Barta24

মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬

English

সোনার বারসহ চোরাকারবারি আটক

সোনার বারসহ চোরাকারবারি আটক
ফাইল ছবি
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
মেহেরপুর


  • Font increase
  • Font Decrease

মেহেরপুরের শুভরাজপুর সীমান্ত থেকে ৮ পিস সোনার বারসহ নামাজ আলী (২৭) নামে এক চোরাকারবারিকে আটক করেছে বিজিবি।

রোববার (১১ আগস্ট) বিকেলে শুভরাজপুরের ২৩২ নম্বর আন্তর্জাতিক সীমানা পিলার এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

আটক নামাজ আলী শুভরাজপুর গ্রামের নজিবদ্দীনের ছেলে।

বিজিবি কাথুলী কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার আইয়ুব হোসেন এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ওই ৮ পিস সোনার বারের ওজন ও দাম তাৎক্ষণিকভাবে বলা যাচ্ছে না।

আপনার মতামত লিখুন :

১৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি শিশু মুরসালিন, গ্রেফতার ২

১৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি শিশু মুরসালিন, গ্রেফতার ২
শিশু মুরসালিন সরদার। ছবি: সংগৃহীত

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে মুরসালিন সরদার (৬) নামে এক শিশু অপহরণ মামলায় ২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে ১৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি শিশুটি। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- কাশিয়ানী উপজেলার সাজাইল ইউনিয়নের আমডাকুয়া গ্রামের আসাদ মুন্সী (৬০) ও হারুন সরদার (৫৭)।

রোববার (১৮ আগস্ট) নিখোঁজ মুরসালিনের বাবা বাচ্চু সরদার বাদী হয়ে কাশিয়ানী থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২ আগস্ট দুপুরে শিশু মুরসালিন বাড়ির পাশে মসজিদে নামাজ আদায় শেষে বাড়ি ফিরছিল। পথে সাজাইল পুরানো ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের কাছে পৌঁছালে অজ্ঞাত ৫-৬ লোক একটি সাদা মাইক্রোবাসে মুরসালিনকে জোর করে তুলে নিয়ে দ্রুত ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দিকে নিয়ে যায়।

মুরসালিন গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীর সাজাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শ্রেণির ছাত্র ও আমডাকুয়া গ্রামের বাচ্চু সরদারের ছেলে।

কাশিয়ানী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজিজুর রহমার জানান, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে সোমবার (১৯ আগস্ট) জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জে নৃত্যশিল্পীকে গণধর্ষণ, তিন যুবক গ্রেফতার

নারায়ণগঞ্জে নৃত্যশিল্পীকে গণধর্ষণ, তিন যুবক গ্রেফতার
ছবি: সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলায় এক নারী নৃত্যশিল্পীকে গণধর্ষণের অভিযোগে তিন যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় পলাতক রয়েছেন আরও দুই যুবক।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) বেলা ১২টায় উপজেলার সৌচারগাঁও এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এর আগে সকালে ধর্ষণের ঘটনায় ওই নারী বাদী হয়ে সোনারগাঁও থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় গ্রেফতারকৃত তিনজন সহ পাঁচ যুবকের নাম উল্লেখ করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- উপজেলার সৌচারগাঁও এলাকার আব্দুল্লাহর ছেলে মাহমুদুল হাসান (২৩), তার সহযোগী কালীগঞ্জ এলাকার মৃত আলী আহমেদের ছেলে শফিকুল ইসলাম (২৪) ও ইলিহাসদি এলাকার হাসান মিয়ার ছেলে সজিব মিয়া (২১)। আর পলাতক রয়েছেন সানজিদ ও সিয়াম।

সোনারগাঁও থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) কামাল হোসেন জানান, বন্দর উপজেলার লক্ষণখোলা এলাকার নারী নৃত্যশিল্পীর (২৫) সঙ্গে মাহমুদুল হাসানের পূর্ব পরিচয় ছিল। এর সূত্রে ধরে মাহমুদুল হাসান নিজেকে একটি কোম্পানিতে চাকরিজীবী এবং সেই কোম্পানির বার্ষিক অনুষ্ঠান আছে এমন মিথ্যা কথা বলে নাচের জন্য আমন্ত্রণ জানায়। ওই আমন্ত্রণে ১৯ আগস্ট সকালে ওই নারী মামুন নামে তার বন্ধুকে নিয়ে সোনারগাঁয়ে আসেন।

সেখানে পৌঁছালে মাহমুদুল হাসানের বন্ধু সিয়াম ধারালো ছুরি দেখিয়ে হত্যার ভয় দেখিয়ে মামুনকে সেখান থেকে নিয়ে যায়। পরে অন্যান্য বন্ধুদের সহযোগিতায় মাহমুদুল প্রথমে ওই নারী নৃত্যশিল্পীকে ধর্ষণ করে। পর্যায়ক্রমে অন্য বন্ধুরাও ধর্ষণ করে। এ সময় নারী চিৎকার শুরু করলে মাহমুদুল সহ তার বন্ধুরা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা নারীকে উদ্ধার করে স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করে। চিকিৎসা শেষে মঙ্গলবার সকালে সোনারগাঁ থানায় মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী।

সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'গণধর্ষণের মামলায় তিন যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। আরও দুই যুবককে গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত যুবকেরা অপরাধ স্বীকার করেছে। তাই ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি গ্রহণের জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া ওই নারী নৃত্যশিল্পীর পরীক্ষার জন্য নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।'

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র