Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

‘জনগণকে সেবা দিতে হবে, না পারলে সরে যান’

‘জনগণকে সেবা দিতে হবে, না পারলে সরে যান’
গণশুনানিতে বক্তব্য দেন দুদক মহাপরিচালক সারোয়ার মাহমুদ, ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
বগুড়া


  • Font increase
  • Font Decrease

সরকারি কর্মকর্তা কর্রমচারীদের উদ্দেশে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মহাপরিচালক সারোয়ার মাহমুদ বলেছেন, ‘জনগণকে সেবা দিতে হবে, না পারলে সরে যান। আপনার জায়গায় আরেকজন আসবে। কারণ, রাষ্ট্রের ও সরকারের সঙ্গে আপনি চুক্তিবদ্ধ।’

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) উপজেলা পরিষদের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হাফিজার রহমান মিলনায়তনে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতির চিত্র নিয়ে আয়োজিত গণশুনানিতে তিনি এসব কথা বলেন।

দুদক মহাপরিচালক বলেন, ‘এ দেশের জনগণের সেবক আমরা। তাদের প্রতি আমাদের দায়বদ্ধতা আছে। তাদের কথা শুনতে হবে। তাদের কাজ করে দিতে হবে। না পারলে বলতে হবে কেন পারলাম না।’

তিনি আরও বলেন, ‘দুদক আপনার প্রতিষ্ঠান, বিদেশ থেকে আসেনি। জনসাধারণকে সেবা দেওয়া সরকারি কর্মকর্তাদের কাজ। কারণ, জনগণের করের টাকায় আমাদের বেতন হয়। স্বচ্ছতা বজায় রাখার চেষ্টা করবেন। কাউকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য আমাদের এ আয়োজন না। দুদক আপনাদেরকে শোধরানোর সময় দেবে। প্রথম পর্যায়ে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখা হবে। এরপর কোনো দুর্নীতির অভিযোগ পেলে তাদেরকে আর ক্ষমা করা হবে না।’

গণশুনানিতে আরও বক্তব্য দেন- দুদকের রাজশাহী বিভাগীয় পরিচালক মোরশেদ আলম, বগুড়ার জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদ, বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা বিপিএম বার, শিবগঞ্জ উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি রাম নারায়ন কানু।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ রিজু, পৌর মেয়র তৌহিদুর রহমান মানিক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রিজ্জাকুল ইসলাম রাজু, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আজিজুল হক, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তা, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মহিদুল ইসলাম, আব্দুল হাই প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেন।

আপনার মতামত লিখুন :

খোয়াই নদীতে ভেসে উঠল মরদেহ

খোয়াই নদীতে ভেসে উঠল মরদেহ
খোয়াই নদীতে ভেসে উঠল মরদেহ

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার জয়নগর এলাকায় খোয়াই নদীতে ভেসে থাকা অজ্ঞাত পরিচয় (৪৫) এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২১ জুলাই) বিকেল ৪টার দিকে হবিগঞ্জ সদর থানা পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মো. জিয়াউর রহমান জানান, মরদেহটি ফুলে গিয়ে নদীতে ভেসে উঠেছে। স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ উদ্ধার করে হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

শ্রেণিকক্ষের অভাবে মাটিতে বসে পাঠদান

শ্রেণিকক্ষের অভাবে মাটিতে বসে পাঠদান
প্রয়োজনের তুলনায় চেয়ার, টেবিল ও বেঞ্চ কিছুই নেই বিদ্যালয়টিতে, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলায় জাতীয়করণকৃত ১২টি বিদ্যালয়ের মধ্যে একটি জাগছড়া চা বাগান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টিতে শ্রেণিকক্ষ সঙ্কট থাকায় ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম। স্কুলের পাশে চা বাগানের হাসপাতালের একটি রুমে চলছে পাঠদান কার্যক্রম। এমনকি বিদ্যালয়টিতে নেই কোনো বসার ব্যবস্থা, নিরাপদ খাবার পানি, উন্নত স্যানিটেশন কিংবা অবকাঠামো ব্যবস্থা।

