Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ভ্রমণপ্রিয় বেঙ্গল ক্যাট সুকির ১৪ লাখ ফলোয়ার

ভ্রমণপ্রিয় বেঙ্গল ক্যাট সুকির ১৪ লাখ ফলোয়ার
ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

একটি বিড়াল, যে তার পালক এর সাথে পৃথিবী ঘুরে ফলোয়ার বানিয়ে ফেলেছে প্রায় ১৪ লাখের মত।

বিভিন্ন দেশের নানা প্রান্তে ছবি তুলে এই ফলোয়ার বানানোয় তাকে এখন ডাকা হচ্ছে ‘অ্যাডভেঞ্চার ক্যাট সুকি’ নামে।

তার পালক কানাডার আলবার্টার বাসিন্দা মার্টি ও কেন পেশায় ট্রাভেল/ল্যান্ডস্কেপ ফটোগ্রাফার হওয়ায় বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে যেতে হয় তাদের। তাই আগের বিড়ালটি মারা যাওয়ার পর তারা শক্ত সামর্থ্য একটি বিড়াল পালার সিদ্ধান্ত নেন। যাতে ভ্রমণে গেলে বিড়ালটিকে বাসায় রেখে যেতে না হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/28/1559030599667.jpeg

শুরু হয় গবেষণা কোন বিড়াল তাদের সাথে পাড়ি দিতে পারবে পাহার পর্বত , নদী ও বন। এরপর তারা জানতে পারেন বেঙ্গল প্রজাতির বিড়ালগুলো খুব উদ্যোমী ও শক্তিশালী হয়ে থাকে। আর এরপরি তারা নিয়ে আসেন সুকি’কে ।

সুকি’কে নিয়ে আসার কিছু দিনের মধ্যেই সে শিখে নেয় পাহাড়ে চড়তে, ক্যাম্পিং করতে ও নৌকায় ভ্রমণে ।

বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও ইউরোপ ভ্রমণ করেছে সুকি।

আপনার মতামত লিখুন :

এনক্রিপটেড প্ল্যাটফর্মে ফাইল শেয়ারিং কতটা নিরাপদ?

এনক্রিপটেড প্ল্যাটফর্মে ফাইল শেয়ারিং কতটা নিরাপদ?
হোয়াটসঅ্যাপ ও টেলিগ্রামে ফাইল শেয়ারিং নিরাপদ নয়, ছবি: সংগৃহীত

অনলাইনে প্রাইভেট মেসেজিংয়ের জন্য এবং ফাইল শেয়ারের জন্য বেশির ভাগ মানুষই বেছে নেন এনক্রিপটেড মেসেজিং অ্যাপ টেলিগ্রাম ও হোয়াটসঅ্যাপ। কিন্তু আসলেই কি নিরাপদ এসব প্ল্যাটফর্ম?

সোমবার (১৫ জুলাই) সাইবার সিকিউরিটি গবেষণা ফার্ম সিম্যানটেকের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, হোয়াটসঅ্যাপ এবং টেলিগ্রামে ইউজারদের ফাইল শেয়ারিংয়ে ঝুঁকি রয়েছে। এখানে হ্যাকাররা চাইলে শেয়ার করা ছবি এবং অডিও ফাইল বিকৃত করে দিতে পারে। যা গ্রাহকদের তথ্যের গোপনীয়তা এবং নিরাপত্তার জন্য অনেক বড় ঝুঁকি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, উভয় প্ল্যাটফর্মে যে সিস্টেম্যাটিক ত্রুটি পাওয়া গেছে তাকে ‘মিডিয়া ফাইল জ্যাকিং’ বলা হচ্ছে। যা অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেমের হোয়াটসঅ্যাপে ‘বাই ডিফল্ট’ ভাবে আছে। অন্যদিকে টেলিগ্রামের যদি কিছু ফিচার সচল থাকে তাহলে এখানেও ঝুঁকি রয়েছে।

গবেষকদের মতে, হোয়াটসঅ্যাপ থেকে ফাইল অটোম্যাটিক ভাবেই ডাউনলোড হয়ে যায়। আর টেলিগ্রাম থেকে ফাইল সেভ করতে গেলে ফোনের ‘গ্যালারি’ অপশনটি উন্মুক্ত হয়ে যায়। কিন্তু এ দুই অ্যাপের কোনোটিতেই ইজারেদের তথ্য নিরাপত্তা স্বার্থে ‘প্রোটেকটেড’ কোনো ফাইল সেভিং অপশন নেই।

