Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

হেঁটে হেঁটে কলকাতা

হেঁটে হেঁটে কলকাতা
কলকাতার ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল, ছবি: সংগৃহীত
ড. মাহফুজ পারভেজ
কন্ট্রিবিউটিং এডিটর
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

কলকাতা থেকে ফিরে:

'এ কলকাতার মধ্যে আছে আরেকটা কলকাতা/ হেঁটে দেখতে শিখুন...।’ কবি শঙ্খ ঘোষের এই পঙক্তি তো অনেকেরই পড়া, কিন্তু সত্যিই কি আস্ত কলকাতা শহরটাকে হেঁটে দেখা সম্ভব?

হয়ত একদা সম্ভব ছিল। ৩০/৪০ বছর আগের প্রেক্ষাপটে রচিত উপন্যাসের নায়ক-নায়িকা শিয়ালদা স্টেশনে নেমে হেঁটেই যাবতীয় কাজ সেরে আবার বাড়ি ফিরে গেছে। সেই কলকাতার চৌহদ্দি ছিল উত্তরে শ্যামবাজার থেকে দক্ষিণে গড়িয়াহাট।

হাতিবাজার ধরে হাঁটতে উত্তর কলকাতার পুরনো বাড়ি-ঘর, দোকানপাট দেখতে দেখতে ভাবছিলাম, একটি শহরকে প্রকৃত দেখা পায়ে দলেই সম্ভব। কিন্তু এখন কলকাতার যে বিস্তৃতি, তা পদাতিকের আয়ত্তের বাইরে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/21/1553146723048.jpg

কলকাতার আয়তন এখন উত্তরে ব্যারাকপুর পেরিয়ে খড়দহে ঠেকেছে। দক্ষিণে গড়িয়া ছাড়িয়ে বারুইপুর। পূর্ব দিকে সল্টলেক, নিউটাউন হয়ে চব্বিশ পরগনায় পেটে ঢুকে গেছে। পশ্চিমে গঙ্গার অপারে হুগলীতে নতুন সচিবালয় 'নবান্ন' হওয়ায় ব্যাসার্ধ বেড়েছে মহানগরের। এই কলকাতাকে এখন ছুঁতে হয় বাহারি উড়ালপুল, মেট্টো, এসি বাস, ওলা, উবারে।

তারপরও কলকাতার কিছু কিছু জায়গা হাঁটাই উত্তম। দূর থেকে কোনও যানে চেপে এসে যানবাহন ছেড়ে কিছুটা সময় হেঁটে হেঁটে অতীত ও ইতিহাসময় প্রকৃতিগন্ধী হওয়া যেন কলকাতার রেস্ত। ময়দানে, পার্ক ও ঘাটগুলোতে হাঁটাই দস্তুরমাফিক কাজ মনে হয়।

ফোর্ট উইলিয়াম, ভিক্টোরিয়া, ইডেন, রাজভবন, জেমস প্রিন্সেপ ঘাট এলাকা হেঁটে হেঁটে যে আরাম ও নান্দনিকা, তা যানে চড়ে অসম্ভব। প্রিন্সেপ ঘাট থেকে আউটরামের ঘাট, বাবুঘাট, হাইকোর্ট হয়ে মিলেনিয়াম পার্ক ছুঁয়ে গঙ্গার তীর ধরে হাওড়া ব্রিজের তলদেশ পর্যন্ত চলে যাওয়ার আনন্দ আর কিছুতেই হতে পারে না। যেতে যেতে কুমারটুলি, পাইকারি ফুলের বাজার আর প্রাচীন কলকাতার হৃৎস্পন্দন শোনাও কম মহার্ঘ নয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/21/1553146015719.jpg

একই অনুভূতি একদার সাহেব পাড়া, পার্কস্ট্রিট ও সংলগ্ন উপপথ হয়ে পার্ক সার্কাস অবধি হবে। প্রাচীরঘেরা প্রাচীন প্রতিষ্ঠান, বৃক্ষশোভিত এভিনিউ, খ্রিস্টান কবরগাহ গা ছমছম রোমাঞ্চ জাগাবেই। হঠাৎ থমকে যেতে হয় ইতিহাসের প্রচণ্ড অভিঘাতে। বাংলার নবজাগরণ হয়েছিল 'ইয়ং বেঙ্গল' গ্রুপের যে তরুণ বিদ্রোহীর হাতে, সেই ভিভিয়ান লুই ডিরোজিও'র সমাধিসৌধ দেখে চমকে যেতেই হয়। কিছুদূর গিয়ে মাইকেল মধুসূদনের কবরের কাছে দাঁড়িয়ে আবেগ থামানো সত্যিই কষ্টকর।

তিলোত্তমা ও উপভোগের শত উপাচারের পাশে নিরবধি ইতিহাসের কলকাতাও। বনেদি কলকাতার হৃদয় অস্পর্শে কিছুতেই প্রকৃত কলকাতা দর্শন হয় না। লুপ্তপ্রায় ঐতিহ্য নিয়ে অশ্রুবর্ষণ যদিও অনেকের উপজীব্য, হাহাকার অনেকেই কলকাতার তথাকথিত অন্ধকার নিয়ে, তথাপি ঐতিহাসিক আলোকমালার কলকাতাই শহরের আসল অস্তিত্ব।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/21/1553146033881.jpg

হাঁটতে হাঁটতেই কলকাতার নানা পাড়ার বিচিত্র ল্যান্ডস্কেপ, অদ্ভুত সাউন্ডস্কেপ, মন্দিরের ঘণ্টা, আজানের ধ্বনি, বাসের হর্ন, মস্তানদের বিবর্তন, সাংকেতিক ভাষা, হরেক কিসিমের জুয়ো, দিনরাতের ময়দান, ‘এসকর্ট গার্ল’ থেকে রামবাগান-দর্জি পাড়ার লালবাতি এলাকা, পকেটমার, রাতের ফুটপাথ নিয়ে চলমান এক অদেখা কলকাতাকে দেখা সম্ভব। অন্যভাবে কিংবা অন্য যানবাহনে যার দেখা পাওয়া কখনোই সম্ভব নয়।

