Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

সুবীর নন্দীর শেষকৃত্য সম্পন্ন

সুবীর নন্দীর শেষকৃত্য সম্পন্ন
ছবি: সুমন শেখ/ বার্তা২৪.কম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দীর মরদেহের প্রতি সর্বস্তরের মানুষের পুষ্পার্ঘ্য নিবেদনের পর তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে।

বুধবার (৮ মে) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে রাজধানীর সবুজবাগ বরদেশ্বরী কালিমাতা মন্দির প্রাঙ্গণের শ্মশানে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সুবীর নন্দীর পরিবারের সদস্য, কণ্ঠশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ, এন্ড্রু কিশোরসহ প্রমুখ।

সুবীর নন্দী দীর্ঘ পাঁচ দশক সংগীত জগতে তার সুরের মূর্ছনায় লখো ভক্তের মনে স্থান করে নিয়েছে। ভক্তদের উপহার দিয়েছেন আড়াই হাজারের বেশি গান।

মঙ্গলবার (৭ মে) সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান ‘একুশে পদক’ জয়ী এই শিল্পী।

বুধবার (৮ মে) সকালে তার মরদেহ ঢাকায় এসে পৌঁছায়। পরে সকাল ১১টায় তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। যেখানে বরেণ্য এই শিল্পীর প্রতি শেষ বারের মতো শ্রদ্ধা জানিয়ে ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করে সর্বস্তরের মানুষ।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সুবীর নন্দীর মরদেহ শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য নেওয়া হয় এফডিসিতে।

গত ১৪ এপ্রিল রাতে সিলেট থেকে ঢাকায় ফেরার পথে ট্রেনে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন সুবীর নন্দী। এরপরই তাকে ঢাকার সিএমএইচে নেওয়া হয়। সিএমএইচের জরুরি বিভাগে থাকাকালীন হার্ট অ্যাটাক করেন তিনি। পরে তাকে লাইফ সাপোর্ট দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ৩০ এপ্রিল সিঙ্গাপুর নেওয়া হয় একুশে পদকপ্রাপ্ত এই শিল্পীকে। সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের এমআইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

১৯৫৩ সালের ১৯ নভেম্বর হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার নন্দীপাড়ায় সুবীর নন্দীর জন্ম। তিনি সিলেট বেতারে প্রথম গান করেন ১৯৬৭ সালে। এরপর ঢাকা রেডিওতে সুযোগ পান ১৯৭০ সালে। রেডিওতে তার প্রথম গান ‘যদি কেউ ধূপ জ্বেলে দেয়’।

বেতার থেকে টেলিভিশন, তারপর চলচ্চিত্রে গান গেয়েছেন সুবীর নন্দী। ১৯৮১ সালে তার প্রথম একক অ্যালবাম ‘সুবীর নন্দীর গান’ প্রকাশিত হয়। চলচ্চিত্রে তিনি প্রথম গান করেন ১৯৭৬ সালে ‘সূর্যগ্রহণ’ চলচ্চিত্রে। ১৯৭৮ সালে মুক্তি পায় আজিজুর রহমানের ছবি ‘অশিক্ষিত’। এ সিনেমায় সাবিনা ইয়াসমিন আর সুবীর নন্দীর কণ্ঠে ‘মাস্টার সাব আমি নাম দস্তখত শিখতে চাই’ গানটি তুমুল জনপ্রিয়তা পায়।

আপনার মতামত লিখুন :

অমিতাভের লিভারের ৭৫ শতাংশ অকেজো!

