Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

জামিনে মুক্ত শিমুল বিশ্বাস

জামিনে মুক্ত শিমুল বিশ্বাস
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শিমুল বিশ্বাস, ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শিমুল বিশ্বাস জামিনে কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন। শনিবার (৪ মে) দুপুরে নরসিংদী জেলা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে তিনি মুক্ত হন।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান বার্তা২৪.কমকে জানান, শিমুল বিশ্বাসের বিরুদ্ধে দেওয়া সব মামলায় জামিন লাভ করার পর তিনি মুক্ত হন। তিনি এখন বাসায় আছেন।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার দিন পুলিশের হাতে আটক হন শিমুল বিশ্বাস। দীর্ঘ প্রায় ১৫ মাস কারাগারে থাকার পর তিনি মুক্তি পেলেন।

আপনার মতামত লিখুন :

‘চিকিৎসা নেওয়ার পয়সা নেই এরশাদের’

‘চিকিৎসা নেওয়ার পয়সা নেই এরশাদের’
বক্তব্য রাখছেন

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের চিকিৎসা নেওয়ার পয়সা নেই বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা।

বুধবার (২৬ জুন) মতিঝিল এজিবি কলোনি কমিউনিটি সেন্টারে জাতীয় পার্টির সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের সাংগঠনিক সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

রাঙ্গা বলেন, ‘সাবেক সেনা প্রধান হওয়ায় উনি সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ফ্রি চিকিৎসা পাচ্ছেন। যে লোকটার টাকার অভাবে ঠিকমতো চিকিৎসা হচ্ছে না। তারই দুর্নীতির ধুয়া তুলে আন্দোলন করা হয়। সাবেক রাষ্ট্রপতি সেদিন রক্তপাত দেখতে চাননি তাই স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছিলেন। উনি কোনো দুর্নীতি করেননি।’

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘৯৬ সালে আমরা সমর্থন না দিলে ক্ষমতায় আসতে পারতেন না। এরপরও প্রতিবারেই আমাদের সহযোগিতা নিয়ে ক্ষমতায় গেছেন। আমাদের কর্মীদের ওপর হামলা করার চেষ্টা করবেন না। এটা বন্ধ করেন।’

তিনি বলেন, ‘কোনো জেলায় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা হলে খবর দেবেন। আমরা চলে আসবো কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। দলকে সংগঠিত করেন। মতের অমিল থাকতে পারে, কিন্তু দ্বন্দ্ব করবেন না। এখন থেকে আর কোথাও কোনো পকেট কমিটি হবে না। ফেয়ার কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি করা হবে। সাধারণ সদস্য, কাউন্সিলররা যাকে চাইবে সেই নেতা হবে।’

আরও পড়ুন: এরশাদের অবর্তমানে জাপার কী হবে, জানালেন জিএম কাদের

তবে আপনাদের প্রতি অনুরোধ এমন কাউকে নেতা বানাবেন না যাকে দিয়ে দল লাভবান হবে না। দল ক্ষতিগ্রস্ত হয় এমন কাউকে নেতা বানাবেন না। জয় আমাদের সুনিশ্চিত।

নেতাকর্মীরা স্লোগান দেওয়ার চেষ্টা করলে রাঙ্গা বলেন, ‘কারো নামে স্লোগান হবে না, এখন থেকে স্লোগান হচ্ছে, দুই নাগিনীর একই বিষ, নৌকা আর ধানের শীষ।’ অন্যদের তার সঙ্গে স্লোগান ধরার আহ্বান জানান।

জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের'র সভাপতিত্বে সভায় সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের জেলা, মহানগর, উপজেলা, শহর কমিটির নেতারা অংশ নিয়েছেন। এর আগে ২৪ ও ২৫ জুন যথাক্রমে ঢাকা, ময়মনসিংহ, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের নেতারা মতামত দেন।

অনুমতি না পাওয়ায় র‍্যালি করতে পারেনি বিএনপি

অনুমতি না পাওয়ায় র‍্যালি করতে পারেনি বিএনপি
র‍্যালি করতে না পেরে কার্যালয়ের সামনেই ব্যানার হাতে বিএনপি নেতাকর্মীরা, ছবি: বার্তা২৪.কম

প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনুমতি না পাওয়ায় 'নির্যাতিতদের সমর্থনে আন্তর্জাতিক দিবস-২০১৯' উপলক্ষে আয়োজিত র‍্যালি করতে পারেনি বিএনপি।

বুধবার (২৬ জুন) সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে এই র‍্যালি বের হওয়ার কথা ছিল।

মঙ্গলবার (২৫ মে) রাতে দলটির দফতর থেকে র‍্যালি করার কথা জানানো হয় সাংবাদিকদের। পরে দুপুর পৌনে ১টার দিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচে প্রতিবাদ সমাবেশ করে বিএনপি নেতারা।

এ সময় সরকারের সমালোচনা করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, 'বিশ্বের প্রতিটি দেশে এই দিবস পালন করেছে। বিএনপি একটি বৃহত্তম রাজনৈতিক দল, কিন্তু আমাদের এই কর্মসূচি পালন করতে দিল না। বলল অনুমতি নেই। আমরা অনুমতির চিঠিও পাঠালাম। তার পরেও এটার অনুমতি দিল না আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। কারণ এটা প্রচারিত হলে সরকার লজ্জা পাবে। আজকে যা ঘটছে, নিপীড়ন, নির্যাতন, উৎপীড়ন, দিনের পর দিন রিমান্ডে নেওয়া হচ্ছে। যারা কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিপি, জিএস ছিলেন কেউ পুলিশি নির্যাতনের হাত থেকে রেহাই পাননি।'

তিনি বলেন, 'জনগণ সরকারের পক্ষে নেই, তাই এই প্রধানমন্ত্রীর সোনার পালঙ্ক আর অটুট থাকবে না। জনগণ যার সাথে না থাকে সেই ক্ষমতা দীর্ঘায়িত হতে পারে না। এইবার তার পতনের সময় এসেছে, এবার দিক থেকে দিগন্তে পতনের আওয়াজ শুরু হয়েছে। এই আওয়াজে শেখ হাসিনার সরকারের পতন অবশ্যম্ভাবী। কারণ আজকে যারা পঙ্গুত্ব বরণ করেছে, তাদের হাহাকারের বাতাসে পতন অবশ্যম্ভাবী।'

রিজভী অভিযোগ করেন, 'র‍্যালি উপলক্ষে ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবকদলের কয়েকজন নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই, অবিলম্বে আটককৃতদের মুক্তি দাবি করছি।'

এদিকে ছাত্রদলের সাবেক সহ সভাপতি নাজমুল হাসান বার্তা২৪.কম-কে জানিয়েছেন, ৮-৯ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পল্টন থানা সূত্রে জানা গেছে, বিএনপি অফিসের আশেপাশে থেকে ৮-১০ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির যুগ্ম-সচিব খাইরুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুন রায় চৌধুরী, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর শরফত আলী সপু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুল, যুবদলের সিনিয়র সহ সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন, সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসান, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, যুবদলের ঢাকা মহানগর উত্তরের এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র