কলকাতায় হাঁটতে হাঁটতে উঁকিঝুঁকি মেরে যায় সুমনের গান, হারিয়ে যাওয়া পাখপাখালি আর জীবজন্তু, মেলা আর হাটবাজার-বিপণি, শহরজোড়া ঢালাও খাবারের পসরায় সাজানো স্ট্রিটফুড আর সব শেষে চেনা হয়ে যায় শহরের ক’জন অচেনা মানুষও। পায়ে হেঁটেই স্মৃতির মণিকোঠায় জমে থাকে অন্তরঙ্গ কলকাতার নস্টালজিক ছবি।

আপনার মতামত লিখুন :

ক্রিকেটারদের আত্মজীবনী : ক্রিকেটজীবনের ভিতর-বাহির

ক্রিকেটারদের আত্মজীবনী : ক্রিকেটজীবনের ভিতর-বাহির
ক্রিকেটারদের বইয়ের প্রচ্ছদ

ক্রিকেটারদের জীবনী বা আত্মজীবনীতে শুধু ক্রিকেট নিয়েই যে সংশ্লিষ্ট ক্রিকেটারের কথা বা স্মৃতিচারণ থাকে তা না। মাঠের বাইরের বিভিন্ন বিচিত্র ও আগ্রহোদ্দীপক ব্যাপার-স্যাপার এবং তাদের ব্যক্তিগত জীবনের বিভিন্ন বিষয়-আশয়ও উঠে আসে বইগুলোতে। যা পড়ে পাঠকেরা চমৎকৃত হন। অনেক কিছু জানতে পারেন প্রিয় ক্রিকেটার সম্পর্কে। যেমন, পাকিস্তানী ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদি যে খেলোয়াড় হিসেবে পাঁচ-পাঁচটি বছর কমিয়ে নিয়েছিলেন, অথবা ইংল্যান্ডের ক্রিকেটার মঈন আলীকে যে অস্ট্রেলিয়ার এক খেলোয়াড় স্লেজিং করে ‘ওসামা’ নামে ডেকেছিলেন, এরকম কিছু চমকপ্রদ তথ্য হয়তো কেবল ক্রিকেটারদের আত্মজীবনীতেই পাওয়া যেতে পারে। আবার, ক্যান্সারের সাথে লড়াই করে পুনরায় যুবরাজ সিংয়ের ক্রিকেটে ফিরে আসার হৃদয়স্পর্শী কাহিনীর কথাই ধরুন না! সেই কাহিনী বিস্তারিত পাওয়া যাবে যুবরাজের আত্মজীবনীতেই।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563363767974.jpg
ক্রিকেটারদের বর্ণিল জীবনের শৈল্পিক আখ্যান তাদের জীবনীগ্রন্থগুলো ◢

 

যখন ক্রিকেটার নিজেই নিজের ক্রিকেট ও ব্যক্তিজীবনের কাহিনীটা লেখেন, সেটাকে বলা হয় ক্রিকেটারদের আত্মজীবনী। সেখানেও ক্রিকেটার কোনো লেখক বা ক্রীড়া সাংবাদিকের সাহায্য নিয়ে যৌথভাবে বইটি লিখতে পারেন। কিন্তু যখন অন্য কোনো লেখক একেবারে আলাদাভাবে একজন বরেণ্য ক্রিকেটারের জীবনকাহিনী পাঠকদের সামনে তুলে ধরেন, যেখানে সাধারণত সেই নির্দিষ্টি ক্রিকেটারের সরাসরি কোনো সংস্রব বা ভূমিকা থাকে না, সেটাকে বলে ক্রিকেটারদের জীবনী। তবে, সেক্ষেত্রেও সংশ্লিষ্ট ক্রিকেটার যদি বেঁচে থাকেন, বইটি লিখতে বা বইয়ের বিষয়বস্তু নির্বাচনে তাঁর অনুমতির দরকার হয়। সরাসরি ক্রিকেটারদের আত্মজীবনীর সংখ্যাই বেশি। তবে, বেশ কিছু অসাধারণ জীবনীগ্রন্থ, যেমন সুনীল গাভাস্কারের ‘সানি ডেজ’ (১৯৭৭), ইমরান খানের ‘ইমরান খান’ (২০০৯) বা মাশরাফি বিন মুর্তজাকে নিয়ে ‘মাশরাফি’র মতো দারুণ কিছু জীবনীগ্রন্থও আমরা পেয়েছি লেখকদের হাতে।

ক্রিকেটারদের আত্মজীবনীর ক্ষেত্রে ইংল্যান্ডের কিংবদন্তি স্পিনার জিম লেকারের ‘স্পিনিং রাউন্ড দ্য ওয়ার্ল্ড’ বইটিকে অগ্রপথিক ধরা হয়। ১৯৫১ সালে বইটি প্রকাশিত হয়েছিল। এরপরের কোনো ক্রিকেটারের আত্মজীবনীগ্রন্থের লেখকও জিম লেকারই। ১৯৬০ সালে তিনি প্রকাশ করেন দ্বিতীয় আত্মজীবনী ‘ওভার টু মি।’ এরপর ৬০’র দশক ও ৭০’র দশকে অল্পবিস্তর প্রকাশিত হতে থাকে বেশ কিছু আত্মজীবনী। এই ধারাবাহিকতায় ১৯৭৭ সালে খেলোয়াড় থাকা অবস্থাতেই ভারতের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান সুনীল গাভাস্কারকে নিয়ে ‘সানি ডেজ’ এবং ১৯৮৩ সালে ইমরান খানের স্বনামে (ইমরান) তাঁর জীবনীগ্রন্থ বের হয়। তবে, নব্বইয়ের দশকে এসে, মানে ১৯৯০ সালের পর থেকে এধরনের আত্মজীবনী ও জীবনীগ্রন্থের সংখ্যা বাড়তে থাকে। অনেক সাবেক ক্রিকেটার, এমনকি তখনও খেলছিলেন এমন কিছু ক্রিকেটারও এসময় তাঁদের আত্মজীবনী প্রকাশ করেন।

