Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

পঞ্চগড়ের কাঁঠাল যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন বাজারে

পঞ্চগড়ের কাঁঠাল যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন বাজারে
ছবি: বার্তা২৪
মোহাম্মদ রনি মিয়াজী
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
 পঞ্চগড় 


  • Font increase
  • Font Decrease

বাণিজ্যিকভাবে চাষ না হলেও দেশের উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ে কাঁঠালের ব্যাপক ফলন হয়। ফলে স্থানীয় চাহিদা মেটানোর পর এখানকার কাঁঠাল বিভিন্ন জেলায় রফতানি করা হয়। খুচরা বাজারে একটি পাকা কাঁঠাল ১০০-২০০ টাকায় এবং পাইকারি ৬০-১০০ টাকায় বিক্রি হয়। বিভিন্ন গ্রাম থেকে পাইকারি ব্যবসায়ীরা এসব কাঁঠাল কিনে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় রফতানি করেন।

জেলার বিভিন্ন এলাকায় বসন্ত-গ্রীষ্মকালে কাঁচা ও গ্রীষ্ম-বর্ষাকালে পাকা কাঁঠাল পাওয়া যায়। একটি গাছে অনেক কাঁঠাল ধরে। ফল বিক্রি করে বেশ মুনাফা হয়।

জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর এলাকার মমেনা খাতুন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘নিজেদের জন্য পাঁচটি কাঁঠাল গাছ লাগিয়েছিলাম কিন্তু চাহিদার অতিরিক্ত ফল হওয়ায় পাইকারদের কাছে বিক্রি করে দেই।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/20/1561031852266.jpg

জেলার আটোয়ারী উপজেলার বাসিন্দা কেরামত আলী বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘আমাদের এখানে বাণিজ্যিকভাবে কাঁঠাল চাষ করা হয় না। তাছাড়া বাড়তি পরিচর্যা প্রয়োজন না হওয়ায় সবাই বাড়ির আঙিনায় কাঁঠাল গাছ লাগান। মৌসুমের প্রথমে ভালো দাম পাওয়া যায়। তবে ফসল পচনশীল হওয়ায় পরবর্তীতে কম দামে পাইকারদের কাছে বিক্রি করতে হয়।’

কাঁঠালের পাইকারি ব্যবসায়ী মঞ্জু হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় পঞ্চগড়ের কাঁঠালের চাহিদা আছে। ফলে কাঁঠাল রফতানি করে বেশ লাভ হয়।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক আবু হানিফ বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘বাণিজ্যিকভাবে চাষ না হলেও বাড়ির আঙিনায় রোপণ করা গাছে প্রচুর ফল ধরে। ফলে পঞ্চগড়ের কাঁঠাল বিভিন্ন জেলায় রফতানি হচ্ছে।’

কাঁঠাল বাংলাদেশের জাতীয় ফল। কাঁঠালের ইংরেজী নাম Jackfruit। এই ফল সবার কাছেই কম বেশি প্রিয়। এ ফল আকারে বেশ বড় এবং পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ। কাঁঠালের ৪-৫টি কোয়ায় ১০০ কিলোক্যালরি শক্তি পাওয়া যায়। কাঁঠালের হলুদ রঙের কোষ ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ। অপুষ্টিজনিত সমস্যা যেমন- রাতকানা ও অন্ধত্ব প্রতিরোধে এ ফল অনেক উপকারী। শুধু ফল নয় কাঁঠাল কাঠের আসবাপত্র টেকসয়ী হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

ঘরে ঢুকে শিক্ষিকাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা

ঘরে ঢুকে শিক্ষিকাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা
ছবি: সংগৃহীত

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নে মুঞ্জুয়ারা বেগম (৪৫) নামের এক স্কুল শিক্ষিকাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) রাত সাড়ে ১১টার দিকে নাজিরপুর ইউনিয়নের গোপিনাথপুরে নিজ বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মঞ্জুয়ারা বৃ-কাশো সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা ছিলেন।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাহারুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি জানান, মঙ্গলবার রাতে শিক্ষিকা মুঞ্জুয়ারা নিজ ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। এ সময় দুর্বৃত্তরা তার ঘরে প্রবেশ করে তাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা তার চিৎকার শুনে এগিয়ে এলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

ওসি আরও জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ঘটনার মোটিভ ও হত্যাকারী শনাক্তের চেষ্টা চলছে।

কালীগঞ্জে আ'লীগের নির্বাচনী প্রচারণাস্থলে বোমা হামলা

কালীগঞ্জে আ'লীগের নির্বাচনী প্রচারণাস্থলে বোমা হামলা
ছবি: সংগৃহীত

সাতক্ষীরার কালীগঞ্জে একটি নির্বাচনী জনসভায় বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। কুশুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) উপ-নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর প্রচারণাস্থলে এ বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) দিবাগত রাত ৯টার দিকে উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের হালদারপাড়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য অ্যাড. শেখ মোজাহার হোসেন কান্টুর দাবি, তার নির্বাচনী জনসভায় বোমা হামলা চালানো হয়েছে।

তিনি জানান, নির্বাচনী প্রচারণার শেষ দিনে উপজেলার মোসলেমের হাটখোলায় সন্ধ্যায় শেষ নির্বাচনী জনসভা করেন। ওই জনসভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য মনসুর আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আব্দুল মান্নানসহ জেলা ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উক্ত জনসভা শেষে ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে প্রচারণার একপর্যায়ে গোবিন্দপুর হালদার পাড়ায় উঠান বৈঠক করছিলেন। বৈঠকের শেষ পর্যায়ে সেখানে দুর্বৃত্তরা বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়।

এ সময় লোকজন ছোটাছুটি শুরু করে। বিস্ফোরণের বিকট শব্দে তাৎক্ষণিকভাবে তিনি শ্রবণশক্তি হারিয়ে ফেলেন। বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় কয়েকজন কর্মী সমর্থক আহত হয়।

কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাসান হাফিজুর রহমান বোমা হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় কারা জড়িত সেটি বের করতে অনুসন্ধান শুরু হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র