Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

মোটরসাইকেলের চুরি ঠেকাবে সিকিউরিটি ডিভাইস

মোটরসাইকেলের চুরি ঠেকাবে সিকিউরিটি ডিভাইস
ট্যাসলক কার্বন এডিশন, ছবি: সংগৃহীত
টেক ডেস্ক
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

মোটরসাইকেলের নিরাপত্তায় সাধারণত তালা ব্যবহার করা হয়। সময়ের সঙ্গে এসেছে ডিজিটাল লক সিকিউরিটি ডিভাইস। সম্প্রতি মোটরসাইকেলের চুরি ঠেকাতে বাজারে এসেছে সিকিউরিটি ডিভাইস ট্যাসলক কার্বন এডিশনের চতুর্থ ভার্সন।

এ এডিশনে মোটরসাইকেল লক করার জন্য আলাদা কোন সুইচ চাপতে হয় না। চাবি বন্ধ করে তিন সেকেন্ড পার হলে মোটরসাইকেল স্বয়ংক্রিয়ভাবে লক হয়ে যায়। রিমোটসহ কার্বন এডিশনযুক্ত বাইকটির কাছে গেলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে লক খুলে যাবে। এছাড়াও রিমোট ডিভাইসটির মাধ্যমে ম্যানুয়াল লক করার অপশন রয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাদভী রেজা বলেন, কোনভাবেই এই ডিভাইস হ্যাক করা সম্ভব নয়। বাইকের কোন সংযোগ না কেটে এই লকটি ইন্সটল করা যায়। ২০ তলা বা সোজাসুজি দূরত্বে প্রায় ৩০০-৫০০ মিটার দূর থেকেও এই রিমোট ডিভাইসটি দিয়ে মোটরসাইকেল লক বা আনলক করা যায়। এমনকি  চাবি ছাড়া কার্বন এডিশনের রিমোট দিয়ে মোটর বাইক চালানো যায়। এছাড়াও এই ডিভাইসটিতে ৩৭টি ফিচার রয়েছে।

ট্যাসলক কার্বন এডিশনের প্যাকেজে দুইটি রিমোট রয়েছে। একটি রিমোট সেন্সর হিসেবে কাজ করলেও অন্যটি শুধুমাত্র ব্যাকআপ রিমোট। এই সিকিউরিটি ডিভাইস থাকলে বাইক ডাকাত বা ছিনতাইকারীর হাতে পড়লেও হারানোর ভয় নেই। অনাকাঙ্ক্ষিত কোন স্পর্শ এলে অ্যালার্ম এবং ভাইব্রেশনের মাধ্যমে জানা যাবে বলেও জানান তিনি। 

ট্যাসলক কার্বন এডিশনের মূল্য ২৯৯৯ টাকা। ১ বছরের বিক্রয়োত্তর সেবাসহ ডিভাইসটি সারা দেশে ট্যাসলকের ডিলারদের কাছে পাওয়া যাচ্ছে। ট্যাসলক ডিভাইস হোম ডেলিভারি নেয়ার অপশনও রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

দেশি ল্যাপটপ যুক্তরাষ্ট্রে, আমাজনের সঙ্গে চুক্তি

দেশি ল্যাপটপ যুক্তরাষ্ট্রে, আমাজনের সঙ্গে চুক্তি
চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

এখন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে পাওয়া যাবে দেশীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন নির্মিত ল্যাপটপ। ই-কমার্স জায়ান্ট আমাজনের প্ল্যাটফরমে যুক্তরাষ্ট্রে রফতানি হবে এ ল্যাপটপ।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) রাজধানীর ওয়ালটন করপোরেট অফিসে আমাজন ও ওয়ালটনের মধ্যে এ সংক্রান্ত এক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

আমাজন বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার শশাংক পান্ডে এবং ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক ও কম্পিউটার পণ্য বিভাগের প্রধান নির্বাহী লিয়াকত আলী নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিপত্রে সই করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। প্রধান অতিথির বক্তব্যে পলক বলেন, ‘এটা শুধু ওয়ালটন না বরং বাংলাদেশের জন্য একটি ঐতিহাসিক দিন। ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য একটি ঐতিহাসিক দিন।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566460896005.JPG