এসময়ই প্রকাশিত হয় ব্রায়ান লারার ‘বিটিং দ্য ফিল্ড’ (১৯৯৫), ওয়াসিম আকরামের ‘ওয়াসিম’ (১৯৯৮), রিচি বেনোর ‘অ্যানিথিং বাট অ্যান অটোবায়োগ্রাফি’ (১৯৯৮), অ্যালান ডোনাল্ডের ‘হোয়াইট লাইটনিং’ (১৯৯৯)। ২০০০ সালের পরের সময়কালে এই সংখ্যাটা বাড়তে থাকে আরো। স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডসের ‘দ্য ডেফিনিটিভ অটোবায়োগ্রাফি’ (২০০০), ইয়ান বোথামের ‘মাই অটোবায়োগ্রাফি’ (২০০০), শেন ওয়ার্নের ‘মাই অটোবায়োগ্রাফি’ (২০০২), ডেনিস লিলির ‘মিনেস : দ্য অটোবায়োগ্রাফি’ (২০০৩), বাসিল ডি অলিভিয়েরার ‘ক্রিকেট অ্যান্ড কনস্পিরেসি : দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ (২০০৪), কপিল দেবের ‘স্ট্রেইট ফ্রম দ্য হার্ট’ (২০০৪), স্টিভ ওয়াহর ‘আউট অব মাই কমফোর্ট জোন’ (২০০৬), অ্যাডাম গিলক্রিস্টের ‘ট্রু কালারস’ (২০০৮), ইমরান খানের ‘ইমরান খান’ (২০০৯), শোয়েব আখতারের ‘কন্ট্রোভার্শিয়ালি ইয়োরস’ (২০১১), যুবরাজ সিংয়ের ‘দ্য টেস্ট অব মাই লাইফ : ফ্রম ক্রিকেট টু ক্যান্সার অ্যান্ড ব্যাক’ (২০১২), শচীন টেন্ডুলকারের ‘প্লেয়িং ইট মাই ওয়ে’ (২০১৪), এবি ডি ভিলিয়ার্সের ‘দ্য অটোবায়োগ্রাফি’ (২০১৬), সৌরভ গাঙ্গুলির ‘এ সেঞ্চুরি ইজ নট এনাফ’ (২০১৮), ভিভিএস লক্ষ্মণের ‘টুএইটি ওয়ান অ্যান্ড বিয়ন্ড’ (২০১৮)-এর মতো অসংখ্য আলোচিত ও পাঠকপ্রিয় জীবনী বা আত্মজীবনী প্রকাশিত হয় এই সময়কালে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563363833752.jpg
মাশরাফির বিন মুর্তজার জীবনীগ্রন্থ ‘মাশরাফি’ ◢



বাংলাদেশের বরেণ্য ক্রিকেটারদের নিয়ে জীবনী বা আত্মজীবনী লেখার ইতিহাস যদিও অল্পদিনের, তবে ইতোমধ্যে টুকটাক করে এগোচ্ছে। কিন্তু কোনো ক্রিকেটারের সরাসরি আত্মজীবনী এখনো বের হয়নি। গুণী কিছু ক্রীড়া সাংবাদিক লিখতে শুরু করছেন ক্রিকেটারদের জীবনীগ্রন্থ। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো দেবব্রত মুখোপাধ্যায়ের ‘মাশরাফি’ ও মুস্তাফিজুর রহমান নাহিদের ‘মানুষ মাশরাফি’। তবে, এধরনের বইয়ের সংখ্যা বাংলাদেশে এখনো অপ্রতুল।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563363940018.jpg
শহীদ আফ্রিদির বিতর্কিত আত্মজীবনী ‘গেম চেঞ্জার’ ◢

 

আত্মজীবনী বা জীবনীগ্রন্থগুলো দর্শক ও ভক্তদের সাথে ক্রিকেটারদের বন্ধনকে করে আরো জোরালো। ভক্তদের আরো কাছে নিয়ে আসে ক্রিকেটারদের। ক্রিকেট জীবন এবং ব্যক্তিজীবন, একটা মানুষের দুটো জীবন যে হতে পারে একেবারে আলাদা, তা জানা যায় এই বইগুলোর মাধ্যমেই। কখনো কখনো আত্মজীবনী বা জীবনীগ্রন্থগুলো থেকে বেরিয়ে আসে এমন সব বিস্ফোরক তথ্য যা সৃষ্টি করে তুমুল বিতর্ক। এতে জড়িত হন আরো অনেকেই, পক্ষে-বিপক্ষে কথা বলতে শুরু করেন সংশ্লিষ্ট ক্রিকেটারের সমসাময়িক অনেক ক্রিকেটাররাও। তেমন বিতর্কই সৃষ্টি হয়েছিল, সাবেক পাকিস্তানী অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদির আত্মজীবনী ‘গেম চেঞ্জার’ প্রকাশের পর। বইটিতে ভারতীয় ওপেনার গৌতম গম্ভীরকে ব্যক্তিগত শত্রু হিসেবে তুলে ধরে ব্যক্তিত্বহীন আখ্যায়িত করেন আফ্রিদি। গম্ভীর প্রসঙ্গে লিখতে গিয়ে আফ্রিদি যেন সমালোচনার বন্যা বইয়ে দেন। গম্ভীরকে অসুস্থ মানসিকতার উল্লেখ করে ক্রিকেটের কলঙ্ক বলতেও দ্বিধা করেননি তিনি। জবাবে, গৌতম গম্ভীরও পরে ছেড়ে কথা বলেননি। তিনি টুইট করে বলেন, ‘আফ্রিদি, তুমি এত উচ্ছল মানুষ! সে যাক গে, আমরা চিকিৎসার জন্য এখনো পাকিস্তানিদের ভিসা অনুমোদন দিই। আমি ব্যক্তিগতভাবে তোমাকে একজন মানসিক রোগের চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাব।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563363989504.jpg
ইংলিশ ক্রিকেটার মঈন আলীর আত্মজীবনী ‘মঈন’ ◢



