Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

উখিয়ায় পাহাড়ি ঢলে রোহিঙ্গা সহোদর শিশুর মৃত্যু

উখিয়ায় পাহাড়ি ঢলে রোহিঙ্গা সহোদর শিশুর মৃত্যু
পাহাড়ি ঢলে প্লাবিত রোহিঙ্গা শিবির, ছবি: সংগৃহীত
উপজেলা করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়ান্টিফোর.কম
টেকনাফ


  • Font increase
  • Font Decrease

কক্সবাজারের উখিয়ায় পাহাড়ি ঢলে সহোদর রোহিঙ্গা শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) রাত ৮টার দিকে উখিয়া হাকিমপাড়া ১৪ নং রোহিঙ্গা শিবির থেকে পাহাড়ি ঢলে ভাসমান অবস্থায় লাশ দু’টি উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহতরা হল- উখিয়ার ১৪ নং হাকিমপাড়া রোহিঙ্গা শিবিরের ১৬নং ব্লকের আবদুস সালামের ছেলে আনোয়ার সাদেক (৭) ও আনোয়ার ফয়সাল (৬)।

এসব তথ্য জানিয়েছেন উখিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নুরুল ইসলাম।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালে প্রতিদিনের মতো পালংখালী ইউনিয়নের হাকিমপাড়া খেলার মাঠে খেলতে বের হন রোহিঙ্গা শিশুরা। এরপর সারাদিন ঘরে না ফেরায় পরিবার ও আশ পাশের লোকজন খুঁজতে বের হয়। এক পর্যায়ে রাতে ওই এলাকার পাহাড়ি ঢলে ভাসতে দেখে রোহিঙ্গা শিশু দু’টির লাশ উদ্ধার করা হয়।

উখিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নুরুল ইসলাম বলেন, পালংখালীর হাকিমপাড়ায় ১৪নং রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে পাহাড়ি ঢলে দুই সহোদর রোহিঙ্গা শিশু নিহতের খবরে সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

উখিয়া হাকিমপাড়া রোহিঙ্গা শিবির পুলিশ ফাঁড়ির ক্যাম্প ইনচার্জ এসআই আনবিক চাকমা বলেন, সাদেক ও ফয়সাল নামে দুই রোহিঙ্গা শিশুর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

উখিয়ার ১৪নং হাকিমপাড়া রোহিঙ্গা শিবিরের মাঝি মোহাম্মদ হামিদ বলেন, রাতে পুলিশের সহযোগিতায় পাহাড়ি ঢল থেকে দুই রোহিঙ্গা শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তারা আপন ভাই। সকালে ঘর থেকে খেলতে বের হয়ে লাশ হয়ে ফিরল।

আপনার মতামত লিখুন :

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পরিবহন নেতাদের লাগাতার ধর্মঘটের হুঁশিয়ারি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পরিবহন নেতাদের লাগাতার ধর্মঘটের হুঁশিয়ারি
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পরিবহন নেতাদের সংবাদ সম্মেলন

মহাসড়কে নিষিদ্ধ সব ধরনের অবৈধ যান চলাচল বন্ধসহ ৭ দফা দাবিতে লাগাতার পরিবহন ধর্মঘটের হুঁশিয়ারি দিয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নেতারা।

শনিবার (২০ জুলাই) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এ হুঁশিয়ারি দেয়া হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হানিফ।

তিনি বলেন, আদালতের নির্দেশনা অমান্য করে জেলার সড়ক-মহাসড়কে তিন চাকার যানবাহন বাধাহীনভাবে চলাচল করছে। নিষিদ্ধ যানবাহন চালানোয় মহাসড়কে দুর্ঘটনায় মানুষের জানমালের ক্ষতি হচ্ছে। এ বিষয়ে ৭ জুলাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ নেতাদের এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নেতাদের ৭ দফা দাবি বাস্তবায়ন না হলে ২৫ জুলাই ভোর ৬টা থেকে পরিবহন ধর্মঘট কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।  সাধারণ মানুষের জানমাল এবং পরিবহন সেক্টরের বৃহত্তর স্বার্থে সরকার এসব দাবি বাস্তবায়ন না করলে ওই দিন সকাল থেকে ধর্মঘট শুরু হবে।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি হাজী মো. জমশেদ, সহ-সভাপতি কাজী আজাদ, জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান চৌধুরী, লোকাল বাস পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. আবুল বাশার ও সাধারণ সম্পাদক নিয়ামত খানসহ আরো অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

কুশিয়ারা নদীর বাঁধ ঘুরে দেখলেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

কুশিয়ারা নদীর বাঁধ ঘুরে দেখলেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী
কুশিয়ারা নদীর বাঁধ পরিদর্শন করছেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী লে. কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক। ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম।

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে বন্যা দুর্গত এলাকা ও কুশিয়ারা নদীর বাঁধ পরিদর্শন করেছেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী লে. কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক।

শনিবার (২০ জুলাই) উপজেলার কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী এলাকা পাহাড়পুরের ঝুঁকিপূর্ণ বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ও নদী ভাঙন পরিদর্শন করেন তিনি।

পরিদর্শন শেষে এক প্রশ্নের জবাবে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী লে. কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক বলেন, ‘কুশিয়ারা নদীর বাঁধ নির্মাণ ও নদী খননের ব্যাপারে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে। আমরা অচিরেই প্রকল্পটি পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) উত্থাপন করব। প্রধানমন্ত্রী এই প্রকল্পটি অনুমোদন করলেই কাজ শুরু করতে পারব।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/20/1563613618572.jpg

তিনি আরও বলেন, ‘কুশিয়ারা নদীর বাঁধ সংস্কার ও খনন করলে নবীগঞ্জবাসী প্রতি বছর বন্যার জন্য যে দুর্ভোগ পোহায় তা থেকে রক্ষা পাবে। এছাড়া পর্যায়ক্রমে বিবিয়ানা নদীও খনন করা হবে।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- স্থানীয় সংসদ সদস্য গাজী মোহাম্মদ শাহনওয়াজ মিলাদ, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মাহফুজুর রহমান, অতিরিক্ত সচিব মাহমুদুল ইসলাম, প্রধান প্রকৌশলী উত্তর-পূর্বাঞ্চল নিজামুল হক, হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবির মুরাদ, নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ বিন হাসান, হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন স্বপন কুমার বসাক, মৌভলীবাজার ও এম ডিভিশনের প্রকৌশলী আব্দুস শহীদ, হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্বিক) এস এম ফজলুল হক, হবিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী তাওহিদুল ইসলাম, উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী এম এল সৈকত প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র