Barta24

মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরের তাৎপর্য

প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরের তাৎপর্য
ফরিদুল আলম/ ছবি: বার্তা২৪.কম
ফরিদুল আলম


  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর ঘিরে সকলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি যে প্রত্যাশাটি ছিল, তা হচ্ছে বাংলাদেশে অবস্থানরত মিয়ানমার থেকে আগত ১১ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীর শান্তিপূর্ণ প্রত্যাবাসনে চীনের সক্রিয় ভূমিকা পালনে সেদেশের সরকারকে রাজি করানো। এই সফরে চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং, প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং সহ ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি এবং সরকারের সংশ্লিষ্টদের সাথে বাংলাদেশ সরকারের আলোচনার পর যে বিষয়টি বের হয়ে এসেছে তা আমাদের জন্য আপাতদৃষ্টিতে খুব একটা আশাব্যাঞ্জক মনে হচ্ছে না এই মর্মে যে, চীনের পক্ষ থেকে কেবল ‘মিয়ানমার সরকারকে বুঝানো হবে’ বলে আশ্বস্ত করা হয়েছে।

চীনের এই পরোক্ষ প্রতিশ্রুতিকে অনেকে এক ধরনের দায়সারা মনোভাবের প্রকাশ মনে করলেও এর মধ্যে আমি ব্যক্তিগতভাবে অনেক আশাবাদের জায়গা খুঁজে পাই এই যুক্তিতে যে বর্তমান বিশ্ব রাজনীতির বাস্তবতায় চীনকে কুটনৈতিকভাবে ঘায়েল করার বেশকিছু অস্ত্র আমাদের হাতে রয়েছে, যার সফল প্রয়োগ পরিস্থিতি আমাদের অনুকূলে নিয়ে আসতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র-চীন বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে আমরা যদি চীনের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করি তাহলে দেখতে পাব যে চীনের অর্থনীতির ক্রমোন্নয়নের ধারাটি গত একবছর সময়ের মধ্যে ব্যাপকভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে এবং দুই দেশের মধ্যে চলমান বাণিজ্য সংলাপ কার্যত গন্তব্যহীন থাকার কারণে সামনের দিনগুলোতে বিশ্ব অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক ব্যবস্থায় চীনের একঘরে হয়ে পড়ার একটা সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। এমন নেতিবাচক পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে এশিয়ার ক্ষুদ্র রাষ্ট্র বাংলাদেশ তাদের বিশেষ কৌশলগত অংশীদার হতে পারে।

এক সময়ের নতজানু পররাষ্ট্রনীতির অন্বেষণ করা বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির প্রণয়ন এবং বাস্তবায়নের বর্তমান ধারা দেখলে যে কোন বিশ্লেষক এই মর্মে একমত হবেন যে এখন আমাদের পররাষ্ট্রনীতি কারও দ্বারা প্রভাবিত নয়। আর সেজন্যই ভারত এবং যুক্তরাষ্ট্রের আপত্তি সত্ত্বেও এবং আমাদের গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক সহযোগী জাপান কিংবা ইউরোপীয় ইউনিয়ন পছন্দ করবেনা জেনেও কেবল জাতীয় স্বার্থের প্রয়োজনে বর্তমান সরকার আমাদের নৌবাহিনীর সামর্থ্য উন্নয়নে চীনের কাছ থেকে সাবমেরিন ক্রয় করেছে। আবার একই সাথে চীনের প্রস্তাবকে উপেক্ষা করে সোনাদিয়া গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণে চীনের বিনিয়োগকে উপেক্ষা করেছে এই শংকায় যে তারা যেন দেনা পরিশোধে ব্যর্থতায় এর দখল নিয়ে আমাদের সার্বভৌমত্বে আঘাত হানতে না পারে, যেমনটা করেছে কেনিয়া এবং শ্রীলংকার হাম্বানটোটার ক্ষেত্রে।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির কথা বলছিলাম। বিগত সময়গুলোতে, বিশেষ করে গত ১০ বছর সময়ের পররাষ্ট্রনীতি বিশ্লেষণ করলে আমরা দেখতে পাব যে ভারতের সাথা আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অভাবনীয় উন্নয়ন ঘটেছে। ঐতিহাসিক সকল সমস্যার সমাধান ঘটেছে। যদিও তিস্তার পানি বণ্টনের বিষয়টি এখনো অনিষ্পন্ন রয়েছে। এই সম্পর্কোন্নয়ন দুই দেশকেই সুফল দিয়েছে। একদা বাংলাদেশ ঘেষা ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর আভ্যন্তরীণ অস্থিরতা তাদের ব্যাপক মাথাব্যাথার কারণ ছিল। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ তাদের স্বস্তি দিয়েছে।

দুই দেশের বাণিজ্যিক বৈষম্যের একটি সম্মানজনক সমাধানে উভয়ই উপকৃত হয়েছে। সর্বোপরি দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা (সার্কের) ব্যর্থতা সত্ত্বেও নিরবিচ্ছিন্নভাবে এঁকে অপরের সাথে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটিয়ে চলেছে। এই বোধ থেকে নিকটতম প্রতিবেশী ভারতের স্বার্থের ক্ষতি হয় এমন কিছু নয়, অথচ নিজেদের স্বার্থের অনুকূলে যেভাবে প্রয়োজন প্রয়োজন সেভাবেই বাংলাদেশ তাদের নীতি নির্ধারণ এবং বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। সে দিক দিয়ে সঙ্গত কারণেই বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি ভারতের প্রভাবমুক্ত রয়েছে।

