Barta24

বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬

English

গুজব মন্ত্রী গোয়েবলস

গুজব মন্ত্রী গোয়েবলস
হিটলার এবং গোয়েবলস
তানিম কায়সার
কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট


  • Font increase
  • Font Decrease

গুজব শব্দটার সাথে আমরা সবাই কমবেশি পরিচিত। সাম্প্রতিক সময়ে আমাদের দেশে নানা কারণে নানা প্রকারের গুজব ছড়ানো হয়েছে। আর এসব কিছুই ব্যবহার করা হয়েছে কোনো বিশেষ দলের বা মহলের নিজস্ব স্বার্থসিদ্ধির জন্য। কখনো কাউকে চাঁদে দেখতে যাওয়ার গুজব আবার কারো মৃত্যুর গুজব ছড়িয়ে একটা মহল তার স্বার্থসিদ্ধি করতে চেয়েছে সবসময়। আবার কখনো সত্য ঘটনাকে গুজব বলে গুজব ছড়িয়েছে কেউ কেউ। কিন্তু এই গুজব ছড়ানোতে যেই ব্যক্তি সবচেয়ে ওস্তাদ ছিলেন তার নাম গোয়েবলস। যিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় হিটলারের হয়ে নানা প্রকার গুজব ছড়ানোর দায়িত্বে ছিলেন।

‘এটি গোয়েবলসীয় মিথ্যা’ কিংবা ‘এটি গোয়েবলসীয় মিথ্যাকেও হার মানাবে’—এমন একটা কথা আমরা প্রায়ই লোকমুখে বা বই পুস্তকে শুনে থাকি। প্রশ্ন আসতে পারে কে এই গোয়েবলস? অবাক হলেও সত্যি তিনি ছিলেন একজন “গুজব পরিচালনা” মন্ত্রী। আর তাকে এই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দিয়েছিলেন ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়ংকর ঘাতক এডলফ হিটলার। বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন “মিনিস্ট্রি অব পাবলিক এনলাইটেনমেন্ট এন্ড প্রোপাগান্ডা” নামে একটি আলাদা বিভাগ তৈরি করেন হিটলার। আর এই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থাকে গোয়েবলসের ওপর।

পল জোসেফ গোবলসের জন্ম ২৯ অক্টোবর ১৮৯৭ সালে জার্মানির রিদত শহরে। ১৯২১ সালে তিনি হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি অর্জন করেন। পরবর্তী সময়ে সাংবাদিক হিসেবেও কাজ করেন। এছাড়া ব্যাংকের করণিক পদেও দায়িত্ব পালন করেন। বাল্যকাল থেকেই তিনি একজন লেখক হতে চাইতেন। তার লেখার হাতও ছিল চমৎকার। যে কোনো সধারণ বিষয়কে মাখন লাগিয়ে খুবই সুস্বাদু করে উপস্থাপন করতে পারতেন। রস, রঙহীন যে কোনো বিষয়কে তিনি তার দক্ষতা এবং সৃজনশীলতা দিয়ে রাঙিয়ে দিতে পারতেন। উপন্যাস এবং বেশ কয়েকটি নাটকও রচনা করেছিলেন তিনি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563264828462.jpg
সন্তানদের সঙ্গে গোয়েবলস ◢

 

প্রোপাগান্ডা বা গুজব শব্দটি শুরুতে একটি ইতিবাচক শব্দ ছিল। কিন্তু প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্রিটিশরা পরিকল্পিতভাবে তাদের সেনা এবং জনগণের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের প্রেষণা যোগানোর জন্যে এর ব্যবহার শুরু করে। এডলফ হিটলারও বুঝতে পেরেছিলেন প্রথম বিশ্বযুদ্ধে জার্মানদের এমন পরাজয়ের কারণ আর কিছু নয় বরং ব্রিটিশদের এমন গুজব ছড়ানো। তাই হিটলার আলাদা মন্ত্রণালয় খোলেন এই প্রোপাগান্ডা রুখতে। নাম দেন “মিনিস্ট্রি অব পাবলিক এনলাইটেনমেন্ট এন্ড প্রোপাগান্ডা”। আর এর প্রধান করেন তার সরকারের সাবেক তথ্যমন্ত্রী “দ্য লিটল ডক্টর” নামে পরিচিত গোয়েবলসকে, যিনি প্রোপাগান্ডা শব্দটিকে নিয়ে গিয়েছিলেন অনন্য উচ্চতায়। আর তাই এখনো পৃথিবীজুড়ে প্রোপাগান্ডা ছড়ানোর ক্ষেত্রে ব্যাপক জনপ্রিয় “গোয়েবলসীয় কায়দা”।

তিলকে তাল বানানোতে ওস্তাদ এই ব্যক্তি ছোটবেলা থেকেই দুর্বল স্বাস্থ্যের অধিকারী ছিলেন। তার ডান পা ছিল বাম পা অপেক্ষা মোটা এবং ছোট। আর এই শারীরিক অক্ষমতার জন্য প্রথম বিশ্বযুদ্ধে তিনি সামরিক বাহিনীতে যোগ দিতে পারেননি। কিন্তু তিনি সেই দুর্বলতা দূর করেছিলেন তার তুখোড় ভাষণ ও লেখনী শক্তি দ্বারা।

১৯২২ সালে অ্যাডলফ হিটলারের বক্তৃতা শুনেই তার জীবনের ধারা পাল্টে যায়। যোগ দেন হিটলারের ন্যাশনাল সোশ্যালিস্ট জার্মান ওয়ার্কার্স পার্টিতে (নাৎসি পার্টি)। যোগদান করেই শুরু করেন তার ম্যাজিক দেখানো। যা কস্মিনকালেও ঘটার সম্ভাবনা নেই, এমন ঘটনা ঘটেছে রব তুলতে তার জুড়ি ছিল না। বাচনশৈলি ও অন্যান্য যোগ্যতা দিয়ে সামান্য একটা বিষয়কে তিল থেকে তাল বানিয়ে ফেলতেন তিনি। আর তা করতেন অত্যন্ত গোপনভাবে। বিষয়গুলো এতই গোপন থাকত যে তার একান্ত সচিবও এসব জানতেন না। গোয়েবলসের সচিব হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করা ব্রুনহিল্ড পমসেল এক সাক্ষাৎকারে বলেন, আমি জানি, এখন আমাদের আর কেউ বিশ্বাস করে না। সবাই মনে করে আমরা সব গুজবের ব্যাপারে জানতাম। আসলে তা না। আমরা কিছুই জানতাম না। সবকিছুই আমাদের থেকে গোপন রাখা হতো।

