Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

মেঘনা উপকূলে ভাঙন: ভাঙছে মানুষের স্বপ্নও

মেঘনা উপকূলে ভাঙন: ভাঙছে মানুষের স্বপ্নও
লক্ষ্মীপুরে মেঘনা নদীর উপকূলে ভাঙন/ ছবি: বার্তা২৪.কম
হাসান মাহমুদ শাকিল
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
লক্ষ্মীপুর


  • Font increase
  • Font Decrease

লক্ষ্মীপুরে প্রায় দুই যুগ ধরে ভাঙছে মেঘনা নদীর পাড়। মাইলের পর মাইল ভেঙে বিলীন হয়ে গেছে মেঘনার পেটে। একবার ভাঙার পর উপকূলের মানুষ অনেক স্বপ্ন নিয়ে বেশ দূরে আবার ঘর বাঁধে। কিন্তু কিছুদিন পর সেখানেও হানা দেয় ভাঙন। ফলে ভেঙে যায় হাজার হাজার মানুষের নতুন স্বপ্নও। মেঘনার ভাঙনে প্রতিদিনই নিঃস্ব হচ্ছে মানুষ, থামছে না উপকূলবাসীর কান্না।

ভাঙনে অতিষ্ট হয়ে উপকূলবাসীর মনে এখন নানা প্রশ্ন। ভাঙন কবে থামবে, কবে মেঘনা তীরের মানুষ শান্তিতে ঘুমাতে পারবে, কত ভাঙনে মেঘনার পেট ভরবে? এলাকাবাসী মনে করেন, মেঘনার ভাঙন ঠেকাতে প্রয়োজন টেকসই নদী তীর রক্ষা বাঁধ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/19/1560942439736.jpg

জানা গেছে, লক্ষ্মীপুর সদর, রায়পুর, কমলনগর ও রামগতি উপজেলা ঘিরে রেখেছে দেশের দীর্ঘতম নদী মেঘনা। গত দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে এই মেঘনার ভাঙনে এসব উপজেলার বিস্তীর্ণ জনপদ বিলীন হয়ে গেছে। সদরের চররমনী মোহন, রায়পুরের উত্তর চরবংশী, কমলনগরের চর ফলকন, চর কালকিনি, লুধুয়া, পাটারিরহাট, সাহেবের হাট, রামগতির চর আবদুল্লাহ, চর আলেকজান্ডারসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন ও বিস্তীর্ণ জনপদ ভাঙন কবলিত।

আরও জানা গেছে, ২০১৪ সালে একনেক সভায় কমলনগর-রামগতি রক্ষায় ৩৭ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণের প্রকল্প পাস হয়। প্রথম পর্যায়ে রামগতিতে সাড়ে চার ও কমলনগর উপজেলায় এক কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয়। দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজ শুরু হওয়ার কথা থাকলেও এখনো তা হয়নি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/19/1560942461998.jpg

গত মার্চ মাসে লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি ও কমলনগর) আসনের সংসদ সদস্য মেজর (অব.) আবদুল মান্নান এক সভায় জানান, রামগতি-কমলনগর রক্ষা প্রকল্পটি ২০১৮ সালের ৪ এপ্রিল বাতিল করা হয়েছে। তবে এ খবর শোনার পর উপজেলার প্রায় সাত লাখ মানুষ ভিটে রক্ষায় বিভিন্ন আন্দোলন করে যাচ্ছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২০ বছরে নদীর ভাঙনে ৩১টি বড় হাট-বাজার, ৩৫ শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, ৩০টি সাইক্লোন শেল্টার, ৫২টি মোবাইল নেটওয়ার্ক টাওয়ার, ৪০০ কিলেমিটার কাঁচা-পাকা সড়ক, ৩৭ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনে তলিয়ে গেছে ৫০ হাজার একর ফসলি জমি ও ৪৫ হাজার বাড়িসহ কয়েক হাজার কোটি টাকা মূল্যের সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/19/1560942505907.jpg

স্থানীয়রা জানান, রামগতি-কমলনগর উপজেলার ৩২ কিলোমিটার এলাকা এখনো ভাঙন কবলিত। যেকোনো সময় বিস্তীর্ণ এলাকা বিলীন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

কমলনগরের চর কালকিনি গ্রামের বাসিন্দা আবু সাইয়েদ মিয়া বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘উপজেলার মতিরহাট থেকে প্রায় তিন কিলোমিটর দূরে নদী ছিল। এর মধ্যে দুটি বড় বাজারও ছিল। সব ভেঙে মতিরহাট বাজারও নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। পরে বাঁধ নির্মাণ করায় ভাঙন থেমেছে। এখানে আমার পুরাতন বাড়ির একটি গাছ ছাড়া আর কিছুই নেই। পরে নদীর তীরেই আবার বাড়ি করেছি।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/19/1560942526309.jpg