এই বাস্তবতায় একমাসের ব্যবধানে আমরা চীন-জাপান পরষ্পর বৈরী এই দুদেশে আমাদের সরকারও প্রধানের সফরকে মূল্যায়ণ করতে গিয়ে একথাই বলতে পারি যে বঙ্গবন্ধু অনুসৃত ‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারও সাথে বৈরীতা নয়’- নীতির আলোকে একটি সমৃদ্ধ আগামীর জন্য কাজ করে যাচ্ছেন তাঁর তনয়া বর্তমান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর এই সফরের মধ্য দিয়ে তাই রোহিঙ্গা সমস্যার রাতারাতি সমাধান হয়ে যাবে এমন প্রত্যাশার চেয়ে দীর্ঘমেয়াদে বাংলাদেশের স্বার্থের অনুকূলে আমর কী পেতে যাচ্ছি সেটা অনুধাবন করা শ্রেয়তর। আমরা দেখেছি ২০১৬ সালে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংএর বাংলাদেশ সফরে দুই দেশের মধ্যে রেকর্ড পরিমাণ অর্থনৈতিক সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল, যার আওতায় ইতোমধ্যে বেশ কিছু চীনা কোম্পানি বাংলাদেশে তাদের বিনিয়োগ করেছে এবং বর্তমানে মিরেরসরাইয়ে বাস্তবায়নাধীন ৭০০ একর জায়গা নিয়ে চীনের জন্য বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে আরও বেশ কিছু কোম্পানী বিনিয়োগে আসতে যাচ্ছে।

এর সাথে যুক্তরাষ্ট্র–চীন চলমান বাণিজ্য যুদ্ধের বাস্তবতায় এই ধারা আরও বেগবান হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা, সহজলভ্য কাঁচামাল এবং সর্বোপরি বিনিয়োগের অনুকূল পরিবেশ চীনের পছন্দের তালিকায় বাংলাদেশকে শীর্ষে রেখেছে। সেই সাথে আমাদের মনে রাখতে হবে যে উৎপাদনশীলতার স্বার্থে মিয়ানমার থেকে গ্যাস আমদানী করা হলে তা মিয়ানমার, বাংলাদেশ এবং চীন সকলের জন্যই ভাল হবে। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে উৎপাদিত চীনা পণ্য ভারত, নেপাল, ভূটানসহ এশিয়া এবং ইউরোপের অপরাপর দেশগুলোতে রপ্তানীর মাধ্যমেএকটি নতুন অর্থনৈতিক বলয় তৈরী করা যেতে পারে।

বাস্তব পরিস্থিতিতে তাই আমাদের বুঝতে হবে এখানে কোন বিষয়টি মোক্ষম উপায়ে সকলের স্বার্থে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে পারে। আমাদের মনে রাখতে হবে যে বর্তমান বৈশ্বিক উন্নয়নের ধারায় কেবল অর্থনৈতিক উন্নয়নের অভিন্ন স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ই রাজনৈতিক সমস্যা সমাধানে অধিক কার্যকর হতে পারে। আজকের ইউরোপের দিকে তাকালেও আমরা দেখব যে শত শত বছরের যুদ্ধ তাদের স্বস্তি দিয়েছে সমন্বিত অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে। বাংলাদেশ এবং চীনের মধ্যে যে অফুরন্ত বিণিয়োগ এবং উত্তরোত্তর বাণিজ্যিক অংশীদারিত্বের সুযোগ রয়েছে, অভিন্ন স্বার্থের নিরাপদ বিনিয়োগই সকল রাজনৈতিক বিবাদ মীমাংসায় সুদূরপ্রাসারী ভূমিকা রাখতে পারে।

ফরিদুল আলম: সহযোগী অধ্যাপক, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্বিবিদ্যালয়।

আপনার মতামত লিখুন :

তাজউদ্দীন আহমদ: রাজনীতির সহিষ্ণু আলোয়

তাজউদ্দীন আহমদ: রাজনীতির সহিষ্ণু আলোয়
শুভ কিবরিয়া, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

তাজউদ্দীন আহমদ (১৯২৫-১৯৭৫) বাংলাদেশের রাজনীতিতে সম্পূর্ণ এক ভীন্নধারার মানুষ ছিলেন। তাঁর নীতিবোধ যেমন প্রখর ছিল, জীবনাচরণেও ছিল ঠিক তেমনি পরিমিতিবোধ। রাজনীতিকে তিনি নিয়েছিলেন জনমানুষের কল্যাণ করার পথ হিসেবে। এটা কেবল কথার কথা ছিল না। এর জন্য ছিল তাঁর জীবনভর অনুশীলন।

সেই অনুশীলন কেমন ছিল তার খোঁজ মেলে তাজউদ্দীন আহমদের ডায়েরির পাতা দেখলে। তাঁর ডায়েরি লেখার একটা বিশেষ স্টাইল ছিল। সকালে কখন ঘুম থেকে উঠছেন, কখন রাতে ঘুমাতে যাচ্ছেন, সেদিনের আবহাওয়া কেমন ছিল এসব থাকত তাঁর ডায়েরিতে নিয়মিত। এর বাইরে প্রতিদিন কার সাথে দেখা হচ্ছে, কী কাজ করছেন তার বয়ানও থাকত। থাকত দেশ বিদেশের উল্লেখযোগ্য রাজনীতির খবর। আর থাকত তেমনতর সব ঘটনা বা বিষয়, যার প্রভাব সাধারণ জনমানুষের জীবনকে প্রভাবিত করত।

তাজউদ্দীন আহমদ খুব অল্প বয়সেই রাজনীতিতে জড়িয়েছিলেন, আবার খুব অল্প বয়সেই সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। মাত্র ২৯ বছর বয়সে ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে পূর্ব বাংলা প্রাদেশিক মুসলিম লীগের সাধারণ সম্পাদক, হেভিওয়েট প্রার্থী ফকির আবদুল মান্নানকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেই ঢাকার একটি আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তখনও তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র।

সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদ, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী তাজউদ্দীন আহমদের রাজনীতি ও জনকল্যাণ ভাবনা কেমন ছিল তাঁর একটা নমুনা হিসেবে ১৯৫৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসের ডায়েরির তিনদিনের বয়ান এখানে উল্লেখ করা হলো। বলা বাহুল্য তাজউদ্দীন আহমদ ইংরেজিতে ডায়েরি লিখতেন। পরে তাঁর কন্যা সিমিন হোসেন রিমির ব্যক্তিগত উদ্যোগে এসব ডায়েরির বাংলা ভাষান্তর বই হিসেবে বের হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/23/1563860107428.jpg
তাজউদ্দীন আহমদ

 

১৯৫৪ সালের ডায়েরির সেপ্টেম্বর মাসের ২, ৩ ও ৪ তারিখে তাজউদ্দীন আহমদ ডায়েরিতে লিখছেন-

ক.

