Barta24

মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

বাংলাফোনকে অবৈধ ঘোষণা হাইকোর্টের

বাংলাফোনকে অবৈধ ঘোষণা হাইকোর্টের
ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) লাইসেন্সপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান বাংলাফোন লিমিটেড এর সকল কার্যক্রমকে অবৈধ ঘোষণা করেছেন হাইকোর্টে। এই অবস্থায় বাংলাফোনের কাছ থেকে যে কোন সেবা নেওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য টেলিকম অপারেটরদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেজুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি)।

সোমবার (৮ অক্টোবর) বিটিআরসি কার্যালয়ে আয়োজিত 'অবৈধ কল টার্মিনেশন প্রতিরোধে গৃহিত পদক্ষেপ' শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জনান বিটিআরসি চেয়ারম্যান মোঃ জহুরুল হক।

তিনি বলেন, ‘বাংলাফোন তাদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য যে আপিল করেছিলো, তা বাতিল করে দিয়ে এই কোম্পানির সকল কার্যক্রমকে অবৈধ ঘোষণা করেছেন উচ্চ আদালত। তাই তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে বিটিআরসি’র আর কোন বাধা রইল না।’

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, নির্ধারিত সময়ে কার্যক্রম শুরু করতে না পারায় গত বছর ১১টি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিলের উদ্যোগ নেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা। প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে ঐ বছরের এপ্রিলে বাংলাফোন ছাড়াও লাইসেন্স পাওয়া আরো ১০ প্রতিষ্ঠানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। টেলিযোগাযোগ আইন-২০০১ এর ধারা-৪৬ এর ২ উপধারা অনুযায়ী এ নোটিশ দেয় বিটিআরসি।

বর্তমানে রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশনস কোম্পানি লিমিটেডসহ (বিটিসিএল) আইআইজি লাইসেন্স পাওয়া প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৩৭টি। এর মধ্যে বিটিসিএল ও ম্যাঙ্গো টেলিসার্ভিসেস লাইসেন্স পায় ২০০৮ সালে। ২০১২ সালে নতুন করে আইআইজি লাইসেন্স দেওয়ার উদ্যোগ নেয় কমিশন। ঐ সময়ই লাইসেন্স পায় বাংলাফোন।

আপনার মতামত লিখুন :

আরো শক্তিশালী হলো রবির নেটওয়ার্ক

আরো শক্তিশালী হলো রবির নেটওয়ার্ক
ছবিঃ বার্তা২৪.কম

বিদ্যমান তরঙ্গ থেকেই অধিক এলটিই-সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে ‘অটোম্যাটিক শেয়ার্ড ক্যারিয়ার সল্যুশন’ স্থাপন করেছে রবি।

এই অত্যাধুনিক প্রযুক্তির নেটওয়ার্ক সিস্টেম ব্যবহার করায় লিগ্যাসি ব্যান্ডের মাধ্যমে এলটিই-সক্ষমতা বৃদ্ধি করবে। যাতে গ্রাহক পর্যায়ে ইন্টারনেট গতি বৃদ্ধি পাবে প্রায় তিন গুণ।

মালয়েশিয়া, শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশের হেড অব এরিকসন টড অ্যাশটন বলেন, ফোরজি সেবার আওতা বৃদ্ধি পাচ্ছে তাই ফোরজি সেবার উন্নয়নে উন্নততর প্রযুক্তিতে বিনিয়োগের মাধ্যমে ভয়েস কল সেবা বাঁধাগ্রস্ত না করেই ফোরজি সেবার উন্নয়ন ঘটানো প্রতিটি অপারেটরের জন্যে আবশ্যকীয় কাজে পরিণত হয়েছে।

রবি আজিয়াটা লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী মাহতাব উদ্দিন আহমেদ বলেন, ভয়েস কলের মানের সঙ্গে আপোস না করেই ফোরজি অভিজ্ঞতা উন্নতর করবে এ সমাধান।

