Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

রাধারমণের গান নিয়ে চন্দনার ‘প্রাণবন্ধু বিহনে’

রাধারমণের গান নিয়ে চন্দনার ‘প্রাণবন্ধু বিহনে’
রাধারমণের গান নিয়ে চন্দনার ‘প্রাণবন্ধু বিহনে’, ছবি: সংগৃহীত
বিনোদন ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

‘সোনারও পালঙ্কের ঘরে, লিখে রেখে ছিলেম দ্বারে/যাও পাখি বলো তারে, সে যেন ভোলে না মোরে/সুখে থেকো, ভালো থেকো, মনে রেখো এ আমারে’- ‘মনপুরা’ ছবির এই গানের সুবাদে ঘরে ঘরে শ্রোতারা মনে রেখেছেন চন্দনা মজুমদারকে। এবার রাধারমণের গান নিয়ে অ্যালবাম সাজিয়েছেন তিনি। এর নাম রাখা হয়েছে ‘প্রাণবন্ধু বিহনে’।

চন্দনা মজুমদার নতুন সংগীতায়োজনে রাধারমণের ১০টি গান গেয়েছেন। এগুলো হলো- ‘জলে যাইয়ো না গো রাই’, ‘আমি কৃষ্ণ কোথায় পাই’, ‘শ্যাম তুমি আও না কেনে’, ‘আমার প্রাণ যায় প্রাণবন্ধু বিহনে’, ‘বিপদ ভঞ্জন মধুসূদন নামটি’, ‘এমন মায়ার কান্দন আর কাইন্দো না’, ‘শ্যাম দেও আনিয়া বৃন্দে’, ‘যাও রে ভ্রমর উড়িয়া’, ‘আমারে বন্ধুয়ার মনে নাই’ ও ‘ভ্রমর কইয়ো গিয়া’। যন্ত্রানুষঙ্গ পরিচালনা করেছেন কলকাতার দূর্বাদল চট্টোপাধ্যায়।

আষাঢ়ের প্রথম দিনে ১৫ জুন সন্ধ্যা ৭টায় অ্যালবামটির মোড়ক উন্মোচন করবেন সংগীত ব্যক্তিত্ব আকরামুল ইসলাম। রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ বেঙ্গল শিল্পালয়ে তিন দিনের অনুষ্ঠান ‘গানের ঝরনা তলায়’-এর সমাপনী সেদিন। এর আয়োজন করেছে বেঙ্গল ফাউন্ডেশন।

প্রথম দিন ১৩ জুন সন্ধ্যা ৭টায় রয়েছে বেঙ্গল পরম্পরা সংগীতালয়ের ছাত্রছাত্রীদের পরিবেশিত নিয়মিত শাস্ত্রীয়সংগীত আসর বৈঠক। এর পরদিন একই সময়ে ‘প্রাণের খেলা’য় রবীন্দ্রনাথের গান গেয়ে শোনাবেন ফাহিম হোসেন চৌধুরী, নূর-ই-রেজিয়া মম ও আদ্রিনা জামিলী।

এদিকে বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে সম্প্রতি ৩৭টি নতুন ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে।

সিলেটের জগন্নাথপুর উপজেলায় ১৮৩৩ সালে ২৫ মে রাধারমণ দত্তের জন্ম। ঐতিহ্যবাহী সিলেটি ধামাইল সংগীত সুরকার ও গীতিকার ছিলেন তিনি। ১৯১৫ সালে তার মৃত্যু হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

উজমা হবেন শ্রদ্ধা

উজমা হবেন শ্রদ্ধা
শ্রদ্ধা কাপুর ও উজমা আহমেদ

উজমা আহমেদকে যারা চেনেন না তাদের জন্য শুরুতেই একটা সত্যি ঘটনা বলা যাক। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে তাহির আলি নামে একজনের সঙ্গে তার পরিচয় হয়েছিলো। বন্ধুত্বের টানে তাহিরের সঙ্গে দেখা করতে পাকিস্তানের ইসলামাবাদ গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সেখানে গিয়ে বন্দুকের মুখে পড়তে হয় তাকে।