২ সেপ্টেম্বর ১৯৫৪ বৃহস্পতিবার

ভোর ৫টায় উঠেছি।

সকাল ১০টার দিকে ডেপুটি রেঞ্জার সেকান্দার আলী চৌধুরী ডিস্ট্রিক্ট ফরেস্ট অফিসারকে লেখা একটি দরখাস্তের খসড়া নিয়ে এলেন। আমি সেটি পড়ে কিছু সংযোজন এবং সংশোধনীসহ ঠিক করে দিলাম। তিনি ১১টার দিকে চলে গেলেন।

এর মাঝে ঢাকা হোমিওপ্যাথ কলেজে পড়ে সিংহস্রীর একটি ছেলে বন্যার জন্য সাহায্যের পরিচিতিপত্র নিল। সকালে কাপাসিয়ার জনাব আব্দুল জব্বারের ভাই আব্দুস সাহিদ একটি পরিচিতিপত্র নিয়ে গেছে। সে ঢাকা কলেজে ইন্টারমিডিয়েট দ্বিতীয় বর্ষে পড়ে। বিকেল সোয়া ৪টায় বের হলাম।

ন্যাশনাল মেডিকেল ইনস্টিটিউটে অল্প কিছুক্ষণের জন্য শামসুল হকের সঙ্গে দেখা করলাম। ওয়াহেদ এবং শামসুর দাদা সেখানে ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩টি ক্লাসেই উপস্থিত ছিলাম। রাত ৮টায় হেঁটে বাসায় ফিরলাম। রাত সাড়ে ৯টায় ঘুমাতে গেলাম। গত রাতের মতো আজ রাতেও এখানে কোনো ঝঞ্ঝাটে বহিরাগত নেই। বিরল উদাহরণ।

আবহাওয়া: সারাদিন রোদ ঝলমলে। গত কয়েক দিনের তুলনায় গরম কম। হালকা বাতাসসহ পরিমিত রাত। রাতে হালকা বৃষ্টি।

বি. দ্র. বুড়িগঙ্গা নদীতে এখনও ভালোমাত্রায় জলোস্ফীতি। প্রতি ২৪ ঘণ্টায় ২ থেকে আড়াই ইঞ্চি পানি বাড়ছে। এই বৃদ্ধি সাম্প্রতিক সর্বোচ্চ রেকর্ডকে বেশ আগেই অতিক্রম করেছে। আগের সর্বোচ্চ রেকর্ড থেকে প্রায় ১ ফুট ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। শীতলক্ষ্যা নদীতেও পানির উচ্চতা বেড়ে চলেছে। তবে আমি এখনও জানি না সাম্প্রতিক সর্বোচ্চ উচ্চতার রেকর্ড ছাড়িয়েছে কিনা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/23/1563860202722.jpeg
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাজউদ্দীন আহমদ

 

খ.

৩ সেপ্টেম্বর ১৯৫৪ শুক্রবার

ভোর ৫টায় উঠেছি।

সকাল ৮টার দিকে শামসুল হক এলেন। তার সঙ্গে বের হয়ে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ১ম সাব জজের আদালতে ফৌজদারি বিচারিক কার্যক্রমে উপস্থিত ছিলাম।

মফিজউদ্দীন মাস্টার সাহেব ১ম অতিরিক্ত ফৌজদারি জজের আদালতে অন্যতম জুরি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। তিনি সকাল ৯টা থেকে সাড়ে ৯টার মধ্যে আমার সঙ্গে কথা বলেছেন। দুপুর সোয়া ১টা পর্যন্ত বার লাইব্রেরি হলে ছিলাম। এরপর বাসায় ফিরে আসি।

বার লাইব্রেরিতে ২৬/১ মদনমোহন বসাক রোডের জলিল, শামসুল হক এবং আমার সঙ্গে প্রথমে কথা বললেন তারপর নাস্তা খাওয়ালেন। এরপর দুপুর ১২টার দিকে আতাউর রহমান খান সাহেব এসে আমাদের সঙ্গে যোগ দিলেন। এছাড়াও কামরুদ্দীন সাহেব, আফতাবুদ্দীন ভূইয়া, এস এ রহিম প্রমুখ আমাদের সঙ্গে বসলেন এবং কথা বললেন।

গভর্নর জেনারেল জনাব গোলাম মোহাম্মদের সঙ্গে আলোচনার বিস্তারিত বিবরণ দিলেন জনাব আতাউর রহমান খান। কামরুদ্দীন সাহেব রিলিফের বিষয়ে আলোচনার জন্য সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় আমাকে ‘ইত্তেফাক’ অফিসে যেতে বললেন।

জনাব কফিলউদ্দীন চৌধুরী সাহেব টেবিলের কিনারে বসেছিলেন। তার সঙ্গে আমার অল্প কথা হয়েছে। এর মধ্যে কফিলউদ্দীন চৌধুরী সাহেবের ক্লার্ক মমতাজউদ্দীন আহমদ জানালেন আমার ডিক্রির বিরুদ্ধে আসিমুদ্দিন আজ মিসকেস করেছে। জলিল গত নির্বাচনে মনোনয়ন প্রদানের ক্ষেত্রে কামরুদ্দীন সাহেবের সততার বিরুদ্ধে উদাহরণ টেনে অত্যন্ত জোরালোভাবে একজন লোকের উপস্থিতিতে শামসুল হক এবং আমাকে তার বক্তব্য শোনালেন। তার বেশিরভাগ বক্তব্যই মনে হলো অসন্তুষ্ট মনোভাব থেকে তৈরি হয়েছে। এ বিষয়ে অভিযোগকারী হিসেবে সে মোসলেম আলী এমএলএ’র নাম উল্লেখ করলো। ফেরার পথে আমি শামসুল হককে ৪০০ টাকা দেয়ার জন্য বললাম। এই বিষয়ে সন্ধ্যায় ইত্তেফাক অফিসে জানাবে বলে সে কথা দিল।

