Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

খালেদা-তারেকের আশীর্বাদে এতদূর এসেছি: রুমিন ফারহানা

খালেদা-তারেকের আশীর্বাদে এতদূর এসেছি: রুমিন ফারহানা
বিএনপির সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা, ছবি: কাজল শিকদার
মুজাহিদুল ইসলাম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

ভাষা সংগ্রামী ও প্রবীণ রাজনীতিবিদ প্রয়াত অলি আহাদের একমাত্র সন্তান ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা। আইনি পেশার পাশাপাশি যুক্ত জাতীয়তাবাদী দলের রাজনীতিতে। দায়িত্ব পালন করছেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদক হিসেবে। একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন তিনি।

বার্তা২৪.কমের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় উঠে আসে রাজনীতিতে যুক্ত হওয়া, আজকের অবস্থান, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিএনপির ভবিষ্যৎ নিয়ে তরুণ এই রাজনীতিবিদের নানা ভাবনা। কথা বলেছেন, সংসদে গিয়ে কীভাবে কাজ করবেন। খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়েও জানিয়েছেন নিজের পরিকল্পনা। 

বার্তা২৪.কম: রাজনীতিতে আসা ও আজকের এই অবস্থান কীভাবে হয়েছে?

রুমিন ফারহানা: আমার জন্ম ও বেড়ে ওঠাও রাজনৈতিক পরিবারে। ২০১২ সালে বাবাকে হারানোর পর বিএনপির সঙ্গে আমার ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। পদে না থাকলেও কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে বিএনপির ডেলিগেশন টিমের সঙ্গে আমাকে চীনে পাঠানো হয়। পরবর্তীতে খালেদা জিয়া আমাকে দলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক কমিটির সঙ্গে রাখেন। ২০১৬ সালের কাউন্সিলে আমাকে আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদক করা হয়। খালেদা জিয়ার আশীর্বাদ, তারেক রহমানের দোয়া এবং দলের সিনিয়র নেতাদের ভালোবাসায় আমি আজকে এতদূর এসেছি।

বার্তা২৪.কম: খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে তারেক রহমানের কোনো সিদ্ধান্ত বা ইঙ্গিত আছে কি-না?

রুমিন ফারহানা: তারেক রহমান দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে যতগুলো সিদ্ধান্ত এসেছে প্রত্যেকটা সিদ্ধান্ত ছিল সঠিক, যুগোপযোগী, সময়োপযোগী এবং অত্যন্ত চিন্তাপ্রসূত। তিনি কিন্তু সকলের সঙ্গে আলোচনা করে দলটাকে পরিচালনা করছেন। স্থায়ী কমিটি সঙ্গে বসছেন, আমাদের নেতাকর্মীদের সঙ্গে বিভিন্ন মাধ্যমে দীর্ঘ সময় আলাপ আলোচনা করছেন। সুতরাং কোনো সিদ্ধান্তই কিন্তু কারো একক সিদ্ধান্ত না। তারেক রহমানের চাপিয়ে দেওয়া কোনো সিদ্ধান্ত নয়। তিনি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন, সেকারণে সিদ্ধান্তগুলো সঠিক এবং নেতাকর্মীরা যা চায়, তারই প্রতিফলন আমরা তার সিদ্ধান্তে পেয়েছি।

রুমিন ফারহানা

‘খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে একটা কথা পরিষ্কার করে বলতে চাই, তিনি জীবনে কোনো দিন আপস করেন নাই। সরকারের প্রতিহিংসার শিকার হয়ে আজকে তাকে কারাগারে থাকতে হচ্ছে। আইনি লড়াই চলছে, আইনি লড়াই চলবে। সেই সঙ্গে আমরা সাংগঠনিকভাবে যে সিদ্ধান্তে যাচ্ছি, আমাদের শীর্ষ নেতৃত্ব যে দিক নির্দেশনা দেবেন, নিশ্চয়ই আমরা সময়ের সঙ্গে সেই পদক্ষেপগুলো নেব।’

বার্তা২৪.কম: সংসদ অবৈধ বলেও সংসদে গেলেন। গুঞ্জন ছিল বিএনপি সংসদে গেলে খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন, কিন্তু পাননি। কোনো সমঝোতা কি হয়েছিল?