এখনকার এই ইন্টারনেটের যুগে গুজব ছড়ানো কোনো কঠিন বিষয় না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে মুহূর্তেই তিলকে তাল বানিয়ে পৌঁছে দেওয়া যায় হাজার হাজার মানুষের কাছে। কিন্তু তখন এত সহজ ছিল না। তাই হিটলার আর গোয়েবলস মিলে আঁটলেন এক বিশাল ফন্দি। তারা সবাইকে বিনামূল্যে রেডিও উপহার দিতে শুরু করেন। আর তার পরেই শুরু হয় আসল খেলা। রেডিওতে গুজবের বেসাতি ছড়িয়ে প্রতিপক্ষকে ধোঁকা দেওয়া আর স্বজাতির মনে সরকারের আনুগত্য সৃষ্টি করার লক্ষ্য নিয়ে নিত্য নতুন গল্প বানাতে থাকেন তিনি। এভাবেই ক্রমান্বয়ে হিটলারের একজন বিশ্বস্ত সহযোগীতে পরিণত হন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563264583854.jpg
ফ্রি রেডিও বিতরণ ◢

 

হিটলার ছিলেন প্রতিশোধের নেশায় মত্ত। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে হেরে গিয়ে তখনকার পরাশক্তি ফ্রান্স আর ইংল্যান্ডের কাছে এই মর্মে নাকে খত দিয়েছে যে তারা আর যুদ্ধ করবে না। এখন থেকে শান্তির পথে চলবে তারা। এই অপমান সইতে পারেননি হিটলার। হিটলার এবং গোয়েবলস দুজনেই বিশ্বাস করতেন, ভালো এবং সময়োপযোগী একটি স্ক্রিপ্ট এবং একটি দৃষ্টিনন্দন ছবি যে কোনো আদর্শ প্রচারের জন্য সবচেয়ে শক্তিশালী মাধ্যম। কেননা ব্রিটিশরা এই অস্ত্র ব্যবহার করেই হারিয়ে দিয়েছিল জারমানদের। মূলত এ কারণেই, প্রোপাগান্ডাকে তারা প্রধান হাতিয়ার হিসেবে বেছে নেন। গোয়েবলস বিশ্বাস করতেন, শুধুমাত্র হিটলারের মেধাবী এবং অতুলনীয় নেতৃত্বের মাধ্যমেই জার্মানির হারানো ঐতিহ্য ফিরে পাওয়া সম্ভব।

গোয়েবলস তার লেখাগুলো জনসম্মুখে পৌঁছে দেওয়ার জন্যে নানা রকম উপায় ব্যবহার করতেন। এরমধ্যে অন্যতম হলো বিশাল জনসমাবেশ করা। তার অসাধারণ লেখনিগুলো পৌঁছে দেওয়ার জন্য সেই বিশাল সমাবেশের আয়োজনও করা হতো বিশালভাবে। নানা রকম আতশবাজি, প্যারেড, জাতীয় সঙ্গীতের সাথে থাকত ব্যাপক আলোকসজ্জা, আর বাহারি রঙের পোস্টার। ক্যামেরা এবং মাইক্রোফোন এমন জায়গায় স্থাপন করা হতো যাতে হিটলার এবং তার ভাষণ দেশের প্রতিটা মানুষের কানে পৌঁছে যেতে পারে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563264655343.jpg
নাৎসি পার্টির বিশাল সমাবেশের একটি চিত্র ◢

 

তার সবচেয়ে বড় প্রপাগান্ডা ছিল হিটলারকে সকল জার্মানবাসীদের কাছে একজন ত্রাণকর্তা হিসেবে পৌঁছে দেওয়া। আর তাই তিনি হিটলারের নামে এমন সব স্তুতি গাইতেন যেগুলো শুনতে সত্যের মতোই মনে হতো। গুয়েবলসের একটি বিখ্যাত উক্তি ছিল, “আপনি যদি একটি বিশাল মিথ্যা বলেন এবং সেটা বারবার সবার সামনে বলতে থাকেন, তাহলে মানুষজন একসময় সেটা বিশ্বাস করতে শুরু করবে।” আর তাই তিনি বারবার বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সমাবেশে হিটলার এবং জার্মান বাহিনীকে নিয়ে নানা মিথ্যা গুজব ছড়াতেন যেগুলাতে হিটলারকে একজন কিংবদন্তি এবং জার্মান বাহিনীকে যুদ্ধে অবশ্যই বিজয়ী বলে মনে হতো সকলের।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে হিটলার প্রায় ষাট লক্ষ ইহুদি নিধন করেন। যেটাকে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় গণহত্যা বলে আখ্যা দেওয়া হয়। সেই ইহুদি হত্যার জন্য কিন্তু জার্মানরা হিটলারকে নিয়ে কোনো প্রশ্ন তোলেনি। তার পেছনেও ছিল এই গোয়েবসের প্রপাগান্ডা। ১৯২৪ সালের ৪ জুলাই তিনি লেখেন, “জার্মানিতে এখন একজন শক্ত মানুষের দরকার। জার্মানিকে নিয়ে সব রকমের নিন্দা আর অন্যায় পরীক্ষা-নিরীক্ষার শেষ হওয়া দরকার। আমাদের এখন সর্বস্ব উজাড় করে কাজ শুরু করতে হবে। এই ইহুদিদের আমরা চাই না। কারণ তারা কখনো সত্যিকার জার্মান নয়। ওদের কঠিন শাস্তি দেওয়া দরকার। এরা কেবল সমস্যাই তৈরি করছেন।” তিনি হিটলারের গুণগান গেয়ে বলেন, “দারুণ খরায় পৃথিবী যেমন হাহাকার করে বৃষ্টির জন্য, তেমনি জার্মানিও এখন এমন এক মানুষের জন্য হাহাকার করছে যে তাদেরকে এই দৈন্যদশা থেকে উদ্ধার করবে। আর তিনি অন্য কেউ নন, তিনি আমাদের মহামতি স্যার এডলফ হিটলার।” এরপরেই মেরে ফেলা হয় লাখো ইহুদিকে, বিনা প্রশ্নে, বিনা বাধায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563264965543.jpg

