Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ব্যবসায়ী নিহতের প্রতিবাদে বেনাপোলে ৩ ঘণ্টা পণ্য খালাস বন্ধ

ব্যবসায়ী নিহতের প্রতিবাদে বেনাপোলে ৩ ঘণ্টা পণ্য খালাস বন্ধ
বেনাপোলে ব্যবসায়ীদের প্রতিবাদ সভা। ছবি: বার্তা২৪.কম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
বেনাপোল (যশোর)


  • Font increase
  • Font Decrease

সড়ক দুর্ঘটনায় ট্রান্সপোর্ট ব্যবসায়ী শাহাদৎ হোসেন নেদু নিহতের প্রতিবাদে বেনাপোল স্থলবন্দর থেকে ৩ ঘণ্টা সব ধরনের পণ্য খালাস বন্ধ ছিল।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সকালে বেনাপোল কাস্টমস হাউজের সামনে প্রতিবাদ সভা করে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এই কর্মবিরতি পালন করে ব্যবসায়ীরা।

প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য দেন- বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট ইউনিয়নের সভাপতি কামাম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আজিম উদ্দীন গাজী, সহ সভাপতি কামরুজ্জামান লিটন, সাংগঠনিক সম্পাদক আতিকুজ্জামান সনিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, বেপরোয়া ও নিয়ন্ত্রণহীনভাবে গ্রিনলাইন পরিবহনের চালক গাড়ি চালানোর কারণে ব্যবসায়ী শাহাদৎ হোসেন নেদার জীবন দিতে হয়েছে। যখন দুর্ঘটনা হয়, তখন চালক বাস না থামিয়ে তাকে পিষেতে পিষেতে প্রায় ৫০ গজ টেনে নিয়ে যায়। এতে তার বাঁচার সম্ভাবনা আর ছিল না। চালক বাস থামালে তিনি আহত হলেও হয়তো জীবনে বেঁচে যেতেন। এমন ঘটনার জন্য চালকের ফাঁসি দাবি করেন বক্তারা।

এর আগে গতকাল বুধবার (১৯ জুন) বেনাপোল সড়কের আমড়াখালিতে গ্রিনলাইনের বাসচাপায় নিহত হন শাহাদৎ হোসেন নেদা। তিনি বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট ইউনিয়নের নেতা ছিলেন।

এদিকে বাসচাপায় ব্যবসায়ী নিহতের ঘটনায় গ্রিনলাইন পরিবহনের চালককে অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সকালে নিহতের ছেলে বুল বুল ইসলাম শাকিল বাদী হয়ে বেনাপোল পোর্ট থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

আরও পড়ুন:বেনাপোলে বাসচাপায় ট্রান্সপোর্ট ব্যবসায়ী নিহত

আপনার মতামত লিখুন :

শ্রেণিকক্ষের অভাবে মাটিতে বসে পাঠদান

শ্রেণিকক্ষের অভাবে মাটিতে বসে পাঠদান
প্রয়োজনের তুলনায় চেয়ার, টেবিল ও বেঞ্চ কিছুই নেই বিদ্যালয়টিতে, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলায় জাতীয়করণকৃত ১২টি বিদ্যালয়ের মধ্যে একটি জাগছড়া চা বাগান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টিতে শ্রেণিকক্ষ সঙ্কট থাকায় ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম। স্কুলের পাশে চা বাগানের হাসপাতালের একটি রুমে চলছে পাঠদান কার্যক্রম। এমনকি বিদ্যালয়টিতে নেই কোনো বসার ব্যবস্থা, নিরাপদ খাবার পানি, উন্নত স্যানিটেশন কিংবা অবকাঠামো ব্যবস্থা।

সূত্রে জানা যায়, এই প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৫৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর ২০১৪ সালে বিদ্যালয়টি সরকারি করা হলে এখনও পর্যন্ত কোনো পাকা ভবন নির্মাণ করা হয়নি। দোচালা টিনের ঘরে মাত্র দুটি শ্রেণিকক্ষে ৩০০ ছাত্র-ছাত্রীকে দুই শিফটে কোনোরকমে পাঠদান করা হচ্ছে।

এদিকে প্রয়োজনের তুলনায় চেয়ার, টেবিল ও বেঞ্চ কিছুই নেই বিদ্যালয়টিতে। ছাত্র-ছাত্রীদের মাটিতে বসে ক্লাস করতে হচ্ছে।

স্কুলের বাহিরে টেবিল নিয়ে অফিস বানিয়ে কোন রকমে প্রধান শিক্ষকসহ পাঁচজন শিক্ষক তাদের দাফতরিক কার্যক্রম পরিচালনা করেন। সকালের শিফটে দুটি কক্ষে ১ম ও ২য় শ্রেণির পাঠদান এবং বিকেলের শিফটে ৩য়, ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণির পাঠদান কার্যক্রম চালায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/21/1563706122113.jpg
স্কুলের বাহিরে টেবিল নিয়ে অফিস বানিয়ে দাফতরিক কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে

