Alexa

অস্বাভাবিক কর্মকাণ্ডে অ্যাকাউন্ট মুছে দিয়েছে ফেসবুক

অস্বাভাবিক কর্মকাণ্ডে অ্যাকাউন্ট মুছে দিয়েছে ফেসবুক

২৬৫ অ্যাকাউন্ট, পেইজ ও গ্রুপ মুছে দিয়েছে ফেসবুক/ ছবি: সংগৃহীত

তথ্যই শক্তি। আর এখন প্রযুক্তির যুগে এই প্রযুক্তিও একটি শক্তি। তবে প্রযুক্তির ভালো দিকগুলো থাকা সত্ত্বেও কিছু মানুষ ব্যবহার করছে সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার জন্য।

তেমনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে যখন বিভিন্ন গ্রুপ, পেইজ ও অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে অন্য ব্যবহারকারীদেরকে ভুল পথে পরিচালিত করা হয় তাকে ‘ইনঅথেনটিক বিহেভিয়র’ বলা হয়।

১৬ এপ্রিল ফেসবুক থেকে ২৬৫ ফেসবুক অ্যাকাউন্ট, ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট, পেইজ, গ্রুপ ফেসবুক থেকে মুছে দেওয়া হয়েছে। বলা হচ্ছে এসব অ্যাকাউন্ট ইসরাইলের সাথে যুক্ত ছিল। তারা এই অ্যাকাউন্টগুলো থেকে এশিয়া, ল্যাটিন আমেরিকা ও আফ্রিকায় ফেসবুক ব্যবহারকারীদেরকে লক্ষ্য করে তাদের কর্যক্রম পরিচালনা করত।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, ‘ইনঅথেনটিক’ কার্যক্রমগুলো একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলের মানুষদের লক্ষ করে করা হয়। এই নেটওয়ার্কের পেছনে ফেইক অ্যাকাউন্টগুলো তাদের কনটেন্ট অন্যদের মাঝে ছড়িয়ে দেয়। নির্দিষ্ট কিছু মানুষ বা গ্রুপ মিলে সমাজের অন্যদেরকে পথভ্রষ্ট করে নিজের স্বার্থ উদ্ধারের জন্য এসব কাজ চালায়।

ফেসবুকের সাইবার সিকিউরিটি প্রধান নাথানিয়েল বলেন, ‘ইসরাইলের আর্কেমিডিস গ্রুপ এসব কার্যক্রম পরিচালনা করেছে। আর্টিফিসিয়াল প্রযুক্তির মাধ্যমে তাদের পেইজগুলোর এঙ্গেজমেন্ট বাড়ায়।  তবে ইতোমধ্যে এসব গ্রুপের কার্যক্রম এবং  এর সাথে যুক্ত অন্যান্য অ্যাকাউন্টগুলোর কাজ ফেসবুক থেকে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এর মধ্যে আর্কেমিডিসদের ৬৫ ফেসবুক অ্যাকাউন্ট, ১৬১ পেইজ, ১২টি ইভেন্ট ও  চারটি ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট রয়েছে। এসব অ্যাকাউন্টের ২৮ লাখ অনুসারী ছিল।’

‘এসব অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে তারা নিজেদেরকে স্থানীয় ও স্থানীয় গণমাধ্যমের বলে নিজেদের পরিচয় দিত। আর তারা রাজনীতিক বিষয়ে ফাঁশ হওয়া তথ্যগুলো তাদের পেইজ, গ্রুপে শেয়ার করত।’

এই পেজের অ্যাডিমন অ্যাকাউন্টগুলো থেকে প্রতিনিয়তই রাজনৈতিক খবর, বিভিন্ন দেশের নির্বাচন, প্রথীদের মতামত, সমালোচনা ও বিরোধীদলের মতামতগুলো তাদের অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে তুলে ধরত।

তবে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, তাদের অ্যাকাউন্ট মুছে দেওয়া হয়েছে কোনো পোস্ট বা কনটেন্টের জন্য নয় বরং তাদের আচরণের জন্য।

সূত্র: গ্যাজেটস নাও।

আপনার মতামত লিখুন :