এরকমই বিতর্ক ও আলোচনার জন্ম দিয়েছিল ২০১৮-তে প্রকাশিত ইংলিশ ক্রিকেটার মঈন আলীর আত্মজীবনী ‘মঈন’। এতে তিনি অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটারদের বিরুদ্ধে বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ তুলেছেন। মঈন জানিয়েছেন ২০১৫ অ্যাশেজ সিরিজ চলাকালীন এক অস্ট্রেলিয় ক্রিকেটার তাঁকে ‘ওসামা’ বলে ডেকেছিলেন। ৩১ বছর বয়সী ইংরেজ অরাউন্ডার জানিয়েছেন, ২০১৫ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে হওয়া ওই অ্যাশেজ সিরিজ তাঁর জন্য খুবই ভালো গিয়েছিল। কিন্তু তাঁকে ওই সিরিজে অত্যন্ত রাগিয়ে দিয়েছিল একটি দুঃখজনক ঘটনা। ক্রিকেট মাঠে তিনি কোনোদিন অতটা রেগে যাননি বলে জানিয়েছেন তিনি। কার্ডিফে অনুষ্ঠিত সিরিজের প্রথম টেস্টে আট নম্বরে নেমে ব্যাটে গুরুত্বপূর্ণ ৭৭ রান যোগ করেছিলেন। সেই সঙ্গে বল হাতে তুলে নিয়েছিলেন ৫টি উইকেট। কিন্তু মঈনের দাবি, ওই ম্যাচেই তাঁকে ‘ওসামা বিন লাদেন’-এর সাথে তুলনা করে ‘ওসামা’ নামে ডেকেছিলেন এক অস্ট্রেলিয় ক্রিকেটার। শুনে চোখ-মুখ লাল হয়ে গিয়েছিল তার। পরে তিনি দলের কয়েকজনকে বিষয়টা জানিয়েওছিলেন। সেই কথা পৌঁছেছিল ইংল্যান্ডের কোচ ট্রেভর বেলিসের কানেও। বেলিস তা জানিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয় কোচ ডারেল লেম্যানকে।
লেম্যান ওই অস্ট্রেলিয় ক্রিকেটারকে ডেকে ওই বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করেছিলেন। কিন্তু সে নাকি তখন তা অস্বীকার করে জানিয়েছিল, ‘ওসামা’ নয়, মঈনকে মাঠে তিনি ‘পার্টটাইমার’ বলেছিলেন। কিন্তু মঈন বলেন, ‘পার্টটাইমার’ আর ‘ওসামা’ এই কথাদুটি এতটাই আলাদা যে গুলিয়ে যাওয়াটা অসম্ভব।

ঠিক তেমনি, অনেক রকম বিতর্ক আলোচনার জন্ম দিয়েছিল ইয়ান বোথাম, সুনীল গাভাস্কার থেকে শুরু করে অল্প ক’ বছর হলো সাবেক হওয়া শোয়েব আখতার ও অ্যাডাম গিলক্রিস্টের আত্মজীবনীও। তবে আত্মজীবনী বা জীবনীগ্রন্থগুলো শুধু যে বিতর্ক ও আলোচনার জন্ম দেয়, তা নয়। এখানে উঠে আসে অনেক সুন্দর ও চমকপ্রদ তথ্য, যা না ইতোপূর্বে কখনো কোনো গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে, আর না ক্রিকেটার নিজের মুখে বলেছেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563364046993.jpg
সৌরভ গাঙ্গুলির আত্মজীবনী ‘আ সেঞ্চুরি ইজ নট এনাফ’ ◢

 

যেমন, ‘আ সেঞ্চুরি ইজ নট এনাফ’ বইতে সৌরভ তুলে ধরেছিলেন এক মজার তথ্য। তখনও ভারতের অধিনায়কত্ব করছিলেন সৌরভ। সেসময় দুর্গাপুজোর সময়ে ঠাকুর দেখতে গিয়ে সর্দার সাজতে হয়েছিল তাকে। মেকআপ আর্টিস্টকে বাড়িতে ডেকে ভদ্রস্থ ও বিশ্বাসযোগ্য লুক তৈরি করা হয়। পরে রাস্তায় বেরিয়ে বাবুঘাটে আসতেই পুলিশ আধিকারিক চিনে ফেলেন সৌরভকে। তবে তাঁর অনুরোধে বিষয়টি গোপনই রাখেন ওই পুলিশ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563364106152.jpg
ভিভিএস লক্ষ্মণের আত্মজীবনী ‘টুএইটিওয়ান অ্যান্ড বিয়ন্ড’ ◢



তেমনি, ‘টুএইটিওয়ান অ্যান্ড বিয়ন্ড’ বইতে ভারতের সাবেক সফল টেস্ট ব্যাটসম্যান ভিভিএস লক্ষণ তুলে ধরেছেন ব্যতিক্রমী এক মহেন্দ্র সিং ধোনিকে। সালটা ছিল ২০০৮। ভারত সফরে এসেছিল অস্ট্রেলিয়া। দিল্লিতে সিরিজের তৃতীয় টেস্টই ছিল লক্ষ্মণের শততম টেস্ট ম্যাচ। লক্ষ্মণ তাঁর বইতে জানিয়েছেন সেই টেস্ট শেষ হওয়ার পরই স্টেডিয়াম থেকে হোটেল পর্যন্ত ভারতীয় দলের টিমবাস চালিয়েছিলেন ধোনি। লক্ষ্মণ লিখেছেন, ধোনিকে বাস চালাতে দেখেও তাঁর ঘটনাটা সত্যি বলে বিশ্বাস হচ্ছিল না। কারণ তখন তিনি ভারতীয় দলের ক্যাপ্টেন। অধিনায়ক টিম-বাস চালাচ্ছেন, এরকম ভাবনাটাই তার আগে কখনো কারো মাথায় আসেনি বলে জানিয়েছেন লক্ষ্মণ। তবে, লক্ষণ মনে করেন, ধোনি এরকমই। কে কী মনে করল, পাত্তা দেয় না। করে যায় নিজের কাজটাই!