গোয়েবলস এবং তার পরিবার ◢

 

তার এসব প্রপাগান্ডার ফলে জার্মানরা ধীরে ধীরে বিশ্বাস করতে শুরু করে একমাত্র হিটলার পারেন জার্মানের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে। কিন্তু গোয়েবলস জানতেন, তারা যদি পরাজিত হন তবে বিশ্ববাসী তাদের আর কখনো এমন চোখে দেখবে না। তাই তিনি বলেন, “আমরা ইতিহাসে ঠাঁই পাব হয় সর্বশ্রেষ্ঠ রাষ্ট্র অধিনায়ক অথবা সর্বশ্রেষ্ঠ অপরাধী হিসেবে।”

হিটলারকে প্রচণ্ড রকম ভালোবাসতেন তিনি। “সত্য কোনো রাষ্ট্রের জন্য সর্বশ্রেষ্ঠ শত্রু” বিবেচনা করা এই লোক মারা যান হিটলারের মৃত্যুর ঠিক পরের দিন। পরাজয় নিশ্চিত জেনে অবশেষে ১৯৪৫ সালের এপ্রিলে হিটলার সস্ত্রীক আত্মহত্যা করেন। ঠিক তার পরের দিনই ১ মে গোয়েবলস তার মেয়ের জন্মদিনে প্রথমে তার ছয় সন্তান এবং স্ত্রীকে হত্যা করেন। পরে নিজেও তার প্রিয় নেতা হিটলারের পন্থা অবলম্বন করে আত্মহত্যা করেন।

গোয়েবলস সম্পর্কে তার সচিব পমসেল বলেন, দেখতে খাটো এই লোকটি ছিলেন প্রচুর ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন। দামি কাপড়ের স্যুট পরতেন, নখের যত্ন নিতেন, ভাষায় ছিলেন খুবই মার্জিত এবং পরিমিত। কে জানত এমন গোছালো একটা ভালো মানুষের আড়ালে এমন একজন ভয়ানক ব্যক্তি ঘাপটি মেরে বসে আছে!

আপনার মতামত লিখুন :

সরোজিনীর মহাত্মা গান্ধীকে ‘মিকি মাউস’ ডাকার ইতিহাস

সরোজিনীর মহাত্মা গান্ধীকে ‘মিকি মাউস’ ডাকার ইতিহাস
গ্রাফিক : বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

সরোজিনী নাইডু মাহাত্মা গান্ধীকে ‘মিকি মাউস’ বলে ডাকতেন। অর্থাৎ গান্ধীজির সঙ্গে সরোজিনীর ছিল গভীর অন্তরঙ্গতা। কিন্তু কী ছিল সেই অন্তরঙ্গতার অন্তর্সূত্র? ছিল হলো—তারা দুইজনই ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের দুই মূল হোতা। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে প্রায়োগিকভাবে ভারতবর্ষের নারীদের মধ্যে সবচাইতে অগ্রবর্তী ভূমিকা রেখেছিলেন সরোজিনী নাইডু।

এই রেডিকেল সত্তার বাইরেও সরোজিনী নাইডুর অন্য আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ পরিচয় ছিল। তিনি ছিলেন কবি। পৃথিবীবিখ্যাত তার কয়েকটি কাব্যগ্রন্থ রয়েছে।

এই ফিচারটি লেখা হচ্ছে সরোজিনীর জীবন কিংবা পরিচয়কে উদ্দেশ্য করেই, তবে খুব সংক্ষিপ্তভাবে—

এক.
ছোটবেলা থেকেই সরোজিনী নাইডু ছিলেন অত্যন্ত রকম মেধার অধিকারী। একই সঙ্গে বেশ কয়েকটি ভাষা তিনি রপ্ত করে নিয়েছিলেন খুব অল্প বয়সে। বাংলা আর ইংরেজি ছাড়াও তিনি শিখেছিলেন ঊর্দু, ফারসি এবং তেলেগু ভাষা। মাত্র বারো বছর বয়সে সরোজিনী মাদ্রাজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে মেট্রিক পরীক্ষা পাশ করার সময়ে প্রথম স্থান অধিকার করেছিলেন।

স্বভাবতই সরোজিনীকে নিয়ে তার বাবা অনেক স্বপ্ন দেখতেন। তার প্রধান স্বপ্ন ছিল, তিনি চাইতেন তার মেয়ে গণিতজ্ঞ বা বিজ্ঞানী হবেন। পক্ষান্তরে সরোজিনীর স্বপ্ন তার বাবার চিন্তা অনুযায়ী ছিল না। সেই বয়সেই তার মধ্যে সাহিত্যের আকুতি লক্ষ করা গিয়েছিল। অ্যালজেবরা করার খাতাতেই তিনি কবিতা লিখতে শুরু করেছিলেন।

এরকমভাবে লিখতেই লিখতেই হঠাৎ একদিন দেখা গেল সরোজিনী নাইডু ১৩০০ লাইনের এক বিশাল কবিতা লিখে ফেলেছেন। ইংরেজি ভাষায়। কবিতাটির শিরোনাম ছিল ‘দ্য লেডি অব দ্য লেক’। সরোজিনীর বাবা কবিতাটি পড়ে বিস্মিত হয়ে পড়েছিলেন। তৎক্ষণাৎ তার চিন্তাও পাল্টে গিয়েছিল। গণিত কিংবা বিজ্ঞানের বিষয়ে ভাবনা বাদ দিয়ে তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন মেয়েকে কবিতা এবং লেখালেখির বিষয়েই উৎসাহ দেবেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566386933772.jpg
◤ পারিবারিক মধ্যাহ্নভোজে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোস ও সরোজিনী নাইডু


