Barta24

শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

English

ব্যবস্থাপত্রের অবস্থা বেহাল!

ব্যবস্থাপত্রের অবস্থা বেহাল!
ডা. মানিক লাল মজুমদারের ব্যবস্থাপত্র/ ছবি: সংগৃহীত
মনিরুজ্জামান বাবলু
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডে
চাঁদপুর
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ওষুধ কিনতে ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র বা প্রেসক্রিপশন নিয়ে পরপর সাতটি দোকানে গেলেন চাঁদপুর সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী জাহিদুল ইসলাম। সব দোকান থেকে জানানো হলো, ‘লেখা বুঝি না, তাই ওষুধ দিতে পারব না!’

জাহিদুল ইসলাম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘আমাদের গ্রামের বাসিন্দা মোবারকের ছেলে খুব অসুস্থ। তার ওষুধ কিনতে রোববার সকালে হাজীগঞ্জ বাজারের ফার্মেসিগুলোতে গিয়েছিলাম। কিন্তু ওষুধ কিনতে পারিনি। কারণ ব্যবস্থাপত্রের লেখা খুবই অস্পষ্ট। ডাক্তার যদি স্পষ্ট করে লিখত, তাহলে আমাকে সাতটি দোকানে হাঁটতে হতো না।’

জানা গেছে, ঐ ব্যবস্থাপত্র লিখেছেন শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মানিক লাল মজুমদার। তিনি হাজীগঞ্জ বাজারের নবীন ফার্মেসিতে নিয়মিত রোগী দেখেন। ঐ ফার্মেসি তারই তত্ত্বাবধানে চলে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/11/1565525640200.gif

রোববার (১১ আগস্ট) দুপুরে সরজমিনে ডা. মানিক লাল মজুমদারের চেম্বারে গিয়ে দেখে গেছে, সেখানে রোগীদের যথেষ্ট ভিড় আছে। আর তিনি রোগী দেখছেন। চারজন কর্মচারী রোগীর প্রেসক্রিপশন বা ব্যবস্থাপত্র হাতে নিয়ে ওষুধ কিনতে তোড়জোড় করছেন।

হাজীগঞ্জ বাজারের একাধিক ফার্মেসি কর্মচারী জানান, ডা. মানিক লাল মজুমদারের ব্যবস্থাপত্রের অক্ষর স্পষ্ট না হওয়ায় তাদের ওষুধ বিক্রি করতে বেশ সমস্যা হয়। তিনি এমনভাবে ব্যবস্থাপত্র লেখেন যেন তার ফার্মেসি থেকে রোগীরা ওষুধ কিনতে বাধ্য হন।

হাজীগঞ্জ বাজার ফার্মেসি মালিক সমিতির সভাপতি সোলেমান মজুমদার জানান, ব্যবস্থাপত্রে ইংরেজি বড় অক্ষরে লেখার নির্দেশনা রয়েছে। আর হাজীগঞ্জ বাজারে প্রায় ৬০টি ফার্মেসি রয়েছে। কিন্তু কেউ মানিক লালের করা ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী ওষুধ বিক্রি করতে পারেন না।

সমিতির সাধারণ সম্পাদক তালাল মিয়া জানান, মানিক লালের ব্যবস্থাপত্রের অক্ষর বুঝতে বেশ কষ্ট হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/11/1565525655325.gif

ডা. মানিক লাল মজুমদার বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘আমি ৪০ বছর ধরে এভাবেই ব্যবস্থাপত্র লিখছি। কিন্তু কখনো কেউ অভিযোগ করেনি। তবে ফার্মেসিগুলোতে ট্রেইনিংপ্রাপ্ত ফার্মাসিস্ট না থাকায় ব্যবস্থাপত্র বুঝতে সমস্যা হয়ে থাকতে পারে।’

তবে ইংরেজি বড় অক্ষরে ব্যবস্থাপত্র লেখার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ঐ আইনের বিষয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে।’

এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জিয়াউল ইসলাম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘এমন ব্যবস্থাপত্র রোগীদের জন্য বিপদজনক। ব্যবস্থাপত্র স্পষ্ট ও বড় অক্ষরে লিখতে সরকারি নির্দেশনা রয়েছে।’

আপনার মতামত লিখুন :

নিখোঁজের ৩ দিন পর যুবকের মরদেহ উদ্ধার

নিখোঁজের ৩ দিন পর যুবকের মরদেহ উদ্ধার
মরদেহ উদ্ধারের প্রতীকী ছবি

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় নিখোঁজের ৩ দিন পর রাজিব খান (২০) নামের এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২৪ আগস্ট) বেলা ১১টার দিকে উপজেলার হরিনাহাটির পয়সারহাট-ঘাঘর খাল থেকে ভাসমান অবস্থায় ওই যুবকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত যুবক রাজিব খান কোটালীপাড়া উপজেলার পশ্চিম হরিনাহাটি গ্রামের পিন্টু খানের ছেলে।

আরও পড়ুন: ১৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি শিশু মুরসালিন, গ্রেফতার ২

কোটালীপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: লুৎফর রহমান জানান, গত বৃহস্পতিবার বিকেলে নিজ বাড়ি থেকে বের হন রাজিব। এরপর নিখোঁজ হলে পরিবারের লোকজন বিভিন্নস্থানে খোঁজ করেও তার সন্ধান পায়নি।

আজ শনিবার সকাল ১১টার দিকে বাড়ির পাশের পয়সারহাট-ঘাঘর খালে রাজিবের মরদেহ ভাসতে দেখে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে। মরদেহের ময়না তদন্তের জন্য গোপালগঞ্জের ২৫০-শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন: স্মৃতির টানে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুপ্রেমীদের ভিড়

বগুড়ায় দুর্ঘটনায় নিহত সেনা সদস্যের বাড়ি লক্ষ্মীপুরে

বগুড়ায় দুর্ঘটনায় নিহত সেনা সদস্যের বাড়ি লক্ষ্মীপুরে
নিহত সেনা সদস্য আবদুল আজিজ। ছবি: সংগৃহীত

বগুড়ার শিবগঞ্জ সীমান্ত এলাকায় যাত্রীবাহী বাস উল্টে আবদুল আজিজ (৪৫) নামে এক সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। তিনি লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের চর জাঙ্গালিয়া গ্রামের নুরুল হুদা মাস্টারের ছেলে। তবে তিনি কোন রেজিমেন্টে কর্মরত ছিলেন তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। তার মৃত্যুর খবরে গ্রামের বাড়িতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

শনিবার (২৪ আগস্ট) সকালে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার রহবল পুলিশবক্স নামক স্থানে দুর্ঘটনায় মারা যান তিনি। আজিজের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সহকর্মী সেনা সদস্য মো. হারুন অর রশিদ।

জানা গেছে, ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা সৌখিন ট্রাভেলস নামে একটি বাস রংপুরের দিকে যাচ্ছিল। এ সময় রহবল পুলিশবক্স নামক স্থানে পৌঁছালে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে উল্টে যায়।

এতে ঘটনাস্থলে বাসযাত্রী সেনা সদস্য আবদুল আজিজ নিহত হন। এতে কমপক্ষে আরও ১২ যাত্রী আহত হয়েছেন। এ ঘটনার খবর পেয়ে গোবিন্দগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কার্যক্রম চালায়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র