রবি আজিয়াটার চিফ টেকনোলজি অ্যান্ড ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন অফিসার মেধাত আল হুসেইনি বলেন, এরিকসন অটোম্যাটিক শেয়ার্ড ক্যারিয়ার স্থাপনের মাধ্যমে গ্রাহক অভিজ্ঞতা ভালো করতে এবং ইন্টারনেটের গতি বৃদ্ধিতে উদ্যোগী হয়েছি। এরিকসনের সহায়তায় আমাদের টিম নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের এ কাজটি করে।

এই  প্রযুক্তির মাধ্যমে উল্লেখযোগ্য হারে স্পেকট্রাম এফিসিয়েন্সি বৃদ্ধি করার মাধ্যমে গ্রাহক পর্যায়ে উন্নত সেবা দিতে সক্ষম হবে রবি।

মাইক্রোসফটের ফোল্ডেবল ডিভাইস?

মাইক্রোসফটের ফোল্ডেবল ডিভাইস?
মাইক্রোসফটের ফোল্ডেবল ডিভাইস, ছবি: প্রতীকী

সম্প্রতি মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে (২০১৯) সবচেয়ে আলোচিত বিষয় ছিল ৫জি ফোল্ডেবল স্মার্টফোন। আর ফোল্ডেবল ফোনের জনক স্যামসাং সর্বপ্রথম প্রদর্শন করে ফোল্ড স্মার্টফোন। পরবর্তীতে এই প্রতিযোগিতায় চীনা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে, লেনোভো, এলজির পরে এবার অংশ নিচ্ছে টেক জায়ান্ট মাইক্রোসফট।

এর আগে অনেক গুঞ্জন ওঠেছে মাইক্রোসফটের ফোল্ডেবল ডিভাইস নিয়ে কাজ করার কথা। সম্প্রতি ফোর্বসের প্রতিবেদনে বলা হয়, মাইক্রোসফটের সারফেস সিরিজ টি হবে ফোল্ডেবল। যাকে বলা হবে মাইক্রোসফটের ফোল্ডেবল সারফেস ল্যাপটপ। এই ফোল্ডেবল সারফেসে উইন্ডোজ ১০ চলবে।

ইতোমধ্যে, মাইক্রোসফট উইন্ডোজ কোর অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে কাজ করছে। যা বিশেষভাবে ফোল্ডেবল ডিভাইসে ব্যবহারের জন্য তৈরি করা হবে। ল্যাপটপটিতে ফাইভজি নেটওয়ার্ক ও ডুয়েল ডিসপ্লের ইউজার ইন্টারফেস সুবিধা থাকবে। এতে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপের পাশাপাশি থাকছে আইক্লাউড সার্ভিস। ফোল্ডেবল ডিভাইসটি খুললে একটি ৯ ইঞ্চির ট্যাবের আকার ধারণ করে।

এর কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করতে রয়েছ ইন্টেলের লেকফিল্ড চিপসেট এবং সর্বোচ্চ দ্রুতগতির ৫জি নেটওয়ার্কের সুবিধা।
সম্প্রতি প্রতিবেদনে বলা হয়, মাইক্রোসফটের এটি একটি ডুয়াল স্ক্রিনের সারফেস হবে। ভার্জের প্রতিবেদনে বলা হয়, এর কোড নাম দেওয়া হয়েছে সেন্টুরাস যা অনেকটা মাইক্রোসফটের কুরিয়ার ট্যাবলেটের মত।

এছাড়া মাইক্রোসফট ফোল্ডেবল ফোন নিয়েও কাজ করছে। যার দুটি ডিসপ্লে থাকবে কিন্তু প্রয়োজনে ভাঁজ করে একটি হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। তবে অন্য অংশটি প্রয়োজন হলে ব্যবহার করা যাবে। একে বলা হচ্ছে ‘পকেটেবল’ সারফেস ডিভাইস, যার কোড নাম হচ্ছে অ্যান্ড্রোমেডা।

তবে এর আগে চীনা প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান লেনোভো সর্বপ্রথম ফোল্ডেবল কম্পিউটার প্রদর্শনী করে। যা আগামী ২০২০ সালে বাজারে ছাড়বে প্রতিষ্ঠানটি।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র