Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

ঘনবসতিপূর্ণ দেশে রেল খুব গুরত্বপূর্ণ পরিবহন: প্রধানমন্ত্রী

ঘনবসতিপূর্ণ দেশে রেল খুব গুরত্বপূর্ণ পরিবহন: প্রধানমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা/ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
বেনাপোল (যশোর)


  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে যখন দেশের রেল, ব্রিজ কালভার্ট ধ্বংস হয়েছিল তখন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু প্রতিবেশি দেশের সহযোগিতা নিয়ে তা মেরামত করে চলাচলের উপযোগী করেন। আর বিএনপি এ রেল সেবা বন্ধ করে দিতে চেয়েছিল। আমরা ক্ষমতায় এসে রেল সেবা মানুষের দোরগোড়ায় আনার জন্য মন্ত্রণালয় করেছি। আমাদের ঘন জনবসতিপূর্ণেএ দেশে রেল খুব গুরুত্বপূর্ণ পরিবহন।

বুধবার (১৭ জুলাই) বেলা ১২টা ২২ মিনিটে ঢাকার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

একই সময় ঢাকা-রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ রুটে বর্ধিত বিরতিহীন আন্তঃনগর ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ট্রেনেরও উদ্বোধন করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বাঁশিতে ফু দিয়ে এবং সবুজ পতাকা উড়িয়ে ট্রেন দুটির শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

তিনি আরো বলেন, বেনাপোল বাণিজ্যিক এলাকা। এ পথে রেল সেবা বাণিজ্যের ক্ষেত্রেও বড় ভুমিকা রাখবে। পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগে কোন পরিকল্পনা ছিল না। কিন্তু রেল সংযোগ স্থাপন করা হয়। এখন ঢাকা হয়ে বেনাপোল পৌঁছাতে ৩৮০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হয়। পদ্মা  সেতু চালু হলে  ঢাকা-বেনাপোল রুটে ১৮০ কিলোমিটার রাস্তা কমবে। তখন ঢাকা থেকে মাত্র ৪ ঘণ্টায় ট্রেন পৌঁছাবে বেনাপোল।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563363941346.jpg

বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেন সম্পর্কে বেনাপোল রেল স্টেশন মাস্টার সাইদুজ্জামান জানান, বেনাপোল থেকে প্রথম যাত্রায় ১০৪ জন যাত্রী নিয়ে ট্রেনটি ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। ইতিহাসের সাক্ষী হিসেবে ট্রেনটির চালক ছিলেন বেনজির আহম্মদ।

দেশের প্রথম প্রতিবন্ধীবান্ধব এই ট্রেনের বৈশিষ্ট্য হলো- বায়ো-টয়লেট সংযোজন। ট্রেনটিতে প্রতিবন্ধী যাত্রীদের হুইল চেয়ারসহ চলাচলের সুবিধার্থে থাকছে প্রশস্ত দরজা (মেইন ও টয়লেট দরজা) এবং নির্ধারিত আসনের সুবিধা। প্রতিটি কোচ স্টেইনলেস স্টিলের তৈরি এবং অত্যাধুনিক যাত্রী সুবিধা সম্বলিত। প্রতিটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কোচে আধুনিক ও উন্নতমানের রুফ মাউন্টেড এয়ার কন্ডিশনার ইউনিট রয়েছে।

যাত্রী সাধারণের জন্য আধুনিক ও মানসম্মত চেয়ার, বার্থ, স্টেয়ার, পার্সেল রেক, টিভি মনিটর হ্যাঙ্গার, ওয়াই-ফাই রাউটার হ্যাঙ্গার, মোবাইল চার্জারের ব্যবস্থা রয়েছে। ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি ১২ টি কোচ দ্বারা চলবে। ট্রেনটিতে এসি সিট, এসি চেয়ার ও শোভন চেয়ার শ্রেণির সর্বমোট ৮৯৬ টি (৭৯৫ নং ট্রেনের ক্ষেত্রে) এবং এসি বার্থ, এসি চেয়ার ও শোভন চেয়ার শ্রেণির সর্বমোট ৮৭১ টি (৭৯৬ নং ট্রেনের ক্ষেত্রে) আসনের ব্যবস্থা থাকবে।

