Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

আসেনি আদেশ কপি, নদীতে ভাসছে নৌ-অ্যাম্বুলেন্স

আসেনি আদেশ কপি, নদীতে ভাসছে নৌ-অ্যাম্বুলেন্স
আদেশ কপি না আসায় নদীতে পড়ে থাকা নৌ-অ্যাম্বুলেন্স, ছবি: সংগৃহীত
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
চাঁদপুর


  • Font increase
  • Font Decrease

চাঁদপুরের নদীসিকিস্তি চরাঞ্চলবাসীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্দকৃত নৌ-অ্যাম্বুলেন্সের আদেশ কপি হস্তান্তর না হওয়ায় এখনো ব্যবহার হচ্ছে না। ফলে পরিত্যক্ত অবস্থায় পানিতে ভাসছে অ্যাম্বুলেন্সটি। এতে চরাঞ্চলের মানুষ স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৭ অক্টোবর চাঁদপুরের জন্য বরাদ্দ হিসেবে নিয়ে আসা হয় নৌ-অ্যাম্বুলেন্সটি। চলতি বছর এটি চাঁদপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনার আওতায় আসে। শুধুমাত্র আদেশ পাওয়ার আশায় এটি এখন চাঁদপুর শহরের মুখার্জীঘাট এলাকার ডাকাতিয়া নদীর তীরে পানিতে ভাসছে।

চাঁদপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জনবল না থাকার কারণে ওয়াটার অ্যাম্বুলেন্সটি চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের কাছে স্বাস্থ্য অধিদফতর বরাদ্দ হিসেবে আদেশ প্রদান করেন। আদেশের কপিটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে না পৌঁছার কারণে তা এখনো বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে না।

এ বিষয়ে রজরাজেশ্বর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী হযরত আলী বেপারী বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘চরাঞ্চলের মানুষ স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বর্তমান সরকার স্বাস্থ্য সেবায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। প্রতিটি মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দিতে অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন। ইতোপূর্বে এমন একটি ওয়াটার অ্যাম্বুলেন্স চাঁদপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ে পড়ে থেকে নষ্ট হয়ে গেছে। বর্তমানে আসা অ্যাম্বুলেন্সটি মুখার্জী ঘাট এলাকায় ডাকাতিয়ার তীরে পড়ে থেকে নষ্ট হয়ে যাবে।’

তবে ঢাকায় অবস্থান করায় চাঁদপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সাজেদা বেগম পলিনের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

আপনার মতামত লিখুন :

শিশুর মাথা কাটার ঘটনার সঙ্গে পদ্মা সেতু গুজবের সম্পর্ক নেই

শিশুর মাথা কাটার ঘটনার সঙ্গে পদ্মা সেতু গুজবের সম্পর্ক নেই
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

নেত্রকোনায় শিশুর মাথা কাটার ঘটনার সঙ্গে পদ্মা সেতু গুজবের কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরী।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) দুপুরে নেত্রকোনা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, গত বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে নেত্রকোনা পৌর শহরের কাটলি এলাকার বাসিন্দা রইছ উদ্দিনের ছেলে শিশু সজিব মিয়াকে (৭) নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। হত্যাকারী একই এলাকার বাসিন্দা এখলাছ মিয়ার ছেলে রবিন মিয়া (৩০)। এ হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেলে ধরা ও পদ্মা সেতুর গুজবের সাথে মিশিয়ে মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। এটি নিতান্তই বিভ্রান্তিমূলক ও অসত্য। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তদন্তাধীন বিষয়ে মনগড়া ও অসত্য তথ্য দিয়ে প্রচার-প্রচারণা চালানো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপরাধ। ঘটনাটির সাথে পদ্মা সেতু গুজবের কোনো সম্পৃক্ততা নেই।

পদ্মা সেতু ও ছেলে ধরা সংক্রান্ত গুজবে কান না দিতে নেত্রকোনা তথা দেশবাসীকে অনুরোধ জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন: নেত্রকোনায় শিশু ও অভিভাবকদের মধ্যে ‘মাথা কাটা’ আতঙ্ক

আরও পড়ুন: ব্যাগের ভেতর শিশুর মাথা, গণধোলাইয়ে যুবকের মৃত্যু

আরও পড়ুন: নেত্রকোনায় ছেলে ধরা সন্দেহে যুবক আটক

কেন্দুয়ায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধা নিহত

কেন্দুয়ায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধা নিহত
প্রতীকী ছবি

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় জুবেদা আক্তার (৬৫) নামে এক বৃদ্ধা মারা গেছেন। শুক্রবার (১৯ জুলাই) দুপুরে কেন্দুয়া পৌর শহরের কমলপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত জুবেদা আক্তার কমলপুর গ্রামের মৃত সাহাব উদ্দিনের স্ত্রী।

স্থানীয়রা জানান, দুপুরে জুবেদা আক্তার তার বাবার বাড়ি কেন্দুয়া পৌর শহরের বাদে আঠারবাড়ি গ্রাম থেকে অটোরিকশায় স্বামীর বাড়ি কমলপুর গ্রামে যাচ্ছিলেন। কমলপুর এলাকায় গিয়ে অটোরিকশা থেকে নামলে একটি মোটরসাইকেল তাকে ধাক্কা দেয়। এতে মারাত্মক আহত তিনি। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে দুপুর ২টার দিকে চিকিৎসক ডা. পিয়াস পাল তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র