Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

হবিগঞ্জে বেড়েছে অপরাধ প্রবণতা, এক সপ্তাহে ৫ খুন

হবিগঞ্জে বেড়েছে অপরাধ প্রবণতা, এক সপ্তাহে ৫ খুন
ছবি: সংগৃহীত
কাজল সরকার
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
হবিগঞ্জ


  • Font increase
  • Font Decrease

হবিগঞ্জে হঠাৎ করেই বেড়েছে অপরাধ প্রবণতা। গত এক সপ্তাহে হবিগঞ্জে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুনসহ মোট ৫টি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। একই সাথে বেড়েছে সংঘর্ষ, চুরি-ছিনতাই ও রাহাজানির ঘটনা। সংশ্লিষ্টদের ধারণা, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবণতির কারণেই অপরাধ বাড়ছে। আর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দাবি, অলস সময়ের কারণেই তুচ্ছ ঘটনায় অপরাধে জড়াচ্ছে সাধারণ মানুষ।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, জমি নিয়ে বিরোধের জেরে গত ৮ জুন মাধবপুরে শাহজাহান মিয়া (৩৫) নামে এক চা দোকানিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ৭ জুন লাখাইয়ে সমিতির টাকা ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত হন জহিরুল ইসলাম (৩৫) নামে এক ব্যক্তি এবং আহত হন পুলিশসহ ৩৫ জন। ঘটনায় পরদিন পুলিশ গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মামলা করে।

গত ১৩ জুন বাহুবলে কাওছার মিয়া তার স্ত্রী রুমা বেগমকে (৩৫), ১২ জুন চুনারুঘাটে উপজেলার মিরাশী ইউনিয়নের আদমপুর গ্রামের মো. ফরিদ মিয়া তার স্ত্রী রীনা আক্তারকে (৩৫) শ্বাসরোধ করে। গত ১১ জুন জেলার শায়েস্তাগঞ্জে পারিবারিক কলহের জেরে কিশোর দাস তার স্ত্রী মুক্তা রাণী দাসকে কুপিয়ে হত্যা করে।

এদিকে, জেলায় শুধু খুনই নয়, সমান তালে বেড়েছে চুরি ছিনতাই ও ডাকাতির ঘটনা। এমনকি ছিনতাইকারীর হাতে খুন হচ্ছেন অনেকে। গত ২৭ মে টমটম অটোরিকশা চালক সাবাজ মিয়াকে (২৫) শহরের আনোয়ারপুর এলাকা থেকে শায়েস্তাগঞ্জ যাওয়ার জন্য ভাড়া করেন একদল ছিনতাইকারী। ধুলিয়াখাল বাইপাস এলাকায় পৌঁছালে ছিনতাইকারীরা চালক সাবাজ মিয়াকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে রাস্তার পাশে ফেলে দেয়। পরে ছিনতাইকারীরা টমটম নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। যদিও এ সময় পুলিশ তিন ছিনতাইকারীকে আটক করে।

গত ১০ জুন চুনারুঘাট উপজেলার রানীগাঁও ইউনিয়নের চাটপাড়া গ্রামে ও ১১ জুন ভোররাতে বাহুবল উপজেলার হরিপাশা গ্রামের ব্যবসায়ী মো. মকসুদ মিয়ার বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ডাকাতরা পরিবারের সদস্যদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ঘরে থাকা নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার ও মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে। অপরদিকে, হবিগঞ্জ শহরে মোটরসাইকেল চুরির হিড়িক পড়েছে। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি সাংবাদিক এবং পুলিশও রেহাই পাচ্ছেন না চোরদের কাছ থেকে।

গত ১১ জুন সদর হাসপাতালের সামন থেকে সাংবাদিক ফরহাদ হোসেনের মোটরসাইকেল, ১০ জুন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে থেকে তরফ বার্তার সম্পাদক এবং উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান আউয়ালের মোটরসাইকেল চুরি হয়।

হঠাৎ জেলায় অপরাধ বেড়ে যাওয়ায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন সংশ্লিষ্ট সচেতন মহল। তাদের দাবি, আইন-শৃঙ্খলার অবণতির কারণেই এসব অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহীনিকে আরও সতর্ক হতে হবে।

এ ব্যাপারে সাংবাদিক ও আইনজীবী এমএ মজিদ বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘আইনের ফাঁক দিয়ে অপরাধীরা সহজেই জামিন পেয়ে যায়। এছাড়া মামলার দীর্ঘসূত্রীতার কারণে অপরাধীরা বারবার অপরাধ করতে দ্বিধা করে না। আর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা প্রশাসনিক কাজে বেশি ব্যস্ত থাকায় জেলার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থির প্রতি তাদের তেমন নজর নেই। ফলে জেলায় অপরাধ প্রবণতা বাড়ছে।’

