Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

আবারও প্রাচ্যনাটের ‘ট্র্যাজেডি পলাশবাড়ি’

আবারও প্রাচ্যনাটের ‘ট্র্যাজেডি পলাশবাড়ি’
‘ট্র্যাজেডি পলাশবাড়ি’ প্রাচ্যনাটের দৃশ্য
বিনোদন ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

২০০৫ সালের ১১ এপ্রিল গভীর রাতে সাভারের পলাশবাড়িতে ধ্বসে পড়ে স্পেকট্রাম সোয়েটার অ্যান্ড নিটিং ফ্যাক্টরি। নয়তলা ভবনে তখন রাতের শিফটে কাজ করছিলেন শতাধিক কর্মী। সেই ঘটনায় নিহত হয় প্রায় ৬৪ জন। তদন্ত কমিটির রিপোর্টে জানা যায়, কোনো রকম ঝুঁকি মোকাবিলার ব্যবস্থা ছাড়াই ঘটনার তিন বছর আগে একটি জলাভূমির ওপর এটি তৈরি হয়।

সেই ঘটনাকে কেন্দ্রীভূত করে প্রাচ্যনাট মঞ্চে আনে তাদের ৩০তম প্রযোজনা ‘ট্র্যাজেডি পলাশবাড়ি’। অনেকদিন পর আবারও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মূল মিলনায়তনে দেখা যাবে এটি। আগামী ১৬ জুন সন্ধ্যা ৭টায় এর প্রদর্শনী শুরু হবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/15/1560562337941.jpg তারাভানকে ঘিরে ‘ট্র্যাজেডি পলাশবাড়ি’র গল্প। সেদিনের নাইট শিফটে কাজ করতে আসা কর্মীদেরই প্রতিচ্ছবি এই নারী। নাটকটি গ্রন্থিত হয় তার স্মৃতি, স্বপ্ন ও জীবনচক্রের রোমন্থনে। যেকোনো সময় মাথার ওপর ছাদ ভেঙে পড়ে পিষে দেবে জীবন, এমনকি নড়ার উপায়টুকুও নেই। এমন অবস্থায় সে যেন জীবনের পাওয়া-না পাওয়ার হিসেব মিলিয়ে নেয়। সেই হিসেব প্রতিনিধিত্ব করে তারই মতো শত শত তারাভানের, যাদের অনেকেই এভাবে মরে যায়।

তারাভানের স্মৃতিচক্রের সমান্তরালে একই ঘটনাকে একজন ভিনদেশি আউটসোর্সিং পারসন মিস্টার ওয়েস্টের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখা যায়। এই আকস্মিক ঘটনায় তার প্রতিক্রিয়া বিশ্বমঞ্চে যেসব চিত্র তুলে ধরে সেগুলো তারাভানরা কখনো জানে না কিংবা জানার সুযোগ পায় না।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/15/1560562366987.jpg

নাটকটির নির্দেশনা দিয়েছেন আজাদ আবুল কালাম। তিনি বলেন, ‘নয়তলা কংক্রিট ধ্বসে পড়া আদতে লোভী, কুৎসিত কিছু অর্থান্বেষী সারমেয়র বিপরীতে কিছু মানুষের স্বপ্নের অন্তিম যাত্রার প্রতীক। আমরা অপূর্ণ সেই স্বপ্ন ধরার চেষ্টা এই নাটকে।’

‘ট্র্যাজেডি পলাশবাড়ি’র মঞ্চ ও আলোকসজ্জায় আবুল হাসনাত ভূঞা রিপন, সঙ্গীত ও শব্দ পরিকল্পনায় নীল কামরুল। কোরিওগ্রাফি করেছেন স্নাতা শাহরিন ও মো. ফরহাদ আহমেদ। পোশাক পরিকল্পনায় বিলকিস জাহান জবা।

আপনার মতামত লিখুন :

সন্তানদের নিয়ে মালদ্বীপে শাহরুখ

সন্তানদের নিয়ে মালদ্বীপে শাহরুখ
তিন সন্তানের সঙ্গে মালদ্বীপ বিমানবন্দরে শাহরুখ খান

