Barta24

মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬

English

চুয়াডাঙ্গায় পশুর হাটে শেষ সময়ে উপচে পড়া ভিড়

চুয়াডাঙ্গায় পশুর হাটে শেষ সময়ে উপচে পড়া ভিড়
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম।
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
চুয়াডাঙ্গা


  • Font increase
  • Font Decrease

শেষ সময়ে সীমান্তবর্তী জেলা চুয়াডাঙ্গায় কোরবানির পশুর হাটগুলো জমে উঠেছে। হাটগুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। খামারিরা গরু-ছাগল বিক্রির জন্য হাটে তুলছেন।

এদিকে হাটে পশুর দাম তুলনামূলক কম রয়েছে বলে দাবি ব্যবসায়ীদের। তাদের মতে, শেষ সময়ে পশুগুলো আর ধরে রাখতে চান না। তাই সামান্য লাভ থাকলেই কোরবানির পশু বিক্রি করে দিচ্ছেন তারা।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গায় অনুমোদিত কোরবানির পশু বিক্রির হাট রয়েছে ৬টি। জেলার বড় হাটগুলো ইতোমধ্যে শেষ হয়ে যাওয়ায় ছোট ছোট অস্থায়ী হাটগুলোতে ভিড় করছেন ক্রেতারা। এছাড়াও বাড়িতে গিয়ে কোরবানির পশু কিনতে ভিড় করছেন ক্রেতারা। দাম নাগালের মধ্যে হওয়ায় খুশি তারা।

বাইরের জেলা থেকে আসা গরুর ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, এই অঞ্চলের গরুর মান ভালো এবং দামও তুলনামূলক কম। ফলে প্রতিবছর তারা এই জেলায় গরু কিনতে আসেন। মাঝারি সাইজের একটি গরু ৮০-৯০ হাজার টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/10/1565432580935.jpg

এদিকে ব্যবসায়ীরা এলাকার বাড়ি বাড়ি ঘুরে পছন্দের পশু কিনছেন।

চুয়াডাঙ্গা বিজিবি-৬-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়, অবৈধভাবে যাতে ভারতীয় সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে গরু প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। কয়েকজন চোরাকারবারি ভারত থেকে গরু আনার চেষ্টা করায় তাদেরকে আটক করে থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রাণিসম্পদ অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলার চারটি উপজেলায় কোরবানির জন্য ৩৭ হাজার গরু প্রস্তুত করা রয়েছে। এই জেলার খামারিরা ফিজিয়ান জাতের গরু পালন করেছে বেশি। পাশাপাশি এক লাখেরও বেশি ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগল প্রস্তুত রয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার শামিম হোসাইন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, আসন্ন কোরবানিতে জেলায় পর্যাপ্ত গরু-ছাগল প্রস্তুত রয়েছে। প্রতিনিয়ত হাটগুলোতে কোরবানির পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :

নরসিংদীতে বালু উত্তোলনের দায়ে দু’ব্যক্তিকে আটক

নরসিংদীতে বালু উত্তোলনের দায়ে দু’ব্যক্তিকে আটক
বালু উত্তোলনের অবৈধ যন্ত্রপাতি আটক করা হয়, ছবি: সংগৃহীত

নরসিংদীর পুটিয়া বাজারের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের বিষয়ে অভিযান পরিচালনা করেছে নরসিংদী জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) দুপুরে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। নরসিংদী সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: শাহ আলম মিয়ার নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযানের সময় নরসিংদী জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো: শাহরুখ খান উপস্থিত ছিলেন। নরসিংদী সদর উপজেলার সোনাতলা এলাকার একটি চক্র দীর্ঘদিন যাবত ব্রহ্মপুত্র নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে।

ফলে আশপাশের মসজিদ ও দোকানপাট ঝুঁকির সম্মুখীন হচ্ছে। এ অবস্থায় এই অভিযান পরিচালনা করে নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার দায়ে দু’ব্যক্তিকে আটক করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এছাড়া বালু উত্তোলনের কাজে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতিও জব্দ করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

 

কুষ্টিয়ায় পিস্তল, গুলি, ম্যাগাজিন ইয়াবাসহ আটক ৫

কুষ্টিয়ায় পিস্তল, গুলি, ম্যাগাজিন ইয়াবাসহ আটক ৫
আটক হওয়া ৫ আসামি, ছবি: সংগৃহীত

কুষ্টিয়ায় ১টি পিস্তল, পিস্তলের ২ রাউন্ড গুলি, ১টি ম্যাগাজিন এবং ২০০ পিস ইয়াবাসহ ৫ জনকে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) দুপুরে কুষ্টিয়া শহরের থানাপাড়া ঈদগা মাঠের মিনারের সামনে থেকে তাদের আটক করা হয়।

পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাতের সার্বিক দিক নির্দেশনায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই মোঃ সাহেব আলীর নেতৃত্বে কুষ্টিয়া মডেল থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, কুষ্টিয়া শহরের আড়ুয়াপাড়া মন্ডলপাড়া এলাকার জয়নাল আবেদীনের ছেলে মোঃ আবু সাইদ (৪০), আড়ুয়াপাড়া ১নং মসজিদ বাড়ি লেনের মৃত মোশারফ হোসেনের ছেলে মোঃ কাউছার বাবু ওরফে করিয়া বাবু (৪৫),

সাংউত্তর চর আমলাপাড়া এলাকার মুন্সি ফয়েজুল ইসলামের ছেলে মোঃ শফিউল ইসলাম লিটু (৪২), হাউজিং বি ব্লক,সম্প্রসারণ-১৬ এলাকার মৃত সদর উদ্দিনের ছেলে মোঃ শফিকুল ইসলাম রানা (৩৯), রাজবাড়ী জেলার পশ্চিম ভবানীপুর রেল কলোনী ৮নং ওয়ার্ড এলাকার মৃত হাজী আব্দুস সাত্তারের ছেলে মোঃ ইমরুল হাসান মধু (৩৮)।

এ ঘটনায় আসামিদের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র