ক্রিকেটারদের জীবনী বা আত্মজীবনী শুধু একজন ক্রিকেটারের জীবন নিয়েই নয়, কখনো কখনো তা হয়ে ওঠে একটি দেশের ক্রিকেট ইতিহাসের কোনো একসময়ের দর্পণ। তা পড়ে বোঝা যায়, ওই দেশের ক্রিকেট সংস্কৃতি ও অবকাঠামোর অবস্থাও। তাই এধরনের একেকটা বই আক্ষরিক অর্থেই ‘ক্রিকেট জ্ঞানের আধার’। আর সৃষ্টিশীলতার দিক থেকে বা সৃষ্টিশীল কাজ হিসেবেই কি ক্রিকেটারদের আত্মজীবনী বা জীবনীমূলক বইগুলো পিছিয়ে আছে? স্রেফ সেই সাত দশক আগে জিম লেকারের ‘স্পিনিং রাউন্ড দ্য ওয়ার্ল্ড’ অথবা সাম্প্রতিক অ্যাডাম গিলক্রিস্টের ‘ট্রু কালারস’ ও সৌরভ গাঙ্গুলির ‘আ সেঞ্চুরি ইজ নট এনাফ’ বইগুলোর নামগুলোর দিকেই খেয়াল করুন না! বই পড়েন এবং ক্রিকেট সম্পর্কে ধারণা রাখেন, এমন সব মানুষের নজর সহজেই কেড়ে নেয় এই সৃষ্টিশীল নামগুলো। আর ভেতরের লেখার উপাদানও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ঠিক করা হয় অনেক চিন্তা-ভাবনা করে বা অন্যান্য লেখকদের সাহায্য নিয়ে। তাই তো, শিল্পকর্ম হিসেবে সেগুলো ভালোই আকর্ষণ করে রস-অনুসন্ধানী ক্রিকেটামোদী পাঠকদের।

এই জীবনীগ্রন্থগুলো দারুণ সহায়ক ও অনুপ্রেরণার উৎস হতে পারে আগামীদিনের ক্রিকেটারদের জন্য। দুঃসময় ও স্বাস্থ্যগত মহাসংকটকে অতিক্রম করে কিভাবে ক্রিকেটে ফেরা ও টিকে থাকা যায়, তা তারা জানতে পারবে মাশরাফি বিন মুর্তজা ও যুবরাজ সিংয়ের মতো ক্রিকেটারের জীবনী বা আত্মজীবনী পড়েই।

উল্লেখ করতে হচ্ছে, বাংলাদেশের জীবন্ত কিংবদন্তি ক্রিকেটার এবং জাতীয় দলের বর্তমান অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার জীবনীগ্রন্থ ‘মাশরাফি’র কথা। বইয়ে লেখক দেবব্রত মুখোপাধ্যায়ের সাথে এক সাক্ষাৎকারে সত্যিকার বীর কারা, সেই প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘হ্যাঁ, সব সময় বলি, বীর হলেন মুক্তিযোদ্ধারা। আরে ভাই, তারা জীবন দিয়েছেন। জীবন যাবে জেনেই ফ্রন্টে গেছেন দেশের জন্য। আমরা কী করি? খুব বাজেভাবে বলি—টাকা নেই, পারফর্ম করি। অভিনেতা, গায়কের মতো আমরাও পারফর্মিং আর্ট করি। এরচেয়ে এক ইঞ্চি বেশিও কিছু না। মুক্তিযোদ্ধারা গুলির সামনে এইজন্য দাঁড়ায় নাই যে জিতলে টাকা পাবে। কাদের সঙ্গে কাদের তুলনা রে! ক্রিকেটে বীর কেউ থেকে থাকলে রকিবুল হাসান, শহীদ জুয়েলরা। রকিবুল ভাই ব্যাটে জয় বাংলা লিখে খেলতে নেমেছিলেন, অনেক বড় কাজ। তার চেয়েও বড় কাজ, বাবার বন্দুক নিয়ে ফ্রন্টে চলে গিয়েছিলেন। শহীদ জুয়েল ক্রিকেট রেখে ক্র্যাক প্লাটুনে যোগ দিয়েছিলেন। এটাই হলো বীরত্ব। ফাস্ট বোলিং সামলানার মধ্যে রোমান্টিসিজম আছে, ডিউটি আছে; বীরত্ব নেই।’

একজন ক্রিকেটার হয়েও মাশরাফির জীবনবোধ যে অসাধারণ, অনন্য যে তার দেশপ্রেম, এই বিষয়টাই তো ফুটে উঠেছে মাশরাফির কথনে! ক্রিকেটারাও যে মানুষ, মানুষ হিসেবে তাদের অনেকেরই যে চমৎকার জীবনদর্শন রয়েছে, রয়েছে সুন্দর কিছু চিন্তা, সেসব এভাবেই অনেক সময় প্রকাশিত হয় তাঁদের জীবনী বা আত্মজীবনীতে। তাই তো, এসব বই ক্রিকেটারদেরকে নিয়ে আসে ভক্তদের আরো কাছে। বইগুলোর মাহাত্ম্য এখানেই!

 

আরো পড়ুন
সর্বোচ্চ বিশ্বকাপ ফাইনালের সাক্ষী লর্ডস

হারকিউলিস জীবন মানেই অভিযাত্রা

হারকিউলিস জীবন মানেই অভিযাত্রা
হারকিউলিস

আল্কমিনার দুই ছেলে। বরাবরের মতো পাশের ঘরে দোলনায় ঘুম পাড়িয়ে রেখে গেল। কিন্তু এইবার ঘটতে চলছিল অন্যকিছু। মাঝরাতে ছেলেদের ঘরে প্রবেশ করল দুইটা সাপ। আবছা আলোয় জেগে উঠল দুজনেই। একজন তো সাপের ফণা দেখেই চোখ বুজে চিৎকার। আর অন্যজন? সে শুধু উঠেই বসল না, দুই হাতে টিপে ধরে রইল দুটো সাপের গলা। মা ঘরে এসে বিস্ময়ে থ। জড়ো হলো পাড়ার লোক। ততক্ষণে মরে গেছে বেচারা সাপ। সেদিন থেকেই মানুষের বিশ্বাস হতে থাকে, এই শিশু সাধারণ আট দশটা শিশুর মতো না। হবে মানবজাতির শ্রেষ্ঠ বীর।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563352692243.jpg
শৈশবেই সাপের গলা চেপে ধরে ভবিষ্যৎ জানিয়ে দেয় হারকিউলিস ◢

