Alexa

১০৭ উপজেলায় ভোট গ্রহণ শুরু

১০৭ উপজেলায় ভোট গ্রহণ শুরু

খুলনার একটি ভোটকেন্দ্র, ছবি: বার্তা২৪.কম

পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চতুর্থ ধাপে ১০৭টি উপজেলায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। রোববার (৩১ মার্চ) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা এই ভোট গ্রহণ চলবে। ভোটের নিরাপত্তায় মাঠে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দেড় লক্ষাধিক সদস্য। এছাড়া নির্বাচনে ৫০টি উপজেলায় অতিরিক্ত বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, অনিয়মের বিরুদ্ধে কমিশন কঠোর অবস্থানে রয়েছে। যেসব উপজেলায় সমস্যা আছে বলে মনে হয়েছে, সেখানে বিজিবি ও র‌্যাবের অতিরিক্ত ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া নিয়োগ করা হয়েছে অতিরিক্ত নির্বাহী হাকিমও।

এদিকে সহিংসতা মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হওয়ায় তিন ওসি, একজন পুলিশ সুপার ও একজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

ভোটের জন্য সকল নির্বাচনী এলাকায় আজ সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

চতুর্থ ধাপে পাঁচ বিভাগের ১৬ জেলার ১০৭টি উপজেলায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। ১০৭ উপজেলায় ভোটকেন্দ্র রয়েছে ১০ হাজার ৩৮৯টি। আর ভোটার ২ কোটি ৭৩ লাখ ৭ হাজার ৩৪১ জন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/31/1554000324097.jpg

এতে চেয়ারম্যান পদে ৩৫১ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫৩৩ জন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪০৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে চেয়ারম্যান পদে ৩৯ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২২ জন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৭ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

চতুর্থ ধাপে ১২২ উপজেলায় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর ১৫ উপজেলার সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় সেগুলোতে ভোট হবে না।

চতুর্থ ধাপের ছয় উপজেলায় ইভিএম ব্যবহার করা হচ্ছে। সেগুলো হলো- বাগেরহাট সদর (কেন্দ্র সংখ্যা ৯১), ফেনী সদর (কেন্দ্র সংখ্যা ১২৭), মুন্সীগঞ্জ সদর (কেন্দ্র সংখ্যা ১১৬), ময়মনসিংহ সদর (কেন্দ্র সংখ্যা ১০০) ও পটুয়াখালী সদর (কেন্দ্র সংখ্যা ৮৯)।

এদিকে আচরণবিধি লঙ্ঘন করার অভিযোগে ১০জন সংসদ সদস্যকে (এমপি) নির্বাচনী এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে ইসি। তারা হলেন- টাঙ্গাইল-৪ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ হাছান ইমাম খান, টাঙ্গাইল-৫ আসনের মো. ছানোয়ার হোসেন, টাঙ্গাইল-৮ আসনের মো. জোয়াহেরুল ইসলাম, বাগেরহাট-৪ আসনের মো. মোজাম্মেল হোসেন, খুলনা-৬ আসনের মো. আক্তারুজ্জামান, ময়মনসিংহ-১১ আসনের কাজিম উদ্দিন আহম্মেদ, যশোর-২ আসনের মো. নাসির উদ্দিন, ময়মনসিংহ-৯ আসনের আনোয়ারুল আবেদীন খান, যশোর-৪ আসনের রনজিৎ কুমার রায় ও নোয়াখালী-৪ আসনের মোহাম্মদ একরামুল করিম চৌধুরী।

এছাড়াও সহিংসতা রোধে ব্যর্থ হওয়ায় পিরোজপুর জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সালাম কবির, আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ তিন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ওসি তিনজন হলেন- পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া থানার ওসি এম আর শওকত আনোয়ার ইসলাম, বরগুনা জেলার আমতলী থানার ওসি আলাউদ্দিন মিলন এবং কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া থানার ওসি মো. শাজাহান কবির।

ইসির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী উপজেলা নির্বাচনের পঞ্চম ও শেষ ধাপের ভোট হবে ১৮ জুন।

আপনার মতামত লিখুন :

নির্বাচন এর আরও খবর