 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়টির ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষের মেঝেতে বসে ক্লাস করছে। ওই শ্রেণিতে ক্লাস করাচ্ছেন সহকারী শিক্ষিকা সালমা আক্তার। তিনি বলেন, 'গরমের মধ্যে ক্লাস করতে অনেক কষ্ট হচ্ছে। ছাত্র-ছাত্রীরা ঠাসাঠাসি করে মাটিতে বসেছে। এতে তাদের লেখাপড়ার সমস্যা হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা বেশ কষ্ট পায়। বিদ্যালয়ে বিদ্যমান ১টি শ্রেণিকক্ষে পর্যাপ্ত পরিমাণ বেঞ্চ নেই, ভাঙা কয়েকটি বেঞ্চ দিয়ে কোন রকমে চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে পাঠদান। অপর আরেকটি শ্রেণিকক্ষে কোন বেঞ্চ'ই নেই।'

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানায়, 'মাটিতে বসে আমাদের ক্লাস করতে হয়। এতে আমাদের অনেক কষ্ট হয়। গরমে আমরা একদম বসতেই পারি না।'

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কল্পনা রানী দাস বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'স্কুলে শ্রেণিকক্ষ সঙ্কটের কারণে ছাত্র-ছাত্রীদরে মেঝেতে বসিয়ে ক্লাস নিতে হচ্ছে। শ্রেণিকক্ষ সঙ্কটের কথা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তারা শুধু নতুন ভবনের আশ্বাস দিচ্ছেন।' 

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/21/1563706168582.jpg
জাগছড়া চা বাগান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

 

বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পরেশ কালেন্দি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'শ্রেণিকক্ষের অভাবে মাটিতে বসিয়ে কোমলমতি শিশুদের পাঠদান দেয়া হচ্ছে। অতি দ্রুত বিদ্যালয়ের অবকাঠামো উন্নয়ন ও শিক্ষার্থীদের বসার জন্য পর্যাপ্ত আসনের ব্যবস্থাসহ পাঠদানের উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টির জন্য কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করছি।' 

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল ইসলাম তালুকদার বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'এই বিদ্যালয়ের সমস্যার কথা সম্পর্কে অবগত আছি। অন্যান্য বিদ্যালয়গুলোতে নতুন ভবনের কাজ চলছে। আগামী দুই থেকে তিন মাসের মধ্যে এই বিদ্যালয়ে নতুন ভবনের কাজ শুরু হবে। এছাড়াও সকল সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।'

প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা

প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা
ট্রাম্পের কাছে অভিযোগ জানান প্রিয়া সাহা, ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের বিষয়ে মিথ্যা তথ্য দেয়ার অভিযোগে প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ এনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

রোববার (২১ জুলাই) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ পারভেজের আদালতে মো. আসাদ উল্লাহ নামে এক ব্যক্তি বাদী হয়ে আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। আদালতের বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে পরে আদেশ দেবেন বলে জানিয়েছেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, বাংলাদেশ একটি মুসলিম রাষ্ট্র হওয়ার পরেও ধর্মীয় শান্তি ও সম্প্রীতির রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বে পরিচিত লাভ করেছে। অন্যান্য রাষ্ট্রে মুসলমানরা যে সকল সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে তার চেয়ে অনেক গুণ বেশি সুযোগ সুবিধা বাংলাদেশে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ও অন্যান্য ধর্মের লোকজন ভোগ করছে। প্রিয়া সাহা একজন বাংলাদেশি নাগরিক হয়ে দেশের ভাবমূর্তির কথা চিন্তা না করে বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে হেয় করার জন্য ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে তিন কোটি ৭০ লাখ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান গুম হয়ে গেছে, মুসলিম মৌলবাদীরা ঘর-বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে এবং তার জায়গা দখল করেছে বলে বিচার চান। এটি বাংলাদেশের রাষ্ট্র ও সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ছাড়া কিছুই না। এটি রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল বলেও এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

মামলার বাদী মো. আসাদ উল্লাহ জানান, বিশ্বের কাছে বাংলাদেশকে হেয় করার জন্য প্রিয়া সাহা মিথ্যাচার করেছেন। এটি আমাকে আহত করেছে। তাই আমি স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলাটি দায়ের করেছি।

মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি সারোয়ার-ই-আলম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে জানান, আদালত মামলাটি গ্রহণ করেছেন। মামলাটি দেখে পরে আদেশ দেবেন বলে জানিয়েছেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র