পিতার উৎসাহ সরোজিনীকে গভীর শক্তি প্রদান করেছিল। সেইসূত্রেই, কয়েকদিনের মধ্যে তিনি ফরাসি ভাষায় একটি নাটক রচনা করে ফেললেন, নাটকটির নাম ছিল ‘মাহের মুনির’। নাটকটি পড়ে তারা বাবা আবারও অভিভূত হয়ে পড়লেন এবং সেটি নিজের সহকর্মীকে পড়তে দিলেন। যাদের মধ্যে নিজাম নামক তার এক বন্ধুও ছিলেন, যিনি ১৫ বছর বয়সী একজন মেয়ের লেখা এই নাটক পড়ে চূড়ান্তরকমের অবাক হয়ে গিয়েছিলেন। তিনিই সরোজিনীকে ইংল্যান্ডে পড়তে পাঠানোর জন্য পরামর্শ দেন।

বাবার বন্ধু নিজামের পরামর্শের সূত্রেই সরোজিনী নাইডু ১৬ বছর বয়সে ইংল্যান্ডে পাড়ি জমান।

দুই.
তিনি প্রথমে লন্ডনের কিংস কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন। কলেজের পড়াশোনা শেষে তিনি কেমব্রিজে পড়তে যান। আর কেমব্রিজেই তার সঙ্গে অনেক বিখ্যাত ইংলিশ কবি-সাহিত্যিকদের পরিচয় হয়।

সেইসব কবি-সাহিত্যিকদের মধ্যে তার বিশেষ সখ্য হয়েছিল দুইজনের সঙ্গে, একজন ছিলেন আর্থার সিমন আর অন্যজন ছিলেন এডমন্ড গস। মূলত এডমন্ড গসই সরোজিনীকে এই পরামর্শ দেন, ইংরেজি ভাষায় সাহিত্য রচনা করলেও তিনি যেন নিজের দেশকে এবং দেশের সংস্কৃতিকে অস্বীকার বা অগ্রাহ্য না করেন। এডমন্ড গসের এই পরামর্শ সরোজিনী গভীরভাবে গ্রহণ করেছিলেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566387371429.jpg
◤ সরোজিনী নাইডুর ব্রিটিশ কবিবন্ধু এডমন্ড গস ◢


এই ভারতীয় প্রেক্ষাপটকে কেন্দ্র করেই তিনি পরবর্তী সময়ে প্রচুর কবিতা লিখেছিলেন। যেসব দিয়ে তিনি তিনটি বইও বের করেন। বই তিনটি তৎকালীন ইংল্যান্ড এবং ভারত উভয় জায়গাতেই বিস্তর আলোড়ন তৈরি করেছিল।

ইংল্যান্ডে থাকাকালে সরোজিনী একজন ভারতীয় ডাক্তারের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে আবদ্ধ হন। সেই ডাক্তারের নাম ছিল গোবিন্দরাজুলু নাইডু। যেহেতু সরোজিনী ছিলেন ব্রাহ্মণ আর গোবিন্দরাজুলু ছিলেন অব্রাহ্মণ, ফলত এই সম্পর্ক নিয়ে সরোজিনীর বাবার আপত্তি থাকবার কথা ছিল, কিন্তু সেরকম কিছু দেখা গেল না।

গোবিন্দের সঙ্গে সরোজিনীর যখন সম্পর্ক হয়েছিল তখন তার বয়স ছিল ১৭ বছর। আর যখন তার বিবাহ সম্প্ন হলো তখন বয়স ১৯ বছর, অর্থাৎ সরোজিনী পড়াশোনা শেষ করবার সঙ্গে-সঙ্গেই গোবিন্দের সঙ্গে বিবাহ সম্পন্ন করে নিয়েছিলেন। তৎকালে অসবর্ণ বিবাহ নামের একটা বিষয় সমাজে নিষিদ্ধ ছিল। কাজেই কুলীন ব্রাহ্মণ পরিবারের মেয়ে সরোজিনীর সঙ্গে অব্রাহ্মণ পরিবারের ছেলে গোবিন্দের এই বিবাহ একটি সামাজিক রীতিবিরুদ্ধ ঘটনা ছিল।

সরোজিনী আর গোবিন্দের সংসারে চারজন সন্তান এসেছিলেন। জয়সুর, পদ্মজা, রণধীর, এবং লীলামণি। এদের মধ্যে পদ্মজা পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল হয়েছিলেন।

তিন.
পি বি শেলি নামের এক কবি ছিলেন সরোজিনী নাইডুর প্রিয়। যিনি শুধু কবিই ছিলেন না, ছিলেন একই সঙ্গে বাগ্নী বা বক্তাও। বলা যেতে পারে, পি বি শেলির এই প্রভাব সরোজিনীর মধ্যেও পড়েছিল। তার মধ্যেও বাগ্মিতা, বা রাজনৈতিক পক্ষালম্বন, বা সরাসরি রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে যাবার মতো বিষয়গুলো ধীরে ধীরে লক্ষ করা গিয়েছিল। সম্ভবত সরোজিনীই একমাত্র নারী, যিনি একাধারে ছিলেন কবি এবং রাজনীতিবিদ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566386876725.jpg
◤ সরোজিনী নাইডুর প্রিয় কবি ও ব্যক্তিত্ব পি বি শেলি ◢


সরোজিনীর সাহিত্যজীবনে ২৫ বছরের ব্যাপ্তি থাকলেও সেই তুলনায় তার বইয়ের সংখ্যা খুবই কম, মাত্র তিনটি। তার প্রথম কাব্যগ্রন্থের নাম ‘দ্য গোল্ডেন থ্রেশল্ড’। বইটি ১৯০৫ সালে লন্ডন থেকে প্রকাশিত হয়েছিল। তার দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ ‘দ্য বার্ড অব টাইম’, এটি প্রকাশ হয় ১৯১২ সালে। অন্য বইটির নাম ‘দ্য ব্রোকেন উইং’। এটির প্রকাশ-সন ১৯১৭। অবশ্য ‘দ্য ফেদার অব দ্য ডাউন বার্ডস অব টাইম’ নামেও তার একটি সংকলিত কবিতার বই রয়েছে।

