Barta24

মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬

English

ঈদ নেই নিহত-নিখোঁজ জেলেদের পরিবারে

ঈদ নেই নিহত-নিখোঁজ জেলেদের পরিবারে
বাবা সাগরে মাছ ধরতে গিয়ে ট্রলারডুবিতে মারা গেছেন, তাই ঈদের আনন্দ নেই এই শিশুদের/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
মোকাম্মেল মিশু
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ভোলা


  • Font increase
  • Font Decrease

গত ৬ জুলাই ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার নুরাবাদ, জিন্নাগড় ও মাদ্রাজ ইউনিয়নের ৩৩ জন জেলে দুটি নৌকা নিয়ে সাগরে মাছ ধরতে যান। বিরূপ আবহাওয়ার কবলে পড়ে সাগরের কোনো এক জায়গায় ডুবে যায় ট্রলার দুটি।

পরে ৯ জুলাই ডুবে যাওয়া একটি ট্রলার গিয়ে পৌঁছে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে। সেখান থেকে উদ্ধার করা হয় সাতটি মরদেহ। জীবিত পাওয়া যায় মনির মাঝি ও জুয়েল মাঝি নামের দুই জনকে। বাকি ২৪ জনের সন্ধান এখনো মেলেনি।

ট্রলারডুবিতে পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তির প্রাণহানি ও নিখোঁজের কারণে অসহায় হয়ে পড়েছে চরফ্যাশনের জেলে পরিবারগুলো। সংসার চালানোই যেখানে অসাধ্য, সেখানে ঈদ, কোরবানি রীতিমতো দুঃস্বপ্ন তাদের কাছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/10/1565437732086.gif

শত কষ্টের মাঝেও পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঈদে বিভিন্ন উদযাপনে মেতে উঠে জেলে পরিবারগুলো। গত বছরও যারা আনন্দ উৎসবের মধ্য দিয়ে ঈদ উদযাপন করেছিল। কিন্তু এ বছর তাদের পরিবারে চলছে শুধুই কান্না। ঈদ উপলক্ষে এসব পরিবারগুলোর পাশে নেই কেউ।

আরও পড়ুন: বঙ্গোপসাগরে ট্রলারডুবি: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭

এসব পরিবারের অসহায় মা, বিধবা স্ত্রী আর ছোট ছোট এতিম শিশুদের চোখে-মুখে এখন শুধুই হতাশা আর কান্না। উপার্জনকারী ব্যক্তি নেই, সংসারের হাল ধরবে কে- তা নিয়ে দুশ্চিন্তার শেষ নেই তাদের। এমনকি ঈদের আনন্দও তাদের কাছে শোকে পরিণত হয়েছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/10/1565437756926.gif

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার জিন্নাগড়, মাদ্রাজ, সামরাজ ও নুরাবাদ ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে ট্রলার ডুবিতে নিহত ও নিখোঁজ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আলাপ করে এসব তথ্য জানা গেছে।

ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী সমিতি চরফ্যাশনের সভাপতি নান্নু মোল্লা বলেন, ‘সাগরে মাছ ধরতে যেয়ে ৩১ জন জেলে মারা গেছেন। তার মধ্যে সাত জনের লাশ পেয়েছি, বাকি সবাই নিখোঁজ।‘

নিখোঁজ জেলে শাহাবুদ্দিনের স্ত্রী তার ছোট শিশুকে দেখিয়ে বলেন, ‘বাপ থাকলে বাপের থেকে একটা জিনিস চাইত, এখন বাপ নাই, চাইতে পারে না। মায়ের কাছে চায়, মা আমারে জামা কাপড় দাও, মা আমারে টাকা দাও, মা আমার জন্য এই মাংস আন। আমার তো টাকা নাই। আমি কেমনে দিমু, আমি নিজেই তো চলতে পারি না।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/10/1565437778516.gif

নিহত জেলে মাকছুদের স্ত্রী বলেন, ‘ঈদের দিন কি করমু পোলাপাইন তো এখনি কানতে আছে। বাবা থাকলে অনেক কিছুই করতো, এখন তো আমি কিছুই করতে পারি না।’

নিহত শাজাহান মাঝির ছেলে রাকিব বলেন, ‘ঈদে যে আমাদের দিকে তাকাবে- এমন কেউ নাই। আমার বাবা থাকলে অনেক টাকা পয়সা দিত। ঈদে আমরা আনন্দ করতাম।’

নিহত জেলে অলিউল্লাহ গাছির স্কুল পড়ুয়া মেয়ে স্বপ্না কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘আমার বাবা মারা গেছে, আমাগো ঈদে টাকা পয়সা দিব কে? আমাগো জামা-কাপড় বানাইয়া দিব কে? স্কুলে যাওয়ার সময় টাকা দিব কে?’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/10/1565437793029.gif