 

শিশুটির নাম হারকিউলিস। গ্রিক বীরদের মধ্যে সবথেকে জনপ্রিয়। দেবতা জিউস এবং মানবী আল্কমিনার পুত্র। জিউসের নারীপ্রীতি সুপরিচিত। আল্কমিনার কাছে সে আসে তার স্বামী এমফিত্রিয়নের ছদ্মবেশে। সে যাই হোক, হারকিউলিসের জন্ম থিবিসে। বস্তুত তার জন্মগত নাম আলসিয়াস। হারকিউলিস ছিল উপাধি। যার অর্থ “দেবী হেরার মহত্ত্ব”। যেহেতু হেরার দেওয়া পরীক্ষাগুলোর ভেতর দিয়ে যাবার কারণেই তার জগৎজোড়া খ্যাতি আসে। ছেলেবেলা থেকেই গরম ছিল মাথা। একদিন তো ক্রোধের বশে আঘাতই করে বসলেন গানের শিক্ষককে। পরিণামে পটল তুললেন মাস্টার মশাই। যদিও হারকিউলিস ব্যথিত হয়েছিল, কিন্তু অভ্যাসের বদল আনতে পারেনি। বধ করল থেসপিয় সিংহ। যুদ্ধ করে পরাজিত করল মিনিয়দের।

জিউসের অবৈধ সন্তান বলে জিউসপত্নী দেবী হেরা শুরু থেকেই তার ওপর নাখোশ ছিলেন। নানা ঘটনায় পুঞ্জিভূত হচ্ছিল ক্ষোভ। এজন্য বেশ ভুগতে হয় দিনশেষে। হেরা উন্মাদে পরিণত করেন হারকিউলিসকে। এতটাই উন্মাদ যে, স্ত্রী আর তিন সন্তানকে হত্যা করে ফেলল নিজের হাতে। 

জ্ঞান ফেরার পর হারকিউলিস চেয়েছিল আত্মহত্যা করতে। হত্যা পাপের প্রায়শ্চিত্য হিসেবে। কিন্তু বন্ধু থিসিউস তাকে থামাল। সাথে করে নিয়ে গেল এথেন্স। কিন্তু দেশ বদলালেই কি আর অপরাধবোধ মুছে যায়? তাই পাপমুক্ত হবার জন্য হারকিউলিস গেল ডেলফির মন্দিরে। মহিলা পুরোহিত বাতলে দিলেন মুক্তির পথ। মাইসেনীয় রাজা ইউরেস্থিউসের ইচ্ছে পূরণ করতে হবে। হারকিউলিস রাজি হলো এবং একে একে করল বারোটি অসাধ্য কাজ। যা “টুয়েলভ্ লেবার অব হারকিউলিস” হিসেবে পরিচিত। 

প্রথম কাজ ছিল নিমিয়ার সিংহকে বধ করা। কোনো অস্ত্রে আহত না হওয়া জন্তুকে হারকিউলিস হত্যা করল শ্বাসরোধ করে। দ্বিতীয় কাজ লার্নার জলভূমিতে গিয়ে নয় মাথাওয়ালা দানব হাইড্রাকে দমন করা। কাজটা বিপজ্জনক। একটা মাথা কেটে ফেললে দুটি মাথা গজাত। শেষমেশ উপায় পাওয়া গেল। হারকিউলিস মাথা কেটে প্রতিবার ঘাড়ে জ্বলন্ত লোহা দিয়ে ঝলসে দিল, যেন আর না গজাতে পারে। সবশেষে বাকি থাকা অমর অংশটি চাপা দিয়ে রাখল বিরাট এক পাথরের নিচে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563353035176.jpg
হারকিউলিসের নিমিয়ার সিংহ বধ ◢

 

তৃতীয় কাজ আর্তেমিসের পবিত্র হরিণ ধরে আনা। এক বছর সময় নিয়ে সেরেনিয়াসের বন থেকে সফল হিসেবে ফিরল হারকিউলিস। চতুর্থ কাজ এরিমেন্থাস পর্বতের গুহা থেকে বন্য শুকর বধ করা। পিছু তাড়া করে তুষারের দিকে নেওয়া হলো এবং তারপর করা হলো আটক। পঞ্চম কাজ অজিয়াসের আস্তাবল পরিষ্কার করা। দুইটা নদীর গতিপথ পরিবর্তন করে দিল হারকিউলিস। নদীর পানি বানের মতো এসে সাফ করে গেল অতিকায় আস্তাবল। 

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563353114390.jpg
হারকিউলিসের হাইড্রা দমন ◢

 

ষষ্ঠ কাজ মহামারি নিয়ে আসা স্টিমফ্যালিয়ন পাখিগুলোকে তাড়ানো। এক্ষেত্রে দেবী এথেনা তাকে সাহায্য করেন। এথেনা পাখিগুলোকে খেদিয়ে দেন বিভিন্ন ঝোঁপঝাড় থেকে। আর উড়ে যেতে থাকা পাখিকে তীরবিদ্ধ করে মাটিতে ফেলে হারকিউলিস।