দুপুর ৩টার দিকে খাবারের পর একটু ঘুমাতে গেলাম। ঘুম থেকে জেগে দেখি প্রহ্লাদপুরের সলিমুল্লাহ একজন রোগীসহ আমাদের বারান্দায় অপেক্ষা করছেন। এছাড়াও গোসিংগার গনি ফকিরের ছেলেও একজন রোগীসহ বসে আছে। সোনারুয়ার আব্দুল কুদ্দুস এবং অন্য একজনও এসেছেন।

এরা সবাই রাতে আমার এখানে থাকলেন। আব্দুল মোড়লও রাতে এখানে থেকে গেল।

সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বের হলাম। পূর্ব নির্ধারিত প্রোগ্রাম থাকায় পায়ে হেঁটে রাত ৮টায় ‘ইত্তেফাক’ অফিসে গেলাম। অফিসে একমাত্র মুকুল উপস্থিত ছিল। রাত ৯টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত জনাব আতাউর রহমান খান, কামরুদ্দীন আহমেদ সাহেব প্রমুখ কেউ এলেন না।

মোহন মিয়া, নাসিরুদ্দীন সাহেব, লাল মিয়া, সৈয়দ আব্দুর রহিম সেখানে এসেছিলেন। আমি রাত ৯টা ৫০ মিনিটে ‘ইত্তেফাক’ অফিস থেকে চলে আসি। নবাবপুর রেলওয়ে ক্রসিং পর্যন্ত মুকুল আমার সঙ্গে আসে। রাত সোয়া ১০টায় বাসায় ফিরে আসি।

রাত ১২টায় ঘুমাতে গেলাম।

আবহাওয়া: সারাদিন প্রখর রোদ। গরম দিন। রাতে বাতাস থাকায় খুব বেশি গরম নয়। রাতের শেষ ভাগে বেশ অনেকক্ষণ ভালো বৃষ্টি হয়েছে। সূর্য ওঠার আগে বৃষ্টি থেমে যায়। গতকাল বন্যার পানি এক ইঞ্চি বৃদ্ধি পেয়েছে।

গ.

৪ সেপ্টেম্বর ১৯৫৪ শনিবার

ভোর ৫টায় উঠেছি।

সকাল সাড়ে ৭টায় ফকির সাহাবুদ্দীন এসেছিল ফজলুর কাছ থেকে একটি বইয়ের টাকা নিতে। সকাল সাড়ে ৮টায় সাইকেলে করে বের হলাম। গোসিংগার রহিমুদ্দিন নামের একজনকে ভর্তি করানোর জন্য সোজা মেডিকেল কলেজে গেলাম।

অনেক খোঁজাখুজির পর সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ডাক্তার আবু সিদ্দিককে পেলাম। তিনি এই রোগীকে প্রফেসর আসিরুদ্দিনের কাছে পাঠালেন। সকাল সাড়ে ১০টায় অ্যাসেম্বলি হাউসে গেলাম। দুপুর সোয়া ১২টা পর্যন্ত স্টাফদের সঙ্গে কথা বললাম। ডিও নোট পেপার ও খাম কিনলাম। এরপর চলে এলাম।

ডাক্তার আবু সিদ্দিকের সঙ্গে দেখা করলাম। জানলাম প্রফেসর আসিরুদ্দিন রোগীকে ভর্তি হওয়ার জন্য নির্দেশপত্র দিয়েছেন কিন্তু কোনো সিট খালি পাওয়া যাচ্ছে না।

রহিমুদ্দিনকে পরামর্শ দিলাম কিছু দিন পর এসে খোঁজ করতে।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ফজলুল হক মুসলিম হলে এলাম। হল ইউনিয়নের সহসভাপতি ইমাজুদ্দিনের সঙ্গে দেখা করলাম। সে গতকাল সন্ধ্যায় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ছাড়া পেয়েছে। ৯২-ক ধারার আওতায় নিরাপত্তা আইনে তাকে এক মাস আগে বন্দী করা হয়েছিল। ফজলুল হক মুসলিম হলের ১২ নর্থ রুমে আমরা কিছুক্ষণ কথা বলি। এরপর ইমাজ চলে যায়। আজিজ রুমে ছিল। আমি সোয়া ১টায় বের হয়ে সরাসরি বাসায় ফিরে আসি।

বিকেল ৪টায় বের হলাম।

ন্যাশনাল মেডিকেল ইনস্টিটিউটে শামসুল হকের সঙ্গে দেখা করলাম। সে জানালো আমাকে কথা দেয়া সত্ত্বেও সে আমার জন্য টাকার ব্যবস্থা করতে পারেনি। বিশ্ববিদ্যালয়ে যাবার পথে কিশোর মেডিকেল হলে ডাক্তার করিমের সঙ্গে দেখা করলাম। তাকে মাইক বিক্রির ব্যবস্থা করতে বললাম।

বিকেল সোয়া ৫টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা ১০ মিনিট পর্যন্ত ক্লাস করলাম।

বন্যার কারণে ছাত্রদের ক্লাস শেষে বাড়ি ফিরতে অসুবিধার কথা বিবেচনা করে সাময়িক একটি ক্লাস কমিয়ে দেয়া হয়েছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/23/1563860434524.jpg
বঙ্গতাজ শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ

 

বাসে করে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বাসায় ফিরলাম। রাত সাড়ে ৮টায় আওয়ামী লীগ অফিসে গেলাম। রাত ৯টা ২৫ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করলাম। কিন্তু বৃথা, কেউ-ই এলেন না। বন্যা ত্রাণ কমিটির একটি সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। গতকাল রাতের মতো আজ রাতেও আমি বৃথাই এখানে সময় কাটালাম। পরে বাসায় ফিরে এলাম। রাত ১১টায় ঘুমাতে গেলাম।