সরোজিনী নাইডুই সেই বিরলজ বাঙালি কবি, যার সব রচনাই ছিল ইংরেজি ভাষাতে। আসলে নাইডুর খ্যাতির আরম্ভটুকু ইংরেজি ভাষার বদৌলতে এসেছিল, এরকম বলা যায়। ইংল্যান্ডে তার বইগুলোর একাধিক সংস্করণ সেই বার্তাই ধারণ করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566386191820.jpg
◤ সরোজিনী নাইডুর বইয়ের প্রচ্ছদ ◢


সরোজিনীর বেশ কয়েকটি কবিতা বিপুলভাবে চর্চিত, বা প্রসিদ্ধ। এসবের মধ্যে রয়েছে ‘ওয়ান্ডারিং সং’, ‘ভিলেজ সং’, ‘ক্রাডেল সং’সহ আরো অনেক কবিতা। এই কবিতাগুলোই পরবর্তীকালে যথাক্রমে ‘চারণ’, পল্লিগীত’ বা ‘ঘুমাপাড়ানির গান’ নামে অনূদিত হয়ে হয়ে বাংলাভাষাভাষিদের কাছেও বিপুল জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। যারা সরোজিনীর কবিতা অনুবাদ করেছেন তাদের মধ্যে আছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর।

চার.
সরোজিনীর এই কবি-পরিচয়ের পাশাপাশি তিনি ছিলেন সর্বভারতীয় কংগ্রেসের একজন প্রথম সারির নেত্রী। একজন সৎ ও সচেতন রাজনীতিবিদ হিসেবে তিনি প্রখ্যাত ছিলেন। ১৯২৪ সালে সরোজিনী কংগ্রেসের বার্ষিক অধিবেশনে সভানেত্রী হওয়ার বিরল সম্মাননা অর্জন করেছিলেন।

ভারতবর্ষের ইতিহাসে তিনিই প্রথম মহিলা, যিনি কোনো একটি বৃহৎ রাজনৈতিক দলের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। এমনকি তিনি দেশভাগের পরে উত্তর প্রদেশের গভর্নর পদেও নিযুক্ত হয়েছিলেন।

মূলত বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনকে কেন্দ্র করেই সরোজিনী নাইডু রাজনীতির মাঠে এসেছিলেন, ১৯০৫ সালে। এই আন্দোলন ছিল স্বাধীনতারই আন্দোলন। এই সময় থেকেই মূলত তিনি অন্যান্য রাজনীতিবিদ ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সঙ্গে সরাসরি পরিচিত হন। তাদের মধ্যে রয়েছেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, জওহরলাল নেহরু, মহাত্মা গান্ধী, গোপালকৃষ্ণ গোখলে, মুহাম্মদ আলি জিন্না, অ্যানি বেসান্ত, রামস্বামী আইয়ার প্রমুখ।

পাঁচ.
১৯১৫ সাল থেকে ১৯১৮ সাল পর্যন্ত সরোজিনী নানান বিষয়ে বিপ্লবী বক্তৃতা প্রদান করছিলেন ভারতের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে। এই সময়েই তার সঙ্গে জওহারলাল নেহরুর পরিচয় ঘটে। এই পরিচয়ের সূত্রে তিনি চম্পাচরণে নীলচাষীদের হয়ে আন্দোলন শুরু করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566386594363.jpg
◤ আন্দোলনের একই মঞ্চে নেহরুসহ সরোজিনী নাইডু ◢


১৯১৯ সালে ব্রিটিশ সরকার রাওলাট আইন নামে একটি আইন করেছিল। এই আইনের মাধ্যমে সকল রাজদ্রোহমূলক লেখাপত্র নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। তখন মহাত্মা গান্ধী এই আইনের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলনের আরম্ভ করলে সরোজিনী সেখানেও যোগদান করেন।

তিনি ভারতের নারীদের ভোটাধিকার অর্জনের দাবিসহ আরো অন্যান্য অনেকগুলো দাবি নিয়ে ইংল্যান্ডে যাত্রা করেন সেই বছরই। সেইসূত্রে ১৯২০ সালে ভারতের নারীরা ভোটাধিকার পেতে শুরু করে। প্রথমে পেয়েছিল কেরালার নারীরা, তারপরে একসময়ে বাংলার নারীরাও।

১৯২৮ সালে তিনি নিউইয়র্ক যান। সেসময় তিনি যুক্তরাষ্ট্র সরকারেরও সমালোচনা করেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক আফ্রিকান এবং ইন্ডিয়ানদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণের তিনি নিন্দা জানিয়েছিলেন। নিউইয়র্ক থেকে দেশে ফিরবার পরে তিনি কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য হন।

ছয়.
১৯৩০ সালে কংগ্রেস কর্তৃক ব্রিটিশ সরকারের সাম্রাজ্য থেকে স্বাধীনতা ঘোষিত হলে মে মাসে মহাত্মা গান্ধী গ্রেফতার হন। তার কয়দিন পরেই সরোজিনী নাইডুকেও গ্রেফতার করা হয়। ১৯৩১ সালের জানুয়ারি মাসে গান্ধীজি এবং তিনি একসঙ্গে মুক্তি পাওয়ার অদ্যবধি পরে সেই বছরই তারা পুনরায়, এবার একত্রে গ্রেফতার হন। এই দফায় গান্ধীজি ১৯৩৩ সাল পযন্ত কারাগারে বন্দি থাকলেও সরোজিনী স্বাস্থ্যহানির কারণে আগেই মুক্তি পেয়েছিলেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566386688688.jpg
◤ চার্লি চ্যাপলিন ও মহাত্মা গান্ধীর সাথে সরোজিনী নাইডু ◢


১৯৪২ সালের আক্টোবর মাসে ‘ভারত ছাড়’ আন্দোলনকে কেন্দ্র করে পুনরায় তাকে এবং মহাত্মা গান্ধীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। এই দফায় তারা দুজন দীর্ঘ ২১ মাস কারারুদ্ধ ছিলেন। একসঙ্গে দীর্ঘ কারাবাসের কারণেই হয়তো রাজনীতিকে ছাপিয়ে এই দুইজনের মধ্যে একটি গভীর অন্তরঙ্গতা তৈরি হয়েছিল। যার সূত্রেই সরোজিনী নাইডু মহাত্মা গান্ধীকে ‘মিকি মাউস’ বলে ডাকতেন।