রুমিন ফারহানা: সংসদ সদস্যরা শপথ নিয়েছেন আজকে প্রায় মাস খানেক হয়ে গেল। আপনারা কি দেখেছেন, দেশনেত্রী খালেদা জিয়া মুক্ত হয়েছেন? তিনি মুক্ত হননি। সুতরাং এই পর্দার আড়ালের খেলা বিএনপি কোনো দিনও খেলে নাই। জনগণের সঙ্গে প্রতারণা, জনগণের সঙ্গে ধোকাবাজি এটা বিএনপির রাজনীতি না। কৌশলগত কারণে সিদ্ধান্তের পরিবর্তন হয়েছে। প্রথমে দলগতভাবে দলীয় সিদ্ধান্ত ছিল আমরা শপথ নেব না। যেহেতু দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে শপথ নিয়েছে দল তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে। পরবর্তীতে যখন দলীয় সিদ্ধান্ত হয়েছে যারা শপথ নিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে তো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। তারা দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শপথ নিয়েছেন এবং তারা সংসদে যাবেন। আমার ব্যাপারেও দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত এসেছে। সুতরাং এখানে ধোঁয়াশার কিছু নেই।’

বার্তা২৪.কম: দলের মহাসচিব শপথ নিলেন না, এতে নেতাকর্মীরা বিভ্রান্ত হচ্ছেন কি-না?

রুমিন ফারহানা: দলের মহাসচিব নিজেই তা স্পষ্ট করেছেন। দু’টি কারণে তিনি শপথ নেননি। একটি হলো তিনি তৃণমূল নেতাকর্মীদের মাঝে সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করবেন। সংগঠন গোছানোর জন্য তাকে সারা দিন ব্যস্ত থাকতে হয়ে। সব কিছু মিলিয়ে তার পক্ষে সংসদে যোগদান করা, সংগঠনকে শক্তিশালী করা, একইসঙ্গে তৃণমূল ও শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করা। এতো বড় দায়িত্ব তার পক্ষে একসঙ্গে পালন করা সম্ভব নয়। যে কারণেই শপথ নেননি। এবং সেটা তিনি খোলামেলাভাবেই বলেছেন। এতে বিভ্রান্তির কিছু নেই।

রুমিন ফারহানা

বার্তা২৪.কম: সিনিয়র নেতা থাকতে শেষ পর্যন্ত আপনার উপর দল কেন আস্থা রাখছেন?

রুমিন ফারহানা: ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে, দলের শীর্ষ নেতাদের, যারা আমার উপর আস্থা রেখেছেন। মনে করেছেন, আমি পারব। এটা আমার জন্য অনেক বড় পাওয়া। আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি, তাদের যে আস্থা ও বিশ্বাস তার মর্যাদা যেন আমি রাখতে পারি।

বার্তা২৪.কম: সংসদে কতটা ভূমিকা রাখতে পারবেন?