আবহাওয়া: আলোকিত দিন। রাত এবং দিন গরম। রাতের প্রথম ভাগে বাতাস ছিল। কিন্তু তারপর বাতাস থেমে যায়। বাকি রাত ঘাম ঝরানো গরম। গতকাল বুড়িগঙ্গার পানি সামান্য বেড়েছে। ময়মনসিংহ এবং উত্তরবঙ্গের জেলাসমূহ থেকে পানি সরে যাওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

জনকল্যাণ ভাবনায় রাজনীতি করলে কী রকম প্রস্তুতির প্রয়োজন হয় তার একটা নমুনা এই ডায়েরিতে আছে। বোঝা যায় ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি বাহিনীর গণহত্যা এবং বঙ্গবন্ধুর গ্রেফতারের পর সরকার গঠনের মত রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত যে তিনি নিতে পেরেছিলেন সেটা তাৎক্ষণিক কোনো ঘটনা নয়, এটা তাজউদ্দীন আহমদের পুরো জীবনের রাজনৈতিক অনুশীলনের ফল। তাঁর রাজনৈতিক অধ্যবসায় ও অনুশীলন ছিল বিষ্ময়কর রকম লক্ষ্যভেদি। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে তার সাফল্যজনক নেতৃত্বই সেটা প্রমাণ করেছে।

১৯২৫ সালের ২৩ জুলাই জন্ম নেয়া তাজউদ্দীন আহমদের ৯৪তম জন্মবার্ষিকীর দিনে তাই মনে হয়, বাংলাদেশকে যদি আমরা সত্যিকার অর্থে বড় দেখতে চাই, জনগণের জীবনমানের গুণগত উন্নতি দেখতে চাই, তবে তাজউদ্দীন আহমদের রাজনৈতিক ও ব্যক্তিগত গুণের একটা সামষ্টিক অনুশীলনের চেষ্টা আমাদের চালাতেই হবে। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের সামনে তার কর্ম ও জীবনকে আরও শক্তিমত্তা এবং সততার সাথে তুলে ধরতে হবে।

শুভ কিবরিয়া: নির্বাহী সম্পাদক, সাপ্তাহিক এবং সদস্য, তাজউদ্দীন আহমদ পাঠচক্র পরিচালনা পর্ষদ

প্রিয়া সাহা, দেশটা কিন্তু আপনারও

প্রিয়া সাহা, দেশটা কিন্তু আপনারও
প্রভাষ আমিন, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় অনেক স্লোগান আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে। 'জয়বাংলা' বলেই মুক্তিযোদ্ধারা ঝাঁপিয়ে পড়তো যুদ্ধে, একদম জীবনের মায়া না করে। কিন্তু আমার সবচেয়ে প্রিয় স্লোগান 'বাংলার হিন্দু, বাংলার বৌদ্ধ, বাংলার খ্রিস্টান, বাংলার মুসলমান, আমরা সবাই বাঙালি'। ছোট্ট এই স্লোগানে আমাদের পুরো আকাঙ্ক্ষাটা ধারণ করা আছে, এটাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা।

সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র পাকিস্তান থেকে আমরা যুদ্ধ করে স্বাধীন করেছি অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়ব বলে। হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, মুসলমান সবাই মিলে একসাথে থাকব; এটাই ছিল স্বপ্ন, এটাই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা। এই স্লোগানে বাঙালি ছাড়া অন্য জাতিগোষ্ঠী বা আদিবাসীদের কথা নেই বটে, তবে এই স্লোগানের চেতনা সবাইকে ধারণ করার। বাঙালি, আদিবাসী সবাই মিলেই গড়ব দেশ।

আমরা চেয়েছি বটে, কিন্তু সবাইকে নিয়ে অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়ার স্বপ্ন পুরোপুরি বাস্তবায়িত হয়নি। স্বপ্নের পথে হাটতে গিয়ে আমরা বারবার হোঁচট খেয়েছি। হোঁচট খেয়েছি, আবার উঠে দাঁড়িয়েছি। বারবার হোঁচট খেয়েও স্বপ্ন হারাইনি, পথ ভুল করিনি। এখনও আমরা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের পথেই হাটছি। পথে খাওয়া কিছু হোচট ছোটখাটো, খাই আবার ভুলে যাই। কিছু হোঁচট আমাদের রক্তাক্ত করে দেয়, বেদনা ভুলতে পারি না। যেমন ২০০১ সালের নির্বাচনের পর দেশজুড়ে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর, রামুর ঘটনা আমরা ভুলতে পারি না। তারপরও আমি বলছি, বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি পৃথিবীর অনেক দেশের চেয়ে ভালো। তবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় একটি সত্যিকারের অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়তে আমাদের আরো অনেক লম্বা দুর্গম পথ পাড়ি দিতে হবে।

সাম্প্রদায়িকতা আমাদের অনেক পুরোনো সমস্যা। ৪৭ সালে পাকিস্তান স্বাধীনই হয়েছিল সাম্প্রদায়িকতার ভিত্তিতে। একাত্তর সালে আমরা পাকিস্তান থেকে স্বাধীন হলেও আমাদেরই কেউ কেউ অন্তরে পাকিস্তানকে ধারণ করেন, সাম্প্রদায়িকতার বিষ তাদের অন্তরজুড়ে। আমাদের অনেকের রক্তে মিশে আছে ভয়ঙ্কর সাম্প্রদায়িকতা।

১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের সময় ধর্মের কারণে অনেকে দেশান্তরী হন। ১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের সময়ও অনেকে দেশ ছেড়েছেন। একাত্তরে অনেকে শরণার্থী হিসেবে দেশ ছাড়লেও তাদের প্রায় সবাই ফিরে এসেছেন। কিন্তু স্বাধীনতার পরও কিন্তু বিভিন্ন সময়ে অনেকে দেশ ছেড়েছেন। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানে ধর্মীয় সংখ্যালঘু ছিল প্রায় ৩০ ভাগ, একাত্তরেও ছিল ২০ ভাগ। কিন্তু এখন কেন কমতে কমতে ১০ ভাগের নিচে নেমে এসেছে; তার কারণ খুঁজে বের করতে হবে আমাদেরই। আমাদের মানে, আমরা যারা ধর্মীয় পরিচেয় সংখ্যাগুরু।

