলে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতা গড়ে উঠছে সবার মাঝে। মশা যেন বাড়িঘরে ও তার আশেপাশে জমে থাকা পানিতে জন্মাতে ও বৃদ্ধি পেতে না পারে তার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন সবাই।

সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণের পরেও কিন্তু ফাঁক থেকেই যায়। নিজের বাড়িঘরকে নাহয় মশামুক্ত করলেন, কিন্তু বাইরে যেখানেই যান না কেন সেখানেও কি বাড়ির মতো নিরাপদে থাকা যাবে? নিজে ক্লাসে, অফিসে কিংবা বেড়াতে গেলে, অথবা সন্তানকে স্কুলে পাঠিয়ে কতটুকু নিশ্চিন্তে থাকতে পারছেন মশার আতঙ্ক থেকে? প্রশ্ন কিন্তু থেকেই যাচ্ছে।

সেক্ষেত্রে বাড়িঘর ও চারপাশকে মশামুক্ত করার মতো নিজেকেও মশা থেকে দূরে রাখতে, কিছু  অতি জরুরী ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। এমন কয়েকটি সহজ নিয়ম জেনে রাখুন।

মশা দূরে রাখার ক্রিম

মসকুইটো রিপ্যালেন্ট ক্রিম পাওয়া যাবে যেকোন ওষুধের দোকানেই। আমাদের দেশে সবচেয়ে বেশি প্রচলিত মশা দূরে রাখার ক্রিম হলো ওডোমস। ১২০ টাকা থেকে ৪০০ টাকার মাঝে বিভিন্ন ধরনের ওডোমস পাওয়া যাবে। ব্যবহারের ক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে ফাটা ত্বকে এই ক্রিম ব্যবহার করা যাবে না এবং প্রয়োজন না হলে ক্রিম ব্যবহারের পর ত্বক ভালোভাবে ধুয়ে ফেলতে হবে।

ল্যাভেন্ডার বডি ওয়েল ও স্প্রে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563455085164.JPG

ল্যাভেন্ডারের সুঘ্রাণ আপনার যতই প্রিয় হোক না কেন, মশা একেবারেই সহ্য করতে পারে না। এই এসেনশিয়াল ওয়েল ব্যবহারে খুব সুন্দর বডি স্প্রেও তৈরি করে নেওয়া যাবে। কেমিক্যালযুক্ত ক্রিম যদি ত্বকে সমস্যা তৈরি করে, তবে ল্যাভেন্ডার ওয়েল ব্যবহার হবে সবচেয়ে ভালো উপায়।

পুদিনা পাতা অথবা রসুন ব্যবহার

পুদিনা পাতার মিষ্টি গন্ধ কিংবা রসুন ঝাঁঝালো গন্ধ- কোনটাই মশা সহ্য করতে পারে না। মশা দূরে রাখার ক্রিম কিংবা ল্যাভেন্ডার ওয়েল হাতের কাছে না থাকলে এই প্রাকৃতিক উপাদান দুইটি ব্যবহারেই ভরসা। শরীরের উন্মুক্ত স্থানে কয়েকটি পুদিনা পাতা চটকে অথবা রসুন রস অল্প পরিমাণে ম্যাসাজ করে নিতে হবে। এতেই দূরে থাকবে মশা।

পোশাক নির্বাচনে সতর্কতা

একটা ভুল ধারণা রয়েছে আমাদের মাঝে। শরীরের যত বেশি অংশ ঢেকে রাখা যাবে তত বেশি মশা দূরে থাকবে, এই ভাবনা থেকে টাইট ফিটিং পোশাক পরা হয় সবচেয়ে বেশি। অথচ টাইট ফিটিং পোশাক পরার দরুন মশার জন্য কামড়ানো বরং সুবিধাজনক হয়ে যায়। সেক্ষেত্রে ত্বক ঢেকে রাখার জন্য ঢোলা ঘরানার পোশাক পড়তে হবে। একইসাথে অবশ্যই মনে রাখতে হবে, যথাসম্ভব গাড় পোশাক এড়িয়ে হালকা রঙয়ের পোশাক নির্বাচনের বিষয়ে। গাড় রঙ মশাকে আকৃষ্ট করে বেশি।

সুগন্ধির ব্যবহার

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563455060791.JPG

বেশ কিছু ক্ষেত্রে দেখা গেছে, পারফিউম বা সুগন্ধির ব্যবহার মশাকে দূরে রাখতে কার্যকরি। সেক্ষেত্রে সুগন্ধিতে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের কেমিক্যালযুক্ত উপাদান মসকুইটো রিপ্যালেন্ট হিসেবে কাজ করে।

লেবুর শরবত পান

খেয়াল করে দেখবেন, মশা লেবুর গন্ধ একেবারেই সহ্য করতে পারে না। লেবুর সাইট্রিক ধর্ম মশাকে দূরে রাখতে কাজ করে। সেক্ষেত্রে লেবু সবসময় সাথে নিয়ে ঘোরা যেহেতু সম্ভব নয়, তাই সাথে বোতল ভর্তি লেবুর রস মিশ্রিত পানি বা লেবুর শরবত রাখুন। প্রতি ঘন্টায় কয়েক চুমুক লেবুর শরবত পান মশাকে দূরে রাখতে সাহায্য করবে।

আরও পড়ুন: শারীরিক সুস্থতা পেতে গড়ুন ১০ অভ্যাস

আরও পড়ুন: যে ৬ সময়ে হাত পরিষ্কার করা অপরিহার্য

ভালো হয়নি পরীক্ষার ফল!