আপাতত কোন ছবির কাজ নেই শাহরুখ খানের হাতে। আর এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ছেলে আরিয়ান খান, আবরাম খান ও মেয়ে সুহানা খানকে নিয়ে মালদ্বীপ ভ্রমণে বেরিয়ে পড়লেন বলিউডের এই সুপারস্টার।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে খান পরিবারের মালদ্বীপের একটি ছবি। যেখানে শাহরুখ ও আবরামকে দেখা গেছে সাদা টি-শার্টে। আরিয়ান ও সুহানা পরেছেন কালো রঙের পোশাক। তবে এই সফরে দেখা মেলেনি শাহরুখপত্নি গৌরি খানের।

সবশেষ ‘জিরো’ ছবিতে অভিনয় করেছেন শাহরুখ খান। এতে তার সহশিল্পী হিসেবে ছিলেন আনুশকা শর্মা ও ক্যাটরিনা কাইফ। কিন্তু বক্স অফিসে সফলতার মুখ দেখেনি ছবিটি।

আজ (১৯ জুলাই) মুক্তি পেয়েছে হলিউড ছবি ‘দ্য লায়ন কিং’। ইংরেজির পাশাপাশি হিন্দি, তামিল এবং তেলেগু—এই তিনটি ভাষায় মুক্তি পেয়েছে অস্কারজয়ী ছবিটি। আর হিন্দি সংস্করণে মুফাসা চরিত্রে শাহরুখ এবং সিম্বা চরিত্রে কণ্ঠ দিয়েছেন আরিয়ান খান।

ডা. এজাজের চোখে দেখা হুমায়ূন আহমেদ

ডা. এজাজের চোখে দেখা হুমায়ূন আহমেদ
হুমায়ূন আহমেদ ও এজাজুল ইসলাম

এজাজুল ইসলাম পেশায় চিকিৎসক। ঢাকা মেডিকেল কলেজের নিউক্লিয়ার মেডিসিন বিভাগের প্রধান তিনি। তবে তাকে ডা. এজাজ নামে পরিচয় করিয়েছেন হুমায়ূন আহমেদ। হুমায়ূন আহমেদের ৫টি সিনেমাসহ বহু নাটকে কাজ করেছেন ডা. এজাজ। পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও।

ডা. এজাজ দীর্ঘ ১৬ বছরের বেশি সময় ধরে খুব কাছ থেকে দেখেছেন হুমায়ূন আহমেদকে। হুমায়ূন আহমেদের চলে যাওয়ার ৭ বছরে ঠিক মৃত্যুবার্ষিকীর দিনে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে শুনিয়েছেন সেই গল্প।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563529984602.jpgপ্রথম দেখা ও প্রথম কাজ
১৯৮৯ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নিউক্লিয়ার মেডিসিনে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন এজাজুল ইসলাম। তারপর কয়েক বছর পার হলেও সার্টিফিকেট নেওয়া হয়নি। ১৯৯২ সালে গেলেন সার্টিফিকেট নিতে। সার্টিফিকেট নিতে হবে প্রফেসর ড. এম এ করিমের কাছ থেকে। যিনি হুমায়ূন আহমেদের স্কুলবন্ধু। চেম্বারে গিয়ে জানতে পারেন, হুমায়ূন আহমেদের অফিসে গেছেন ড. এম এ করিম। সার্টিফিকেটে সই নেওয়ার অজুহাতে হুমায়ূন আহমেদের কাকরাইলের অফিসে ছুটে যান এজাজুল ইসলামও।