সাত.
সরোজিনী নাইডুর পৈত্রিক বাড়ি ছিল পূর্ববাংলার মুন্সীগঞ্জ জেলায়। ১৮৭৯ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি তিনি ভারতের হায়দারাবাদে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার বাবার নাম ছিল অঘোরনা চট্টোপাধ্যায় আর মায়ের নাম ছিল বরদাসুন্দরী দেবী। বাবা ছিলেন বিজ্ঞানী, দার্শনিক এবং শিক্ষাবিদ, আর মা ছিলেন কবি।

সরোজিনীরা ছিলেন আট ভাইবোন। তার এক ভাই বীরেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় ছিলেন বিশিষ্ট স্বাধীনতাসংগ্রামী। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে তিনি ছিলেন বার্লিন কমিটির গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। পরবর্তী সময়ে কমিউনিজমে প্রভাবিত হয়ে তিনি সোভিয়েত ইউনিয়নে পাড়ি জমিয়েছিলেন।

অপর আরেক ভাই ছিলেন নাট্যকার ও অভিনেতা। যার নাম ছিল, হারীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়। অর্থাৎ বুঝতে পারা যায়, পারিবারিকভাবে সরোজিনীরা ছিলেন বিত্তশালী, তথাপি শিক্ষাদীক্ষা এবং জ্ঞানচিন্তার বিষয়েও প্রগাঢ়ভাবে উৎপাদনশীল।

১৯৪৭ সালের দেশভাগের পর সরোজিনী নাইডুকে উত্তর প্রদেশের গভর্নর নিযুক্ত করা হয়। ১৯৪৯ সালে সেখানেই তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

টেনিসে সর্বকালের সেরা ফেদেরার-নাদাল-জোকোভিচ

টেনিসে সর্বকালের সেরা ফেদেরার-নাদাল-জোকোভিচ
সৌভাগ্যবান বর্তমান সময়ের টেনিসপ্রেমীরা, সর্বকালের সেরা তিন খেলোয়াড়কে একসাথে দেখতে পারছেন

রজার ফেদেরার। রাফায়েল নাদাল। নোভাক জোকোভিচ। আধুনিক টেনিসের ‘বিগ থ্রি’। এই তিনজনই যে পুরুষদের টেনিসে সর্বকালের সেরা তিনজন, তা নিয়ে খুব কম মানুষই দ্বিমত পোষণ করে। আর এর স্বপক্ষে সাক্ষ্য দিচ্ছে তাঁদের পরিসংখ্যান। রজার ফেদেরার গ্র্যান্ড স্লাম জিতেছেন ২০ বার, রাফায়েল নাদাল ১৮ বার ও নোভাক জোকোভিচ ১৫ বার। এই তিনজনের মিলিত গ্র্যান্ড স্লামের সংখ্যা ৫৩! বলাই বাহুল্য, তাদের মতো এত বেশি গ্র্যান্ড স্লাম ট্রফি কেউ জিততে পারেননি পুরুষদের টেনিসের ইতিহাসে। আর আজকের দিনের টেনিসামোদীরা নিজেদেরকে সৌভাগ্যবান ভাবতেই পারেন—এই তিন কিংবদন্তি বর্তমানে, একই সময়ে খেলে চলেছেন বলে। সর্বকালের সেরা এই তিন খেলোয়াড়কে একসাথে দেখতে পারছেন বলে।

তারা যেসময় খেলছেন, সেই সময়ে গ্র্যান্ড স্লাম ছাড়াও অন্যান্য ট্রফিতেও এই ত্রয়ীর আধিপত্য প্রচণ্ড। বিভিন্ন মাস্টার টুর্নামেন্টের বেশিরভাগের শিরোপা যাচ্ছে এই তিনের ঝুলিতে। গত প্রায় ১৫ বছর ধরেই যেন এই ত্রয়ীর একাধিপত্য টেনিসে। এই দেড় দশক সময়কালে মেয়েদের টেনিস দেখেছে অনেক উত্থান-পতন। ফ্রেঞ্চ ওপেনে যেমন নাদাল, উইম্বলডনে যেমন ফেদেরার বা অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে যেমন জোকোভিচ টানা শিরোপা জিতেছেন, মেয়েদের টেনিসে এমনটা দেখা যায়নি গত দেড় দশকে। গত দেড় দশকে এক সেরেনা উইলিয়ামস ছাড়া আর কোনো নারী টেনিস তারকাই সেভাবে টিকে থাকতে ও সাফল্য অর্জন করতে পারেননি। তাও ফেদেরার, নাদাল ও জোকোভিচের মতো অবিশ্বাস্য ধারাবাহিকতা নিয়ে নিজেকে তিনি ধরে রাখতে পেরেছেন খুব কমই। গত দশ বছরে প্রায় সব গ্র্যান্ড স্লামেই শিরোপা ঘুরেফিরে গিয়েছে এই ত্রয়ীর হাতে। মাঝে অ্যান্ডি মারে, স্টান ভাভরিঙ্কা ও মারিন চিলিচের মতো কেউ কেউ ৩-৪টি স্লাম শিরোপায় ভাগ বসালেও তারা ধরে রাখতে পারেননি তাদের এই সাফল্য। হতে পারেননি ধারাবাহিক।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566289905892.jpg

একে অন্যের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী হলেও তাদের মধ্যে রয়েছে দারুণ বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক


২০১৭-এর অস্ট্রেলিয়ান ওপেন থেকে ২০১৯-এর উইম্বলডন পর্যন্ত টানা ১১টি গ্র্যান্ড স্লাম ভাগ করে নিয়েছেন এই ত্রয়ী। জোকোভিচ জিতেছেন চারটি, নাদাল তিনটি আর ফেদেরার তিনটি। অথচ তাদের প্রত্যেকেই ত্রিশোর্ধ্ব। নেই তারুণ্যের মধ্যগগণে। ছেলেদের টেনিসে এই তিনজনের দীর্ঘদীনের সাফল্যের রহস্য কী?

