Alexa

‘খালেদার প্যারোলের সঙ্গে বিএনপির নির্বাচিতদের শপথের সম্পর্ক নেই’

‘খালেদার প্যারোলের সঙ্গে বিএনপির নির্বাচিতদের শপথের সম্পর্ক নেই’

সংবাদ সম্মেলনে মাহবুব-উল আলম হানিফ/ছবি: বার্তা২৪.কম

ঢাকা: খালেদা জিয়ার প্যারোল ও বিএনপির নির্বাচিতদের শপথ নিয়ে সংসদে যাওয়ার মধ্যে কোনও সম্পর্ক নেই বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ।  

বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যারা বিজয়ী হয়েছেন, নৈতিকভাবে তাদের উচিত সংসদে যাওয়া। কেননা তারা ভোটারদের প্রতি দায়বদ্ধ। ভোটাররা তাদের নির্বাচিত করেছেন সংসদে গিয়ে তাদের কথা বলার জন্য। কোনো দণ্ডপ্রাপ্ত আসামির মুক্তির জন্য তাদের নিশ্চয়ই ভোট দেননি। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামির প্যারোলে মুক্তির সঙ্গে সংসদে শপথ নেওয়ার সম্পর্ক নেই। এ দু’টি বিষয় মিলিয়ে ফেলা খুব খারাপ দৃষ্টান্ত। এ ধরনের রাজনীতি কাম্য নয়।

শনিবার (২০ এপ্রিল) দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা শেষে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

খালেদা জিয়ার প্যারোলের বিষয়ে বিএনপির পক্ষ থেকে কিছু জানানো হয়নি জানিয়ে হানিফ বলেন, খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে তার বা বিএনপির পক্ষ থেকে এখনও কিছু বলা না হলেও আমার সাংবাদিক বন্ধুদেরই এ বিষয়ে বেশি আগ্রহ।

খালেদা জিয়া রাজনৈতিক বিবেচনায় কারাগারে নেই জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘খালেদা জিয়া দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে কারাগারে আছেন। তাই তাকে মুক্তি পেতে হলে আইনি প্রক্রিয়াতেই যেতে হবে। অথবা রাষ্ট্রপতির কাছে দোষ স্বীকার করে ক্ষমা চেয়ে মুক্তি পেতে পারেন। অন্যদিকে, জেল কোড অনুসারে দণ্ডপ্রাপ্ত কোনো আসামির কোনো নিকটাত্মীয় মারা গেলে অথবা মেডিকেল বোর্ড অসুস্থতা জনিত কারণে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর প্রয়োজন মনে করলে প্যারোল পেতে পারেন। তাই বিএনপির নির্বাচিতরা সংসদে গেলে খালেদা জিয়া প্যারোল পাবেন বলে যে কথা চালু রয়েছে তা সঠিক নয়’।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে প্রতিটি জেলায় কমিটি করবে আওয়ামী লীগ। জেলা পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত কোনো কাজ, তথ্য, ছবি থাকলে তা সংগ্রহ করা হবে। বঙ্গবন্ধুর হাতে লেখা কোনো চিঠি থাকলে সংগ্রহ করা হবে বলে সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানান হানিফ।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগকে তৃণমূল থেকে শক্তিশালী করে ঢেলে সাজানো হবে। এজন্য সাংগঠনিক সম্পাদকদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে এবং তাদের কার্যক্রম দ্রুত শুরু করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে’।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, মেজবাহ উদ্দিন সিরাজ, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সাত্তার, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, কেন্দ্রীয় সদস্য ইকবাল হোসেন অপু এমপি, আনোয়ার হোসেন, এ বি এম রিয়াজুল কবির কাওসার প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন :

রাজনীতি এর আরও খবর