বেনাপোলে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, যশোর ১ আসনের সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দিন, ২ আসনের সংসদ সদস্য ডাঃ অধ্যাপক নাসির উদ্দিন, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক শামসুজ্জামান, জেলা প্রশাসক মোঃ শওকত হোসেন, বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরী, সিঅ্যান্ডএফ এ্যাসোসিয়েশনের  সভাপতি মফিজুর রহমান সজন প্রমুখ।

 

আপনার মতামত লিখুন :

শেরপুরে বৃদ্ধাকে গলা কেটে হত্যা

শেরপুরে বৃদ্ধাকে গলা কেটে হত্যা
শেরপুরের ম্যাপ

শেরপুরে ফরিদা বেগম (৬০) নামে এক বৃদ্ধাকে গলা কেটে হত্যা করেছে দূর্বৃত্তরা।

বুধবার (২১ আগস্ট) রাত সাড়ে ১১টার দিকে শেরপুর পৌর এলাকার গৌরিপুর মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ফরিদা ওই এলাকার মৃত আব্দুস সালামের স্ত্রী।

নিহতের নাতি শিহাব বলেন, ‘আমি শেরপুরে একটি মোটরসাইকেল শো-রুমে কাজ শেষে বাসায় যাই। এসময় ঘরে সামনে গিয়ে দরজা খোলার জন্য দাদীকে ডাকাডাকি করি। কিন্তু তিনি দরজা না খোলায় পাশের বাসা থেকে হাতুড়ি এনে তালা ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে দাদীকে গলা কাটা অবস্থায় পাই। এরপর চিকৎকার করলে আশপাশের লোকজন আসে। আমি আর কিছু জানি না।’

শেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আমিনুল ইসলাম বলেন, কে বা কারা বৃদ্ধার গলা কেটে রেখেছে আমরা ঘটনা উদঘাটনের চেষ্টা করছি। দ্রুত সময়ের মধ্যে আসামীকে গ্রেফতার করার চেষ্টা করছি।

গুড়ায় গভীর রাতে বাল্য বিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও-ওসি

গুড়ায় গভীর রাতে বাল্য বিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও-ওসি
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

গভীর রাতে বিয়ে বাড়িতে হাজির হয়ে বাল্য বিয়ে বন্ধ করলেন বগুড়ার শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)।

বুধবার (২১ আগস্ট) রাত সাড়ে ১১টায় এই দুই কর্মকর্তা হাজির হন মির্জাপুর ইউনিয়নের মাড়র খোলা গ্রামের আকিমুদ্দিনের বাড়িতে। কেননা সেখানে গভীর রাতে আয়োজন করা হয়েছিল নবম শ্রেনীর ছাত্রী আদরী খাতুনের (১৩)। বর পার্শ্ববর্তী ভাদরা গ্রামের মহসিনের ছেলে ইকবাল হোসেন (১৬)।

বিয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন কাজী সাহেব এমন সময় সেখানে হাজির হন ইউএনও লিয়াকত আলী শেখ ও শেরপুর থানার ওসি হুমায়ুন কবীর।

তাদেরকে দেখে বাল্য বিয়ের প্রস্তুতি ভন্ডুল হয়ে যায় মুহুর্তের মধ্যে। এসময় মেয়ের বাবা আকিমুদ্দিন তার মেয়েকে প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবে না মর্মে অঙ্গীকার নামা দেন।

এছাড়া বরকে ১০ দিনের কারাদণ্ড এবং মেয়েকে আটকের পর বয়স বিবেচনা করে তার বাবার জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়। ছেলের বাবা ও কাজী সাহেবের অর্থ দণ্ড করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ইউএনও লিয়াকত আলী শেখ।

শেরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ুন কবির বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র