অমিতাভের লিভারের ৭৫ শতাংশ অকেজো!
অমিতাভ বচ্চন

‘আমি যক্ষ্মা ও হেপাটাইটিস বি রোগে আক্রান্ত হয়েছিলাম। তবুও বেঁচে রয়েছি। এমনকি এখন আমার লিভারের ৭৫ শতাংশ প্রায় অকেজো হয়ে গিয়েছে। ২০ বছর ধরে লিভারের মাত্র ২৫ শতাংশের উপর ভরসা করেই বেঁচে রয়েছি।’ সম্প্রতি এক স্বাস্থ্য সচেতনতামূলক প্রচার অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে এমনটাই জানিয়েছেন বলিউডের কিংবদন্তি অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন।

বিগ বি আরও বলেন, ২০০৮ সালে যক্ষ্মা রোগের চিকিৎসা হয়েছিল তাঁর। কিন্তু অমিতাভ জানতেনই না যে তার আরও ৮ বছর আগে থেকে সেই রোগ তাঁর শরীরে বাসা বেঁধেছিল। তাই কোনও শারীরিক সমস্যায় ভুগতে থাকলে সেটিকে অবহেলা না করে যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন ৭৬ বছর বয়সী এই অভিনেতা।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566486107630.jpg

অমিতাভ বচ্চন দীর্ঘদিন ধরেই বিভিন্ন স্বাস্থ্যমূলক সচেতনতার সরকারি প্রচারের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। পোলিও, যক্ষ্মা, হেপাটাইটিস এবং ডায়াবেটিস সংক্রান্ত সচেতনতামূলক বিজ্ঞাপনের জনপ্রিয় মুখ তিনি।

সবশেষ যশরাজ ফিল্মস প্রযোজিত ‘থাগস অব হিন্দোস্তান’ ছবিতে দেখা গেছে অমিতাভ বচ্চনকে। কিন্তু বক্স অফিসে সফলতার মুখ দেখেনি ছবিটি।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566486121425.jpg

বর্তমানে অয়ন মুখার্জী পরিচালিত ‘ব্রক্ষ্মাস্ত্র’ ছবির কাজ করছেন তিনি। এতে তার সহশিল্পী হিসেবে দেখা যাবে রণবীর কাপুর, আলিয়া ভাট ও দক্ষিণী তারকা নাগার্জুনাকে। এছাড়া ‘গুলাবো সিতাবো’ নামের একটি ছবির শুটিং করছেন তিনি।

নিশোর ক্যামেরায় অর্ষার অপ্রস্তুত ছবি!

নিশোর ক্যামেরায় অর্ষার অপ্রস্তুত ছবি!
‘পাপারাজ্জি’ নাটকের পোস্টার, ছবি: সংগৃহীত

রবি মফস্বলের খেয়ালী ফটোগ্রাফার। তার এলাকায় শুটিং করতে আসে একটি সিনেমার টিম। সেই সিনেমার নায়িকা নিরার ছবি লুকিয়ে তুলে ফেলে রবি।

রবি নায়িকার এমন কিছু অপ্রস্তুত মুহূর্তের ছবি তুলে ফেলে, যা নায়িকার নিজের ভিতরের একটা অস্বাভাবিক দিক তুলে ধরে। নায়িকা ভাবে আমি পর্দায় দর্শককে যে জীবন দেখাই সে জীবন আমার না। রবির তোলা ছবির মাধ্যমে নায়িকার এই মেকি জীবনে পরিবর্তন আসে।

এমনই গল্পে নির্মিত হয়েছে টেলিফিল্ম ‘পাপারাজ্জি’। নির্মাণ করেছেন তরুণ নির্মাতা মাহমুদ দিদার। গল্পটিও তার লেখা। টেলিফিল্মটিতে রবি চরিত্রে অভিনয় করেছেন আফরান নিশো এবং নিরা চরিত্রে আছেন নাজিয়া হক অর্ষা। এছাড়াও এর বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন মামুনুর রশিদ, শম্পা রেজা ও নিয়াজ মোর্শেদ প্রমুখ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566475862881.jpg

‘পাপারাজ্জি’ টেলিফিল্মটির ডিজিটাল স্বত্ব রয়েছে দেশের অন্যতম অডিও-ভিডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জি সিরিজের কাছে। প্রতিষ্ঠানটির ইউটিউব চ্যানেলে আগামী সপ্তাহে টেলিফিল্মটি প্রকাশিত হবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র