জেলা মৎস্য বিভাগ জানিয়েছে, গত তিন বছরে ভোলা জেলায় ১১২ জন জেলে সাগরে মাছ ধরতে গিয়ে মারা গেছেন। নিখোঁজ হয়েছেন ১ ৫৭ জন।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মোঃ আকরাম হোসেন বলেন, ‘সমুদ্রে যারা মৃত্যুবরণ করেছেন, তাদের প্রতিটি পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে প্রদান করা হয়েছে। যারা নিখোঁজ হয়েছেন, তাদের পরিবারকে স্থানীয়ভাবে কিছু চাল দেওয়া হয়েছে। সরকারি পরিপত্রের আলোকে যদি কোনো বরাদ্দ আসে, তাহলে তাদের মাঝে পৌঁছে দেওয়া হবে।’

আরও পড়ুন: বঙ্গোপসাগরে ট্রলারডুবিতে নিহত সবাই চরফ্যাশনের

আপনার মতামত লিখুন :

কুষ্টিয়ায় পিস্তল, গুলি, ম্যাগাজিন ইয়াবাসহ আটক ৫

কুষ্টিয়ায় পিস্তল, গুলি, ম্যাগাজিন ইয়াবাসহ আটক ৫
আটক হওয়া ৫ আসামি, ছবি: সংগৃহীত

কুষ্টিয়ায় ১টি পিস্তল, পিস্তলের ২ রাউন্ড গুলি, ১টি ম্যাগাজিন এবং ২০০ পিস ইয়াবাসহ ৫ জনকে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) দুপুরে কুষ্টিয়া শহরের থানাপাড়া ঈদগা মাঠের মিনারের সামনে থেকে তাদের আটক করা হয়।

পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাতের সার্বিক দিক নির্দেশনায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই মোঃ সাহেব আলীর নেতৃত্বে কুষ্টিয়া মডেল থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, কুষ্টিয়া শহরের আড়ুয়াপাড়া মন্ডলপাড়া এলাকার জয়নাল আবেদীনের ছেলে মোঃ আবু সাইদ (৪০), আড়ুয়াপাড়া ১নং মসজিদ বাড়ি লেনের মৃত মোশারফ হোসেনের ছেলে মোঃ কাউছার বাবু ওরফে করিয়া বাবু (৪৫),

সাংউত্তর চর আমলাপাড়া এলাকার মুন্সি ফয়েজুল ইসলামের ছেলে মোঃ শফিউল ইসলাম লিটু (৪২), হাউজিং বি ব্লক,সম্প্রসারণ-১৬ এলাকার মৃত সদর উদ্দিনের ছেলে মোঃ শফিকুল ইসলাম রানা (৩৯), রাজবাড়ী জেলার পশ্চিম ভবানীপুর রেল কলোনী ৮নং ওয়ার্ড এলাকার মৃত হাজী আব্দুস সাত্তারের ছেলে মোঃ ইমরুল হাসান মধু (৩৮)।

এ ঘটনায় আসামিদের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

১৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি শিশু মুরসালিন, গ্রেফতার ২

১৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি শিশু মুরসালিন, গ্রেফতার ২
শিশু মুরসালিন সরদার। ছবি: সংগৃহীত

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে মুরসালিন সরদার (৬) নামে এক শিশু অপহরণ মামলায় ২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে ১৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি শিশুটি। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- কাশিয়ানী উপজেলার সাজাইল ইউনিয়নের আমডাকুয়া গ্রামের আসাদ মুন্সী (৬০) ও হারুন সরদার (৫৭)।

রোববার (১৮ আগস্ট) নিখোঁজ মুরসালিনের বাবা বাচ্চু সরদার বাদী হয়ে কাশিয়ানী থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন। তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে সোমবার (১৯ আগস্ট) জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২ আগস্ট দুপুরে শিশু মুরসালিন পাশের মসজিদে নামাজ আদায় শেষে বাড়ি ফিরছিল। পথে সাজাইল পুরানো ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের কাছে পৌঁছালে অজ্ঞাত ৫-৬ লোক একটি সাদা মাইক্রোবাসে মুরসালিনকে জোর করে তুলে নিয়ে দ্রুত ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দিকে যায়।

মুরসালিন গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীর সাজাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শ্রেণির ছাত্র ও আমডাকুয়া গ্রামের বাচ্চু সরদারের ছেলে।

কাশিয়ানী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজিজুর রহমার জানান, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদেরকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র