সমুদ্রদেব পসাইডন একটা ষাঁড় উপহার দেন ক্রিটের রাজা মিনসকে। হারকিউলিসের সপ্তম কাজ ছিল তাকে ফিরিয়ে নিয়ে আসা। ষাঁড়টি পানির ওপর দিয়ে হাঁটতে পারত। মিনস তাকে আর রাখাতে ইচ্ছুক ছিল না। বস্তুত মিনসের স্ত্রী রাণী পাসিফেই ষাঁড়টির প্রেমে পড়ে যায় এমনকি গর্ভবতী হয়ে পড়ে। পরবর্তীতে রাণী মিনোটর নামে অর্ধেক মানুষ অর্ধেক ষাঁড়ের জন্মদান করেন। রাগে ক্ষোভে রাজা একটি গোলকধাঁধা ল্যাবিরিন্থ তৈরি করালেন। এই ল্যাবিরিন্থেই রচিত ডিউডেলাস এবং তার পুত্র ইকারাসের সেই পরিচিত আকাশে ওড়ার আখ্যান। যাহোক, শেষপর্যন্ত হারকিউলিস ষাঁড়টা নিয়েই ফিরে আসেন ইউরেস্থিউসের কাছে। আবার অরাজকতা তৈরি হলে থিসিয়াস ষাঁড়টা বধ করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563353260297.jpg
হারকিউলিস এবং ক্রিটের ষাঁড় ◢

 

অষ্টম দায়িত্ব ছিল আরো কঠিন। থ্রেসের রাজা ডায়ামিডিসের ঘোড়া নিয়ে আসা। যেনতেন না, মানুষখেকো ঘোড়া। হারকিউলিস প্রথমে ডায়োমিডিসকে হত্যা করল। তারপর নিয়ে এলো ঘোড়া।

আমাজনদের রাণী হিপ্পোলাইটির কোমরবন্ধনী আনা ছিল নবম দায়িত্ব। হারকিউলিস চেয়েছিল সদয়ভাবেই কাজটা শেষ করবে। কিন্তু জট পাকাল হেরার হস্তক্ষেপ। আমাজনরা ভেবে বসল হারকিউলিস তাদের রাণীকে অপহরণ করতে এসেছে। সুতরাং সংঘর্ষ অবশ্যম্ভাবী হয়ে উঠল। হারকিউলিসের হাতে নিহত হলো হিপ্পোলাইটি। কোমরবন্ধনী হাতে এলো অনেক পানি ঘোলা হলে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563353381444.jpg
তারপরেও হিপ্পোলাইটার কোমরবন্ধনী নিয়ে ফেরেন হারকিউলিস ◢

 

দশম কাজ তিনদেহ বিশিষ্ট দানব গেরাইয়নের গরুগুলো নিয়ে আসা। এই যাত্রাতেই হারকিউলিস ভূমধ্যসাগরের শেষভাগে দুটি স্তম্ভ নির্মাণ করে, যা “হারকিউলিসের স্তম্ভ” নামে পরিচিত। মনে করা হয় স্তম্ভ দুটির একটি ইউরোপ অংশে আধুনিক জিব্রাল্টার এবং অন্যটি আফ্রিকা অংশে সিওটা। যাহোক, হারকিউলিসের জন্য গরু খুঁজে পেতে অসুবিধা হলো না। ফিরল বিজয়ী হিসেবেই।

এবার দায়িত্ব আসলো হেসপেবাইডিসদের সোনার আপেল আনার। একাদশতম কাজ। কিছুটা চিন্তা করে আর কিছুটা প্রমিথিউসের বুদ্ধিতে হারকিউলিস অ্যাটলাসের কাছে গেল। কারণ অ্যাটলাস ছিল হেসপেবাইডিসদের পিতা। যেহেতু অ্যাটলাস পৃথিবীর ভর বহন করছিল, হারকিউলিস প্রস্তাব করল অন্য রকমভাবে। যতক্ষণ অ্যাটলাস আপেলের জন্য বাইরে থাকবে, ততক্ষণ সে নিজে পৃথিবীর ভার বহন করবে হারকিউলিস। প্রস্তাব মনে ধরল অ্যাটলাসের।

ঘটনা পেঁচিয়ে গেল এর পরেই। অ্যাটলাস আপেল আনল ঠিকই, কিন্তু তা হারকিউলিসের হাতে দিতে অস্বীকার করল। চিরদিনের জন্য পৃথিবীর ভারবহন থেকে মুক্ত হবার লোভ আসাটা স্বাভাবিক। অ্যাটলাস গোঁ ধরেছিল, ইউরেস্থিউসের কাছে সোনার আপেল সে পৌঁছে দেবে। খুব সম্ভবত প্রথমবারের মতো হারকিউলিস শরীরের বদলে মাথাকে ব্যবহার করল এবার। অ্যাটলাসকে অল্প সময়ের জন্য ধরতে বলল কাঁধ বদলের অজুহাতে। বেচারা অ্যাটলাস যেই আবার কাঁধে নিল, হারকিউলিস সাথে সাথে আপেল নিয়ে উধাও। 

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563353497744.jpg
হারকিউলিস এবং অ্যাটলাস ◢

 

দ্বাদশ বা শেষ কাজ পাতাল থেকে সারবেরাসকে মর্ত্যে নিয়ে আসা। সারবেরাস তিন মাথাওয়ালা পাতালের প্রহরী কুকুরের নাম। কাজটা অসম্ভব। তারপরেও হারকিউলিস যাত্রা করল। যেতে যেতে থিসিয়াসকে মুক্ত করল ‘বিস্মৃতির আসন’ থেকে। দেখা হলো বীর মিলেগারের সাথে। পাতাল দেবতা হেডেসের সাথে কথা বলে সারবেরাসকে ধরে নিয়েই ফিরল হারকিউলিস। 

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563353601324.jpg
সারবেরাসকে জীবিত ধরে আনেন হারকিউলিস ◢

 

বারোটা অভিযানে আটকে দেওয়া হলেও প্রকৃতপক্ষে হারকিউলিসের অভিযান কখনো শেষ হয়নি। এরপরেও দানব অ্যান্টিউসের সাথে যুদ্ধ করে পরাজিত করা, ষাঁড়রূপী অ্যাকিলাসকে হত্যা করা এবং প্রমিথিউসকে উদ্ধার করা তাঁর কীর্তি। এই সেই প্রমিথিউস, স্বর্গ থেকে মানুষকে আগুন চুরি করে এনে দেবার জন্য যাকে জিউসের রোষানলে পড়তে হয়েছে। হারকিউলিস আসার আগে পর্যন্ত।