প্রথমেই বলা যেতে পারে টেনিসের প্রতি তাদের গভীর ভালোবাসা বা কমিটমেন্টের কথা। এই কমিটমেন্ট না থাকার কারণে অনেক পুরুষ টেনিস খেলোয়াড়ই লম্বা করতে পারেননি তাদের ক্যারিয়ার। তাদের প্রায় সমসাময়িক লেটন হিউয়িট, মারাত সাফিনরা প্রথমদিকে বেশ কিছু সাফল্য পেলেও, র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে উঠলেও, তারা তা ধরে রাখতে পারেননি দীর্ঘদিন। ফেদেরারকে দেখলেই ব্যাপারটা অনেকটা বোঝা যায়। ৩৮ বছর বয়সে যেখানে সবাই অবসরের কথা ভাবে, সেখানে তিনি এখনো খেলে চলেছেন সমান দাপটে। জিতছেন শিরোপাও। ১৯৯৮ থেকে পেশাদার সার্কিটে খেলে চলেছেন তিনি। তবু, অচিরেই অবসরে যাবেন, এই ভাবনা তার এখনো নেই। একই ব্যাপার খেটে যায় নাদাল ও জোকোভিচের বেলায়। ৩৩ ও ৩২ বছর বয়সী এই দুজনও টেনিসকে মনেপ্রাণে ভালোবেসে টিকে আছেন। ইনজুরির কারণে খেলা থেকে দূরে সরে থাকতে হয় তাদের মাঝেমাঝেই। বিশেষ করে, এই ক্ষেত্রে নাদালের কথা বলতে হয় আলাদা করে। ইনজুরির হানা তার ক্যারিয়ারে নিয়মিত একটা ঘটনা। এমনকি টুর্নামেন্ট চলাকালেও অনেক সময় আক্রান্ত হয়েছেন ইনজুরিতে। তবুও ফাইনালে উঠেছেন, যদিও হয়তো শেষ পর্যন্ত জিততে পারেননি শিরোপা। যেমন, ২০১৭-এর অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে এই ঘটনাই ঘটেছিল তার সাথে। তেমনি জোকোভিচও মূলত ইনজুরির কারণে ২০১৬’র উইম্বলডন থেকে থেকে ২০১৮’র ফ্রেঞ্চ ওপেন পর্যন্ত পর্যন্ত জিততে পারেননি একটিও গ্র্যান্ড স্লাম। কিন্তু দুরন্ত প্রতাপে ফিরে এসে তিনি জিতে নিয়েছেন পরের পাঁচটি গ্র্যান্ড স্লামের চারটিই। তাই, নিঃসন্দেহে তাদের সাফল্যের আরেকটি কারণ এই হার না মানা মনোভাব।

অলরাউন্ড পারফরম্যান্সও তাদের সাফল্যের আরেকটি কারণ। কী হার্ড কোর্ট, কী ক্লে কোর্ট, কী গ্রাস কোর্ট—সবখানেই শিরোপা জিতেছেন এই ত্রয়ী। তাই, চার ধরনের গ্র্যান্ড স্লামই পকেটে আছে তাদের। যে নোভাক জোকোভিচ জিততে পারছিলেন না ফ্রেঞ্চ ওপেন, তিনিও ২০১৬ সালে তা জিতে দেখালেন। এরকম অলরাউন্ড পারফরম্যান্স আছে টেনিস ইতিহাসের খুব কম খেলোয়াড়েরই। ফেদেরারের ফোরহ্যান্ড, নাদালের ব্যাকহ্যান্ড, জোকোভিচের গ্রাউন্ড স্ট্রোকের মতো অসাধারণ ক্রীড়াশৈলি, খুব কম টেনিস খেলোয়াড়ই দেখাতে পেরেছেন।

আসুন, এবার দেখা যাক গত দেড় যুগে এই তিন মহাতারকার অর্জনগুলো এবং করা যাক পারস্পারিক সাফল্যের একটা তুলনা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566289973138.jpg
৩৮ বছর বয়সেও সমান দাপটে খেলে চলেছেন রজার ফেদেরার


ফেদেরারের প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপা ২০০৩ সালের উইম্বলডন জয়। অন্যদিকে নাদাল ২০০৪ সালে সর্বপ্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করলেও শিরোপা জেতেন ২০০৫ সালে ফ্রেঞ্চ ওপেনে। জোকোভিচ ২০০৩ সাল থেকে পেশাদার আন্তর্জাতিক টেনিসে বিচরণ করলেও প্রথম বড় সাফল্য তার হাতে ধরা দেয় ২০০৮ সালে। সেবছর অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে তিনি প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপা জেতেন।

বিগত ১৫ বছরে টেনিসে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী তিন টেনিস তারকার মধ্যে সবচেয়ে বেশি শিরোপা জিতেছেন রজার ফেদেরার। তিনি সর্বমোট ৯৮টি প্রতিযোগিতামূলক টেনিস শিরোপা জিতেছেন ও রানার্সআপ হয়েছেন আরো ৫১ বার। ফেদেরারের ৯৮টি টেনিস শিরোপার মধ্যে গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপার সংখ্যা ২০টি। তিনি মোট ১০ বার পরাজিত হয়েছেন গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনালে। খেলোয়াড়ি জীবনের ২০টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের মধ্যে সর্বোচ্চ ৮টি জিতেছেন উইম্বলডনে। গ্র্যান্ড স্ল্যাম ছাড়াও মাস্টার্স শিরোপা প্রতিযোগিতায় ফেদেরার খেলেছেন ৪৭টি ফাইনাল, যার মধ্যে জিতেছেন ২৭টি ও হেরেছেন ২০ বার। এটিপি ওয়ার্ল্ড ট্যুর প্রতিযোগিতায় ১০ বার ফাইনাল খেলে জিতেছেন ৬ বার ও হেরেছেন ৪ বার। মাস্টার্স ও এটিপি ছাড়াও ফেদেরার ২০১৪ সালে খেলোয়াড়ি জীবনের একমাত্র ডেভিস কাপ জেতেন। সর্বমোট ফাইনাল খেলা ও শিরোপার সংখ্যার হিসেবে নাদাল ও জোকোভিচের চেয়ে অনেকটাই এগিয়ে ফেদেরার।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566290018405.jpg
অদম্য মানসিকতা বড় শক্তি নাদালের। বারবার ইনজুরিতে পড়েও ফিরে এসে জিতেছেন শিরোপা