ডা. এজাজ বলছিলেন, ‘যেই সময় কাকরাইলে রওনা দেই সেই সময় সার্টিফিকেট ওঠানোর ব্যাপারটা মাথায় ছিল না, মাথায় ঘুরছিল—আজ আমার হুমায়ূন আহমেদে স্যারের সঙ্গে দেখা হবে। সেদিন আমার প্রথম স্যারের সঙ্গে দেখা হয়।’
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563529688117.jpgপ্রথম আলাপচারিতায় হুমায়ূন আহমেদ এজাজুল ইসলামের কাছে জানতে চেয়েছিলেন, কোথায় পড়েন, কোন বিষয়ে, কী করেন, কোথায় থাকেন এসব। যখন হুমায়ূন আহমেদ জানলেন এজাজুল ইসলাম গাজীপুরে থাকেন ও চাকরি করেন তখন বলেছিলেন, ‘আমি তো গাজীপুরে শুটিং করি। অনেক ঝামেলা হয়। অনেক সহযোগিতারও প্রয়োজন হয়। তোমার যদি সময় হয় আমাকে একটু সহযোগিতা কর।’ প্রথম দেখায় হুমায়ূন আহমেদের কাছাকাছি যেয়ে কাজের প্রস্তাব পেয়ে হতবাক হয়েছিলেন এজাজুল ইসলাম। সেদিন শুধু মাথা নেড়ে টেলিফোন (টিএনটি) নম্বর দিয়ে এসেছিলেন তিনি।

দুই সপ্তাহ পরে হুমায়ূন আহমেদ ফোন করে এজাজুল ইসলামকে বলেছিলেন, 'আমি সবুজ সাথী নামে একটি সিরিয়াল করব। এটার জন্য লোকেশন ও থাকার জায়গা দরকার। তুমি ব্যবস্থা করে দাও?’ সেদিন ফোনের অপর প্রান্ত থেকে এজাজুল ইসলাম শুধু বলেছিলে, ‘স্যার আমি আপনার অফিসে আসছি। এসে কথা বলছি।’ সেই থেকে হুমায়ূন আহমেদের সঙ্গে এজাজুল ইসলামের পথচলা শুরু।

এজাজুল ইসলাম থেকে ডা. এজাজ
চতুর্থ শ্রেণিতে পড়াকালে প্রথম মঞ্চে অভিনয় করার সুযোগ পান এজাজুল ইসলাম। তার অভিনয়ে দর্শকরা হেসে উঠেছিল, যা তার অভিনয়ের ব্যাপারে আগ্রহ বাড়িয়ে দেয়। এরপর ১৯৭৮-১৯৮৪ সাল পর্যন্ত রংপুর রেডিওতে কাজ করেন এজাজুল ইসলাম। তারপর চাকরির পাশাপাশি টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রে অভিনয়ের তীব্র আগ্রহ থেকে ১৯৮৯ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনের অভিনয় শিল্পী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন। কিন্তু থিয়েটারের কোন অভিজ্ঞতা না থাকায় তিনি কোন নাটকে অভিনয় করার সুযোগ পাচ্ছিলেন না।

‘সবুজ সাথী’ সিরিয়ালের শুটিং চলাকালেও এসব কিছুই জানতেন না হুমায়ূন আহমেদ। শুটিং এর মাঝামাঝি সময়ে এজাজুল ইসলাম একদিন জানালেন সেসব কথা। সেদিন হুমায়ূন আহমেদ শুধু বলেছিলেন, ‘ঠিক আছে। আমি কালকেই তোমাকে সুযোগ দিচ্ছি।’ পরের দিন হুমায়ূন আহমেদ এজাজুল ইসলামের জন্য একটি সিকুয়েন্স লিখলেন। সেটার নাম ছিল ‘স্বাস্থ্য কর্মী’। সেদিন সেই দৃশ্যে অভিনয় করার পর হুমায়ূন আহমেদ বলেছিলেন, ‘এই আমাদের ডাক্তার তো ভালো অভিনয় করে’। সেই থেকে শুরু হলো এজাজুল ইসলামের অভিনয় জীবন। আর সেখান থেকেই এজাজুল ইসলাম থেকে হয়ে উঠলেন ডা. এজাজ।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563529709497.jpgশুটিংয়ের সময়ে হুমায়ূন
‘হুমায়ূন আহমেদের শুটিং সেটে কাজ ছাড়া অন্য কিছু ভাবার বা মোবাইলে কথা বলার চিন্তা করারও সাহস পেতাম না আমরা। উনি যেমন কাজের প্রতি মনযোগী থাকতেন সেটের সবাই তেমন মনযোগী থাকতে বাধ্য হতো। স্যার ভুল করলে বকতেন কিন্তু সেই বকায় অসম্ভব এক মায়া ছিল।’

