Barta24

শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬

English

কতটা জানেন কুইনোর স্বাস্থ্যগুণ সম্পর্কে?

কতটা জানেন কুইনোর স্বাস্থ্যগুণ সম্পর্কে?
স্বাস্থ্যকর খাবার কুইনো। ছবি: সংগৃহীত
ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
লাইফস্টাইল


  • Font increase
  • Font Decrease

হাতে গোনা কয়েকটি স্বাস্থ্যকর খাবারের মাঝে কুইনো (Quinoa) হলো একটি।

অনেকেই একে সুপারফুড হিসেবে অভিহিত করে থাকেন। আমাদের দেশে কুইনো কাউন চাল নামেই বেশি পরিচিত। কুইনো সাধারণত তিন ধরণের হয়ে থাকে- লাল, সাদা ও কালো। প্রতিটিই রান্না করে খাওয়ার উপযুক্ত। সম্পূর্ণ গ্লুটেন ফ্রি ও স্বাস্থ্যকর প্রোটিনে ভরপুর কুইনো হলো সেই অল্প সংখ্যক কয়েকটি খাদ্য উপাদানের মাঝে একটি, যাতে নয়টি এসেনশিয়াল অ্যামিনো অ্যাসিডের সবগুলোই পাওয়া যায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Sep/19/1537339300165.jpg

আর কি আছে স্বাস্থ্যকর এই খাদ্য উপাদানে? উচ্চ মাত্রায় আঁশ, আয়রন, পটাশিয়াম, ফসফরাস, ভিটামিন-ই, ভিটামিন-বি সহ উপকারি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমূহ।

যে খাদ্য উপাদানে এতো সকল পুষ্টি গুণাগুণ বিদ্যমান, বলাই বাহুল্য এর স্বাস্থ্য উপকারিতা কতটা দারুণ হবে। অনেকেই কুইনোর গুণাগুণ সম্পর্কে জানেন না। আজকের ফিচার থেকে জেনে নিতে পারেন সহজেই।

আরও পড়ুন: স্বাস্থ্যকর কুইনো-চিংড়ি সালাদ

১. কুইনোর অন্যান্য সকল গুণাগুণের মাঝে প্রধান হলো এতে থাকা ফ্ল্যাভনয়েড নামক অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। কোয়েরসেটিন ও ক্যাম্ফেরল হলো দুই ধরণের ফ্ল্যাভনয়েড যা কুইনোতে অনেক বেশি পরিমানে পাওয়া যায়। উভয় ফ্ল্যাভনয়েডেই অ্যান্টি-ভাইরাল, প্রদাহ বিরোধী, অ্যান্টি-ক্যান্সার ও অ্যান্টি ডিপ্রেসেন্ট প্রভাব রয়েছে।

২. যেকোন দানাদার খাদ্য উপাদানের চাইতে কুইনোতে আঁশ অনেক বেশি থাকে। যে কারণে পাকস্থলীর স্বাস্থ্য ভালো থাকে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Sep/19/1537339421836.jpg

৩. যাদের গ্লুটেনযুক্ত খাবারে সমস্যা আছে, তারা নিশ্চিন্তে খেতে পারবেন কুইনো। এই খাদ্য উপাদানটিতে প্রাকৃতিকভাবেই কোন গ্লুটেন নেই, বিধায় এর স্বাস্থ্যগুণ সহজেই শরীরে শোষিত হয়।

৪. প্রথমেই বলা হয়েছে কুইনোতে নয়টি এসেনশিয়াল অ্যামিনো অ্যাসিডের সবগুলোই পাওয়া যায়। উদ্ভিজ খাদ্য উপাদানে লাইসিন নামক অ্যামিনো অ্যাসিড খুব একটা পাওয়া যায় না বললেই চলে। কুইনো সেক্ষেত্রে একেবারেই ব্যতিক্রম।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Sep/19/1537339582192.jpg

৫. গ্লাইসেমিক ইনডেক্স নির্ণয়ের উপর নির্ভর করেই রক্তে চিনির মাত্রা পরিমাপ করা হয়। হাই গ্লাইসেমিক ইনডেক্স খাবার গ্রহণের ফলে খুব দ্রুত ক্ষুধাভাব দেখা দেয়। যা থেকে দেখা দেয় ওবেসিটি। কুইনোর গ্লাইসেমিক ইনডেক্স হলো মাত্র ৫৩, যা খুবই কম।

৬. কুইনোতে পর্যাপ্ত পরিমাণ ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম, জিংক ও আয়রণ থাকার ফলে নারীদের জন্য বিশেষভাবে উপকারি খাদ্য।

৭. ওজন কমানোর জন্য কুইনো সবচেয়ে সাহায্যকারী একটি খাদ্য। কেনো? কারন কুইনোতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণ আঁশ। আঁশযুক্ত খাবার খাওয়ার ফলে পেট অনেক লম্বা সময় পর্যন্ত ভরা থাকে। ফলে ঘনঘন ক্ষুধাভাব দেখা দেয় না। এতে সহজেই ওজন কমানো সম্ভব হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

তিন উপাদানে ডিটক্সিফাইং পানীয়

তিন উপাদানে ডিটক্সিফাইং পানীয়
ডিটক্সিফাইং পানীয়

অন্যান্য সময়ের চাইতে ঈদের সময়টাতে তেল, চর্বি ও উচ্চমাত্রার ক্যালোরিযুক্ত খাবার বেশি খাওয়া হয়।