সংখ্যালঘু শব্দটা নিয়েই আমার প্রবল আপত্তি। তারপরও বলছি, সংখ্যালঘুদের মর্যাদা, নিরাপত্তা, অধিকার নিশ্চিত করা সংখ্যাগুরুর দায়িত্ব। বাংলাদেশে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ নামে একটি সংগঠন আছে। ১৯৭৫ -এর পর জিয়া-এরশাদ মিলে যখন দেশকে আবার পাকিস্তান বানাতে চেয়েছিল, এরশাদ যখন রাষ্ট্রের মৌলিক কাঠামো বদলে দিয়ে ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম করেন; তখন গড়ে উঠেছিল এই সংগঠনটি। কিন্তু এমন একটি সংগঠনের থাকাটাই আমাদের সংখ্যাগুরুদের জন্য লজ্জার। তার মানে আমরা সংখ্যাগুরুরা তাদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছি। তাই নিজেদের অধিকার আদায়ে তাদের সংগঠন করতে হয়েছে। যদি সংগঠনের নাম হতো; হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান সংহতি পরিষদ; আর তার নেতা যদি হতেন মুসলমানরা; তাহলে বুঝতাম যে আমরা মানে সংখ্যাগুরুরা ভালো মানুষ। কিন্তু মানুষ হিসেবে আমরা অত ভালো নই।

বাংলাদেশে সাধারণভাবে আওয়ামী লীগ সংখ্যালঘুদের বন্ধু। বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় থাকতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের জীবন দুর্বিষহ ছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগের গত ১১ বছরের শাসনামলেও সংখ্যালঘুরা স্বর্গে আছে, তেমন ভাবার কারণ নেই। এই সময়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট হয়েছে বারবার। পূজার সময় হলেই কোথাও না কোথাও মূর্তি ভাঙ্গার খবর আসে।

আসলে হিন্দুদের ওপর হামলার ঘটনা সবসময় রাজনৈতিক নয়, ধর্মীয় নয়; কখনো কখনো নিছকই স্বার্থ। ভয় দেখিয়ে তাদের তাড়াতে পারলে জমি দখল করা যাবে বা সস্তায় কেনা যাবে। সাম্প্রদায়িকতা আমাদের কারো কারো ফ্যাশন। নির্বাচনে জিতলে হিন্দুদের ওপর হামলা হয়, হারলে হামলা হয়, ভোট দিতে গেলে হামলা হয়, ভোট না দিলে হামলা হয়, যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসির রায় হলে হামলা হয়, ফাঁসি কার্যকর হলে হামলা হয়।

আর সাম্প্রদায়িক হামলার সবচেয়ে ভয়ঙ্কর দিকটা হলো, আক্রান্তের মনে নিরাপত্তহীনতা তৈরি করা। একবার হামলার পর মনের ভিতর যে নিরাপত্তাহীনতাবোধ তৈরি হয়, তা তো কোনোভাবেই দূর করা যায় না। চট্টগ্রামে হামলা হলে, আতঙ্কের ঢেউ ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। সেই নিরাপত্তহীনতার বোধ থেকেই দেশ ছেড়ে যাওয়ার মতো কঠিনতম সিদ্ধান্ত নিয় ফেলেন কেউ কেউ। আর হিন্দুরা দেশ ছেড়ে গেলে এই দেশের কারো কারো সুবিধা হয় বটে।

আগেই বলেছি সংখ্যালঘু শব্দটা নিয়েই আমার আপত্তি। একটি স্বাধীন দেশে সবাই সমান হবে। ধর্মের ভিত্তিতে, সংখ্যার ভিত্তিতে মানুষকে আমরা গুনব কেন? আমি নিজে কখনো মানুষকে তার ধর্ম, বর্ণ, জাতি, গোষ্ঠী দিয়ে বিবেচনা করি না। হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, চাকমা, গারো, মুরং- কত বৈচিত্র্য আমাদের। চাইলেই আমরা আমাদের দেশকে সত্যিকারের ‘রেইনবো কান্ট্রি’ হিসেবে গড়ে তুলতে পারতাম; কিন্তু পারিনি তো। আসলে সংখ্যালঘু টার্মটাই খুব আপেক্ষিক। এখানে যারা সংখ্যাগুরু, সীমানা পেরিয়ে ভারতে গেলে তারাই সংখ্যালঘু।

বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক মানুষের সংখ্যা খুবই কম, শুভবুদ্ধির মানুষের সংখ্যাই বেশি। অল্পকিছু মানুষের অপকর্মের জন্য আমাদের বারবার লজ্জিত হতে হয়, গ্লানিতে আমরা মুখ দেখাতে পারি না। এতকিছুর পরও বাংলাদেশ শেষ বিচারে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিরই দেশ। একই ভবনে বা পাশাপাশি ভবনে মসজিদ আর মন্দির আছে এই বাংলাদেশেই। এখনও কোথাও কোনো সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘটলে সংখ্যাগুরু শুভবুদ্ধির মানুষই এগিয়ে আসে, প্রতিবাদ করে। কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা দিয়ে বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করা যাবে না।

প্রিয়া সাহা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে যে নালিশ করেছেন, তা কোনোভাবেই সত্য নয়। ভয়ঙ্কর এক মিথ্যা দিয়ে তিনি বাংলাদেশকে হেয় করতে চেয়েছেন। ভিডিওটা প্রথম যখন দেখি, তখন এই নারীকে আমি চিনতাম না, নামও জানতাম না। পরে দ্রুত জানলাম, তার নাম প্রিয়া সাহা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় তিনি ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি ‘শাড়ি’ নামে একটি এনজিওর নির্বাহী পরিচালক, ‘দলিত কণ্ঠ’ নামে একটি পত্রিকার সম্পাদক। তিনি হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক। তার স্বামী দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক। তার ভাই অবসরপ্রাপ্ত যুগ্ম সচিব।

