Alexa

ক্যারিয়ারে যখন হতাশা!

ক্যারিয়ারে যখন হতাশা!

ছবি: সংগৃহীত

ক্যারিয়ারকে এগিয়ে নিতে চাইলেও, কোথায় যেন আটকে আছে সবকিছু।

যতই সামনে যাওয়ার পথ খোঁজা হোক না কেন, সামনের পথটাকেই যেন পাওয়া যাচ্ছে না কোনভাবে। কেন হচ্ছে এমন? আপনি নিজেও যদি এমন পরিস্থিতির শিকার হন, তবে আপনার প্রশ্নের উত্তর হয়তো মিলবে আজকের এই ফিচারটিতে।

অতিরিক্ত কাজের চাপে নিজের জন্য নেই সময়

পরিশ্রম ছাড়া কখনোই ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া সম্ভব নয়। কর্মক্ষেত্রে নিজের দক্ষতা প্রকাশের জন্য অবশ্যই পরিশ্রম করতে হবে, ভালো কাজ করতে হবে। কিন্তু নিজেকে সময় দেওয়ার কথা ভোলা যাবে না মোটেও। কাজের চিন্তায় ও চাপে যদি হুট করেই গুরুত্বর অসুস্থ হয়ে যেতে হয় তবে এগোনর বদলে পিছিয়ে যেতে হবে অনেক বেশি। কাজ ও নিজের সময়ের মাঝে ভারসাম্য রাখতে হবে অবশ্যই। নিজের পরিচর্যা, পছন্দের কাজ করা, পছন্দের স্থানে ঘুরতে যাওয়া, কিংবা সম্পূর্ণ একটাদিন বিশ্রাম নেওয়ার মাধ্যমেও নিজেকে সময় দেওয়া যায়। যা করা থেকে বিরত থাকলে ক্ষতিটা শুধু নিজের স্বাস্থ্যের নয়, কাজের গতিতেও দেখা দিবে।

শুধু কাজের তাগিদেই কাজ করছেন, ভালোবেসে নয়

অস্বীকার করার কিছু নেই, বেশিরভাগ মানুষই ক্যারিয়ারের শুরু করেন ‘কোন একটা কাজ’ দিয়ে। পড়ালেখা শেষ কিন্তু এখনও চাকরি নেই। এই অবস্থাটা অনেকেই মানতে পারেন না বিধায় যেকোন একটি চাকরি দিয়েই শুরু করেন কর্মজীবন। অনেক সময় এই যেকোন একটি চাকরিই ক্যারিয়ার হিসেবে দাঁড়িয়ে যায় বা সেটা নিয়ে পড়ে থাকতে হয়। কিন্তু সেটা নিজের প্রিয় ও পছন্দের কাজ হয় না। ফলে বাধ্য হয়ে চাকরি করতে হলেও, সেটা কখনোই উপভোগ্য হয় না। দিনের বেশিরভাগ সময় যে কাজটি নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হয় সেটা যদি পছন্দের না হয় তবে ক্যারিয়ারকে খুব একটা এগিয়ে নেওয়া সম্ভব হয় না।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Dec/02/1543748091614.jpeg

নিজের প্রতি বিশ্বাস নেই বললেই চলে

যে কাজের সঙ্গেই জড়িত থাকুন না কেন, নিজের প্রতি যদি বিশ্বাস না থাকে তবে কখনোই সফল হওয়া সম্ভব হবে না। কাজ যতই তুচ্ছ কিংবা ছোট হোক না কেন, সফলতা সেখানেও পাওয়া সম্ভব। যদি আপনার সঙ্গে থাকে আত্মবিশ্বাসের শক্তি। নিজের প্রতি সন্দেহ, নিজেকেই নিজে ভ্রুকুটি করার অভ্যাসটি একেবারেই যে বাদ দিয়ে দিতে হবে তা কিন্তু নয়। কিন্তু নিজেকে ভেতর থেকে বিশ্বাস করাতে হবে যে আপনিও পারবেন। খুব সামান্য একটা বিষয় মনে হলেও, ক্যারিয়ারে যার প্রভাব অনেক সুদূরপ্রসারী।

অহেতুক অভিযোগ সারাক্ষণ

পছন্দের চাকরিতে ভালো বেতনে চাকরি করার পরেও অসন্তুষ্টির শেষ নেই। ছোটখাটো বিষয় নিয়ে কিংবা একেবারেই অনর্থক সারাক্ষন অভিযোগ করার মতো অভ্যাসটি যেন আপনার নিত্য সঙ্গী। এমনটা হলে চাকরি ও ক্যারিয়ারয়ে ঝামেলা দেখা দেওয়াটাই স্বাভাবিক। একদম শতভাগ মনের মতো কোন চাকরি ও কর্মক্ষেত্র হবে না, এটাই স্বাভাবিক। নিজেকে সকল স্থানে ও পরিস্থিতিতে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করতে হবে ও এই গুণটা রপ্ত করতে হবে। কর্মক্ষেত্রে অকারণ অভিযোগ আপনাকে সহকর্মীদের কাছে বিরক্তির পাত্র করে তুলবে।

আরো পড়ুন: কর্মক্ষেত্রেও থাকুন আত্মবিশ্বাসী

আরো পড়ুন: সহকর্মীদের সঙ্গে কথা বলুন বুঝেশুনে!

আপনার মতামত লিখুন :