শুটিংয়ের সময়ে কেমন ছিলেন হুমায়ূন আহমেদ এমন প্রশ্নের এভাবেই উত্তর দিচ্ছিলেন ডা. এজাজ। শুটিং সেটে হুমায়ূন আহমেদ ছিলেন সাদামাটা। পরনে থাকত সাধারণ পোশাক। হুমায়ূন আহমেদের জন্য শুটিং সেটে থাকত না আলাদা কোন চেয়ার। তবে একটি নিয়ম ছিল তিনি যে চেয়ারে যেদিন বসতেন সেই চেয়ারে অন্য কেউ বসতেন না। ডা. এজাজ অনেক দিন দেখাশোনা করেছেন হুমায়ূন আহমেদের প্রোডাকশনের কাজ।

সেই গল্প বলতে ডা. এজাজ বলেন, ‘স্যারের কাছে সবাই সমান ছিল। স্যার আমাকে নির্দেশ দিয়েছিলেন ডাক্তার শুটিং সেটে আমি যা খাব আমার সেটের প্রোডাকশন বয়ও তাই খাবে। আমার জন্য বিশেষ কোন খাবার হবে না। সবার জন্য একই আয়োজন যেন থাকে।’ স্যার যে খাবার খেয়েছেন সবাই তা-ই খাচ্ছে কিনা তা তদারকি করতেন। রমজান মাসজুড়ে শুটিংয়ের কাজ চলত ঈদের জন্য। সেই সময় ইফতারের আগে নিয়ম ছিল সবাই গোসল করে অজু করে ইফতার করার। সেই গল্পে এজাজ জানালেন, ‘রমজান মাসে স্যার মজা করে বলতেন তোমাদের আমার ভয়ে হলেও নামাজ পড়তে হবে।’
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563529812943.jpgকাজপ্রেমী হুমায়ূন
হুমায়ূন আহমেদ ছিলেন কাজপ্রেমী। কাজের প্রতি তিনি ছিলেন যথেষ্ট দায়িত্ববান। কেমন কাজপ্রেমী ছিলেন হুমায়ূন আহমেদ সেই প্রশ্নের উত্তরে ডা. এজাজ বলেন আরেক গল্প—‘স্যারের একবার বাইপাস অপারেশন করা হয়েছিল সিঙ্গাপুরে। সিঙ্গাপুরে যাওয়ার ১৫ দিনের মাথায় ফোন করে ডেকেছিলেন আমাকে। আমি মনে করেছিলাম স্যারের অপারেশন লাগেনি। কিন্তু স্যারের বাসায় যেয়ে শুনলাম স্যারের অপারেশন শেষ। স্যার সেদিন আমাকে দেখে প্রথম বলেছিলেন, ‘ডাক্তার শুটিং করব তুমি সব কিছু রেডি কর’। আমি অবাক হয়ে বলেছিলাম, স্যার এখন অনেক গরম, কয়েকদিন পরে কাজ শুরু করি।’

ডা. এজাজের দেখা একমাত্র ব্যক্তি হুমায়ূন আহমেদ যিনি বাইপাস অপারেশনের পর এত কম সময়ে কাজ শুরু করেছেন আর সেই কাজে কোন অসুস্থতা, বিরক্তি, অমনোযোগ বা ক্লান্তির ছাপ ছিল না।