পাটারিরহাট ইউনিয়নের আবদুল জব্বার বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘দুইবার আমার বাড়ি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। নদী ভাঙনের কবলে পরে অনেকে এলাকা ছাড়া। অনেকে সড়ক ও বিভিন্ন বাঁধের পাশে বসবাস করছেন। মেঘনার ভাঙন এখনও বেড়েই চলেছে।’

লক্ষ্মীপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মুসা বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘অনেক আগেই প্রথম পর্যায়ে নদীর তীর রক্ষা বাঁধের কাজ শেষ হয়েছে। কিন্তু দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজের এখনো বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। এজন্য কাজও শুরু করা যায়নি। ভাঙন রোধে দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজ শুরুর জন্য বরাদ্দ চেয়ে মন্ত্রণালয়ে কাগজপত্র পাঠানো হয়েছে।’

আপনার মতামত লিখুন :

কর্নেল তাহেরের ৪৩তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

কর্নেল তাহেরের ৪৩তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত
শহীদ কর্নেল আবু তাহের, ছবি: সংগৃহীত

ফরিদপুরে শহীদ কর্নেল আবু তাহের বীরউত্তম এর ৪৩তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত হয়েছে। 'কর্নেল আবু তাহের বীর উত্তমকে রাষ্ট্রীয় ভাবে সম্মানিত করো' শীর্ষক স্লোগানে দিনটি পালন করে বিপ্লবী কর্নেল তাহের মঞ্চ ফরিদপুর।

রবিবার (২১ জুলাই) বিকেলে শহরের গোয়ালচামট মহিম ইনস্টিটিউশন স্কুলের হল রুমে স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়। সভার শুরুতে কর্নেল তাহেরের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/21/1563717108090.jpg
স্মরণ সভায় কর্নেল তাহেরকে রাষ্ট্রীয়ভাবে সম্মানিত করার দাবি জানানো হয়

 

স্মরণ সভায় কমরেড আশরাফ উদ্দিন তারার সঞ্চালনায় ও তাহের মঞ্চ ফরিদপুরের সভাপতি আব্দুস সালাম মল্লিকের সভাপতিত্বে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ফরিদপুর জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক ডাঃ আতিয়ার রহমান, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক মোঃ সাইদ মেম্বার, থানা শাখার সম্পাদক মোঃ সিদ্দিক মোল্যা, শহর শাখার সভাপতি মোহাম্মাদ আলী দেওয়ান, জাসদ নেতা মোঃ আনোয়ার শেখসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

উপস্থিত বক্তরা কর্নেল তাহেরকে রাষ্ট্রীয়ভাবে সম্মানিত করার দাবি জানান। 

এক গাছ একটি প্রাণ: ডিসি ফরিদপুর

এক গাছ একটি প্রাণ: ডিসি ফরিদপুর
ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক তার অফিস চত্বরে তরুছায়ার পক্ষ থেকে দেওয়ার একটি বৃক্ষরোপণ করেন/ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

 

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) অতুল সরকার বলেছেন, একটি গাছ মানেই হচ্ছে একটি প্রাণ। গাছকে তুচ্ছ ভাবার কোন সুযোগ নেই। আগামীতে সুষ্ঠ সুন্দর পরিবেশে জীবন যাপন করতে হলে প্রচুর গাছ লাগাতে হবে। ভবিষ্যতে আমারদের প্রতিকূল আবহাওয়া মোকাবেলা করতে হলে গাছই হবে রক্ষা কবজ।

রোববার (২১ জুলাই) দুপুরে ফরিদপুরের স্বেচ্ছাসেবক সংগঠন তরুছায়ার কর্মীদের সঙ্গে নবাগত জেলা প্রশাসকের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে জেলা প্রশাসক অতুল সরকার এসব কথা বলেন। এ সময় ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক তার অফিস চত্বরে তরুছায়ার পক্ষ থেকে দেওয়ার একটি বৃক্ষরোপণ করেন।

এ সময় স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালন মনিরুজ্জামান, চরভদ্রাসন উপজেলা চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন, আলফাডাঙ্গা পৌর মেয়র সাইফুর রহমান সাইফার, তুরুছায়ার সভাপতি খালিদ মাহমুদ সজিব, সাধারন সম্পাদক তানভীর সাকিব, এনামুল হাসানসহ তরুছায়া পরিবারের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র