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের আমন্ত্রণেই তিনি সেখানে গেছেন। বিভিন্ন সময় তোলা মন্ত্রী ও সমাজের প্রভাবশালীদের সাথে তার ছবি রয়েছে। তার মানে সব মিলিয়ে প্রিয়া সাহা বাংলাদেশের সমাজে একজন প্রভাবশালী ও গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি। সেই তিনি যখন তার বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার কথা বলেন, জমিজমা কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ করেন, তখন বোঝাই যায়, এটা অসৎ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, দুরভিসন্ধমিূলক।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে তিনি বলেছেন, ‘আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। সেখানে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু-মুসলিম-বৌদ্ধ খ্রিস্টান হারিয়ে গেছে। এখনো সেখানে ১ কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু জনগণ রয়েছে। দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশ ত্যাগ করতে চাই না। আমি আমার ঘর হারিয়েছি, আমার জমি নিয়ে নিয়েছে, আমার ঘরবাড়িতে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে কিন্তু সেসবের কোনো বিচার হয়নি।‘

প্রিয়া সাহা যা বলেছেন, তার পুরোটাই মিথ্যা। ৩ কোটি ৭০ লাখ সংখ্যালঘু ‘ডিজঅ্যাপিয়ার’ হয়ে গেছে, এটা বিশ্বাসযোগ্য নয়। বাংলাদেশের কোনো মানুষ তার এই কথা বিশ্বাস করবে না। এখন এক কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘুকে দেশে থাকতে হলে ট্রাম্পের সহায়তা লাগবে, এটাও বাংলাদেশের বাস্তবতা নয়। আর প্রিয়া সাহা তার বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়া এবং জমি দখলের বিচার বাংলাদেশের কারো কাছে কি চেয়েছেন? যিনি ওভাল অফিসে পৌঁছে যেতে পারেন, তিনি চাইলে নিশ্চয়ই গণভবনেও যেতে পারতেন। সাংবাদিকদের কাছে বলতে পারতেন। মামলা করতে পারতেন। তা না করে সরাসরি ট্রাম্পের কাছে বিচার দিলেন!

বাস্তবতা হলো বাংলাদেশে অল্প জমি, অনেক মানুষ। তাই জমিজমা সংক্রান্ত ঝামেলা অনেক হয়। অনেক মুসলমানের জমিও প্রভাবশালী কেউ দখল করে রাখে। এর সাথে ধর্মের কোনো সম্পর্ক নেই। তবে কোনো হিন্দু যদি অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল হন, তাহলে তিনি দুর্বলতর। প্রান্তে থাকা এই মানুষগুলো দ্রুতই ছিটকে যায়, বাস্তুচ্যুত হয়ে যায়। এই প্রবণতা থেকে কিন্তু দুর্বল মুসলমানরাও রেহাই পায় না। দুর্বল হিন্দুরা যেমন আক্রান্ত হন, দুর্বল মুসলমানরাও কিন্তু হন। ঝুকিতে থাকেন নারীরাও। এটা ঠিক দুর্বল হিন্দুদের ঝুঁকি বেশি। হিন্দুদের ওপর অনেক রকম অত্যাচার-নির্যাতন হয়, কিন্তু স্রেফ হিন্দু বলে কি প্রিয়া সাহা কখনো বঞ্চিত হয়েছেন? আমার মনে হয় না। হলে তিনি এবং তার পরিবার এত দূর আসতে পারতেন না।

জীবনটা আসলে লড়াইয়ের। লড়তে হবে নিরন্তর। ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা যেমন বঞ্চিত হন, অর্থনৈতিক সংখ্যালঘুরাও হন। ধানচাষিরাই তো প্রতিবছর নিঃস্ব থেকে নিঃস্বতর হচ্ছেন। তবে ধর্মীয় কারণে আঘাত সবচেয়ে বেশি কষ্টের, সবচেয়ে বেশি ঘৃণার। বাংলাদেশের যে কোনো প্রান্তে সংখ্যালঘুদের ওপর যে কোনো আঘাত আমার বুকেও লাগে। সংখ্যাগুরু হিসেবে আমাকে লজ্জিত করে, ছোট করে। তবে কোনো অবস্থাতেই হাল ছেড়ে দেয়া যাবে না। প্রয়োজনে মাটি কামড়ে পড়ে থাকতে হবে। আমি জানি শিকড় ছেড়ে কেউ যেতে চান না। তবুও অনেকে বাধ্য হন।

একটা ছোট্ট কথা বলি, বাংলাদেশের কোনো মুসলমান যতই নির্যাতিত হোক, নিপীড়িত হোক; কখনো দেশ ছাড়ার কথা ভাবে না। কিন্তু হিন্দুদের কেউ কেউ অনেক কম আঘাতেও দেশ ছাড়ে। আমি এমন অনেক হিন্দুকে চিনি, যারা আয় করেন ঢাকায়, সম্পদ গড়েন কলকাতায়। ভারত একটি বিকল্প- এই ভাবনাটা যতদিন কোনো কোনো হিন্দুর মাথা থেকে না যাবে, ততদিন এই সমস্যার পূর্ণাঙ্গ সমাধান হবে না।

ভাবুন, বাংলাদেশ আমাদের সবার, এর কোনো বিকল্প নেই। তারপরও যদি বিকল্প খুজতেই চান, আমেরিকা, ইউরোপ, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, নিদেনপক্ষে মালয়েশিয়ায় খুঁজুন; ভারতে নয়। এই দেশ যতটা আমার, ততটা প্রিয়া সাহারও। প্রিয়া সাহা কেন দেশে থাকতে পারবেন না, সেটা অবশ্যই খুঁজে দেখতে হবে। প্রিয়া সাহা যদি বাংলাদেশকে ভালোবাসতেন, তাহলে এই অভিযোগের প্রতিক্রিয়াটা বুঝতেন, তার এই মিথ্যা অভিযোগ বাংলাদেশকে কতটা খাটো করেছে টের পেতেন।

প্রিয়া সাহা মিথ্যা অভিযোগ করে বাংলাদেশকে হেয় করেছেন, আমাদের অপমান করেছেন। তিনি যদি ট্রাম্পের কাছে সত্যি অভিযোগও করতেন, তাও আমি প্রতিবাদ করতাম। ডোনাল্ড ট্রাম্প কে, তার কাছে নালিশ করতে হবে কেন? ট্রাম্প যদি আপনাদের উদ্ধার করার জন্য আমাদের রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করে বা সেনাবাহিনী পাঠায়; আপনি খুশি হবেন?