তিনি আরও বলেন, ‘ওয়াল্টন এবং আমাজনের যত ধরনের সহায়তা লাগবে আমাদের তরফ থেকে সেগুলো দেওয়া হবে। কম্পিউটার তৈরিতে বিভিন্ন যন্ত্রপাতি আমদানিতে আগে উচ্চহারে শুল্ক দিতে হতো। আওয়ামী লীগ সরকার এসে প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নেতৃত্বে এই শুল্ক কমানো নিয়ে আমরা কাজ শুরু করি। এখন কম্পিউটার যন্ত্রাংশের প্রায় ৯৪টি যন্ত্রাংশ আমদানিতে কোনো ধরনের শুল্ক দিতে হয় না।
পলক বলেন, ‘আমরা এমনটা করেছি যেন ওয়ালটনের মতো আমাদের দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলো কম্পিউটার তৈরি করে বিশ্ব মার্কেটে নেতৃত্ব দিতে পারে। আমরা ওয়ালটনকে শুধু একটি প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান হিসেবে না বরং দেশের গর্ব হিসেবে দেখি।’

আমাজনের কান্ট্রি ডিরেক্টর শশাংক পান্ডে বলেন, ‘এটা একটা ঐতিহাসিক দিন। এটা আমাদের জন্য একটা বড় দিন। বাংলাদেশের জন্য একটা বড় দিন। আমরা আশা করি, এর মাধ্যমে বাংলাদেশের সঙ্গে আমাদের বাণিজ্যিক সম্পর্ক আরও দৃঢ় হবে।’

ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ভাইস চেয়ারম্যান এসএম শামসুল আলম বলেন, ‘বিশ্ববাজারে ওয়ালটন বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করে যাচ্ছে। খুব শিগগিরই বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ব্যান্ডের কাতারে আসার লক্ষ্য ওয়ালটনের। এ লক্ষ্যে সফলতার সঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছি আমরা। বিশ্বের বড় বড় প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আমাদের চুক্তি হচ্ছে। তারা 'মেইড ইন বাংলাদেশ' পণ্য নিতে আমাদের কাছে আসছে। এর অর্থ বাংলাদেশের উৎপাদিত ইলেকট্রনিক্স এবং আইসিটি পণ্য বিশ্বমানের।’

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এসএম আশরাফুল আলম, ওয়ালটন ডিজি টেক এর চেয়ারম্যান এসএম রেজাউল আলম, আর বি গ্রুপ অব কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাহমিনা আফরোজ তান্না এবং ওয়ালটন কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাইসা সিগমা হিমা।

মেয়াদ বাড়ল মটোরোলার কুল অফারের

মেয়াদ বাড়ল মটোরোলার কুল অফারের
ছবি: সংগৃহীত

গ্রাহকদের চাহিদার কথা বিবেচনা করে বাড়ানো হলো ‘মটো কুল অফার’র মেয়াদ। নির্দিষ্ট অনলাইন স্টোর থেকে আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বাংলাদেশের গ্রাহকরা ডিসকাউন্ট মূল্যে কিনতে পারবেন মটোরোলার নির্দিষ্ট মডেলের হ্যান্ডসেট।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) বাংলাদেশের মটোরোলার ন্যাশনাল ডিস্ট্রিবিউটর স্মার্ট টেকনোলজিস বিডি লিমিটেডের ডিরেক্টর (টেলিকম বিজনেস) সাকিব আরাফাত জানান, ‘বাংলাদেশে ই-কমার্স সাইটগুলো দিনদিন জনপ্রিয় হচ্ছে। গ্রাহকরাও অনলাইন প্ল্যাটফরম থেকে পণ্য কিনতে স্বাচ্ছন্দ বোধ করছেন। বিশেষ করে স্মার্টফোনের জন্য এসব প্ল্যাটফরম খুবই জনপ্রিয়। তাই গ্রাহকদের কথা বিবেচনা করে চলমান অফারটির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।

মটোরোলার অনলাইন স্টোর পার্টনার- রবিশপ, গেজেট অ্যান্ড গিয়ার, দারাজ, পিকাবু, ইভ্যালি, এডিসন স্মার্ট প্লাগ ইন ও ডেলিগ্রাম। গ্রাহকরা এসব অনলাইন স্টোর থেকে মটোরোলার অরিজিনাল হ্যান্ডসেট ক্রয় করতে পারবেন।

‘মটো কুল অফার’র আওতায় গ্রাহকরা এখন থেকে মটো ই৪ প্লাস ৯,৯৯০ টাকায়, মটো ই৫ প্লাস ১৪,৯৯০ টাকায়, মটো জি৭ পাওয়ার ১৮,৯৯০ টাকায় এবং মটোরোলা ওয়ান ২০,৯৯০ টাকায় কিনতে পারবেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র