রুমিন ফারহানা: আমাকে মনোনয়ন দেওয়ার আগেও আমি খুব স্পষ্ট করে বলে আসছি যে, এটা কোনো সংসদ নয়। কারণ এটি জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি। এরপরও আমরা সংসদে গেছি কেন? বিএনপির মতো এতবড় একটা দলকে মাঠে দাঁড়াতে দেওয়া হয় না। সভা সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয় না। এসব বলার জন্য তো একটা স্পেস দরকার। মানুষের কথা, দেশের কথা বলার জন্য একটা ফোরাম দরকার। আমরা মনে করি, সংসদ একটা পথ, যে পথে আমরা কথা বলতে পারব। আমরা জানি, সাতজন এমপি দিয়ে সরকারের কোনো অবৈধ কাজকে উল্টে দিতে পারব না। সরকারকে এমন কোনো চাপ দিতে পারব না যে, সরকার শুনতে বাধ্য হবে। কিন্তু আমাদের যে কণ্ঠ, যে প্রতিবাদ, তা সুশীল সমাজ জানবে, দেশের মানুষ জানবে, দেশের ঘরে ঘরে সেগুলো পৌঁছাবে। এটুকুই আমাদের লক্ষ্য।

‘খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে একজন আইনজীবী হিসেবে পরিষ্কার বলছি, জামিন কিন্তু তার অধিকার। যে মামলাগুলোতে তাকে আটকে রাখা হয়েছে সেই মামলার প্রত্যেকটা জামিনযোগ্য। সংসদে গিয়ে নিশ্চয়ই এ বিষয়ে আমরা কথা বলব। তার মামলার যে মেরিট, তার বয়স, শারীরিক অবস্থা, তার জেন্ডার; সবকিছু বিবেচনায় তিনি তাৎক্ষণিক জামিন লাভের যোগ্য।’

আরও পড়ুন: সংরক্ষিত নারী আসনে বিএনপির প্রার্থী রুমিন ফারহানা

আপনার মতামত লিখুন :

নির্যাতনকে হাতিয়ার হিসেবে নিয়েছে সরকার: মির্জা ফখরুল

নির্যাতনকে হাতিয়ার হিসেবে নিয়েছে সরকার: মির্জা ফখরুল
রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়নে বিএনপির আলোচনা সভা/ ছবি: বার্তা২৪.কম

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার জন্য নির্যাতনকে সবচেয়ে বড় হাতিয়ার হিসেবে ধরে নিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার।’

বুধবার (২৬ জুন) বিকালে রাজধানীর রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়নে নির্যাতিতদের সমর্থনে আন্তর্জাতিক দিবস-২০১৯' পালন উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। 'নীরবতাও নির্যাতনের কারণ হতে পারে' বিষয়ক আলোচনা সভার আয়োজন করে বিএনপি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশে বিগত এক যুগেরও বেশি সময় অত্যন্ত সুপরিকল্পিত ও সচেতনভাবে বাংলাদেশের জনগণের ওপর নির্যাতনের স্টিমরোলার চলছে। উদেশ্য একটিই; ক্ষমতা, একদলীয় শাসন ব্যবস্থাকে চিরস্থায়ী করা।’

‘পৃথিবীর অনেক দেশেই নির্যাতনকে সবচেয়ে বড় অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হয় ক্ষমতাসীনদের ক্ষমতাকে নিরঙ্কুশ করার জন্য।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/26/1561559211167.jpg

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে যা দেখতে পাই, তা উত্তর কোরিয়াতে দেখতে পাই। আবার রাশিয়া, সিরিয়া, আফগানিস্তান ও আমাদের পাশের দেশে দেখতে পাই, ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করার জন্য নির্যাতনকে সবচেয়ে হাতিয়ার হিসেবে নেওয়া হয়েছে।’

ফখরুল বলেন, ‘নির্যাতনের সবচেয়ে বড় উদাহরণ দেশনেত্রী খালেদা জিয়া। সরকারের চক্রান্তের কারণে তাঁকে আটক করে রাখা হয়েছে। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে নির্যাতন, পঙ্গু করে নির্বাসিত করা হয়েছে। কারাগারগুলোতে বিএনপির নেতাকর্মী, সহকর্মীরা রয়েছেন।’

সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. আব্দুল মঈন খান, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমেদ, শিক্ষাবিদ দিলারা চৌধুরী প্রমুখ।

শেখ হাসিনার মতো প্রাপ্তি আর নেই: আমু

শেখ হাসিনার মতো প্রাপ্তি আর নেই: আমু
আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু, ছবি: বার্তা২৪