দিল্লির এই তরুণীর মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে জোরপূর্বক বিয়ে করেন তাহির। এমনকি উজমা যেনো কখনও দিল্লিতে ফিরতে না পারেন সেজন্য তার পাসপোর্টসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আটকে রেখেছিলেন তাহির। কিন্তু কোনো একভাবে পাকিস্তানি আদালতের শরণাপন্ন হন উজমা। পান সুবিচার।

রূপালি পর্দায় উজমা আহমেদের চরিত্র ফুটিয়ে তুলবেন বলিউড অভিনেত্রী শ্রদ্ধা কাপুর। ইতোমধ্যে তিনি কাজটি করতে সম্মতি জানিয়েছেন।

শিবম নায়ার পরিচালিত নাম চূড়ান্ত না হওয়া ছবিটিতে ভারতের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের চরিত্রটি রাখা হবে। তবে তার ভূমিকায় কে অভিনয় করবেন তা এখনও জানা যায়নি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/26/1561564688203.jpg
পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে উজমা আহমেদ

 

শ্রদ্ধা কাপুর এখন ‘সাহো’ ছবি নিয়ে ব্যস্ত। এতে তার সহশিল্পী হিসেবে দেখা যাবে ‘বাহুবলী’ তারকা প্রভাসকে। এছাড়া ৩২ বছর বয়সী এই অভিনেত্রীর হাতে আছে রেমো ডি’সুজার ‘স্ট্রিট ড্যান্সার থ্রিডি’ (বরুণ ধাওয়ান) ও নিতেশ তিওয়ারির ‘ছিচ্চোরে’ (সুশান্ত সিং রাজপুত)।

ভাইয়ের সঙ্গে ঝগড়ায় পুলিশ ডেকেছিলেন একতা

ভাইয়ের সঙ্গে ঝগড়ায় পুলিশ ডেকেছিলেন একতা
একতা কাপুর ও তুষার কাপুর

পরিবারের সঙ্গে তিরুপাতি ঘুরতে গিয়েছিলেন প্রযোজক একতা কাপুর। আর সেসময় কোনো এক কারণে ছোট ভাই তুষার কাপুরের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে পড়েছিলেন তিনি। দুই ভাই-বোনের ঝগড়া নাকি এতোটাই বেড়ে গিয়েছিল যে একতাকে বাধ্য হয়ে পুলিশ ডাকতে হয়েছিল।

সোনি এন্টারটেইনমেন্ট চ্যানেলে প্রচারিত কমেডি শো ‘দ্য কপিল শর্মা শো’-এর একটি পর্বের শুটিং করতে এসে এমনটা নিজে মুখেই স্বীকার করেছেন একতা কাপুর।

এ প্রসঙ্গে একতার ভাষ্য, ‘অন্যান্য ভাই-বোনদের মতো আমার ও তুষারের মাঝেও অনেক ঝগড়া হয়। আপনারা যেনে অবাক হবেন যে, একবার আমরা পরিবারের সবাই মিলে তিরুপাতি গিয়েছিলাম। সেখানে কোনো এক কারণে তুষারের সঙ্গে আমার অনেক ঝগড়া হয়। এমনকি ও আমার নাকে ঘুষিও মেরেছিল সেসময়। পরে আমি পুলিশকে ফোন দেই।’
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/26/1561559452507.jpgযোগ করে একতা আরও বলেন- যদি কখনও কোনো ফ্যামিলি ট্রিপ হয় তাহলে এই দুই ভাই-বোন এক গাড়িতে চড়েন না। ঝগড়া এড়ানোর জন্য নাকি তারা এমনটা করে থাকেন।

এদিকে, তুষার কাপুর বলেন- ‘আমরা যখন একসঙ্গে স্কুলে যেতাম তখনও আমাদের মাঝে অনেক লড়াই হতো। একে অপরের শার্টের বোতাম ছিড়ে ফেলতাম।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র