প্রিয়া সাহা কেন ট্রাম্পের কাছে এমন নালিশ করলেন, জানি না। রাজনৈতিক আশ্রয় বা নিজের ঘরবাড়ি রক্ষার জন্য যদি হয়, তাহলে মানতে হবে ব্যক্তি স্বার্থে তিনি দেশকে বাজি ধরেছেন। তিনি আসলে রাষ্ট্রকেই বিকিয়ে দিয়েছেন। যদি তিনি অ্যাটেনশন পাওয়ার জন্য করে থাকেন, তাহলে মানতে হবে তিনি ষোলো আনা সফল। বাংলাদেশের সবাই এখন তাকে চেনে। তবে মজাটা হলো, কেউ তাকে পছন্দ করে না।

ধর্ম নির্বিশেষে সবাই প্রিয়া সাহার ভুল জায়গায়, মিথ্যা নালিশ করার নিন্দা করছে। এমনকি যে সংগঠনের তিনি সাংগঠনিক সম্পাদক, সেই হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদও তাকে সমর্থন দেয়নি। এটা আমার কাছে ভালো লেগেছে। ভালো লেগেছে যে, আমার অধিকাংশ হিন্দু বন্ধুই প্রিয়া সাহার সমালোচনা করেছেন। তারা বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক পরিস্থিতির যৌক্তিক অবস্থাটা জানেন, তারা সেই আলোকেই এর সমাধান খোঁজেন।

প্রিয়া সাহা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের প্রতিনিধি হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে যাননি, তাকে কেউ ট্রাম্পের কাছে নালিশ করতেও বলেনি। তারপরও তিনি যদি বাংলাদেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের স্বার্থে নালিশ করেছেন, ভেবে থাকেন, ভুল ভেবেছেন। প্রিয়া সাহার এই নালিশ, বাংলাদেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে আরো বিপাকে ফেলবে।

স্বাধীনতার পর যে ক’টি ঘটনা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ক্ষতির কারণ হয়েছে, তার মধ্যে ওপরের দিকে থাকবে প্রিয়া সাহার এই ঘটনা। প্রিয়া সাহার মিথ্যা ও অতিরঞ্জিত নালিশের আড়ালে অনেকগুলো সত্যিকারের বঞ্চনাও হারিয়ে যাবে।

তবে প্রিয়া সাহার নালিশের প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে আমরা যা করেছি, তাতে কিন্তু আমাদের অনেকের মুখোশ খুলে গেছে। প্রিয়া সাহা ভয়ঙ্কর অন্যায় করেছেন, তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। কিন্তু তাকে যে ভাষায় গালি দিলেন, তাকে যা যা করতে চাইলেন, যা যা শাস্তি দিতে চাইলেন; তা কি কোনো সভ্য মানুষের ভাষা?

প্রিয়া সাহা সাম্প্রদায়িক। কিন্তু আপনি তাকে গালি দিতে গিয়ে তো নিজেকে আরো বড় সাম্প্রদায়িক প্রমাণ করলেন। আপনাদের প্রতিক্রিয়াই তো প্রমাণ করে প্রিয়া সাহার পরিসংখ্যান ভুল হলেও সংখ্যালঘুদের দুর্দশাটা ভুল নয়। নিজের চিন্তাজুড়ে সাম্প্রদায়িকতার বিষ নিয়ে আরেকজনকে গালি দেওয়া যায় না।

প্রিয় সংখ্যাগুরু ভাইয়েরা আসুন আমাদের চিন্তার প্যাটার্ন বদলাই। এই দেশ যতটা মুসলমানের, ততটাই হিন্দুর, বৌদ্ধের, খ্রিস্টানের, চাকমার, মারমার; এমনকি ধর্মহীন মানুষেরও সমান অধিকার এই দেশে। শুধু সংখ্যায় নয়, গুরু হতে হবে মানবিকতায়, বিবেকে, বুদ্ধিতে। যখন আপনার চিন্তা থেকে, ভাষা থেকে, হাত থেকে আপনার সংখ্যালঘু প্রতিবেশী নিরাপদ; যখন কোনো সংখ্যালঘু আক্রান্ত হলে আপনার প্রাণ কাঁদে, আপনি সবার আগে প্রতিবাদ করেন; যখন আপনি আপনার সংখ্যালঘু বন্ধুর মর্যাদা রক্ষা করেন, যখন আপনি তার মন থেকে দেশ ছাড়ার ভয় দূর করে দেন; তখন বুঝতে হবে আপনি ভালো মানুষ, ভালো সংখ্যাগুরু, ভালো মুসলমান।

পাল্টাতে হবে প্রিয়া সাহাদের চিন্তার প্যাটার্ন। ভাবতে হবে, এটাই আমার দেশ, আমার কোনো বিকল্প নেই। সব চিন্তা-ভাবনা, সহায়-সম্পদ, জ্ঞান-বুদ্ধি বাংলাদেশের উন্নয়নে কাজে লাগাতে হবে। মন থেকে সব হীনমন্যতা ঝেড়ে ফেলতে হবে।

আসুন সবাই ধর্মটাকে ব্যক্তিগত চর্চায় রেখে, অপরের বিশ্বাসের প্রতি সম্মান রেখে; দেশটাকে এগিয়ে নেই। এই দেশটা আমাদের সবার।

প্রভাষ আমিন: হেড অব নিউজ, এটিএন নিউজ।

আরও পড়ুন: ট্রাম্পের কাছে করা অভিযোগের ব্যাখ্যা দিলেন প্রিয়া সাহা

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র