Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

আশ্বাস দিলেন জ্যেষ্ঠ নেতারা, ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের আন্দোলন স্থগিত

আশ্বাস দিলেন জ্যেষ্ঠ নেতারা, ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের আন্দোলন স্থগিত
আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা, ছবি: সংগৃহীত
ঢাবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগের চার জ্যেষ্ঠ নেতার আশ্বাসে আন্দোলন স্থগিত করেছেন ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত ও কাঙ্ক্ষিত পদ না পাওয়া বিদ্রোহীরা।

রোববার (১৯ মে) রাতে আওয়ামী লীগের চার জ্যেষ্ঠ নেতার সঙ্গে কয়েক ঘণ্টার বৈঠক শেষে তারা অবস্থান কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নেন।

ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের চার জ্যেষ্ঠ নেতার সঙ্গে দেখা করতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে যান পদবঞ্চিত অংশের আটজনের একটি প্রতিনিধি দল।

আওয়ামী লীগের ওই চার নেতা হলেন- দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ও বিএম মোজাম্মেল হক৷

খুব শিগগিরই আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে পদবঞ্চিতদের সাক্ষাৎ করিয়ে দেওয়া হবে, পদবঞ্চিতদের ওপর মধুর ক্যানটিনে গত সোমবারের হামলার ঘটনা এবং টিএসসিতে গত শনিবারের হামলার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার হবে, অধিকতর তদন্তের মাধ্যমে বিতর্কিতদের পদগুলোকে শূন্য ঘোষণা করে যোগ্যতার ভিত্তিতে সেসব পদে পদবঞ্চিতদের দিয়ে পূরণের আশ্বাস দেন এ চার নেতা।

কয়েক ঘণ্টার বৈঠক শেষে ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ও পদবঞ্চিতদের প্রতিনিধিরা রাত পৌনে ১টার দিকে রাজু ভাস্কর্যে আসেন। তাদের সঙ্গে জ্যেষ্ঠ নেতাদের পক্ষ থেকে রাজু ভাস্কর্যে যান আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি মোল্লা মো. আবু কাওছার৷

এ সময় ছাত্রলীগ সভাপতি শোভন পদবঞ্চিতদের উদ্দেশে বলেন, 'পদের লোভ না করে দল ও দেশের জন্য কাজ করতে হবে। ছাত্রলীগ কোনো স্থায়ী জিনিস না, একটা চলমান প্রক্রিয়া৷' এছাড়াও নেতাকর্মীদের কাদা ছোড়াছুড়ি না করার আহ্বান জানান তিনি।

তাদের নিজেদেরও কিছু ভুল ছিল, উল্লেখ করে শোভন বলেন, 'বিতর্কিত ১৭টা পদ আপাতত শূন্য হওয়ার পথে। যাদের বিরুদ্ধে জামায়াতে ইসলামী, মাদক, বিবাহ ও চাকরির বিষয় নাই, কিন্তু সে প্রমাণ করতে পেরেছে, তার বয়স ত্রিশোর্ধ্ব নয়। এ রকম দুই-একটি ঘটনা ঘটলে তা আমাদের দ্বারা না, নেত্রীর মাধ্যমেই আসবে।' 

সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, 'আপা আমাদের সবাইকে এক ছাতার নিচে দেখতে চান। দ্বিধাবিভক্ত কারও সঙ্গে কথা বলবেন না তিনি। আপা বলেছেন, আগে একই টেবিলে বসে দেখাও ছাত্রলীগ একটা পরিবার, আমরা একটা ঐক্যবদ্ধ পরিবার ধারণ করছি, তারপর তিনি আমাদের সাথে কথা বলবেন।'

ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত ও প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া অংশের নেতৃত্ব দেওয়া সংগঠনের বিগত কমিটির প্রচার সম্পাদক সাঈফ বাবু জানান, আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে কথা বলে তারা আশ্বস্ত হয়েছেন। তাই তারা তাদের আন্দোলন এখানেই স্থগিত করছেন।

আপনার মতামত লিখুন :

রাজশাহী বিএনপির সমাবেশ ২৯ জুলাই, জোট-ফ্রন্ট ছাড়ার দাবি

রাজশাহী বিএনপির সমাবেশ ২৯ জুলাই, জোট-ফ্রন্ট ছাড়ার দাবি
২৯ জুলাই রাজশাহী বিএনপির সমাবেশ উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