হুমায়ূনের জাদু
ডা. এজাজের জীবনে সরাসরি হুমায়ূন আহমেদের জাদু দেখার সুযোগ হয়েছে একবার। সেই জাদু তিনি দেখেছিলেন ‘রূপালী রাত্রি’ নাটকে শুটিংয়ের জন্য সুইজারল্যান্ড গিয়ে। সেই নাটকের একটি দৃশ্য ছিল স্বাধীন খসরুর। দৃশ্যটি হলো—খালি হাত, হাত মুঠি করে খুললে দেখা যাবে টাকা। দৃশ্য ধারণের আগে হুমায়ূন আহমেদ বেশ কয়েকবার দেখিয়েছিলেন সেই জাদু।

হুমায়ূনের খাবার
‘স্যার খুব অল্প খেতেন তবে খাবার ব্যাপারে ছিলেন খুবই রুচিশীল। হুমায়ূন আহমেদের প্রিয় খাবারের তালিকায় ছিল ইলিশ মাছ, শিং মাছ, চ্যাপা শুঁটকির ভর্তা, মাসকলাইয়ের ডাল, গরু ও খাসির গোস্ত। তিনি দুধ চা খেতেন।’ তবে ডায়াবেটিকস ধরা পড়ার পর চায়ে চিনি খেতেন কি না সে কথা মনে নেই ডা. এজাজের।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563529837767.jpgব্যক্তিগত সম্পর্ক
হুমায়ূন আহমেদ ডা. এজাজকে ডাক্তার বলে ডাকতেন। আর ডা. এজাজ হুমায়ূন আহমেদকে ডাকতেন স্যার বলে। নিজেদের সম্পর্কে বিষয়ে ডা. এজাজ বলেন, ‘স্যার আমাকে খুব বিশ্বাস করতেন, খুব মায়া করতেন, খুব ভালোবাসতেন। এতটাই বিশ্বাস করতেন যে, আমি শুটিং লোকেশন দেখে আসলে স্যার বলতেন ডাক্তার তোমার পছন্দ হয়েছে তো? আমি হ্যাঁ বললে তিনি লোকেশন না দেখতে যেয়ে বলতেন তোমার পছন্দ হয়েছে তাতেই হবে।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563529898483.jpgনুহাশ পল্লীর ব্যাপারে ডা. এজাজ জানালেন, ‘অদেখা ভুবন’-এর শুটিংয়ের জন্য বাসে করে যাচ্ছিলাম আমরা। স্যার সামনের দিকে বসা। আমাকে ডেকে বলছিলেন, ডাক্তার আমার একটা সুন্দর বাগানবাড়ির স্বপ্ন। অনেককে বলেছি, সবাই বলে স্যার দেখব। কিন্তু কেউ আসলে দেখে না। আমাকে বলেই যায় দেখব। পরে কেউ দেখে না। আমি শুধু তোমাকে দায়িত্ব দিলাম তুমি আমাকে একটা জায়গা দেখে দেবে। কাউকে কিচ্ছু বলার দরকার নাই। এ দায়িত্ব শুধুই তোমার। সেই ছবির শুটিং শেষ করার পর অনেক খোঁজাখুঁজি করে এখনকার নুহাশ পল্লীর জায়গাটা স্যারকে খুঁজে দেই। স্যার অত্যন্ত খুশি হয়েছিলেন। নুহাশ পল্লীর জায়গা দেখে আসার পর স্যার আমাকে বলেছিলেন, ডাক্তার আমার জীবনে অনেক বড় একটা স্বপ্ন তোমার মাধ্যমে আল্লাহ পাক পূরণ করে দিলেন। আরও বলছিলেন, তুমি কী চাও? আমি বলেছিলাম স্যার আমি আপনার সঙ্গে থাকতে চাই। হুমায়ূন আহমেদ একবার স্বপ্ন দেখেছিলেন কয়েকটি বাচ্চা কোলে নিয়ে তার সামনে কয়েকজন ঘুরছে। সেকথা বলেছিলেন ডা. এজাজকে। সেই থেকে এজাজের পরামর্শে প্রায়ই নিজের স্কুলে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প করতেন হুমায়ূন আহমেদ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র