মানবাধিকার সংগঠন ‘অ্যাসোসিয়েশন ফর ল রিসার্চ অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস’ (এলার্ট)-এর হবিগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি ও সিনিয়র আইনজীবী মনসুর উদ্দিন আহমেদ ইকবাল বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘ইদানিং হবিগঞ্জে সংঘর্ষ, খুন, চুরি-ডাকাতি, ছিনতাই-রাহাজানি উদ্বেগজনকহারে বেড়েছে। মূলত জনসচেতনতার অভাবের কারণে এসব হচ্ছে। তাই এসব বন্ধে স্থানীয় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও পুলিশসহ সবাইকে যৌথভাবে কাজ করতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আইনের সঠিক প্রয়োগ না থাকায় ও অপরাধীদের সাজা না হওয়ায় অপরাধ প্রবনতা বাড়ছে। এর জন্য আইনের সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।’

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘বর্ষার মৌসুম হওয়ায় সাধারণ মানুষ অনেকটা অলস সময় কাটচ্ছে। এ সময় তুচ্ছ বিষয় নিয়ে তারা আপন ভাই, আত্মীয়-স্বজন, এমনকি স্ত্রীর সঙ্গে কাটাকাটিতে জড়াচ্ছে। এক পর্যায়ে খুন করতে দ্বিধা করছে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘হবিগঞ্জ অত্যন্ত সংঘর্ষপ্রবণ এলাকা। ফলে সংঘর্ষ প্রতিরোধে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ইউনিয়নে প্রতিনিধি পাঠিয়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন করা হচ্ছে। এছাড়া কুইজ ও বিতর্ক প্রতিযোগিতাসহ বিভিন্ন প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হচ্ছে।’

আপনার মতামত লিখুন :

কেন্দুয়ায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধা নিহত

কেন্দুয়ায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধা নিহত
প্রতীকী ছবি

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় জুবেদা আক্তার (৬৫) নামে এক বৃদ্ধা মারা গেছেন। শুক্রবার (১৯ জুলাই) দুপুরে কেন্দুয়া পৌর শহরের কমলপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত জুবেদা আক্তার কমলপুর গ্রামের মৃত সাহাব উদ্দিনের স্ত্রী।

স্থানীয়রা জানান, দুপুরে জুবেদা আক্তার তার বাবার বাড়ি কেন্দুয়া পৌর শহরের বাদে আঠারবাড়ি গ্রাম থেকে অটোরিকশায় স্বামীর বাড়ি কমলপুর গ্রামে যাচ্ছিলেন। কমলপুর এলাকায় গিয়ে অটোরিকশা থেকে নামলে একটি মোটরসাইকেল তাকে ধাক্কা দেয়। এতে মারাত্মক আহত তিনি। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে দুপুর ২টার দিকে চিকিৎসক ডা. পিয়াস পাল তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

ব্রহ্মপুত্রের পানিতে ডুবে আছে চিলমারী

ব্রহ্মপুত্রের পানিতে ডুবে আছে চিলমারী
বাঁশঝাড়ের নিচে মাচা তৈরি করে আশ্রয় নিয়েছে চিলমারীর এই পরিবারটি/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

কুড়িগ্রাম থেকেঃ ব্রহ্মপুত্রের পানিতে প্লাবিত হয়েছে চিলমারী উপজেলার সবকটি ইউনিয়ন। উলিপুর-চিলমারী সড়কপথের বেশকিছু জায়গায় রাস্তার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পানি। ইতোমধ্যে চিলমারী থানায় কোমড় সমান পানি জমেছে।

চিলমারী খাদ্য গুদামে হাঁটু পানি, উপজেলা পরিষদ সহ সকল সরকারি প্রতিষ্ঠান পানির নিচে। পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের সাব-স্টেশনে পানি প্রবেশ করেছে। ফলে উপজেলার পুরো এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563529336611.gif

বন্যার পানিতে কুড়িগ্রাম-চিলমারী রেলপথের উলিপুর অংশের কয়েক জায়গা প্লাবিত হয়েছে। আরও কয়েক জায়গায় পানি রেলপথ ছুঁই ছুঁই করছে। এ অবস্থায় ঐ রেলপথে ট্রেন চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এছাড়াও বন্যাদুর্গত লোকজন রেললাইনের ওপর আশ্রয় নেওয়ায় বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকাল থেকে কুড়িগ্রাম-চিলমারী রেল যোগাযোগ বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন লালমনিরহাট রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার হারুন অর রশিদ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563529351678.gif

চিলমারী উপজেলা চেয়ারম্যান বীরবিক্রম শওকত আলী সরকার বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, '৩০ বছর পর এমন বন্যা দেখলাম। এর আগে ১৯৮৮ তে বন্যা দেখেছি। খুবই ভয়াবহ অবস্থা। হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দি রয়েছে। তবে পানিবন্দি মানুষের তুলনায় পর্যাপ্ত ত্রাণ ও শুকনো খাবার এখন পৌঁছানো ও বিতরণ করা হয়নি।'

এদিকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানায়, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত কুড়িগ্রামের ৯টি উপজেলার বন্যা দুর্গতদের জন্য দুই হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, ৫০০ মেট্রিক টন চাল, ৪৫০টি তাবু ও ১৩ লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ত্রাণ ও শুকনো খাবার বিতরণ কার্যক্রম অব্যহত রয়েছে। জেলার ১৪৫টি আশ্রয়কেন্দ্রসহ বন্যাপ্লাবিত এলাকায় ৮৫টি মেডিকেল টিম স্বাস্থসেবা প্রদান করছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র