মিডিয়া ফাইল জ্যাকিং ব্যাকগ্রাউন্ডে কাজ করতে থাকে এবং ফটো আদান-প্রদানে নজরদারি রাখে। এর ফলে হ্যাকাররা ইউজারদের অনুমতি ছাড়াই তাদের ব্যক্তিগত তথ্য, তথ্য বিকৃত এবং ফেক নিউজ ছড়ানোর মতো অপরাধ করতে পারে। যা সামাজিক এবং ব্যক্তি জীবনে একটি বড় বিপর্যয় ডেকে নিয়ে আসতে পারে।

গত মে মাসে হোয়াটসঅ্যাপের সিস্টেমে বাগ বা ত্রুটি পাওয়া যায়। যা ইউজারদের কথোপকথনের সময় তাদের অজান্তেই সিস্টেমে প্রবেশ করতে পারে। যা দিয়ে দূর থেকে বসেই অন্যের ফোনে আড়ি পাতা যায়।

তবে হোয়াটসঅ্যাপ, টেলিগ্রামের মতো ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং অ্যাপগুলো এসব সিস্টেমেটিক ত্রুটি সংশোধনে কাজ করছে। এজন্য তারা প্রায়ই তাদের নতুন আপডেট ভার্সনগুলো ইউজারদের ব্যবহার করার পরামর্শ দেয়।

গ্যাজেটস নাও অবলম্বনে

ব্যাংক নোটে কম্পিউটার বিজ্ঞানের জনক

ব্যাংক নোটে কম্পিউটার বিজ্ঞানের জনক
ব্যাংক নোটে অ্যালান টুরিং, ছবি: সংগৃহীত

কম্পিউটার জগতের অগ্রদূত এবং কোডব্রেকার অ্যালান টুরিংয়ের ছবি দিয়ে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের ৫০ পাউন্ডের নতুন নোটের ডিজাইন করা হবে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় টুরিং প্রত্যক্ষভাবে জার্মান নৌবাহিনীর গুপ্তসংকেত উদ্ধার করে যুদ্ধ জয়ের জন্য গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।

ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের গভর্নর মার্ক কার্নি বলেন, ‘অ্যালান টুরিং একজন অসাধারণ গণিতবিদ ছিলেন। তার আবিষ্কার এবং কর্মের ফল আমরা আমাদের নিত্যদিনের কাজের মধ্যে উপলব্ধি করছি।’

এই ৫০ পাউন্ডের নোটটি হবে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের শেষ নোট যা পেপার থেকে পলিমারে রূপান্তর হবে। এই নোটটি ২০২১ সালের শেষের দিকে ছাড়া হবে। ৫০ পাউন্ডের নোটটি ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ-মূল্যের নোট। যা প্রতিদিনকার লেনদেনে খুব কমই ব্যবহৃত হয়।

অ্যালান টুরিং একজন ব্রিটিশ গণিতবিদ, যুক্তিবিদ ও ক্রিপ্টোবিশেষজ্ঞ ছিলেন। তাকে কম্পিউটার বিজ্ঞান এবং আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের জনক বলা হয়। আর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মান নৌবাহিনীর গুপ্তসংকেত উদ্ধারে অবদান রাখায় তাকে দেশটির বীরযোদ্ধাও বলা হয়।

তবে অন্য আর দশ জন সাধারণ মানুষের মতো সাধারণ মৃত্যু হয়নি টুরিংয়ের। ইংল্যান্ডের তৎকালীন আইন অনুযায়ী ১৯৫২ সালের দিকে সমকামিতার অপরাধে তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৫৪ সালে ৪১ বছর বয়সে আত্মহত্যা করেন টুরিং।

গত ২০১৩ সালে টুরিংকে দোষী সাব্যস্ত করার অপরাধে রাজকীয় ক্ষমা করা হয়েছিল তাকে।

এর আগে মানবাধিকার এবং এলজিবিটিদের অধিকার আদায়ের জন্য কাজ করেন পিটার টাচেল, টুরিংকে ক্ষমা এবং তার ছবি ব্যাংক নোটে নির্বাচনের জন্য ক্যাম্পেইন পরিচালনা করেছিলেন।

সূত্র: বিবিসি

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র