২০ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে বাদ দিয়ে এককভাবে আন্দোলনে নামার জন্য কেন্দ্রীয় বিএনপির কাছে জোর দাবি জানিয়েছেন দলটির রাজশাহীর শীর্ষ নেতারা।

রোববার (২১ জুলাই) রাজশাহী নগরীর একটি রেস্তোরাঁয় আগামী ২৯ জুলাইয়ের সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভায় এ কথা বলেন নেতারা।

সভায় বক্তারা বলেন, 'বিএনপি কমিউনিস্ট পার্টির মতো কোনো রাজনৈতিক দল নয়। যে দলের লাখ লাখ কর্মী-সমর্থক রয়েছে, সেই দলকে আন্দোলন করতে জোট-ফ্রন্ট গঠন করতে হবে কেন? খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে এখন আর কারো সঙ্গে জোট নয়। বিএনপি একাই রাজপথে নামবে এবং কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলে বেগম জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্তি করে আনবে।'

এদিকে, প্রস্তুতি সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু জানান, ২৯ জুলাই দুপুর ২টার দিকে সমাবেশ করা হবে। নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্ট, গণকপাড়া মোড় অথবা মনি চত্বরের যেকোনো এক স্থানে সমাবেশের জন্য পুলিশের কাছে অনুমতি চাওয়া হয়েছে। যদি পুলিশ অনুমতি নাও দেয়, তবুও যেকোনো মূল্যে সমাবেশ করা হবে।

মিজানুর রহমান মিনু বলেন, 'রাজশাহী থেকে অতীতে সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সূচনা হয়েছে। বেগম জিয়ার মুক্তির আন্দোলনও রাজশাহীর বিভাগীয় মহাসমাবেশ থেকে শুরু করা হবে। রাজশাহীর মানুষ মাথা পেছনে করে রাখে না। তারা সব সময় সামনের দিকে এগিয়ে যায়। সরকারের যে কোনো বাধা ও ষড়যন্ত্র উপক্ষো করে রাজশাহীর মহাসমাবেশকে জনসমুদ্রে পরিণত করা হবে।'

এদিকে, প্রস্তুতি সভায় মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মিলন নেতাকর্মীদের সমাবেশে হেলমেট পরে আসার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, 'বিভিন্ন সময়ে বিএনপির সমাবেশে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসী ও পুলিশ বাহিনী আক্রমণ করে। তাদের উদ্দেশ্য থাকে সমাবেশ পণ্ড করা। তাই এবার যেকোনো মূল্যে সমাবেশ করতে হবে। প্রয়োজনে নেতাকর্মীরা হেলমেট পরে আসবে।'

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ শাহীন শওকতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রস্তুতি সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, হাবিবুর রহমান হাবিব, রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নাদিম মোস্তফা, জেলা বিএনপির আহবায়ক আবু সাইদ চাঁদ, যুগ্ম আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম মার্শাল প্রমুখ।

জাতীয় ছাত্র সমাজের ১৫৩ সদস্য বিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি

জাতীয় ছাত্র সমাজের ১৫৩ সদস্য বিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি
জাতীয় ছাত্র সমাজ

 

জামাল উদ্দিন আহবায়ক ও ফয়সাল দিদার দিপুকে সদস্য সচিব করে জাতীয় ছাত্র সমাজ কেন্দ্রীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় পাটির চেয়ারম্যান জিএম কাদের কাদের।

রোববার (২১ জুলাই) জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গার সুপারিশে ১৫৩ সদস্য বিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির অনুমোদন করা হয় বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি আগামী ৩ মাসের মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ ইউনিট কমিটি গঠন করে কেন্দ্রীয় সম্মেলন আয়োজন করবে।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের ও মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান নব গঠিত ছাত্র সমাজ নেতৃবৃন্দ।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য রেজাউল ইসলাম ভূইয়া, আলমগীর সিকদার লোটন, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ্-ই-আজম, নির্মল চন্দ্র দাশ, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ ইফতেখার আহসান হাসান, যুগ্ম ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিরু প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র