স্প্যানিশ কিংবদন্তি টেনিস তারকা রাফায়েল নাদাল টেনিস ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ (১৮টি) গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপা জিতেছেন। খেলোয়াড়ি জীবনে জিতেছেন ৭৬টি টেনিস শিরোপা ও হেরেছেন ৩৬টি ফাইনালে। তিনি তার ১৮টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপার মধ্যে ১২টিই জিতেছেন ফ্রেঞ্চ ওপেনে ক্লে কোর্টে। তাই টেনিস বিশ্বে নাদাল পরিচিত ‘ক্লে কোর্টের রাজা’ হিসেবে।

১৮টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনালে জয়ের বিপরীতে নাদাল হেরেছেন ৭টি ফাইনালে। ফেদেরার ও জোকোভিচের চেয়ে মাস্টার্স শিরোপা জয়ের দিক দিয়ে অবশ্য এগিয়ে রয়েছেন নাদাল। খেলোয়াড়ি জীবনে তিনি জিতেছেন সর্বমোট ৩২টি মাস্টার্স শিরোপা ও হেরেছেন আরো ১৬টি ফাইনাল। মাস্টার্স ওপেনে সাফল্যের দিক থেকে তার সমকক্ষ টেনিস খেলোয়াড় ইতিহাসে বিরল। তবে তিনি এটিপি ট্যুর প্রতিযোগিতায় এখন পর্যন্ত শিরোপা জিততে পারেননি, হেরেছেন ২টি ফাইনালে। কিন্তু ৪ বার ডেভিস কাপের ফাইনাল খেলে জিতেছেন ৪ বারই।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566290067509.jpg
অবিশ্বাস্য ধারাবাহিকতা বড় শক্তি জোকোভিচের


২০০৮ সালে অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জেতার মধ্যদিয়ে টেনিস বিশ্বের লাইমলাইটে আত্মপ্রকাশ ঘটে জোকোভিচের। সেই থেকে এখন পর্যন্ত নোভাক জোকোভিচ গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনাল খেলেছেন ২৩ বার। ১৫টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনালে জয়ের বিপরীতে হেরেছেন ৯টি ম্যাচে। গ্র্যান্ড স্ল্যাম ছাড়াও অন্যান্য টেনিস প্রতিযোগিতায়ও সাফল্য ধরে রেখেছেন তিনি। মাস্টার্স টেনিস ওপেনে সর্বমোট ৪৪টি ফাইনাল খেলেছেন জোকোভিচ। এর মধ্যে জিতেছেন ৩০টি ও হেরেছেন ১৪টি ম্যাচে।

এটিপি ট্যুর শিরোপা জয়ের দিক দিয়ে ফেদেরারের পরেই জোকোভিচের অবস্থান। মোট ৬ বার ফাইনাল খেলে তিনি শিরোপা জিতেছেন ৫ বার। এছাড়াও খেলোয়াড়ি জীবনের একমাত্র ডেভিস কাপ জেতেন ২০১০ সালে। শিরোপার সংখ্যা বিবেচনায় ফেদেরারের তুলনায় অনেকটা পিছিয়ে থাকলেও নাদালের নিকটবর্তী অবস্থানে রয়েছেন ৬৯টি টেনিস শিরোপা জেতা এই সার্বিয়ান তারকা।

টেনিস বিশ্ব যখন তিন মহাতারকার নিয়ন্ত্রণে, তখন তাদের শ্রেষ্ঠত্ব নিয়ে আলোচনা করতে গেলে অবশ্যই র‍্যাঙ্কিং নিয়েও আলোচনা করা জরুরি।

টেনিস ইতিহাসে সর্বাধিক সময় ধরে র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষস্থান ধরে রাখা খেলোয়াড় রজার ফেদেরার। তিনি সর্বমোট ৩১০ সপ্তাহ টেনিস র‍্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর অবস্থানে ছিলেন। ফেদেরারের পরেই জোকোভিচের অবস্থান। তিনি মোট ২২৩ সপ্তাহ টেনিস র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ অবস্থানে ছিলেন, যা ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। নাদাল অবশ্য ফেদেরার ও জোকোভিচ থেকে কিছুটা পিছিয়ে রয়েছেন র‍্যাঙ্কিংয়ের দিক দিয়ে। প্রথম অবস্থানে ছিলেন মোট ১৮২ সপ্তাহ।

টেনিস বিশ্বের সেরা এ তিন খেলোয়াড়ের অলিম্পিকেও রয়েছে সফলতা ও ব্যর্থতা। অলিম্পিকে তিনজনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সফল নাদাল। ২০০৮ সালে বেইজিংয়ে তিনি স্বর্ণপদক জিতেছেন স্পেনের হয়ে। অন্যদিকে অলিম্পিকে ফেদেরারের রয়েছে রৌপ্যপদক ও জোকোভিচের রয়েছে একটি ব্রোঞ্জপদক।

কাজেই, টেনিসের এই তিন মহারথী যে সর্বকালের সেরা তিন টেনিস খেলোয়াড়, এ নিয়ে সন্দেহের অবকাশ রয়েছে খুব কম মানুষের। ‘সর্বকালের সেরা’ এই তিনকে একসাথে দেখতে পাচ্ছেন বলে নিজেদেরকে সৌভাগ্যবান বলে ভাবতেই পারেন বর্তমান সময়ের টেনিসামোদীরা। একই সময়ে এই তিনজনকে খেলতে দেখার পাশপাশি, এদের মধ্যকার ত্রিমুখী লড়াইটাও কিন্তু কম উপভোগ্য নয়। পরিসংখ্যান বলছে, পরস্পরের মোকাবেলায় এই তিনজনের জয়-পরাজয়ের সংখ্যার ভেতরও নেই খুব একটা পার্থক্য। কে সেরা সেটা নিয়ে তাদের ভক্তদের মধ্যে নিশ্চয় চলে অন্যরকম এক লড়াই। কিন্তু, সর্বকালের সেরা টেনিস-ত্রয়ী যে এই তিনজনই, এনিয়ে লড়াই করতে মনে হয় না এগিয়ে আসবে খুব বেশি মানুষ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র