সূত্রে জানা যায়, এই প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৫৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর ২০১৪ সালে বিদ্যালয়টি সরকারি করা হলে এখনও পর্যন্ত কোনো পাকা ভবন নির্মাণ করা হয়নি। দোচালা টিনের ঘরে মাত্র দুটি শ্রেণিকক্ষে ৩০০ ছাত্র-ছাত্রীকে দুই শিফটে কোনোরকমে পাঠদান করা হচ্ছে।

এদিকে প্রয়োজনের তুলনায় চেয়ার, টেবিল ও বেঞ্চ কিছুই নেই বিদ্যালয়টিতে। ছাত্র-ছাত্রীদের মাটিতে বসে ক্লাস করতে হচ্ছে।

স্কুলের বাহিরে টেবিল নিয়ে অফিস বানিয়ে কোন রকমে প্রধান শিক্ষকসহ পাঁচজন শিক্ষক তাদের দাফতরিক কার্যক্রম পরিচালনা করেন। সকালের শিফটে দুটি কক্ষে ১ম ও ২য় শ্রেণির পাঠদান এবং বিকেলের শিফটে ৩য়, ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণির পাঠদান কার্যক্রম চালায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/21/1563706122113.jpg
স্কুলের বাহিরে টেবিল নিয়ে অফিস বানিয়ে দাফতরিক কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে

 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়টির ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষের মেঝেতে বসে ক্লাস করছে। ওই শ্রেণিতে ক্লাস করাচ্ছেন সহকারী শিক্ষিকা সালমা আক্তার। তিনি বলেন, 'গরমের মধ্যে ক্লাস করতে অনেক কষ্ট হচ্ছে। ছাত্র-ছাত্রীরা ঠাসাঠাসি করে মাটিতে বসেছে। এতে তাদের লেখাপড়ার সমস্যা হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা বেশ কষ্ট পায়। বিদ্যালয়ে বিদ্যমান ১টি শ্রেণিকক্ষে পর্যাপ্ত পরিমাণ বেঞ্চ নেই, ভাঙা কয়েকটি বেঞ্চ দিয়ে কোন রকমে চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে পাঠদান। অপর আরেকটি শ্রেণিকক্ষে কোন বেঞ্চ'ই নেই।'

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানায়, 'মাটিতে বসে আমাদের ক্লাস করতে হয়। এতে আমাদের অনেক কষ্ট হয়। গরমে আমরা একদম বসতেই পারি না।'

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কল্পনা রানী দাস বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'স্কুলে শ্রেণিকক্ষ সঙ্কটের কারণে ছাত্র-ছাত্রীদরে মেঝেতে বসিয়ে ক্লাস নিতে হচ্ছে। শ্রেণিকক্ষ সঙ্কটের কথা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তারা শুধু নতুন ভবনের আশ্বাস দিচ্ছেন।' 

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/21/1563706168582.jpg
জাগছড়া চা বাগান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

 

বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পরেশ কালেন্দি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'শ্রেণিকক্ষের অভাবে মাটিতে বসিয়ে কোমলমতি শিশুদের পাঠদান দেয়া হচ্ছে। অতি দ্রুত বিদ্যালয়ের অবকাঠামো উন্নয়ন ও শিক্ষার্থীদের বসার জন্য পর্যাপ্ত আসনের ব্যবস্থাসহ পাঠদানের উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টির জন্য কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করছি।' 

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল ইসলাম তালুকদার বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'এই বিদ্যালয়ের সমস্যার কথা সম্পর্কে অবগত আছি। অন্যান্য বিদ্যালয়গুলোতে নতুন ভবনের কাজ চলছে। আগামী দুই থেকে তিন মাসের মধ্যে এই বিদ্যালয়ে নতুন ভবনের কাজ শুরু হবে। এছাড়াও সকল সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।'

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র