এতে করে সহজেই শরীরের উপর ক্ষতিকর প্রভাব পরে। এই ক্ষতিকর প্রভাব কাটানোর জন্য প্রয়োজন হয় ডিটক্সিফাইং পানীয়। যা শরীর থেকে ক্ষতিকর প্রভাবকে দূর করে সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে।

এমন পানীয় তৈরিতে সাধারণত খুব বেশি উপাদান প্রয়োজন হয় না। আজকের বিশেষ ডিটক্সিফাইং পানীয়টি তৈরিতেও মাত্র তিনটি সহজলভ্য উপাদান প্রয়োজন হবে। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এই পানীয়টি পান করলে সবচেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যাবে।

ডিটক্সিফাইং পানীয় তৈরিতে যা লাগবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566047849609.jpg

১. একটি বড় লেবুর রস।

২. ১-২ ইঞ্চি পরিমাণ আদা কুঁচি।

৩. এক চা চামচ হলুদ গুঁড়া।

৪. দুই কাপ পরিমাণ পানি।

৫. এক চিমটি কালো গোলমরিচ গুঁড়া (ঐচ্ছিক)

ডিটক্সিফাইং পানীয় যেভাবে তৈরি করতে হবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566047866015.jpg

পানি ফুটিয়ে নামিয়ে এতে লেবুর রস, আদা কুঁচি, হলুদ গুঁড়া ও গোলমরিচ গুঁড়া মিশিয়ে পুনরায় চুলায় বসিয়ে ফুটিয়ে নিতে হবে। তৈরি হয়ে গেলে নামিয়ে কুসুম গরম থাককাকালী সময়ে পান করতে হবে।

আরও পড়ুন: ডেঙ্গুতে উপকারী পাঁচ পদের জুস

আরও পড়ুন: আহ, মশলা চা!

কতখানি নিকোটিন থাকে একটি সিগারেটে?

কতখানি নিকোটিন থাকে একটি সিগারেটে?
ছবি: সংগৃহীত

প্রশ্নাতীতভাবে ধূমপান সবচেয়ে বাজে ও ক্ষতিকর একটি অভ্যাস।

এ বদভ্যাসের দরুন নিজের স্বাস্থ্য তো বটেই, পাশাপাশি অন্যের স্বাস্থ্যও ঝুঁকির মাঝে পড়ে যায়। ধূমপানের ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে অবগত হওয়ার পরেও বেশিরভাগ ধূমপায়ী এই অভ্যাসটি বাদ দিতে চান না। তবে এর বিপরীত চিত্রও রয়েছে। অনেকেই চেষ্টা করেন স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ এই অভ্যাসটিকে পাশ কাটিয়ে উঠতে। তবে ধূমপায়ী, অধূমপায়ী ও ধূমপান ত্যাগ করার চেষ্টা করছেন যারা, প্রত্যেকেই একটি বিষয় সম্পর্কে জানার আগ্রহ প্রকাশ করেন- একটি সিগারেটে কতখানি নিকোটিন থাকে! চলুন এই বিষয়টি জানানো যাক।

প্রতিটি সিগারেটে থাকে ৭০০০ ভিন্ন ভিন্ন ধরনের কেমিক্যাল। যার মাঝে সবচেয়ে ক্ষতিকর হলো নিকোটিন (Nicotine). হাজারো ধরনের কেমিক্যালের ভেতর এই নিকোটিন তৈরি হয় তামাক পাতা থেকে। তামাক পাতা থেকে তৈরি হওয়া এই উদ্ভিজ কেমিক্যাল নিকোটিনেই ধূমপায়ীদের আসক্তি তৈরি হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566042274926.jpg

মেডিকেশন অ্যাডভোকেট জেসন রিড জানান, প্রতিটি সিগারেটে গড়ে এক মিলিগ্রাম পরিমাণ নিকোটিন থাকে। এছাড়া এক গবেষণা থেকে দেখা গেছে সিগারেটের ধরনের উপর নির্ভর করে এক একটি সিগারেটে ১.২-১.৪ মিলিগ্রাম পরিমাণ নিকোটিন থাকে। স্বল্প নিকোটিনযুক্ত ‘সিগারেট লাইট’ এ ০.৬-১ মিলিগ্রাম পরিমাণ নিকোটিন থাকে। তবে সাধারণ সিগারেটের মতো সিগারেট লাইটেও একই ধরনের সিগারেট বুস্ট তথা সিগারেটের প্রভাব থাকে।

এছাড়া নিকোটিন গ্রহণের মাত্রা ধূমপায়ীর উপর নির্ভর করে। সিগারেটে কত জোরে টান দিচ্ছে এবং সিগারেট পাফের কতটা নিকটবর্তী স্থান পর্যন্ত সিগারেট পান করছে- এই দুইটি বিষয়ের উপর নির্ভর করেও নিকোটিন গ্রহণের মাত্রায় তারতম্য দেখা দেয়।

আরও পড়ুন: ধূমপানে অন্ধত্ব!

আরও পড়ুন: প্যাসিভ স্মোকিংয়ে ক্যানসার ঝুঁকিতে আমরা সবাই!

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র