ভালো হয়নি পরীক্ষার ফল!
আশানুরূপ ফল না হলে ভেঙে পড়া যাবে না, ছবি: সুমন শেখ

পরীক্ষা, পরীক্ষার ফল, সিজিপিএ- এই শব্দগুলো সবসময়ই মনের উপর বাড়তি চাপ তৈরি করে।

প্রস্তুতি যতই ভালো থাকুক না কেন, ঠিকই মনের মধ্যে খুঁতখুঁত করে, অশান্তি বোধ হয়। ব্যাপারটাই এমন অশান্তিদায়ক যে!

কিন্তু যতই এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হোক না কেন, নিয়মমাফিক ঠিক সময়ে পরীক্ষাও হবে, পরীক্ষার ফলাফলও বের হবে। নিজেকে শুধু পরীক্ষার জন্যে নয়, ফলাফল গ্রহণের জন্যেও প্রস্তুত করা প্রয়োজন। বলা যেতে পারে, এটাও পড়ালেখা ও পরীক্ষার মতো অনেক বড় একটি চ্যালেঞ্জের বিষয়।

ভালো ফলাফল সবার কাম্য হলেও ব্যতিক্রম ঘটনাও থাকে। আশানুরূপ ফল যতটা ভালোলাগা ও আনন্দ নিয়ে আসে, আশানুরূপ ফল না হলে তার চেয়ে বেশি হতাশা ও মনঃকষ্ট তৈরি করে। কিন্তু সবার আগে একটা বিষয় মনে রাখা প্রয়োজন, এই ফলাফলেই সবকিছু থেমে যাবে না।

ফলাফল যদি আশানুরূপ না হয় সেক্ষেত্রে ভেঙে পড়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এই বাজে সময়টাতে কিছু ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মনে রাখা প্রয়োজন ভবিষ্যৎ সময়ে উঠে দাঁড়ানোর জন্য।

নিজেকে শান্ত রাখা

ফলাফল যেমনই বা যতটাই খারাপ হোক না কেন, নিজেকে শান্ত রাখতে হবে অবশ্যই। স্বাভাবিকভাবে এ সময়ে একসাথে অনেক ধরনের অনুভূতি কাজ করবে, অশান্তি ও অস্থিরতা চরমে থাকবে। কিন্তু কোন কিছুই তাৎক্ষণিকভাবে পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। তাই ফলাফল গ্রহণের পর নিজেকে শান্ত রাখাই হবে সবচেয়ে বুদ্ধিমানের মতো কাজ।

অন্যের ফলের সাথে তুলনা থেকে বিরত থাকা

ভুলেও এই কাজটি করা যাবে না। অন্ততপক্ষে ফলাফল গ্রহণের পর থেকে বেশ কিছুদিনের জন্য। এতে করে শুধু মানসিক চাপই বৃদ্ধি পাবে। সহপাঠীদের সাথে ফলাফল তুলনা ও বিশ্লেষণ করা খুবই সাধারণ একটি কাজ। কিন্তু নিজের মনমতো ফলাফল না হলে সেক্ষেত্রে এ কাজটি থেকে বিরত থাকাই ভালো হবে।

কারো সাথে এ বিষয়ে আলোচনা করা

পরীক্ষা, পরীক্ষার ফলাফল, নিজের প্রত্যাশা- সবকিছু নিয়ে খোলাখুলিভাবে কারোর সাথে আলোচনা করতে পারলে সবচেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যাবে। সেটা হতে পারে সহপাঠী, বন্ধু, বড় ভাই-বোন অথবা পরিবারের কেউ। তবে এমন কারো সাথে আলোচনা করতে হবে, যে অহেতুক ব্যঙ্গ না করে আপনার মানসিক অবস্থা বুঝে আপনাকে ভালো ও কার্যকর পরামর্শ দিতে পারবে।

নিজেকে নিজের সময় দেওয়া

ফলাফল প্রত্যাশা অনুযায়ী না হলে বিষাদগ্রস্ত হওয়াটাই স্বাভাবিক। এ সময়ে যদি কারোর সঙ্গ ভালো না লাগে তবে একেবারে নিজের মতো করে সময় কাটালে উপকার হবে। প্রয়োজনে সামাজিক মাধ্যমগুলো থেকেও সাময়িক সময়ের জন্য দূরে থাকতে হবে। একান্তে নিজের মতো কিছু সময় কাটাতে পারলে নিজের সার্বিক পরিস্থিতি ভালোভাবে বোঝা যাবে।

পরবর্তী করণীয় নিয়ে পরিকল্পনা

একান্তে নিজের মতো সময় কাটানোর মাঝে মনের মাঝে ছক কেটে ফেলা যায় কি করা যেতে পারে পরবর্তী সময়ে। কারণ এই ফলাফলেই সবকিছুর শেষ নয়। বরং এখান থেকেই শুরু হবে বড় ধরনের যুদ্ধ ও প্রস্ততি।

বাবা-মায়ের সাথে আলোচনা করা

অপ্রত্যাশিত ফলাফলে শুধু নিজের নয়, সাথে বাবা-মায়েরও মন খারাপ হয়। তাদের সাথে সরাসরি এ বিষয় নিয়ে কথা বললে, আলোচনা করলে ইতিবাচক কোন দিক পাওয়া যাবে। অবশ্যই তাদের অভিজ্ঞতার ঝুলি ভারি। তাই তাদের পরামর্শ গ্রহণ করলেও উপকার পাওয়া যাবে।

তবে সব কিছুর শেষে একটা বিষয় অবশ্যই মনে রাখতে হবে, নিজেকে শক্ত রাখতে পারলেই উত্তরণ করা যাবে এই পরিস্থিতি থেকে।

আরও পড়ুন: মন ভালো হবে মুহূর্তেই!

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র