কিছু খারাপ কাজও করেছিল হারকিউলিস। খাওয়ার আগে হাতে পানি ঢেলে দেবার কারণে এক বালককে ঘুষি দিল। আর তাতে মারা গেল ছেলেটি। এরচেয়ে বাজে ছিল ঘনিষ্ঠ বন্ধুকে হত্যা। এইবার জিউস গেলেন রেগে। হারকিউলিসকে শাস্তি স্বরূপ লিডিয়ায় পাঠানো হলো রাণী ওমফেলের ক্রীতদাস হিসেবে। রাণী মজা করতেন তাকে নিয়ে। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছিল যে, রাণী তাকে নারীপোশাকে সজ্জিত করে নারীসুলভ কাজ করিয়ে নিতেন। অপমানিত হারকিউলিস মুখ বুজে পালন করত। আর ইউরিটাসকে শাস্তি দেবার শপথ নিত। বলা বাহুল্য, ইউরিটাস তার সেই খুন হওয়া বন্ধুর বাবা।

মুক্তি পাবার পর প্রতীজ্ঞা অনুযায়ী হারকিউলিস সৈন্য সংগ্রহ করতে লাগলেন। তারপর দখল করলেন ইউরিটাসের নগরী। প্রাথমিকভাবে জয়ী হলেও এর পরিণাম ভালো হয়নি। বস্তুত এর মাঝেই লুক্কায়িত ছিল তার পতনের ‍গল্প। নগর পুরোপুরি ধ্বংস করার আগে হারকিউলিস প্রিয়তমা স্ত্রী ডিয়ানাইয়াকে উপহার হিসেবে পাঠাল একদল কুমারী। তাদের মধ্যে অপরূপ ‍সুন্দরী রাজকন্যা আয়োলিও ছিল। স্বামীর জন্য অপেক্ষমান ডিয়ানাইয়ার কাছে উপঢৌকন পৌঁছাল খুব দ্রুতই। কিন্তু নিয়তি চাচ্ছিল অন্যকিছু্। হয়তো এজন্যই সাথে আসা দূত ডিয়ানাইয়ার কাছে বলে গেল একটা কথা। অনেক কিছু ঘটে গেছে। হারকিউলিস রাজকন্যা আয়োলির প্রেমে বুঁদ।

ডিয়ানাইয়া কথাটা অবিশ্বাস করতে পারেনি। সাত পাঁচ ভেবে আর আয়োলির রূপ দেখে বিশ্বাস পরিণত হলো সন্দেহ। তাছাড়া সে নিজেও নারী। জানে রূপ কতটা ভয়ানক অস্ত্র হতে পারে পুরুষকে কাবু করার জন্য। রাগে ক্ষোভে জ্বলে উঠল তাই। প্রতিশোধের নেশায় দূতকে দিয়ে হারকিউলিসের জন্য পাঠাল চকচকে জামা। জামায় মাখিয়ে দিল বহুদিন থেকে জমিয়ে রাখা জাদুময় সেন্টরের রক্ত।

স্ত্রীর উপহার গায়ে জড়ানোর সাথে সাথে হারকিউলিস ককিয়ে উঠল অসহ্য ভয়ানক ব্যথায়। দিগ্বিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে দূতকে ছুঁড়ে মারল ‍সমুদ্রে। আরো কতজনকে যে মারা পড়তে হতো তার ইয়ত্তা নাই। ‍সাধারণ মানুষ হলে অনেক আগেই মৃত্যু হতো। এদিকে সত্য চাপা থাকল না। প্রিয়তম স্বামীর যন্ত্রণাকাতর অবস্থার কথা শুনে কেঁপে উঠল ডিয়ানাইয়া। আত্মহত্যা করল আর কিছু না ভেবে। যদিও একই রাস্তা বেছে নিল হারকিউলিস।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563353749509.jpg
স্বেচ্ছায় মৃত্যুর কোলে ঠাঁই নেয় হারকিউলিস ◢

 

হারকিউলিস জানত, মৃত্যু তার কাছে আসবে না। সুতরাং নিজেই ঝাঁপিয়ে পড়ল মৃত্যুর কোলে। বিশাল চিতা নির্মাণ করাল অনুসারীদের দ্বারা। তারপর আস্তে করে এগিয়ে এসে শুয়ে পড়ল চিতার ওপর। তরুণ শিষ্য ফিলোকটেটিসকে বলল আগুন লাগাতে। বিব্রত শিষ্য বিষাদমুখে গুরুর আদেশ পালন করল। আর একটু পরেই দাউ দাউ করে জ্বলে উঠল আগুন। এই ঘটনার পর আর হারকিউলিসকে মর্ত্যে দেখা যায়নি। তাকে ‍স্বর্গে তুলে নেওয়া হয়। দেবী হেরা এবার তাকে শুধু গ্রহণই করলেন না, নিজ কন্যা হেবের সাথে মিলিয়ে দিলেন। 

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563353865093.jpg
হারকিউলিসের মন্দির ◢

 

হারকিউলিসের আখ্যান জীবনকে অভিযাত্রার সমন্বয় হিসেবে উপস্থাপন করে। প্রত্যেক মানুষকেই প্রায় অসম্ভব ক্ষমতাধর দানবের মুখোমুখি হতে হয় জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে। হারকিউলিস যেন হার না মানা নাছোড়বান্দা মানুষকেই ধারণ করে। যেমনটা হেমিংওয়ে বলেছেন—

“A man may be destroyed, but not defeated.”

এজন্য হারকিউলিস প্রিয় হয়ে উঠেছে মানুষের মনে। প্রবেশ করেছে ‍সকল সংস্কৃতিতে। প্রবীণ সাহিত্যিক থেকে শুরু করে নবীন প্রেমিক পর্যন্ত। হারকিউলিস বেঁচে থাকবে ততদিন, যতদিন মানুষের মাঝে থাকবে টিকে থাকার সংগ্রাম। বাঁধাকে জয় করার নিরন্তর প্রচেষ্টা।

 

উৎসসমূহ
১. এডিথ হ্যামিলটন- মিথোলজি
২. এইচ এ গুয়েরবার- দ্যা মিথস্ অব গ্রিস এন্ড রোম

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র