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শিতা ও জাদুকরী নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাওয়া দেখে বিশ্ব নেতারা বিস্ময় প্রকাশ করেছে। তিনি ধাপে ধাপে প্রতিটি ক্ষেত্রে বিচক্ষণতায় দেশকে উন্নত রাষ্ট্রে উপনীত করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। এর চেয়ে বড় কোনো প্রাপ্তি বাংলার কারও নেই।’

এমন অগ্রযাত্রাকে ধারাবাহিক রুপ দেওয়ার জন্য দেশবাসীকে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান তিনি।

বুধবার (২৬ জুন) সন্ধ্যায় চট্টগ্রামের ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউটে দলের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

সাবেক শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘২০০৯ সাল থেকে আজ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে প্রতিটি ক্ষেত্রে উন্নয়নের চিত্র ধরা দিয়েছে। বিশাল জনসংখ্যার দেশে অল্প সময়ে জীবন মানের উন্নয়ন নিশ্চিত করতে অনেক দেশ ব্যর্থ হয়েছে। নদীর তলদেশ দিয়ে টানেল নির্মাণ করা হবে এমনটা কেউ চিন্তা করেনি, নতুন নতুন শিল্প অঞ্চলের পরিকল্পনা কারও মাথায় আসেনি। প্রধানমন্ত্রী কেবল স্বপ্ন দেখাননি, তিনি বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছেন। অথচ দেশীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বরাবরই অগ্রযাত্রাকে থামানোর অপপ্রয়াস হয়েছে। সত্যিকারের নাগরিক হিসেবে আমাদের দেশপ্রেমী হতে হবে। কেবল নিজের নয়, সামগ্রিক কল্যাণে কাজ করে যেতে হবে।’

দলে অনুপ্রেবশ ঠেকাতে আওয়ামী লীগের এই উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য বলেন, ‘আমরা চাই দল সুসংগঠিত ও সাংগঠনিক গতিশীলতা বজায় রাখতে। যে কোনো ধরনের বাধা-বিপত্তি মোকাবিলা করে মনোবল ঠিক রেখে অভিষ্ট লক্ষ্যে কাজ করে যেতে হবে। কোনো অনুপ্রবেশকারী, সুবিধাবাদী দিয়ে দল ভারী হোক, দলের ভাবমূতি ক্ষুণ্ন হোক এমনটা মেনে নেওয়া হবে না। এদের চিহ্নিত করতে হবে।’


কেন্দ্রীয় কমিটির উপদফতর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীরে বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, ‘আওয়ামী লীগ শক্তিশালী হলে বাংলাদেশ শক্তিশালী দেশে পরিণত হবে। এ জন্যই বার বার আওয়ামী লীগকে ধ্বংসের পায়তারা হয়েছে, চলছে। কিন্তু দলের প্রতি তৃণমূল নেতাকর্মীদের স্পৃহার কারণে দল মানুষের ভালোবাসা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। ভবিষ্যতেও যদি দল সংকট মুহূর্তে আসে তখনো নেতাকর্মীদের রাজপথে নামতে হবে।’

দলের উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন বলেন, ‘এক সময় মুক্তিযোদ্ধারাও নিজের পরিচয় দিতে ভয় পেতেন। তার সন্তানদের ন্যূনতম নাগরিক সুবিধা দেওয়া হয়নি। নাগরিকরা নিজেদের অধিকারের কথা বলতে পারতেন না। আওয়ামী লীগ সরকার থাকার কারণেই বিশ্ব ব্যাংককে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর কাজ চলছে।’

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুল রহমানের সঞ্চালনা ও সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রদীপ দাশ। আলোচনা সভা শেষে দলের বিভিন্ন সময় অবদান রাখা নেতাকর্মীদের সম্মাননা দেওয়া হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র